আজঃ বৃহস্পতিবার ২২ ফেব্রুয়ারী ২০২৪
শিরোনাম

‘বালু উত্তোলনের ফলে নদীগর্ভে তলিয়ে যাচ্ছে গ্রাম’

প্রকাশিত:সোমবার ২৬ সেপ্টেম্বর ২০২২ | হালনাগাদ:সোমবার ২৬ সেপ্টেম্বর ২০২২ | অনলাইন সংস্করণ
দর্পণ নিউজ ডেস্ক

Image

বাংলাদেশ পরিবেশ আইনবিদ সমিতির (বেলা) প্রধান নির্বাহী সৈয়দা রিজওয়ানা হাসান বলেছেন, পদ্মা-মেঘনা থেকে বালু উত্তোলনের ফলে নদীগর্ভে তলিয়ে যাচ্ছে গ্রাম। অতিরিক্ত বালু উত্তোলনের কারণে ছয়টি নদী ধ্বংস হয়েছে। স্থানীয় পর্যায়ে আন্দোলন হচ্ছে। সোমেশ্বরী নদী থেকে বালু উত্তোলন এবং জাদুকাটা নদীর বিষয়ে দফায় দফায় আদালতে গিয়েছি।

সোমবার (২৬ সেপ্টেম্বর) ঢাকা রিপোর্টার্স ইউনিটিতে অ্যাসোসিয়েশন ফর ল্যান্ড রিফর্ম অ্যান্ড ডেভেলপমেন্ট (এএলআরডি), বেলা ও পানি অধিকার ফোরাম আয়োজিত নদনদীর জীর্ণ দশা ও পরিবেশ সংকট শীর্ষক গোলটেবিল আলোচনা সভায় এসব কথা বলেন তিনি।

তিনি আরও বলেন, বালুমহাল থেকে গত চার বছরে আয় হয়েছে ২৫৬ কোটি টাকা। জাফলংয়ে পাথর উত্তোলনের নামে প্রতি বছর সরকার ছয় কোটি টাকা রাজস্ব পায়। বুড়িগঙ্গা বাঁচাতে চামড়া পরিশোধন কারখানা বা ট্যানারি হাজারীবাগে বন্ধ করা হয়েছিল। এখন এসব কারখানা ধলেশ্বরী নদীকে দূষিত করছে। অন্যদিকে হাজারীবাগ থেকেও ট্যানারি পুরোপুরি সরে যায়নি।

রিজওয়ানা হাসান বলেন, পাথর উত্তোলনে ১০২ জন মারা গেছেন, সরকারি হিসাবে ৮১ জন। বালু তুলতে হলে বালুমহাল আইন-২০১০ চালু থাকলেও কার্যকর নয়। ডিসির নেতৃত্বে একটি কমিটি আছে। বালু উত্তোলনে শব্দদূষণ, নদীভাঙন, জীববৈচিত্র্য ধ্বংস হলে সেই কমিটি বালু উত্তোলন করে দেবে। অথচ সেই কমিটি পরিদর্শনেই যায় না।

বেলার প্রধান নির্বাহী বলেন, নদীর ক্ষতি হলে সরকার অভিভাবক হিসেবে দায়ী। হাইকোর্ট কর্মপরিকল্পনা চেয়েছেন, অথচ করোনার অজুহাতে সরকার কর্মপরিকল্পনা দেয়নি। কিন্তু বালুমহাল চালানোর অনুমতি ঠিকই দিচ্ছে। নদী ধ্বংসের দায় দিচ্ছে ভারত থেকে আসা বর্জ্যের।

নাগরিক উদ্যোগের প্রধান নির্বাহী জাকির হোসেন বলেন, ঢাকার চারপাশের নদী ট্যানারির কারণে ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে। চামড়ার ব্যবসা করে অনেক মানুষ ধনী হয়েছেন। অথচ অর্থনৈতিক বিবেচনায় কতটা ক্ষতি হয়েছে, তা পরিমাপ করা হয়নি।

এ সময় গোলটেবিল আলোচনায় বেগম রোকেয়া বিশ্ববিদ্যালয়ের অধ্যাপক তুহিন ওয়াদুদ, রাজশাহী রুলফাও সংস্থার নির্বাহী পরিচালক আফজাল হোসেন প্রমুখ অংশ নেন।



আরও খবর
দেশে ৩০ শতাংশ খাদ্য অপচয় হয়: কৃষিমন্ত্রী

বুধবার ২১ ফেব্রুয়ারী ২০২৪




বিশাল ব্যবধানে ইমরান খানের দল প্রধানের জয়

প্রকাশিত:শুক্রবার ০৯ ফেব্রুয়ারী ২০২৪ | হালনাগাদ:শুক্রবার ০৯ ফেব্রুয়ারী ২০২৪ | অনলাইন সংস্করণ
আন্তর্জাতিক ডেস্ক

Image

পাকিস্তানের সাধারণ নির্বাচনে ভোট গণনা চলছে। বৃহস্পতিবার (০৮ ফেব্রুয়ারি) বিকেলে ভোট গ্রহণ শেষে খুবই ধীরগতিতে ভোট গণনার কাজ করা হচ্ছে। এর আগের নির্বাচনের দিন স্থানীয় সময় মধ্যরাতের মধ্যে কোন দল এগিয়ে ছিল সে সম্পর্কে একটি পরিষ্কার চিত্র পাওয়া গিয়েছিল। আর এবার ভোট গ্রহণের পর থেকে এ পর্যন্ত ১৯ ঘণ্টায় ২৬৫ আসনের মধ্যে মাত্র ২২টি আসনের ফল পাওয়া গেছে।

এর মধ্যে পাকিস্তান তেহরিক-ই-ইনসাফ (পিটিআই) এর বর্তমান চেয়ার‌ম্যান গওহর আলী খান বিপুল ব্যবধানে জয়লাভ করেছেন। তিনি পেয়েছেন এক লাখ ১০ হাজার ২৩টি ভোট, আর তার প্রতিদ্বন্দ্বী এএনপি প্রার্থী পেয়েছেন ৩০ হাজার ৩০২টি ভোট।

ডন পত্রিকার অনলাইন ভার্সনে এখন পর্যন্ত ২২টি আসনে ফল ঘোষণার তথ্য পাওয়া গেছে। স্থানীয় সময় বেলা সাড়ে ১১টা পর্যন্ত পাওয়া তথ্য অনুযায়ী- পাকিস্তান তেহরিক-ই-ইনসাফ (পিটিআই) সমর্থিত স্বতন্ত্র প্রার্থীরা ৭ আসনে, পাকিস্তান মুসলিম লীগ-নওয়াজে (পিএমএল-এন) ১০টিতে, পাকিস্তান পিপলস পার্টির (পিপিপি) ৫টি আসনে জয়লাভ করেছে এবং অন্যান্য একটি।


আরও খবর
সাত দশক পর পাকিস্তানে প্রথম নারী মুখ্যমন্ত্রী

বৃহস্পতিবার ২২ ফেব্রুয়ারী ২০২৪

রাশিয়াকে ‘জুলফিকার’ ক্ষেপণাস্ত্র দিচ্ছে ইরান

বৃহস্পতিবার ২২ ফেব্রুয়ারী ২০২৪




ভালোবাসা দিবসে সেন্টমার্টিনে গিয়ে যে আট কাজ করতে ভুলবেন না

প্রকাশিত:মঙ্গলবার ১৩ ফেব্রুয়ারী ২০২৪ | হালনাগাদ:মঙ্গলবার ১৩ ফেব্রুয়ারী ২০২৪ | অনলাইন সংস্করণ
ভ্রমণ ডেস্ক

Image

বছরের এই সময়ে সমুদ্র অনেকটাই থাকে শান্ত। সূর্যের মিষ্টি আলো দিনভর আনন্দ দেয়। সৈকতের ধারে মৃদু ঠাণ্ডার রাতগুলো দেয় অবিস্মরণীয় অভিজ্ঞতা। সবমিলিয়ে এ সময়টাতে সেন্টমার্টিন নিঃসন্দেহে আদর্শ গন্তব্য। প্রবাল এবং সুন্দর বালুকাময় সমুদ্রসৈকত, তাজা নীল জলরাশির মনোমুগ্ধকর দৃশ্য অবাক করে দেবে ভ্রমণপিপাসুদের।

বাংলাদেশে নভেম্বর থেকে মার্চ পর্যন্ত সেন্টমার্টিন রুটে সাধারণত সরকারি অনুমোদন নিয়ে জাহাজ পরিচালনা করা হয়। এই সময়ে কক্সবাজার থেকে জাহাজে করে সেন্টমার্টিন যেতে পারেন। মিয়ানমারের অভ্যন্তরে সংঘর্ষের কারণে টেকনাফ রুটটি বর্তমানে বন্ধ রয়েছে। এই মৌসুমে অনেক লোক সেন্টমার্টিন-এ ভ্রমণ করে তাই সম্ভাবনা বেশি যে আপনি আপনার পছন্দসই হোটেল পেতে সমস্যার সম্মুখীন হবেন। ভ্রমণের পরিকল্পনা থাকলে হোটেল-রিসোর্টগুলো আগে থেকেই বুকিং করে রাখা ভালো।

সেন্টমার্টিনে জাহাজ থেকে নেমেই আপনি ছোট বাজারের মধ্য দিয়ে একটি দীর্ঘ হাঁটা পথ দেখতে পাবেন। কিছুটা এগিয়ে গেলেই গভীর নীল সমুদ্রের সাক্ষী হবেন। সাগরের বাতাস স্পর্শ করলেই আপনার সমস্ত ক্লান্তি দূর হয়ে যাবে। সেন্টমার্টিনে থাকাকালীন অনেক কিছুই আছে, যা উপভোগ্য। আপনার ভ্রমণকে করবে মোহনীয়। এসব উপভোগের সুযোগ কোনোভাবেই হাতছাড়া করা উচিত না। সেই বিষয়গুলোই এই লেখায় তুলে ধরছি।

১. সাইকেল নিয়ে সমুদ্র সৈকতে ঘোরাঘুরি : সেন্টমার্টিনের সকালটা থাকে খুব মনোরম। সকালের দৃশ্য উপভোগের সময় সমুদ্র সৈকতে সাইকেল চালাতে পারেন। বাজার এলাকা থেকে প্রতি ঘণ্টায় সাইকেল ভাড়া নিতে পারেন। খেয়াল রাখবেন, সাইকেল নেওয়ার সময় সাইকেল মালিক সময়টা সঠিক লিখেছেন কি-না। সাধারণত প্রতি ঘণ্টা ভাড়া আনুমানিক ৬০-১০০ টাকা পর্যন্ত হয়। রাইড শেষ করার পরে সাইকেলটি দোকানে ফেরত দিতে ভুলবেন না।

২. বার বি কিউ পার্টি : সেন্টমার্টিনে থাকাকালীন সন্ধ্যেটা উপভোগ্য করে তুলতে চাইলে বার বি কিউ পার্টি হতে পারে অন্যরকম সুন্দর। দ্বীপটি রেস্টুরেন্ট দিয়ে ঘেরা। এসব খাবারের দোকান থেকে সামুদ্রিক মাছ কিনে নিতে পারেন। ওয়াটার পমফ্রেট, টুনা, স্যামন, গলদা চিংড়ি, কাঁকড়া এবং আরও অনেক ধরনের মাছ রয়েছে। যেটা আপনার পছন্দ হয়, কিনে নিতে পারবেন।

৩. ভ্যানে ঘোরা : দ্বীপটি এতই ছোট যে সেখানে খুব কম পরিবহনের বিকল্প পাওয়া যায়। এক গন্তব্য থেকে অন্য গন্তব্যে যেতে স্থানীয়রা বেশিরভাগই হাঁটা পছন্দ করেন। তবে হাঁটতে ভালো না লাগলে আপনি ভ্যান ভাড়া করতে পারেন। চার থেকে পাঁচজন ভ্যানে চড়ে দ্বীপের চারপাশটা দেখে আসতে পারেন।

৪. রোমাঞ্চকর চাঁদের আলো উপভোগ : আপনার সফরের তারিখগুলো যদি জ্যোৎস্নার সঙ্গে মেলে, তাহলে আপনি চাঁদের আলোর নিচে সবচেয়ে মোহনীয় অভিজ্ঞতা পেতে পারেন। চাঁদের আলো সবকিছুকে আরও একটু জীবন্ত করে তোলে। সেন্টমার্টিনে পূর্ণিমার সৌন্দর্য এমন একটি বিষয়, যা আপনি সেখানে পর্যবেক্ষণ করতে না যাওয়া পর্যন্ত বুঝতে পারবেন না।

৫. সমুদ্র সৈকতে একটি রাত : যদি আপনি চাঁদনী রাতের অভিজ্ঞতার সুযোগটি হাতছাড়া করেন, সৈকতের পাশে একটি রাত- আপনার জীবনের সবচেয়ে স্মরণীয় হয়ে থাকবে। সেন্টমার্টিনে বিদ্যুৎ না থাকায়, নারকেল গাছের মৃদু আওয়াজসহ রাতগুলো আপনাকে শান্তি দেবে ভীষণ। সমুদ্রের শান্ত শব্দ পুরো সফরটিকে সার্থক করে তুলতে যথেষ্ট।

৬. সূর্যোদয় বা সূর্যাস্ত : সেন্ট মার্টিন দ্বীপে, আপনাকে অবশ্যই সকালে উঠতে হবে। প্রতিদিন সূর্যোদয় দেখাটা বাধ্যতামূলক। সূর্যোদয়ের সময় সকালের তাজা বাতাস বুক ভরে নিলে ঘুমের জন্য অনুশোচনা থাকবে না। অন্যদিকে, সূর্যাস্তও একইভাবে আকর্ষণীয়। সৈকতে দুর্দান্ত সব ছবি তোলার জন্য এটি উপযুক্ত সময়। এ সময়টাতে আকাশ রঙ পরিবর্তন করে এবং সৌন্দর্য বাড়িয়ে দেয় কয়েকগুণ।

৭. শুটকির জন্য যুদ্ধ : শুটকি মাছ উপকূলীয় মানুষের মধ্যে খুব জনপ্রিয়। স্থানীয় দোকানদাররা পর্যটকদের কাছে বেশি দাম দাবি করে। তাই স্বস্তায় পেতে কেনাকাটা করার সময় দর কষাকষি করতে ভুলবেন না।

৮. ছেড়াদ্বীপ : ছেড়াদ্বীপ, দেশের অন্যতম জনপ্রিয় পর্যটন গন্তব্য। জোয়ারের সময় সেন্টমার্টিন থেকে এটি বিচ্ছিন্ন থাকে। ভাটার সময়, প্রায় দেড় ঘন্টা হেঁটে সেখানে যাওয়া সম্ভব। তবে নৌকা এবং মোটরবোটেও সেখানে যেতে পারবেন। সেজন্য বাজারেই ঘাঁটে নৌকার মালিকদের কাছ থেকে ভাড়া ঠিক করে নিতে হবে।


আরও খবর
সময় এখন ক্যাম্পিংয়ের

বুধবার ১৩ ডিসেম্বর ২০২৩

বাংলাদেশিদের জন্য ভিসা ফি কমাল চীন

শনিবার ০৯ ডিসেম্বর ২০২৩




মঈন খানকে আটক নয় নিরাপত্তার জন্য সরানো হয়েছিলো: ডিএমপি

প্রকাশিত:মঙ্গলবার ৩০ জানুয়ারী ২০২৪ | হালনাগাদ:মঙ্গলবার ৩০ জানুয়ারী ২০২৪ | অনলাইন সংস্করণ
নিজস্ব প্রতিবেদক

Image

ডিএমপির উত্তর জোনের অতিরিক্ত উপ-কমিশনার (এডিসি) মির্জা সালাউদ্দিন জানিয়েছেন, মঈন খানকে ছেড়ে দেওয়া হয়েছে। তাকে আটক বা গ্রেপ্তার করা হয়নি। তার নিরাপত্তার জন্যই তাকে সেখান থেকে সরিয়ে নেওয়া হয়েছিল। এখন তিনি বাসায় চলে যাচ্ছেন।

মঙ্গলবার (৩০ জানুয়ারি) দুপুর আড়াইটার দিকে উত্তরায় বিএনপির কালো পতাকা মিছিল থেকে তাকে আটক করে পুলিশ থানায় নিয়ে যায় বলে অভিযোগ তোলা হয়। পরে বিকেল সোয়া ৩টার দিকে তাকে আবার ছেড়ে দেওয়া হয় বলে জানা গেছে।

বিএনপি চেয়ারপার্সনের মিডিয়া উইংয়ের সদস্য শামসুদ্দিন দিদার গণমাধ্যমকে জানান, মঈন খানের সঙ্গে কথা হয়েছে। তাকে থানা থেকে ছেড়ে দিয়েছেন।

এর আগে, দলীয় সূত্রে মঈন খানের আটকের বিষয়ে অভিযোগ উঠে।


আরও খবর



লালমোহনে ট্রলির চাপায় বৃদ্ধা নিহত

প্রকাশিত:বৃহস্পতিবার ১৫ ফেব্রুয়ারী ২০২৪ | হালনাগাদ:বৃহস্পতিবার ১৫ ফেব্রুয়ারী ২০২৪ | অনলাইন সংস্করণ
আশরাফুল আলম সজিব, ভোলা

Image

ভোলার লালমোহনে ট্রলির চাপায় এক বৃদ্ধা নিহত হয়েছেন। গুরুতর আহত হয়েছেন এক বৃদ্ধ। বৃহস্পতিবার সকালে লালমোহন পৌর শহরের ৫ নম্বর ওয়ার্ডের লঞ্চঘাট রাস্তার মাথায় এ ঘটনা ঘটে।

নিহত মনছুরা (৬০) উপজেলার ফরাজগঞ্জ ইউনিয়নের ৬ নম্বর ওয়ার্ডের আসুলি গ্রামের মৃত আব্দুর রশিদের স্ত্রী।

এছাড়া, আহত জাফর পৌরসভার ৭ নম্বর ওয়ার্ডের মৃত আব্দুল হালিমের ছেলে। তাকে উন্নত চিকিৎসার জন্য ভোলায় পাঠানো হয়েছে।

এ বিষয়ে লালমোহন থানার ওসি এস এম মাহবুব উল আলম বলেন, সকালে লঞ্চঘাট সড়ক থেকে একটি ট্রলি লালমোহন বাজারে আসছিল। এ সময় মনছুরা ও জাফর সড়ক পার হতে গেলে ওই ট্রলির চালক নিয়ন্ত্রণ হারিয়ে তাদের চাপা দেয়। স্থানীয়রা তাদেরকে উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নিয়ে যায়। সেখানে কর্তব্যরত চিকিৎসক বৃদ্ধা মনছুরাকে মৃত ঘোষণা করেন।

তিনি আরও বলেন, বৃদ্ধার মরদেহ থানায় আনা হয়েছে। এ ঘটনায় ট্রলি ও চালককে থানা হেফাজতে রাখা হয়েছে। এ ঘটনায় আইনি ব্যবস্থা প্রক্রিয়াধীন রয়েছে।


আরও খবর



পরকীয়ার দ্বন্দ্বে খুন হলেন অটো চালক সাদ্দাম

প্রকাশিত:মঙ্গলবার ২৩ জানুয়ারী ২০২৪ | হালনাগাদ:মঙ্গলবার ২৩ জানুয়ারী ২০২৪ | অনলাইন সংস্করণ
মোঃ রাসেল আহমেদ, ব্রাহ্মণবাড়িয়া

Image

ব্রাহ্মণবাড়িয়ার নবীনগরে চাঞ্চল্যকর অটোররিকশা চালক সাদ্দাম হোসেন (৩০) হত্যা মামলার মূল আসামীকে গ্রেফতার করেছে পুলিশ ব্যুরো অব ইনভেস্টিগেশন (পিবিআই)।

সোমবার রাতে জেলা শহরের ভাদুঘর এলাকায় পিবিআই কার্যালয়ে সংবাদ সম্মেলন এ তথ্য জানান পিবিআই পুলিশ সুপার শচীন চাকমা।

তিনি জানান, শুক্রবার নবীনগর উপজেলার কৃষ্ণনগর ইউনিয়নের দৌলতপুরের আশ্রাফপুর গ্রাম থেকে মরদেহ উদ্ধারের ২৪ ঘন্টার ভেতর ঘাতক বাবুলকে নরসিংদীর জেলার শিবপুর থানার ইটাখোলা গ্রাম থেকে গ্রেফতার করা হয়। প্রথমে পুলিশের কাছে প্রাথমিক হত্যার কথা স্বীকার করে আদালতে ১৬৪ ধারায় জবানবন্দি দেয়।

নিহত সাদ্দাম ও ঘাতক বাবুল এক অপরের ভাইরা ভাই। জবানবন্দিতে ঘাতক বাবুল জানায়, বাবুলের স্ত্রী শায়েস্তারার সাথে নেত্রোকোনা জেলার কাদের মিয়ার পরকীয়া প্রেম ছিল। এরই ধারাবাহিকতায় শায়েস্তারা কাদের মিয়ার সাথে পালিয়ে নরসিংদীতে পাড়ি জমায়। পরে বাবুল তার স্ত্রীকে অবৈধ সম্পর্ক থেকে ফিরিয়ে আনতে শায়েস্তারার ছোট বোন লাভলী আক্তার ও তার স্বামী কাছে সহযোগীতা চান। কিন্তু সাদ্দাম ও তার স্ত্রী শায়েস্তারার পক্ষ নিয়ে বাবুলকে সহায়তা করে নি।

এতে বাবুল ক্ষুদ্ধ হয়ে গত বৃহস্পতিবার রাতে সাদ্দামকে একটি জমিতে ডেকে নিয়ে গলাঁয় রশি পেঁচিয়ে শ্বাসরোধে হত্যা করে পালিয়ে যায়। পরে পুলিশ ব্যুরো অব ইনভেস্টিগেশন বিভিন্ন তথ্য প্রযুক্তির সহতায় বাবুলকে নরসিংদী থেকে গ্রেফতার করে। গ্রেফতারকৃত বাবুল নেত্রকোনা জেলার সদর থানার খায়ের বাংলা মধ্যপাড়া এলাকার মৃত আব্দুল হামিদের ছেলে।

গত শুক্রবার ব্রাহ্মণবাড়িয়া নবীনগর উপজেলার কৃষ্ণনগর ইউনিয়নের দৌলতপুরের আশ্ররাফপুর গ্রামের বিলের জমি থেকে অটোচালক সাদ্দামের মরদেহ উদ্ধার করে পুলিশ। সে উপজেলার বিদ্যাকূট গ্রামের আব্দুস ছাত্তারের ছেলে।


আরও খবর