আজঃ শনিবার ২৯ জানুয়ারী ২০২২
শিরোনাম

শেখ হাসিনা জনবান্ধব সরকারপ্রধান: মৎস্য ও প্রাণিসম্পদ মন্ত্রী

প্রকাশিত:বুধবার ১২ জানুয়ারী ২০২২ | হালনাগাদ:বুধবার ১২ জানুয়ারী ২০২২ | ৯২৫জন দেখেছেন
দর্পণ নিউজ ডেস্ক

Image
প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা চান সব শ্রেণি-পেশার মানুষের জন্য রাষ্ট্র নৈতিক দায়িত্বের জায়গা থেকে সকল চেষ্টা অব্যাহত রাখবে। তিনি বিপন্ন, অসহায়, দুস্থ, অনাথসহ সকল শ্রেণির মানুষের অধিকার নিশ্চিত করছেন

মৎস্য ও প্রাণিসম্পদ মন্ত্রী শ ম রেজাউল করিম এমপি বলেছেন, "প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা জনবান্ধব সরকারপ্রধান। তিনি এমন সরকারপ্রধান যিনি কাউকে পেছনে ফেলে রাখেন না। তিনি দুস্থ-অসহায় মানুষের সাংবিধানিক অধিকার নিশ্চিতে কাজ করে যাচ্ছেন। সকল মানুষের নিরাপত্তা নিশ্চিত করার জন্য অবিরাম পরিশ্রম করে চলেছেন। প্রতিবন্ধী, স্বামী পরিত্যাক্তা, দুস্থ, বিধবা, অসহায়, বীর মুক্তিযোদ্ধা থেকে শুরু করে এমন কোন জায়গা নেই যেখানে বঙ্গবন্ধু কন্যার মমত্বের সহযোগিতা পৌঁছাচ্ছে না। সর্বত্র সকলকে নিয়ে তিনি সামনে এগোতে চান"।

বুধবার (১২ জানুয়ারি) পিরোজপুর সার্কিট হাউস মিলনায়তনে ক্যান্সার, কিডনী, লিভারসিরোসিস, স্ট্রোকে প্যারালাইজড, জন্মগত হৃদরোগ ও থ্যালাসেমিয়া রোগীর জন্য আর্থিক সহায়তার চেক বিতরণ অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তব্যে মন্ত্রী এসব কথা বলেন।


পিরোজপুর জেলা প্রশাসন ও জেলা সমাজসেবা কার্যালয় যৌথভাবে এ অনুষ্ঠান আয়োজন করে। অনুষ্ঠানে সমাজকল্যাণ মন্ত্রণালয়ের সমাজসেবা অধিদপ্তরের আওতায় ৪৩ জন দরিদ্র রোগীকে চিকিৎসা সহায়তা হিসেবে ৫০ হাজার টাকা করে আর্থিক অনুদানের চেক বিতরণ করেন মন্ত্রী।

অনুষ্ঠানে মন্ত্রী বলেন, "প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা চান সব শ্রেণি-পেশার মানুষের জন্য রাষ্ট্র নৈতিক দায়িত্বের জায়গা থেকে সকল চেষ্টা অব্যাহত রাখবে। তিনি বিপন্ন, অসহায়, দুস্থ, অনাথসহ সকল শ্রেণির মানুষের অধিকার নিশ্চিত করছেন। আমরা এমন একজন জনবান্ধব প্রধানমন্ত্রী পেয়েছি যিনি দুঃখী মানুষের কষ্ট বোঝেন। অনুন্নত এলাকার বেদনা তাকে আকৃষ্ট করে। তিনি এমন ব্যতিক্রমধর্মী রাষ্ট্রনায়ক"।

জটিল রোগে আক্রান্তদের জন্য আর্থিক অনুদানের বরাদ্দ বাড়ানোসহ পিরোজপুরের সব খাতের পরিসর বাড়ানোর জন্য চেষ্টা করছেন বলে এসময় জানান মন্ত্রী। একসময় উন্নয়নবঞ্চিত পিরোজপুর দেশের অন্যান্য স্থানের মতো উন্নয়নের সমতার জায়গায় চলে আসবে বলেও এসময় আশা প্রকাশ করেন তিনি।

পরে মন্ত্রী যুব ও ক্রীড়া মন্ত্রণালয়ের আওতাধীন বঙ্গবন্ধু ক্রীড়াসেবী কল্যাণ ফাউন্ডেশন হতে অস্বচ্ছল ক্রীড়াবিদদের মাঝে আর্থিক অনুদানের চেক বিতরণ করেন। এর আগে মন্ত্রী পিরোজপুর সার্কিট হাউসে প্রাঙ্গণে শীতার্তদের মাঝে প্রধানমন্ত্রীর ত্রাণ তহবিল থেকে প্রাপ্ত শীতবস্ত্র বিতরণ করেন। পরে সড়ক ও জনপথ অধিদপ্তরের কর্তৃক বাস্তবায়িত পিরোজপুর খেয়াঘাট-হুলারহাট সড়কের ধূপপাশায় ও রানীপুরে ২টি কালভার্ট উদ্বোধন করেন তিনি।

পিরোজপুরের জেলা প্রশাসক আবু আলী মো. সাজ্জাদ হোসেনের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠানে বিশেষ অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন পিরোজপুরের সিভিল সার্জন ডা. হাসনাত ইউসুফ জাকী, অতিরিক্ত পুলিশ সুপার থান্দার  খায়রুল হাসান, পিরোজপুর জেলা সমাজসেবা কার্যালয়ের উপপরিচালক ইকবাল কবির ও প্রবীণ রাজনীতিবিদ চণ্ডীচরণ পাল। এছাড়া পিরোজপুর জেলা মৎস্য কর্মকর্তা মো. আব্দুল বারী, পিরোজপুর জেলা যুবলীগের সভাপতি আখতারুজ্জামান ফুলু, পিরোজপুর জেলা মুক্তিযোদ্ধা সংসদের সাবেক কমান্ডার গৌতম নারায়ণ রায় চৌধুরী, বাংলাদেশ আওয়ামী যুবলীগ কেন্দ্রীয় কার্যনির্বাহী কমিটির সদস্য কামরুজ্জামান খান শামীম, পিরোজপুর জেলা পূজা উদযাপন পরিষদের সাধারণ সম্পাদক গোপাল বসু প্রমুখ অনুষ্ঠানে উপস্থিত ছিলেন।

আরও পড়ুন:

শেখ হাসিনা উন্নয়নবান্ধব সরকার প্রধান : শ ম রেজাউল করিম

উন্নত, সমৃদ্ধ ও বিজ্ঞানমনস্ক দেশ গড়ে তুলছেন শেখ হাসিনা : শ ম রেজাউল করিম


আরও খবর



সেন্টমার্টিনে জন সচেতনতায় বিএইচ ট্যুর টিমের প্লাষ্টিক-বর্জ্য পরিষ্কার ও মাস্ক বিতরণ

প্রকাশিত:সোমবার ২৪ জানুয়ারী ২০২২ | হালনাগাদ:সোমবার ২৪ জানুয়ারী ২০২২ | ৩০৫জন দেখেছেন
দর্পণ নিউজ ডেস্ক

Image

তানজিমুল হাসান মায়াজ : দেশের একমাত্র প্রবাল দ্বীপ সেন্টমার্টিনের পরিবেশ রক্ষায় প্লাষ্টিক ও বর্জ্য পরিষ্কার কার্যক্রম পালন করেছে ট্রাভেলার গ্রুপ বিয়ন্ড দ্যা হরিজন (বিএইচ)। এছাড়াও বর্তমান সময়ে করোনার প্রভাব বৃদ্ধি রোধে জনগণকে সচেতন করতে মাস্ক বিতরণ করেছে দ্বীপে ঘুরতে আসা ভ্রমণকারী এই দলটি।২৪ জানুয়ারী পর্যন্ত গত ৫ দিনের সফরে দ্বীপের বিভিন্ন অঞ্চল ঘুরে প্লাষ্টিক ও বর্জ্য পরিষ্কার করে বিয়ন্ড দ্যা হরিজন ট্যুর গ্রুপ।

এছাড়াও ছেড়া দ্বীপের বিভিন্ন অংশে জমে থাকা প্লাষ্টিক বর্জ্য সংগ্রহ করে তারা। বৈশ্বিক মহামারী কোভিড ১৯ ছড়িয়ে পড়ার আগে দ্বীপের পরিবেশ যতটা স্বাভাকিত ছিলো বর্তমান সময়ে তা অত্যন্ত ঝুঁকিপূর্ণ হয়ে পড়েছে। পরিবেশবিদরা বলছেন, সৈকতে নাইলন ও প্লাস্টিকজাত চিপস প্যাকেট, আচারের প্যাকেট, পলিথিন, ক্যান, চায়ের কাপ, বোতল, পানির বোতল, পানির গ্লাস, প্লেট, ডাবের পানি খাওয়ার স্ট্র, খাবার প্যাকেট, ভাঙা চশমা বা কাঠি, মাছ ধরার জালের টুকরো, নাইলন দড়ির টুকরোসহ বিভিন্ন অপচনশীল বর্জ্য দূষিত করছে দ্বীপটিকে।

প্রায় ৮ বর্গ কিলোমিটার উত্তর-দক্ষিণ দৈর্ঘের এই দ্বীপটিতে ১৮৯০ সালে ১৩ টি পরিবার বসতি স্থাপন করে। পরবর্তীতে পর্যটকদের যাতায়াত বাড়তে থাকলে জীব বৈচিত্রে মারাত্মক প্রভাব পড়তে শুরু করে। যার ফলে এই দ্বীপে বসবাসকারী ৬৮ প্রজাতির প্রবাল,১৫১ প্রজাতির শৈবাল, ১৯১ প্রজাতির মোলাস্ক বা কড়ি জাতীয় প্রাণী,৪০ প্রজাতির কাঁকড়া, ২৩৪ প্রজাতির সামুদ্রিক মাছ, ৫ প্রজাতির ডলফিন, ৪ প্রজাতির উভচর প্রাণী, ২৮ প্রজাতির সরীসৃপ প্রাণী,১৭৫ প্রজাতির উদ্ভিদ, ২ প্রজাতির বাদুর সহ নানা প্রজাতির প্রাণীর প্রজনন বৃদ্ধি ও রক্ষায় দ্বীপের পরিবেশ অত্যন্ত ঝুঁকির মুখে।

এসব বিষয়কে গুরুত্বদিয়ে বিএইচ ট্যুর গ্রুপ পরিবেশ রক্ষায় আবর্জনা পরিষ্কার কর্মসূচি পালন করেছে। এছাড়াও নতুন বছরে কোভিড ১৯ এর অমিক্রণ ভ্যারিয়েন্ট দ্রুত সংক্রামক হওয়ায় ভ্রমণকারীদের সচেতন করতে মাস্ক বিতরণ করে দলটি। পরিবেশ রক্ষার এমন অভূতপূর্ব আয়োজনের  আয়োজক ছিলো বিএইচ ট্যুর গ্রুপের এডিমন ফাতেমা বুশরা, এ্যাক্সিকিউটিভ এডমিন তানজিমুল হাসান মায়াজ। এছাড়াও বিভিন্ন সামাজিক সংগঠনের প্রতিষ্ঠাতা ও সিনিয়র সাংবাদিক অলিদুর রহমান অলি আয়োজনে অংশ নেন।

পরিচ্ছন্ন সেন্টমার্টিন ও নিল পানিতে মুগ্ধ হয়ে এর রক্ষণা বেক্ষণের দায়িত্ব সকলের বলে আশা প্রকাশ করেন গ্রুপে অংশ নেয়া রক্ত যোদ্ধা ও ব্যবসায়ী ছবির হোসেন। প্লাষ্টিক - বর্জ্য পরিষ্কার অভিজানে বিএইচ ট্যুর গ্রুপের সদস্যদের চোখে পড়ে একটি ব্যাতিক্রম মাছের ম্যুরাল। যা তৈরী করা হয়েছে সৈকতে পড়ে থাকা প্লাষ্টিকের বোতল ও চিপসের প্যাকেট ব্যবহার করে। এ দৃশ্য দেখে গ্রুপের সদস্যরা ব্যাতিক্রম এই উদ্দ্যোগকে স্বাগত জানায়।

জানা যায়, প্লাষ্টিক দিয়ে তৈরী মাছের এই ম্যুরাল তৈরীতে আর্থিক সহযোগিতা কেরেছেন, কৃষি গবেষণা ফাউন্ডেশনের (কেজিএফ) আর্থিক সহায়তায় শেরেবাংলা কৃষি বিশ্ববিদ্যালয়ের (শেকৃবি) ফিশারিজ, অ্যাকোয়াকালচার ও মেরিন সায়েন্স অনুষদ এর উদ্যোক্তা। তৈরিতে সহযোগিতায় ছিলেন চট্টগ্রাম ভেটেরিনারি অ্যান্ড অ্যানিমল সায়েন্সেস বিশ্ববিদ্যালয়ের ফিশারিজ অনুষদ ও জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয়ের চারুকলা বিভাগের কয়েকজন শিক্ষার্থী।

নিউজ ট্যাগ: মাস্ক বিতরণ

আরও খবর



এবার করোনায় আক্রান্ত মিথিলা

প্রকাশিত:শনিবার ০৮ জানুয়ারী ২০২২ | হালনাগাদ:শনিবার ০৮ জানুয়ারী ২০২২ | ৪১৫জন দেখেছেন
দর্পণ নিউজ ডেস্ক

Image

চলতি বছরের শুরুতেই করোনাভাইরাসে আক্রান্ত হন অভিনেত্রী রাফিয়াত রশিদ মিথিলার বর্তমান স্বামী ভারতীয় নির্মাতা সৃজিত মুখার্জি। এর কদিন পর (৫ জানুয়ারি) গায়ক-অভিনেতা তাহসান খান ও মিথিলার মেয়ে আইরা তেহরীম খানও করোনায় আক্রান্ত হয়। অবশেষে মিথিরাও করোনার থাবায় পড়লেন। গতকাল শুক্রবার তার কোভিড টেস্ট পজিটিভ এসেছে বলে নিশ্চিত করেছেন এই তারকা। ফলে পরিবারের সবাই এখন ভাইরাসটিতে আক্রান্ত হলেন।

মিথিলা বলেন, কয়েক দিন ধরেই আমরা সাবধানে ছিলাম। কিন্তু আমার মধ্যেও করোনার লক্ষণ ছিল। ফলে ৩-৪ দিন আগে পরীক্ষা করিয়েছিলাম। তখন কিন্তু নেগেটিভ এসেছিল। গত পরশু (বৃহস্পতিবার) আবারও নমুনা পরীক্ষা করালে গতকাল বিকেলে পজিটিভ রিপোর্ট আসে।

মিথিলা জানান, অল্প কাশি ও ঠাণ্ডা আছে। এছাড়া তিনি আর কোনও সমস্যা অনুভব করছেন না। স্বামী-সন্তান এখন বেশ ভালো আছে। তাদের জ্বর নেই। বর্তমানে তারা সবাই কলকাতায় সৃজিতের বাসাতেই আছেন।


আরও খবর
টাকা দিয়ে ভোট কিনছেন জায়েদ খান : নিপুণ

শুক্রবার ২৮ জানুয়ারী ২০২২




আইসিটি প্রতিমন্ত্রীকে আমেরিকায় ঢুকতে না দেওয়ার ‘গুজব’

প্রকাশিত:মঙ্গলবার ০৪ জানুয়ারী ২০২২ | হালনাগাদ:মঙ্গলবার ০৪ জানুয়ারী ২০২২ | ৮৫৫জন দেখেছেন
দর্পণ নিউজ ডেস্ক

Image

তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তি (আইসিটি) প্রতিমন্ত্রী জুনাইদ আহমেদ পলক আমেরিকায় ঢুকতে পারেননি-এমন গুজব ছড়িয়েছে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে। বাংলাদেশের বিভিন্ন ব্যক্তি ও প্রতিষ্ঠানের ওপর আমেরিকা সরকারের নিষেধাজ্ঞাকে কেন্দ্র করে আইসিটি প্রতিমন্ত্রীকে নিয়ে এ গুজব ছড়ানো হয়েছে।

অনলাইনে গুজবকারীরা বলছেন, রাষ্ট্রীয় সফর থাকার পরও প্রতিমন্ত্রী আমেরিকায় ঢুকতে পারেননি। তবে বিষয়টিকে মিথ্যাচার বলে দাবি করেছেন প্রতিমন্ত্রী জুনাইদ আহমেদ পলক। তার সফরের বিস্তারিত উল্লেখ করে নিজের ফেসবুক পেজে পাল্টা পোস্টও দিয়েছেন তিনি।

গত রবিবার কবীর আহমেদ নামের এক প্রবাসীর আইডি থেকে প্রতিমন্ত্রী পলকের একটি ছবি এবং বাংলাদেশ সরকারের জিও (গভর্মেন্ট অর্ডার) সংযুক্ত করে একটি পোস্ট করা হয়। পোস্টে তিনি লেখেন, প্রতিমন্ত্রী পলককে ঢুকতে দেয়নি আমেরিকা। তার নির্ধারিত কর্মসূচি ছিল ওয়াশিংটন ও নিউ ইয়র্কে। কিন্তু তাও তাকে ঢুকতে দেয়নি।

প্রতিক্রিয়ায় প্রতিমন্ত্রী পলক নিজের ভেরিফাইড ফেসবুক পেজে পোস্ট লিখেছেন, আমি আন্তরিকভাবে ধন্যবাদ জানাচ্ছি ডিরেক্টর অফ হার্ভার্ড ইউনিভার্সিটি সাউথ এশিয়া ইন্সটিটিউটের প্রফেসর তারুন খান্নাকে। এক্সিকিউটিভ ডিরেক্টর অফ হার্ভার্ড ইউনিভার্সিটি সাউথ এশিয়া ইন্সটিটিউট হিতেশ হাথি এবং মিনাকে যে ক্রিসমাসের ছুটি এবং প্রচণ্ড ঠাণ্ডা থাকা সত্বেও হার্ভার্ডে প্রায় দুই ঘণ্টার বেশি আমাদের বাংলাদেশের জ্ঞানভিত্তিক অর্থনীতি গড়ার জন্য কিভাবে আমরা কাজ করতে পারি নলেজ পার্টনার হিসেবে সে বিষয়ে আলোচনা করার জন্য এবং আমাকে হার্ভার্ডে আপ্যায়ন করার জন্য।

পলক লিখেছেন, এইবারই প্রথম আমি বোস্টন থেকে (ডেল্টা ফ্লাইট নং ৫৭৯৮) ফ্লাইটে ওয়াশিংটন ভ্রমণ করলাম। যার অভিজ্ঞতাও অত্যন্ত ভালো ছিল। ২৫ ডিসেম্বর টরন্টো থেকে রওনা হয়ে ২৬-২৭ তারিখ বোস্টন ভিজিট শেষে ২৮ ডিসেম্বর ওয়াশিংটনে পৌঁছাই।

ফেসবুক পোস্টে পলক আরো বলেন, ওয়াশিংটনের হিষ্ট্রি মিউজিয়াম, সায়েন্স মিউজিয়াম, হোয়াইট হাউসসহ অনেক কিছুই পরিদর্শন করেছি। এবারের বিশেষত্ব হচ্ছে, বাংলাদেশের তিনজন ওয়ার্ল্ড ব্যাংকে নিযুক্ত কর্মকর্তা তাদের সঙ্গে বৈঠক এবং আমার পরিবারের সদস্যদের নিয়ে আমার দীর্ঘদিনের সখ ছিল তাদেরকে হোয়াইট হাউজ, লিংকন মেমোরিয়াল এবং ওয়াশিংটনের বিভিন্ন মেমোরিয়াল দেখানোর। এর সঙ্গে সায়েন্স মিউজিয়াম ওয়াশিংটন হিষ্ট্রি মিউজিয়াম দেখে আমার সন্তান অপূর্ব, অর্জন এবং অনির্বাণ ভীষণ খুশি।

আমি আরো ধন্যবাদ জানাই ওয়াশিংটনে নিযুক্ত বাংলাদেশের রাষ্ট্রদূত শহীদুল ইসলামকে। এই তীব্র শীতের মধ্যে এবং ছুটির মধ্যেও বেশ কয়েকটি গুরুত্বপূর্ণ বৈঠক আয়োজন করার জন্য। ধন্যবাদ জানাই বাংলাদেশের সাবেক মন্ত্রিপরিষদ সচিব এবং বর্তমানে বিশ্ব ব্যাংকে নিযুক্ত আমাদের স্থায়ী প্রতিনিধি শফিউল আলম এবং বিশ্বব্যাংককে বাংলাদেশের আরো দুজন নিযুক্ত কর্মকর্তাকে তাদের বৈঠক এবং রাতের আপ্যায়নের জন্য।

গত ২৫-২৮ ডিসেম্বর বোস্টন ও ওয়াশিংটন সফর শেষে ঢাকায় ফিরেছি। আশা করছি হার্ভার্ড এবং ওয়ার্ল্ড ব্যাংকের সঙ্গে আমরা কাজ করবো। ২০৪১ সালে প্রধানমন্ত্রী জননেত্রী শেখ হাসিনার জ্ঞানভিত্তিক অর্থনীতি, উদ্ভাবনী জাতি এবং স্মার্ট বাংলাদেশ বিনির্মাণে এই সফরটি সহযোগিতা করবে।

জুনাইদ আহমেদ পলক গণমাধ্যমকে বলেন, অনলাইনে নানা ধরণের গুজব তৈরি সৃষ্টি করছে জামাত-বিএনপির এজেন্টরা। আমার ক্ষেত্রে যেটি ঘটল সেটি তাদের মিথ্যাচারের একটি উজ্জ্বল উদাহরণ। এগুলোকে আমরা কেস স্টাডি হিসেবে দেখছি।

আইসিটি প্রতিমন্ত্রী ২১ ডিসেম্বর সরকারি সফরে কানাডার উদ্দেশে ঢাকা ত্যাগ করেন।


আরও খবর



কোভিড উদ্বেগে রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা বাড়াতে ভরসা থাকুক রসুনে

প্রকাশিত:রবিবার ০৯ জানুয়ারী ২০২২ | হালনাগাদ:রবিবার ০৯ জানুয়ারী ২০২২ | ৩৭০জন দেখেছেন
দর্পণ নিউজ ডেস্ক

Image

কোভিড উদ্বেগে নিজে সুস্থ থাকতে ও পরিজনদের সুস্থ রাখতে অনেকেই জোর দিচ্ছেন রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা বৃদ্ধির উপর। আর রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা বাড়াতে একটি কার্যকর উপাদান হয়ে উঠতে পারে রসুন। শুধু আধুনিক পুষ্টিবিদরাই নন, প্রাচীন আয়ুর্বেদের মধ্যেও রয়েছে রসুনের গুণাগুণ সংক্রান্ত নানা তথ্য। এক ঝলকে দেখে নিন এই কঠিন সময়ে কী ভাবে রসুনই হয়ে উঠতে পারে আপনার বন্ধু।

১। রসুনে থাকে ভিটামিন বি, ম্যাগনেশিয়াম, ফসফরাস, সোডিয়াম, আয়রন ও জিঙ্কের মতো নানা খনিজ। পাশাপাশি এতে থাকে অ্যালিসিন নামক একটু উপাদান যা বিভিন্ন রোগ প্রতিরোধ করতে সাহায্য করে।

২। রসুনে প্রচুর পরিমাণে অ্যান্টি অক্সিডেন্ট থাকে যা পক্স, শ্বসনতন্ত্রের নানা রোগ ও সাধারণ সর্দি জ্বর নিরাময়ে চমকপ্রদ কাজ করে। তাই করোনা-স্ফীতির বহু আগে থেকেই শ্বাস যন্ত্রের নানা রোগের পথ্য হিসেবে রসুনের প্রচলন রয়েছে।

৩। বিশেষজ্ঞদের মতে হার্ট ভাল রাখতেও বেশ উপযোগী রসুন। রসুনে উপস্থিত অ্যালিসিন রক্তে ট্রাইগ্লিসারাইড এর পরিমাণ কমাতে সাহায্য করে ফলে ভালো থাকে সংবহনতন্ত্র।

৪। বিভিন্ন জীবাণুর আক্রমণ প্রতিরোধ করতেও রসুন বেশ কার্যকর। পাশাপাশি রক্তে শর্করার পরিমাণ হ্রাস করতে সাহায্য করে রসুন। প্রাকৃতিক উপায়ে প্রদাহ নির্মূল করতেও রসুন সহায়তা করে বলে মত বিশেষজ্ঞদের।

নিউজ ট্যাগ: রসুন

আরও খবর
আজ আপনার জন্মদিন হলে

শুক্রবার ২৮ জানুয়ারী ২০২২




করোনায় আরও ১৭ মৃত্যু, শনাক্ত ১৫৫২৭

প্রকাশিত:বুধবার ২৬ জানুয়ারী ২০২২ | হালনাগাদ:বুধবার ২৬ জানুয়ারী ২০২২ | ২২০জন দেখেছেন
দর্পণ নিউজ ডেস্ক

Image

দেশে করোনাভাইরাসে আক্রান্ত হয়ে সারাদেশে গত ২৪ ঘণ্টায় আরও ১৭ জনের মৃত্যু হয়েছে। মৃতদের মধ্যে ১৩ জন পুরুষ এবং চারজন নারী। তাদের মধ্যে সরকারি হাসপাতালে ১২ জন এবং বেসরকারি হাসপাতালে ৫ জনের মৃত্যু হয়। এ নিয়ে দেশে প্রাণঘাতী এ ভাইরাসে আক্রান্ত হয়ে মৃতের সংখ্যা বেড়ে দাঁড়িয়েছে ২৮ হাজার ২৭৩ জনে।

একই সময়ে করোনা আক্রান্ত হিসেবে শনাক্ত হয়েছেন আরও ১৫ হাজার ৫২৭ জন রোগী। এ নিয়ে দেশে এখন পর্যন্ত শনাক্ত রোগীর সংখ্যা বেড়ে দাঁড়ালো ১৭ লাখ ৩১ হাজার ৫২৪ জনে। এসময়ে নমুনা পরীক্ষার বিপরীতে শনাক্তের হার ৩১ দশমিক ৬৪ শতাংশ। বুধবার (২৬ জানুয়ারি) স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের করোনাবিষয়ক নিয়মিত সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে এ তথ্য জানানো হয়।

এর আগে মঙ্গলবার (২৫ জানুয়ারি) ২৪ ঘণ্টায় ১৮ জনের মৃত্যু এবং ১৬ হাজার ৩৩ জন নতুন রোগী শনাক্তের তথ্য জানিয়েছিল স্বাস্থ্য অধিদপ্তর। নমুনা পরীক্ষার বিপরীতে শনাক্তের হার ছিল ৩২ দশমিক ৪০ শতাংশ।

অধিদপ্তরের বিজ্ঞপ্তিতে বলা হয়, ২৪ ঘণ্টায় সারাদেশের ৮৬০টি সরকারি-বেসরকারি ল্যাবরেটরিতে ৪৯ হাজার ২৭৫টি নমুনা সংগ্রহ এবং ৪৯ হাজার ৭৩টি নমুনা পরীক্ষা করা হয়। নমুনা পরীক্ষার বিপরীতে শনাক্তের হার ৩১ দশমিক ৬৪ শতাংশ। দেশে করোনার সংক্রমণ শুরুর পর এ পর্যন্ত নমুনা পরীক্ষা করা হয়েছে এক কোটি ২২ লাখ ৬১ হাজার ২৫২ জনের। মোট নমুনা পরীক্ষার বিপরীতে শনাক্তের হার ১৪ দশমিক ১২ শতাংশ।

এদিকে, সারাদেশে একদিনে করোনাভাইরাস থেকে সেরে উঠেছেন এক হাজার ৫২ জন। এ নিয়ে এখন পর্যন্ত করোনা থেকে সুস্থ হয়েছেন ১৫ লাখ ৬০ হাজার ছয়জন।

বিভাগওয়ারী হিসাবে ২৪ ঘণ্টায় মৃতদের মধ্যে ঢাকা বিভাগেরই ১০ জন। চট্টগ্রামের চারজন এবং রাজশাহী, খুলনা, ময়মনসিংহ বিভাগে একজন করে মারা গেছেন।

২০২০ সালের ৮ মার্চ দেশে প্রথম করোনাভাইরাসে আক্রান্ত রোগী শনাক্ত হয়। ১৮ মার্চ প্রথম মৃত্যুর তথ্য দেয় স্বাস্থ্য অধিদপ্তর। ওই বছরের শেষ দিকে সংক্রমণ কিছুটা কমলেও গত বছরের এপ্রিল থেকে জুন-জুলাই পর্যন্ত করোনার ডেল্টা ধরন ব্যাপক আকার ধারণ করে।

নিউজ ট্যাগ: করোনাভাইরাস

আরও খবর
করোনায় আরও ২০ জনের মৃত্যু, শনাক্ত ১৫৪৪০

শুক্রবার ২৮ জানুয়ারী ২০২২

করোনায় মৃত্যু ১৫, শনাক্ত ১৫ হাজার ৮০৭ জন

বৃহস্পতিবার ২৭ জানুয়ারী ২০২২