আজঃ বুধবার ২৫ মে ২০২২
শিরোনাম

টেকনাফে সাড়ে ৫ কোটি টাকার মাদকসহ রোহিঙ্গা যুবক আটক

প্রকাশিত:মঙ্গলবার ১০ মে ২০২২ | হালনাগাদ:মঙ্গলবার ১০ মে ২০২২ | ৪৭০জন দেখেছেন
দর্পণ নিউজ ডেস্ক

Image

কক্সবাজারের টেকনাফের নাফ নদী সীমান্ত হয়ে মাদকের চালান নিয়ে সাঁতার কেটে আসার সময় বিজিবি সদস্যরা অভিযান চালিয়ে ১ কেজি ৬০ গ্রাম আইস ও ১০ হাজার পিস ইয়াবাসহ এক রোহিঙ্গাকে আটক করেছেন। রোববার (৮ মে) দিবাগত রাতে টেকনাফ-২ বিজিবি সদর ও দমদমিয়া বিওপির বিশেষ টহল দল এই চালান আটক করে।

আটক ব্যক্তি ২৫নং রোহিঙ্গা ক্যাম্পের বি-ব্লকের কালু মিয়ার ছেলে মো. সাকের আলী (২২)। উদ্ধার মাদকের বাজার মূল্য আনুমানিক ৫ কোটি ৬০ লাখ টাকা।

বিজিবি সূত্রে জানা যায়, মিয়ানমার থেকে মাদকের চালান আসার খবর পেয়ে হ্নীলা ইউনিয়নের জাদিমোরা ওমরখাল সংলগ্ন কেওড়া বনে কৌশলী অবস্থান নেন বিজিবি সদস্যরা। কিছুক্ষণ পর একজন মাদক পাচারকারী সাঁতার কেটে নাফ নদীর শূন্যরেখা অতিক্রম করে বাংলাদেশ সীমান্তে আসলে বিজিবি সদস্যরা তাকে চ্যালেঞ্জ করেন। পরে তাকে ধাওয়া করে কোমরে গামছায় অভিনব কায়দায় বাঁধা পোটলাসহ আটক করা হয়। এরপর তার দেহ তল্লাশি করে ৫ কোটি ৬০ লাখ টাকা মূল্যের ১ কেজি ৬০ গ্রাম আইস ও ১০ হাজার পিস ইয়াবা পাওয়া যায়।

এ ব্যাপারে টেকনাফ-২ বিজিবির অধিনায়ক লে. কর্নেল শেখ খালিদ মোহাম্মদ ইফতেখার জানান, আটককৃত মাদক পাচারকারীর বিরুদ্ধে পৃথক আইনে সংশ্লিষ্ট ধারায় মামলা করা হয়েছে। তাকে  জব্দকৃত মাদকসহ টেকনাফ মডেল থানায় সোর্পদ করা হয়েছে। 


আরও খবর
টেকনাফে ১০ হাজার পিস ইয়াবাসহ যুবক আটক

বৃহস্পতিবার ২১ এপ্রিল ২০২২




নজরুল জন্মজয়ন্তীতে শিল্পকলায় ‘দামাল ছেলে নজরুল’

প্রকাশিত:বুধবার ২৫ মে ২০২২ | হালনাগাদ:বুধবার ২৫ মে ২০২২ | ৭০জন দেখেছেন
দর্পণ নিউজ ডেস্ক

Image

নাটকের দল জেনেসিস থিয়েটার জাতীয় কবি কাজী নজরুল ইসলামকে নিয়ে বছরের পর বছর নিয়মিত কাজ করে যাচ্ছে। এবার কবির ১২৩তম জন্মজয়ন্তী ও বিদ্রোহী কবিতার শতবর্ষ উদযাপন উপলক্ষে যৌবনে নজরুল শীর্ষক আলোচনা সভার আয়োজন করেছে। পাশাপাশি আত্ম-জীবনী নিয়ে দুই বাংলার একমাত্র মঞ্চ নাটক দামাল ছেলে নজরুলের ২৬ তম মঞ্চায়ন করা হবে।

বুধবার (২৫ মে) বাংলাদেশ শিল্পকলা একাডেমীর এক্সপেরিমেন্টাল থিয়েটার হলে। দামাল ছেলে নজরুল নাটকটির রচনা করেছেন মাহমুদ উল্লাহ। নির্দেশনা দিয়েছেন নূর হোসেন রানা, কোরিওগ্রাফি করেছেন ইমন খান, আবহ সংগীত বিকাশ, কস্টিউম ডিজাইন ইকবাল খান ও ফারজানা রনি এবং সেট ডিজাইন করেছেন নির্দেশক নিজেই।

দামাল ছেলে নজরুলনাটকটির কেন্দ্রীয় নজরুলের চরিত্রে ইমন খান ছাড়াও অভিনয় করেছেন, নূর হোসেন রানা, নিথর মাহবুব, ফারাহ ফেন্সী, আলেয়া বেগম আলো, মাহবুব জামান, কনা, রুশ মিলা, সানজিদা রোজ,মিরাজ হ্ম্যাপা, ইকবাল, মোক্তার, জারা অন্তরা, প্রকাশ সরকার সুমন, ফারজানা রনি, জলিল, সিয়াম, স্বপন, সিফাত, নুহাশ, আনজুম,জীবন, প্রদীপ কুমার ঘোষ, শেখ জয়নুল, আজহার আজু,মিলন, মাহমুদুল হাসান, আমির, শিশুশিল্পী ইয়াশফা, অংকন প্রমুখ ।

অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত থাকবেন যুব উন্নয়ন অধিদপ্তরের মহাপরিচালক (গ্রেড-১) মো. আজহারুল ইসলাম খান। বিশেষ অতিথি হয়ে উপস্থিত থাকবেন নজরুল সংগীতশিল্পী ফাতেমা তুজ জোহরা, বাংলাদেশ চলচ্চিত্র সেন্সর বোর্ডের সদস্য চিত্রনায়িকা রোজিনা, এটিএন বাংলার উপদেষ্টা তাশিক আহমেদ, বাংলাদেশ টেলিভিশনের অনুষ্ঠান অধ্যক্ষ মো. ইমাম হোসাইন এবং সভাপতিত্ব করবেন সংগঠনের সভাপতি নূর হোসেন রানা।


আরও খবর



ম্যাথুজের লড়াইয়ে ৩৯৭ রানে থামল শ্রীলঙ্কা

প্রকাশিত:সোমবার ১৬ মে ২০২২ | হালনাগাদ:সোমবার ১৬ মে ২০২২ | ৩৬০জন দেখেছেন
দর্পণ নিউজ ডেস্ক

Image

টেস্টের প্রথম দিনই দাপুটে সেঞ্চুরিতে শ্রীলঙ্কাকে এগিয়ে রেখেছিলেন অ্যাঞ্জেলো ম্যাথুজ। আজ দ্বিতীয় দিনের প্রায় আড়াই সেশনও সাগরিকায় চলল তাঁর দাপট। সতীর্থদের নিয়ে লড়াই করে শেষ পর্যন্ত প্রথম ইনিংসে শ্রীলঙ্কাকে শক্ত পুঁজি এনে দিলেন ম্যাথুজ।

চট্টগ্রাম টেস্টের প্রথম ইনিংসে ব্যাট করে স্কোরবোর্ডে ৩৯৭ রান তুলেছে শ্রীলঙ্কা। দলের পক্ষে সর্বোচ্চ রান করা ম্যাথুজ খেলেছেন ১৯৯ রানের ইনিংস। ৩৯৭ বলে তাঁর ইনিংসটি সাজানো ছিল ১৯টি বাউন্ডারি ও একটি ছক্কা দিয়ে।

আজ সোমবার ৪ উইকেটে ২৫৮ রান নিয়ে দ্বিতীয় দিন শুরু করে শ্রীলঙ্কা। গতকাল দিন শেষে উইকেটে থাকা দুই ব্যাটার ম্যাথুজ ও দিনেশ চান্দিমাল মিলে আজ লঙ্কানদের দারুণ শুরু এনে দেন। এই জুটি মিলে বাংলাদেশকে ভোগান লম্বা সময়। শেষ পর্যন্ত প্রথম সেশনের শেষ দিকে এই জুটি ভাঙেন নাঈম হাসান।

চান্দিমালকে নিজের তৃতীয় শিকার বানিয়ে শক্ত জুটি ভাঙেন নাঈম। ৬৬ রানে চান্দিমালকে এলবির ফাঁদে ফেলেন এই স্পিনার। একই ওভারেই উইকেটে আসা নিরোসান ডিকভেলাকেও নিজের শিকার বানান নাঈম। প্রথম সেশনে এই দুটি উইকেটই নিতে পারে বাংলাদেশ।

দ্বিতীয় সেশনের শুরুতেই জোড়া আঘাত হানেন সাকিব। এক ওভারে তুলে নেন দুই উইকেট। প্রথমে বোল্ড করে ফেরান রমেশ মেন্ডিসকে। এরপর লাসিথ এম্বুলদেনিয়াকে এলবিডব্লিউ করে ফেরালেন বাঁহাতি এই স্পিনার।

কিন্তু জোড়া উইকেট নিয়ে চাপ তৈরি করতে পারলেও উইকেটে জমে যাওয়া ম্যাথুজের প্রতিরোধ ভাঙতে পারেনি বাংলাদেশ। টেলএন্ডারদের নিয়েও লম্বা সময় লড়াই করেন তিনি। গতকাল সেঞ্চুরি করা ম্যাথুজ আজ দ্বিতীয় সেশনেই ২৯৩ বলে পেয়ে যান দেড়শ রানের দেখা। এর আগে সেঞ্চুরি করেছিলেন ১৮৩ বলে। যেটা  তাঁর ক্যারিয়ারের ১২তম সেঞ্চুরি।

টেলএন্ডার দিয়ে নিয়ে শেষ পর্যন্ত ৩৯৭ রানের পুঁজি এনে দেন ম্যাথুজ। তবে শেষ পর্যন্ত আক্ষেপ নিয়ে উইকেট ছাড়েন তিনি। আর এক রানের জন্য ডাবল সেঞ্চুরি হলো না তাঁর। ঠিক ১৯৯ রানের ঘরে তাঁর প্রতিরোধ ভাঙেন নাঈম হাসান।

বাংলাদেশের হয়ে বল হাতে ১০৫ রান দিয়ে সর্বোচ্চ ছয়টি উইকেট নিয়েছেন নাঈম হাসান। ৬০ রানের বিনিময়ে তিনটি নিয়েছেন সাকিব আল হাসান। তাইজুল নিয়েছেন এক উইকেট।

চট্টগ্রাম টেস্টের প্রথম দিন শেষে এগিয়ে ছিল শ্রীলঙ্কা। অ্যাঞ্জেলো ম্যাথুজের সেঞ্চুরিতে প্রথম দিনই স্কোরবোর্ডে আড়াইশর বেশি রান তুলেছে তারা। আজ সোমবার দ্বিতীয় দিন সেটা আরো বাড়ানোর আগে যেভাবেই হোক দ্রুত থামাতে হতো সফরকারীদের। কিন্তু নিজেদের লক্ষ্যে সফল হতে পারল না বাংলাদেশ।

গতকাল রোববার টেস্টের প্রথম দিন শেষে চার উইকেটে ২৫৮ রান নিয়ে দিন শেষ করে শ্রীলঙ্কা। আজ আড়াই সেশন মিলে ব্যাট করে তুলেছে মোট ৩৯৭ রান।

সংক্ষিপ্ত স্কোর

শ্রীলঙ্কা প্রথম ইনিংস : ১৫৩ ওভারে ৩৯৭/১০ (ফার্নান্দো ৩৬, করুনারত্নে ৯, মেন্ডিস ৫৪, সিলভা ৬, ম্যাথুজ ১৯৯ , চান্দিমাল ৬৬, ডিকভেলা ৩, মেন্ডিস ১, এম্বুলদেনিয়া ০, বিশ্ব ১৭, ;সাকিব ৩৯-১২-৬০-৩,নাঈম ৩০-৪-১০৫-৬,তাইজুল ৪৮-১২-১০৭-১ ,শরিফুল ২০-৩-৫৫-০,খালেদ ১৬-১-৬৬-০)।


আরও খবর



হাতিয়াতে পুকুরে মিললো ৩৫টি ইলিশ

প্রকাশিত:শনিবার ১৪ মে ২০২২ | হালনাগাদ:শনিবার ১৪ মে ২০২২ | ৪৫০জন দেখেছেন

Image

নোয়াখালী প্রতিনিধি:

নোয়াখালীর হাতিয়া উপজেলার একটি পুকুরে পাওয়া গেছে ৩৫টি ইলিশ মাছ। পরে মাছ গুলো বাজারে বিক্রি করা হয়।

গতকাল শুক্রবার ১৩ মে বিকেলে উপজেলার নিঝুমদ্বীপ ইউনিয়নের যুগান্তর কিল্লা পুকুরে মাছগুলো পাওয়া যায়। প্রতিটি ইলিশের ওজন প্রায় ৩০০-৪০০ গ্রাম করে। সবগুলো মিলে প্রায় ৮-৯ কেজি মাছ হবে। 

বিষয়টি নিশ্চিত করেন নিঝুমদ্বীপ ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান নুরুল আফছার দিনাজ। তিনি জানান, পুকুরের মালিক আব্দুল মান্নান পুকুরে সেচের মেশিন বসিয়েছেন। শনিবার সকালের দিকে সেচের পুরো কাজ শেষ হবে। এর আগে শুক্রবার বিকেলের দিকে জেলেদের দিয়ে পুকুরে জাল ফেলা হয় বড় মাছ গুলো ধরার জন্য। ওই জালে ৩৫টি ইলিশ উঠে।

স্থানীয় বাসিন্দা দেলোয়ার হোসেন জানান, গত বছর ঘূর্ণিঝড় ইয়াসের প্রভাবে জোয়ারের পানিতে যুগান্তর কিল্লা পুকরটি পুরোপুরি ডুবে যায়। তখন জোয়ারের পানিতে ইলিশ মাছ গুলো পুকুরে প্রবেশ করে।

নিউজ ট্যাগ: ইলিশ নোয়াখালী

আরও খবর



কানাডায় খাদ্যশস্য উৎপাদন বাড়ার পূর্বাভাস ইউএসডিএর

প্রকাশিত:বুধবার ১১ মে ২০২২ | হালনাগাদ:বুধবার ১১ মে ২০২২ | ৩৫৫জন দেখেছেন
দর্পণ নিউজ ডেস্ক

Image

২০২২-২৩ মৌসুমে কানাডায় খাদ্যশস্য উৎপাদন বাড়ার সম্ভাবনা তৈরি হয়েছে। আবাদি জমির পরিমাণ বৃদ্ধি এবং মাটিতে আর্দ্রতার পরিমাণ বাড়ায় এমন সম্ভাবনা দেখছেন বিশ্লেষকরা। সম্প্রতি মার্কিন কৃষি বিভাগের (ইউএসডিএ) ফরেন এগ্রিকালচারাল সার্ভিসের গ্লোবাল এগ্রিকালচারাল ইনফরমেশন নেটওয়ার্ক শীর্ষক প্রতিবেদনে এ তথ্য উঠে এসেছে।

প্রতিবেদনে বলা হয়, ২০২২-২৩ মৌসুমে কানাডায় খাদ্যশস্য উৎপাদন ৩০ শতাংশ বাড়বে। উৎপাদনের পরিমাণ দাঁড়াবে ৫ কোটি ৮০ লাখ টনে। বসন্তকালীন গম, দুরাম ও জইয়ের আবাদ লক্ষণীয় মাত্রায় বেড়েছে। কানাডার অন্যতম প্রধান খাদ্যশস্য আবাদি অঞ্চল আলবার্টা ও পশ্চিম সাসক্যাচুয়ান। এসব অঞ্চলে খরা পরিস্থিতি কতটুকু দীর্ঘায়িত হয় তার ওপরই সংস্থাটির এ পূর্বাভাস নির্ভর করছে। এ ঝুঁকি কেটে গেলে পূর্বাভাস মিলে যাওয়ার সম্ভাবনা দেখছে ইউএসডিএ।

কানাডায় খরার কারণে চলতি মৌসুমে খাদ্যশস্য উৎপাদন ব্যাহত হয়েছে। আবাদের পরিমাণও ছিল নিম্নমুখী। এ কারণে ২০২২-২৩ মৌসুমে কয়েক বছরের সর্বনিম্নে নামতে পারে গম, যব ও জইয়ের প্রাথমিক মজুদ। ভুট্টার প্রাথমিক মজুদ কমে ১৯ লাখ ৫০ হাজার টনে নামার পূর্বাভাস দেয়া হয়েছে। অর্থাৎ শস্যটির মজুদ আট বছরের সর্বনিম্নে নামার আশঙ্কা করা হচ্ছে। পশুখাদ্য উৎপাদনে ঊর্ধ্বমুখী স্থানীয় চাহিদাকে এর পেছনে দায়ী করছেন বিশ্লেষকরা।

ইউএসডিএ বলছে, ২০২২-২৩ মৌসুমে কানাডায় ৩ কোটি ১৫ লাখ ৮০ হাজার টন গম উৎপাদন হতে পারে। মৌসুম শেষে শস্যটির মজুদ দাঁড়াবে ৪০ লাখ টনে। ২০২২-২৩ মৌসুম শেষে গমের মজুদ ও ব্যবহারের অনুপাত কমে ১২ শতাংশে নামার পূর্বাভাস মিলেছে। ১৯৩৮ সালের পর এমন নিম্নমুখিতা দেখা যায়নি।

২০২২-২৩ মৌসুমে গম, যব ও জই রফতানি গত বছরের তুলনায় ৩২ শতাংশ বাড়বে বলে পূর্বাভাস দিয়েছে ইউএসডিএ। ফলন পরিস্থিতির উন্নতি দেশটির রফতানিযোগ্য গম সরবরাহ ৬০ লাখেরও বেশি বাড়াতে পারে বলে ধারণা করা হচ্ছে। শস্যটির মজুদ ইতিহাসের সর্বনিম্ন পর্যায়ে অবস্থান করবে বলে জানিয়েছে ইউএসডিএ। কারণ বিশ্বজুড়ে গমের ব্যাপক চাহিদা তৈরি হয়েছে। কিন্তু স্থানীয় ও আন্তর্জাতিক বাজারে শস্যটির সরবরাহ সংকট তীব্র। এদিকে ২০২২-২৩ মৌসুমে কানাডায় ৯৪ লাখ টন যব উৎপাদনের সম্ভাবনা রয়েছে। ভালো দাম ও আবাদ বৃদ্ধির কারণে জই উৎপাদন ৪০ লাখ ৩০ হাজার টনে উন্নীত হতে পারে।

আগামী মৌসুমে ভুট্টা উৎপাদন ১ কোটি ৩৬ লাখ টনে নামবে বলে পূর্বাভাস দিয়েছে ইউএসডিএ। চলতি মৌসুমে ১ কোটি ৩৯ লাখ ৮০ হাজার টন উৎপাদন হয়েছে। মূলত আবাদ কমে যাওয়ার কারণেই উৎপাদন কমতে পারে। অন্যদিকে ভুট্টা, যব, গম ও জই আমদানি ৪০ শতাংশেরও বেশি কমতে পারে বলে ধারণা করা হচ্ছে। মূলত পশুখাদ্য উৎপাদন খাতে ভুট্টা ও যবের নিম্নমুখী চাহিদা এতে ভূমিকা রাখবে।

নিউজ ট্যাগ: কানাডা

আরও খবর



সম্ভাবনার সেন্টমার্টিন

প্রকাশিত:বুধবার ১১ মে ২০২২ | হালনাগাদ:বুধবার ১১ মে ২০২২ | ৩৩৫জন দেখেছেন
দর্পণ নিউজ ডেস্ক

Image

বাংলাদেশের একমাত্র প্রবাল দ্বীপ সেন্টমার্টিন। কক্সবাজার জেলা শহর থেকে ১২০ কিলোমিটার দূরে সাগর বক্ষে এ দ্বীপে টেকনাফ থেকে ট্রলারে, লঞ্চে কিংবা জাহাজে যেতে লাগে দুই থেকে সোয়া দুই ঘণ্টা। রূপ বৈচিত্র্যের অনন্য মহিমায় উদ্ভাসিত সেন্টমার্টিন দ্বীপে চমৎকার আবহাওয়া বিরাজ করে নবেম্বর থেকে ফেব্রুয়ারি মাস পর্যন্ত।

এই সময়কে প্রধান ভ্রমণ ঋতু হিসেবে চিহ্নিত করা হয়। বছরের বাকি সময় আবহাওয়া থাকে ভয়াবহ। সেন্টমার্টিনের স্বচ্ছ পানিতে জেলি ফিস, হরেক রকম সামুদ্রিক মাছ, কচ্ছপ আর প্রবাল অন্যতম আকর্ষণ ও অপার সম্ভাবনা। এটিই বাংলাদেশের একমাত্র প্রবাল দ্বীপ। ১৯৫৮ সালে এক ভূত্তত্ব জরিপে দেখা গেছে এই দ্বীপে প্রায় ১০ লাখ টন প্রবাল রয়েছে। এই দ্বীপে জীবন্ত প্রবালের ৩৯টি প্রজাতি চিহ্নিত করা গেছে।

প্রাণের বৈচিত্র্য রয়েছে যে দ্বীপগুলোতে, তাকে টিকিয়ে রাখার মধ্যেই রয়েছে অর্থনৈতিক উন্নয়নের চাবি। সেন্টমার্টিন দ্বীপ ও দ্বীপের চারদিকের জল এলাকার বিচিত্র প্রাণের সুরক্ষার মধ্যেই রয়েছে বাংলাদেশের পর্যটন ও মৎস্য আহরণ সম্ভাবনা। বন ও পরিবেশ মন্ত্রণালয়ের অধীনে সেন্টমার্টিন কনজারভেশন প্রকল্পে মার্কিন কোরাল বায়োলজিস্ট টমাস, টমাসিকের এক গবেষণা প্রতিবেদনে বলা হয়, সেন্টমার্টিনে প্রতিদিন সর্বোচ্চ ৮৫০ জন পর্যটক পরিদর্শন করলে দ্বীপটির ক্ষতি হবে না। অথচ শীত মৌসুমে দিনে তিন থেকে চার হাজার পর্যটক সেন্টমার্টিনে যাচ্ছেন, রাতে থাকছেন। একই সঙ্গে তারা চালিয়ে যাচ্ছেন পরিবেশের জন্য ক্ষতিকর কার্যকলাপ।

জীবন-জীবিকা: প্রতি বছর সেন্টমার্টিনে প্রায় ১০ লাখ পর্যটক আসা-যাওয়া করে। পর্যটকদের থাকার জন্য দ্বীপটিতে অপরিকল্পিতভাবে গড়ে উঠেছে প্রায় ৮৮টি হোটেল, মোটেল, রিসোর্ট। ১৯৭২ সালে যেখানে ১১২টি বসতি ছিল বর্তমানে সেখানে দেড় হাজার পরিবারের প্রায় সাড়ে সাত হাজার মানুষ বসবাস করছে। লোকসংখ্যা বৃদ্ধির সঙ্গে সঙ্গে বর্জ্যরে পরিমাণ বাড়ছে। এখানকার মানুষ মূলত মৎস্য শিকার করেই তাদের জীবিকা নির্বাহ করে। তবে পর্যটন শিল্পের বিকাশ হওয়ায় অনেকেই রেস্টুরেন্ট, আবাসিক হোটেল কিংবা গ্রোসারি শপের মাধ্যমে জীবিকা নির্বাহ করে থাকে। নারিকেল, পেঁয়াজ, মরিচ, টমেটো, এ দ্বীপের প্রধান কৃষিজাত পণ্য।

সেন্টমার্টিন হতে পারে দ্বিতীয় সিঙ্গাপুর: সেন্টমার্টিন দেশের একমাত্র প্রবাল দ্বীপ। এই দ্বীপে প্রায় ২শ প্রজাতির জীবের উপস্থিতি রয়েছে বলে দাবি করেন বিজ্ঞানীরা। সমীক্ষা অনুযায়ী, দ্বীপটি চতুর্দিকে প্রবাল পাথরের বেষ্টনীতে গড়া। এর গভীরে রয়েছে জমাট বাঁধা পাথর। এই পাথরের বেষ্টনী সাগরের তলদেশ দিয়ে মালয়েশিয়া পর্যন্ত বিস্তৃত। বঙ্গোপসাগরের বুকে জেগে উঠা এই দ্বীপটিই হতে পারে পর্যটনের ক্ষেত্রে বিশ্বের দ্বিতীয় সিঙ্গাপুর। তবে এ জন্য প্রয়োজন পরিকল্পিত উন্নয়ন এবং সুষ্ঠু নীতিমালা। দ্বীপবাসীকে সম্পৃক্ত করে সরকারী-বেসরকারী অংশীদারিত্বের ভিত্তিতে মাস্টার প্ল্যানের মাধ্যমে এখানে পর্যটন শিল্প বিকাশে উদ্যোগ নেয়া হলে দ্বীপটি হয়ে উঠতে পারে বিশ্বের অন্যতম প্রধান পর্যটন কেন্দ্র্র।

শৈবাল চাষের সম্ভাবনা: সেন্টমার্টিনে শৈবাল চাষের সম্ভাবনা রয়েছে। সামুদ্রিক বিজ্ঞানীরা বিভিন্ন গবেষণা ও বৈজ্ঞানিক পরীক্ষা-নিরীক্ষায় নিশ্চিত করেছেন যে, সেন্টমার্টিনে ১৪০ প্রজাতির সামুদ্রিক শৈবাল রয়েছে। যার অধিকাংশ মানুষের খাদ্যসহ হাঁস-মুরগি ও মাছের খাদ্য তৈরিতে ব্যবহার করা যাবে। স্থানীয় সূত্রে জানা যায়, সাধারণত চার ধরনের প্রবাল সংগ্রহ করা হয় যাদের স্থানীয় ভাষায় বলা হয় পাতা ফুল, গাছফুল, শৈবাল ও মগ। এদের মধ্যে গাছফুলের চাহিদা সবচেয়ে বেশি। বাহারি অলঙ্কার প্রস্তুতের জন্যেই এর ব্যবহার সবচেয়ে বেশি। প্রাকৃতিক সম্পদের মধ্যে প্রচুর চুনাপাথরসহ নানা প্রকার পাথর, রেডিয়াম, সামুদ্রিক শৈবাল, ঝিনুক, মুক্তা ও সিলিকন পাওয়া যায়। এছাড়া এই শৈবাল থেকে হ্যালোজেন জাতীয় উপাদান যেমন-ফ্লোরিন, ক্লোরিন, ব্রুমিন ও আয়োডিন এবং অন্যান্য মূল্যবান ধাতব পাওয়া যাবে। বৈজ্ঞানিকরা বলেছেন, সামুদ্রিক শৈবালে ঔষুধি গুণাগুণ রয়েছে। তাই এগুলো ওষুধ কারখানায় এবং জৈব সার তৈরিতে বিভিন্ন দেশে কাঁচামাল হিসেবে ব্যবহার হয়। আশার খবর হলো- সেন্টমার্টিনে বৈজ্ঞানিক পদ্ধতিতে ইতোমধ্যে শুরু হয়েছে সামুদ্রিক শৈবাল চাষ। এই প্রযুক্তি ব্যবহারের ফলে প্রবালদ্বীপ সেন্টমার্টিন হবে সামুদ্রিক শৈবাল ভা-ার। এখানকার চাষীরা শৈবাল চাষ ও বাণিজ্য করে আর্থিকভাবে সচ্ছল হবেন। অপরদিকে এই খাত থেকে বিপুল পরিমাণ বৈদেশিক মুদ্রাও অর্জন করা সম্ভব হবে।

মনোরম সৈকতের হাতছানি: সবুজ শ্যামল বৃক্ষ বেষ্টিত সাগর বুকে ভাসমান অনন্য শোভামণ্ডিত এই সেন্টমার্টিন। সেন্টমার্টিনের উভয়প্রান্তে ছোট বড় ৩৭টি সৈকত রয়েছে যা ভ্রমণপিপাসুদের পদচারণায় মুখরিত হয়ে ওঠে বছরের অক্টোবর থেকে ফেব্রুয়ারি পর্যন্ত সময়ে। সেন্টমার্টিনকে বাঁচাতে হবে আমাদের স্বার্থেই। সেজন্য সর্বসাধারণকে সচেতন থাকতে হবে পরিবেশ বিষয়ে। পর্যটন আইন মেনে চলতে হবে। ময়লা-আবর্জনা যত্রতত্র ফেলা যাবে না। স্থায়ী আবাসন কমাতে হবে। থাকার ব্যবস্থা বন্ধ করতে পারলে সবচেয়ে ভাল। পর্যটন পুলিশের সংখ্যা, বুথ ও নজরদারি বাড়াতে হবে। জীববৈচিত্র্য রক্ষায় কার্যকর ব্যবস্থা গ্রহণ করতে হবে।


আরও খবর