আজঃ মঙ্গলবার ২৭ ফেব্রুয়ারী ২০২৪
শিরোনাম

থ্যালাসেমিয়া নিয়ে এইচএসসিতে 'এ' প্লাস পেলো নবীনগরের সাজন

প্রকাশিত:মঙ্গলবার ২৮ নভেম্বর ২০২৩ | হালনাগাদ:মঙ্গলবার ২৮ নভেম্বর ২০২৩ | অনলাইন সংস্করণ
মোঃ রাসেল আহমেদ, ব্রাহ্মণবাড়িয়া

Image

ব্রাহ্মণবাড়িয়ার নবীনগর উপজেলার ভোলাচং পালপাড়া গ্রামের বাবা সঞ্জিত সাহা ও মা স্মৃতি রাণী সাহার ছেলে সাজন সাহা। এবারের এইচ.এসসি পরীক্ষায় সে নবীনগর সরকারি কলেজ থেকে মানবিক শাখায় পরীক্ষা দিয়ে কৃতিত্বের সাথে প্লাস পেয়েছে।

তার জীবনের গল্পটা আর দশজনের থেকে একবারেই আলাদা। বাবা হোটেল শ্রমিক হওয়ায় একদিকে দারিদ্রের কষাঘাত অন্যদিকে চতুর্থ শ্রেণিতে পড়া লেখা করা অবস্থাতে তার শরীরে ধরা পড়ে জটিল রোগ থ্যালাসেমিয়া। আর এ কারণে তিন মাস পর পর শরীরে রক্ত দিয়ে জীবনযুদ্ধে টিকে থাকতে হয় তাকে। গেল ২ বছর আগে একমাত্র ছোট বোনটিও মারা যায় শারীরিক অসুস্থতায়। সব মিলিয়ে তার জীবন যুদ্ধ যেন হার মানায় সবকিছুকেই।

এতসব কঠিন পরিস্থিতির মাঝেও লেখাপড়া থেকে পিছু হটেননি সাজন। মায়ের অনুপ্রেরণায় ভাল কিছু করার ইচ্ছা নিয়ে ছুটে গেছেন দুর্বার গতিতে। এরই ধারাবাহিকতায় লেখা পড়া চালিয়ে গিয়ে ২০২১ সালে ভোলাচং উচ্চ বিদ্যালয় শাখা থেকে মানবিক বিভাগ নিয়ে এস.এস.সিতে পান ৪ পয়েন্ট এবং এবার এইচ,এসসিতে প্লাস অর্জন করে সাড়া ফেলেছেন সর্বত্র। তার এই সাফল্যে পরিবার যেমন গর্বিত, তেমনি কলেজের শিক্ষক থেকে শুরু করে সহপাঠীরাও গর্বিত।

কথা হয় জীবন যুদ্ধে লড়াকু সৈনিক সাজন সাহার সাথে, চোখে মুখে তার ছিলো দৃঢ় আত্মবিশ্বাস। এগিয়ে যাওয়ার প্রবল ইচ্ছা। তিনি বলেন, শরীরে যখন রক্ত কমে আসে তখন শরীরজুড়ে জ্বর আসে, মাথা ব্যথা হয়, শরীর দুর্বল হয়ে ভেঙ্গে আসে। তবু হার মানিনি। রক্ত দিয়ে আবারো নেমে পড়ি ভাল কিছু করার উদ্দেশ্যে। আমার মা আমাকে সব সময় অনুপ্রেরণা দেন ভাল কিছু করার জন্য। তবে শারীরিক দুর্বলতা আমাকে হার মানাতে না পারলেও দরিদ্রতা আমার এগিয়ে যাওয়ায় প্রতিবন্ধকতা তৈরি করছে। বাবার সামান্য আয় দিয়ে আমার চিকিৎসা আর সংসার চালাতে হিমশিম খায়। আমার ইচ্ছে ছিল আইনজীবী হওয়ার। যেন দরিদ্র মানুষের ন্যায় বিচারে কাজ করে যেতে পারি। তারপরও আমি হতাশ হচ্ছিনা। সৃষ্টিকর্তা যখন এইটুকু এগিয়ে নিয়ে এসেছেন, হয়তবা তার ইচ্ছাতেই সবাই আমার পাশে থাকবে। আমার এগিয়ে যাওয়া নিশ্চিত করবে।

তিনি আরো জানান, আমার রক্তের গ্রুপ পজেটিভ এবং নবীনগর স্বেচ্ছাসেবী ব্লাড ফাউন্ডেশন তিন মাস পর পর আমার জন্য রক্তের ব্যবস্থা করে থাকে। আমি তাদের কাছে কৃতজ্ঞ।

সাজনের মা স্মৃতি রাণী জানান, আমার ছেলে প্রায় ১০ বছর ধরে থ্যালাসেমিয়ায় আক্রান্ত। আমার ছেলেকে নিয়ে আমি অনেক বড় বড় স্বপ্ন দেখি তবে সাদ আর সাধ্যের ফারাক যে নির্মম বাস্তবতা। অর্থহীন সংসারে এগিয়ে যাওয়া অনেক কঠিন। আমার ছোট মেয়েটিও দুই বছর আগে মারা গেছে। এখন সাজনই আমার একমাত্র সম্বল। যেহেতু আমার ছেলে অসুস্থ তাই আমি চাই সে একটা ভাল সরকারী চাকুরী করুক।

নবীনগর সরকারি কলেজের উপাধ্যক্ষ এ কে এম রেজাউল করিম জানান, সাজনের কৃতিত্বে আমরা গর্বিত এবং আনন্দিত। সে কলেজের একজন নিয়মিত ছাত্র। আমরা আশা করি তার স্বপ্ন পূরণের পাশাপাশি চিকিৎসা চালিয়ে যেতে সমাজের বিত্তবানরা এগিয়ে আসবে। আর আমরা নিজস্ব উদ্যোগে তার সহযোগিতায় পাশে থাকব।

এ বিষয়ে নবীনগর উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা তানভীর ফরহাদ শামীম বলেন, বিষয়টি আমি শুনেছি। আমরা খোঁজখবর নিচ্ছি। প্রয়োজনে তার পড়ালেখা চালিয়ে যাওয়ার জন্য উপজেলা প্রশাসনের পক্ষ থেকে আর্থিক সহযোগিতা দেয়া হবে।


আরও খবর
ঝিনাইদহ জেলা কারাগারে কয়েদির মৃত্যু

সোমবার ২৬ ফেব্রুয়ারী ২০২৪




ভারতের পররাষ্ট্রমন্ত্রীর সঙ্গে হাছান মাহমুদের বৈঠক

প্রকাশিত:বুধবার ০৭ ফেব্রুয়ারী ২০২৪ | হালনাগাদ:বুধবার ০৭ ফেব্রুয়ারী ২০২৪ | অনলাইন সংস্করণ
নিজস্ব প্রতিবেদক

Image

ভারতের পররাষ্ট্রমন্ত্রী এস জয়শঙ্করের সঙ্গে বৈঠক করেছেন বাংলাদেশের পররাষ্ট্রমন্ত্রী ড. হাছান মাহমুদ। বুধবার (৭ ফেব্রুয়া‌রি) সন্ধ্যায় দিল্লির হায়দরাবাদ হাউসে এ বৈঠক অনুষ্ঠিত হয়।

বৈঠক শে‌ষে সামা‌জিক যোগা‌যোগমাধ্যম এক্সে একটি পোস্ট করেছেন জয়শঙ্কর। যেখানে ড. হাছান মাহমুদকে স্বাগত জা‌নিয়ে তিনি লি‌খেছেন, আমাদের আজকের আলোচনা ভারত-বাংলাদেশের মৈত্রীকে শক্তিশালী করবে।

এর আগে দিল্লির সরদার প্যাটেল ভবনে ভারতের জাতীয় নিরাপত্তা উপদেষ্টা অজিত দোভালের সঙ্গে বৈঠক করেন পররাষ্ট্রমন্ত্রী। ওই বৈঠক শেষে সাংবাদিকদের মন্ত্রী বলেন, উন্নয়ন ও অগ্রগতির স্বার্থে রাজনৈতিক স্থিতিশীলতা ও শান্তি বজায় রাখা প্রয়োজন এবং সে বিষয়ই সফরে প্রাধান্য পাচ্ছে।

মিয়ানমার ইস্যু নিয়ে এ সময় মন্ত্রী জানান, রোহিঙ্গাদের পূর্ণ অধিকারসহ তাদের নিজ দেশ মিয়ানমারে পুনর্বাসন এবং মিয়ানমারে চলমান পরিস্থিতি নিয়েও একযোগে কাজ করার বিষয়ে আলোচনা হয়েছে।

উল্লেখ্য, পররাষ্ট্রমন্ত্রী হিসেবে দায়িত্ব গ্রহণের পর ভারতের পররাষ্ট্রমন্ত্রী ড. এস জয়শঙ্করের আমন্ত্রণে প্রথম দ্বিপাক্ষিক সফরে রয়েছেন হাছান মাহমুদ। মঙ্গলবার (৬ ফেব্রুয়ারি) রাতে দিল্লির উদ্দেশ্যে ঢাকা ত্যাগ করেন তিনি। সফরে বৃহস্পতি ও শুক্রবার বিবেকানন্দ ফাউন্ডেশনে বক্তৃতা এবং একাধিক দ্বিপক্ষীয় বৈঠকের কথা রয়েছে মন্ত্রীর।


আরও খবর



নেতানিয়াহুকে ক্ষমতা থেকে সরে যেতে হবে: হিলারি ক্লিনটন

প্রকাশিত:শুক্রবার ০৯ ফেব্রুয়ারী ২০২৪ | হালনাগাদ:শুক্রবার ০৯ ফেব্রুয়ারী ২০২৪ | অনলাইন সংস্করণ
আন্তর্জাতিক ডেস্ক

Image

ইসরায়েলের প্রধানমন্ত্রী বেনিয়ামিন নেতানিয়াহু ফিলিস্তিনের স্বাধীনতাকামী গোষ্ঠী হামাসের যুদ্ধবিরতির শর্ত প্রত্যাখ্যান করেছেন। কয়েক মাসের মধ্যে গাজায় পূর্ণ বিজয় আসতে যাচ্ছে বলে দাবি করেছেন তিনি। তবে যুক্তরাষ্ট্রের পররাষ্ট্রমন্ত্রী অ্যান্টনি ব্লিংকেন বলেছেন, একটি সফল যুদ্ধবিরতি নিয়ে আলোচনার পথ এখনও খোলা রয়েছে। এদিকে নেতানিয়াহু বিশ্বাসযোগ্য নেতা নন বলে মন্তব্য করেছেন সাবেক মার্কিন পররাষ্ট্রমন্ত্রী ও ফার্স্ট লেডি হিলারি ক্লিনটন। তিনি বলেন, নেতানিয়াহুর উচিত ক্ষমতা ছেড়ে দেওয়া।

ইসরায়েল সমর্থিত একটি যুদ্ধবিরতি প্রস্তাবের জবাবে হামাস বেশ কয়েকটি দাবিসহ সাড়ে চার মাস স্থায়ী একটি যুদ্ধবিরতির প্রস্তাব দেয়। বুধবার এক সংবাদ সম্মেলনে তা নিয়ে কথা বলার সময় নেতানিয়াহু হামাসের প্রস্তাবকে বিভ্রান্তিকর বলে বর্ণনা করেন। হামাসের প্রস্তাবগুলোকে উদ্ভট আখ্যায়িত করে নেতানিয়াহু বলেন, ফিলিস্তিনের এই গোষ্ঠীটির সঙ্গে আলোচনা এগোচ্ছে না। তবে যুদ্ধবিরতি নিয়ে কোনো একটি চুক্তিতে পৌঁছাতে যুক্তরাষ্ট্র, মিসর ও কাতারের মধ্যস্থতাকারীরা আলোচনা চালিয়ে যাচ্ছেন।

বিবিসি বলছে, হামাসের পাল্টা প্রস্তাবে ইসরায়েল প্রতিক্রিয়া দেখাবে, এটা প্রত্যাশিতই ছিল। কিন্তু নেতানিয়াহু যা বলেছেন, তা সরাসরি তিরস্কার।

এদিকে হিলারি ক্লিনটন বলেন, নেতানিয়াহুর উচিত ক্ষমতা ছেড়ে দেওয়া। বুধবার নেতানিয়াহুর সঙ্গে যুক্তরাষ্ট্রের প্রেসিডেন্ট জো বাইডেনের সম্পর্ক নিয়ে জিজ্ঞাসা করা হলে এসব কথা বলেন তিনি।

হিলারি বলেন, আমি মনে করি, বাইডেন তাঁর অবস্থান থেকে যা করতে পারতেন, তার সবকিছুই করেছেন। ৭ অক্টোবরের পর ইসরায়েলি জনগণের বৈধ উদ্বেগের প্রতিক্রিয়া ও মিত্র হিসেবে ইসরায়েলের জন্য যা যা করার তা করেছেন। একটি সন্ত্রাসী সংগঠনের হামলার মুখে তিনি ইসরায়েলের সঙ্গেই ছিলেন। তাঁর চোখের সামনেই হামলার ঘটনা ঘটেছে। নেতানিয়াহুকে ক্ষমতা ছাড়তে হবে। তিনি বিশ্বাসযোগ্য নেতা নন। তাঁকে সরে যেতে হবে। নেতানিয়াহু যদি যুদ্ধবিরতিতে বাধা হয়ে থাকেন এবং পরবর্তী পদক্ষেপের ক্ষেত্রেও যদি তিনি বাধা হন, তা হলে অবশ্যই তাঁকে সরে যেতে হবে। খবর রয়টার্স ও বিবিসির।


আরও খবর
বিশ্ববাজারে আবারো কমেছে জ্বালানি তেলের দাম

মঙ্গলবার ২৭ ফেব্রুয়ারী ২০২৪




সুবর্ণচরে ধর্ষণের জন্যই সিঁধ কাটা হয় : পুলিশ সুপার

প্রকাশিত:বুধবার ০৭ ফেব্রুয়ারী ২০২৪ | হালনাগাদ:বুধবার ০৭ ফেব্রুয়ারী ২০২৪ | অনলাইন সংস্করণ
নোয়াখালী প্রতিনিধি

Image

নোয়াখালীর সুবর্ণচর উপজেলায় গৃহবধূকে ধর্ষণ করতেই সিঁধ কাটা হয় এবং এরপর চুরির নাটক সাজান ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সদ্য বহিষ্কৃত সভাপতি আবুল খায়ের ওরফে মুন্সি মেম্বার (৫০)। 

বুধবার (৭ ফেব্রুয়ারি) বেলা ১২টার দিকে এক সংবাদ সম্মেলনে এসব তথ্য জানান জেলা পুলিশ সুপার (এসপি) মোহাম্মদ আসাদুজ্জামান।

তিনি জানান, আবুল খায়ের মুন্সি তার সহযোগী মেহরাজকে (৪৮) দিয়ে ঘরের সিঁধ কাটিয়ে গরু বেপারী হারুনকে (৪২) নিয়ে ওই নারীর ঘরে প্রবেশ করে তাকে ধর্ষণ করেন। সেসময় মেহরাজ ওই নারীর পঞ্চম শ্রেণি পড়ুয়া মেয়েকে ধর্ষণ করেন। এ ঘটনার পরপরই সিঁধ কাটার কাজে ব্যবহৃত কোদাল, কাঁচি, কালো প্যান্ট ও কানটুপি জব্দ করেন পুলিশ।   

আরো পড়ুন :মা-মেয়েকে দলবদ্ধ ধর্ষণ : প্রধান আসামি আ.লীগ নেতা গ্রেফতার

এ ঘটনায় ভুক্তভোগী নারী বাদী হয়ে গ্রেপ্তার সাবেক ইউপি সদস্য আবুল খায়ের মুন্সিকে প্রধান আসামি ও হারুনের নাম উল্লেখ এবং অজ্ঞাত এক ব্যক্তিকে আসামি করে একটি মামলা দায়ের করেন। 

মামলার পর তাৎক্ষণিক পুলিশ আবুল খায়ের ও বুধবার রাত ৩টার দিকে উপজেলার চরক্লার্ক ইউনিয়ন থেকে মেহরাজকে গ্রেপ্তার করে। 

সংবাদ সম্মেলনে বলা হয়, হারুনের সহযোগিতায় ওই নারীকে আবুল খায়ের মুন্সি ও হারুন পালাক্রমে জোরপূর্বক ধর্ষণ করেন। মেহরাজ পাশের রুমে থাকা কিশোরীকে (১২) ধর্ষণ করেন। ধর্ষণ শেষে ফিরে যাওয়ার সময় স্বর্ণের কানের দুল ও ঘরে থাকা নগদ টাকা নিয়ে যান তারা। পরে ওই কিশোরীর হাতের বাঁধন খুলে দেন এবং ঘটনার বিষয়ে কাউকে কিছু বললে তাদের প্রাণে মেরে ফেলবে বলে হুমকি দেন।

মূলত হারুন গৃহবধূর বসতঘরে মালামাল রয়েছে বলে মেহরাজকে চুরি করতে ইন্ধন যোগান। মেহরাজ রাজি হলে সিঁধ কেটে ঘরে প্রবেশ করেন তারা। পরে হারুনের সঙ্গে মুন্সী মেম্বারকে দেখে মেহরাজ অবাক হন এবং বুঝতে পারেন ধর্ষণ করতেই তাকে দিয়ে চুরির নাটক সাজানো হয়েছে।

সংবাদ সম্মেলনে উপস্থিত ছিলেন- অতিরিক্ত পুলিশ সুপার বিজয়া সেন, অতিরিক্ত পুলিশ সুপার মোহাম্মদ ইব্রাহীম, অতিরিক্ত পুলিশ সুপার (বেগমগঞ্জ সার্কেল) নাজমুল হাসান রাজীব, সহকারী পুলিশ সুপার (চাটখিল সার্কেল) নিত্যানন্দ দাস, চরজব্বার থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) রফিকুল ইসলাম প্রমুখ। 

প্রসঙ্গত, উপজেলার চরওয়াপদা ইউনিয়নের চর কাজী মোখলেছ গ্রামের একটি বাড়িতে সোমবার (৫ ফেব্রুয়ারি) রাত ২টা থেকে ৩টার মধ্যে সিঁধ কেটে মা-মেয়েকে দলবদ্ধ ধর্ষণের ঘটনা ঘটে।

নিউজ ট্যাগ: সুবর্ণচর

আরও খবর
ঝিনাইদহ জেলা কারাগারে কয়েদির মৃত্যু

সোমবার ২৬ ফেব্রুয়ারী ২০২৪




শীতের রাতে রাজধানীতে হঠাৎ বৃষ্টি

প্রকাশিত:বৃহস্পতিবার ০১ ফেব্রুয়ারী ২০২৪ | হালনাগাদ:বৃহস্পতিবার ০১ ফেব্রুয়ারী ২০২৪ | অনলাইন সংস্করণ
নিজস্ব প্রতিবেদক

Image

রাজধানীতে হঠাৎ করেই মাঝরাতে নেমেছে বৃষ্টি। যদিও বৃষ্টির স্থায়িত্ব কম সময় ছিল, তবুও তীব্র শীতে চরম কষ্টে পড়েছে ছিন্নমূল মানুষরা। যাদের রাতযাপনের ঠিকানা ফুটপাত বা যাত্রী ছাউনি, সবচেয়ে বেশি ভোগান্তিতে পড়েছেন তারা।

বৃহস্পতিবার (১ ফেব্রুয়ারি) রাত ১টার দিকে রাজধানীর হাইকোর্ট, ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়, ঢাকা মেডিকেল কলেজ এলাকায় এসব মানুষের কষ্ট আর দুর্ভোগের চিত্র দেখা গেছে।

বৃষ্টিতে ফুটপাত ভিজে যাওয়ায় কষ্ট করে থাকতে হচ্ছে তাদের। অনেককেই পলিথিন টানিয়ে বৃষ্টির পানি থেকে নিজেকে রক্ষা করতে দেখা গেছে। যাদের পলিথিনও নেই তাদের কাপড়-চোপড়সহ যাত্রী ছাউনি, ভবনের দেয়ালের পাশে আশ্রয় নিতে দেখা গেছে। কাউকে আবার দেখা গেছে বৃষ্টি থেমে যাওয়ার পর ভেজা কাপড় দিয়ে কোনো রকমে ঘুমানোর প্রস্তুতি নিতে।

রাস্তার পাশে থাকা এসব ছিন্নমূল মানুষ বলছেন, শীত নিবারণের যথেষ্ট কাপড় না থাকা সত্ত্বেও তারা কোনো রকমে রাস্তার পাশে ঘুমিয়ে রাত কাটাতেন। এখন বৃষ্টি নামার কারণে ঘুমানোর জায়গাটুকুও ভিজে গেছে।

ঢাকা মেডিকেল এলাকায় থাকা কাকলী পারভিন বলেন, আমরা গরিব মানুষ। কী আর করমু? ঝড়-বৃষ্টি হলেও রাস্তায় রাত কাটে। আমাদের শীত-বৃষ্টি নাই। ঘুমায়ে গেছিলাম। বৃষ্টি আসার পর টের পাইছি। খ্যাতা-কম্বল গুটায়ে বসে আছি। রাইতটা কষ্টে যাইবো।

একই এলাকায় থাকা সুরাব নামের আরেকজন বলেন, সারাদিন কাম করি। রাত হলে এইহানে আইসা ঘুমাই। এতদিন আর বৃষ্টি হয় নাই। কষ্ট কইরা থাকছি। আইজ বৃষ্টি নামলো। এহন কষ্ট আরও বাড়বো।

ছিন্নমূল এসব মানুষের পাশাপাশি ভোগান্তিতে পড়েছেন অনেক রিকশাচালকও। কয়েকজন চালককে পলিথিন দিয়ে মুড়িয়ে রিকশায় ঘুমাতে দেখা গেছে ওই এলাকায়।


আরও খবর
ছুটির দিনেও ঢাকার বায়ু ‌‘অস্বাস্থ্যকর’

সোমবার ২৬ ফেব্রুয়ারী ২০২৪




দৌলতপুরে প্রাইভেট হাসপাতাল থেকে নবজাতক শিশু চুরি

প্রকাশিত:বুধবার ০৭ ফেব্রুয়ারী ২০২৪ | হালনাগাদ:বুধবার ০৭ ফেব্রুয়ারী ২০২৪ | অনলাইন সংস্করণ
রফিকুল ইসলাম, কুষ্টিয়া

Image

কুষ্টিয়ার দৌলতপুর উপজেলার আল্লার দর্গায় অবস্থিত আনোয়ারা বিশ্বাস মা ও শিশু হাসপাতাল থেকে তিন দিন বয়সের এক নবজাতক শিশু চুরির অভিযোগ উঠেছে।

বুধবার (৭ ফেব্রুয়ারি) দুপুরের দিকে এ ঘটনা ঘটেছে।

নবজাতক শিশুটি কুষ্টিয়ার ভেড়ামারা উপজেলার মহিষাডড়া গ্রামের মসজিদ পাড়ার দিপু আলীর ছেলে। দিপু একই এলাকার নিহারুল ইসলামের ছেলে।

নবজাতকের পিতা দিপু আলী বলেন, গত ৫ ফেব্রুয়ারি দুপুরে সিজারিয়ান অপারেশনের মাধ্যমে আমার স্ত্রী রিয়া খাতুনের ছেলে সন্তান জন্ম দেয়।

বুধবার দুপুরে আমার শাশুড়ী রহিমন নেছা আমার বাচ্চা কোলে নিয়ে হাসপাতালের ভিতরে বসে ছিল। এমন সময় একটি মহিলা বাচ্চাকে কোলে নিতে চায়, ওই সময় পানি আনার প্রয়োজন হলে বাচ্চাটি ওই মহিলার কোলে দিয়ে পানি আনতে গেলে বাচ্চা নিয়ে সেই অপরিচিত মহিলা চলে যায়। আমি এই ঘটনার তদন্ত করে আমার বাচ্চা ফেরত চাই।

এ বিষয়ে আনোয়ারা বিশ্বাস মা ও শিশু হাসপাতালে দায়িত্বরত ম্যানেজার আব্দুর রাজ্জাক বলেন, এই ঘটনায় আমাদের কোন গাফিলতি নাই। আমরা সময় মত সকল কিছুর খোঁজ-খবর রাখি। তবে তাদের আত্মীয় স্বজনের কাছে থেকে কেউ যদি বাচ্চা নিয়ে চলে যায়, তাহলে আমাদের কিছু করার থাকে না।

এ বিষয়ে দৌলতপুর ভেড়ামারা সার্কেলর অতিরিক্ত পুলিশ সার্কেল মহসীন আল মুরাদ বলেন, বিষয়টি দুঃখজনক। আমরা ঘটনা শোনার সাথে সাথে ঘটনা স্থানে এসে তদন্ত শুরু করেছি এবং নবজাতক উদ্ধারে পুলিশের সকল ইউনিট কাজ করছে।

নিউজ ট্যাগ: কুষ্টিয়া

আরও খবর
ঝিনাইদহ জেলা কারাগারে কয়েদির মৃত্যু

সোমবার ২৬ ফেব্রুয়ারী ২০২৪