আজঃ শুক্রবার ০১ মার্চ ২০২৪
শিরোনাম

তিন ভাই মিলে এক ভাইকে পিটিয়ে হত্যার অভিযোগ

প্রকাশিত:শুক্রবার ২০ জানুয়ারী ২০23 | হালনাগাদ:শুক্রবার ২০ জানুয়ারী ২০23 | অনলাইন সংস্করণ
নিজস্ব প্রতিবেদক

Image

সুনামগঞ্জের তাহিরপুর উপজেলার দক্ষিণ শ্রীপুর ইউনিয়নে জমি নিয়ে বিরোধে আপন তিন ভাইয়ের হাতে ছোট ভাই নুরুল আমিনকে (৬০) হত্যার অভিযোগ উঠেছে। বৃহস্পতিবার সকাল ৮টার দিকে উপজেলার দক্ষিণ শ্রীপুর ইউনিয়ন শ্রীপুর গ্রামে এ ঘটনা ঘটে।

নিহত নুরুল আমিন উপজেলার দক্ষিণ শ্রীপুর ইউনিয়ন শ্রীপুর গ্রামের মৃত তাহের আলীর ছেলে।

নিহতের ভাই শাহ পরান ও শাহ জালাল জানান, দীর্ঘদিন ধরে নিহতের বাবার সম্পত্তির ভাগ না দেওয়া নিয়ে ঝগড়া চলছিল। একাধিক বার বিচার সালিশ হলেও কোনো সমাধান হয়নি। কিছু দিন আগে বোরো জমিন নষ্ট করে। সকাল ৮টায় নিজ বাড়িতে সম্পত্তির বিষয়ে কথা-কাটাকাটির এক প্রর্যায়ে নিহতের আপন তিন ভাই নুরুল হক, শাহ আলম, শাহজাহান তাদের ছেলে মেয়েরা মিলে লাঠি দিয়ে পিঠিয়ে কিল-ঘুষি মারতে থাকে। এসময় পরিবারের সদস্যরা বাধা দিলেও থামাতে পারেনি। এক পর্যায়ে নুরুল আমিনকে মাটিতে ফেলে রাখে। পরে পরিবারের লোকজন নুরুল আমিনকে উদ্ধার করে উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নিয়ে গেলে চিকিৎসক তাকে মৃত ঘোষণা করেছেন।

এঘটনার সত্যতা নিশ্চিত করেছে তাহিরপুর থানার এসআই নাজমুল ইসলাম।

হাসিম মিয়া নিহতের চাচাত ভাই জানান, সকালে ঝগড়া করার সময় নিষেধ করে আমি চলে আসি। পরে চিৎকার শুনে গিয়ে দেখি নুরুল আমিন মাটিতে মৃত অবস্থায় পড়ে আছে।

নিহতের ছোট ভাইয়ের বউ নাসরিন বেগম জানান, আমার চোখের সামনে কিলঘুষি, লাথি দিয়ে হত্যা করেছে নুরুল হক, শাহ আলম, শাহজাহান ও তাদের ছেলেরা। বাধা দিলেও কোনো কাজ হয়নি, সব শেষ।

উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের আবাসিক মেডিকেল অফিসার আব্দুল্লাহ আল মামুন জানান, হাসপাতালে আসার পূর্বেই তিনি মারা গেছেন। শরীরে আঘাতের কোনো চিহ্ন নেই।

তাহিরপুর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) সৈয়দ ইফতেখার হোসেন জানান, খবর পেয়ে পুলিশ পাঠানো হয়েছে। এই বিষয়ে প্রয়োজনীয় আইনানুগ পদক্ষেপ গ্রহণ করা হচ্ছে।


আরও খবর
৯ ছাত্রীর চুল কাটার ঘটনায় শিক্ষিকা বরখাস্ত

বৃহস্পতিবার ২৯ ফেব্রুয়ারী ২০২৪




ধামরাইয়ে ধনিয়া ফুল থেকে মৌমাছির মধু সংগ্রহ

প্রকাশিত:মঙ্গলবার ২০ ফেব্রুয়ারী ২০24 | হালনাগাদ:মঙ্গলবার ২০ ফেব্রুয়ারী ২০24 | অনলাইন সংস্করণ
ধামরাই প্রতিনিধি

Image

মৌমাছি মৌমাছি ,কোথা যাও নাচি নাচি, দাঁড়াও না একবার ভাই,ওই ফুল ফোটে বনে,যাই মধু আহরণে, দাঁড়াবার সময় তো নাই। নবকৃষ্ণ ভট্টাচার্যের এই কবিতার মত ঢাকার ধামরাই উপজেলার বালিয়া ইউনিয়নের দেউলি গ্রামে মৌমাছিরা এখন ব্যস্ত হয়ে পড়েছেন ধনিয়া ক্ষেতের ধনিয়া ফুল থেকে মধু আহরণে।

ধনিয়া ক্ষেতের সুগন্ধি ও ফুলের অপরূপ দৃশ্য যেন মনমুগ্ধকর । এই সুযোগে ফসলের জমির পাশে পোষা মৌমাছির বাক্স নিয়ে হাজির হয়েছেন মৌয়ালরা। ওই সব বাক্স থেকে হাজার হাজার মৌমাছি উড়ে গিয়ে মধু সংগ্রহে ঘুরে বেড়াচ্ছে সরিষা ফুলের মাঠে।

ধনিয়া ফুলের মধুর বৈশিষ্ট এটা সংগ্রহের পর দেখতে সাদা পানির কালার মত দেখায়, এটা সংগ্রহ করা হয় সাধারণত জানুয়ারী মাসের শেষে থেকে ফেব্রুয়ারী মাস জুড়ে তবে সময়ের কম বেশি হতে পারে। এই মধুটি অন্যান্য মধুর মত কালার ও স্বাদের পরিবর্তন হয় দীর্ঘ সময় পার হওয়া পর। ধনিয়া ফুলের মধুর প্রধান বৈশিষ্ট এটা সরিষা ফুলের মত জমে বা বসে যায়। এই মধুটি আমাদের দেশে উৎপাদন পরিমান খুবই সীমিত।

চাষীরা সাধারণত পছন্দের একটি ধনিয়া ক্ষেতের পাশে খোলা জায়গায় চাক ভরা বাক্স ফেলে রাখেন। একেকটি বাক্সে মোম দিয়ে তৈরি ছয় থেকে সাতটি মৌচাকের ফ্রেম রাখা হয়। আর তার ভেতর রাখা হয় একটি রাণী মৌমাছি। রাণী মৌমাছির কারণে ওই বাক্সে মৌমাছিরা আসতে থাকে। মৌমাছিরা ফুল থেকে মধু এনে বাক্সের ভেতরের চাকে জমা করে। আর এই চাক থেকেই মধু সংগ্রহ করেন মৌচাষীরা। প্রতিদিন সকাল ৮টা থেকে বিকাল ৫টা পর্যন্ত মৌ-চাষিরা এসব মৌচাক থেকে মধু সংগ্রহ করেন। মৌ চাষের মাধ্যমে চাষীরা একদিকে যেমন আর্থিকভাবে লাভবান হচ্ছেন, অন্যদিকে দূর হচ্ছে বেকারত্ব।

ময়মনসিংহ থেকে আসা মৌ-চাষী জিহাদ বলেন, ধনিয়া ক্ষেতের পাশে মধু সংগ্রহের জন্য ২৬টি বাক্স বসানো হয়েছে।ওইসব বাক্স থেকে হাজার হাজার মৌমাছি উড়ে গিয়ে মধু সংগ্রহে ঘুরে বেড়াচ্ছে ধনিয়া ফুলের ক্ষেতে । তবে আবহাওয়া কিছুটা খারাপ হওয়ার কারণে মধু কম সংগ্রহ হয়েছে।

ধামরাই উপজেলা কৃষি কর্মকর্তা মোঃ আরিফুর রহমান জানান, ধনিয়া ক্ষেতের পাশে মৌমাছির চাষ হলে ফলন বেড়ে যায় ফলনও ভালো হওয়ার সম্ভাবনা থাকে। বাক্স পদ্ধতি ব্যবহার করে বাণিজ্যিকভাবে এসব মধু সংগ্রহ করা হচ্ছে। এতে মৌমাছি ব্যবসায়ীরা যেমন একদিকে মধু বিক্রি করে অর্থনৈতিকভাবে লাভবান হচ্ছেন, অন্যদিকে ক্ষেতে মধু চাষ করায় ফলনও বাড়ছে।

নিউজ ট্যাগ: মৌমাছি

আরও খবর
৯ ছাত্রীর চুল কাটার ঘটনায় শিক্ষিকা বরখাস্ত

বৃহস্পতিবার ২৯ ফেব্রুয়ারী ২০২৪




ভারতে মার্কিন দূতাবাস উড়িয়ে দেওয়ার হুমকি

প্রকাশিত:সোমবার ১২ ফেব্রুয়ারী ২০২৪ | হালনাগাদ:সোমবার ১২ ফেব্রুয়ারী ২০২৪ | অনলাইন সংস্করণ
আন্তর্জাতিক ডেস্ক

Image

ভারতের মুম্বাইয়ে অবস্থিত মার্কিন দূতাবাস উড়িয়ে দেওয়ার হুমকি দিয়েছেন এক অজ্ঞাত ব্যক্তি। দূতাবাসের অফিসিয়াল ইমেইলে এই হুমকি দিয়ে বেনামে একটি বার্তা পাঠানো হয়। ভারতীয় সংবাদমাধ্যম এনডিটিভির এক প্রতিবেদন থেকে এই তথ্য জানা যায়।

প্রতিবেদনে বলা হয়, ইতোমধ্যে বান্দ্রা কুরলা পুলিশ এই ঘটনায় মামলা লিপিবদ্ধ করেছে। শনিবার স্থানীয় সময় দিবাগত রাত ৩টা ৫০ মিনিটের দিকে ইমেইলটি পাঠানো হয়।

পুলিশ কর্মকর্তা জানান, ভারতীয় পেনাল কোডের ৫০৫ (১) ও ৫০৬ (২) ধারা অনুযায়ী অজ্ঞাত ব্যক্তির বিরুদ্ধে মামলা দায়ের করা হয়েছে। ইতোমধ্যে তদন্তও শুরু হয়েছে।

ইমেইলে ওই ব্যক্তি নিজেকে নির্বাসিত মার্কিন নাগরিক হিসেবে পরিচয় দেন। তিনি মার্কিন দূতাবাস বোমা দিয়ে উড়িয়ে সবাইকে হত্যার হুমকি দেন।


আরও খবর



বিশ্ব ইজতেমায় খেজুর বিলিয়ে যৌতুকবিহীন ৭২ যুগলের বিয়ে

প্রকাশিত:শনিবার ০৩ ফেব্রুয়ারী ২০২৪ | হালনাগাদ:শনিবার ০৩ ফেব্রুয়ারী ২০২৪ | অনলাইন সংস্করণ
গাজীপুর প্রতিনিধি

Image

গাজীপুরের টঙ্গীর তুরাগ তীরে বিশ্ব ইজতেমার দ্বিতীয় দিন ৭২ যুগলের যৌতুকবিহীন বিয়ে অনুষ্ঠিত হয়েছে। শনিবার (৩ ফেব্রুয়ারি) বাদ আসর যৌতুক বিহীন এই বিয়ে সম্পন্ন হয়। বিয়ে পড়ান ভারতের মাওলানা জোবায়রুল হাসান।

বিশ্ব ইজতেমা আয়োজক কমিটির গণমাধ্যম সমন্বয়ক হাবিবুল্লাহ রায়হান বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন।

বিয়েতে মোহরানা ধার্য করা হয় মোহর ফাতেমীর নিয়মানুযায়ী। এ নিয়ম অনুযায়ী মোহরানা ধরা হয় দেড়শ তোলা রুপা বা এর সমমূল্যের অর্থ।

লাখো মানুষের ইবাদত বন্দেগির মধ্যে শনিবার বিশ্ব ইজতেমার অন্যতম আকর্ষণ ছিল যৌতুক বিহীন বিয়ে। সম্পূর্ণ ইসলামি শরিয়া মেনে তাবলিগের রেওয়াজ অনুযায়ী ইজতেমার বয়ান মঞ্চের পাশেই বসে যৌতুকবিহীন বিয়ের আসর ।

কনের সম্মতিতে বর ও কনে পক্ষের লোকজনের উপস্থিতিতে সম্পন্ন হয় বিয়ে। এজন্য সকাল থেকেই অভিভাবকরা হবু দম্পতিদের নাম তালিকাভুক্ত করান। বিয়ের পর বয়ান মঞ্চ থেকেই মোনাজাতের মাধ্যমে নব দম্পতিদের সুখ-সমৃদ্ধিময় জীবন কামনা করা হয় এবং মঞ্চের আশপাশের মুসল্লিদের মাঝে খোরমা-খেজুর বিতরণ করা হয়।

বরিশালের ব্যবসায়ী ফাইজুল হক বলেন, আমি তাবলিগ জামাতের সাথে দীর্ঘদিন ধরে সম্পৃক্ত। আমার খুব ইচ্ছে ছিল বিশ্ব ইজতেমায় এসে বিয়ে করার। আজ আমার সেই আশা পূরণ হয়েছে। সকলের কাছে নতুন দম্পতির জন্য দোয়া চেয়েছেন তিনি।


আরও খবর
৯ ছাত্রীর চুল কাটার ঘটনায় শিক্ষিকা বরখাস্ত

বৃহস্পতিবার ২৯ ফেব্রুয়ারী ২০২৪




ডিভোর্সের পর স্ত্রীকে দেওয়া কিডনি ফেরত চাইলেন স্বামী

প্রকাশিত:রবিবার ২৫ ফেব্রুয়ারী ২০২৪ | হালনাগাদ:রবিবার ২৫ ফেব্রুয়ারী ২০২৪ | অনলাইন সংস্করণ
আন্তর্জাতিক ডেস্ক

Image

বিয়ে! দুই অক্ষরের শব্দ মিল করিয়ে দেয় দুজনকে। বনে যান স্বামী-স্ত্রী। শুরু হয় সংসার। শুরু হয় সুখ-দুঃখ ভাগাভাগি করে নেয়ার পালা। একে অপরের নির্ভরতা হয়ে চলতে থাকে জীবন। কিন্তু বিচ্ছেদ হতেই পাল্টে যায় দৃশ্যপট। শুরু হয় পাওরা নিয়ে দেনদরবার। তবে যুক্তরাজ্যে যে ঘটনা ঘটলো, তা একসঙ্গে আবেগপ্রবণ ও অবাক করে দেওয়ার মতো। সাবেক স্ত্রীর কাছে কিডনি ফেরত চেয়েছেন স্বামী।

ব্রিটিশ সংবাদমাধ্যম লেডবাইবেল বলছে, ডিভোর্স স্বাভাবিক ঘটনা হলেও এ নিয়ে স্বামীস্ত্রী দুজনকেই বিপাকে পড়তে হয়। যদিও অনেককে দেখা যায়, ডিভোর্স পার্টি দিচ্ছেন। আবার অনেকে আপ্রাণ চেষ্টা করেন সংসার যাতে না ভাঙে।

বিয়ের সময় স্ত্রী ডওনিলকে কিডনি দিয়েছিলেন যুক্তরাজ্যের নাসাউ কাউন্টির বাসিন্দা ড. রিচার্ড বাতিস্তা। তার সঙ্গে ডিভোর্সের জন্য আবেদন করেন স্ত্রী। সে অনুযায়ী ডিভোর্সও করতে হয়। ডিভোর্সের পর সেই স্ত্রীর কাছে কিডনি ফেরত চান তিনি। অথবা ১২ লাখ ডলার দিতে হবে তাকে।

ড. রিচার্ড বাতিস্তা বলেন, বিয়ের পর তার স্ত্রী অসুস্থ হয়ে যান। এ কারণে সারাক্ষণ ঝগড়া হতো তাদের মধ্যে। এরপরও তিনি কিডনি দান করেন। এর মাধ্যমে সংসার টেকাতে চেয়েছিলেন তিনি। বাঁচাতে চেয়েছিলেন স্ত্রীকে।

এতে স্ত্রীর জীবন বেঁচে গেলেও সংসার আর টেকাতে পারেননি ড. রিচার্ড বাতিস্তা। ২০০৫ সালে তাদের ডিভোর্সের আবেদন করেন স্ত্রী। বাতিস্তার অভিযোগ, অন্য কারও সঙ্গে সম্পর্ক রয়েছে স্ত্রী ডওলিনের। এ কারণে তিনি এবার কিডনি ফেরত চাইছেন।

তবে তাদের চিকিৎসক রবার্ট ভিয়াচ বলছেন, এখন কিডনি ফেরত দিয়ে দিলে ওই নারী মারা যেতে পারেন। আদালত বলেন, ওই কিডনি দান হিসেবে দেওয়া। এটি তিনি ফেরত চাইতে পারেন না।


আরও খবর



শরীয়তপুরে পেঁয়াজের ফলন কম, পাইকারি বাজারে অস্থিরতা

প্রকাশিত:শুক্রবার ২৩ ফেব্রুয়ারী ২০২৪ | হালনাগাদ:শুক্রবার ২৩ ফেব্রুয়ারী ২০২৪ | অনলাইন সংস্করণ
শরীয়তপুর প্রতিনিধি

Image

শরীয়তপুরের আবহাওয়ায় পেঁয়াজ একটি উচ্চ ফলনশীল ফসল। তবে স্থানীয় কৃষকদের দাবি, গত বছরের তুলনায় এই বছর পেঁয়াজের ফলন কম হওয়ায় চড়া দামে বিক্রি হচ্ছে পেঁয়াজ। বৃহস্পতিবার  (২২ ফেব্রুয়ারি) শরীয়তপুরের বিভিন্ন বাজারে ঘুরে এমন চিত্রই মিলেছে।

দেশের অর্থনৈতিক অস্থিরতা ও ডলার সংকটের কারণে এবছর বিদেশ থেকে তুলনামূলক কম পরিমাণ পেঁয়াজ আমদানি হয়েছে। এর প্রভাব পরেছে স্থানীয় বাজারগুলোতেও। এদিকে পেঁয়াজের বীজ ও সারের দাম বাড়ায় তার প্রভাব পরেছে পেঁয়াজের পাইকারি ও খুচরা বাজারে।

গত বছর যেখানে এক কেজি ডিএপি সার বিক্রি হতো ১৬  টাকায় সেখানে এই বছর পেঁয়াজ লাগানোর মৌসুমে তা বিক্রি হয়েছে ২১  টাকায়, ইউরিয়া বিক্রি হতো ২২ টাকায় তবে এবছর বিক্রি হয়েছে ২৭ টাকায় এবং এমওপি গত বছর প্রতি কেজি ছিলো ১৫ টাকা যা বেড়ে এবছর বিক্রি হয়েছে ২০ টাকায়। এছাড়াও নিত্যপ্রয়োজনীয় সামগ্রী ও শ্রমিক খরচও বেড়েছে গত বছরের তুলনায়।

পেঁয়াজের বাজারে অস্থিরতা নিয়ে কৃষক আব্দুল রাজ্জাক বলেন, তিনি ২০ বিঘা জমিতে এইবছর পেঁয়াজ চাষ করেছে। তিনি এবছর প্রতিবিঘায় ৪০-৪৫ মণ পেঁয়াজ পেয়েছে। তার দাবি এবছর পেঁয়াজ লাগানোর মৌসুমে বৃষ্টির সমস্যা না দেখা দিলে ৬০-৭০ মন পেঁয়াজ পেতেন প্রতি বিঘায়। এবছর পেঁয়াজের উচ্চমূল্য পেয়েছেন তিনি। ১০৫-১১৩ টাকা পর্যন্ত পাইকারী বিক্রি করেছেন।

কথা হয়েছে নুরুহক সরদার নামক এক পেঁয়াজ ব্যবসায়ীর সাথে। তিনি জানায় এলসি আসার খবরে পেঁয়াজের বাজার মুহুর্তে কমছে আবার কখনও ভিন্ন খবরে বেড়েছে পেঁয়াজের বাজার দর। গত কাল ১০৫ টাকা কেজি পাইকারী পেঁয়াজ থাকলে এলসি খুলেছে এই খবর সকালে বাজার দর তুলনামূলক কিছুটা কম। আজকে সকালে পেঁয়াজ বিক্রি হয়েছে ৮০-৯৫ টাকা পর্যন্ত।

জাজিরা মিরাশার চাষী বাজারের কমিটির সভাপতি ও আড়ৎ ব্যবসায়ী আবদুল জলিল মাদবর জানায়, গত বছরের তুলনায় এবছর পেঁয়াজের উৎপাদন কম এবং ফলনও কম। গত বছর পেঁয়াজের উৎপাদন এবং ফলন দুইটাই বেশি ছিলো। এবছর পেঁয়াজের বীজের দাম বেশি হওয়ায় অনেক কৃষক পেঁয়াজ লাগাতে আগ্রহ প্রকাশ করেনি।

পেঁয়াজের সর্বোপরি বাজার ও উৎপাদন নিয়ে কথা হয় শরীয়তপুর জেলা উপসহকারী কৃষি অফিস্যার বিষ্ণুপদ বিস্যাসের সাথে, তিনি জানায় এবছর জেলার তাদের পেঁয়াজ চাষের লক্ষ্যমাত্রা ছিলো ৪৪২৫ হেক্টর। তবে পেঁয়াজের চাষ তাদের লক্ষ্যমাত্রা থেকে কম হয়েছে, এবছর জেলায় মোট পেঁয়াজের আবাদ হয়েছে ৩৯০৭ হেক্টর জমিতে। জাজিরায় মোট পিয়াজের চাষ হয়েছে  ২০১০ হেক্টর জমিতে।

এ বছর জেলায় পেঁয়াজ চাষীদের সরকারী ভাবে ৫২০ জন কৃষককে ১ কেজি করে পেঁয়াজের দানা, ১০ কেজি ডিএপি ও ১০ কেজি এমওপি সার বিনামূল্যে বিতরণ করা হয়েছে।


আরও খবর
৯ ছাত্রীর চুল কাটার ঘটনায় শিক্ষিকা বরখাস্ত

বৃহস্পতিবার ২৯ ফেব্রুয়ারী ২০২৪