আজঃ সোমবার ২৬ ফেব্রুয়ারী ২০২৪
শিরোনাম

যেসব কারণে রোজা কাজা করতেই হবে

প্রকাশিত:বুধবার ১২ এপ্রিল ২০২৩ | হালনাগাদ:বুধবার ১২ এপ্রিল ২০২৩ | অনলাইন সংস্করণ
ধর্ম ও জীবন

Image

সিয়াম সাধনার মাস রমজান। এ মাসে রোজাদার সংযম পালন করে থাকেন। এ মাসে কিছু বর্জনীয় কাজ রয়েছে, যা রোজার দিনে মনে অজান্তেই ঘটে যায়। যার ফলে রোজা ভেঙে যায় এবং পরবর্তীতে সেই রোজা কাজা করা আবশ্যক হয়ে যায়। তবে এসব রোজার কাফফারার প্রয়োজন হয় না। সে কাজগুলো কী?

অনিচ্ছাকৃতভাবে গলার ভেতর পানি চলে গেলে: রোজার কথা স্মরণ থাকা অবস্থায় অজু বা গোসলের সময় অনিচ্ছাকৃতভাবে গলার ভেতর পানি চলে গেলে রোজা ভেঙে যাবে। তাই রোজা অবস্থায় অজু-গোসলের সময় নাকের নরম স্থানে পানি পৌঁছানো এবং গড়গড়াসহ কুলি করা যাবে না। কারো গলার ভেতরে পানি চলে গেলে রমজানের পরে এ রোজার কাজা করা লাগবে, কাফফারার প্রয়োজন নেই। (আবু দাউদ ২৩৬৩, ফতোয়ায়ে শামি ২/৪০১)

অখাদ্য খেলে: আহারযোগ্য নয়, এমন খাবার খাওয়া। সাধারণতে যা খেলে কোনো উপকারে আসে না, তা খেলেও রোজা ভেঙে যাবে। রমজানের পরে এ রোজার কাজা করা লাগবে, কাফফারার প্রয়োজন নেই। (বুখারি ১/২৬০, রদ্দুল মুহতার : ২/৪১০)

থুথুর সঙ্গে রক্ত গলার ভেতরে গেলে: দাঁত বা মুখ থেকে রক্ত বেরিয়ে তা যদি থুথুর সঙ্গে গলার ভেতর চলে যায়, আর রক্তের পরিমাণ থুথুর সমান বা বেশি হলে রোজা ভেঙে যাবে। রমজানের পরে এ রোজার কাজা করা লাগবে, কাফফারার প্রয়োজন নেই। (রদ্দুল মুহতার : ২/৩৯৬)

বীর্যপাত হলে: হস্তমৈথুনে বীর্যপাত হলে রোজা ভেঙে যাবে। এটা ভয়াবহ গুনাহের কাজ। রমজানের পরে এ রোজার কাজা করা লাগবে, কাফফারার প্রয়োজন নেই। (বুখারি ১/২৫৪, ফতোয়ায়ে শামি ২/৩৯৯)

বমি গিলে ফেললে: মুখে বমি চলে আসার পর ইচ্ছাকৃতভাবে তা গিলে ফেললে রোজা ভেঙে যাবে; যদিও তা পরিমাণে অল্প হয়। রমজানের পরে এ রোজার কাজা করা লাগবে, কাফফারার প্রয়োজন নেই। (আদ্দুররুল মুখতার ২/৪১৫)

হায়েজ বা নেফাস শুরু হলে: রোজা অবস্থায় হায়েজ/মাসিক/ঋতুস্রাব বা নেফাস শুরু হলে রোজা ভেঙে যাবে। রমজানের পরে এ রোজার কাজা করা লাগবে, কাফফারার প্রয়োজন নেই। (বুখারি ১/৪৪, আন নুতাফ ফিল ফাতাওয়া ১০০)

পেটের ক্ষত স্থানে ওষুধ লাগালে: পেটের ভেতর ওষুধ চলে যায়, এমন ক্ষত স্থানে ওষুধ লাগালে রোজা কাজা করতে হবে। বিশেষ প্রয়োজনে এমন ক্ষতে ওষুধ লাগাতে হলে পরে সে রোজার কাজা করে নিতে হবে। কাফফারার প্রয়োজন নেই। (রদ্দুল মুহতার ২/৪০২)

নাকের ভেতর ওষুধ বা পানি গেলে: নাকে ওষুধ বা পানি দিলে তা যদি গলার ভেতর চলে যায়, তাহলে রোজা ভেঙে যাবে। রমজানের পরে এ রোজার কাজা করা লাগবে, কাফফারার প্রয়োজন নেই। (রদ্দুল মুহতার ২/৪০২)

মলদ্বারের ভেতর ওষুধ বা পানি গেলে: মলদ্বারের ভেতর ওষুধ বা পানি ইত্যাদি গেলে রোজা ভেঙে যাবে। রমজানের পরে এ রোজার কাজা করা লাগবে, কাফফারার প্রয়োজন নেই। (রদ্দুল মুহতার ২/৪০২)

ভোর হয়নি ভেবে পানাহার বা স্ত্রীসঙ্গম করা: সুবহে সাদিকের পর সেহরির সময় আছে ভেবে পানাহার বা স্ত্রীসঙ্গম করলে রোজা ভেঙে যাবে। তেমনি ইফতারির সময় হয়ে গেছে ভেবে সূর্যাস্তের আগে ইফতার করে নিলে রোজা নষ্ট হয়ে যাবে। রমজানের পরে এ রোজার কাজা করা লাগবে, কাফফারার প্রয়োজন নেই। (আল বাহরুর রায়েক ২/২৯১)

রোজা নষ্ট হয়েছে ভেবে ইচ্ছাকৃতভাবে পানাহার করলে: রোজা রাখা অবস্থায় ভুলবশত পানাহার করে রোজা নষ্ট হয়ে গেছে ভেবে ইচ্ছাকৃতভাবে পানাহার করলে রোজা নষ্ট হয়ে যাবে। রমজানের পরে এ রোজার কাজা করা লাগবে, কাফফারার প্রয়োজন নেই। (আদ্দুররুল মুখতার ২/৪০১)

বমির কারণে রোজা নষ্ট হয়েছে ভেবে রোজা ভেঙে ফেললে: অনিচ্ছাকৃত বমি হওয়ার কারণে রোজা নষ্ট হয়ে গেছে মনে করে রোজা ভেঙে ফেললে রমজানের পরে এ রোজার কাজা করা লাগবে, কাফফারার প্রয়োজন নেই। (মুসান্নাফে ইবনে আবি শাইবা ৬/১৪৯, আদ্দুররুল মুখতার ২/৪০১)


আরও খবর
শবে বরাত সম্পর্কে হাদিসে যা বলা হয়েছে

রবিবার ২৫ ফেব্রুয়ারী ২০২৪




শিশু আহনাফের মৃত্যুর ঘটনায় মামলা, গ্রেপ্তার দুই চিকিৎসক

প্রকাশিত:বুধবার ২১ ফেব্রুয়ারী ২০২৪ | হালনাগাদ:বুধবার ২১ ফেব্রুয়ারী ২০২৪ | অনলাইন সংস্করণ
নিজস্ব প্রতিবেদক

Image

মালিবাগের জে এস ডায়াগনস্টিক অ্যান্ড মেডিকেল চেকআপ সেন্টারে চতুর্থ শ্রেণির শিক্ষার্থী আহনাফ তাহমিন আয়হামের (১০) মৃত্যুতে দুই চিকিৎসককে গ্রেপ্তার করেছে পুলিশ। এ ছাড়া সেন্টারটি বন্ধ করে দেওয়া হয়েছে।

বুধবার (২১ ফেব্রুয়ারি) সকালে হাতিরঝিল থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মো. আওলাদ হোসেন বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন। গ্রেপ্তার দুই চিকিৎসক হলেন এস এম মুক্তাদির ও মাহবুব।

ওসি বলেন, এ ঘটনায় জেএস ডায়াগনস্টিক অ্যান্ড মেডিকেল চেকআপ সেন্টারটি বন্ধ করে দেওয়া হয়েছে। আর দুজন চিকিৎসককে গ্রেপ্তার করা হয়েছে। প্রাথমিকভাবে তাদের জিজ্ঞাসাবাদ করা হচ্ছে।

স্বজনদের অভিযোগ, লোকাল অ্যানেস্থেসিয়া দেওয়ার কথা থাকলেও তারা ফুল অ্যানেস্থেসিয়া দিয়েছে। যে কারণে আয়হামের আর জ্ঞান ফেরেনি। এর আগে, মঙ্গলবার (২০ ফেব্রুয়ারি) রাত ৮টায় আয়হামের সুন্নতে খতনা করাতে অপারেশন থিয়েটারে নেওয়া হয়। এর ঘণ্টাখানেক পর তাকে মৃত ঘোষণা করা হয়। 

আরও পড়ুন>> এবার সুন্নতে খৎনা করাতে গিয়ে আইডিয়াল শিক্ষার্থীর মৃত্যু

জানা গেছে, মালিবাগের জে এস ডায়াগনস্টিক অ্যান্ড মেডিকেল চেকআপ সেন্টারে অর্থোপেডিক ও ট্রমা সার্জন ডা. এস এম মুক্তাদিরের তত্ত্বাবধানে মঙ্গলবার রাতে সন্তানকে সুন্নতে খতনা করাতে আসেন শিশু আয়হামের বাবা ফখরুল আলম ও মা খায়কুন নাহার চুমকি। রাত ৮টার দিকে খতনা করানোর জন্য অ্যানেস্থেসিয়া দেওয়ার পর আর ঘুম ভাঙেনি আয়হামের। এর ঘণ্টাখানেক পর হাসপাতালটির পক্ষ থেকে শিশুটিকে মৃত ঘোষণা করা হয়।

এ বিষয়ে আহনাফের বাবা ফখরুল আলম বলেন, আমরা চিকিৎসককে বলেছিলাম যেন ফুল অ্যানেস্থেসিয়া না দেওয়া হয়। তারপরও আমার ছেলের শরীরে সেটি পুশ করেন ডা. মুক্তাদির। আমি তাদের পা পর্যন্ত ধরেছি। বলেছি, কিছু একটা ব্যবস্থা করেন। তারা বলে ঠিক হয়ে যাবে, এই যে দেখেন নিশ্বাস নিচ্ছে। কিন্তু এর আগেই ডেট।

তিনি বলেন, আমার সন্তানকে অ্যানেস্থেসিয়া দিয়ে হত্যা করা হয়েছে। এই মৃত্যুর দায় মুক্তাদিরসহ হাসপাতাল কর্তৃপক্ষ সবারই। আমি তাদের কঠোর শাস্তি চাই।

অভিযুক্ত চিকিৎসক মুক্তাদির বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিকেল বিশ্ববিদ্যালয়ের (বিএসএমএমইউ) অর্থোপেডিক বিভাগের জয়েন্ট ব্যথা, বাত ব্যথা, প্যারালাইসিস বিশেষজ্ঞ হিসেবে পরিচয় দিয়ে চিকিৎসা দিতেন বলে জানা গেছে।

এ বিষয়ে বক্তব্য জানতে জে এস ডায়াগনস্টিক অ্যান্ড মেডিকেল চেকআপ সেন্টার কর্তৃপক্ষের সঙ্গে যোগাযোগ করা হলেও কাউকে পাওয়া যায়নি।

গত ৮ জানুয়ারি রাজধানীর বাড্ডা সাতারকুলে ইউনাইটেড মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে সুন্নতে খতনা করাতে গিয়ে লাইফ সাপোর্টে থাকা শিশু আয়ান মারা যায়। টানা সাত দিন লাইফ সাপোর্টে ছিল আয়ান।


আরও খবর
ছুটির দিনেও ঢাকার বায়ু ‌‘অস্বাস্থ্যকর’

সোমবার ২৬ ফেব্রুয়ারী ২০২৪




শাহজীবাজার রাবার বাগানে দশ বছরে লোকসান ৫৭ কোটি টাকা

প্রকাশিত:বৃহস্পতিবার ২২ ফেব্রুয়ারী ২০২৪ | হালনাগাদ:বৃহস্পতিবার ২২ ফেব্রুয়ারী ২০২৪ | অনলাইন সংস্করণ
হবিগঞ্জ প্রতিনিধি

Image

অর্থনৈতিক গুরুত্বের কারণে রাবারকে সাদা সোনা হিসেবে আখ্যায়িত করা হয়। বিশ্বের প্রায় ৪৬ হাজার পণ্য তৈরী হয় রাবারের মাধ্যমে।

বাংলাদেশে রাবার শিল্পের যাত্রা শুরু ১৯৬০ সালে। বর্তমানে দেশে রাষ্ট্রয়াত্ব বাগানের সংখ্যা ১৮টি। এছাড়া ছোট-বড় বেশ কিছু ব্যক্তি মালিকানাধিন বাগান রয়েছে। দেশে প্রতি বছর রাবারের চাহিদা প্রায় ২০ হাজার টন। এর বিপরীতে দেশে বছরে উৎপাদন হচ্ছে সাড়ে ১১ হাজার টন। এর মধ্যে সরকারি বাগান থেকে বছরে ৬ হাজার টন এবং ব্যক্তি মালিকানাধিন বাগান থেকে ৫.৫০ হাজার টন রাবার উৎপাদন হচ্ছে। বাকি রাবার আমদানি করতে হচ্ছে বিভিন্ন দেশ থেকে।

রাষ্ট্রয়াত্ব ১৮টি বাগানের মধ্যে একটি শাহজীবাজার রাবার বাগান। ২ হাজার ১০৪ একর জায়গা নিয়ে ৮০ দশকে হবিগঞ্জের মাধবপুরে বাগানটি গড়ে তোলা হয়। একসময় লাভজনক থাকলেও ২০১৩ সালের পর থেকে প্রতি বছর কোটি কোটি টাকা লোকসান গুণতে হচ্ছে বাগানটিকে। গেল ১০ বছরে বাগানের লোকসানের পরিমাণ প্রায় ৫৭ কোটি টাকা।

বাগান কর্তৃপক্ষের তথ্য অনুযায়ি ২০১৩-১৪ অর্থবছর ৪ কোটি ৫৭ লাখ, ২০১৪-১৫ অর্থবছর ৪ কোটি ৭০ লাখ, ২০১৫-১৬ অর্থবছর ৪ কোটি ২৬ লাখ, ২০১৬-১৭ অর্থবছর ৪ কোটি, ২০১৭-১৮ অর্থবছর ৩ কোটি ৬৪ লাখ, ২০১৮-১৯ অর্থবছর ৭ কোটি ৮৮ লাখ, ২০১৯-২০ অর্থবছর ৭ কোটি ৮০ লাখ, ২০২০-২১ অর্থবছর ৭ কোটি ৭৪ লাখ, ২০২১-২২ অর্থবছর ৫ কোটি ৭১ লাখ, ২০২২-২৩ অর্থবছর ৬ কোটি ৬৪ লাখ টাকা লোকসান হয়েছে।

কর্তৃপক্ষ বলছে- অপরিকল্পিতভাবে বাগান পরিচালনা, গাছের জীবনচক্র শেষ এবং উৎপাদন খরচ বেড়ে যাওয়া লোকসানের বড় কারণ।

বাংলাদেশ রাবার বোর্ডের তথ্য বলছে, মূলত একটি রাবার গাছের কষ দেওয়ার স্বাভাবিক ক্ষমতা থাকে ৩০ থেকে ৩২ বছর পর্যন্ত। কিন্তু শাহজীবাজারের গাছগুলোর বয়স প্রায় ৪০ এর বেশি। ফলে এক দশক আগেই কষ দেওয়ার স্বাভাবিক ক্ষমতা হারিয়ে ফেলেছে বাগানটি। যে কারণে দিনদিন কমছে কষ সংগ্রহের পরিমাণ।

শাহজীবাজার রাবার বাগানে নিয়মিত কাজ করেন আড়াইশ শ্রমিক। কাকডাকা ভোরে এসব শ্রমিক কষ সংগ্রহে নামেন। বাগানের ঝোপঝাড়ে কাজ করায় সাপ-বিচ্ছু, বিষাক্ত পোকামাকড় আর বন্যজন্তুদের আক্রমণের শঙ্কা থাকলে নেই নূন্যতম নিরাপত্তা ব্যবস্থা। সেই সাথে পর্যাপ্ত সুযোগ সুবিধার অভাব রয়েছে এসব শ্রমিকদের।

১৫ বছরের বেশি সময় ধরে এই বাগানে কাজ করেন আব্দাল মিয়া। তিনি বলেন, আমরা যে টাকা বেতন পাই তা দিয়ে চলা বর্তমান সময়ে অনেক কঠিন। এখানে ওভারটাইম করার কোন সুযোগ নেই। এছাড়া আমাদের নিরাপত্তার কোন ব্যবস্থাও নেই। প্রতি বছর শীত মৌসুমে আমাদের জুতা, গ্লাবস, রেইনকোর্ট দেওয়ার কথা। কিন্তু কোন কিছুই দেওয়া হয় না। চাইলেই শুধু বলে বাগান লোকসানে আছে।

শাহজীবাজার রাবার বাগানের সহকারি মাঠ তত্বাবধায়ক মো. শরীফুল ইসলাম বলেন, গাছ থেকে কষ সংগ্রহের পর সেটিকে আনা হয় রাবার প্রসেসিং সেডে। এখানে বিভিন্ন প্রক্রিয়ার মাধ্যমে তরল কষকে সেডে রূপান্তর করা হয়। কিন্তু এই বাগানে যে যন্ত্রাংশ ব্যবহার করা হয় সেগুলো অনেক পুরনো। আধুনিক যন্ত্রাংশ না থাকায় একদিকে রাবারের সেড তৈরী করতে গিয়ে সময় বেশি লাগছে, অন্যদিকে কমছে রাবারের গুণগত মান। বাগানের গাছগুলোর অবস্থা খুবই খারাপ। বয়স বেশি হওয়ায় গাছগুলোতে যতেষ্ট কষ আসে না। সেই সাথে অর্ধেকের চেয়ে বেশি গাছ থেকে এক ফোটা কষও পাওয়া যায় না। সেগুলোতে পোকামাকড় আক্রমণ করেছে। 

শাহজীবাজার রাবার বাগানের ব্যবস্থাপক নন্দী গোপাল রায় বলেন, অনেক কারণে বাগানটি দিনের পর দিন লোকসান গুণেছে। এর মধ্যে তিনটি বড় কারণ অপরিকল্পিতভাবে বাগান পরিচালনা, গাছের জীবনচক্র শেষ এবং উৎপাদন খরচ বেড়ে যাওয়া লোকসানের বড় কারণ। গত ১০ বছরে রাবার উৎপাদনে খরচ বেড়েছে দ্বিগুণ। বর্তমানে শাহজীবাজার বাগানে প্রতিকেজি রাবার উৎপাদনে খরচ হচ্ছে সাড়ে ৩শ টাকার বেশি। বিপরীতে বিক্রি হচ্ছে ১৭৫ টাকায়।

তিনি বলেন, রাবার মুলত কৃষিপণ্য। কিন্তু এনবিআর এটিকে শিল্প হিসেবে তালিকাভুক্ত করায় শুকনো রাবার বিক্রির সময় ১৫ শতাংশ ভ্যাট ও ৪ শতাংশ আয়কর পরিশোধ বাধ্যতামূলক। এনবিআরের এমন সিদ্ধান্ত রাবার শিল্পের উন্নয়নে প্রধান অন্তরায় হিসেবে দাঁড়িয়েছে। এ ব্যাপারে একটি মামলা চলছে। যার বিস্তারিত বলতে পারবেন আমাদের উর্ধ্বতন কর্মকর্তারা।

নন্দী গোপাল রায় বলেন, আমি এখানে কয়েক মাস আগে যোগদান করেছি। যোগদান করার পরই বাগানটিকে লাভজনক করতে ১০ বছরের একটি মাস্টারপ্ল্যান প্রস্তাবনা পাঠিয়েছি রাবার বোর্ডে। মাস্টারপ্ল্যান বাস্তবায়ন হলে এই সংকট থেকে উত্তোরণ সম্ভব হবে। যদিও এর কিছু কাজ শুরু হয়েছে। যেমন এরই মধ্যে পরিত্যক্ত গাছ কেটে দেড় হাজার হেক্টর জায়গাজুড়ে নতুন চারা লাগানো হয়েছে। পর্যক্রমে বাকি বাগানও এভাবে পুনর্বাসন করা হবে।


আরও খবর
ঝিনাইদহ জেলা কারাগারে কয়েদির মৃত্যু

সোমবার ২৬ ফেব্রুয়ারী ২০২৪




ঘরের মাঠে হারল ম্যানইউ, ব্যবধান কমাল সিটি

প্রকাশিত:রবিবার ২৫ ফেব্রুয়ারী ২০২৪ | হালনাগাদ:রবিবার ২৫ ফেব্রুয়ারী ২০২৪ | অনলাইন সংস্করণ
ক্রীড়া প্রতিবেদক

Image

ইংলিশ প্রিমিয়ার লিগে ম্যানচেস্টার সিটির কঠিন পরীক্ষা নিল বোর্নমাউথ। শেষ পর্যন্ত যদিও ফিল ফোডেনের একমাত্র গোলে ১-০ ব্যবধানে জয় নিয়ে ফিরল পেপ গার্দিওলার শিষ্যরা।

শনিবার (২৪ ফেব্রুয়ারি) প্রতিপক্ষের মাঠে এ জয়ে শীর্ষে থাকা লিভারপুলের সঙ্গে ব্যবধান কমাল সিটি। ২৪তম মিনিটে হলান্ডের কোনাকুনি শট ঝাঁপিয়ে ঠেকালেও বিপদমুক্ত করতে পারেননি গোলরক্ষক, আলগা বল পেয়ে অনায়াসে জালে জড়ান ফোডেন।

লিগে ২৬ ম্যাচে ১৮ জয় ও ৫ ড্রয়ে ৫৯ পয়েন্ট নিয়ে দুইয়ে সিটি। এক ম্যাচ কম খেলা লিভারপুল ৬০ পয়েন্ট নিয়ে শীর্ষে।

অন্য ম্যাচে ঘরের মাঠ ওল্ড ট্র্যাফোর্ডে ফুলহামের কাছে ২-১ গোলে হেরেই বসেছে ম্যানচেস্টার ইউনাইটেড। লিগে টানা চার ও সব মিলিয়ে টানা পাঁচ জয়ের পর হারল এরিক টেন হাগের দল।

ম্যাচের নির্ধারিত সময় শেষের তখন বাকি আর এক মিনিট। হারতে বসা ম্যাচে দলকে পথ দেখালেন হ্যারি ম্যাগুইয়ার। আশার সঞ্চার হলো ম্যানচেস্টার ইউনাইটেড শিবিরে। কিন্তু শেষরক্ষা হলো না। শেষ সময়ে আরেকটি গোল করে দারুণ জয় ছিনিয়ে নিল ফুলহ্যাম। তিনটি গোলই হয়েছে দ্বিতীয়ার্ধে। ক্যালভিন ব্যাসির গোলে পিছিয়ে পড়ার পর সমতা টানেন ম্যাগুইয়ার। শেষ সময়ে ব্যবধান গড়ে দেন অ্যালেক্স আইওবি।

এই হারে প্রতিযোগিতার রেকর্ড চ্যাম্পিয়নদের শীর্ষ চারে থেকে লিগ শেষ করার আশায় বড় চোট লাগল। লিগ টেবিলের চতুর্থ স্থানে থাকা অ্যাস্টন ভিলার চেয়ে ৮ পয়েন্টে পিছিয়ে পড়ল ইউনাইটেড।


আরও খবর
হাথুরুসিংহেকে ‘শোকজ’ করবেন পাপন!

সোমবার ২৬ ফেব্রুয়ারী ২০২৪




ডিএনএ টেস্টে মিলল ট্রেনে দগ্ধ সেই দুই শিক্ষার্থীর পরিচয়

প্রকাশিত:বৃহস্পতিবার ১৫ ফেব্রুয়ারী ২০২৪ | হালনাগাদ:বৃহস্পতিবার ১৫ ফেব্রুয়ারী ২০২৪ | অনলাইন সংস্করণ
নিজস্ব প্রতিবেদক

Image

ঢাকার গোপীবাগে গত ৫ জানুয়ারি রাতে বেনাপোল এক্সপ্রেস ট্রেনে অগ্নিকাণ্ডের ঘটনায় পুরে মারা যাওয়া দুই শিক্ষার্থী আবু তালহা (২২) ও চন্দ্রিমা চৌধুরী সৌমির (২৮) মরদেহ ডিএনএ টেস্টের মাধ্যমে শনাক্ত করা হয়েছে। ঢাকা মেডিকেল কলেজ কর্তৃপক্ষ বৃহস্পতিবার (১৫ ফেব্রুয়ারি) পরিবারের কাছে তাদের মরদেহ হস্তান্তর করবে।

বৃহস্পতিবার সকালে মৃত আবু তালহার বাবা আব্দুল হক ও চন্দ্রিমা চৌধুরী সৌমির কাকা অতনু প্রামানিক বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন। এছাড়া এলিনা ইয়াসমিনের মরদেহ শনাক্ত করা হয়েছে। আগুনে পুড়ে যাওয়ায় ওই ৫ যাত্রীর পরিচয় জানা সম্ভব ছিল না। পরে ডিএনএ টেস্টের মাধ্যমে রাজবাড়ীর নিখোঁজ ৩ যাত্রীর পরিচয় জানা যায়। গতকাল (১৪ ফেব্রুয়ারি) বিকেলে মরদেহের পরিচয় শনাক্ত হবার পর বিষয়টি পরিবারকে জানায় ঢাকা মেডিকেল কর্তৃপক্ষ।

মৃত আবু তালহা রাজবাড়ীর কালুখালী উপজেলার মৃগী ইউনিয়নের বড়ইচারা গ্রামের আবদুল হক মন্ডলের ছেলে ও চন্দ্রিমা চৌধুরী সৌমি রাজবাড়ীর সদর উপজেলার খানগঞ্জ ইউনিয়নের রঘুনাথপুর গ্রামের মৃত চিত্তরঞ্জন প্রামাণিকের মেয়ে। আবু তালহা সৈয়দপুরের বাংলাদেশ আর্মি বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ের তৃতীয় বর্ষের ছাত্র ছিলেন। আর চন্দ্রিমা ঢাকার একটি বেসরকারি বিদ্যালয়ের ফার্মাসিস্ট বিভাগ থেকে পড়ালেখা শেষ করে বিদেশে যাবার চেষ্টা করছিল।

আবু তালহার বাবা আব্দুল হক জানান, আবু তালহা গত ৫ জানুয়ারি ঢাকার উদ্দেশ্যে ফরিদপুর স্টেশন থেকে বেনাপোল এক্সপ্রেস ট্রেনে যাত্রা করেছিল। কিন্তু কমলাপুর রেলস্টেশনে প্রবেশের আগে গোপীবাগে ট্রেনে অগ্নিকাণ্ডের পর থেকে তার আর কোনো খোঁজ পাইনি আমরা। প্রায় ১ মাস ৯ দিন পর ডিএনএ টেস্টের মাধ্যমে তার মরদেহ শনাক্ত করা হয়েছে। ঢাকা মেডিকেল থেকে আমাকে ফোন দিয়ে আবু তালহার মরদেহ শনাক্তের বিষয়টি জানিয়েছে। কিছু আইনি জটিলতা শেষে আজ মরদেহ আমাদের কাছে হস্তান্তর করবে কর্তৃপক্ষ।

তিনি আরও জানান, মরদেহ আমরা রাজবাড়ীর কালুখালী উপজেলার মৃগী ইউনিয়নের গ্রামের বাড়িতে নিয়ে আসব। সেখানে জানাজা করে মরদেহ দাফন করা হবে।

চন্দ্রিমা চৌধুরী সৌমির কাকা অতনু প্রামানিক জানান, আমি এখন ঢাকা মেডিকেলে যাচ্ছি। গতকাল বিকেলে পরিচয় শনাক্ত হবার পর ফোন দেয় আমাদের। আগুনে এমন দগ্ধ হয়েছিল যে কারো পরিচয় শনাক্ত করা সম্ভব ছিল না। মরদেহ নিয়ে গ্রামের বাড়ীতে দাফন করা হবে।

প্রসঙ্গত, গত ৫ জানুয়ারি রাতে ঢাকার গোপীবাগে বেনাপোল এক্সপ্রেস ট্রেনে অগ্নিকাণ্ডের ঘটনার পর থেকে এলিনা ইয়াসমিন, চন্দ্রিমা চৌধুরী ওর‌ফে সৌমি (২৮) ও আবু তালহা (২৮) নিখোঁজ ছিলেন।


আরও খবর



শাহরুখ অসুন্দর এবং অভিনয় পারেন না : মাহনুর বালোচ

প্রকাশিত:শনিবার ০৩ ফেব্রুয়ারী ২০২৪ | হালনাগাদ:শনিবার ০৩ ফেব্রুয়ারী ২০২৪ | অনলাইন সংস্করণ
বিনোদন ডেস্ক

Image

বলিউড বাদশা শাহরুখ খান। বিশ্বজুড়ে ছড়িয়ে আছে তার ভক্ত-অনুরাগী। তার ছবি মানেই বিনোদনে ভরপুর ফুল প্যাকেজ। ক্যারিয়ারজুড়ে বৈচিত্র্যময় অভিনয় দিয়ে তিনি কোটি দর্শকের মনে আসন গড়েছেন তিনি। অথচ সেই অভিনেতার নাকি অভিনয় ভালো না! এমনই বেফাঁস মন্তব্য করে বসলেন পাকিস্তানি অভিনেত্রী মাহনুর বালোচ।

তার এই মন্তব্য সোশ্যাল মিডিয়ায় শোরগোলের জন্ম দিয়েছে। ভারতে তো বটেই, নিজের দেশেও ট্রলের শিকার হচ্ছেন অভিনেত্রী।

সম্প্রতি এক সাক্ষাৎকারে শাহরুখের বিরুদ্ধে বেশ কিছু মন্তব্য করেন মাহনুর। তিনি বলেন, শাহরুখ খানের ব্যক্তিত্ব খুবই আকর্ষণীয়। কিন্তু সুন্দর দেখতে বলতে যা বোঝায় তিনি কোনোভাবেই সেটা নন।

শাহরুখের অভিনয় প্রসঙ্গে আগেও মন্তব্য করেছিলেন মাহনুর। এ প্রসঙ্গে প্রশ্ন করা হলে তিনি বলেন, ওর অভিনয় দক্ষতা নেই। তবে উনি খুব দক্ষ ব্যবসায়ী। নিজের প্রচারটা ভালোই জানেন। এটা আমার ব্যক্তিগত মতামত। আমি ভুলও হতে পারি।

অভিনেত্রীর এই মন্তব্য ছড়িয়ে পড়তেই তাকে কটাক্ষের সম্মুখীন হতে হয়েছে। কেউ লিখেছেন, সারা বিশ্ব শাহরুখকে চেনেন। কিন্তু আপনি কে? আবার কারও কথায়, প্রচারের আলোয় আসার সব থেকে ভালো পথ হলো বৈগ্রহিক অভিনেতা শাহরুখের বিরুদ্ধে কথা বলা।

নব্বইয়ের দশকের শুরুর দিকে মূলত টিভি বিজ্ঞাপনে অভিনয়ে হাতেখড়ি হয় মাহনুরের। এরপর একাধিক টিভি সিরিয়ালে অভিনয় করেছেন তিনি। ২০১৩ সালে মুক্তিপ্রাপ্ত ম্যায় হু শাহিদ আফ্রিদি ছবিতে অভিনয় করেন মাহনুর।


আরও খবর
ফের বিয়ে করছেন অনুপম রায়, পাত্রী কে?

সোমবার ২৬ ফেব্রুয়ারী ২০২৪