আজঃ মঙ্গলবার ২৮ জুন ২০২২
শিরোনাম

সিলেটে টেলিযোগাযোগ ব্যবস্থা আবারও সচল

প্রকাশিত:বুধবার ২২ জুন 20২২ | হালনাগাদ:বুধবার ২২ জুন 20২২ | ২৫০জন দেখেছেন
দর্পণ নিউজ ডেস্ক

Image

বন্যা কবলিত সিলেটে বিটিসিএলের টেলিযোগাযোগ ব্যবস্থা আবারও সচল হয়েছে বলে জানিয়েছে সংস্থাটি। আজ মঙ্গলবার বিটিসিএলের জেনারেল ম্যানেজার (মার্কেটিং অ্যান্ড পিআর) মীর মোহাম্মদ মোরশেদ সাক্ষরিত এক সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে এই তথ্য জানানো হয়।

সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে বলা হয়েছে, সিলেট অঞ্চলে বন্যা পরিস্থিতিতে বিটিসিএলের বিভিন্ন এক্সচেঞ্জে নিচতলায় অবস্থিত জেনারেটর রুম ও পাওয়ার রুম পানিতে ডুবে যায়। ফলে ১৭ জুন শহরের সব স্থানে বিদ্যুৎ ব্যবস্থা বন্ধ হয়ে গেলে ওইদিন সকালে ঢাকার সঙ্গে টেলিযোগাযোগ ব্যবস্থা বিঘ্নিত হয়। ওইদিন সারাদিন বিটিসিএলের কর্মকর্তা-কর্মচারীরা দুর্যোগ পরিস্থিতির সীমাবদ্ধতার মধ্যে নিরলস চেষ্টা করে বিকাল নাগাদ বিকল্প পাওয়ার কেবলের মাধ্যমে জরুরি ভিত্তিতে ট্রান্সমিশন (ডিডব্লিউডিএম) যন্ত্রপাতি চালু করে টেলিযোগাযোগ ব্যবস্থা সীমিত আকারে চালু করেন। 

পরবর্তীতে জেনারেটর রুমের পানি পাম্প দিয়ে সেচে বের করা হয় এবং পাওয়ার কেবল স্থাপন করে বিকল্প উপায়ে জেনারেটর সংযোগের মাধ্যমে ১৯ জুন দুপুর ২টায় সিলেটের সঙ্গে ঢাকার টেলিযোগাযোগ ব্যবস্থা পুনরায় চালু করা সম্ভব হয়। এছাড়াও ১৯ জুন ব্রাহ্মণবাড়িয়া দিয়ে বিকল্প পথে হবিগঞ্জ জেলার টেলিযোগাযোগ ব্যবস্থা চালু করা হয়েছে। পরে নদীপথে দুটি জেনারেটর পাঠানোর মাধ্যমে ২১ জুন সর্বোচ্চ বন্যা কবলিত এলাকা সুনামগঞ্জ জেলার টেলিযোগাযোগ ব্যবস্থা সচল করা সম্ভব হয়েছে। 

বর্তমানে গোয়াইনঘাট, জকিগঞ্জ, ছাতক, কানাইঘাট, জুরি এই কয়েকটি উপজেলা ছাড়া সিলেট, মৌলভীবাজার ও সুনামগঞ্জ জেলার টেলিযোগাযোগ ব্যবস্থা স্বাভাবিক করা হয়েছে। এর বাইরে কোনো জেলা ও উপজেলায় টেলিযোগাযোগ ব্যবস্থা নিয়ে অভিযোগ থাকলে গ্রাহকদের বিটিসিএলের কল সেন্টার ১৬৪০২ এবং টেলিসেবা আ্যপে অবহিত করার জন্য অনুরোধ জানানো হয়েছে।


আরও খবর



খুলনায় ধর্ষণ মামলা পুলিশ কনস্টেবল গ্রেপ্তার

প্রকাশিত:শনিবার ১৮ জুন ২০২২ | হালনাগাদ:শনিবার ১৮ জুন ২০২২ | ৩৮৫জন দেখেছেন
দর্পণ নিউজ ডেস্ক

Image

খান জাহান আলী থানায় পুলিশ কনস্টেবল স্বদেশ বালার বিরুদ্ধে ধর্ষণের মামলা করেছেন শিরোমনী এলাকার এক তরুণী। শুক্রবার (১৭ জুন) বিকেলে নগরীর খানজাহান আলী থানায় মামলাটি দায়ের করেন ভুক্তভোগী তরুণী। বিকেলেই অভিযুক্ত স্বদেশ বালাকে গ্রেপ্তার করেছে পুলিশ।

গ্রেপ্তারের সময় কনস্টেবল স্বদেশ নগরীর আড়ংঘাটা থানায় কর্মরত ছিলেন।

খানজাহান আলী থানা পুলিশ জানায়, আড়ংঘাটা থানায় বদলির আগে কনস্টেবল স্বদেশ নগরীর খানজাহান আলী থানায় কম্পিউটার অপারেটর হিসেবে কর্মরত ছিলেন। তখন একটি জিডির সূত্র ধরে ভুক্তভোগী ওই তরুণীর সঙ্গে তার পরিচয় হয়। স্বদেশ বালা নিজেকে অবিবাহিত ও মুসলিম পরিচয় দিয়ে ওই নারীর সঙ্গে প্রেম ও শারীরিক সম্পর্ক গড়ে তোলেন। সম্প্রতি ওই নারী বিয়ের প্রস্তাব দিলে স্বদেশ বালা বিয়ে করতে অস্বীকৃতি জানান।


আরও খবর



মুক্তাগাছায় স্ত্রীর গায়ে কেরোসিন ঢেলে আগুন

প্রকাশিত:রবিবার ২৬ জুন ২০২২ | হালনাগাদ:রবিবার ২৬ জুন ২০২২ | ১৫০জন দেখেছেন
দর্পণ নিউজ ডেস্ক

Image

ময়মনসিংহের মুক্তাগাছায় স্ত্রীর গায়ে কেরোসিন ঢেলে আগুন দিয়েছেন এক ব্যক্তি। শনিবার বিকালে উপজেলার খেরুয়াজানী ইউনিয়নের পলশা গ্রামে এ ঘটনা ঘটে। আহত রোজিনাকে (৩০) উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নেওয়ার পর তাকে ময়মনসিংহ মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে রেফার্ড করা হয়।

স্থানীয় লোকজন ও পরিবার সূত্রে জানা গেছে, পলশা গ্রামের হারেজ মাস্টারের ছেলে আবু সাঈদ তিন বছর আগে একই গ্রামের মকবুল হোসেনের মেয়ে পোশাককর্মী রোজিনাকে ফুসলিয়ে বিয়ে করেন। কিন্তু তাকে স্ত্রীর মর্যাদা না দিয়ে নানা টালবাহানা শুরু করেন।

শনিবার রোজিনা ঢাকা থেকে সাঈদের বাড়িতে আসেন। এ সময় সাঈদ ও তার প্রথম স্ত্রী হ্যাপি রোজিনার গায়ে কেরোসিন ঢেলে আগুন ধরিয়ে দেন।

এতে রোজিনার দুই হাতসহ শরীরের বিভিন্ন অংশ ঝলসে যায়। দ্রুত পুকুরের পানিতে ঝাঁপ দিয়ে নিজেকে রক্ষা করেন রোজিনা। পরে তাকে উদ্ধার করে উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নেওয়া হয়। সেখান থেকে উন্নত চিকিৎসার জন্য তাকে ময়মনসিংহ মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে রেফার্ড করা হয়।

এ বিষয়ে জানতে সাঈদ ও তার প্রথম স্ত্রী হ্যাপির সঙ্গে যোগাযোগের চেষ্টা করা হয়। কিন্তু তাদের বাড়িতে গিয়ে পাওয়া যায়নি। দুজনের মোবাইল বন্ধ রয়েছে। মুক্তাগাছা থানার ওসি মাহমুদুল হাসান জানান, এ ঘটনায় এখনো কোনো অভিযোগ পাইনি।


আরও খবর



ছাত্রীর সন্তানকে কোলে নিয়ে পরীক্ষা নিলেন জবি শিক্ষক

প্রকাশিত:বুধবার ০১ জুন ২০২২ | হালনাগাদ:বুধবার ০১ জুন ২০২২ | ৪১০জন দেখেছেন

Image

জবি প্রতিনিধি:

মেয়েকে নিয়ে পরীক্ষা দিতে এসেছিলেন জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয়ের (জবি) ইসলামিক স্টাডিজ বিভাগের তৃতীয় বর্ষের শিক্ষার্থী ফাতেমা। পরীক্ষা চলাকালীন সময়ে তার সন্তানকে কোলে তুলে নেন বিভাগের শিক্ষক মুহাম্মদ কামরুল ইসলাম। তাকে কোলে নিয়েই পরীক্ষায় গার্ড দেন এ সহকারী অধ্যাপক। ঐ শিক্ষক জুয়েল আদিব নামেও সকলের কাছে পরিচিত।

খোঁজ নিয়ে জানা যায়, মঙ্গলবার দুপুর ১২ টার দিকে ভাষা শহীদ রফিক ভবনে বিভাগের ৪০৪ নং ক্লাসরুমে এ পরীক্ষা নেয়া হয়। ২০১৮-১৯ শিক্ষাবর্ষের (১৪ ব্যাচ) "এডুকেশন সিস্টেম ইন ইসলাম" (কোর্স কোড আইএসটি ৩১০৬) কোর্সের দ্বিতীয় মিড টার্ম পরীক্ষা ছিলো এটি। ওই শিক্ষার্থীর নাম ফাতিমা আক্তার সুরভী। ১৩ মাস বয়সী তার মেয়ের নাম মরিয়ম।

ঐ শিক্ষক সংস্কৃতি ও আবৃত্তি কর্মী। তিনি জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয় আবৃত্তি সংসদের ব্যবস্থাপনা উপদেষ্টা হিসেবে দায়িত্বরত রয়েছেন। মহৎ এই কাজটি করে এরই মধ্যে প্রশংসায় পঞ্চমুখ হয়েছেন এই শিক্ষক। ফেসবুকে ইতিমধ্যে এই ছবিটি রীতিমতো ভাইরাল হয়ে গেছে। ফেসবুকে সবাই লিখছেন, ছাত্রীর পরীক্ষা দিতে সমস্যা হচ্ছিলো, তাই পরীক্ষার পুরোটা সময় জুড়ে ছাত্রীর মেয়েকে সামলে রেখেছেন আমাদের শ্রদ্ধেয় শিক্ষক জুয়েল আদিব স্যার। শিক্ষক যেন মাথার উপর বিশাল ছায়া। ইসলামিক স্টাডিজ বিভাগের শিক্ষকগণ এতটাই আন্তরিক এতটাই অমায়িক। শ্রদ্ধা স্যার, শ্রদ্ধা।

বিষয়টি সম্পর্কে জানতে চাইলে সহকারী অধ্যাপক মুহাম্মদ কামরুল ইসলাম বলেন, ইসলামিক স্টাডিজ বিভাগের তৃতীয় বর্ষের প্রথম সেমিস্টার পরীক্ষা মিডটার্ম পরীক্ষা ছিলো আজ দুপুর ১২ টার দিকে। পরীক্ষা ছিলো দেখলাম তার বাচ্চা ছোট হওয়ায় ও এর আগে ক্লাসগুলো ও করতে পারেনি। পরীক্ষার হলে গিয়ে দেখি যে ও হচ্ছে ওর বাচ্চাকে বেঞ্চের খাতার সামনে বসিয়ে লেখার চেষ্টা করছে। বাচ্চাটা তাকে লিখতে দিচ্ছে না, আঁকাআকির চেষ্টা করছে। পরীক্ষায় সে এক হাত দিয়ে লেখার চেষ্টা করছে আরেক হাত দিয়ে বাচ্চাকে ধরে রেখেছে। তখন আমি তাকে বললাম যে তুমি যদি তোমার কোনো সিনিয়র বা জুনিয়র কাউকে একটু ম্যানেজ করতে তাহলে পরীক্ষাটা সুন্দর করে দিতে পারতা। পরে দেখলাম যে সে ক্লাস না করায় তেমন কারো সাথেই পরিচয় নেই, এমনকি পরিবারের কাছে রেখে আসার মতো ও অবস্থা তার ছিলো না। তাই তাকে সঙ্গে করে নিয়ে এসেছে।

তিনি আরও জানান, আমি দেখলাম সে লিখতে পারতেছিলো না। তো পরে আমি তাকে কোলে নিলাম। প্রথমে আসতে চায়নি, পরে দেখলাম যে তার সামনে একটু হাঁটাহাঁটি করার পর পরে আমার সাথে ছিলো মোটামুটি ৪০-৪৫ মিনিটের মতো।

বিশ্ববিদ্যালয়ের নিকট দাবি জানিয়ে এই শিক্ষক বলেন, আমাদের যেসব শিক্ষার্থী (মায়েরা) পরীক্ষা দিতে আসেন, সেই সময়টাতে তাদের জন্য যদি বাচ্চাদের রাখার জন্য কোনো ব্যবস্থা করা যেতো তাহলে পরবর্তীতে এই সমস্যাটা আর কারো হতো না।

এ ব্যাপারে বিশ্ববিদ্যালয়ের ডে-কেয়ার সেন্টারের আহবায়ক অধ্যাপক ড. আবদুস সামাদ বলেন, আমাদের ডে-কেয়ার সেন্টারে যদিও নিয়ম আছে শিক্ষকদের বাচ্চাদের রাখার জন্য, তবুও আমরা শিক্ষক, কর্মকর্তা-কর্মচারী এমনকি ছাত্রীদের বাচ্চাদের ও রাখি। এখানে আটটি কক্ষে ২০-২৫ জন বাচ্চা রাখার ব্যবস্থা রয়েছে। এখানে বাচ্চা রাখার দুটি সিস্টেম আছে। এক হচ্ছে নিয়মিত বাচ্চা রাখা সেক্ষেত্রে ২ বছরের নীচে হলে মাসিক ২৫০০ টাকা ও ২ বছরের অধিক হলে ১৫০০ টাকা দিতে হবে। আর এক খণ্ডকালীন যেখানে দৈনিক ৩০০ টাকা দিতে হয়। ডে-কেয়ার সেন্টারে ৩ জন স্টাফ আছে। একজন আয়া, একজন ক্লীনার ও একজন সুপারভাইজার আছে। বাচ্চাদের জন্য এখানে সব ধরনের সুযোগ সুবিধা যেমন খাবারের সময় টিভি দেখতে পারবে, শিক্ষা সামগ্রী রয়েছে, পানির ফিল্টার, খাবার গরম করার জন্য চুলা এমনকি দুইটি সিসি ক্যামেরাও রয়েছে।

ডে-কেয়ার সেন্টারের সমস্যা নিয়ে তিনি জানান, নীতিমালায় আছে এটি নিজস্ব অর্থায়নে চলবে। তাই এখানের স্টাফদের বেতন-ভাতা এখানকার টাকা থেকেই দিতে হয়। আন্তর্জাতিক নিয়মে আছে একজন মহিলা ডে কেয়ার সেন্টারে তিনটি বাচ্চা রাখতে পারবে। সেক্ষেত্রে ২ হাজার টাকা করে নিয়ে ৬ হাজার টাকা হলেও এখানে খরচ আছে ১০-১২ হাজার টাকা। এজন্য আমাদের বিশ্ববিদ্যালয়ে এটি যেনো ইউজিসির অর্গানোগ্রামে চলে সে ব্যাপারে আমরা খুব শীগ্রই উপাচার্যের নিকট আবেদন করবো।


আরও খবর



নেত্রকোনায় বন্যার্তদের ত্রাণ দিতে গিয়ে সাবেক ছাত্রলীগ নেতার মৃত্যু

প্রকাশিত:রবিবার ১৯ জুন ২০২২ | হালনাগাদ:রবিবার ১৯ জুন ২০২২ | ৩৮০জন দেখেছেন
দর্পণ নিউজ ডেস্ক

Image

নেত্রকোনা-৩ (কেন্দুয়া-আটপাড়া) আসনের এমপি অসীম কুমার উকিল ও তার সহধর্মিনী অধ্যাপক অপু উকিলের সঙ্গে কেন্দুয়া উপজেলার বন্যাদুর্গতদের মধ্যে ত্রাণ বিতরণ করতে গিয়ে উপজেলা ছাত্রলীগের সাবেক সাধারণ সম্পাদক আবির আহম্মেদ খান রুজেল (৩৫) মারা গেছেন। রুজেলের বড় ভাই উপজেলা আওয়ামী লীগ নেতা পাবেল খান এ তথ্য নিশ্চিত করেছেন।

রবিবার (১৯ জুন) সকাল ১১টার দিকে দিকে তিনি মারা যান।

এর আগে তিনি উপজেলার নওপাড়া উচ্চ বিদ্যালয় প্রাঙ্গণে ত্রাণ বিতরণের সময় হঠাৎ স্ট্রোক করে অসুস্থ হয়ে পড়েন। পরে তাকে কেন্দুয়া উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নিলে গেলে সেখানকার কর্তব্যরত চিকিৎসক তাকে মৃত ঘোষণা করেন।

আবির আহম্মেদ খান রুজেল উপজেলার চিরাং ইউনিয়নের বাট্টা গ্রামের মানিক খানের ছেলে।

পাবেল খান জানান, রবিবার সকালে স্থানীয় এমপি অসীম কুমার উকিল ও তার সহধর্মিনী অধ্যাপক অপু উকিল উপজেলার মোজাফরপুর, কান্দিউড়া ও নওপাড়া ইউনিয়নের বন্যা দুর্গতদের মধ্যে ত্রাণ সামগ্রী বিতরণ করতে যান। এ সময় উপজেলা প্রশাসন ও দলীয় নেতাকর্মীদের সাথে যান আবির আহম্মেদ রুজেলও। উপজেলার নওপাড়া উচ্চ বিদ্যালয় প্রাঙ্গণে ত্রাণ বিতরণ শেষে হঠাৎ স্ট্রোক করে অসুস্থ হয়ে পড়েন রুজেল। পরে দ্রুত তাকে উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নিয়ে গেলে কর্তব্যরত চিকিৎসক মৃত ঘোষণা করেন।

এদিকে বিকাল ৬টায় কেন্দুয়া জয়হরি স্প্রাই সরকারি উচ্চ বিদ্যালয় খেলার মাঠে জানাজা শেষে গ্রামের পারিবারিক কবরস্থানে আবির আহম্মেদ খান রুজেলের মরদেহের দাফন সম্পন্ন করা হবে বলেও জানান তিনি।


আরও খবর



জাতিসংঘে বাংলাদেশের স্থায়ী প্রতিনিধি হলেন মুহিত

প্রকাশিত:সোমবার ২০ জুন ২০22 | হালনাগাদ:সোমবার ২০ জুন ২০22 | ৩২০জন দেখেছেন
দর্পণ নিউজ ডেস্ক

Image

জাতিসংঘে বাংলাদেশের স্থায়ী প্রতিনিধি ও রাষ্ট্রদূত হিসেবে নিয়োগ পেয়েছেন মুহাম্মদ আবদুল মুহিত। আগের রাষ্ট্রদূত রাবাব ফাতিমা জাতিসংঘের আন্ডার সেক্রেটারি জেনারেলের দায়িত্ব পাওয়ায় তার স্থলাভিষিক্ত হচ্ছেন মুহিত।

সোমবার (২০ জুন) পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের এক সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে এ তথ্য জানানো হয়েছে।

কূটনীতিক আবদুল মুহিত ১১তম বিসিএসের পররাষ্ট্র ক্যাডারের কর্মকর্তা। তিনি বর্তমানে অস্ট্রিয়ায় বাংলাদেশের রাষ্ট্রদূত। তিনি সেখানে জাতিসংঘ কার্যালয়ে স্থায়ী প্রতিনিধি হিসেবে দায়িত্ব পালনের পাশাপাশি হাঙ্গেরি, স্লোভেনিয়া ও স্লোভাকিয়ায় বাংলাদেশের হয়ে কাজ করছেন।

এর আগে মুহাম্মদ আবদুল মুহিত ডেনমার্ক, এস্তোনিয়া ও আইসল্যান্ডে বাংলাদেশের রাষ্ট্রদূত হিসেবে দায়িত্ব পালন করেন। এছাড়া তিনি কুয়েত, রোম, দোহা, ওয়াশিংটন ডিসি ও নিউইয়র্কে জাতিসংঘ কার্যালয়ে বিভিন্ন পদে বাংলাদেশের হয়ে দায়িত্ব পালন করেছেন।

মুহাম্মদ আবদুল মুহিত ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় থেকে সমাজবিজ্ঞানে স্নাতকোত্তর সম্পন্ন করেন। এছাড়া তিনি কুয়েত ইউনিভার্সিটি থেকে আরবি ভাষায় ডিপ্লোমা ডিগ্রি সম্পন্ন করেন।


আরও খবর