আজঃ বৃহস্পতিবার ১৩ জুন ২০২৪
শিরোনাম

স্বরূপকাঠিতে সংবাদ প্রকাশের পর গোডাউন থেকে সেই কম্বল ও চাল উধাও

প্রকাশিত:মঙ্গলবার ২৫ মে ২০২১ | হালনাগাদ:মঙ্গলবার ২৫ মে ২০২১ | অনলাইন সংস্করণ
হযরত আলী হিরু, স্বরূপকাঠি

Image

অবশেষে সংবাদ প্রকাশের পর পিরোজপুরের স্বরূপকাঠির বলদিয়া ইউনিয়ন পরিষদের গোডাউনে পড়ে থাকা শীতের কম্বল ও বিজিডি, ভিজিএফর চাল উধাও হয়ে গেছে। গত ২৩ ও ২৪ মে দৈনিক আজকের দর্পণ সহ কয়েকটি সংবাদ মাধ্যমে বলদিয়া ইউপি চেয়ারম্যানের বিরুদ্ধে সরকারের ভাবমূর্তি ক্ষুন্ন করার লক্ষে কম্বল ও চাল বিতরণ না করে গোডাউনে ফেলে রাখার অভিযোগে সংবাদ প্রকাশিত হয়। ওই সংবাদ প্রকাশিত হওয়ার পরে গত ২৪ মে উপজেলা প্রকল্প বাস্তবায়ন কর্মকর্তা মানস কুমার দাস ওই ইউনিয়ন পরিষদে তদন্তে গিয়ে গোডাউনে ওই কম্বল ও চাল পাননি। তদন্তে আসার সংবাদ শুনে নিজেদের দোষ ঢাকতে ইউপি চেয়ারম্যান ও সচিব মিলে ওই চাল সরিয়েছেন বলে অভিযোগ করেছেন ওই ইউনিয়নের ৮ জন ইউপি সদস্য। এমনকি ওই ইউপি সদস্যরা চেয়ারম্যান ও সচিবের বিরুদ্ধে কম্বল ও চাল আত্মসাতের অভিযোগ এনে জেলা প্রশাসক ও ইউএনওর কাছে লিখিত অভিযোগ দিয়েছেন।

ইউপি সচিব চাঁদ নারায়ন চক্রবর্তীর সাথে কথা বলে বিষয়টি জানার চেষ্টা করলে তিনি বলেন, কম্বলগুলো মাষ্টাররোল করে ২৩ মে বিতরণ করে দেয়া হয়েছে। চাল বিতরণ অব্যহত আছে। শীতের কম্বল গরমে কেন বিতরণ হল এ প্রশ্নের জবাব এড়িয়ে যান তিনি।

এসব বিষয়ে ইউপি চেয়ারম্যান মো. শাহীন আহম্মেদের সাথে মোবাইল ফোনে কথা বললে তিনি বলেন, কম্বল বা চাল আত্মসাতের মত লোক আমি নই। সরকার কর্তৃক যখনই যে বরাদ্দ আসে আমি এলাকায় না থাকলেও সচিবকে ইউপি সদস্যদের নিয়ে বিতরণের জন্য আমার বলা আছে। তারা যদি বিতরণে কোন গাফেলতি করে থাকে তবে সে দায়ভার আমার না। 

এ বিষয়ে উপজেলা প্রকল্প বাস্তবায়ন কর্মকর্তা মানস কুমার দাসের সাথে কথা বললে তিনি বলেন, ঘটনার তদন্তে ওই ইউনিয়ন পরিষদে গিয়ে গোডাউনে আশিংক চাল পাওয়া গেলেও কম্বল পাওয়া যায়নি। তদন্ত শেষে রিপোর্ট উর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষের কাছে প্রেরণ করা হবে।

এ বিষয়ে উপজেলা নির্বাহী অফিসার মো. মোশারেফ হোসেন বলেন, পত্রিকায় প্রকাশিত সংবাদ দেখে ওই ইউনিয়নে উপজেলা প্রকল্প বাস্তবায়ন কর্মকর্তা দিয়ে তদন্ত করানো হয়েছে। তদন্তে পাওয়া তথ্যনুযায়ী উর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষের কাছে রিপোর্ট প্রেরণ করার কাজ চলছে।

উল্লেখ্য গত ২০ মে উপজেলার বলদিয়া ইউনিয়ন পরিষদে গেয়ে দেখা যায় পরিষদের আদালত নামের কক্ষে শীতের কম্বল ও বিজিডি, ভিজিএফর চাল বিতরণ না করে ফেলে রাখা হয়েছে। চালগুলো নষ্ট হয়ে পোকা ও ইদুরের খাদ্যে পরিনত হয়েছে। গোডাউনে অকার্যকর ভাবে ফেলে রাখা হয়েছে জাইকা প্রকল্প থেকে দেয়া মিনি এ্যাম্বুলেন্স। রমজানের ঈদের জন্য বরাদ্দ করা টাকা ঈদের পর বিতরণ করা হয়েছে। আম্ফানের বন্যার সময়ের জি আর প্রকল্পের ৪০০ কেজি চাল গোডাউন থেকে তোলা হয়নি আজও। এ সংক্রান্ত সংবাদ প্রকাশের পর দায় এডাতে গোডাউন থেকে কম্বল ও চাল সরিয়ে ফেলা হয়েছে।


আরও খবর



চবিতে বিশ্ব পরিবেশ দিবস পালিত

প্রকাশিত:বুধবার ০৫ জুন ২০২৪ | হালনাগাদ:বুধবার ০৫ জুন ২০২৪ | অনলাইন সংস্করণ
রাহুল সরকার, চট্টগ্রাম ব্যুরো

Image

করবো ভূমি পুনরুদ্ধার, রুখবো মরুময়তা, অর্জন করতে হবে মোদের খরা সহনশীলতা এ প্রতিপাদ্যকে ধারণ করে বিশ্ব পরিবেশ দিবস ২০২৪ উপলক্ষ্যে চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয় বনবিদ্যা ও পরিবেশ বিজ্ঞান ইনস্টিটিউটের উদ্যোগে বুধবার দিনব্যাপি কর্মসূচি পালন করা হয়েছে। অনুষ্ঠিত এক সেমিনারে প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত থেকে বক্তব্য রাখেন চবি উপ-উপাচার্য (প্রশাসন) প্রফেসর ড. মোঃ সেকান্দর চৌধুরী।

অনুষ্ঠানে বিশেষ অতিথি হিসেবে বক্তব্য রাখেন চবি উপ-উপাচার্য (একাডেমিক) প্রফেসর বেনু কুমার দে ও আল-আরাফাহ ইসলামী ব্যাংকের সিনিয়র ভাইস প্রেসিডেন্ট সালামত উল্লাহ। সেমিনারে মূল প্রবন্ধ উপস্থাপন করেন উক্ত ইনস্টিটিউটের প্রফেসর ড. খালেদ মিসবাহুজ্জামান।

চবি বনবিদ্যা ও পরিবেশ বিজ্ঞান ইনস্টিটিউটের পরিচালক প্রফেসর ড. মোঃ আকতার হোসেন এর সভাপতিত্বে অনুষ্ঠানে স্বাগত বক্তব্য প্রদান করেন উক্ত ইনস্টিটিউটের প্রফেসর ড. মোহাম্মদ জসীমউদ্দিন। সেমিনারের উপর আলোচনায় অংশগ্রহণ করেন বনবিদ্যা ও পরিবেশ বিজ্ঞান ইনস্টিটিউটের প্রফেসর ড. মোহাম্মদ সফিউল আলম। অনুষ্ঠান সঞ্চালনা করেন উক্ত ইনস্টিটিউটের শিক্ষার্থী কিশোয়ার জাহান চৌধুরী।

প্রফেসর ড. মোঃ সেকান্দর চৌধুরী বলেন, পরিবেশের গুরুত্ব অনুধাবন করে চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয় বনবিদ্যা ও পরিবেশ বিজ্ঞান ইনস্টিটিউট প্রতিষ্ঠা করেছে। যা এতদ্অঞ্চল তথা দেশের পরিবেশ সুরক্ষায় অবদান রেখে চলেছে। পরিবেশ সুরক্ষার অন্যতম উপাদান হলো ভুমি, বৃক্ষ ও জীববৈচিত্র। ভবিষ্যৎ প্রজন্মের জন্য বাসযোগ্য ধরীত্রি সুন্দর ও সুরক্ষিত রাখতে এবং জলবায়ু পরিবর্তনের বিরূপ প্রভাব থেকে মুক্ত রাখতে সবাইকে সচেতন হতে হবে।

তিনি আরও বলেন, পরিবেশের ভারসাম্য রক্ষায় বৃক্ষ রোপনের কোন বিকল্প নেই। তাই পরিবেশ সুরক্ষায় প্রচুর বৃক্ষ রোপনের পাশপাশি পরিবেশ বিধ্বংশী যে কোন কর্মকান্ডের বিরুদ্ধে সকলকে সোচ্চার হতে হবে।

তিনি এই ধরীত্রি সুরক্ষায় সকলকে সম্মিলিতভাবে কাজ করার আহবান জানান।

ইনস্টিটিউটের শিক্ষক, শিক্ষার্থী, কর্মকর্তা-কর্মচারীদের উদ্যোগে এক বর্ণাঢ্য র‌্যালি এবং চবি ঝুলন্ত সেতুর কাছে বৃক্ষ রোপন কর্মসূচি উদ্বোধন করেন চবি উপ-উপাচার্য (প্রশাসন) প্রফেসর ড. মোঃ সেকান্দর চৌধুরী

এসময় উপ-উপাচার্য (একাডেমিক) প্রফেসর বেনু কুমার দে, চবি বিজ্ঞান অনুষদের ডিন প্রফেসর ড. মোহাম্মদ নাসিম হাসান, আল-আরাফাহ ইসলামী ব্যাংকের সিনিয়র ভাইস প্রেসিডেন্ট সালামত উল্লাহ সহ উক্ত ইনস্টিটিউটের সম্মানিত শিক্ষক, শিক্ষার্থী, কর্মকর্তা-কর্মচারী, সাংবাদিকবৃন্দ এবং সংশ্লিষ্ট ব্যক্তিবর্গ উপস্থিত ছিলেন।


আরও খবর



মোংলা ও পায়রায় ৭ নম্বর বিপৎসংকেত

প্রকাশিত:শনিবার ২৫ মে ২০২৪ | হালনাগাদ:শনিবার ২৫ মে ২০২৪ | অনলাইন সংস্করণ
দর্পণ নিউজ ডেস্ক

Image

বঙ্গোপসাগরে অবস্থানরত গভীর নিম্নচাপটি শনিবার রাতে ঘূর্ণিঝড়ে রূপ নিয়েছে। ঝুঁকি বিবেচনায় পায়রা ও মোংলা সমুদ্রবন্দরকে ৭ নম্বর বিপৎসংকেত এবং চট্টগ্রাম সমুদ্রবন্দর ও কক্সবাজারকে ৬ নম্বর বিপৎসংকেত দেখাতে বলেছে আবহাওয়া অধিদপ্তর।

আবহাওয়া অধিদপ্তরের আবহাওয়াবিদ মুহাম্মদ আবুল কালাম মল্লিক আজ শনিবার রাতে গণমাধ্যমকে এই তথ্য নিশ্চিত করেছেন।

তিনি জানান, ঘূর্ণিঝড় রিমালের প্রভাবে এরই মধ্যে উপকূলের কিছু জায়গায় বৃষ্টিপাত শুরু হয়েছে।

ঢাকার দিকেও মেঘ চলে এসেছে। আগামীকাল (রবিবার) দুপুরের পর থেকে উপকূলীয় অঞ্চলে রিমালের প্রভাব শুরু হবে। ঝুঁকি বিবেচনায় পায়রা ও মোংলা সমুদ্রবন্দরকে ৭ নম্বর বিপৎসংকেত এবং চট্টগ্রাম সমুদ্রবন্দর ও কক্সবাজারকে ৬ নম্বর বিপৎসংকেত দেখাতে বলেছে আবহাওয়া অধিদপ্তর।

এদিকে শনিবার (২৫ মে) রাত ৭টা ১০ মিনিটের পর এটি ঘূর্ণিঝড়ে রূপ নেয় বলে জানিয়েছে বাংলাদেশ ওয়েদার অবজারভেশন টিম (বিডব্লিউওটি)।

আবহাওয়া অধিদপ্তর বলছে, রিমালের প্রভাবে সারা দেশেই ভারী থেকে অতিভারী বৃষ্টিপাত হবে। ২৪ ঘণ্টায় ৩০০ মিলিমিটার পর্যন্ত বৃষ্টির সম্ভাবনা রয়েছে। এতে ভূমিধসের সতর্কবার্তা দেওয়া হবে। উপকূলের খুলনা, যশোর, সাতক্ষীরা,পটুয়াখালী, নোয়াখালী, ভোলা, বরিশালএসব জেলায় রিমালের সরাসরি প্রভাব থাকবে। এ ছাড়া কুষ্টিয়া, ফেনী, কুমিল্লা, লক্ষ্মীপুর, চট্টগ্রাম, কক্সবাজার- এসব জেলায় বৃষ্টিপাত থাকবে।


আরও খবর



বাংলাদেশ পানি উন্নয়ন বোর্ডের মতবিনিময় কর্মশালা অনুষ্ঠিত

প্রকাশিত:সোমবার ১০ জুন ২০২৪ | হালনাগাদ:সোমবার ১০ জুন ২০২৪ | অনলাইন সংস্করণ
প্রেস বিজ্ঞপ্তি

Image

বাংলাদেশ পানি উন্নয়ন বোর্ড, ইনস্টিটিউট অফ ওয়াটার মডেলিং এবং সেন্টার ফর এনভায়রনমেন্টাল এন্ড জিওগ্রাফিক ইনফরমেশন সার্ভিসেস এর যৌথ উদ্যোগে ১০ জুন গ্রীনরোডস্থ পানিভবনের মাল্টিপারপাস হলরুমে  নোয়াখালীর হাতিয়া উপজেলার সমন্বিত পানি সম্পদ ব্যবস্থাপনা’ শীর্ষক এক  মতবিনিময় কর্মশালা অনুষ্ঠিত হয়েছে।

অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন পানি সম্পদ মন্ত্রণালয়ের সচিব নাজমুল আহসান। কর্মশালায় সভাপতিত্ব করেন বাংলাদেশ পানি উন্নয়ন বোর্ডের মহাপরিচালক প্রকৌশলী মুহাম্মদ আমিরুল হক ভূঞা । অনুষ্ঠানে বিশেষ অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন যথাক্রমে পানি সম্পদ মন্ত্রণালয়ের অতিরিক্ত সচিব ড. আ. ন. ম. বজলুর রশীদ, বাংলাদেশ পানি উন্নয়ন বোর্ডের অতিরিক্ত মহাপরিচালক (পশ্চিম রিজিয়ন) প্রকৌশলী এ,কে,এম তাহমিদুল ইসলাম, অতিরিক্ত মহাপরিচালক (পূর্ব রিজিয়ন) প্রকৌশলী মোঃ এনায়েত উল্লাহ, অতিরিক্ত মহাপরিচালক (পরিকল্পনা, নকশা ও গবেষণা) প্রকৌশলী মোঃ জহিরুল ইসলাম। কর্মশালায় প্রকল্প পরিচালক এ,কে,এম, সাইফুদ্দিন স্বাগত বক্তব্য রাখেন। প্রধান অতিথির বক্তৃতায় পানি সম্পদ সচিব বলেন প্রকল্পটি বাস্তবায়িত হলে হাতিয়ায় সাইক্লোন, জলোচ্ছ্বাস, নদী ভাঙ্গনসহ প্রাকৃতিক দূর্যোগ মোকাবিলা  করা সম্ভব হবে। উক্ত কর্মশালায় মন্ত্রণালয় এবং বাংলাদেশ পানি উন্নয়ন বোর্ডসহ সংশ্লিষ্ট সংস্থাসমূহের উধ্বর্তন কর্মকর্তাগণ উপস্থিত ছিলেন।


আরও খবর



মেহেরপুর ক্লিনিক মালিকে এক বছর কারাদণ্ড

প্রকাশিত:মঙ্গলবার ১১ জুন ২০২৪ | হালনাগাদ:মঙ্গলবার ১১ জুন ২০২৪ | অনলাইন সংস্করণ
আব্দুল আলিম, মেহেরপুর

Image

মেহেরপুরের গাংনীর বামন্দী বাজারের করবী ক্লিনিকের স্বত্তাধিকারী জাহিদুল ইসলাম বিদ্যুতকে এক বছর বিনাশ্রম কারাদণ্ড ও ৫০ হাজার টাকা জরিমানা আদায় করেছেন ভ্রাম্যমাণ আদালত।

আজ বিকেলে ভ্রাম্যমাণ আদালতের নির্বাহী হাকিম ও গাংনী উপজেলা সহকারী কমিশনার (ভূমি) নাদির হোসেন শামিম এ দণ্ড প্রদান করেন। দণ্ডিতকে কারাগারে প্রেরণ করা হয়েছে।

জানা গেছে, উপজেলা হাড়াভঙ্গা গ্রামের আরিফুল ইসলাম তার স্ত্রীকে ডেলিভারির জন্য ওই ক্লিনিকে নিয়ে আসেন। ক্লিনিক কতৃর্পক্ষ ডাক্তার না থাকা স্বত্ত্বেও রোগিকে বিভিন্ন তালবাহানা করে ভর্তি রাখে। এতে গর্ভের সন্তান মারা যায়। দুপুরে করবী ক্লিনিকে চিকিৎসক এসে সিজারিয়ানের পর ওই নারী মৃত সন্তান প্রসব করে।

বিষয়টি জানার পর গাংনী উপজেলা সহকারী কমিশনার (ভূমি) নাদির হোসেন শামিম, উপজেলা স্বাস্থ্য ও পরিবার পরিকল্পনা অফিসার সুপ্রভা রাণী ঘটনাস্থলে যান। ওই দম্পতি কোন অভিযোগ না করলেও ক্লিনিকে নানা অবস্থাপনার কারণে ক্লিনিক মালিক জাহিদুল ইসলাম বিদ্যুতকে এক বছর কারাদণ্ড ও ৫০ হাজার টাকা জরিমানা করেন।

ভ্রাম্যমাণ আদালতের নির্বাহী হাকিম নাদির হোসেন শামিম জানান, এই ক্লিনিকের বিরুদ্ধে বিভিন্ন সময়ে বিভিন্ন ধরনের অভিযোগ পাওয়া গেছে। সে অনুযায়ি অভিযান চালানো হয়। এসময় অব্যবস্থাপনার অভিযোগের সত্যতা পাওয়া গেলে ভোক্তা অধিকার আইন ২০০৯ এর ৫২ ধারায় ক্লিনিক মালিককে উভয় দণ্ডে দণ্ডিত করা হয়।

নিউজ ট্যাগ: মেহেরপুর

আরও খবর



শিল্পী সমিতির নির্বাচন বাতিল চেয়ে নিপুণের রিট

প্রকাশিত:বুধবার ১৫ মে ২০২৪ | হালনাগাদ:বুধবার ১৫ মে ২০২৪ | অনলাইন সংস্করণ
বিনোদন ডেস্ক

Image

বাংলাদেশ চলচ্চিত্র শিল্পী সমিতির (২০২৪-২৬) মেয়াদি নির্বাচনের ফলাফল বাতিল চেয়ে নতুন নির্বাচন দাবি করে রিট করেছেন পরাজিত সাধারণ সম্পাদক প্রার্থী নিপুণ আক্তার। বুধবার বিচারপতি নাইমা হায়দার ও বিচারপতি কাজী জিনাত হকের হাইকোর্ট বেঞ্চে নিপুণের পক্ষে আইনজীবী অ্যাডভোকেট পলাশ চন্দ্র রায় এ রিট আবেদন করেন।

রিটে নির্বাচনে অনিয়ম ও কারচুপির অভিযোগ এনে এ ঘটনা তদন্তে কমিটি গঠনের পাশাপাশি নতুন করে নির্বাচনের তফসিল ঘোষণা ও মিশা-ডিপজলের নেতৃত্বাধীন কমিটির দায়িত্ব পালনে নিষেধাজ্ঞা চাওয়া হয়।

এর আগে গত ১৯ এপ্রিল বাংলাদেশ চলচ্চিত্র শিল্পী সমিতির দ্বি-বার্ষিক নির্বাচন অনুষ্ঠিত হয়। ফলাফল ঘোষণা হয় শনিবার (২০ এপ্রিল) সকালে। ফল ঘোষণা করেন প্রধান নির্বাচন কমিশনার খোরশেদ আলম খসরু। এতে নতুন সভাপতি নির্বাচিত হন জনপ্রিয় অভিনেতা এবং বিগত দুই মেয়াদের সফল সভাপতি মিশা সওদাগর এবং সাধারণ সম্পাদক পদে জয়ী হন চলচ্চিত্রের মুভি লর্ড ও দানবীর খ্যাত অভিনেতা মনোয়ার হোসেন ডিপজল।

নির্বাচনে সভাপতি মিশা সওদাগর মোট ভোট পান ২৬৫টি। অন্যদিকে মাহমুদ কলি ১৭০ ভোট পেয়ে পরাজিত হন। সাধারণ সম্পাদক নির্বাচিত ডিপজল পান ২২৫ ভোট। ১৭ ভোট কম পেয়ে পরাজিত হন নিপুণ আক্তার (২০৯)। সহ-সভাপতি পদে ২৩১ ও ২৩৪ ভোট পেয়ে জয়ী হয় মাসুম পারভেজ রুবেল ও ডি এ তায়েব। এছাড়াও সহ-সাধারণ সম্পাদক আরমান ২৩৭, সাংগঠনিক সম্পাদক জয় চৌধুরী ২৫৫, আন্তর্জাতিক বিষয়ক সম্পাদক আলেকজান্ডার বো ২৯৬, দপ্তর ও প্রচার সম্পাদক জ্যাকি আলমগীর ২৪৫, সংস্কৃতি ও ক্রীড়া সম্পাদক মামনুন হাসান ইমন ২৩৫ এবং কোষাধ্যক্ষ পদপ্রার্থী কমল ২৩১ ভোট পেয়ে নির্বাচিত হয়।

কার্যনির্বাহী সদস্য পদে মিশা-ডিপজল পরিষদ থেকে নির্বাচিত হয় ৯ জন। তারা হলেন সুচরিতা (২২৮), রোজিনা (২৪৩), আলীরাজ (২৩৯), সুব্রত, দিলারা ইয়াসমিন (২১৮), শাহনূর (২৪৫), নানা শাহ (২১০), রত্না কবির (২৬৩) ও চুন্নু (২৪৮)। কলি-নিপুণ পরিষদ থেকে রিয়ানা পারভিন পলি (২২০) ও সনি রহমান (২৩০)।


আরও খবর