আজঃ মঙ্গলবার ২৮ জুন ২০২২
শিরোনাম

মঠবাড়িয়ায় জোর পূর্বক জমি দখল করে গাছ পালা কর্তনের অভিযোগ

প্রকাশিত:বৃহস্পতিবার ২৩ জুন ২০২২ | হালনাগাদ:বৃহস্পতিবার ২৩ জুন ২০২২ | ২৯০জন দেখেছেন
দর্পণ নিউজ ডেস্ক

Image

মনিরুল ইসলাম, মঠবাড়িয়া:

পিরোজপুরের মঠবাড়িয়ায় জোর পূর্বক জমি দখল করে বাড়ির লক্ষাধিক টাকার ফলজ গাছ পালা কর্তনের অভিযোগ পাওয়া গেছে। এ ব্যাপারে রাকিব হোসেন হাওলাদার বাদী হয়ে মোঃ আবু তাহের ওরফে আলিফ (২৫), মোঃ সাখাওয়াত হোসেন শাহাদাত (৩৫) পিতা মোঃ নজরুল ইসলাম ফুল মিয়া, তানবীর আলম রিংকু হাওলার (৩০), পিতা মেজবাহুল আলম দুলাল হাওলাদার সর্ব সাং উত্তর মিঠাখালী সহ ৭/৮ জন কে অজ্ঞাত নামা আসামী করে মঠবাড়িয়া সিনিয়র জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট আদালতে একটি মামলা দায়ের করেন।

মামলা সূত্রে জানা যায়, উপজেলার উত্তর মিঠেখালি গ্রামের নুরুল ইসলামের ছেলে রাকিব হোসেন হাওলাদার উত্তর মিঠাখালী মৌজার জে, এল নং ৩৭/৬৬ খতিয়ান নং এস এ ১১০৪, দাগ নং ২৪৫৯/২৫৫৯ এর ১৩ শতাংশ জমি ০৭/০৪/২০১০ তারিখে ২২৬৬ নং দলীল মুলে দাতা ফোরকানের কাছ থেকে ক্রয় করে ভোগ দখল করে আসছে। কিন্তু ব্যবসা বাণিজ্যের তাগিদে রাকিব হোসেন তার পরিবার নিয়ে বর্তমানে ঢাকায় বসবাস করার সুযোগে আসামীর প্রায় তার বাড়ির ফলফলাদি লুটেপুটে খাওয়ার চেষ্টা করে। তারই ধারাবাহিকতায় ১৮/০৬/২২ তারিখে আসামীরা জোটবদ্ধ হয়ে অনাধিকার বাড়ির ভিতর প্রবেশ করিয়া সকল গাছপালা কর্তন করে দেশিয় অস্ত্র দিয়ে ঘরের বেড়া কেটে ১ লক্ষ পঞ্চাশ হাজার টাকা মূল্যের সেগুন কাঠের দুটি খাটসহ মালামাল লুট করে নেয়। এতে রাকিবের বোনসহ স্থানীয়রা বাঁধা দিলে তাদেরকে খুন জখমের হুমকি দিয়ে অকথ্য ভাষায় গালাগালি করে ঘর বাড়ি পিটিয়ে ভেঙে চলে যায়।

এ ব্যাপারে প্রতিপক্ষের কাছে জানতে চাইলে তারা জমির বিরোধের কথা স্বীকার করে ও জমি দখলসহ লুটপাটের বিষয়টি অস্বীকার করেন।

নিউজ ট্যাগ: মঠবাড়িয়া

আরও খবর



নাট-বল্টু খোলা যুবকের গিল্টি মাইন্ড রয়েছে: সিআইডি

প্রকাশিত:সোমবার ২৭ জুন ২০২২ | হালনাগাদ:সোমবার ২৭ জুন ২০২২ | ৪৩৫জন দেখেছেন
দর্পণ নিউজ ডেস্ক

Image

সিআইডির সাইবার পুলিশের বিশেষ পুলিশ সুপার মো. রেজাউল মাসুদ বলেছেন, ‌পদ্মা সেতুর নাট-বল্টু হাত দিয়ে খোলা সম্ভব নয়। এতে বোঝা যায় এটি হাত দিয়ে খোলা হয়নি, সরঞ্জাম ব্যবহার করা হয়েছে।

সোমবার (২৭ জুন) দুপুরে সংবাদ সম্মেলনে এসব কথা বলেন তিনি। পদ্মা সেতুর রেলিংয়ের নাট-বল্টু খুলে নিয়ে টিকটক ভিডিও করা বায়েজিদ তালহা নামের সেই যুবককে আটক করার পর এই সংবাদ সম্মেলন করা হয়।

রেজাউল মাসুদ আরও বলেন, সেতুর নাট-বল্টু খোলা অন্তর্ঘাতমূলক কাজ। যারা এ কাজ করেছে, তাদের সবাইকে আইনের আওতায় আনা হবে।

আটক বায়েজিদের বিরুদ্ধে পদ্মা সেতু দক্ষিণ থানায় বিশেষ ক্ষমতা আইনে একটি মামলা হয়েছে জানিয়ে রেজাউল মাসুদ বলেন, বায়েজিদ ছাড়াও তার সহযোগী অজ্ঞাতনামা আরও কয়েকজনকে এ মামলায় অভিযুক্ত করা হয়েছে।’ এর আগে রোববার (২৬ জুন) বিকেলে বায়েজিদকে রাজধানীর শান্তিনগর এলাকা থেকে আটক করে সিআইডি। তার বাড়ি পটুয়াখালীতে।


আরও খবর



মেয়াদোত্তীর্ণ ও বিবাহিতদের দিয়ে চলছে ছাত্রলীগের কার্যক্রম

প্রকাশিত:মঙ্গলবার ৩১ মে ২০২২ | হালনাগাদ:মঙ্গলবার ৩১ মে ২০২২ | ১২৭০জন দেখেছেন

Image

ঈশ্বরগঞ্জ (ময়মনসিংহ) প্রতিনিধি:

কমিটির মেয়াদ শেষ হয়, নেতৃত্ব ফুরায় না। গত এক দশকের কার্যক্রম দেখলে ছাত্রলীগের ক্ষেত্রে কথাটি সহজেই বলা যায়। দেশের অন্যতম এই প্রাচীন ছাত্রসংগঠনটির কোনো কোনো ইউনিটের কমিটির মেয়াদ শেষ হয়েছে ৯ বছর আগে। অথচ এখনো দিব্যি সেই কমিটি নেতৃত্ব দিয়ে যাচ্ছে ইউনিটের। এভাবে বছরের পর বছর সাংগঠনিক ইউনিটগুলোর কমিটি না করেই চলছে ছাত্রলীগ।

ময়মনসিংহের ঈশ্বরগঞ্জে মেয়াদোত্তীর্ণ ও বিবাহিতদের দিয়ে চলছে উপজেলা ছাত্রলীগের কার্যক্রম। ফলে নতুন নেতৃত্ব সৃষ্টিতে বাধাগ্রস্ত হচ্ছে। অপরদিকে গতি হারাচ্ছে ছাত্রলীগের সাংগঠনিক কার্যক্রম।

৭ বছর আগে ২০১৫ সালে ২০ জুলাই এ কে এম ফরিদ উল্লাহকে সভাপতি এবং হাসান মাহমুদকে সাধারণ সম্পাদক করে উপজেলা ছাত্রলীগের কমিটি গঠন করা হয়। ওই কমিটির মাধ্যমে বিভিন্ন ইউনিয়ন ও ছাত্রলীগের ইউনিটগুলোকে পুনর্গঠন করা, সাংগঠনিক কার্যক্রম বৃদ্ধি করার কথা ছিল। কিন্তু ওই কমিটি গঠনের পর আশানুরূপ অগ্রগতি দেখাতে পারেননি কমিটির নেতারা। এক বছর মেয়াদি কমিটি ৭ বছর পার হলেও কমিটির কার্যক্রম চলছে খুঁড়িয়ে খুঁড়িয়ে।

শুরু থেকে উপজেলা ছাত্রলীগ দুই মেরুতে অবস্থান নিয়ে দ্বিধাবিভক্ত ছিল। উপজেলা ছাত্রলীগের সভাপতি এ কে এম ফরিদ উল্লাহ ও সাধারণ সম্পাদক হাসান মাহমুদ মধ্যে বরাবরই মনস্তাত্ত্বিক লড়াই বিদ্যমান ছিল।

ইউনিয়ন ছাত্রলীগের কমিটি করা হলেও এগুলোর বেশির ভাগই মেয়াদ উত্তীর্ণ। বিবাহিত, অছাত্র দিয়েই করা হয় ইউনিয়ন কমিটি। ইউনিয়ন গুলোতে নতুন নেতৃত্ব না থাকায় গতি হারিয়েছে ছাত্রলীগের কার্যক্রম।

এ ছাড়াও উপজেলা ছাত্রলীগের সভাপতি এক ছেলে সন্তানের পিতা হয়েছেন। উপজেলা ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদক থাকেন ঢাকায়। বিয়ে না করলেও নিজ উপজেলায় আসেন না, আওয়ামী লীগের কোন কার্যক্রমেও ঠিক মতো দেখা যায় না থাকে। নতুন কমিটি গঠন না হওয়ায় ছাত্রলীগের নেতৃত্ব দিচ্ছেন বিবাহিতরা আর অনেক আগেই ছাত্রত্ব শেষ হওয়া নেতার।

নতুন কমিটি গঠনের কোনো উদ্যোগ না থাকায় হতাশ হয়ে পড়েছেন তৃণমূলের ছাত্রলীগের কর্মী সমথর্করা। ২০১৯ সালের উপজেলা পরিষদ নির্বাচনে উপজেলা ছাত্রলীগের সভাপতি একে এম ফরিদ উল্লাহ উপজেলা ভাইস চেয়ারম্যান পদে জয়লাভ করেছেন। এবং উপজেলা ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদক ঢাকায় থাকায় উপজেলা ছাত্রলীগের মধ্যে হযবরল অবস্থার সৃষ্টি হয়।

এ বিষয়ে উপজেলা ছাত্রলীগের সভাপতি প্রার্থী রানা আহমেদ বলেন, কমিটির মেয়াদ শেষ হয়েছে ৭ বছর আগে। ছাত্রলীগের কার্যক্রম নেই বললেই চলে। দীর্ঘ বছর ধরে ছাত্রলীগের জন্য কাজ করে যাচ্ছি। জেলা কমিটি যদি আমাকে ছাত্রলীগে নেতৃত্ব দেওয়ার সুযোগ দেয় তাহলে উপজেলা ছাত্রলীগকে নতুন ভাবে ঢেলে সাজানো হবে। উপজেলায় ছাত্রলীগের প্রাণ ফিরিয়ে আনা হবে।

ঈশ্বরগঞ্জ উপজেলা ছাত্রলীগের সভাপতি এ কে এম ফরিদ উল্লাহ জানান, নানান জটিলতা কারণে তৎকালীন সময়ে কমিটি পূর্ণাঙ্গ করা যায়নি। আমিও চাই ছাত্রলীগে নতুন নেতৃত্ব আসুক।

নিউজ ট্যাগ: ছাত্রলীগ

আরও খবর



কুষ্টিয়ায় শিশু ধর্ষণ চেষ্টা মামলায় ৫০ বছরের বৃদ্ধ কারাগারে

প্রকাশিত:বুধবার ০৮ জুন ২০২২ | হালনাগাদ:বুধবার ০৮ জুন ২০২২ | ৪১৫জন দেখেছেন
দর্পণ নিউজ ডেস্ক

Image

কুষ্টিয়ার কুমারখালীতে ছয় বছরের এক শিশুকে ধর্ষণ চেষ্টা মামলায় কুদ্দুস মন্ডল (৫০) নামের এক বৃদ্ধকে কারাগারে পাঠিয়েছে পুলিশ। আজ বুধবার দুপুরে আদালতের মাধ্যমে আসামিকে কারাগারে পাঠানো হয়। আসামি কুদ্দুস মন্ডল উপজেলার চাপড়া ইউনিয়নের ছেঁউড়িয়া মন্ডলপাড়ার চর এলাকার মৃত হারুন মন্ডলের ছেলে।

পুলিশ ও ভুক্তভোগীর পরিবার বলছে, গত সোমবার দুপুরে কুদ্দুস মন্ডল শিশুটির নিজ বাড়িতে ধর্ষণের চেষ্টা করে। এ ঘটনায় বুধবার সকালে কুমারখালী থানায় মামলা করেন শিশুটির বাবা। মামলা নম্বর ১৬। উক্ত মামলায় কুদ্দুসকে গ্রেপ্তার করে দুপুরে আদালতের মাধ্যমে কারাগারে পাঠানো হয়।

ভুক্তভোগী শিশুর বাবা বলেন, সুষ্ঠু বিচারের আশায় থানায় মামলা করেছি। আসামিকে গ্রেপ্তার করেছে পুলিশ। আসামি সম্পর্কে আমার আত্মীয় হয়। কুমারখালী থানার ওসি কামরুজ্জামান তালুকদার বলেন, শিশু ধর্ষণ চেষ্টা মামলায় এক বৃদ্ধকে আদালতের মাধ্যমে কারাগারে পাঠানো হয়েছে।


আরও খবর



সংঘবদ্ধ ধর্ষণের পর স্বামী-স্ত্রীকে হত্যা, ৬ জনের মৃত্যুদণ্ড

প্রকাশিত:সোমবার ০৬ জুন ২০২২ | হালনাগাদ:সোমবার ০৬ জুন ২০২২ | ৩৩৫জন দেখেছেন
দর্পণ নিউজ ডেস্ক

Image

নারায়ণগঞ্জের রূপগঞ্জে এক গৃহবধূকে সংঘবদ্ধ ধর্ষণের পর স্বামীসহ হত্যার ঘটনায় ছয় জনকে মৃত্যুদণ্ড দিয়েছেন আদালত। সোমবার (৬ জুন) দুপুরে জেলার নারী ও শিশু নির্যাতন দমন ট্রাইব্যুনালের বিচারক নাজমুল হক শ্যামল এই রায় ঘোষণা করেন। দণ্ডপ্রাপ্তরা হলো আরিফ, মো. সুমন, জামাল, সুমন, লোকমান, শফিক।

বিষয়টি নিশ্চিত করে আদালত পুলিশের পরিদর্শক আসাদুজ্জামান জানান, ধর্ষণের পরে স্ত্রী ও স্বামীকে হত্যার মামলায় আদালত ছয় জনকে ফাঁসির আদেশ দিয়েছেন। আসামিদের মধ্যে সুমন, লোকমান ও শফিক পলাতক রয়েছে।

মামলা সূত্রে জানা যায়, ২০০৯ সালের ১১ আগস্ট রাতে এক তরুণী ও তার স্বামীকে রাস্তা থেকে তুলে নিয়ে যায় আসামিরা। স্বামীকে বেঁধে রেখে তারা খাদিজাকে সংঘবদ্ধ ধর্ষণ করেন। পরে দুজনকে হত্যা করে রাস্তার পাশের ডোবায় ফেলে দেন। ১৬ আগস্ট দুজনের লাশ উদ্ধার করা হয়। এ ঘটনায় ওই তরুণীর বাবা বাদী হয়ে মামলা করেন।


আরও খবর



প্রেমে হাবুডুবু জাহির-সোনাক্ষী, বসবেন বিয়ের পিড়িতে

প্রকাশিত:বৃহস্পতিবার ০৯ জুন ২০২২ | হালনাগাদ:বৃহস্পতিবার ০৯ জুন ২০২২ | ৪৭৫জন দেখেছেন
দর্পণ নিউজ ডেস্ক

Image

গত ২৪ ঘণ্টায় বলিউডে চর্চার কেন্দ্রবিন্দুতে দুই নাম। জাহির ইকবাল এবং সোনাক্ষী সিনহা। জল্পনা ছিল বহু দিনই। অবশেষে নায়িকার জন্মদিনেই সিলমোহর পড়ল তাতে। প্রেমে হাবুডুবু জাহির-সোনাক্ষী!

সোনাক্ষীর জন্মদিনে ইকবালের আদুরে শুভেচ্ছা। জন্মদিনেই প্রকাশ্যে নায়িকার ভালবাসা। সে সব দেখেশুনেই অনুরাগীরা প্রায় নিশ্চিত, সাতপাকে ঘুরতে চলেছেন দুজনে। কবে বিয়ের পিঁড়িতে বসবেন তারকা জুটি, আপাতত তা নিয়েই জল্পনা তুঙ্গে। সে জল্পনায় অবশ্য জল ঢেলে দিয়েছেন পাত্রী নিজেই। একেবারে বাদশাহি‌ কায়দায়!

ভালবাসা আছে। সে কথা লুকোতে পারেননি সোনাক্ষী-জাহির। তা বলে এখনই বিয়ে? নৈব নৈব চ। আর সেটাই বুঝিয়ে দিতে অভিনেত্রী পোস্ট করেছেন এক মজাদার ভিডিয়ো। তাতে মুখ অবশ্যই নায়িকার। তবে গলা তাঁর নয়, খোদ শাহরুখ খানের। সোনাক্ষীর মুখে তাঁরই সংলাপ আচ্ছা লাগতা হ্যায়, মজা আতা হ্যায়! যার বাংলা তর্জমা করলে দাঁড়ায়, ভাল লাগে আমার, মজা লাগে! এই ভিডিও পোস্ট করে সঙ্গে সোনাক্ষী লিখেছেন, কেন বিয়ে নিয়ে হাত ধুয়ে আমার পিছনে পড়ে আছ?

বেশ কিছু দিন আগে সোনাক্ষীর সঙ্গে সম্পর্ক নিয়ে মুখ খুলেছিলেন ইকবাল। মুম্বইয়ের এক সংবাদ সংস্থাকে তিনি নিজেই বলেছিলেন, বহু দিন হয়ে গিয়েছে। এই সব গুজবে আর কান দিই না। আমার আর সোনাক্ষীর সম্পর্ক নিয়ে কথা বলে যদি কেউ আনন্দ পান, তা নিয়ে আমার কিছু বলার নেই। এই ইন্ডাস্ট্রিতে কাজ করলে এই সব কিছুই যে সহ্য করতে হতে পারে, তার জন্য আমি মানসিক ভাবে প্রস্তুত।

 


আরও খবর