আজঃ মঙ্গলবার ০৫ মার্চ ২০২৪
শিরোনাম

শিক্ষাক্রমে গুণগত পরিবর্তন এনেছে বর্তমান সরকার: খাদ্যমন্ত্রী

প্রকাশিত:বুধবার ২৫ অক্টোবর ২০২৩ | হালনাগাদ:বুধবার ২৫ অক্টোবর ২০২৩ | অনলাইন সংস্করণ
ফয়সাল আহম্মেদ, নওগাঁ প্রতিনিধি

Image

খাদ্যমন্ত্রী বীর মুক্তিযোদ্ধা সাধন চন্দ্র মজুমদার বলেছেন, দেশপ্রেমিক ও দায়িত্বশীল প্রজন্ম তৈরি করতে বর্তমান সরকার শিক্ষাক্রমে গুণগত পরিবর্তন এনেছে। এসময় শিক্ষার্থীদের স্মার্ট বাংলাদেশের মূল হাতিয়ার বলেও উল্লেখ করেন তিনি।

বুধবার (২৫ অক্টোবর) সাপাহার পাইলট উচ্চ বিদ্যালয়ে কৃতি শিক্ষার্থীদের সংবর্ধনা অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তব্যে তিনি এসব কথা বলেন।

শিক্ষার্থীদের মুক্তিযুদ্ধের প্রকৃত ইতিহাস জানার আহবান জানিয়ে খাদ্যমন্ত্রী বলেন, বাংলাদেশকে চিনতে হবে। সেই সাথে দেশপ্রেমে উদ্বুদ্ধ হতে হবে। বিশ্বের দরবারে দেশকে উচুতে তুলে ধরার মানসিকতা নিয়ে বড় হওয়ার আহবানও জানান সাধন চন্দ্র মজুমদার।

তিনি বলেন, আগে শিক্ষার্থীদের শিক্ষাজটে পড়তে হতো। শিক্ষা জীবনের মূল্যবান সময় নষ্ট হতো এখন বিশ্ববিদ্যালয়ে সেশন জট নেই। সময় মতো শিক্ষা জীবন শেষ করে কর্মে প্রবেশ করতে সক্ষম হচ্ছে শিক্ষার্থীরা। দেশে বর্তমানে কারিগরি ও প্রাতিষ্ঠানিক শিক্ষারও বিস্তার ঘটছে বলে উল্লেখ করেন তিনি।

শিক্ষকদের উদ্দেশ্যে খাদ্যমন্ত্রী বলেন, শিক্ষার্থীদের সুশিক্ষায় শিক্ষিত করে দেশের উন্নয়নে অংশীদার হিসেবে গড়তে আপনাদের ভূমিকা গুরুত্বপূর্ণ। এই শিক্ষার্থীদের আগামীর জন্য আত্মবিশ্বাসী করে গড়ে তুলতে হবে। তাদের হাত ধরেই স্মার্ট বাংলাদেশ গঠন হবে।

সাপাহার পাইলট উচ্চ বিদ্যালয় ম্যানেজিং কমিটির সভাপতি মো: আব্দুল বারী শাহ চৌধুরী এর সভাপতিত্বে অনুষ্ঠানে সাপাহার উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান মো: শাহজাহান হোসেন, উপজেলা নির্বাহী অফিসার মো: আব্দুল্যাহ আল মামুন, জেলা শিক্ষা অফিসার মো: লুৎফর রহমান, অফিসার ইনচার্জ মো: হুমায়ুন কবির, সাপাহার উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি মো: শামসুল আলম শাহ চৌধুরী এবং সাধারণ সম্পাদক মো: মাসুদ রেজা সারোয়ার বিশেষ অতিথি হিসাবে বক্তৃতা করেন। স্বাগত বক্তব্য রাখেন সাপাহার পাইলট উচ্চ বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক মো: সাজেদুল আলম।

পরে খাদ্যমন্ত্রী সাধন চন্দ্র মজুমদার ২০২৩ সালের এসএসসি পরীক্ষায় সাফল্য অর্জনকারী কৃতি শিক্ষার্থীদের হাতে ক্রেস্ট তুলে দেন।


আরও খবর



চিৎকার করে ওঠায় গৃহবধূর চোখে-মুখে আঠা লাগায় চোর: পুলিশ

প্রকাশিত:শুক্রবার ১৬ ফেব্রুয়ারী ২০২৪ | হালনাগাদ:শুক্রবার ১৬ ফেব্রুয়ারী ২০২৪ | অনলাইন সংস্করণ
জেলা প্রতিনিধি

Image

চুরি করতে দেখে চিৎকার করে ওঠায় খুলনার পাইকগাছার গৃহবধূকে (৪৫) নির্যাতন এবং চোখে ও মুখে আঠা লাগিয়ে দিয়েছিল চোর ইমামুল ওরফে এনামুল। গ্রেপ্তারের পর পুলিশের জিজ্ঞাসাবাদে এনামুল এই তথ্য জানিয়েছে।

শুক্রবার দুপুরে খুলনা জেলা পুলিশ সুপারের কার্যালয়ে সংবাদ সম্মেলন করে এ তথ্য জানান খুলনার অতিরিক্ত পুলিশ সুপার সুশান্ত সরকার। তিনি দাবি করেন, ইমামুল সংঘবদ্ধ চোর চক্রের সদস্য ও গৃহবধূকে নির্যাতনের ঘটনার মূল হোতা।

গত সোমবার খুলনার পাইকগাছা উপজেলার রাড়ুলি গ্রাম থেকে চোখ-মুখে আঠা লাগানো এবং অচেতন অবস্থায় এক গৃহবধুকে খুলনা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি করেন স্বজনরা। ঘরের মালামাল লুট ও ওই গৃহবধূকে ধর্ষণ করা হয়েছে বলে চিকিৎসকদের জানিয়েছিলেন ওই নারীর স্বামী। এ ঘটনায় মঙ্গলবার সন্ধ্যার পর ওই গৃহবধূর স্বামী বাদি হয়ে পাইকগাছা থানায় একটি মামলা দায়ের করেন। মামলার এজাহারে কারো নাম উল্লেখ করা হয়নি, সবাই অজ্ঞাত আসামি।

এ মামলায় পুলিশ এ পর্যন্ত চারজনকে গ্রেপ্তার করেছে। তারা হলেন- ইমামুল জোয়াদ্দার ওরফে এনামুল, আবদুস সামাদ, সুমন হালদার ও রাশিদা বেগম।

পুলিশের দাবি, এনামুল ধর্ষণ ও লুটের সঙ্গে জড়িত। তার মা রাশিদা বেগম লুট করা স্বর্ণ বিক্রি করেছিলেন। সুমন হালদার লুট করা স্বর্ণের ক্রেতা। এই তিন জনকে বৃহস্পতিবার রাতে বিভিন্ন স্থান থেকে গ্রেপ্তার করা হয়। এছাড়া গত বুধবার ভোর রাতে আবদুস সামাদকে সন্দেহজনক ব্যক্তি হিসেবে গ্রেপ্তার করা হয়েছিল।

সংবাদ সম্মেলনে অতিরিক্ত পুলিশ সুপার সুশান্ত সরকার এনামুল জদ্দারের স্বীকারোক্তির বরাত দিয়ে বলেন, গত রোববার সন্ধ্যায় ওই গৃহবধূর বাড়ির পাশের বাগানে এনামুল নেশা করতে গিয়েছিলেন। বাড়িতে গৃহবধূকে একা দেখে এনামুল ঘরের সানসেট বেয়ে ছাদের উঠে সিড়ি দিয়ে ঘরে প্রবেশ করে। পরে খাবারে চেতনানাশক মিশিয়ে দিয়ে চলে যায়। পরবর্তীতে রাত ২ টার দিকে একইভাবে পুনরায় ঘরে প্রবেশ করে মূল্যবান জিনিসপত্র খোঁজাখুজি শুরু করে। তখন গৃহবধুর ঘুম ভেঙ্গে গেলে তাঁর পকেটে থাকা সুপারগ্লু বের করে গৃহবধুর চোখে এবং মুখে লাগিয়ে দেয়। এ সময় ওই গৃহবধূর সঙ্গে ইমামুলের ধস্তাধস্তির ঘটনা ঘটে। পরে  গৃহবধুর গোঙরানিতে পাশের বাড়ি থেকে সাড়া দেওয়ায় এনামুল কানের দুল ও মোবাইল নিয়ে পালিয়ে যায়।

 অতিরিক্ত পুলিশ সুপার বলেন, পরবর্তীতে লুট করা কানের দুলটি ইমামুলের মা রাশিদা বেগমের মাধ্যমে চুকনগর স্বর্ণপট্টিতে মা জুয়েলার্স নামক দোকানে ৫ হাজার টাকায় বিক্রি করা হয়। যে কারণে এনামুলের মা ও দোকান মালিক সুমন হালদারকেও পুলিশ গ্রেপ্তার করেছে।

তিনি জানান, এনামুলের বিরুদ্ধে বিভিন্ন থানায় এ পর্যন্ত ৯টি মামলা দায়ের হয়েছে। সর্বশেষ বৃহস্পতিবার রাত ১১ টার দিকে তাকে পাইকগাছা পূর্বকাশিমনগর থেকে একটি আগ্নেয়াস্ত্র ও এক রাউন্ড তাজা গুলিসহ আটক করা হয়ে। পরে জিজ্ঞাসাবাদে তিনি ধর্ষণের ঘটনার কথা স্বীকার করেননি।

সুশান্ত সরকার বলেন, চূড়ান্ত মেডিকেল রিপোর্টে বোঝা যাবে ওই গৃহবধূ নির্যাতনের শিকার হয়েছেন কিনা। ধর্ষণ ও লুটের ঘটনায় আরও কেউ জড়িত আছে কি-না সে বিষয়ে বিস্তারিত তদন্ত চলছে। 


আরও খবর



দৌলতপুরে তিন সাংবাদিকের ওপর হামলা, ক্যামেরা ভাঙচুর

প্রকাশিত:বৃহস্পতিবার ১৫ ফেব্রুয়ারী ২০২৪ | হালনাগাদ:বৃহস্পতিবার ১৫ ফেব্রুয়ারী ২০২৪ | অনলাইন সংস্করণ
কুষ্টিয়া প্রতিনিধি

Image

তথ্য সংগ্রহে গিয়ে কুষ্টিয়ার দৌলতপুরে সন্ত্রাসী হামলার শিকার হয়েছেন তিন সাংবাদিক। আজ বৃহস্পতিবার দুপুরের দিকে উপজেলার ফিলিপনগর ইউনিয়নের সিরাজনগরে এ ঘটনা ঘটে।

আহতরা হলেন চ্যানেল-২৪ এর কুষ্টিয়ার স্টাফ রিপোর্টার শরীফ বিশ্বাস, ক্যামেরাপার্সন এসআই সুমন ও স্থানীয় সাংবাদিক বিদ্যুৎ হোসেন। হামলাকারীরা লাঠি দিয়ে তাদের মারধর করে এবং তাদের ক্যামেরা ভেঙে ফেলে। এ সময় প্রায় আড়াই ঘণ্টা অবরুদ্ধ থাকার পর স্থানীয়দের সহায়তায় তাদের উদ্ধার করে দৌলতপুর হাসপাতালে নেওয়া হয়।

আহত সাংবাদিক ও স্থানীয়রা জানান, দৌলতপুর উপজেলার ফিলিপনগর গ্রামের কামাল হোসেন চাচা আহসানুল হাবীব মোল্লাকে বাবা সাজিয়ে মুক্তিযোদ্ধা কোটায় অ্যাডমিন ক্যাডারে চাকরি পেয়েছেন। বর্তমানে তিনি উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) হিসেবে কর্মরত রয়েছেন।

এ বিষয়ে সরেজমিনে খোঁজখবর নিতে আজ দুপুরে সিরাজনগরে যান চ্যানেল ২৪ এর কুষ্টিয়ার স্টাফ রিপোর্টার শরীফ বিশ্বাস তার ক্যামেরাপার্সন সুমন ও স্থানীয় সাংবাদিক বিদ্যুৎ হোসেন। এদিকে বিষয়টি জানতে পেরে স্থানীয় বাচ্চুর নেতৃত্বে ৮/১০ জন সন্ত্রাসী তাদের ওপর হামলা করে। সে সময় প্রায় আড়াই ঘণ্টা তাদের একটি কক্ষে অবরুদ্ধ করে রাখার পর বিকেল সাড়ে ৪টার দিকে স্থানীয়দের সহায়তায় তাদের উদ্ধার করে দৌলতপুর হাসপাতালে নেওয়া হয়।

আহত সাংবাদিক শরীফ বিশ্বাস বলেন, পেশাগত দায়িত্ব পালনকালে সন্ত্রাসীরা আমাদের ওপর হামলা চালিয়েছে। কাঠের চলা ও লাঠি দিয়ে পেটানো হয়েছে। ক্যামেরা ভাঙচুর অবরুদ্ধ করে রাখা হয়েছে।

এ ঘটনায় বৃহস্পতিবার সন্ধ্যায় দৌলতপুর থানায় লিখিত অভিযোগ করেছেন ভুক্তভোগীরা। থানার ওসি রফিকুল ইসলাম বলেন, মৌখিকভাবে শুনেছি। লিখিত অভিযোগ পেলে তদন্ত সাপেক্ষে আইনগত ব্যবস্থা নেওয়া হবে।


আরও খবর



মুক্তিযোদ্ধা প্রজন্মলীগ সভাপতির উপর হামলাকারীদের গ্রেপ্তারের দাবীতে বিক্ষোভ

প্রকাশিত:শনিবার ২৪ ফেব্রুয়ারী 20২৪ | হালনাগাদ:শনিবার ২৪ ফেব্রুয়ারী 20২৪ | অনলাইন সংস্করণ
মশিউর রাহাত (পিরোজপুর)

Image

পিরোজপুর মুক্তিযোদ্ধা প্রজন্মলীগের জেলা কমিটির সভাপতি ও নৌকা প্রতীকের এজেন্ট ফয়সাল আকনের উপর সন্ত্রাসী হামলা ও তাদের গডফাদারদের অবিলম্বে গ্রেপ্তারের দাবীতে শনিবার বিক্ষোভ সমাবেশ অনুষ্ঠিত হয়েছে।

প্রতিবাদ সমাবেশ বক্তব্য রাখেন জেলা যুবলীগের সহ-সভাপতি জাহিদুল ইসলাম পিরু, জেলা শ্রমিক লীগের সাধারণ সম্পাদক আলমগীর হোসেন, আওয়ামী স্বেচ্ছাসেবক লীগের পৌর শাখার সহ-সভাপতি ও সাবেক ছাত্রলীগ নেতা শেখ হাসান মামুন, ছাত্রলীগ নেতা জুনায়েত রাসেল, পৌর ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদক মোমেন মোর্শেদ শুভ্রসহ নেতৃবৃন্দ।

আহত ফয়সালের পিতা মোফাজ্জেল আকন জানান, ফয়সাল বাড়ি থেকে রাতে বের হয়ে সামনে যান। সেখানে পূর্ব থেকে ওৎ পেতে থাকা সন্ত্রাসী সাইদুল ফকির, মিজান সিকদার, জামাল, সাইদুল ফরাজীসহ আরও ১০-১২ জন অস্ত্র দিয়ে কুপিয়ে ফয়সালকে মারাত্মক জখম করে।

আরো পড়ুন :পিরোজপুরে মুক্তিযুদ্ধ প্রজন্মলীগ সভাপতিকে কুপিয়ে জখম

মোফাজ্জেল আকন জানান, জেলা শহরতলীর নামাজপুর এলাকায় শুক্রবার রাত ৮টা ৪৫ মিনিটের সময় কুপিয়ে জখম করেছে সন্ত্রাসীরা। আহত ফয়সালকে উদ্ধার করে জেলা হাসপাতালে নিয়ে গেলে সেখানের কর্তব্যরত চিকিৎসকরা তাকে প্রাথমিক চিকিৎসা দিয়ে উন্নত চিকিৎসার জন্য পাঠিয়েছে। সদ্য সমাপ্ত জাতীয় সংসদ নির্বাচনে ফয়সাল পিরোজপুর-১ আসনে নৌকা প্রতীকের প্রার্থী শ ম রেজাউল করিমের নির্বাচনী এজেন্ট ছিল নামাজপুর এলাকার একটি ভোট কেন্দ্রে। এ ছাড়া সে নৌকার প্রচারণার জন্য একটি ক্যাম্পও পরিচালনা করতো।

জেলা হাসপাতালের কর্তব্যরত চিকিৎসক আরিফ জানান, ফয়সাল আকনের শরীরের বিভিন্ন জায়গায় মারাত্মক জখম আছে, অবস্থা যথেষ্ট সংকটাপন্ন। শরীর  থেকে প্রচুর পরিমানে রক্তক্ষরণ হয়েছে, তার কোনো পালস পাওয়া যায়নি। স্যালাইনের মাধ্যমে ইমারজেন্সি ম্যানেজমেন্ট দিয়ে খুলনায় রেফার্ড করা হয়েছে। ওই রাতে অবস্থা আরো অবনতি হলে ঢাকা মেডিকেল কলেজের আইসিইউতে চিকিৎসাধীন অবস্থায় রয়েছে।

এদিকে ফয়সাল আকনের উপর হামলার প্রতিবাদে শুক্রবার রাতেই শহরে বিক্ষোভ করেছে পিরোজপুর-১ আসনের সংসদ সদস্য শ ম রেজাউল করিমের অনুসারীরা। বিক্ষোভ মিছিল থেকে ফয়সাল আকনের উপর হামলাকারীদের গ্রেফতারের দাবী জানানো হয়। ফয়সাল আকনের উপর হামলার খবর পেয়ে সংসদ সদস্য শ ম রেজাউল করিম পিরোজপুর জেলা হাসপাতালে গিয়ে তার চিকিৎসার খোঁজখবর নেন।

শ ম রেজাউল করিম জানান, উচ্চশিক্ষিত ফয়সাল আকনের অপরাধ বিগত নির্বাচনে সে নৌকা প্রতীকের এজেন্ট হয়েছিল। ফয়সাল নৌকার পক্ষে থাকায় আজ এই ভয়াবহ পরিস্থিতির মুখোমুখি হতে হয়েছে। এ সময় তিনি ফয়সাল আকনের উপর হামলাকারীদের গ্রেপ্তারের দাবী জানান।

প্রসংগত পিরোজপুর-১ আসনে নৌকা প্রতীক নিয়ে নির্বাচন করে বিজয়ী হন শ ম রেজাউল করিম আর তার নিকটতম হন ঈগল প্রতীক নিয়ে নির্বাচন করা পিরোজপুর জেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি এ কে এম এ আউয়াল।


আরও খবর



চলচ্চিত্র শিল্পী সমিতি থেকে জায়েদ খানের সদস্যপদ বাতিল

প্রকাশিত:রবিবার ০৩ মার্চ ২০২৪ | হালনাগাদ:রবিবার ০৩ মার্চ ২০২৪ | অনলাইন সংস্করণ
বিনোদন ডেস্ক

Image

চিত্রনায়ক জায়েদ খানের বাংলাদেশ চলচ্চিত্র শিল্পী সমিতি থেকে সদস্যপদ বাতিল করা হয়েছে। শনিবার (০২ মার্চ) অনুষ্ঠিত চলচ্চিত্র শিল্পী সমিতির বার্ষিক বনভোজনে দ্বি-সাধারণ সভায় এই সিদ্ধান্ত নেন বর্তমান কমিটি।

কমিটির ঘোষণাপত্রে জানানো হয়, কোনরূপ সাংগঠনিক দুর্বলতা না পেয়ে ব্যক্তিগত আক্রোশে ধারাবাহিকভাবে চলচ্চিত্র শিল্পী সমিতিসহ সাধারণ সম্পাদক নিপুণ আক্তারের নামে মিথ্যা, মনগড়া ও কুরুচিপূর্ণ তথ্য প্রচার করায় জায়েদ খানের সদস্যপদ বাতিল করা হয়েছে। বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন শিল্পী সমিতির ২০২৪-২৬ মেয়াদের নির্বাচনে দায়িত্বপ্রাপ্ত প্রধান নির্বচন কমিশনার খোরশেদ আলম খসরু।

এদিকে শনিবারের বনভোজনে দাওয়াত না পাওয়ায় অবাক হওয়ার কথা জানিয়েছেন চিত্রনায়ক জায়েদ খান। তিনি বলেন, আমি তিন-তিনবার নির্বাচিত সাধারণ সম্পাদক। অথচ শিল্পী সমিতির পিকনিকে আমাকে কোনো কার্ড পাঠানো হয়নি। এমনকি কেউ ফোন দিয়েও পিকনিকের বিষয়ে আমাকে বলেনি। বিষয়টি সংকীর্ণ মানসিকতার পরিচয় দেয়।’


আরও খবর



টিম হোটেলে ক্যারিবিয়ান ক্রিকেটারের সঙ্গে সোহানের হাতাহাতি

প্রকাশিত:বৃহস্পতিবার ১৫ ফেব্রুয়ারী ২০২৪ | হালনাগাদ:বৃহস্পতিবার ১৫ ফেব্রুয়ারী ২০২৪ | অনলাইন সংস্করণ
ক্রীড়া প্রতিবেদক

Image

ঢাকা-সিলেট ঘুরে চট্টগ্রামে মাঠে গড়াচ্ছে বাংলাদেশ প্রিমিয়ার লিগ (বিপিএল)। সেখানেই ঘটেছে এক অনাকাঙ্ক্ষিত ঘটনা। টিম হোটেলেই কুমিল্লা ভিক্টোরিয়ান্সের ক্যারিবিয়ান ক্রিকেটার ম্যাথু ফোর্ডে সঙ্গে হাতাহাতিতে জড়িয়েছেন রংপুর রাইডার্সের অধিনায়ক নুরুল হাসান সোহান।

চট্টগ্রামের র‍্যাডিসন হোটেলে রংপুর রাইডার্সসহ অবস্থান করছে বিপিএলের পাঁচটি দল। জানা গেছে, সোহান রংপুর রাইডার্সের এক কর্মকর্তার রুমে যেতে গিয়ে ভুল করে ফোর্ডের রুমে উঁকি দেন। এতে চটে গিয়ে সোহানকে বাজে মন্তব্য করে বসেন ফোর্ড। এতেই হাতাহাতিতে জড়িয়ে পড়েন এই দুই ক্রিকেটার।

পরিস্থিতি জটিল হওয়ার আগেই সোহানকে সরিয়ে নেন অন্যরা। এই ঘটনার আনুষ্ঠানিক প্রতিক্রিয়ায় রংপুরের ম্যানেজার শাহনিয়ান তানিন বলেন, জিনিসটা এত বড়ই হয়নি যা দুইটা দলের যেভাবে হ্যান্ডেল করার কথা ছিল। কিন্তু তারপরও ছোটখাট কিছু হয়ে থাকলেও আমরা ম্যানেজার মিলে কিন্তু সমাধান করে দিয়েছি। পাঁচ মিনিটের মধ্যেই কিন্তু সমাধান হয়ে যায়।


আরও খবর