আজঃ সোমবার ২৬ ফেব্রুয়ারী ২০২৪
শিরোনাম

তালতলীতে তিন কেজি গাঁজাসহ বাবা-ছেলে গ্রেপ্তার

প্রকাশিত:বুধবার ২৯ নভেম্বর ২০২৩ | হালনাগাদ:বুধবার ২৯ নভেম্বর ২০২৩ | অনলাইন সংস্করণ
Image

তালতলী (বরগুনা) প্রতিনিধি:

বরগুনার তালতলীতে ৩ কেজি ৩০০ গ্রাম গাঁজাসহ মাদক কারবারি বাবা-ছেলেকে গ্রেপ্তার করেছে গোয়েন্দা পুলিশ (ডিবি)। বুধবার (২৯ নভেম্বর) সকাল ৬টার দিকে উপজেলার নলবুনিয়া এলাকায় অভিযান চালিয়ে তাদের গ্রেপ্তার করা হয়।

আটকৃতরা হলেন, হেমায়েত হোসেন হিমু (৫০) ও তার ছেলে সোহান হোসেন (২৬)। পুলিশ সূত্রে জানা যায়, উপজেলার শারিকখালী ইউনিয়নের নলবুনিয়া এলাকায় গাঁজা বিক্রি হবে এমন একটি গোপন সংবাদ পেয়ে ডিবি পুলিশ অভিযান চালায়। এসময় দুই লাখ ৩১ হাজার টাকা মূল্যের ৩ কেজি ৩০০ গ্রাম গাঁজাসহ বাবা ও ছেলেকে আটক করা হয়েছে। এ সময় তাদের কাছ থেকে গাঁজা মাপার দুইটি মিটার, নগদ ৮৮ হাজার টাকা ও ২টি মোবাইল জব্দ করা হয়। গ্রেপ্তারকৃতদের তালতলী থানায় হস্তান্তর করেছে ডিবি। এর আগেও তাদের গাঁজাসহ আটক করেছিল ডিবি পুলিশ। এদিকে কাগজপত্র ঠিক থাকায় মাদক কারবারি সোহানের জব্দ করা মোটরসাইকেলটি ছেড়ে দেওয়া হয়েছে।

তালতলী থানার অফিসার ইনচার্জ মো.শহিদুল ইসলাম খান বলেন, গাঁজাসহ দুইজনকে আটক করা হয়েছে। তারা দীর্ঘদিন ধরে মাদক ব্যবসার সঙ্গে জড়িত রয়েছেন। এ ঘটনায় তাদের বিরুদ্ধে ডিবি বাদী হয়ে থানায় মাদকদ্রব্য নিয়ন্ত্রণ আইনে মামলা দায়ের করেছে।


আরও খবর



‘ডন থ্রি’-তে রণবীরের বিপরীতে কিয়ারা

প্রকাশিত:মঙ্গলবার ২০ ফেব্রুয়ারী ২০24 | হালনাগাদ:মঙ্গলবার ২০ ফেব্রুয়ারী ২০24 | অনলাইন সংস্করণ
বিনোদন ডেস্ক

Image

অবশেষে অপেক্ষার অবসান ঘটিয়ে ডন ফ্র্যাঞ্চাইজির তৃতীয় কিস্তি নির্মাণ করছেন পরিচালক ফারহান আখতার। তবে নতুন কিস্তিতে থাকছেন না শাহরুখ খান ও প্রিয়াঙ্কা চোপড়া। এরই মধ্যে সিনেমাটিতে যুক্ত হয়েছেন রণবীর সিং। এবার যুক্ত হলেন কিয়ারা আদভানি। এক্সে (টুইটার) একটি ভিডিও পোস্ট করে এ ঘোষণা দিয়েছেন ফারহান আখতার।

কিয়ারা আদভানি এ তথ্য নিশ্চিত করে এক্সে একটি পোস্ট দিয়েছেন। এ অভিনেত্রী তাতে লেখেন, আইকনিক ডন ফ্র্যাঞ্চাইজির অংশ হতে পেরে এবং চমৎকার একটি দলের সঙ্গে কাজের সুযোগ পেয়ে আমি রোমাঞ্চিত। উত্তেজনাপূর্ণ এই যাত্রা শুরু করার আগে আপনাদের ভালোবাসা ও সমর্থন প্রত্যাশা করছি। অন্যদিকে ফারহান আখতার একটি ভিডিও পোস্ট করে কিয়ারাকে স্বাগত জানিয়েছেন।

কিয়ারা আদভানি ডন সিনেমায় কোন চরিত্রে অভিনয় করবেন, সে বিষয়ে কিছু জানাননি। ইন্ডিয়া টুডে জানিয়েছে, সিনেমাটির প্রধান নারী চরিত্রে অভিনয় করবেন কিয়ারা। অর্থাৎ রণবীর সিংয়ের বিপরীতে দেখা যাবে এই অভিনেত্রীকে।

ডন ফ্র্যাঞ্চাইজির প্রথম সিনেমা মুক্তি পায় ২০০৬ সালে। এরপর ৫ বছরের বিরতি নিয়ে মুক্তি পায় ডন-টু। দুটিতেই কেন্দ্রীয় চরিত্রে অভিনয় করেন শাহরুখ খান। ডন ফ্র্যাঞ্চাইজির প্রযোজনায় ছিল ফারহান আখতার ও রিতেশ সিধওয়ানির প্রযোজনা প্রতিষ্ঠান এক্সেল এন্টারটেইনমেন্ট। বরাবরের মতো এক্সেল এন্টারটেইনমেন্টের ব্যানারে নির্মিত হচ্ছে ডন থ্রি


আরও খবর
ভারতীয় পরিচালক কুমার সাহানি আর নেই

রবিবার ২৫ ফেব্রুয়ারী ২০২৪




ইউনাইটেডে আয়ানের মৃত্যু: হাইকোর্টে তদন্ত প্রতিবেদন

প্রকাশিত:রবিবার ২৮ জানুয়ারী ২০২৪ | হালনাগাদ:রবিবার ২৮ জানুয়ারী ২০২৪ | অনলাইন সংস্করণ
আদালত প্রতিবেদক

Image

ইউনাইটেড মেডিকেল কলেজে শিশু আয়ানের মৃত্যুর ঘটনায় হাইকোর্টে তদন্ত প্রতিবেদন জমা দিয়েছে স্বাস্থ্য অধিদপ্তর। সংস্থাটির মহাপরিচালকের পক্ষে উপ-পরিচালক (আইন) ডা. পরিমল কুমার পাল ১৫ পৃষ্ঠার এই তদন্ত প্রতিবেদন জমা দেন।

রোববার (২৮ জানুয়ারি) হাইকোর্টের বিচারপতি মোস্তফা জামান ইসলাম ও বিচারপতি মো. আতাবুল্লার সমন্বয়ে গঠিত বেঞ্চে শুনানি হতে পারে।

আয়ানের মৃত্যুর ঘটনায় তার পরিবারকে পাঁচ কোটি টাকা ক্ষতিপূরণ দিতে কেন নির্দেশ দেওয়া হবে না, তা জানতে চেয়ে জারি করা রুলের শুনানি হতে পারে আজ। একই সঙ্গে আয়ানের মৃত্যুর ঘটনা অনুসন্ধানের নির্দেশনার বিষয়ে হাইকোর্টে শুনানির কথা রয়েছে।

গত বৃহস্পতিবার হাইকোর্টের সংশ্লিষ্ট একই বেঞ্চে বিষয়টি শুনানির জন্য ছিল। সেদিন স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয় তদন্তের কোনো অগ্রগতি প্রতিবেদন হাইকোর্টে জমা না দেওয়ায় এ বিষয়ে শুনানি হয়নি। আদালত তদন্ত প্রতিবেদন জমা ও আদেশের জন্য ২৮ জানুয়ারি নতুন দিন ঠিক করেন।

এর আগে, চিকিৎসায় গুরুতর অবহেলায় আয়ানের মৃত্যুতে হাসপাতাল কর্তৃপক্ষের কাছ থেকে শিশুটির পরিবারকে পাঁচ কোটি টাকা ক্ষতিপূরণ দিতে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নিতে কেন নির্দেশ দেওয়া হবে না, তা জানতে চেয়ে রুল জারি করেছিলেন হাইকোর্ট। এছাড়া হাসপাতালে সুন্নতে খতনা করে এক সপ্তাহ ধরে চিকিৎসাধীন থাকার পর পাঁচ বছরের শিশু আয়ানের মৃত্যুর ঘটনা কীভাবে, কোন কারণে ঘটেছে তা যথাযথ অনুসন্ধানের নির্দেশ দেন হাইকোর্ট। এক সপ্তাহের মধ্যে এ বিষয়ে স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের মহাপরিচালককে (ডিজি) প্রতিবেদন দিতে বলা হয়। মৃত্যুর ঘটনায় চিকিৎসকদের অবহেলা পেলে ব্যবস্থা নিতেও বলেন হাইকোর্ট।

শিশুর বাবা শামীম আহমেদের করা রিট আবেদনের প্রাথমিক শুনানি নিয়ে গত ১৫ জানুয়ারি হাইকোর্টের বিচারপতি মোস্তফা জামান ইসলাম ও বিচারপতি মো. আতাবুল্লার সমন্বয়ে গঠিত বেঞ্চ এই আদেশ দেন।

আদালতে সেদিন রিটের পক্ষে শুনানিতে রিটকারী আইনজীবী এ বি এম শাহজাহান আকন্দ মাসুম নিজেই শুনানি করেন। শুনানিতে রাষ্ট্রপক্ষে ছিলেন ডেপুটি অ্যাটর্নি জেনারেল তুষার কান্তি রায়। এ সময় শিশুটির বাবা আদালতে উপস্থিত ছিলেন।

এরও আগে জনস্বার্থে স্বপ্রণোদিত হয়ে ৯ জানুয়ারি হাইকোর্টের সংশ্লিষ্ট শাখায় এ বি এম শাহজাহান আকন্দ মাসুম রিটটি দায়ের করেন।

লাইফ সাপোর্ট থেকে ফিরল না আয়ান: খতনা করাতে গিয়ে মৃত্যু শিরোনামে ৮ জানুয়ারি একটি দৈনিকে প্রতিবেদন প্রকাশ করা হয়। এছাড়াও ঘটনা নিয়ে বিভিন্ন গণমাধ্যমে আসা প্রতিবেদন যুক্ত করে প্রয়োজনীয় নির্দেশনা চেয়ে সুপ্রিম কোর্টের আইনজীবী এ বি এম শাহজাহান আকন্দ মাসুম ৯ জানুয়ারি হাইকোর্টে রিট করেন। পরে রিটে আবেদনকারী হিসেবে যুক্ত হন শিশুটির বাবা শামীম আহমেদ। পাশাপাশি হাসপাতালের লাইসেন্স বাতিল ও নতুন রোগী ভর্তি না করাতে নির্দেশনা চেয়ে সম্পূরক আবেদন করে রিটকারীপক্ষ। ওই আবেদনের শুনানি নিয়ে আদালত রুলসহ আদেশ দেন।

তারই ধারাবাহিকতায় গত বৃহস্পতিবার এ বিষয়ে শুনানি অনুষ্ঠিত হওয়ার কথা থাকলেও সেটি পিছিয়ে আজকের দিন ঠিক করেছেন আদালত।


আরও খবর



তুমব্রু সীমান্তের বিজিবি ক্যাম্পে মিয়ানমারের ৬৬ সীমান্তরক্ষী

প্রকাশিত:রবিবার ০৪ ফেব্রুয়ারী ২০২৪ | হালনাগাদ:রবিবার ০৪ ফেব্রুয়ারী ২০২৪ | অনলাইন সংস্করণ
বান্দরবান প্রতিনিধি

Image

মিয়ানমারের সীমান্তরক্ষী বাহিনী বর্ডার গার্ড পুলিশের (বিজিপি) ১০ জন গুলিবিদ্ধসহ ৬৬ সদস্য পালিয়ে বান্দরবানে আশ্রয় নিয়েছে। দেশটির বিদ্রোহী দল আরাকান আর্মির সঙ্গে সংঘর্ষের মধ্যে সীমান্ত পেরিয়ে ঘুমধুম ইউনিয়নের তুমব্রুতে অবস্থিত বর্ডার গার্ড বাংলাদেশের (বিজিবি) ফাঁড়িতে আশ্রয় নেন তারা। তাদের অস্ত্র ও গুলি বিজিবির হেফাজতে আছে।

রোববার (৪ ফেব্রুয়ারি) এই রিপোর্ট লেখা পর্যন্ত সীমান্তের ওপারে চলছে মুহুর্মুহু মর্টার শেল ও গুলিবর্ষণ। এতে সীমান্তে থমথমে অবস্থা বিরাজ করছে। তুমব্রু সীমান্তের কাছে দুই গ্রামের প্রায় তিন হাজার বাংলাদেশি অন্যত্র আশ্রয় নিয়েছেন।

আরও পড়ুন>> মিয়ানমারের ১৪ সীমান্তরক্ষী পালিয়ে বাংলাদেশে

মিয়ানমার থেকে আসা গুলিতে তিন বাংলাদেশি আহত হয়েছেন। এদের মধ্যে একজন প্রবীর চন্দ্র ধর (৫৯)। তাৎক্ষণিক অপর দুইজনের পরিচয় পাওয়া যায়নি। রোববার সকালে বান্দরবানের নাইক্ষ্যংছড়ি তুমব্রু সীমান্তে এই ঘটনা ঘটে। এর আগে ভোরে তুমব্রু কোনার পাড়ায় একটি বসতঘরে মর্টারশেল এসে পড়ে।

বান্দরবান জেলা প্রশাসক শাহ্ মোজাহিদ উদ্দিন বলেন, শনিবার রাত থেকে হঠাৎ গোলাগুলি বেড়ে যায়। সেই পরিপ্রেক্ষিতে নিরাপত্তার বিষয়টি চিন্তা করে ঘুমধুম ও তুমব্রু সীমান্তের কাছে পাঁচটি প্রাথমিক বিদ্যালয় বন্ধ ঘোষণা করা হয়েছে। বন্ধ হওয়া বিদ্যালয়গুলো হলো- বাইশফাড়ী সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়, ভাজাবনিয়া সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়, তুমব্রু সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়, তুমব্রু পশ্চিমকুল সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় ও দক্ষিণ ঘুমধুম সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়।


আরও খবর



মিয়ানমার সংঘাত : গুলিবিদ্ধ রোহিঙ্গা নারী নৌকায় চেপে বাংলাদেশে

প্রকাশিত:শনিবার ১৭ ফেব্রুয়ারী ২০২৪ | হালনাগাদ:শনিবার ১৭ ফেব্রুয়ারী ২০২৪ | অনলাইন সংস্করণ
কক্সবাজার প্রতিনিধি

Image

মিয়ানমারের রাখাইন রাজ্যে সশস্ত্র বাহিনী ও আরাকান আর্মির মধ্যে সংঘর্ষে গুলিবিদ্ধ হয়ে এক রোহিঙ্গা নারীসহ নৌকায় চেপে বাংলাদেশে ঢুকেছেন পাঁচজন। শনিবার (১৭ ফেব্রুয়ারি) বিকেল ৫টার দিকে তারা টেকনাফের শাহপরীর দ্বীপ জেটিতে পৌঁছান।

শাহপরীর দ্বীপের স্থানীয় বাসিন্দা মো. মাসুদ মির্জা বলেন, বিকেলে মিয়ানমারের দিক থেকে একটি নৌকা শাহপরীর দ্বীপ জেটিতে পৌঁছায়। সেখানে নৌকার মাঝিসহ পাঁচজন ছিলেন। তাদের মধ্যে একজন নারী গুলিবিদ্ধ রয়েছেন। শুনেছি তারা নাকি চিকিৎসার জন্য এসেছেন।

শাহপরীর দ্বীপ জেটিতে মাছ ধরতে যাওয়া স্থানীয় এক যুবক বলেন, আমরা জেটিতে বড়শি দিয়ে মাছ ধরছিলাম। এমন সময় একটি নৌকা জেটিতে পৌঁছায়। নৌকায় একজনকে শুইয়ে রাখা হয়েছে। শুনেছি তিনি গুলিবিদ্ধ রোহিঙ্গা নারী। পরে বিজিবি সেখানে পৌঁছে নৌকাটি ঘিরে রাখে।

সাবরাং ইউনিয়ন পরিষদের (ইউপি) ৯ নম্বর ওয়ার্ডের সদস্য আবদুস সালাম বলেন, শুনেছি মিয়ানমারের রাখাইন রাজ্যে আরাকান আর্মি ও সশস্ত্র বাহিনীর যুদ্ধের ঘটনায় গুলিবিদ্ধ হয়ে তারা এখানে চিকিৎসা নিতে এসেছেন।

এ বিষয়ে বর্ডার গার্ড বাংলাদেশের (বিজিবি) ঊর্ধ্বতন কারও বক্তব্য পাওয়া যায়নি। তবে ঘটনাস্থলে থাকা আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর সদস্যরা জানিয়েছেন, রহিঙ্গাদের নৌকাটি ফেরত পাঠানো হবে।


আরও খবর



রাফাহ শরণার্থী শিবিরে ইসরাইলি হামলা, নিহত ৩৭

প্রকাশিত:সোমবার ১২ ফেব্রুয়ারী ২০২৪ | হালনাগাদ:সোমবার ১২ ফেব্রুয়ারী ২০২৪ | অনলাইন সংস্করণ
আন্তর্জাতিক ডেস্ক

Image

ফিলিস্তিনের অবরুদ্ধ গাজা উপত্যকার দক্ষিণাঞ্চলীয় রাফাহ শহরে ইসরায়েলি হামলায় ৩৭ জন নিহত হয়েছেন। এ ঘটনায় আহত হয়েছেন আরও কয়েক ডজন মানুষ। সোমবার (১২) জানুয়ারি স্থানীয় স্বাস্থ্য কর্মকর্তারা এই তথ্য জানিয়েছেন। ব্রিটিশ বার্তা সংস্থা রয়টার্স এই খবর জানিয়েছে।

হামলার ঘটনাটি এমন সময় ঘটলো যখন মার্কিন প্রেসিডেন্ট জো বাইডেন ইসরায়েলি কর্তৃপক্ষকে বেসামরিক নাগরিকদের সুরক্ষায় একটি বিশ্বাসযোগ্য পরিকল্পনা ছাড়া রাফাহ আক্রমণ করতে নিষেধ করেছিলেন।

একটি চ্যাট অ্যাপ ব্যবহার করে রাফাহ শহরের বাসিন্দাদের সঙ্গে যোগাযোগ করেছে রয়টার্স। তারা বার্তা সংস্থাটিকে জানিয়েছেন, হামলা যখন শুরু হয় তখন অনেক মানুষ ঘুমিয়ে ছিলেন। ফলে শহরটিতে ব্যাপক আতঙ্ক ছড়িয়ে পড়ে। তাদের মধ্যে কিছু মানুষের আশঙ্কা ছিল ইসরায়েল রাফাতে স্থল হামলা শুরু করেছে।

ইসরায়েলি বিমান, ট্যাংক এবং জাহাজ ব্যবহার করে এই হামলাটি চালানো হয়েছে। বাসিন্দারা জানিয়েছেন, দুটি মসজিদ এবং বেশ কয়েকটি বাড়িতে বোমা হামলা হয়েছে।

সোমবার দক্ষিণ গাজায় একটি সিরিজ হামলা পরিচালনা করার কথা জানিয়েছে ইসরায়েলি সামরিক বাহিনী। যেটি এখন সমাপ্ত হয়েছে। তবে এ ব্যাপারে আরও বিস্তারিত কিছু জানায়নি তারা।

গাজা শহরগুলোতে পূর্ববর্তী হামলার আগে, বেসামরিক নাগরিকদের উচ্ছেদে কোনও সুনির্দিষ্ট পরিকল্পনা না করেই তাদের সরে যাওয়ার নির্দেশ দিয়েছিল ইসরায়েলের সামরিক বাহিনী।

নেতানিয়াহুর কার্যালয় জানিয়েছে, সেনাবাহিনীকে তারা রাফাহ খালি করার এবং সেখানে মোতায়েন করা চারটি হামাস ব্যাটালিয়ন ধ্বংস করার পরিকল্পনা তৈরির নির্দেশ দিয়েছে।

ইসরায়েলি কর্তৃপক্ষের মতে, ফিলিস্তিনের সশস্ত্রে গোষ্ঠী হামাসের যোদ্ধারা ৭ অক্টোবর দক্ষিণ ইসরায়েলে এক হাজার ২০০ ইসরায়েলিকে হত্যা করেছে। এসময় কমপক্ষে ২৫০ জনকে জিম্মি করে নিয়ে যায় সশস্ত্র যোদ্ধারা।

হামাস পরিচালিত স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়ের মতে, গাজা উপত্যকায় ইসরায়েলি হামলায় এখন পর্যন্ত ২৮ হাজারেরও বেশি  ফিলিস্তিনি নিহত হয়েছে।


আরও খবর