আজঃ শুক্রবার ০১ মার্চ ২০২৪
শিরোনাম

আজ বিএফইউজে’র সম্মেলনে বক্তব্য রাখবেন প্রধানমন্ত্রী

প্রকাশিত:বৃহস্পতিবার ০২ নভেম্বর 2০২3 | হালনাগাদ:বৃহস্পতিবার ০২ নভেম্বর 2০২3 | অনলাইন সংস্করণ
নিজস্ব প্রতিবেদক

Image

বাংলাদেশ ফেডারেল ইউনিয়ন অব জার্নালিস্টসের (বিএফইউজে) প্রতিনিধি সম্মেলনে বক্তব্য রাখবেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা।

বৃহস্পতিবার (২ নভেম্বর) সকাল ১০টায় জাতীয় প্রেসক্লাবে শুরু হবে এ সম্মেলন।

এতে প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত থাকবেন শেখ হাসিনা। সম্মেলনে সভাপতিত্ব করবেন বিএফইউজে সভাপতি ওমর ফারুক।  

এছাড়া অনুষ্ঠানে বিশেষ অতিথি হিসেবে উপস্থিত থাকবেন তথ্য, সম্প্রচারমন্ত্রী ও আওয়ামী লীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক ড. হাছান মাহমুদ।

এদিন বিকেল তিনটায় একই স্থানে দেশের সাংবাদিকদের সর্বোচ্চ সংগঠনের কার্যনির্বাহি কমিটির সভা অনুষ্ঠিত হবে।

প্রসঙ্গত, ১৯৫০ সালে প্রতিষ্ঠিত পাকিস্তান ফেডারেল সাংবাদিক ইউনিয়ন ১৯৭১ সালে বাংলাদেশ স্বাধীন হওয়ার পর নাম পরিবর্তন করে হয় বাংলাদেশ ফেডারেল ইউনিয়ন অব জার্নালিস্টস (বিএফইউজে) বা বাংলাদেশ ফেডারেল সাংবাদিক ইউনিয়ন।

নিউজ ট্যাগ: বিএফইউজে

আরও খবর



বাড়ছে দ্বাদশ জাতীয় সংসদের মন্ত্রিসভার কলেবর

প্রকাশিত:রবিবার ০৪ ফেব্রুয়ারী ২০২৪ | হালনাগাদ:রবিবার ০৪ ফেব্রুয়ারী ২০২৪ | অনলাইন সংস্করণ
জ্যেষ্ঠ প্রতিবেদক

Image

দ্বাদশ জাতীয় সংসদের নতুন সদস্যদের শপথ গ্রহণ শেষ হয়েছে। শেষ হয়েছে নতুন মন্ত্রিসভা গঠনও। সংসদের প্রথম অধিবেশন এখন চলছে। বাকি আছে সংরক্ষিত নারী ৫০ আসনের নির্বাচন। চলতি সপ্তাহে হতে পারে তফসিল। এরপর দলীয়ভাবে চূড়ান্ত হবে, কারা হচ্ছেন সংরক্ষিত এমপি। তবে, নতুন করে গুঞ্জন শুরু হয়েছে, বাড়ছে মন্ত্রিসভার কলেবর।

দ্বিতীয় দফায় কারা মন্ত্রিসভায় স্থান পাচ্ছেন, নতুন নাকি পুরাতন সদস্যরা সব মহলে চলছে এমন আলোচনা। তাদের সঙ্গে সুর মিলিয়েছেন ক্ষমতাসীন দল আওয়ামী লীগের জ্যেষ্ঠ নেতারাও। তাদের মন্তব্য, শিগগিরই বাড়তে পারে মন্ত্রিসভার আকার।

গত ১১ জানুয়ারি টানা চতুর্থবারের মতো প্রধানমন্ত্রী হিসেবে শপথ নিয়েছেন বঙ্গবন্ধুকন্যা শেখ হাসিনা। প্রধানমন্ত্রীসহ মোট ৩৭ মন্ত্রী-প্রতিমন্ত্রীও শপথ নিয়েছেন। এর মধ্যে ২৫ জন মন্ত্রী ও ১১ জন প্রতিমন্ত্রী। আওয়ামী লীগের জ্যেষ্ঠ নেতারা মনে করছেন, চলতি মাসের (ফেব্রুয়ারি) শেষের দিকে বাড়তে পারে মন্ত্রিসভার আকার। আসন্ন সংরক্ষিত নারী আসনের নির্বাচনের পর মন্ত্রিসভার সদস্য বাড়ানো হতে পারে। এমনকি সংরক্ষিত নারী আসন থেকে টেকনোক্র্যাট কোটায় (সংসদ সদস্য নন এমন) মন্ত্রীও হতে পারেন এমন গুঞ্জনও চলছে। তবে, এটা নিশ্চিত যে দ্বিতীয় দফায় কারা মন্ত্রিসভায় স্থান পাবেন, সেটা দলের হাইকমান্ড ছাড়া কেউ-ই জানেন না।

মন্ত্রিসভার কলেবর বড় হচ্ছে কি না এমন প্রশ্নের জবাবে আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ও সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদের বলেন, এটা একটু বাড়তে পারে। কারণ, এখানে রিজার্ভ সিটগুলো, নারীদের জন্য সংরক্ষিত যেসব আসন, সেসব আসনের নির্বাচন শেষ হলে সেখান থেকেও যুক্ত হতে পারেন। প্রধানমন্ত্রী ইচ্ছা করলে তিনি যুক্ত করতে পারেন।

সংশ্লিষ্টরা বলছেন, দ্বাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে নৌকার টিকিট পেয়েও ভোটের মাঠে নেমে হেরেছেন তিন মন্ত্রী। তারা হলেন- বিমান প্রতিমন্ত্রী মাহবুব আলী, ত্রাণ ও দুর্যোগ প্রতিমন্ত্রী এনামুর রহমান এবং স্থানীয় সরকার, পল্লী উন্নয়ন ও সমবায় প্রতিমন্ত্রী স্বপন ভট্টাচার্য। মাহবুব আলী ও এনামুর রহমান দুবারের সংসদ সদস্য ছিলেন। স্বপন ভট্টাচার্য তিনবার জাতীয় সংসদে প্রতিনিধিত্ব করেছিলেন। নির্বাচনের মাঠে তারা এবার পরাজিত হয়েছেন।

এ ছাড়া, এবার নতুন মন্ত্রী-প্রতিমন্ত্রীর তালিকা থেকে বাদ পড়েছেন আগের মন্ত্রিসভার ১৪ মন্ত্রী, নয়জন প্রতিমন্ত্রী ও দুজন উপমন্ত্রী। আলোচিত মন্ত্রীদের মধ্যে বাদ পড়েছেন- কৃষিমন্ত্রী মো. আব্দুর রাজ্জাক, অর্থমন্ত্রী আ হ ম মুস্তফা কামাল, পররাষ্ট্রমন্ত্রী এ কে আব্দুল মোমেন, পরিকল্পনামন্ত্রী এম এ মান্নান, বস্ত্র ও পাটমন্ত্রী গোলাম দস্তগীর গাজী, স্বাস্থ্যমন্ত্রী জাহিদ মালেক, বাণিজ্যমন্ত্রী টিপু মুনশি, সমাজকল্যাণমন্ত্রী নুরুজ্জামান আহমেদ, মৎস্য ও প্রাণিসম্পদমন্ত্রী শ ম রেজাউল করিম, পরিবেশ, বন ও জলবায়ু পরিবর্তনবিষয়ক মন্ত্রী মো. শাহাব উদ্দিন, পার্বত্য চট্টগ্রামবিষয়ক মন্ত্রী বীর বাহাদুর উশৈসিং, ভূমিমন্ত্রী সাইফুজ্জামান চৌধুরী, রেলমন্ত্রী মো. নূরুল ইসলাম সুজন এবং প্রবাসী কল্যাণ ও বৈদেশিক কর্মসংস্থানমন্ত্রী ইমরান আহমদ।

প্রতিমন্ত্রীদের মধ্যে বাদ পড়েছেন- শিল্প প্রতিমন্ত্রী কামাল আহমেদ মজুমদার, যুব ও ক্রীড়া প্রতিমন্ত্রী মো. জাহিদ আহসান রাসেল, সমাজকল্যাণ প্রতিমন্ত্রী মো. আশরাফ আলী খান খসরু, শ্রম ও কর্মসংস্থান প্রতিমন্ত্রী বেগম মন্নুজান সুফিয়ান, প্রাথমিক ও গণশিক্ষা প্রতিমন্ত্রী মো. জাকির হোসেন, পররাষ্ট্র প্রতিমন্ত্রী মো. শাহরিয়ার আলম, স্থানীয় সরকার, গৃহায়ন ও গণপূর্ত প্রতিমন্ত্রী শরীফ আহমেদ এবং মহিলা ও শিশুবিষয়ক প্রতিমন্ত্রী বেগম ফজিলাতুন নেছা। এ ছাড়া, গতবারের তিন উপমন্ত্রীর মধ্যে দুজনই এবার বাদ পড়েছেন। তারা হলেন- পরিবেশ, বন ও জলবায়ু পরিবর্তনবিষয়ক উপমন্ত্রী বেগম হাবিবুন নাহার এবং পানি সম্পদ উপমন্ত্রী এ কে এম এনামুল হক শামীম। টেকনোক্র্যাট পদ থেকে পদত্যাগ করা ডাক ও টেলিযোগাযোগমন্ত্রী মোস্তাফা জব্বার এবং পরিকল্পনা প্রতিমন্ত্রী শামসুল আলমও এবারের মন্ত্রিসভায় স্থান পাননি।

আওয়ামী লীগ ও সরকারের একাধিক সূত্র জানায়, বর্তমান মন্ত্রিসভার বেশিরভাগ সদস্য নতুন মন্ত্রিসভায় স্থান পেয়েছেন। বিভিন্ন কারণে বাদ পড়েছেন অনেক পুরাতন মন্ত্রী ও প্রতিমন্ত্রী। মন্ত্রিসভার কলেবর বাড়লে স্থান পেতে পারেন আওয়ামী লীগের ত্যাগী, অভিজ্ঞ ও তৃণমূলের জনপ্রিয় সংসদ সদস্যরা। সরকারের কাজের পরিধি বেড়ে যাওয়ায় মন্ত্রিসভার আকার বড় করার চিন্তাভাবনা চলছে। এক্ষেত্রে তরুণদের প্রাধান্য দেওয়া হতে পারে।

আওয়ামী লীগের জ্যেষ্ঠ এক নেতা নাম প্রকাশ না করার শর্তে বলেন, সংরক্ষিত নারী আসনের নির্বাচনের পর চলতি মাসের শেষের দিকে মন্ত্রিসভার আকার বাড়তে পারে। দ্বিতীয় দফায় সংরক্ষিত নারী আসনের নির্বাচিত সংসদ সদস্যদের মধ্যে থেকেও একজন মন্ত্রিসভায় সদস্য হতে পারেন। ১৪ দলীয় জোটেরও কেউ এখানে স্থান পেতে পারেন।

গত সংসদে মন্ত্রিপরিষদের সদস্য ছিলেন ৪৭ জন। তাদের মধ্যে প্রথমে শপথ নেন ২৫ মন্ত্রী এবং ১৯ প্রতিমন্ত্রী এবং তিনজন উপমন্ত্রী। দ্বিতীয় দফায় মন্ত্রিপরিষদের সদস্য সংখ্যা বাড়ানো হয়।


আরও খবর



মধুমতি আর্মি ক্যাম্প পরিদর্শনে সেনাবাহিনী প্রধান

প্রকাশিত:মঙ্গলবার ২০ ফেব্রুয়ারী ২০24 | হালনাগাদ:মঙ্গলবার ২০ ফেব্রুয়ারী ২০24 | অনলাইন সংস্করণ
প্রেস বিজ্ঞপ্তি

Image

সেনাবাহিনী প্রধান জেনারেল এস এম শফিউদ্দিন আহমেদ, এসবিপি (বার), ওএসপি, এনডিইউ, পিএসসি, পিএইচডি আজ মঙ্গলবার (২০ ফেব্রুয়ারি ২০২৪) মধুমতি আর্মি ক্যাম্পের বিভিন্ন কার্যক্রম পরিদর্শনের উদ্দেশ্যে নড়াইল গমন করেন।

এসময় তিনি পদ্মা সেতু রেল সংযোগ প্রকল্প (পিবিআরএলপি) কর্তৃক নির্মিতব্য নড়াইল রেলওয়ে স্টেশনের কাজের অগ্রগতি এবং বিভিন্ন স্থাপনা পরিদর্শন করেন।

এছাড়া, তিনি ২৪ ইঞ্জিনিয়ারিং কনস্ট্রাকশন ব্যাটালিয়ন কর্তৃক রোড প্রশস্তকরণসহ বিভিন্ন জনকল্যাণমূলক প্রকল্প পরিদর্শনপূর্বক প্রয়োজনীয় দিক-নির্দেশনা প্রদান করেন। পাশাপাশি স্থানীয় গরীব ও দুস্থদের মাঝে কম্বল বিতরণ শেষে নড়াইল জেলার লোহাগড়া উপজেলাধীন করফায় ১০ শয্যা বিশিষ্ট মা ও শিশু কল্যাণ কেন্দ্রের সম্মুখে নিজের দানকৃত জমিতে স্থাপিত আল হুদা মসজিদ উদ্বোধন করেন।

এছাড়া তিনি মল্লিকপুর ইউনিয়ন সরকারি মাধ্যমিক বিদ্যালয়ে নবনির্মিত অধ্যাপক শেখ মোঃ রোকন উদ্দিন আহমেদ মাল্টিপারপাস হল উদ্বোধন করেন এবং শিক্ষক-শিক্ষার্থী ও স্থানীয় গণ্যমান্য ব্যক্তিবর্গের সাথে মতবিনিময় করেন।

এসময় জেনারেল অফিসার কমান্ডিং (জিওসি) ৫৫ পদাতিক ডিভিশন ও এরিয়া কমান্ডার যশোর এরিয়া, চীফ কনসালটেন্ট জেনারেল সেনাসদর, এডহক সিএসসি এবং চীফ কোঅর্ডিনেটর, পদ্মা সেতু রেল সংযোগ প্রকল্প, নড়াইলের জেলা প্রশাসক ছাড়াও ঊর্ধ্বতন সামরিক কর্মকর্তাগণ ও স্থানীয় গণ্যমান্য ব্যক্তিগণ উপস্থিত ছিলেন।


আরও খবর



পুরো নগরীকে আলোকায়নে উদ্যোগ গ্রহণ করেছি : চসিক মেয়র

প্রকাশিত:বৃহস্পতিবার ২৯ ফেব্রুয়ারী ২০২৪ | হালনাগাদ:বৃহস্পতিবার ২৯ ফেব্রুয়ারী ২০২৪ | অনলাইন সংস্করণ
চট্টগ্রাম প্রতিনিধি

Image

চট্টগ্রাম নগরীজুড়ে ৬৬ কি.মি. রাস্তায় এলইডি বাতি স্থাপনের কাজের উদ্বোধন করেছেন চট্টগ্রাম সিটি কর্পোরেশনের (চসিক) মেয়র মুক্তিযোদ্ধা মো. রেজাউল করিম চৌধুরী।

বুধবার বিকালে কোর্ট বিল্ডিংস্থ শহীদ মিনার প্রাঙ্গণে কোভিড-১৯ রিকভারি প্রজেক্টের আওতায় প্রথম পর্যায়ে নগরীজুড়ে ৬৬ কি.মি. রাস্তায় এলইডি বাতি স্থাপনের কাজের উদ্বোধন করেন চসিক মেয়র।

এসময় মেয়র বলেন, আমি পুরো নগরীকে আলোকায়নে উদ্যোগ গ্রহণ করেছি। প্রাথমিকভাবে আজ ৬৬ কি.মি. রাস্তায় এলইডি বাতি স্থাপনের কাজ শুরু হল। পর্যায়ক্রমে পুরো নগরীকে আলোকায়ন করা হবে। এছাড়া আলোকায়নে গুরত্ব দেয়া হচ্ছে নান্দনিকতায়ও। প্রজাপতি ও নৌকার আদলে বাতি দিয়ে শহরের রাতের সৌন্দর্যে ভিন্ন মাত্রা যোগ করা হচ্ছে৷

তিনি বলেন, কিছু এলাকায় তার চুরির কারণে নগরবাসী কষ্ট পাচ্ছে। চুরি ঠেকাতে নগরবাসীর সহযোগিতা চাই, নগরীর ঝুলন্ত তারের জঞ্জাল পরিস্কার হবে, লালখানবাজারে ইতোমধ্যে ঝুলন্ত তার মাটির নীচে নিয়ে গেছি। দেড়বছরের মধ্যে নগরীর সব তার মাটির নীচে নেয়া আমাদের লক্ষ্য।

ফুটপাত রক্ষায় অনড় অবস্থান ব্যক্ত করে মেয়র বলেন, অবৈধভাবে ফুটপাত দখলকারীদের জনস্বার্থে উচ্ছেদ করেছি। অবৈধভাবে রাস্তা দখলের জন্য চাপ তৈরি করতে একটি মহল আন্দোলনের হুমকি দিচ্ছে। কার আন্দোলন? কীসের আন্দোলন? জনগণের ফুটপাত দখল করার অধিকার ওদের কে দিয়েছে? যত আন্দোলনই করেননা কেন আমি ফুটপাতে অবৈধভাবে বসতে দিবনা।

এ সময় উপস্থিত ছিলেন চসিকের প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা শেখ মুহম্মদ তৌহিদুল ইসলাম, চট্টগ্রাম জেলার পিপি শেখ ইফতেখার সাইমুল চৌধুরী, কাউন্সিলর জহর লাল হাজারী, আবদুস সালাম মাসুম, নূর মোস্তফা টিনু, মেয়রের একান্ত সচিব আবুল হাশেম, চসিকের বিদ্যুৎ উপবিভাগের প্রধান তত্ত্বাবধায়ক প্রকৌশলী ঝুলন কুমার দাশসহ বিদ্যুৎ বিভাগের কর্মকর্তা-কর্মচারীরা।


আরও খবর
৯ ছাত্রীর চুল কাটার ঘটনায় শিক্ষিকা বরখাস্ত

বৃহস্পতিবার ২৯ ফেব্রুয়ারী ২০২৪




পুলিশের অতিরিক্ত মহাপরিদর্শক হিসেবে পদোন্নতি পেলেন ১৪ কর্মকর্তা

প্রকাশিত:রবিবার ১৮ ফেব্রুয়ারী ২০২৪ | হালনাগাদ:রবিবার ১৮ ফেব্রুয়ারী ২০২৪ | অনলাইন সংস্করণ
নিজস্ব প্রতিবেদক

Image

বাংলাদেশ পুলিশের অতিরিক্ত মহাপরিদর্শক (গ্রেড-২) পদে পদোন্নতি পেয়েছেন পুলিশের ১৪ কর্মকর্তা। সুপারনিউমারারি পদের বিপরীতে এসব কর্মকর্তাদের পদোন্নতি প্রদান করা হয়।

রোববার (১৮ ফেব্রুয়ারি) রাষ্ট্রপতির আদেশক্রমে স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের জননিরাপত্তা বিভাগের উপসচিব মো. মাহাবুর রহমান শেখ স্বাক্ষরিত এক আদেশে এ তথ্য জানানো হয়।

সুপার নিউমারারিতে পদোন্নতি প্রাপ্তরা হলেন- পুলিশ টেলিকমের এ কে এম শহিদুর রহমান ও বশির আহম্মদ, পুলিশ ট্রেনিং ড্রাইভিং স্কুলের মইনুল ইসলাম, স্পেশাল সিকিউরিটি অ্যান্ড প্রটেকশন ব্যাটেলিয়নের গোলাম কিবরিয়া, চট্টগ্রাম মেট্রোপলিটন পুলিশের কমিশনার কৃষ্ণ পদ রায়, সিআইডির কুসুম দেওয়ান, পুলিশ সদর দপ্তরের আনোয়ার হোসেন, ঢাকা মেট্রোপলিটন পুলিশের এ কে এম হাফিজ আক্তার ও ড. খঃ মহিদ উদ্দিন এবং রংপুর রেঞ্জের আব্দুল বাতেন।

এছাড়া নিয়মিত পদোন্নতির অংশ হিসেবে উপমহাপরিদর্শক থেকে অতিরিক্ত মহাপরিদর্শক হয়েছেন চারজন। এসব কর্মকর্তারা হলেন- পুলিশ সদর দপ্তরের খন্দকার লুৎফুর কবির ও তওফিক মাহমুদ চৌধুরী, এটিইউয়ের আব্দুল আলীম মাহমুদ এবং হাইওয়ে পুলিশের মাসুদুর রহমান ভূঁইয়া।


আরও খবর



পিপিপির সঙ্গে জোট করবেন ইমরান খান!

প্রকাশিত:বৃহস্পতিবার ১৫ ফেব্রুয়ারী ২০২৪ | হালনাগাদ:বৃহস্পতিবার ১৫ ফেব্রুয়ারী ২০২৪ | অনলাইন সংস্করণ
আন্তর্জাতিক ডেস্ক

Image

পাকিস্তান পিপলস পার্টির সঙ্গে জোট গঠনের ইঙ্গিত দিয়েছেন দেশটির সাবেক প্রধানমন্ত্রী ইমরান খান। রাজনৈতিক প্রতিদ্বন্দ্বিদের সঙ্গে জোট গঠন না করার ব্যাপারে অনঢ় থাকলেও পিটিআই প্রতিষ্ঠাতা কিছুটা নরম হয়েছেন বলে জানা গেছে। পার্টির সূত্রে এমনটাই দাবি করেছে দেশটির সংবাদমাধ্যম জিও নিউজ।

গত বৃহস্পতিবার পাকিস্তানে সাধারণ পরিষদের নির্বাচন অনুষ্ঠিত হয়। ৬০ ঘণ্টা পর প্রকাশিত ফলে দেখা যায়, স্বতন্ত্র প্রার্থীরা পেয়েছেন ১০২টি আসন, পাকিস্তান মুসলিম লিগ-নওয়াজ (পিএমএল-এন) ৭৪টি এবং পাকিস্তান পিপলস পার্টি (পিপিপি) ৫৪টি। এ ছাড়া মুত্তাহিদা কওমি মুভমেন্ট পাকিস্তান (এমকিউএম) ১৭ আসনে জয়ী হয়েছে। অন্য দলগুলো পেয়েছে ১৭টি আসন। পাকিস্তানে সরকার গঠনের জন্য প্রয়োজন ১৩৪ আসন। কিন্তু কোনো দলই এই সংখ্যায় না পৌঁছানোয় এখন জোট সরকার গঠন করেন দেশটির রাজনীতিবিদরা।

সর্বোচ্চ আসন পেলেও নওয়াজ শরীফের পিএমএল-এন বা বিলাওয়াল ভুট্টর পিপিপির মতো প্রতিদ্বন্দ্বির সঙ্গে জোট না করে বিরোধী দলে থাকার পরিকল্পনা ছিল ইমরান খানের। তবে জিও নিউজ জানিয়েছে এখন পিপিপির সঙ্গে আলোচনা করে সরকার গঠনে প্রস্তুত ইমরান খান।

ওই সূত্র জানায়, ‍দুই রাজনৈতিক দলের সম্পর্ক সামনে এগিয়ে নিতে প্রস্তুত নেতারা। এ ছাড়া জমিয়াত উলেমা ই-আসলাম-ফজল, আওয়ামী ন্যাশনাল পার্টি, জামায়াতে ইসলামীসহ অন্যান্য দলগুলোর সঙ্গেও আলোচনার করতে চায় পিটিআই।

তবে পিটিআইয়ের পক্ষ থেকে আনুষ্ঠানিকভাবে পিপিপির সঙ্গে জোট গঠনের দাবি প্রত্যাখ্যান করা হয়েছে। দলটির নেতা ব্যারিস্টার মুহাম্মদ আলি সাইফ বলেন, ইমরান খান এমন আলোচনায় অংশ না নেওয়ার জন্য কঠোর নির্দেশনা দিয়েছেন।

দুইদিন আগে পিপিপির কো-চেয়ারম্যান আসিফ আলি জারদারিও পিটিআইয়ের সঙ্গে আলোচনার আগ্রহ প্রকাশ করেছিলেন। তিনি বলেন, আমরা চাই রাজনৈতিক সংস্কার প্রক্রিয়াতে পিটিআিই যুক্ত থাকুক। প্রত্যেকটি রাজনৈতিক শক্তিকেই যুক্ত থাকা উচিত।

মঙ্গলবার তিনি বলেছিলেন, আমরা অর্থনৈতিক, সামরিকসহ অন্যান্য ইস্যুতে একসঙ্গে কাজ করতে চাই। তাহলেই পাকিস্তান ও এর জনগণে সাফল্য আসবে।


আরও খবর