আজঃ মঙ্গলবার ০৫ মার্চ ২০২৪
শিরোনাম

শরীয়তপুর জেলা পরিষদ নির্বাচনের প্রতীক বরাদ্দ

প্রকাশিত:সোমবার ২৬ সেপ্টেম্বর ২০২২ | হালনাগাদ:সোমবার ২৬ সেপ্টেম্বর ২০২২ | অনলাইন সংস্করণ
Image

শরীয়তপুর প্রতিনিধি:

শরীয়তপুর জেলা পরিষদ নির্বাচনে সংরক্ষিত ও সাধারণ ওয়ার্ড সদস্য পদের প্রতিদ্বন্দী প্রার্থীদের মধ্যে প্রতীক বরাদ্দ দেয়া হয়েছে। প্রতীক বরাদ্দের পরেই জোর প্রচার প্রচারণা শুরু করেছেন প্রার্থীরা।

সোমবার (২৬ সেপ্টেম্বর) সকাল বেলা ১২টায় জেলা প্রশাসকের সম্মেলন কক্ষে জেলা পরিষদ নির্বাচন রিটার্নিং অফিসার ও জেলা প্রশাসক মোঃ পারভেজ হাসান এ প্রতীক বরাদ্দ দেন।

চেয়ারম্যান পদে আওয়ামী লীগ মনোনীত জেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি ছাবেদুর রহমান খোকা সিকদার ও একজন ওয়ার্ড সদস্যের বিপক্ষে কোনো প্রতিদ্বন্দী প্রার্থী না থাকায় সংরক্ষিত ও সাধারণ ওয়ার্ড সদস্য পদের প্রতিদ্বন্দী প্রার্থীদের মধ্যে প্রতীক বরাদ্দ দেয়া হয়েছে।

শরীয়তপুর জেলা নির্বাচন অফিস সুত্রে জানা যায়, আগামী ১৭ অক্টোবর অনুষ্ঠিত হবে শরীয়তপুর জেলা পরিষদ নির্বাচন। নির্বাচনে জেলার ৬টি উপজেলা, ৫টি পৌরসভা ও ৬৫টি ইউনিয়নের ৯১৬ জন জনপ্রতিনিধি ভোটার তাদের ভোটাধিকার প্রয়োগ করবেন। নির্বাচনে সংরক্ষিত ওয়ার্ড সদস্য পদে ৭ জন ও সাধারণ ওয়ার্ড সদস্য পদে ১৬ জন সহ ২৩ জন প্রার্থী প্রতিদ্বন্দীতা করছেন।


আরও খবর



বাড়তে পারে তেল-গ্যাস-বিদ্যুতের দাম

প্রকাশিত:বুধবার ২১ ফেব্রুয়ারী ২০২৪ | হালনাগাদ:বুধবার ২১ ফেব্রুয়ারী ২০২৪ | অনলাইন সংস্করণ
নিজস্ব প্রতিবেদক

Image

ফের বাড়তে পারে অতি প্রয়োজনীয় তেল, গ্যাস ও বিদ্যুতের দাম। এর মধ্যে বিদ্যুতের দাম গ্রাহক পর্যায়ে; আর গ্যাসের দাম উৎপাদন পর্যায়ে বাড়তে পারে।

মঙ্গলবার (২০ ফেব্রুয়ারি) বিদ্যুৎ, জ্বালানি ও খনিজসম্পদ প্রতিমন্ত্রী নসরুল হামিদ তার দপ্তরে সাংবাদিকদের সাথে আলাপকালে এসব কথা বলেন।

প্রতিমন্ত্রী জানান, আমরা দ্রুত সময়ের মধ্যে দাম সমন্বয় করতে চাই। বিদ্যুতের গ্রাহক পর্যায়ে দাম সামান্য পরিমাণে বাড়তে পারে। যারা বড় গ্রাহক তাদের দাম তুলনামূলক বেশি বাড়তে পারে। আমরা স্বাবলম্বী গ্রাহকদের ভর্তুকি দিতে চাই না।

নসরুল হামিদ আরও বলেন, সবচেয়ে বেশি সমস্যা হয়ে গেছে ডলারের রেট। আগে ডলার ৭৮ টাকায় পাওয়া যেত। এখন প্রায় ১২০ টাকার মতো হয়ে গেছে। এক ডলারে প্রায় ৪০ টাকার মতো বেশি খরচ হচ্ছে। এতে বিশাল ঘাটতি তৈরি হয়েছে। আন্তর্জাতিক বাজারে দাম অপরিবর্তিত থাকলেও ডলারের মূল্যবৃদ্ধির কারণে দাম সমন্বয় জরুরি হয়ে পড়েছে।

প্রতিমন্ত্রী বলেন, পূর্ব ঘোষণা অনুযায়ী মার্চ থেকেই আন্তর্জাতিক বাজারের সঙ্গে যুক্ত করা হবে জ্বালানি তেলের দাম। নতুন দর প্রথম সপ্তাহ থেকেই কার্যকর করা হবে। আন্তর্জাতিক বাজারে দাম বেড়ে গেলে দাম বাড়বে, আর কমে গেলে কমে আসবে।

বর্তমান আন্তর্জাতিক বাজার দর অনুযায়ী সমন্বয় করা হলে দাম বাড়বে, না-কি কমে আসবে? এমন প্রশ্নের জবাবে প্রতিমন্ত্রী বলেন, তেল আমদানির কর্মাশিয়াল এনভয়েজ অনুযায়ী ডিউটি ধরা হলে দাম কিছুটা বেড়ে যাবে। আর যদি পরিমাণ ভিত্তিক ডিউটি বিবেচনা করা হয় তাহলে দাম না বাড়ালেও চলে।

গত বছরের ৩০ জানুয়ারি সর্বশেষ গ্রাহক পর্যায়ে নির্বাহী আদেশে বিদ্যুতের দাম বাড়ানো হয়। এর তিন সপ্তাহ আগে ২০২৩ সালের ১২ জানুয়ারি দাম গড়ে ৫ শতাংশ বাড়িয়ে গেজেট প্রকাশ করা হয়।

অন্যদিকে ২০২৩ সালের ফেব্রুয়ারি মাসে নির্বাহী আদেশে গ্যাসের দাম বাড়ায় জ্বালানি ও খনিজ সম্পদ বিভাগ। আর গণশুনানির মধ্যদিয়ে ২০২২ সালের জুন মাসে গ্যাসের দাম বাড়ায় বাংলাদেশ এনার্জি রেগুলেটরি কমিশন।


আরও খবর



ল্যাপটপ ব্যবহারে একটি ভুলে হতে পারে যেসব সমস্যা

প্রকাশিত:সোমবার ০৪ মার্চ ২০২৪ | হালনাগাদ:সোমবার ০৪ মার্চ ২০২৪ | অনলাইন সংস্করণ
বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি ডেস্ক

Image

মোবাইল ফোনের যত্ন ও রক্ষণাবেক্ষণ নিয়ে আমরা যতটুকু যত্নশীল। ফোন সুরক্ষিত রাখতে আমরা নানা কভারও ব্যবহার করি। ফোনের স্ক্রিনে গার্ড বসিয়ে তাকে কভারের ভেতরে সুরক্ষিত রাখি। কিন্তু আমাদের মধ্যে অনেকেই প্রতিদিন ল্যাপটপ ব্যবহার করেন এবং কেউ কেউ আছেন যারা অফিসিয়াল বিভিন্ন কাজের জন্যও ল্যাপটপের উপর নির্ভর করেন। কিন্তু অনেকে আছেন যারা ল্যাপটপের নিরাপত্তা নিয়ে একেবারেই ভাবেন না।

অনেক ক্ষেত্রেই লক্ষ্য করা গেছে যে, বাড়িতে বা অফিসে ল্যাপটপের স্ক্রিন খুলে আমরা অন্য কাজ নিয়ে ব্যস্ত হয়ে পড়ি। কিন্তু এটা করা ঠিক নয়। এটি ল্যাপটপের জন্য মারাত্মক বিপজ্জনক হয়ে উঠতে পারে।

এ ব্যাপারে বিশেষজ্ঞরা বলছেন, ল্যাপটপের স্ক্রিন অন রেখে চলাফেরা করা উচিত নয়। এই একটি ভুল করলে আমাদের ল্যাপটপ সম্ভবত পাঁচ ধরনের সমস্যার সম্মুখীন হতে পারে। এবারে জেনে নেওয়া যাক কেন ল্যাপটপের স্ক্রিন খুলে হাঁটা উচিত নয় এমন প্রতিবেদন প্রকাশ করেছে ভারতীয় সংবাদমাধ্যম নিউজ ১৮।

ল্যাপটপের স্ক্রিন অন রাখার ফলে ল্যাপটপের জয়েন্টে চাপ পড়তে পারে এবং এটি ফেটে যেতে পারে। জয়েন্ট হলো সেই অংশ যেখান থেকে ল্যাপটপ ফোল্ড করা হয়। যদি ল্যাপটপের স্ক্রিন খোলা রেখে হাঁটাহাটি করা হয়, তাহলে স্ক্রিন কাজ করা বন্ধ করে দিতে পারে।

ল্যাপটপের সঙ্গে এই ভুলটি হলে ল্যাপটপের ফ্রেম ফেটে যেতে পারে। যদি খোলা ল্যাপটপ নিয়ে ঘোরাঘুরি করা হয়, তাহলে কোথাও ধাক্কা লেগে যাওয়ার সম্ভাবনা থাকে, তাই কখনোই এমনটি করা উচিত নয়। এ ছাড়া ল্যাপটপের স্ক্রিন খোলা রেখে ঘোরাঘুরি করলেও এটি পড়ে যেতে পারে, যার ফলে হার্ডওয়্যারে সমস্যা হতে পারে।

এজন্য বিশেষজ্ঞরা বলছেন, ল্যাপটপ খুলে অর্থাৎ স্ক্রিন প্যানেল খোলা রেখে যেখানে-সেখানে ভ্রমণ করলে হার্ডডিস্কেও সমস্যা হতে পারে। হার্ডডিস্কের সমস্যা মানে ল্যাপটপ আর কোনোই কাজে লাগবে না। তাই কখনোই ল্যাপটপ বেশিক্ষণ খুলে রাখা ঠিক নয় এবং খুলে হাঁটাহাটি করা উচিত নয়।


আরও খবর



দুই শিশু বলাৎকার: মাদ্রাসার সভাপতির বিরুদ্ধে মামলা

প্রকাশিত:রবিবার ১৮ ফেব্রুয়ারী ২০২৪ | হালনাগাদ:রবিবার ১৮ ফেব্রুয়ারী ২০২৪ | অনলাইন সংস্করণ
বাগেরহাট প্রতিনিধি

Image

বাগেরহাটের মোংলা উপজেলায় দুই শিশুকে বলাৎকারের অভিযোগে একটি মাদ্রাসা ও হেফজখানার সভাপতি আউয়াল সরদারের বিরুদ্ধে মামলা দায়ের হয়েছে। রোববার (১৮ ফেব্রুয়ারি) সকালে নির্যাতনের শিকার ওই শিশুদের বাবা বাদী হয়ে মামলা করেন।

অভিযুক্ত আউয়াল সরদার সুন্দরবন ইউনিয়নের মৃত মহর আলী সরদারের ছেলে এবং উপজেলার মাদুরপাল্টা এলাকার তালিমুল কুরআন হাফিজিয়া মাদ্রাসা এতিমখানা ও লিল্লাহ বোর্ডিংয়ের সভাপতি।

মোংলা থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা কে এম আজিজুল ইসলাম বলেন, আউয়াল সরদারের বিরুদ্ধে নারী ও শিশু নির্যাতন দমন আইনে মামলা হয়েছে। এরপর থেকে তিনি গা ঢাকা দিয়েছেন। তাকে গ্রেপ্তারের জন্য পুলিশ অভিযান শুরু করেছে।


আরও খবর



মিয়ানমার আগে থেকেই বাংলাদেশের সঙ্গে যুদ্ধের চেষ্টা করছে: র‍্যাব মহাপরিচালক

প্রকাশিত:শনিবার ২৪ ফেব্রুয়ারী 20২৪ | হালনাগাদ:শনিবার ২৪ ফেব্রুয়ারী 20২৪ | অনলাইন সংস্করণ
নিজস্ব প্রতিবেদক

Image

মিয়ানমার অনেক আগে থেকেই বাংলাদেশের সঙ্গে যুদ্ধের চেষ্টা করছে বলে মন্তব্য করেছেন র‍্যাব মহাপরিচালক এম খুরশীদ হোসেন। আজ শনিবার দুপুরে গোপালগঞ্জের কাশিয়ানী এম এ খালেক ডিগ্রি কলেজ মাঠে কৃতী শিক্ষার্থীদের সংবর্ধনা ও বৃত্তি প্রদান অনুষ্ঠান শেষে সাংবাদিকদের এক প্রশ্নের জবাবে তিনি এ কথা বলেন।

এম খুরশীদ হোসেন বলেন, মিয়ানমার যা করছে তা রাজনৈতিক উদ্দেশ্যেই করছে। মিয়ানমার অনেক আগে থেকেই চেষ্টা করছে বাংলাদেশের সঙ্গে যুদ্ধ করার জন্য। রোহিঙ্গা আটক হওয়া থেকে শুরু করে তারা পায়ে পাড়া দিচ্ছে, আমরা তো কাজ করি আমরা জানি। আমি বহুবার কক্সবাজার গিয়েছি, বর্ডারে গিয়েছি, আমি সব ঘুরে এসেছি। প্রধানমন্ত্রী যে দৃঢ়চেতা এবং তাঁর যে প্রজ্ঞা, উনি কোনো দিন যুদ্ধে জড়াবেন না। কারণ, এখন যুদ্ধে যাওয়া মানে আমার দেশটা শেষ হয়ে যাওয়া। মিয়ানমারে এখন সামরিক সরকার রয়েছে। তারা এখন চাচ্ছে আমাদের সঙ্গে যুদ্ধ বাধাতে পারলে তারা সেভ হবে। কারণ, ওর দেশে এখন যে অবস্থা তৈরি হয়েছে, ওর দেশের আরাকান আর্মি তাদের বিরুদ্ধে গিয়ে এখন সমানে ভূমি দখল করছে। সেনাবাহিনী-আরাকান দ্বন্দ্ব এখন বলতে গেলে শেষ পর্যায়ে চলে গিয়েছে। গভর্নমেন্ট বাঁচার জন্য উসকানি দিচ্ছে।

র‍্যাবের মহাপরিচালক বলেন, মাদক এখন বিভিন্ন দেশ থেকে এয়ারেও আসছে, জলপথেও আসছে। বেশির ভাগ মাদক মিয়ানমার থেকে আসছে। উদ্দেশ্যমূলকভাবে মাদক পাঠাচ্ছে মিয়ানমার। কিছুদিন পর আপনারা জানবেনআমরা যে জাল ফেলে রেখেছি, সবচেয়ে যে বড় গ্যাং স্টার, তাকে আমরা জালের মধ্যে ফেলেছি। আমরা কিছু করতে পারব।

শিক্ষার্থী ও অভিভাবকদের উদ্দেশে র‍্যাব মহাপরিচালক বলেন, বর্তমান জেনারেশনের যে চ্যালেঞ্জ, এর মধ্যে একটি হলো মাদক আরেকটি ইলেকট্রনিক ডিভাইস। নেশা বলতে আমরা শুধু মাদককে বুঝি, তা কিন্তু না। আপনি আপনার সাধারণ জীবন যাপনের বাইরে যেকোনো কাজে যখন আসক্ত হয়ে গেলেন সেটাই নেশা। এখন মাদক, জুয়া, বিভিন্ন রকম অনলাইন গেম খেলা, সারা দিন ফেসবুক টেপা এগুলো নেশা হয়ে দাঁড়িয়েছে। এ প্রজন্মকে বাঁচাতে হলে শুধু বই খাতা দিয়ে স্কুলে পাঠিয়ে দিলাম আর শিক্ষকেরা পাহারা দেবে, তা সম্ভব না। বাচ্চাদের শুরুতেই আপনাদের তৈরি করতে হবে। মাটি যখন নরম থাকে, তখন আপনি তাঁকে যেকোনো আকার দিতে পারবেন। আর মাটি যখন শক্ত হয়ে যাবে, তখন আকার চেঞ্জ করতে গেলে সেটি ভেঙে যাবে। একটা বাচ্চাকে যদি শৈশব ও কৈশোর থেকে না শেখান পরবর্তীকালে ইউনিভার্সিটি, কলেজে গিয়ে কিন্তু কিছুই শিখবে না। অতএব, অভিভাবকদের মূল ভূমিকা রয়েছে, তারপর শিক্ষকদের, আর তাঁকে নিজের থেকে তো চেষ্টা করতেই হবে।

বর্তমান সময়ের ক্যাডারদের উদ্দেশে তিনি বলেন, এখন আমাদের চিন্তা হচ্ছে, আমরা তো শেষ পর্যায়ে। এখন বাংলাদেশে যে কজন রয়েছি, ইলেকশন যারা করলাম। প্রিন্সিপাল সেক্রেটারি, ক্যাবিনেট সেক্রেটারি, আইজিপি, আমি নিজে, ডিজি এনএসআই, স্বরাষ্ট্রসচিব আমরা সব কিন্তু বলতে গেলে অবসরপ্রাপ্ত লোক। আমাদের এক্সটেনশন করে রেখেছে। আমাদের ছাড়েনি এ জন্য যে ইলেকশন করে দেওয়ার জন্য। কারণ, অভিজ্ঞ লোকের অভাব রয়েছে। এখনকার প্রত্যেকটা ক্যাডারের মধ্যে পেশাদারির ঘাটতি রয়েছে। যেমন লেখাপড়ায় ঘাটতি রয়েছে, তেমন পেশাদারিতে ঘাটতি রয়েছে, ডিসিপ্লিনেও ঘাটতি রয়েছে। এটাকে যদি আমরা ওভারকাম করতে না পারি, তাহলে কী করতে হবে? নিশ্চয়ই আমাদের এখন থেকে চেষ্টা করতে হবে। না হলে এই যে যুবসমাজ, নতুন প্রজন্মএগুলো যদি মিস গাইডেড হয়ে যায়, তাহলে এই দেশের অস্তিত্ব কে ধরে রাখবে?

এর আগে র‍্যাবের মহাপরিচালক এম খুরশীদ হোসেন কাশিয়ানী এম এ খালেক ডিগ্রি কলেজ মাঠে কৃতী শিক্ষার্থীদের সংবর্ধনা ও বৃত্তি প্রদান অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন। সেখানে ২০২৩ সালে এসএসসি ও এইচএসসিতে জিপিএ ৫ প্রাপ্ত ১০৯ জন কৃতী শিক্ষার্থীর প্রত্যেকের হাতে ১০ হাজার টাকা ও ক্রেস্ট তুলে দেন।

র‍্যাব-৬, খুলনার অধিনায়ক লে. কর্নেল ফিরোজ কবীরের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠানে বক্তব্য দেন র‍্যাবের অতিরিক্ত মহাপরিচালক (প্রশাসন) ইমতিয়াজ আহমেদ, গোপালগঞ্জ জেলা প্রশাসকের কার্যালয়ের স্থানীয় সরকার বিভাগের উপপরিচালক আজহারুল ইসলাম, অতিরিক্ত পুলিশ সুপার কাজী মাহবুবুল আলম (ক্রাইম অ্যান্ড অপস), জেলা শিক্ষা অফিসার সেলিম তালুকদার, এম এ খালেক ডিগ্রি কলেজের অধ্যক্ষ কে এম মাহবুব, অবসরপ্রাপ্ত স্কুলশিক্ষক জাহিদুর রহমান প্রমুখ।


আরও খবর



বাড়িতে নতুন সদস্যের ইঙ্গিত দিলেন সৃজিত!

প্রকাশিত:রবিবার ২৫ ফেব্রুয়ারী ২০২৪ | হালনাগাদ:রবিবার ২৫ ফেব্রুয়ারী ২০২৪ | অনলাইন সংস্করণ
বিনোদন ডেস্ক

Image

ফেসবুকে একটি পোস্ট শেয়ার করার পর নেটপাড়ায় তোলপাড় শুরু হয়েছে ভারতের জনপ্রিয় পরিচালক সৃজিত মুখার্জিকে নিয়ে। কারণ হঠাৎই এ নির্মাতা ফেসবুকে ইঙ্গিত দিয়েছেন তাদের সংসারের নতুন এক সদস্যের।

বাংলাদেশের জনপ্রিয় অভিনেত্রী মিথিলাকে ২০১৯ সালে ভালোবেসে বিয়ে করেন সৃজিত। এরপর দীর্ঘ ৫ বছরে তাদের সংসারে উঠেছে বারবার ভাঙনের সুর। তবে সেসব সুরকে তুড়ি মেরে বারবারই উড়িয়ে দিয়েছেন এ তারকা দম্পতি।

তাদের সম্পর্ক যে এখনও অটুট আছে নাকি নেই এমন প্রশ্নের উত্তর আবারও ঘোলা হলো সৃজিতের ফেসবুক পোস্টে। কারণ হঠাৎই বৃহস্পতিবার ( ২২ ফেব্রুয়ারি) বিকেলে সৃজিত জানান, তাদের বাড়িতে নতুন অতিথি এসেছে।

সৃজিত লেখেন, বাড়িতে স্বাগত উলুপি। আমাদের জীবন বদলে গেল সারাজীবনের জন্য।

কে এই উলুপি জানেন? উলুপী হিন্দু মহাকাব্য মহাভারতের একটি চরিত্র। অর্জুনের চার স্ত্রীর মধ্যে দ্বিতীয়। সৃজিত কি তবে দ্বিতীয় স্ত্রী ঘরে তোলার ইঙ্গিত দিচ্ছেন? এমনটা ভেবে অবাক নেটিজেনরা।

এদিকে ভারতীয় সংবাদমাধ্যমগুলো থেকে জানা যায়, উলুপির আরেকটি অর্থ রয়েছে। আর তা হলো নাগের রানী। সেই অর্থে বাড়িতে সাপ নিয়ে এসেছেন সৃজিত। একটি পাইথনের বাচ্চা কিনেছেন তিনি। আর সেই সাপ এখন থেকে সৃজিত-মিথিলার বাড়িতেই বড় হবে।

সৃজিতের উলুপির আগে বাড়িতে বেবি এলা নামের একটি কুকুর এনেছিলেন মিথিলা। এখন সত্যি কী চলছে তারকা দম্পতির সংসারে, সে অংকে দুইয়ে দুইয়ে চার মেলাতে ব্যস্ত নেটিজেনরা। এ সাপ সৃজিত-মিথিলার সম্পর্ক অটুট থাকার সংকেত নাকি বিচ্ছেদের সুর তা সময় পেরোলেই উত্তর দিবে সৃজিত-মিথিলার ভক্তদের।


আরও খবর