আজঃ মঙ্গলবার ২৫ জুন ২০২৪
শিরোনাম

নাইজেরিয়ায় আরও ৭০ কৃষকের লাশ উদ্ধার

প্রকাশিত:সোমবার ৩০ নভেম্বর ২০২০ | হালনাগাদ:মঙ্গলবার ১৬ ফেব্রুয়ারী ২০২১ | অনলাইন সংস্করণ
Image

নাইজেরিয়ায় খামারে কর্মরত শ্রমিকদের নির্বিচারে হত্যা করেছে সন্ত্রাসীরা। শনিবার ক্ষেত থেকে ৪৩ কৃষকের গলাকাটা মরদেহ উদ্ধারের পর রবিবার আরও অন্তত ৭০ জনের মরদেহ উদ্ধার করা হয়েছে বলে জানিয়েছে জাতিসংঘ। এই ঘটনায় আহত কয়েকজনে হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে। এছাড়া বেশ কয়েকজন কৃষককে অপহরণ করা হয়েছে বলেও জানিয়েছে কর্তৃপক্ষ। খবর আল জাজিরার

শনিবার বোর্নো রাজ্যের রাজধানী মাইদুগুড়ির কাছে কোশব নামক গ্রামে কৃষক শ্রমিকদের বেঁধে এবং গলা কেটে হত্যা করে জঙ্গিরা।

একজন গ্রাম্য নেতা এবং স্থানীয় যোদ্ধা জানিয়েছেন, স্থানীয় সরকারি অঞ্চল কাওয়াশেবি জামারমারি খামারে শ্রমিকরা ধান রোপণ করছিলেন। স্থানীয় সময় সকালের শেষ দিকে এই হামলা চালানো হয়।

রবিবার এক বিবৃতিতে নাইজেরিয়ায় জাতিসংঘের মানবিক সমন্বয়কারী এডওয়ার্ড ক্যালন বলেছেন, 'মোটরসাইকেলে সশস্ত্র ব্যক্তিরা তাদের ক্ষেত্রের ফসল কাটা বেসামরিক পুরুষ ও মহিলাদের উপর নৃশংস আক্রমণ চালিয়েছিল।'

তিনি জানান, এই হামলায় কমপক্ষে ১১০ জন বেসামরিক মানুষ নিহত হয়েছেন এবং আরও অনেকে আহত হয়েছেন। বেশ কয়েকজন মহিলা অপহৃত হয়েছেন বলে ধারণা করা হচ্ছে।

ক্যালন বলেন, 'বেসামরিক মানুষদের ওপর চলতি বছরে এটিই সবচেয়ে বড় হামলা। আমি এই জঘন্য ও নির্বোধ কাজের অপরাধীদের বিচারের আওতায় আনার আহ্বান জানাচ্ছি।'

তবে কারা এই হামলা চালিয়েছে সে বিষয়ে নিশ্চিত হওয়া যায়নি। এখনো কেউ এই হামলার দায় স্বীকার করেনি। হামলাকারীদের খুঁজতে তল্লাশি শুরু করেছে স্থানীয় কর্তৃপক্ষ।

তবে স্থানীয় একটি সশস্ত্র গোষ্ঠীর নেতা বাবাকুরা কোলো দাবি করেন, এটা বোকো হারামের কাজ তাতে কোনো সন্দেহ নেই। তারা এই এলাকায় কৃষকদের ক্রমাগত আক্রমণ করছে।

এর আগে গত মাসে মাইদুগুরি এলাকার কাছে পৃথক দু’টি ঘটনায় ২২ জন কৃষককে হত্যা করেছিল বোকো হারামের সদস্যরা।

উত্তর-পূর্ব নাইজেরিয়ায় বোকো হারাম এবং ইসলামিক স্টেট বেশ সক্রিয়। তাদের সঙ্গে সহিংসতায় হাজার হাজার মানুষ প্রাণ হারিয়েছেন, ২০০৯ সাল থেকে এ পর্যন্ত বাস্তুচ্যুত হয়েছেন ২০ লাখের বেশি মানুষ।


আরও খবর



সিলেটে ভারী বৃষ্টিতে ডুবল ঈদ আনন্দ

প্রকাশিত:সোমবার ১৭ জুন ২০২৪ | হালনাগাদ:সোমবার ১৭ জুন ২০২৪ | অনলাইন সংস্করণ
জেলা প্রতিনিধি

Image

সিলেটে ঈদের দিন ভোর থেকে সাড়ে ৪ ঘণ্টার ভারী বৃষ্টিতে তলিয়ে গেছে মহানগরসহ জেলার বিভিন্ন উপজেলার ঈদগাহ ও সড়ক। পাহাড়ি ঢলে সুরমা ও কুশিয়ারা নদীর পানি বিপৎসীমার ওপর দিয়ে প্রবাহিত হচ্ছে। পানিবন্দি হয়ে পড়েছে প্রায় ৬ লাখ মানুষ। এতে অনেকটাই মাটি হয়েছে ঈদুল আজহার আনন্দ। বৃষ্টির পানিতে ঈদগাহ ও মসজিদ ভেসে যাওয়ায় অনেকে ঈদের নামাজ আদায় করতে পারেননি। পশু কোরবানি করা নিয়েও দেখা দিয়েছে অনিশ্চয়তা।

সোমবার দেশের বিভিন্ন জেলায় ভারী বৃষ্টির পূর্বাভাস ছিল। এদিন সিলেটে ভোর ৪টা থেকে শুরু হয় বর্ষণ, টানা চলে সকাল সাড়ে ৮টা পর্যন্ত।

দেখা যায়, নগরীর প্রধান প্রধান সড়কের উপর দিয়ে পানি প্রবাহিত হচ্ছে। পানি ঢুকেছে অনেকের বাসাবাড়ি ও ব্যবসা প্রতিষ্ঠানে। শুকনা স্থান না পেয়ে অনেকেই কোরবানির গরু-ছাগল পানির মধ্যে বেঁধে রেখেছেন। এ ছাড়া জেলার বিভিন্ন উপজেলায় অবনতি হয়েছে বন্যা পরিস্থিতির।

বন্যা আক্রান্তদের জন্য ইতোমধ্যে ৪৪৯টি আশ্রয়কেন্দ্র খোলা হয়েছে। আজ সকাল পর্যন্ত কোম্পানীগঞ্জ, গোয়ানঘাট, কানাইঘাটসহ কয়েকটি উপজেলায় ১০ হাজারের মতো মানুষ আশ্রয়কেন্দ্রে উঠেছেন বলে জানা গেছে।

এদিকে ভারী বৃষ্টি মাথায় নিয়েই সকাল ৮টায় শাহী ঈদগাহে সিলেটে প্রধান ঈদের জামাত অনুষ্ঠিত হয়। প্রতি বছর এই জামাতে লক্ষাধিক মুসল্লি অংশ নিলেও এবার ছিল ব্যতিক্রম। শুধু শাহী ঈদগাহ নয়, প্রতিটি মসজিদ ও ঈদগাহের অবস্থা ছিল একই। সকাল ৮টায় পুলিশ লাইন জামে মসজিদে পানি প্রবেশ করায় একাংশে নামাজ আদায় করতে দেখা গেছে মুসল্লিদের।

একইভাবে মেজরটিলা, কদমতলী, বিমানবন্দর সড়ক, উপশহর, সুবহানিঘাটসহ বেশ কয়েকটি এলাকার ঈদগাহ ও মসজিদে পানি প্রবেশ করায় নামাজ আদায়ে ব্যাঘাত ঘটে।


আরও খবর



মেক্সিকোর নবনির্বাচিত প্রেসিডেন্টকে শেখ হাসিনার অভিনন্দন

প্রকাশিত:বুধবার ০৫ জুন ২০২৪ | হালনাগাদ:বুধবার ০৫ জুন ২০২৪ | অনলাইন সংস্করণ
নিজস্ব প্রতিবেদক

Image

দক্ষিণ আমেরিকার দেশ মেক্সিকোর নবনির্বাচিত প্রেসিডেন্ট ড. ক্লদিয়া শিনবাউম পারদোকে অভিনন্দন জানিয়েছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। একইসঙ্গে দেশটির সঙ্গে বিদ্যমান দ্বিপাক্ষিক সম্পর্ক আরও জোরদারে কাজ করার ইচ্ছা প্রকাশ করেন তিনি। মঙ্গলবার (৪ জুন) প্রধানমন্ত্রীর প্রেস উইংয়ের এক সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে এ তথ্য জানানো হয়।

ড. ক্লদিয়া শিনবাউম পারদোকে লেখা এক চিঠিতে প্রধানমন্ত্রী বলেন, বাংলাদেশের জনগণ ও সরকারের পক্ষ থেকে এবং আমার নিজের পক্ষ থেকে, ইউনাইটেড মেক্সিকান স্টেটের প্রথম নারী প্রেসিডেন্ট নির্বাচিত হওয়ায় আমি আপনাকে আন্তরিক অভিনন্দন জানাই।

তিনি বলেন, আপনার বিজয় শুধু আপনার ব্যতিক্রমী নেতৃত্বের গুণাবলীই প্রদর্শন করে না, বরং লিঙ্গ সমতা ও প্রতিনিধিত্বের জন্য একটি গুরুত্বপূর্ণ মাইলফলকেরও প্রতিনিধিত্ব করে। এটি এমন একটি ক্ষেত্র যেখানে বাংলাদেশ তার উল্লেখযোগ্য অগ্রগতিতে গর্ব করে।

তিনি আরও বলেন, দুই দেশের মধ্যে বন্ধুত্ব ও অংশীদারিত্বের স্থায়ী বন্ধন আরও জোরদার করতে নির্বাচিত প্রেসিডেন্টের সঙ্গে কাজ করতে অধীর আগ্রহে অপেক্ষা করছি। দুই দেশের সহযোগিতা বাংলাদেশ ও মেক্সিকোর যৌথ স্বার্থকে আরও এগিয়ে নিয়ে যাবে এবং উভয় দেশের জনগণের কল্যাণ বয়ে আনবে বলেও আশা প্রকাশ করি।

প্রধানমন্ত্রী বলেন, আমরা বাংলাদেশে মেক্সিকান কূটনৈতিক মিশন প্রতিষ্ঠার প্রত্যাশা করছি, একটি দীর্ঘ প্রতীক্ষিত বিষয় যা আমাদের দ্বিপাক্ষিক সম্পর্ককে আরও গভীর করবে।

ড. ক্লদিয়া শিনবাউম পারদোর নতুন দায়িত্বের সর্বাত্মক সাফল্য কামনা এবং দুই দেশের মধ্যে ভ্রাতৃত্বের বন্ধন ও সহযোগিতা বৃদ্ধিতে পূর্ণ সহযোগিতার আশ্বাস দেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা।


আরও খবর



ইসরায়েলে বৃষ্টির মতো রকেট ছুড়েছে হিজবুল্লাহ

প্রকাশিত:শুক্রবার ১৪ জুন ২০২৪ | হালনাগাদ:শুক্রবার ১৪ জুন ২০২৪ | অনলাইন সংস্করণ
আন্তর্জাতিক ডেস্ক

Image

ইসরায়েলের অন্তত ৯টি সামরিক স্থাপনায় একযোগে আবারো মুহুর্মুহু রকেট ও ড্রোন হামলা চালিয়েছে লেবাননের ইরান-সমর্থিত সশস্ত্র গোষ্ঠী হিজবুল্লাহ।

বৃহস্পতিবার টানা দ্বিতীয় দিনের মতো লেবাননের দক্ষিণ সীমান্ত এলাকা থেকে ইসরায়েলি সামরিক স্থাপনায় ওই হামলার দাবি করেছে গোষ্ঠীটি। বার্তা সংস্থা রয়টার্সের এক প্রতিবেদন থেকে জানা যায়।

মঙ্গলবার ইসরায়েলের সামরিক বাহিনীর হামলায় হিজবুল্লাহর মাঠ পর্যায়ের জ্যেষ্ঠ একজন কমান্ডার নিহত হন। বৃহস্পতিবার ওই হামলার প্রতিশোধে ইসরায়েলি সামরিক বাহিনীর স্থাপনায় হামলা চালিয়েছে হিজবুল্লাহ। লেবাননের একটি নিরাপত্তা সূত্র বলেছে, ইসরায়েলি সামরিক স্থাপনায় গত অক্টোবরের পর বৃহস্পতিবারই সবচেয়ে বড় হামলা চালিয়েছে হিজবুল্লাহ।

এক বিবৃতিতে ইরান-সমর্থিত সশস্ত্র এই গোষ্ঠী বলেছে, হিজবুল্লাহ ইসরায়েলি সামরিক বাহিনীর ছয়টি অবস্থানে মুহুর্মুহু কাতিউশা ও ফালাক রকেট ছুড়েছে। হিজবুল্লাহ-নিয়ন্ত্রিত ইয়েমেনের সংবাদমাধ্যম আল-মানার টেলিভিশন একযোগে ১০০টিরও বেশি রকেট ছোড়ার খবর দিয়েছে।

হিজবুল্লাহর বিবৃতিতে বলা হয়েছে, ইসরায়েলের উত্তরাঞ্চলীয় কমান্ডের সদর দপ্তর, একটি গোয়েন্দা সদরদপ্তর ও একটি সামরিক ব্যারাকে ড্রোন হামলা চালানো হয়েছে।

লেবাননের নিরাপত্তা সূত্র ব্রিটিশ বার্তা সংস্থা রয়টার্সকে বলেছে, ইসরায়েলে একযোগে অন্তত ৩০টি ‌অ্যাটাক ড্রোন ছোড়া হয়েছে; যা ইসরায়েল-হামাসের গত আট মাসের যুদ্ধে এখন পর্যন্ত সবচেয়ে বড় ড্রোন হামলা হিজবুল্লাহর।

গত অক্টোবরে গাজা উপত্যকার ক্ষমতাসীন গোষ্ঠী হামাসের সাথে ইসরায়েলের যুদ্ধ শুরু হওয়ার পর থেকে প্রায় প্রত্যেক দিনই ইসরায়েলের প্রতিরক্ষা বাহিনী ও ইরান-সমর্থিত হিজবুল্লাহর মাঝে পাল্টাপাল্টি হামলার ঘটনা ঘটছে। তবে মঙ্গলবার ইসরায়েলের হামলায় হিজবুল্লাহর জ্যেষ্ঠ একজন কমান্ডারের প্রাণহানির পর উভয়পক্ষের মাঝে ব্যাপক উত্তেজনা তৈরি হয়েছে।

বুধবার হিজবুল্লাহ বলেছিল, ইসরায়েলি বাহিনীর হামলার প্রতিশোধে ওইদিন অন্তত ৮ বার হামলা চালিয়েছে তারা। বৃহস্পতিবার ইসরায়েলের উত্তরাঞ্চলীয় বিভিন্ন শহরে বিমান হামলার সাইরেন বাজিয়ে বাসিন্দাদের সতর্ক করে দেয়া হয়।

ইসরায়েলি প্রতিরক্ষা বাহিনী আইডিএফ বলছে, বৃহস্পতিবার বিকেলে ইসরায়েলের উত্তরাঞ্চলে সাইরেন বেজে উঠে। ৪০টি রকেট এসেছে লেবানন থেকে। রাষ্ট্রীয় সম্প্রচারমাধ্যম কানে দেখানো হয়েছে বেশ কয়েকটি ফুটেজ।

এতে দেখা যায়, ইসরায়েলের বেশ কয়েকটি শহরের আকাশে রকেট। এর মধ্যে লেবানন সীমান্ত থেকে ১২ কিলোমিটার দূরত্বে সাফেদ শহরে আঘাত করে রকেট। ইসরায়েলের জাতীয় অ্যাম্বুলেন্স পরিষেবা থেকে বলা হচ্ছে, এই হামলায় দুজন আহত হয়েছে। আগুন লেগেছে কয়েকটি জায়গায়। তবে বেশি ক্ষতি হয়নি।

প্রতিরক্ষা বাহিনী আইডিএফ বলছে, বেশিরভাগ রকেটই প্রতিহত করা হয়েছে। এছাড়া ড্রোনও শনাক্ত করে ধ্বংস করা হয়েছে।

গত ৭ অক্টোবর ইসরায়েলে হামলা চালায় ফিলিস্তিনের স্বাধীনতাকামী সশস্ত্র গোষ্ঠী হামাস। এর পর থেকে গাজায় টানা হামলা চালিয়ে যাচ্ছে ইসরায়েলি বাহিনী। এতে নিহত হয়েছেন ৩৭ হাজারের বেশি ফিলিস্তিনি। যাদের মধ্যে ১৫ হাজারের বেশি শিশু। হামাসের সঙ্গে ইসরায়েলের এই দ্বন্দ্বের মধ্যেই লেবানন সীমান্তে বেড়ে গেছে উত্তেজনা। এর আগেও ইসরায়েলে হামলা চালায় ইরান-সমর্থিত সশস্ত্র গোষ্ঠী হিজবুল্লাহ। এবার আবারো হামলা চালানো হলো।


আরও খবর



ঘূর্ণিঝড় রেমাল: ১২ ফুট উচ্চতায় জলোচ্ছ্বাস ও ভূমিধসের শঙ্কা

প্রকাশিত:রবিবার ২৬ মে ২০২৪ | হালনাগাদ:রবিবার ২৬ মে ২০২৪ | অনলাইন সংস্করণ
নিজস্ব প্রতিবেদক

Image

প্রবল ঘূর্ণিঝড়ে রূপ নেওয়া রেমালের প্রভাবে ১৬ জেলায় ৮ থেকে ১২ ফুট উচ্চতার জলোচ্ছ্বাস হতে পারে বলে জানিয়েছে বাংলাদেশ আবহাওয়া অধিদপ্তর। সেই সঙ্গে অতি ভারী বৃষ্টির ফলে ৫ জেলায় ভূমিধসের শঙ্কার কথাও জানিয়েছে সংস্থাটি।

রবিবার (২৬ মে) বাংলাদেশ আবহাওয়া অধিদপ্তরের আবহাওয়াবিদ খো. হাফিজুর রহমানের দেওয়া বিশেষ বিজ্ঞপ্তিতে এ তথ্য জানানো হয়।

আবহাওয়া অফিস জানায়, প্রবল ঘূর্ণিঝড়টির অগ্রবর্তী অংশ ও বায়ুচাপ পার্থক্যের আধিক্যের প্রভাবে উপকূলীয় জেলা খুলনা, সাতক্ষীরা, বাগেরহাট, পিরোজপুর, ঝালকাঠি, বরগুনা, বরিশাল, ভোলা, পটুয়াখালী, ফেনী, কুমিল্লা, নোয়াখালী, লক্ষ্মীপুর, চাঁদপুর, চট্টগ্রাম, কক্সবাজার এবং তাদের অদূরবর্তী দ্বীপ ও চরসমূহের নিম্নাঞ্চল স্বাভাবিক জোয়ারের চেয়ে ৮ থেকে ১২ ফুট অধিক উচ্চতার বায়ুতাড়িত জলোচ্ছ্বাসে প্লাবিত হতে পারে।

এছাড়া প্রবল ঘূর্ণিঝড়টির প্রভাবে রাজশাহী, রংপুর, ময়মনসিংহ, ঢাকা, খুলনা, বরিশাল, চট্টগ্রাম ও সিলেট বিভাগে দমকা/ঝোড়ো হাওয়াসহ ভারী (৪৪-৮৮ মিমি/২৪ ঘণ্টা) থেকে অতি ভারী (২৮৯ মিমি/২৪ ঘণ্টা) বর্ষণ হতে পারে। অতি ভারী বর্ষণের প্রভাবে কক্সবাজার, বান্দরবান, রাঙ্গামাটি, খাগড়াছড়ি ও চট্টগ্রামের পাহাড়ি অঞ্চলের কোথাও কোথাও ভূমিধস হতে পারে বলে জানয় সংস্থাটি।

এদিকে ঘূর্ণিঝড় রেমালের সম্ভাব্য ক্ষয়ক্ষতি এড়াতে দেশের পায়রা ও মোংলা সমুদ্রবন্দরকে ১০ নম্বর মহাবিপদ সংকেত দেখিয়ে যেতে বলা হয়েছে। একই সঙ্গে চট্টগ্রাম ও কক্সবাজার সমুদ্রবন্দরে ৯ নম্বর মহাপবিদ সংকেত দেখিয়ে যেতে বলেছে আবহাওয়া অধিদপ্তর।


আরও খবর



শেখ হাসিনাকে রাজনীতির জাদুকর বললেন ওবায়দুল কাদের

প্রকাশিত:রবিবার ২৩ জুন ২০২৪ | হালনাগাদ:রবিবার ২৩ জুন ২০২৪ | অনলাইন সংস্করণ
নিজস্ব প্রতিবেদক

Image

জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানকে পয়েট অব পলিটিকস আখ্যায়িত করা হয়েছিল উল্লেখ করে আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ওবায়দুল কাদের বলেছেন, আমাদের নেত্রী বঙ্গবন্ধুকন্যাকে আজ আমরা বলি, তিনি হচ্ছেন ম্যাজিশিয়ান অব পলিটিকস (রাজনীতির জাদুকর)।

রবিবার (২৩ জুন) বিকালে ঐতিহাসিক সোহরাওয়ার্দী উদ্যানে আওয়ামী লীগের ৭৫তম প্রতিষ্ঠাবার্ষিকীর আলোচনা সভায় এ কথা বলেন তিনি। এ সময় সভামঞ্চে উপস্থিত ছিলেন আওয়ামী লীগের সভাপতি ও প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা।

স্বাধীনতা বাংলাদেশের সর্বশ্রেষ্ঠ অর্জন জানিয়ে ওবায়দুল কাদের বলেন, এই অর্জনের জনক জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান। এ দেশে দুটি লিগ্যাসির জন্ম হয়েছে। একটা লিগ্যাসি স্বাধীনতার জন্য বঙ্গবন্ধু। তিনি আজ নেই, কিন্তু তার লিগ্যাসির মৃত্যু নেই কোনও দিন। আরেকটি লিগ্যাসি আমাদের অর্থনৈতিক মুক্তি। এটি ধারণ করে আছেন আমাদের সভাপতি শেখ হাসিনা। যত দিন এই বাংলাদেশ থাকবে, ততদিন বঙ্গবন্ধুর মৃত্যু নেই, শেখ হাসিনা অমর হয়ে থাকবেন।

এর আগে বিকাল ৪টা ৪০ মিনিটে পবিত্র কোরআন তিলাওয়াতের মধ্য দিয়ে বিভিন্ন ধর্মগ্রন্থ পাঠ শুরু হয়। জাতীয় ও দলীয় পতাকা উত্তোলন, জাতীয় সংগীত পরিবেশন, বেলুন ও পায়রা উড়িয়ে কর্মসূচি উদ্বোধন করেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা।

আওয়ামী লীগের ৭৫তম প্রতিষ্ঠাবার্ষিকীর অনুষ্ঠানে আসা সবাইকে ধন্যবাদ ও শুভেচ্ছা জানিয়ে কাদের বলেন, যারা স্বাধীনতার আদর্শে বিশ্বাস করেন, মুক্তিযুদ্ধের চেতনা ধারণ করেন, দেশের সব পর্যায়ের মানুষ, রাজনৈতিক নেতারা, মুক্তিযুদ্ধের সপক্ষের শক্তি সবার কাছে আমি আহ্বান জানাই, আমাদের ভুল-ত্রুটি নেই, তা আমরা বলবো না। তারপরও শেখ হাসিনাই বাংলাদেশের জনগণের একমাত্র আস্থার ঠিকানা। আসুন আমরা সবাই মিলে তার হাতকে শক্তিশালী করি।

দেশি-বিদেশি ষড়যন্ত্র চলছে উল্লেখ করে সাধারণ সম্পাদক বলেন, শেখ হাসিনার উন্নয়ন অনেকে দেখতে পায় না। আজ একটি দল অন্তর্জ্বালায় জ্বলছে। তারা দিনের আলোয় রাতের অন্ধকার দেখে। পূর্ণিমার রাতে অমাবস্যার অন্ধকার দেখে। তারা উন্নয়ন দেখতে পায় না।

তিনি আরও বলেন, তারা আমাদের স্বাধীনতা ও মুক্তিযুদ্ধের শত্রু। তারা দেশে স্বৈরশাসন চালু করেছিল, মুক্তিযুদ্ধের চেতনা নির্বাসনে পাঠিয়েছিল, জয় বাংলাকে নিষিদ্ধ করেছিল। ১৫ আগস্টের ও ২১ আগস্টের যারা মাস্টারমাইন্ড, সেই অশুভ শক্তির বিরুদ্ধে আমাদের আজ ঐক্যবদ্ধ হতেই হবে।

পরে সমাবেশে সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠানের আয়োজন করা হয়।


আরও খবর