আজঃ মঙ্গলবার ২৮ জুন ২০২২
শিরোনাম

ভোলায় জামায়াতের ৮ নেতা আটক

প্রকাশিত:শুক্রবার ১৭ জুন ২০২২ | হালনাগাদ:শুক্রবার ১৭ জুন ২০২২ | ৪০০জন দেখেছেন
দর্পণ নিউজ ডেস্ক

Image

ভোলায় বিপুল পরিমাণ জিহাদি বইসহ জামায়াতের আট নেতা-কর্মীকে আটক করেছে পুলিশ। বৃহস্পতিবার (১৬ জুন) সন্ধ্যায় সদর উপজেলার ইলিশা ইউনিয়নের জংশন বাজার মাওলানা মোফাজ্জল হোসাইন স্মৃতি পরিষদ ও ইসলামী পাঠাগারে অভিযান পরিচালনা করে তাদের আটক করা হয়।

আটকরা হলেন- ভোলা জেলা জামায়াতের সহকারী সেক্রেটারি মো. হারুনুর রশিদ,  জামায়াত কর্মী মো. নুরুল ইসলাম, মো. বেলায়েত হোসেন, মো. আলম, মো. আকতার হোসেন, মো. আব্দুল্লাহ, মো. রুহুল আমিন ও মো. ফারুক। তারা ভোলার বিভিন্ন উপজেলার বাসিন্দা।

ইলিশা পুলিশ তদন্ত কেন্দ্রের উপ-পরিদর্শক (এসআই) মো. সিদ্দিক বলেন, ভারতে বিজেপির মুখপাত্র নুপুর শর্মা কর্তৃক বিশ্বনবীকে নিয়ে কটূক্তি ও ইসলামবিরোধী মন্তব্যের প্রতিবাদে সারাদেশের ন্যায় ভোলা জেলা মুসলিম ঐক্য পরিষদ আগামীকাল শুক্রবার (১৭ জুন) বাদ জুমা ভোলা শহরের কালিনাথ রায়ের বাজার হাটখোলা জামে মসজিদ প্রাঙ্গণে বিক্ষোভ সমাবেশ কর্মসূচি ঘোষণা করেছে। ওই কর্মসূচিতে জামায়াত-শিবিরের এজেন্টরা অনুপ্রবেশ করে খুব বড় ধরনের নাশকতা ঘটানোর পরিকল্পনা করছে- এমন সংবাদের ভিত্তিতে আমরা ভোলায় জামায়াতের মূল পয়েন্টে অভিযান পরিচালনা করি। আজ সন্ধায় ইলিশা জংশন বাজারের একটি পাঠাগারে অভিযান পরিচালনা করে জেলা জামায়াতের সহকারী সেক্রেটারি হারুনুর রশিদসহ বিভিন্ন পর্যায়ের মোট আট নেতা-কর্মীকে আটক করি। এ সময় আমাদের উপস্থিতি বুঝতে পেরে তাদের একাধিক সদস্য পালিয়ে যান।

তিনি আরও বলেন, অভিযানকালে নগদ ৯ হাজার ১৩০ টাকা, একাধিক মোবাইল ফোন, বিপুল পরিমাণ জিহাদি বই, যুদ্ধাপরাধীদের লিখিত বই, সংগঠনের চাঁদা আদায়ের রশিদ ও সদস্য সংগ্রহ ফরম প্রাথমিক আলামত হিসেবে জব্দ করা হয়েছে। উদ্ধারকৃত আলামত জব্দ ও আটকদের বিষয়ে আইনগত ব্যবস্থা নেওয়া হচ্ছে। 


আরও খবর



আগামী অর্থবছরে জিডিপি প্রবৃদ্ধি হবে ৬.৭ শতাংশ: বিশ্বব্যাংক

প্রকাশিত:বুধবার ০৮ জুন ২০২২ | হালনাগাদ:বুধবার ০৮ জুন ২০২২ | ৪২০জন দেখেছেন
দর্পণ নিউজ ডেস্ক

Image

আগামী অর্থবছরের জন্য বাংলাদেশের অর্থনৈতিক প্রবৃদ্ধির পূর্বাভাস কমাল বিশ্বব্যাংক। মঙ্গলবার প্রকাশিত সংস্থার গ্লোবাল ইকোনমিক প্রসপেক্ট প্রতিবেদনে বলা হয়, ২০২২-২৩ অর্থবছরে মোট দেশজ উৎপাদনে (জিডিপি) প্রবৃদ্ধি হতে পারে ৬ দশমিক ৭ শতাংশ।

এর আগে জানুয়ারিতে একই অর্থবছরের জন্য ৬ দশমিক ৯ শতাংশ প্রবৃদ্ধির পূর্বাভাস দেয় বিশ্বব্যাংক। মূল্যস্ফীতি, রাশিয়া-ইউক্রেন যুদ্ধের প্রভাব ও সরবরাহ ব্যবস্থা বিঘ্নিত হওয়ার কারণে সেটি কমিয়ে এনেছে সংস্থাটি।

জানা যায়, আগামী অর্থবছরের বাজেটে জিডিপি প্রবৃদ্ধির লক্ষ্যমাত্রা ধরা হচ্ছে ৭ দশমিক ৫ শতাংশ। সে হিসাবে বিশ্বব্যাংকের পূর্বাভাসের সঙ্গে বিস্তর ব্যবধান থাকছে সরকারের লক্ষ্যমাত্রায়।

বিশ্বব্যাংকের হিসাব অনুসারে, চলতি অর্থবছর জিডিপি প্রবৃদ্ধি দাঁড়াতে পারে ৬ দশমিক ৪ শতাংশে। এটিও সরকারি হিসাবের তুলনায় অনেক কম। বাংলাদেশ পরিসংখ্যান ব্যুরোর (বিবিএস) সাময়িক হিসাবে, চলতি অর্থবছর প্রবৃদ্ধির হার দাঁড়িয়েছে ৭ দশমিক ২৫ শতাংশে।

বিশ্বব্যাংকের মতে, চলতি অর্থবছরের তুলনায় আগামী অর্থবছরে অর্থনৈতিক প্রবৃদ্ধি খানিকটা বাড়বে। দেশে বিনিয়োগ পরিস্থিতির উন্নতি এবং সৌদি আরব ও সংযুক্ত আরব আমিরাতসহ তেলসমৃদ্ধ আরব দেশগুলোর অর্থনীতি চাঙ্গা হওয়ায় সেখান থেকে রেমিট্যান্স আসা বেড়ে যাওয়াই এর কারণ বলে মনে করছে বিশ্বব্যাংক।

সংস্থাটির প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, অতিমারি করোনার প্রভাব থেকে অর্থনৈতিক পুনরুদ্ধার প্রত্যাশার চেয়েও ভালো হয়েছে বাংলাদেশে। এটি চলতি অর্থবছরে ভালো প্রবৃদ্ধি অর্জনে সহায়তা করছে। চলতি অর্থবছরের এপ্রিল পর্যন্ত রপ্তানি আয়ে ২৫ শতাংশের বেশি প্রবৃদ্ধি হয়েছে। শিল্প উৎপাদনও বেশ দ্রুতগতিতে বেড়েছে। তবে রাশিয়া-ইউক্রেন যুদ্ধের প্রভাবে খাদ্য ও জ্বালানির দাম বেড়ে যাওয়ায় মানুষের ক্রয়ক্ষমতার ওপর প্রভাব পড়াসহ অর্থনীতিতে নানা অনিশ্চয়তা তৈরি হয়েছে।

দক্ষিণ এশিয়া প্রসঙ্গে প্রতিবেদনে বলা হয়, এ অঞ্চলের দেশগুলোর জ্বালানি তেল ব্যাপকভাবে আমদানিনির্ভর। আন্তর্জাতিক বাজারে জ্বালানি তেলের দাম বেড়ে যাওয়ায় অনেক দেশে এ খাতে ভর্তুকির পরিমাণ বেড়ে যেতে পারে। এটি তাদের অর্থনৈতিক প্রবৃদ্ধিকে সমস্যায় ফেলবে। পাশাপাশি রাজস্ব ভারসাম্যহীনতাও তৈরি করতে পারে। সরকারের ব্যয়ের অনুপাতে জ্বালানি খাতে ভর্তুকি সবেচেয়ে বেশি বাংলাদেশ, মালদ্বীপ ও পাকিস্তানে। জ্বালানি তেলের উচ্চমূল্য এবং অনিশ্চিত বিশ্ব পরিস্থিতির কারণে এ অঞ্চলের দেশগুলোতে মূল্যস্ম্ফীতির চাপ বাড়তে পারে। এটি অর্থনৈতিক প্রবৃদ্ধি বাধাগ্রস্ত করার পাশাপাশি বাড়াতে পারে দারিদ্র্যের হার। এর ফলে উৎপাদন সহায়ক সরকারি বিনিয়োগ ও সামাজিক সুরক্ষা খাতে দেওয়া বাজেটের অর্থ অন্যত্র সরিয়ে নেওয়ারও প্রয়োজন পড়তে পারে।

দক্ষিণ এশিয়ার দেশগুলোর মধ্যে অর্থনৈতিক অবস্থা সবচেয়ে খারাপ শ্রীলঙ্কার। এ ছাড়া মানবিক সংকটে রয়েছে আফগানিস্তান। সার্বিক পরিস্থিতির আলোকে বিশ্ব অর্থনীতিতেও প্রবৃদ্ধির পূর্বাভাস অনেকটা কমিয়ে এনেছে বিশ্বব্যাংক।

সংস্থাটি বলছে, চলতি বছর বিশ্ব অর্থনীতিতে প্রবৃদ্ধি হতে পারে ২ দশমিক ৯ শতাংশ, যা গত জানুয়ারিতে দেওয়া পূর্বাভাসের চেয়ে ১ দশমিক ২ শতাংশ কম।


আরও খবর



ধামরাইয়ের সাবেক পৌর মেয়র নাজিম উদ্দিনের চার বছরের কারাদণ্ড

প্রকাশিত:রবিবার ০৫ জুন ২০২২ | হালনাগাদ:রবিবার ০৫ জুন ২০২২ | ৪২০জন দেখেছেন
দর্পণ নিউজ ডেস্ক

Image

ঢাকা জেলার ধামরাই পৌরসভার সাবেক মেয়র দেওয়ান নাজিম উদ্দিনের বিরুদ্ধে জ্ঞাত আয়বহির্ভূত সম্পদ অর্জন ও তথ্য গোপনের মামলায় চার বছরের কারাদণ্ডের আদেশ দিয়েছেন আদালত। রোববার (৫ জুন) ঢাকার বিশেষ জজ আদালত-৯ এর বিচারক শেখ হাফিজুর রহমানের আদালত আসামির উপস্থিতিতে এ রায় ঘোষণা করেন।

জ্ঞাত আয়বর্হিভূত সম্পদ অর্জনের দায়ে নাজিম উদ্দিনকে চার বছরের বিনাশ্রম কারাদণ্ড ২৯ লাখ ১৮ হাজার ৮৪৪ টাকা অর্থদণ্ড করা হয়েছে। অসাধু উপায়ে অর্জিত এসব টাকা রাষ্ট্রের অনুকুলে বাজেয়াপ্তের নির্দেশ দেন আদালত।

অন্যদিকে সম্পদের তথ্য গোপনের দায়ে তাকে এক লাখ টাকা অর্থদণ্ড, অনাদায়ে তাকে আরও তিন মাস বিনাশ্রম কারাভোগ করতে হবে। দুদকের প্রসিকিউটর রেজাউল করিম রেজা এ তথ্য নিশ্চিত করেন।

জানা যায়, ২০১৭ সালের ৩০ আগস্ট দুদক দেওয়ান নাজিম উদ্দিনকে সম্পদ বিবরণী দাখিলের নির্দেশ দেয়। ওই বছরের ২০ সেপ্টেম্বর নাজিম উদ্দিন সম্পদ বিবরণী দাখিল করেন।

২০১৯ সালের ২৩ জানুয়ারি সম্পদ বিবরণী পর্যালোচনা করে ৫০ লাখ ৭৯ হাজার ৩শ টাকার সম্পদের তথ্য গোপন এবং এক কোটি ৮ লাখ ২১ হাজার ৩৯৯ টাকার জ্ঞাত আয় বর্হিভূত সম্পদ অর্জনের অভিযোগে দুদকের সহকারি পরিচালক মনিরুল ইসলাম বাদী হয়ে রমনা থানায় মামলা করেন। ২০২০ সালের ২৩ আগস্ট মনিরুল ইসলাম আদালতে চার্জশিট দাখিল করেন।


আরও খবর



ভাত দিয়েই তৈরি করুন মচমচে পাকোড়া

প্রকাশিত:সোমবার ২৭ জুন ২০২২ | হালনাগাদ:সোমবার ২৭ জুন ২০২২ | ১৭০জন দেখেছেন
দর্পণ নিউজ ডেস্ক

Image

পাকোড়া খেতে কে না পছন্দ করেন। বিশেষ করে অতিথি আপ্যায়ন থেকে শুরু করে বিকেলের নাস্তায় পাকোড়া না হলে চলে না অনেকেরই। বিভিন্ন উপকরণ দিয়ে তৈরি করা যায় পাকোড়া। তবে চাইলে খুব সহজে ভাত দিয়ে ঝটপট ঘরেই তৈরি করে নিতে পারেন ভাতের পাকোড়া। জেনে নিন ঝটপট রেসিপি-

উপকরণ: ভাত ১ কাপ, লবণ স্বাদমতো, ডিম ১টি, পেঁয়াজ কুচি ২ টেবিল চামচ, কাঁচা মরিচ কুচি ১ টেবিল চামচ, মুরগির মাংস সেদ্ধ আধা কাপ, মরিচের গুঁড়া আধা চা চামচ, কর্নফ্লাওয়ার ২ চা চামচ, টমেটো সস ১ টেবিল চামচ ও তেল পরিমাণমতো।

পদ্ধতি: প্রথমে ভাতের সাথে সামান্য লবণ ও ডিম ভালো করে মেখে নিন। এরপর একটি বাটিতে পেঁয়াজ, মরিচ, ধনেপাতা কুচি, মরিচের গুঁড়া ও সেদ্ধ মুরগির মাংস ছড়িয়ে নরম করে ভাতের সঙ্গে মেখে নিন। এরপর র্কনফ্লাওয়ার ও টমেটো সস মিশিয়ে আবারও মেখে নিন। এবার চুলায় তেল গরম করে নিন। তারপর ভাতের মিশ্রণ থেকে পাকোড়ার সাইজে তৈরি করে নিন। তারপর ডুবো তেলে পাকোড়াগুলো ছেড়ে দিন। এপিঠ ওপিঠ ভালো করে উল্টে বাদামিরঙা করে ভেজে নিন পাকোড়াগুলো। ব্যাস তৈরি হয়ে যাবে ভাতের মচমচে পাকোড়া। এবার টমোটো সস দিয়ে পরিবেশন করুন ভাতের পাকোড়া।

নিউজ ট্যাগ: পাকোড়া

আরও খবর
বিফ সাসলিক তৈরির রেসিপি

সোমবার ২৭ জুন ২০২২




৯৩ জনকে চাকরির সুযোগ দিচ্ছে বিআরটিসি

প্রকাশিত:শুক্রবার ০৩ জুন ২০২২ | হালনাগাদ:শুক্রবার ০৩ জুন ২০২২ | ৩৯৫জন দেখেছেন
দর্পণ নিউজ ডেস্ক

Image

বাংলাদেশ সড়ক পরিবহন করপোরেশনে (বিআরটিসি) ১৪টি পদে ৯৩ জনকে নিয়োগ দেওয়া হবে। আগ্রহীরা আগামী ১৯ জুন পর্যন্ত অনলাইনে আবেদন করতে পারবেন।

প্রতিষ্ঠানের নাম: বাংলাদেশ সড়ক পরিবহন করপোরেশন (বিআরটিসি)

চাকরির ধরন: অস্থায়ী

প্রার্থীর ধরন: নারী-পুরুষ

কর্মস্থল: ঢাকা

বয়স: ১৯ জুন ২০২২ তারিখ ১৮-৩০ বছর। বিশেষ ক্ষেত্রে ৩২ বছর

আবেদনের নিয়ম: আগ্রহীরা brtc.teletalk.com.bd এর মাধ্যমে আবেদন করতে পারবেন। আবেদনের সঙ্গে ৩০০-৩০০ সাইজের ছবি ও ৩০০-৮০ সাইজের স্বাক্ষর স্ক্যান করে যুক্ত করতে হবে।

আবেদন ফি: টেলিটক প্রি-পেইডের মাধ্যমে ১-৪ নং পদের জন্য ৫০০ টাকা ও ৫-১৪ নং পদের জন্য ৩০০ টাকা পরিশোধ করতে হবে।

আবেদনের শেষ সময়: ১৯ জুন ২০২২ তারিখ বিকেল ০৫টা পর্যন্ত আবেদন করতে পারবেন।

 

নিউজ ট্যাগ: চাকরির খবর

আরও খবর



নির্বাচনে সেনাবাহিনী কোনো কাজে আসে না : নুরুল হুদা

প্রকাশিত:রবিবার ১২ জুন ২০২২ | হালনাগাদ:রবিবার ১২ জুন ২০২২ | ৩১৫জন দেখেছেন
দর্পণ নিউজ ডেস্ক

Image

নির্বাচনে সেনাবাহিনী কোনো কাজে আসে না বলে মন্তব্য করেছেন সাবেক প্রধান নির্বাচন কমিশনার কে এম নুরুল হুদা। রোববার (১২ জুন) আগারগাঁও নির্বাচন কমিশন কার্যালয়ে এক মতবিনিময় সভায় তিনি এ কথা বলেন।

নুরুল হুদা বলেন, নির্বাচনে যে পরিমাণ আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনী মোতায়েন হয়, এটা বিশ্বে বিরল। হাজার হাজার লোক বন্দুক হাতে যুদ্ধাবস্থার মতো দাঁড়িয়ে থাকে। আমি আগেও বলেছি, এখনও বলছি, এসবের প্রয়োজন নেই।

তিনি বলেন, আমার মনে হয় নির্বাচন পরিচালনায় সেনাবাহিনী কোনো কাজে আসে না। কারণ, বিগত নির্বাচনে আমরা তাদের এক্টিভিটিস দেখেছি। তাই সেনাবাহিনীকে নির্বাচনের সময় মাঠে নামানোর কোনো দরকার নেই।

সাবেক সিইসি বলেন, আমার ছোটবেলায় দেখেছি একজন চৌকিদার বাঁশি মুখে আর হাতে লাঠি নিয়ে একটা কেন্দ্র নিয়ন্ত্রণ করতো। আর এখন আর্মি, বিজিবি, র‌্যাব, পুলিশ নামে। একটা কেন্দ্রে যে পরিমাণ সশস্ত্র সদস্য থাকে তা একটা থানার সমান।

তিনি বলেন, এখন আছে ইভিএম, বাক্স ছিনতাই করা যায় না। তাছাড়া নির্বাচন শুরু হওয়ার আগে ইভিএম চালু করা যায় না। এর যথেষ্ট সুবিধা আছে।

প্রধান নির্বাচন কমিশনার কাজী হাবিবুল আউয়ালের সভাপতিত্বে মতবিনিময় সভায় সাবেক প্রধান নির্বাচন কমিশনার, নির্বাচন কমিশনার ও সচিবরা উপস্থিত ছিলেন।


আরও খবর