আজঃ শুক্রবার ০১ মার্চ ২০২৪
শিরোনাম

স্ত্রীর যে ৪ অভ্যাসে স্বামীরা রেগে যান

প্রকাশিত:মঙ্গলবার ১৪ মার্চ ২০২৩ | হালনাগাদ:মঙ্গলবার ১৪ মার্চ ২০২৩ | অনলাইন সংস্করণ
জীবন ধারা ডেস্ক

Image

সব দম্পতিদের মধ্যেই মনোমালিন্য ও ঝগড়াঝাটি হয়। তবে কার দোষ সেটি বিবেচনা করতে গেলে আবারও অশান্তির সৃষ্টি হতে পারে। তাই স্বামী-স্ত্রী উভয়েরই নিজেদের ব্যবহার ও কথাবার্তায় সংযত ও সতর্ক থাকা উচিত। সঙ্গী ঠিক কেমন আচরণ আপনার কাছ থেকে আশা করেন তা বুঝতে হবে সব দম্পতিরই।

তবে কখনো কখনো নারীরা একটি ছোট জিনিসকে বড় করে তোলেন, যার কারণে তাদের সঙ্গী খুব বিরক্ত ও হতাশ বোধ করেন। এমন পরিস্থিতিতে আপনার স্বামী বা প্রেমিকের রাগ কিংবা বিরক্ত হওয়া স্বাভাবিক। সামান্য এ বিষয় থেকেই দেখা দিতে পারে সংসারে অশান্তি। তাই নারীদের উচিত ৪ অভ্যাস ত্যাগ করা, যার মাধ্যমে পুরুষ সঙ্গী বিরক্ত হতে বা রেগে যেতে পারেন-

অযথা দুশ্চিন্তা: নারীরা মনে মনে অনেক কিছু চিন্তা করে। আর এ কারণে তারা স্বামীকে কটূক্তি করতে পিছপা হন না। হয়তো আপনার দুশ্চিন্তা করার কারণ বৈধ ছিলো! তবুও স্বামীকে এ বিষয় নিয়ে বারবার কথা শোনালে তিনি রেগে যেতে পারেন। অনেক নারীই সঙ্গীর ভুল নিয়ে তাকে ঠাট্টা করেন, এতেও রাগতে পারেন সঙ্গী।

জোকস না বুঝে ঝগড়া: পুরুষরা বন্ধুদের সঙ্গে প্রচুর রসিকতা করতে ও হাসতে পছন্দ করেন। তবে অনেক নারী আছেন যা বুঝতে পারেন না ও মন খারাপ করেন। এর কারণ হলো বেশিরভাগ নারীই রসিকতা পছন্দ করেন না। মজার বিষয়গুলো নিজের উপর নেন ও রেগে যান। যদিও স্বামীরা চান তাদের স্ত্রীরা রসিকতা করুক ও মজার মানুষ হোক।

স্বামীর বান্ধবীকে নিয়ে কটূ কথা: কোনো স্বামী যদি তার স্ত্রীর সামনে নারী বন্ধুর প্রশংসা করেন, তখন ওই স্ত্রী হিংস্র হয়ে উঠতে পারেন। আসলে একজন নারী বরাবরই তার স্বামীকে নিয়ে নিরাপত্তাহীন বোধ করেন। ফলে স্বামীর সঙ্গে অন্য কোনো নারীকে ভাবতেও পারেন না তারা। পরবর্তী সময়ে দেখা যায় নারী বন্ধুর কথা বলে ওই পুরুষ দাম্পত্য কলহের শিকার হন। নিজের বন্ধুকে নিয়ে খারাপ বা কটূ মন্তব্য অনেক পুরুষকেই রাগিয়ে তুলতে পারে।

ব্যক্তিগত জীবন না থাকা: আজকাল সোশ্যাল মিডিয়ার যুগ, যেখানে নারীরা অনেক এগিয়ে। তিনি প্রথমে তার স্বামীকে ট্যাগ করে কোনো পোস্ট শেয়ার করেন। অন্যদিকে নারীরাও আশা করেন তার প্রিয় পুরুষ সবার সামনে ভালবাসা দেখান। যদি এটি না ঘটে তাহলে কিছু নারী এ বিষয়টি নিয়েও ঝামেলার সৃষ্টি করেন। এক প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, বেশিরভাগ পুরুষই প্রেম প্রকাশে বিশেষজ্ঞ নন। তবে নারীরা এই বিষয়ে নিরাপত্তা বোধ করেন।

নিউজ ট্যাগ: স্বামী-স্ত্রী

আরও খবর
২৯ ফেব্রুয়ারি: ইতিহাসের এই দিনে

বৃহস্পতিবার ২৯ ফেব্রুয়ারী ২০২৪

আজকের রাশিফল: বৃহস্পতিবার ২৯ ফেব্রুয়ারি ২০২৪

বৃহস্পতিবার ২৯ ফেব্রুয়ারী ২০২৪




ঢাকা আন্তর্জাতিক বাণিজ্য মেলায় বাংলাদেশ মেশিন টুলস ফ্যাক্টরীর পণ্য

প্রকাশিত:মঙ্গলবার ২০ ফেব্রুয়ারী ২০24 | হালনাগাদ:মঙ্গলবার ২০ ফেব্রুয়ারী ২০24 | অনলাইন সংস্করণ
প্রেস বিজ্ঞপ্তি

Image

বাংলাদেশ মেশিন টুলস ফ্যাক্টরী (বিএমটিএফ) লিমিটেড, গাজীপুর নিজস্ব উৎপাদিত পণ্যসমূহ নিয়ে ক্রেতাগণের মাঝে আগ্রহ সৃষ্টি এবং পণ্যসমূহ ক্রেতাদের দোর গোড়ায় পৌঁছে দেওয়ার লক্ষ্যে ঢাকা আন্তর্জাতিক বাণিজ্য মেলায় প্যাভিলিয়ন নম্বর ১৪তে বিএমটিএফ লিমিটেড এর ৮টি স্টলে ৪৩৭টি পণ্য নিয়ে অংশগ্রহণ করেছে।

বিএমটিএফ কর্তৃক উৎপাদিত কসমেটিকস্, লেদার আইটেম, জুতা, এ্যাপারেলস, ইলেকট্রিক বাল্ব, জার্মনিল হ্যান্ড স্যানিটাইজার, ফার্নিচার, প্যাকেজিং আইটেম প্যাভিলিয়নে স্থান পেয়েছে।

এছাড়াও রয়েছে বিএমটিএফ এর তৈরীকৃত র‍্যাঙ্ক ব্যাজ, মেডেল, ক্রেস্ট, লোশন, কোটপিন, ড্রেস, এলইডি বাল্ব, সোলার বাল্ব, চেয়ার-টেবিল, সোফা, খাট, প্যাকেজিং সিস্টেম, হ্যান্ডব্যাগ, স্থান সংকুলানের জন্য স্বয়ংক্রিয় দ্বিতল পার্কিং সিস্টেম ভার্টি পার্ক, ব্যাটারী চালিত বাহন পুলক ও বাহকসহ নানা পণ্য।

উল্লেখ্য, প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা ২০০০ সালে বাংলাদেশ মেশিন টুলস ফ্যাক্টরী (বিএমটিএফ) লিমিটেডকে একটি লাভজনক প্রতিষ্ঠানে পরিণত করে দেশের আর্থ-সামাজিক উন্নয়নে অবদানের উদ্দেশ্যে বাংলাদেশ সেনাবাহিনীর নিকট হস্তান্তর করেন। বিএমটিএফ লিমিটেড এর পরিচালনা পর্ষদের চেয়ারম্যান সেনাবাহিনী প্রধান জেনারেল এস এম শফিউদ্দিন আহমেদ, এসবিপি (বার), ওএসপি, এনডিইউ, পিএসসি, পিএইচডি এবং ব্যবস্থাপনা পরিচালক মেজর জেনারেল মোহাম্মদ আসাদুল্লাহ মিনহাজুল আলম, এনডিইউ, পিএসসি, পিএইচডি হিসেবে দায়িত্বরত রয়েছেন। 

এছাড়া, ঢাকা আন্তর্জাতিক বাণিজ্য মেলায় বিএমটিএফ লিমিটেড কর্তৃক উৎপাদিত পণ্যসমূহের প্রতি ক্রেতাগণের ব্যাপক আগ্রহ ও চাহিদা পরিলক্ষিত হয়েছে, যা বিএমটিএফ লিমিটেড এর উৎপাদন কার্যক্রমকে ভবিষ্যতে আরো বেগবান করবে বলে আশা করা যায়।


আরও খবর



দেশে ফিরেছেন প্রধানমন্ত্রী

প্রকাশিত:সোমবার ১৯ ফেব্রুয়ারী ২০২৪ | হালনাগাদ:সোমবার ১৯ ফেব্রুয়ারী ২০২৪ | অনলাইন সংস্করণ
নিজস্ব প্রতিবেদক

Image

তিন দিনের সফর শেষে জার্মানির মিউনিখ থেকে ঢাকায় ফিরেছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। সোমবার (১৯ ফেব্রুয়ারি) বেলা ১১ টা ৫ মিনিটে তাকে বহনকারী ফ্লাইটটি ঢাকার হযরত শাহজালাল আন্তর্জাতিক বিমানবন্দরে অবতরণ করে।

এর আগে, রোববার (১৮ ফেব্রুয়ারি) রাতে বিমান বাংলাদেশ এয়ারলাইন্সের একটি নিয়মিত ফ্লাইটে জার্মানির মুনচেন ফ্রাঞ্জ জোসেফ স্ট্রস বিমানবন্দর থেকে রওনা হন প্রধানমন্ত্রী। জার্মানিতে বাংলাদেশের রাষ্ট্রদূত মো. মোশাররফ হোসেন ভূঁইয়া তাকে বিদায় জানান।

টানা চতুর্থ মেয়াদের সরকার গঠনের পর গত মিউনিখ নিরাপত্তা সম্মেলন ২০২৪-এ যোগ দিতে গত ১৫ ফেব্রুয়ারি সন্ধ্যায় মিউনিখ পৌঁছান প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। সম্মেলনে যোগ দেওয়ার পাশাপাশি বেশ কয়েকজন বিশ্ব নেতা ও আন্তর্জাতিক সংস্থার সঙ্গে বৈঠক করেন তিনি।

সফরে প্রধানমন্ত্রী জার্মান চ্যান্সেলর ওলাফ শোলৎজ, ইউক্রেনের প্রেসিডেন্ট ভলোদিমির জেলেনস্কি, নেদারল্যান্ডের প্রধানমন্ত্রী মার্ক রুটে, আজারবাইজানের প্রেসিডেন্ট ইলহাম আলিয়েভ, কাতারের প্রধানমন্ত্রী মোহাম্মদ বিন আবদুল রহমান আল-থানি এবং ডেনমার্কের প্রধানমন্ত্রী মেটে ফ্রেডেরিকসেনের সঙ্গে দ্বিপাক্ষিক বৈঠক করেন। এসময় তিনি রাশিয়া-ইউক্রেন যুদ্ধ ও গাজায় হামলা বন্ধের আহ্বান জানান। 

আরও পড়ুন>> মিউনিখ নিরাপত্তা সম্মেলন শেষে দেশের পথে প্রধানমন্ত্রী

পাশাপাশি ভারতের পররাষ্ট্রমন্ত্রী এস জয়শঙ্কর এবং যুক্তরাজ্যের সাবেক প্রধানমন্ত্রী বর্তমান পররাষ্ট্র, কমনওয়েলথ ও উন্নয়ন বিষয়ক মন্ত্রী লর্ড ক্যামেরন এবং জার্মান ফেডারেল অর্থনৈতিক সহযোগিতা ও উন্নয়ন মন্ত্রী সভেনজা শুলজেও শেখ হাসিনার সঙ্গে সাক্ষাৎ করেন। এ ছাড়া উইমেন পলিটিক্যাল লিডারের (ডব্লিউপিএল) প্রেসিডেন্ট সিলভানা কোচ-মেহরিন, সিনিয়র ম্যানেজিং ডিরেক্টর, ডেভেলপমেন্ট পলিসি অ্যান্ড পার্টনারশিপ অ্যাক্সেল ভ্যান টর্টসেনবার্গ, বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার (ডব্লিউএইচও) মহাপরিচালক পেড্রোস আধানম গেব্রিয়াসিস, মেটার গ্লোবাল অ্যাফেয়ার্সের প্রেসিডেন্ট এবং যুক্তরাজ্যের সাবেক উপ-প্রধানমন্ত্রী ড. স্যার নিক ক্লেগও প্রধানমন্ত্রীর সঙ্গে আলাদাভাবে সাক্ষাৎ করেন।

সফরে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা মিউনিখের বার্গারহাউস গার্চিং হোটেলে জার্মানি ও ইউরোপের বিভিন্ন দেশে অবস্থানরত প্রবাসী বাংলাদেশিদের সংবর্ধনায়ও যোগ দেন।


আরও খবর



আরও ১০৮ শহীদ বুদ্ধিজীবীর তালিকা প্রকাশ

প্রকাশিত:রবিবার ১৮ ফেব্রুয়ারী ২০২৪ | হালনাগাদ:রবিবার ১৮ ফেব্রুয়ারী ২০২৪ | অনলাইন সংস্করণ
নিজস্ব প্রতিবেদক

Image

আরও ১০৮ শহীদ বুদ্ধিজীবীর তালিকা প্রকাশ করা হয়েছে। এ নিয়ে তিন দফায় ৪৪৩ জন শহীদ বুদ্ধিজীবীর তালিকা প্রকাশ করলো সরকার।

তৃতীয় ধাপে ১০৮ জন শহীদ বুদ্ধিজীবীর তালিকা প্রকাশ করে ১৫ ফেব্রুয়ারি গেজেট প্রকাশ করেছে মুক্তিযুদ্ধবিষয়ক মন্ত্রণালয়। এদের মধ্যে শিক্ষক, রাজনীতিক, সমাজকর্মী, চিকিৎসক, আইনজীবী, লেখক, চাকরিজীবী, প্রকৌশলী, নাট্যকার, সাংবাদিক, সংগীত শিল্পী এবং সংস্কৃতিকর্মী রয়েছেন।

গেজেটে বলা হয়েছে, শহীদ বুদ্ধিজীবীদের তালিকা প্রণয়নের জন্য গঠিত কমিটির সুপারিশের আলোকে শহীদ বুদ্ধিজীবীর সংজ্ঞা অনুযায়ী এদের তালিকা প্রকাশ করা হলো।

৬ জানুয়ারি মুক্তিযুদ্ধ বিষয়ক মন্ত্রণালয়ে শহীদ বুদ্ধিজীবী যাচাই-বাছাই কমিটির সভায় নতুন করে ১০৮ জনের নাম শহীদ বুদ্ধিজীবীর তালিকায় অন্তর্ভুক্ত করার বিষয়টি চূড়ান্ত করা হয়।

২০২১ সালের ৭ এপ্রিল ১৯১ জন শহীদ বুদ্ধিজীবীর নাম গেজেট আকারে প্রকাশ করে মুক্তিযুদ্ধবিষয়ক মন্ত্রণালয়। ২০২২ সালের ২৯ মে দ্বিতীয় তালিকায় ১৪৩ জন শহীদ বুদ্ধিজীবীর নাম অন্তর্ভুক্ত করা হয়।

শহীদ বুদ্ধিজীবীদের তালিকা প্রণয়নের জন্য ২০২০ সালের ১৯ নভেম্বর গবেষক, বীর মুক্তিযোদ্ধা এবং মুক্তিযুদ্ধবিষয়ক মন্ত্রণালয়ের কর্মকর্তাদের নিয়ে যাচাই-বাছাই কমিটি গঠন করা হয়।

কমিটি নির্ধারিত শহীদ বুদ্ধিজীবীর সংজ্ঞা অনুযায়ী, যে সব সাহিত্যিক, দার্শনিক, বিজ্ঞানী, চিত্রশিল্পী, শিক্ষক, গবেষক, সাংবাদিক, আইনজীবী, চিকিৎসক, প্রকৌশলী, স্থপতি, ভাস্কর, সরকারি ও বেসরকারি কর্মচারী, রাজনীতিবিদ, সমাজসেবী, সংস্কৃতিসেবী, চলচ্চিত্র, নাটক সঙ্গীত ও শিল্পকলার অন্যান্য শাখার সঙ্গে সংশ্লিষ্ট ব্যক্তি যাদের বুদ্ধিবৃত্তিক কর্মের মাধ্যমে স্বাধীন বাংলাদেশের অভ্যুদয়ে গুরুত্বপূর্ণ অবদান রেখেছেন এবং পাকিস্তানি দখলদার বাহিনী কিংবা তাদের সহযোগীদের হাতে শহীদ কিংবা চিরতরে নিখোঁজ হয়েছেন তারা শহীদ বুদ্ধিজীবী হিসেবে বিবেচিত হবেন।

২০২০ সালের ১৩ ডিসেম্বর কমিটির প্রথম সভায় প্রাথমিকভাবে এক হাজার ২২২ জন বুদ্ধিজীবীর তালিকা অনুমোদন দেওয়া হয়। প্রাথমিকভাবে ১৯৭২ সালে এক হাজার ৭০ জন শহীদের তালিকা, পরবর্তীসময়ে ডাক বিভাগ ১৫২ জন শহীদের ডাক টিকিট প্রকাশ করে সেই তালিকাও অনুমোদন দেওয়া হয় ওই সভায়।

১৯৭১ সালের ডিসেম্বরে স্বাধীনতা যুদ্ধের শেষ পর্যায়ে এসে পাকিস্তানি বাহিনী বুঝতে পারে, তাদের পক্ষে যুদ্ধে জেতা সম্ভব নয়। তখন তারা সাংস্কৃতিক, সামাজিক ও শিক্ষাগত দিক থেকে অঙ্কুরেই দুর্বল করে দিতে এক হত্যাযজ্ঞের পরিকল্পনা করে। পরিকল্পনা অনুযায়ী ১৪ ডিসেম্বর রাতে পাকিস্তানি বাহিনী তাদের এ দেশীয় দোসর রাজাকার, আলবদর ও আল শামস বাহিনীর সহায়তায় দেশের শ্রেষ্ঠ সন্তানদের তাদের বাসা থেকে তুলে এনে নির্মম নির্যাতনের পর হত্যা করে। এ গণহত্যা বাংলাদেশের ইতিহাসে বুদ্ধিজীবী হত্যাকাণ্ড নামে পরিচিত। বন্দি অবস্থায়ও বুদ্ধিজীবীদের বিভিন্ন স্থানে নিয়ে হত্যা করা হয়।

দেশ স্বাধীন হওয়ার পর তাদের ক্ষত-বিক্ষত ও বিকৃত লাশ রায়েরবাজার এবং মিরপুর বধ্যভূমিতে পাওয়া যায়। অনেকের লাশ শনাক্তও করা যায়নি। কারও কারও লাশের হসিদই মেলেনি। এ নির্মম হত্যাকাণ্ডের কথা স্মরণ করে প্রতি বছর ১৪ ডিসেম্বর বাংলাদেশে পালিত হয় শহীদ বুদ্ধিজীবী দিবস।

শহীদ বুদ্ধিজীবীর তৃতীয় তালিকা দেখুন এখানে।


আরও খবর



ছাদ থেকে পড়ে ডিবি কর্মকর্তার গৃহকর্মীর মৃত্যু

প্রকাশিত:সোমবার ১৯ ফেব্রুয়ারী ২০২৪ | হালনাগাদ:সোমবার ১৯ ফেব্রুয়ারী ২০২৪ | অনলাইন সংস্করণ
নিজস্ব প্রতিবেদক

Image

রাজধানীর মালিবাগ এলাকায় ১০ তলা ভবনের ছাদ থেকে পড়ে আনোয়ারা (৪০) নামে এক নারীর মৃত্যু হয়েছে। তিনি ঢাকা মহানগর পুলিশের (ডিএমপি) গোয়েন্দা বিভাগের (ডিবি) সহকারী পুলিশ কমিশনার তরিকুল ইসলামের বাসায় গৃহকর্মীর কাজ করতেন।

সোমবার (১৯ ফেব্রুয়ারি) বেলা সাড়ে ১১টার দিকে তিনি পড়ে যান। পরে দুপুর দেড়টায় ঢাকা মেডিকেল কলেজ (ঢামেক) হাসপাতালে নিয়ে আসলে কর্তব্যরত চিকিৎসক তাকে মৃত ঘোষণা করেন। মৃতদেহ ময়নাতদন্তের জন্য ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতাল মর্গে রাখা হয়েছে।

মৃত আয়োয়ারার গ্রামের বাড়ি ব্রাহ্মণবাড়িয়া সদর উপজেলায়। বেশ আগেই স্বামী রেজার সঙ্গে তার বিবাহবিচ্ছেদ হয়েছে বলে জানা গেছে।

শাহজাহানপুর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) সুজিত কুমার সাহা এ তথ্য নিশ্চিত করে বলেন, মালিবাগ ১৭৭/১৭৮/১৭৯ (মাধবীলতা) নম্বর ভবনের সহকারী পুলিশ কমিশনার তরিকুল ইসলাম স্যারের বাসায় ১৬-১৭ মাস ধরে কাজ করতেন আনোয়ারা। সিসিটিভি ক্যামেরার ফুটেজে ওই নারীকে ছাদের ওপর হাটাহাটি করতে দেখা গেছে। এখন অসাবধানতাবশত পড়ে গেলেন, না লাফিয়ে পড়েছেন- বিষয়টি তদন্তের পর বলা যাবে।


আরও খবর
বেইলি রোডে আগুনে নিহত বেড়ে ৪৫

শুক্রবার ০১ মার্চ ২০২৪




চট্টগ্রামে ডিআইজি গোল্ডকাপ কাবাডি টুর্নামেন্ট সম্পন্ন

প্রকাশিত:মঙ্গলবার ২০ ফেব্রুয়ারী ২০24 | হালনাগাদ:বুধবার ২১ ফেব্রুয়ারী ২০২৪ | অনলাইন সংস্করণ
চট্টগ্রাম প্রতিনিধি

Image

ইস্পাত শিল্প প্রতিষ্ঠান কেএসআরএমের পৃষ্ঠপোষকতায় চট্টগ্রামে অনুষ্ঠিত হয়েছে ডিআইজি গোল্ডকাপ কাবাডি টুর্নামেন্ট। যেখানে রেঞ্জ পুলিশ দলকে ২৬-২২ পয়েন্টের ব্যবধানে হারিয়েছে চট্টগ্রাম জেলা টিম কাবাডি দল।

আজ মঙ্গলবার বিকেলে বিকেএসপি চট্টগ্রামের আঞ্চলিক প্রশিক্ষণ কেন্দ্রে ফাইনাল ম্যাচে মুখোমুখি হয় দল দুটি। তাদের শক্তি আর কৌশলের ঘণ্টাব্যাপী লড়াইয়ে শেষ পর্যন্ত পুলিশ কাবাডি দল জয়ী হয়েছে।

পুলিশের চট্টগ্রাম রেঞ্জের উপমহাপরিদর্শক (ডিআইজি) নুরে আলম মিনার সভাপতিত্বে অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি ছিলেন জেলা ক্রীড়া সংস্থার সাধারণ সম্পাদক ও চট্টগ্রাম সিটি কর্পোরেশনের সাবেক মেয়র আ জ ম নাছির উদ্দীন। উপস্থিত ছিলেন বিশেষ অতিথি কেএসআরএমের গণমাধ্যম ও জনসংযোগ উপদেষ্টা মিজানুল ইসলাম ও উপ-ব্যবস্থাপক মনিরুজ্জামান রিয়াদ। এর আগে অনুষ্ঠানের প্রথমার্ধে প্রধান অতিথি দৈনিক আজাদীর সম্পাদক এমএ মালেক এবং বিশেষ অতিথি ছিলেন কেএসআরএমের পরিচালক (বিক্রয় ও বিপণন) মো. জসিম উদ্দিন।

প্রধান অতিথি আ জ ম নাছির উদ্দীন বলেন, কাবাডির দেশ বাংলাদেশ। জাতীর জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান খেলাধুলার প্রতি খুবই আন্তরিক ছিলেন। বঙ্গবন্ধু কন্যা প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনাও সরকার পরিচালনার পাশাপাশি আমরা যেন আন্তর্জাতিক অঙ্গনে সাফল্য বয়ে আনতে পারি সেজন্য তিনি কাজ করে যাচ্ছেন। কাবাডি খেলার মতো গ্রামবাংলার ঐতিহ্যবাহী খেলাগুলো যাতে হারিয়ে না যায় সেজন্য তিনি সচেষ্ট আছেন।

বিশেষ অতিথির বক্তব্যে কেএসআরএমের গণমাধ্যম ও জনসংযোগ উপদেষ্টা মিজানুল ইসলাম বলেন, কাবাডি খেলা আমাদের জাতীয় খেলা হলেও এটি দিনে দিনে বিলুপ্তির পথে। এমন সময়ে ডিআইজি সাহেব যখন কাবাডি খেলার আয়োজন হাতে নিলেন আর সেটিতে কেএসআরএমকে পাশে চাইলেন, তখন সঙ্গে সঙ্গে তা আমরা লুফে নিয়েছি। আমরা চাই এই ঐতিহ্যবাহী খেলা আবারও তার হারানো অতীত ফিরে পাক।

নিউজ ট্যাগ: চট্টগ্রাম

আরও খবর
৯ ছাত্রীর চুল কাটার ঘটনায় শিক্ষিকা বরখাস্ত

বৃহস্পতিবার ২৯ ফেব্রুয়ারী ২০২৪