আজঃ মঙ্গলবার ২৭ ফেব্রুয়ারী ২০২৪
শিরোনাম

সোনারগাঁয়ে বাবা ও তিন ছেলেসহ মনোনয়নপত্র নিলেন ১৫ জন

প্রকাশিত:বুধবার ২২ নভেম্বর ২০২৩ | হালনাগাদ:বুধবার ২২ নভেম্বর ২০২৩ | অনলাইন সংস্করণ
সোনারগাঁও (নারায়নগঞ্জ) প্রতিনিধি

Image

আগামী দ্বাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে নারায়ণগঞ্জ-৩ (সোনারগাঁ) দলীয় প্রার্থী হতে আওয়ামী লীগের মনোনয়নপত্র সংগ্রহ করেছেন একই পরিবারের বাবা ছেলে ও দুই ভাইসহ ১৫ জন প্রার্থী। গত তিন দিনে এ ১৫ জন প্রার্থী মনোনয়নপত্র সংগ্রহ করেন। এদের মধ্যে অনেকে মনোনয়ন পত্র পূরণ করে দাখিল প্রক্রিয়া শেষ করেছেন।

সরেজমিনে দেখা গেছে দু-চারজন ছাড়া রাজনীতির মাঠে সক্রিয় না থাকলেও সংসদ নির্বাচন এলে অনেকে গা ঝাড়া দিয়ে সংসদ সদস্য প্রার্থী বলে নিজেদের নির্বাচনী এলাকায় জানান দেন। আওয়ামী লীগের মনোনয়নের ক্ষেত্রে এবারও তার ব্যতিক্রম হয়নি বলে অনেকেই মতপ্রকাশ করেন। তবে, এ বিষয়ে তৃণমূল আওয়ামী লীগের অনেক সাধারণ নেতাকর্মীরা চরম ক্ষোভ ও হতাশা ব্যক্ত করেন।

সংশ্লিষ্ট সূত্রে জানা যায়, নারায়ণগঞ্জ-৩ (সোনারগাঁ) আসনটি ২০১৪ সালে আওয়ামী লীগের দলীয় প্রার্থী সাবেক সংসদ সদস্য আব্দুল্লাহ আল কায়সার এর কাছ থেকে হাতছাড়া হয়ে যায়। দলীয় কোন্দল, অপপ্রচার, একাধীক প্রার্থী হওয়া ও জোটবদ্ধ নির্বাচনের জন্য এ আসনটি দু'দফায় জাতীয় পার্টির কব্জায় চলে যায়। ফলে মহাজোটের প্রার্থী হয়ে জাতীয় পার্টির প্রেসিডিয়াম সদস্য ঢাকা বিভাগীয় অতিরিক্ত মহাসচিব ও জাতীয় স্বেচ্ছাসেবক পার্টির সভাপতি লিয়াকত হোসেন খোকা সংসদ সদস্য হন। এবারের দ্বাদশ সংসদ নির্বাচনেও তিনি আশাবাদী মহাজোটর প্রার্থী হয়ে তিনিই সংসদ সদস্য নির্বাচিত হবেন। সোনারগাঁয়ে ব্যাপক উন্নয়ন করার জন্য জনগণ তাকেই ভোট দিয়ে নির্বাচিত করবেন। তবে ছাড় দিতে নারাজ আওয়ামী লীগ। মতবিরোধ ও বিভাজন থাকলেও জোরালো ভাবেই এ আসনে আওয়ামী লীগের সংসদ সদস্য চাচ্ছেন তৃণমূল অনেক নেতাকর্মী।

এদিকে আগামী দ্বাদশ সংসদ নির্বাচনকে কেন্দ্র করে দলীয় প্রার্থী হতে রাজধানীর বঙ্গবন্ধু অ্যাভিনিউতে আওয়ামী লীগের কেন্দ্রীয় কার্যালয় থেকে নারায়ণগঞ্জ-৩ আসনে দলীয় প্রার্থী হতে আওয়ামী লীগের মনোনয়ন পত্র সংগ্রহ করেন নারায়ণগঞ্জ-৩ আসনের সাবেক সাংসদ ও সোনারগাঁ উপজেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক আব্দুল্লাহ আল কায়সার, সোনারগাঁ উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান ও উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি এডভোকেট সামসুল ইসলাম ভূঁইয়া, তার ছেলে নগদের নির্বাহী পরিচালক মারুফুল ইসলাম ঝলক, নারায়ণগঞ্জ জেলা আওয়ামী লীগের সাবেক যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক ডা: আবু জাফর চৌধুরী বীরু, সোনারগাঁ উপজেলা আওয়ামী লীগের সাবেক ভারপ্রাপ্ত সাধারণ সম্পাদক মাহফুজুর রহমান কালাম, নারায়ণগঞ্জ-৩ আসনের সংরক্ষিত আসনের সাবেক সংসদ সদস্য এডভোকেট হোসেনে আরা বাবলী, সোনারগাঁ উপজেলা পরিষদের ভাইস চেয়ারম্যান বাবুল ওমর বাবু ও তার আপন বড় ভাই কাঁচপুর ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান মোশাররফ হোসেন, কেন্দ্রীয় আওয়ামী লীগ নেতা দীপক কুমার বণিক, সাবেক ছাত্রলীগ নেতা এএইচ এম মাসুদ দুলাল, মোবারক হোসেন স্মৃতি সংসদের চেয়ারম্যান এরফান হোসেন দিপ, তার চাচা মনির হোসেন, আওয়ামী লীগ নেতা লিপি পেপার মিলের মালিক শিল্পপতি মতিন খাঁন, শ্রমিকলীগ নেতা জসিম উদ্দিন, আওয়ামী লীগ কর্মী আনোয়ার হোসেন।

এদিকে সংসদীয় এলাকার আওয়ামী লীগের নেতাকর্মীদের দাবি, নির্বাচন এলেই সোনারগাঁ আসনে আওয়ামী লীগের প্রার্থীর সংখ্যা বেড়ে যায়। রাজনীতির মাঠে সক্রিয়ভাবে দু-চারজন ছাড়া কাউকে পাওয়া যায় না। জনগণেরও কোনো খোঁজ খবর নেন না। অনেককে আওয়ামী লীগের দলীয় কোন কর্মসূচিতেও দেখা যায়না। তারাও দলীয় মনোনয়ন পত্র সংগ্রহ করেছেন। নতুন করে আরও অনেকে মনোনয়নপত্র সংগ্রহ করতে পারেন। এ আসনে ১৫ জন প্রার্থীর মনোনয়ন পত্র সংগ্রহে দলীয় কোন্দল স্পষ্ট হয়ে উঠেছে বলে তৃণমূল আওয়ামী লীগের অনেকেই মনে করছেন। অনেকের ধারণা, ১৫ জন প্রার্থী মনোনয়নপত্র সংগ্রহ করায় আবারও হয়তো এ আসন হাত ছাড়া হয়ে যেতে পারে। আসনটি ধরে রাখতে ঐক্যের বিকল্প নেই বলে মনে করছেন দলীয় নেতাকর্মীরা।

আওয়ামী লীগ নেতা ও বারদী ইউনিয়ন পরিষদের বর্তমান চেয়ারম্যান লায়ন মাহবুবুর রহমান বাবুল বলেন, নারায়ণগঞ্জ-৩ আসনে যারা আওয়ামী লীগের মনোনয়নপত্র কিনেছেন, তাদের অনেকেরই সাংগঠনিক দক্ষতার অভাব রয়েছে। অনেকেই জনপ্রতিনিধি নির্বাচন করে পরাজিত হয়েছেন। কারো কারো জন সমর্থন নেই। নিজের যোগ্যতা নিজে বুঝতে না পারলে মনোনয়ন কিনে লাভ কি?

সোনারগাঁ উপজেলা আওয়ামী লীগের সিনিয়র সহ-সভাপতি ও পিরোজপুর ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান ইঞ্জিনিয়ার মাসুদুর রহমান মাসুম বলেন, যোগ্য প্রার্থী মনে করে অনেকেই মনোনয়নপত্র কিনেছেন। সবাই তো মনোনয়ন পাবেন না। আশা করি যোগ্য ব্যক্তিই মনোনয়ন পাবেন। এবারও আমরা নৌকা প্রতিকের মনোনয়ন চাইছি। যাকে মনোনয়ন দেওয়া হবে সকলে ঐক্যবদ্ধভাবে তাকেই ভোট দিয়ে নির্বাচিত করবো।

নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক একাধীক ব্যক্তি জানান, নির্বাচনের সময় এলেই এ আসনে আওয়ামী লীগের মনোনয়ন প্রত্যাশির সংখ্যা বেড়ে যায়। একারণে এ আসনে আওয়ামী লীগের প্রার্থীরা দলিয় মনোনয়ন হারায়। গত নির্বাচনেও আওয়ামী লীগের মনোনয়ন প্রত্যাশীর সংখ্যা ১৫ জনে গিয়ে দাড়িয়েছিল। এ কারণে তৃণমূল আওয়ামী লীগের অনেক নেতাকর্মীর মাঝে চরম ক্ষোভ ও হতাশা বিরাজ করছে।


আরও খবর
ঝিনাইদহ জেলা কারাগারে কয়েদির মৃত্যু

সোমবার ২৬ ফেব্রুয়ারী ২০২৪




‘ডার্ক ওয়ার্ল্ড’র শুটিংয়ে ঢাকায় এসেছেন কৌশানি

প্রকাশিত:বুধবার ০৭ ফেব্রুয়ারী ২০২৪ | হালনাগাদ:বুধবার ০৭ ফেব্রুয়ারী ২০২৪ | অনলাইন সংস্করণ
বিনোদন ডেস্ক

Image

ঢাকায় এসেছেন টালিউডের জনপ্রিয় অভিনেত্রী কৌশানি মুখার্জি। ডার্ক ওয়ার্ল্ড ছবির শুটিংয়ে অংশ নিতে বুধবার (০৭ ফেব্রুয়ারি) বাংলাদেশে এসেছেন এই অভিনেত্রী। সিনেমাটি নির্মাণ করছেন মোস্তাফিজুর রহমান মানিক। এতে নায়িকার বিপরীতে জুটি বেঁধেছেন প্রযোজক ও অভিনেতা মুন্না খান।

জানা গেছে, বৃহস্পতিবার (০৮ ফেব্রুয়ারি) থেকে শুরু হতে যাচ্ছে সিনেমাটির শুটিং। এই সিনেমায় পুলিশ কর্মকর্তার চরিত্রে দেখা যাবে কৌশানীকে।

ডার্ক ওয়ার্ল্ড সিনেমার অভিনেত্রী ছিলেন মাহিয়া মাহি। গত বছর শুরু হয়েছিলো সিনেমার শুটিং। ডার্ক ওয়ার্ল্ড ছবিতে চুক্তিবদ্ধ হওয়ার পর ৯ অক্টোবর শুটিংও শুরু করেছিলেন মাহিয়া মাহি। কিন্তু একদিনের শুটিং করে সিনেমা থেকে সরে দাঁড়ান মাহি।

এই সিনেমা দিয়েই মাতৃত্বকালীন বিরতির পর ফিরেছিলেন মাহি। কিন্তু একদিন শুটিং করেই মুন্নার বিপরীতে কাজ করতে অনাগ্রহ প্রকাশ করেন তিনি।

শেষমেশ বন্ধ হয়ে যায় শুটিং। সেসময় জানা যায়, মুন্না খানের এক বক্তব্যের জন্যই সিনেমা থেকে সরে দাঁড়িয়েছেন তিনি। এক সাক্ষাৎকারে এ ছবিতে পরী মণিকে নায়িকা হিসেবে পাওয়ার ইচ্ছে পোষণ করেছিলেন নায়ক। তাতেই বাঁধে বিপত্তি।

প্রসঙ্গত, কৌশানী অভিনীত প্রথম বাংলাদেশি ছবি প্রিয়া রে। তবে আজও এটি আলোর মুখ দেখেনি। শাপলা মিডিয়া প্রযোজিত সিনেমাটি আদৌ মুক্তি পাবে কিনা তা নিয়ে রয়েছে ধোঁয়াশা। ২০২১ সালে ঢালিউড সিনেমায় নাম লেখিয়ে ঢাকায় এসেছিলেন এই অভিনেত্রী। টালিউডে শেষ তাকে দর্শক দেখেছিল ডাল বাটি চুরমা সিনেমায়।


আরও খবর
ফের বিয়ে করছেন অনুপম রায়, পাত্রী কে?

সোমবার ২৬ ফেব্রুয়ারী ২০২৪




বিআরটিসতে কর্মরত কারিগরদের প্রশিক্ষণ কোর্সের শুভ উদ্বোধন

প্রকাশিত:সোমবার ২৯ জানুয়ারী ২০২৪ | হালনাগাদ:সোমবার ২৯ জানুয়ারী ২০২৪ | অনলাইন সংস্করণ
প্রেস বিজ্ঞপ্তি

Image

বাংলাদেশ সড়ক পরিবহন কর্পোরেশন (বিআরটিসি) প্রশিক্ষণ ইনস্টিটিউট, তেজগাঁও এ কর্পোরেশনে কর্মরত কারিগরদের মাসব্যাপী ইঞ্জিন, বডি এবং অটো-ইলেক্ট্রিক ও এসি সিস্টেম কোর্সের শুভ উদ্বোধন করা হয়। অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন মোঃ তাজুল ইসলাম, চেয়ারম্যান, বিআরটিসি। অনুষ্ঠানে আরো উপস্থিত ছিলেন বিআরটিসির পরিচালকবৃন্দসহ অন্যান্য উর্দ্ধতন কর্মকর্তাগণ।

 স্বাগত বক্তব্যে কোর্স পরিচালক ফাতেমা বেগম (জিএম, আইসিডব্লিউএস ও প্রশিক্ষণ) বলেন, চেয়ারম্যান মহোদয়ের আন্তরিক প্রচেষ্টা ও দূরদর্শী চিন্তার ফসল আমাদের এই স্মার্ট বিআরটিসি। তাঁর দক্ষ নেতৃত্বে বিআরটিসি অপ্রতিরোধ্য গতিতে এগিয়ে যাচ্ছে। বিআরটিসিকে আরো গতিশীল করার লক্ষ্যে প্রশিক্ষণের উপর গুরুত্বারোপ করা হচ্ছে। তারই ধারাবাহিকতায় বিভিন্ন ডিপোতে কর্মরত মোট ৩০ জন কারিগরদের কর্ম দক্ষ ও স্বক্ষমতা বৃদ্ধির লক্ষ্যে এই মাসব্যাপি প্রশিক্ষণের আয়োজন করা হয়েছে। এই প্রশিক্ষণ কারিগরদের মধ্যে কর্মদক্ষতা ও আত্মবিশ্বাস বৃদ্ধি করবে।

 

প্রশিক্ষণার্থী মাহবুবুর রহমান, কারিগর-সি বলেন, চেয়ারম্যান স্যারের জন্যই আমরা বিআরটিসিতে ভালো একটি পরিবেশ পেয়েছি। অন্য একজন প্রশিক্ষণার্থী বলেন, একটা সময় বিআরটিসির পরিবেশ খুবই খারাপ ছিলো। যায় গাড়ি আসে নাই, আসে গাড়ি যায় নাই- এরকম ছিলো বিআরটিসির অবস্থা। যাত্রীরা টিকেট কেটে বসে থাকতো। সেই বিআরটিসি বর্তমানে স্বর্ণযুগ পার করছে। প্রশিক্ষণার্থী আসাদুল হক বলেন, এই প্রশিক্ষণের মাধ্যমে আমরা দক্ষ হবো এবং ডিপোতে গিয়ে তার বাস্তব প্রতিফলন ঘটাতে পারবো।

 

পরিচালক (কারিগরি) কর্নেল মোহাম্মদ মোবারক হোসেন মজুমদার, পিএসসি বলেন, এই বদলে যাওয়া বিআরটিসিতে যোগদান করে নিজেকে সৌভাগ্যবান মনে করছি। বিআরটিসির মূল চালিকাশক্তি হচ্ছে কারিগর ও অপারেটর (চালক)। প্রশিক্ষণের মাধ্যমে প্রশিক্ষণার্থীদের মনোবল বৃদ্ধি পাবে। কর্মচারীদের দক্ষতা, যোগ্যতা ও নৈপুণ্য বৃদ্ধির মাধ্যমে দক্ষতার সাথে কার্য সম্পাদনের জন্য প্রশিক্ষণের গুরুত্ব অপরিসীম।

 

প্রধান অতিথির বক্তব্যে চেয়ারম্যান বলেন, প্রতিষ্ঠানে নিয়োজিত কর্মকর্তা ও কর্মচারীকে বিভিন্ন কাজ সঠিকভাবে সম্পাদন বিষয়ে শিক্ষণ দেওয়াই হলো প্রশিক্ষণ। এর মাধ্যমে কর্মকর্তা-কর্মচারীদের কার্য সম্পাদন, যোগ্যতা, কর্মদক্ষতা ও স্বক্ষমতা বৃদ্ধির চেষ্টা করা হয়। প্রশিক্ষণ হলো কর্মচারীদের সাফল্যের চাবিকাঠি। যার মাধ্যমে কর্মী কার্য সম্পাদন বিষয়ে বাস্তব জ্ঞান, দক্ষতা ও অভিজ্ঞতা অর্জন করতে পারে। কর্মকর্তা-কর্মচারীদের মধ্যে প্রশিক্ষণের মাধ্যমে সম্পদের সর্বোচ্চ এবং কাম্য সদ্ব্যবহার সম্পর্কে ধারণা দেওয়া হয়।

নিউজ ট্যাগ: বিআরটিসি

আরও খবর



জামিনে মুক্তি পেলেন বিএনপি নেতা আলাল

প্রকাশিত:বৃহস্পতিবার ২২ ফেব্রুয়ারী ২০২৪ | হালনাগাদ:বৃহস্পতিবার ২২ ফেব্রুয়ারী ২০২৪ | অনলাইন সংস্করণ
গাজীপুর প্রতিনিধি

Image

বিএনপির যুগ্ম মহাসচিব সৈয়দ মোয়াজ্জেম হোসেন আলাল জামিনে কারাগার থেকে মুক্তি পেয়েছেন।

বুধবার (২১ ফেব্রুয়ারি) কাশিমপুর কেন্দ্রীয় কারাগার-২ থেকে তিনি মুক্তি পান। জেল সুপার মো. আমিরুল ইসলাম সাংবাদিকদের বিষয়টি নিশ্চিত করেন।

জেল সুপার মো. আমিরুল ইসলাম বলেন, বুধবার সকালে মোয়াজ্জেম হোসেন আলালের জামিনের কাগজপত্র কারাগারে পৌঁছায়। তা যাচাই-বাছাই করে বিকেল ৪টার দিকে তাকে মুক্তি দেওয়া হয়েছে।

এর আগে গত ৩১ অক্টোবর রাজধানীর কাঁঠালবাগান থেকে আলালকে গ্রেপ্তার করা হয়। মোয়াজ্জেম হোসেন আলালের বিরুদ্ধে ভাঙচুর, মারামারি, নাশকতাসহ বিভিন্ন অভিযোগে ১৭টি মামলা রয়েছে। উচ্চ আদালত থেকে সবগুলো মামলায় জামিন পাওয়ার পর তাকে মুক্তি দেওয়া হয়েছে।

৩১ ডিসেম্বর ঢাকার মহানগর হাকিম মোহাম্মদ জসীম ১০ বছর আগের এক নাশকতার মামলায় মোয়াজ্জেম হোসেন আলালকে তিন বছরের কারাদণ্ড রায় দেন।


আরও খবর



ইজতেমায় এক রাতে চার মুসল্লির মৃত্যু

প্রকাশিত:রবিবার ০৪ ফেব্রুয়ারী ২০২৪ | হালনাগাদ:রবিবার ০৪ ফেব্রুয়ারী ২০২৪ | অনলাইন সংস্করণ
নিজস্ব প্রতিবেদক

Image

তুরাগ তীরে বিশ্ব ইজতেমার প্রথম আসরে তাবলীগ জামাতের আরও চার মুসল্লির মৃত্যু হয়েছে। এ নিয়ে পুলিশসহ মোট ১৪ জনের মৃত্যু হল।

শনিবার (০৩ ফেব্রুয়ারি) রাতে বিভিন্ন সময় ওই চার মুসল্লির মৃত্যু হয়।

মুসল্লিরা হলেন- রাজবাড়ীর পাংশা থানা এলাকার সানোয়ার (৬২), চট্টগ্রামের আলম মিয়া (৬৫), নরসিংদীর শাহনেওয়াজ ভুঁইয়া (৬২) ও সিরাজগঞ্জের আল মাহমুদ (৬৫)।

এর আগে গত তিনদিনে মারা যান- গাজীপুরের টঙ্গী এলাকার বাসিন্দা আব্দুল জব্বার (৫৫)। শেরপুর সদর থানার জুগনিবাগ এলাকার নওশের আলী (৬৫), ভোলার পরাগগঞ্জ থানার সামানদার এলাকার আব্দুল কাদের (৫৫), নেত্রকোনা সদর থানার কালিয়াঝুড়ি এলাকার হোসেন আহম্মদের ছেলে স্বাধীন (৪৫), নেত্রকোনা সদর থানার কুমারী বাজার এলাকার আবদুস সাত্তার (৭০), একই জেলার বুড়িঝুড়ি স্বল্পদুগিয়া এলাকার এখলাস মিয়া (৬৮), ভোলার ভোল্লা এলাকার শাহ আলম (৬০) ও জামালপুর সদর থানার তুলশীপুরের পাকুল্লা এলাকার মতিউর রহমান (৬০)।

এছাড়া ইজতেমায় যোগ দিতে আসার সময় ব্রাহ্মণবাড়িয়ার সরাইল থানার ধামাউরা এলাকার ইউনুছ মিয়া (৬০) ও চাঁপাইনবাবগঞ্জ সদর থানার চৌহদ্দীটোলা এলাকার জামান মিয়া (৪০) মৃত্যু হয়।

বিশ্ব ইজতেমার মিডিয়া সমন্বয়ক হাবিবুল্লাহ রায়হান বিষয়টি নিশ্চিত করে জানান, এ পর্যন্ত বিশ্ব ইজতেমার ময়দানে ১২ জন এবং ইজতেমায় আসার পথে দুই মুসল্লি মারা যান। সর্বশেষ রবিবার ভোর পর্যন্ত সর্বমোট ১৪ মুসল্লির মৃত্যু হয়েছে।

রবিবার (০৪ ফেব্রুয়ারি) সকাল ৯টা থেকে ১০টার মধ্যে আখেরি মোনাজাত অনুষ্ঠিত হবে। আখেরি মোনাজাত পরিচালনা করবেন বাংলাদেশের হাফেজ মাওলানা জুবায়ের আহমেদ। আখেরি মোনাজাতের মধ্য দিয়ে শেষ হবে শুরায়ে নিজাম অনুসারীদের বিশ্ব ইজতেমা প্রথম আসর।


আরও খবর



ফেসবুকে ভিডিও বার্তায় বিচ্ছেদের সিদ্ধান্ত মাহিয়া মাহির

প্রকাশিত:শনিবার ১৭ ফেব্রুয়ারী ২০২৪ | হালনাগাদ:শনিবার ১৭ ফেব্রুয়ারী ২০২৪ | অনলাইন সংস্করণ
বিনোদন ডেস্ক

Image

চিত্রনায়িকা মাহিয়া মাহি তার স্বামী রকিব সরকারের সঙ্গে বিচ্ছেদের সিদ্ধান্ত নিয়েছেন। এরইমধ্যে তারা আলাদা থাকছেন। শুক্রবার (১৬ ফেব্রুয়ারি) রাতে সামাজিক যোগাযোগমাধ্যম ফেসবুকে এক ভিডিও বার্তায় এমনটাই জানিয়েছেন মাহি।

মাহিয়া মাহি ভিডিও বার্তায় বলেন, আমরা দুজন মিলেই এমন সিদ্ধান্ত নিয়েছি। আমাদের মধ্যে কিছু বিষয় নিয়ে সমস্যা রয়েছে। তবে রকিব খুব ভালো মানুষ। তাকে আমি সম্মান করি। অনেক কেয়ারিং সে। খুব দ্রুতই আমরা আনুষ্ঠানিকভাবে বিচ্ছেদে যাচ্ছি। কবে আর কীভাবে হবে সেটাও দুজন মিলেই ঠিক করব।

তিনি আরও বলেন, আপনারা আমার ছেলে ফারিশের জন্য দোয়া করবেন। যেন ওকে ভালো মানুষ হিসেবে গড়ে তুলতে পারি।

প্রসঙ্গত, ২০২১ সালের ১৩ সেপ্টেম্বর রাকিবকে বিয়ে করেন মাহি। তাদের একমাত্র পুত্র সন্তানের নাম ফারিশ। বিয়ের প্রায় আড়াই বছরের মাথায় আলাদা হয়ে গেলেন এই দম্পতি। এর আগেও ২০১৬ সালে সিলেটের ব্যবসায়ী পারভেজ মাহমুদ অপুকে ভালোবেসে বিয়ে করেছিলেন মাহি। সেই সংসার টিকেছিল ৫ বছর। এরপর অপুর সঙ্গে বিচ্ছেদের পর রাকিব সরকারকে বিয়ে করেন অভিনেত্রী।


আরও খবর
ফের বিয়ে করছেন অনুপম রায়, পাত্রী কে?

সোমবার ২৬ ফেব্রুয়ারী ২০২৪