আজঃ শনিবার ২৯ জানুয়ারী ২০২২
শিরোনাম

সাতছড়িতে অস্ত্রের সন্ধানে অভিযান চলছে

প্রকাশিত:সোমবার ২৭ ডিসেম্বর ২০২১ | হালনাগাদ:সোমবার ২৭ ডিসেম্বর ২০২১ | ৫৬৮০জন দেখেছেন
দর্পণ নিউজ ডেস্ক

Image
সর্বশেষ ১৩ আগস্ট হবিগঞ্জের চুনারুঘাটের সাতছড়ি জাতীয় উদ্যান সংলগ্ন একটি ব্রিজের পাশ থেকে পরিত্যক্ত অবস্থায় ৯টি একনলা বন্দুক, ৩টি পিস্তল ও ১৯ রাউন্ড গুলি উদ্ধার করেছে বিজিবি

হবিগঞ্জের সাতছড়ির গহিন অরণ্যে অস্ত্রের সন্ধানে অভিযান চলছে। সোমবার (২৭ ডিসেম্বর) ভোর থেকে কাউন্টার টেররিজমের একটি দল সতর্কতার সঙ্গে অভিযান চালাচ্ছে।

হবিগঞ্জের অতিরিক্ত পুলিশ সুপার শৈলেন চাকমা বিষয়টি নিশ্চিত করে জানান, অভিযান চলছে।

বিজিবির ৫৫ ব্যাটালিয়নের অধিনায়ক সামিউন্নবী চৌধুরী জানান, আমি বিষয়টি জানি না। তবে শুনেছি কাউন্টার টেররিজমের একটি টিম অভিযান চালাচ্ছে।

উল্লেখ্য, ২০১৪ সালের ১ জুন থেকে ১৭ সেপ্টেম্বর পর্যন্ত তিন দফায় অভিযান চালিয়ে সাতছড়ি জাতীয় উদ্যান থেকে ৩৩৪টি কামান বিধ্বংসী রকেট, ২৯৬টি রকেট চার্জার, একটি রকেট লঞ্চার, ১৬টি মেশিনগান এবং প্রায় ১৬ হাজার রাউন্ড বুলেটসহ বিপুল পরিমাণ গোলাবারুদ উদ্ধার করে র‌্যাব।

এরপর একই বছরের ১৬ অক্টোবর থেকে চতুর্থ দফায় প্রথম পর্যায়ে উদ্যানের গহীন অরণ্যে মাটি খুঁড়ে ৩টি মেশিনগান, ৪টি ব্যারেল, ৮টি ম্যাগজিন, ২৫০ গুলির ধারণক্ষমতাসম্পন্ন ৮টি বেল্ট ও উচ্চক্ষমতাসম্পন্ন রেডিও উদ্ধার করা হয়। পরে ১৭ অক্টোবর দুপুরে এসএমজি ও এলএমজির ৮ হাজার ৩৬০ রাউন্ড, রাইফেলের ১৫২ রাউন্ড, পিস্তলের ৫১৭ রাউন্ড, মেশিনগানের ৪২৫ রাউন্ডসহ মোট ৯ হাজার ৪৫৪ রাউন্ড বুলেট উদ্ধার করা হয়।

পঞ্চম দফায় ২০১৮ সালের ২ ফেব্রুয়ারি সাতছড়িতে অভিযান চালিয়ে ১০টি হাই এক্সক্লুসিভ ৪০ এমএম অ্যান্টি-ট্যাংক রকেট উদ্ধার করা হয়। ষষ্ঠ দফায় ২০১৯ সালের ২৪ নভেম্বর সাতছড়ি জাতীয় উদ্যান থেকে ১৩টি রকেট লঞ্চারের শেলসহ বেশ কিছু বিস্ফোরক উদ্ধার করা হয়। গত ২ মার্চ বিজিবি অভিযান চালিয়ে ১৮টি ট্যাংক বিধ্বংসী রকেট গোলা উদ্ধার করে। সর্বশেষ ১৩ আগস্ট হবিগঞ্জের চুনারুঘাটের সাতছড়ি জাতীয় উদ্যান সংলগ্ন একটি ব্রিজের পাশ থেকে পরিত্যক্ত অবস্থায় ৯টি একনলা বন্দুক, ৩টি পিস্তল ও ১৯ রাউন্ড গুলি উদ্ধার করেছে বিজিবি।

নিউজ ট্যাগ: হবিগঞ্জ

আরও খবর
হবিগঞ্জে এসপিসহ ৫৪ পুলিশের বিরুদ্ধে মামলা

বৃহস্পতিবার ৩০ ডিসেম্বর ২০২১




বাংলাদেশ ফুটবল ফেডারেশনের পাশে থাকবে বসুন্ধরা গ্রুপ

প্রকাশিত:বৃহস্পতিবার ৩০ ডিসেম্বর ২০২১ | হালনাগাদ:বৃহস্পতিবার ৩০ ডিসেম্বর ২০২১ | ৫২০জন দেখেছেন
দর্পণ নিউজ ডেস্ক

Image

আর্থিক সংকট মেটাতে বাংলাদেশ ফুটবল ফেডারেশনের পাশে থাকার ঘোষণা দিয়েছেন দেশের শীর্ষ শিল্পগোষ্ঠী বসুন্ধরা গ্রুপের ব্যবস্থাপনা পরিচালক (এমডি) ও দেশসেরা ক্লাব শেখ রাসেল ক্রীড়া চক্রের চেয়ারম্যান সায়েম সোবহান আনভীর।

বৃহস্পতিবার রাজধানীর ইন্টারন্যাশনাল কনভেনশন সিটি বসুন্ধরার (আইসিসিবি)পুষ্পগুচ্ছ হলে বাংলাদেশ অনুর্ধ্ব-১৯ নারী ফুটবল দলের সংবর্ধনা অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তব্যে তিনি এ ঘোষণা দেন।

সায়েম সোবহান আনভীর বক্তব্যের শুরুতেই সাফ অনুর্ধ-১৯ নারী চ্যাম্পিয়নশিপ ফুটবলে চ্যাম্পিয়ন হওয়া বাংলাদেশ অনুর্ধ্ব-১৯ দলের কর্মকর্তা এবং বাংলাদেশ ফুটবল ফেডারেশনকে (বাফুফে) অভিনন্দন জানান।

তিনি বলেন, আমি বসুন্ধরা গ্রুপের পক্ষ থেকে ঘোষণা দিচ্ছি, বাংলাদেশ ফুটবল ফেডারেশনের (বাফুফে) পাশে দাঁড়াবো। আমাদের দেশের জন্ম দিয়েছেন বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান। কিন্তু আমাদের দেশের নেতৃত্ব দিচ্ছেন বঙ্গবন্ধু্র কন্যা। একজন নারী। জননেত্রী শেখ হাসিনা। প্রধানমন্ত্রীর উৎসাহ না পেলে আমরা খেলাধুলায় (স্পোর্টস) আসতাম না। প্রধানমন্ত্রী একদিন ডেকে বললেন, তোমরা স্পোর্টসে আসো। প্রধানমন্ত্রী ক্ষমতায় আসার পরে আমরা একটার পর একটা টিমে এসেছি। আমি শেখ রাসেল ক্রীড়া চক্রের চেয়ারম্যান, আমার ছোট ভাই সাফওয়ান সোবহান শেখ জামাল ধানমণ্ডি ক্লাবের প্রেসিডেন্ট। আমাদের বসুন্ধরা কিংস আছে। বিভিন্ন স্পোর্টস কার্যক্রম রয়েছে আমাদের। কারণ তরুণদের বিনোদনের একমাত্র উপায় হচ্ছে স্পোর্টস। আপনারা দোয়া করবেন বসুন্ধরা গ্রুপ যেন সব সময় স্পোর্টসের সঙ্গে থাকতে পারে। আমি প্রধানমন্ত্রীকে অনুরোধ করবো, তিনি আমাদের আরও বেশি উৎসাহ দিলে আমরা বাংলাদেশের স্পোর্টসকে আন্তর্জাতিক পরিমণ্ডলে নিয়ে যেতে পারবো ইনশাল্লাহ। 

বাংলাদেশ ফুটবল ফেডারেশনের সাধারণ সম্পাদক আবু নাইম সোহাগের বক্তব্যের পরিপ্রেক্ষিতে বসুন্ধরা গ্রুপের এমডি বলেন, আমার শুনে খুব দুঃখ লাগলো, আপনাদের (বাফুফে) ৩০ হাজার টাকার জন্য মানুষের কাছে হাত পাততে হয়। এখন লাখ টাকা দিয়েও টিম পরিচালনা করা যায় না। টিম চালানোর জন্য এখন কোটি কোটি টাকা দরকার। টাকার অভাবে ফুটবল টিম চালাতে পারে না বাংলাদেশ ফুটবল ফেডারেশন, এটা খুবই কষ্টের। তাই বসুন্ধরা গ্রুপ বাফুফের পাশে থাকতে চায়


আরও খবর
সাড়ে ৩ বছর নিষিদ্ধ ব্রেন্ডন টেলর

শুক্রবার ২৮ জানুয়ারী ২০২২




এবারের বাণিজ্যমেলা পূর্বাচলে, পর্দা উঠছে কাল

প্রকাশিত:শুক্রবার ৩১ ডিসেম্বর ২০২১ | হালনাগাদ:শুক্রবার ৩১ ডিসেম্বর ২০২১ | ৫৪৫জন দেখেছেন
দর্পণ নিউজ ডেস্ক

Image

ইংরেজি নতুন বছরের শুরুর দিনই পর্দা উঠছে ঢাকা আন্তর্জাতিক বাণিজ্যমেলার (ডিআইটিএফ) ২৬তম আসরের।

শনিবার (১ জানুয়ারি) পূর্বাচলে নবনির্মিত বঙ্গবন্ধু বাংলাদেশ-চায়না ফ্রেন্ডশিপ এক্সিবিশন সেন্টারে মাসব্যাপী চলবে বাণিজ্যমেলা। প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা গণভবন থেকে ভিডিও কনফারেন্সের মাধ্যমে আগামীকাল মেলার উদ্বোধন করবেন।

এদিকে, শুক্রবার (৩১ ডিসেম্বর) ঢাকা আন্তর্জাতিক বাণিজ্য মেলা-২০২২ উপলক্ষে আয়োজিত সংবাদ সম্মেলনে এ তথ্য জানানো হয়। মেলার এক্সিবিশন সেন্টারে রপ্তানি উন্নয়ন ব্যুরো এ সংবাদ সম্মেলনের আয়োজন করে। এসময় বাণিজ্যমন্ত্রী টিপু মুনশি প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন।

সংবাদ সম্মেলনে বলা হয়, রপ্তানি বাণিজ্য উন্নয়নের অন্যতম প্রধান কৌশল হচ্ছে পণ্য উন্নয়ন ও পণ্যের বাজার সৃষ্টি। আর পণ্যের বাজার সৃষ্টির অন্যতম প্রধান কৌশল হচ্ছে আন্তর্জাতিক বাণিজ্যমেলা আয়োজন ও মেলায় অংশগ্রহণ। প্রধানমন্ত্রীর দিক নির্দেশনায় বাণিজ্যমেলার নবনির্মিত এই স্থায়ী ভেন্যুতে এবারের মেলা আয়োজনের মধ্য দিয়ে দেশের ব্যবসা-বাণিজ্য উন্নয়ন ও সম্প্রসারণে যুক্ত হতে যাচ্ছে এক নতুন অধ্যায়।

দেশীয় পণ্যের প্রচার, প্রসার, বিপণন ও উৎপাদনে সহায়তা দেওয়ার লক্ষ্যে বাণিজ্য মন্ত্রণালয় ও রপ্তানি উন্নয়ন ব্যুরোর যৌথ উদ্যোগে ১৯৯৫ সাল থেকে ঢাকা আন্তর্জাতিক বাণিজ্যমেলা আয়োজন করা হচ্ছে। এবারই প্রথম স্থায়ী কমপ্লেক্সে এ মেলা অনুষ্ঠিত হচ্ছে।

এতে আরও জানানো হয়, অন্যান্য বছরের মতো মাসব্যাপী এ মেলা সকাল ১০টা থেকে শুরু হয়ে চলবে রাত ৯টা পর্যন্ত (সাপ্তাহিক ছুটির দিনে রাত ১০টা পর্যন্ত)। মেলার প্রবেশমূল্য প্রাপ্তবয়স্কদের ৪০ টাকা, শিশুদের ২০ টাকা।

২০২২ সালে আয়োজিত মেলায় প্রদর্শিত পণ্যের মধ্যে রয়েছে দেশীয় বস্ত্র, মেশিনারিজ, কারপেট, কসমেটিকস অ্যান্ড বিউটি এইডস, ইলেকট্রিক্যাল অ্যান্ড ইলেক্ট্রনিকস, ফার্নিচার, পাট ও পাটজাত পণ্য, গৃহ-সামগ্রী, চামড়া ও জুতাসহ চামড়াজাত পণ্য, স্পোর্টস গুডস, স্যানিটারিওয়্যার, খেলনা, স্টেশনারি, ক্রোকারিজ, প্লাস্টিক, মেলামাইন পলিমার, হারবাল ও টয়লেট্রিজ, ইমিটেশন জুয়েলারি, প্রক্রিয়াজাত খাদ্য, হস্তশিল্পজাত পণ্য, হোম ডেকর ইত্যাদি।

বাণিজ্যমেলায় দেশি-বিদেশি বিভিন্ন প্রতিষ্ঠানকে বিভিন্ন ক্যাটাগরির মোট ২৩টি প্যাভিলিয়ন, ২৭টি মিনি প্যাভিলিয়ন, ১৬২টি স্টল ও ১৫টি ফুড স্টল বরাদ্দ দেওয়া হয়েছে।

অত্যাধুনিক সুযোগ-সুবিধাসহ শীতাতপ নিয়ন্ত্রিত এক্সিবিশন সেন্টারের ১৪ হাজার ৩৬৬ বর্গমিটার (প্রায় ১,৫৫,০০০ বর্গফুট) আয়তনের দুটি হলে (Hall-A ও Hall-B) সব স্টল বরাদ্দ দেওয়া হয়। মেলা কমপ্লেক্সের বাইরে (সম্মুখ ও পেছনে) প্যাভিলিয়ন, মিনি প্যাভিলিয়ন ও ফুড স্টল নির্মাণ করা হয়েছে।

নিউজ ট্যাগ: বাণিজ্যমেলা

আরও খবর
কোম্পানির শেয়ার ও ইউনিটের দাম কমেছে

বৃহস্পতিবার ২৭ জানুয়ারী ২০২২

মিশ্র প্রবণতায় চলছে পুঁজিবাজারের লেনদেন

বৃহস্পতিবার ২৭ জানুয়ারী ২০২২




চীনের জে-১০সি যুদ্ধবিমান কিনল পাকিস্তান

প্রকাশিত:শনিবার ০১ জানুয়ারী ২০২২ | হালনাগাদ:শনিবার ০১ জানুয়ারী ২০২২ | ৩৪৫জন দেখেছেন
দর্পণ নিউজ ডেস্ক

Image

চীনের কাছ থেকে জে-১০সি মডেলের ২৫টি যুদ্ধবিমান কিনেছে পাকিস্তান। সম্প্রতি ফ্রান্সের কাছ থেকে ভারত রাফাল যুদ্ধবিমান কেনার পরই পাকিস্তান নিজেদের যুদ্ধবিমানের বহর শক্তিশালী করল। চীনের প্রতিরক্ষা বাহিনীর বহরে থাকা যুদ্ধবিমানগুলোর মধ্যে সবচেয়ে বেশি আস্থা রাখার মতো একটি হলো জে-১০সি মডেলের এই যুদ্ধবিমান।

পাকিস্তানের স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী শেখ রশিদ আহমেদ গণমাধ্যমকে বলেন, আগামী ২৩ মার্চ পাকিস্তান দিবসের অনুষ্ঠানের কুচকাওয়াজে যুদ্ধবিমানগুলো দেখানো হবে। জে-১০সি মডেলের এ যুদ্ধবিমান সব ধরনের আবহাওয়ায়, বিশেষত রাতে, অভিযানের জন্য উপযোগী করে তৈরি।

ভারতের রাফাল কেনার প্রতিক্রিয়ার অংশ হিসেবে পাকিস্তান বিমানবাহিনী এই মহড়া চালাবে বলে উল্লেখ করেন তিনি। ইকোনমিক টাইমসের খবরে বলা হয়, পাকিস্তানের বহরে যুক্তরাষ্ট্রের তৈরি এফ-১৬ যুদ্ধবিমান রয়েছে। এফ-১৬কে ফ্রান্সের রাফালের মতোই সমান শক্তিশালী মনে করা হয়।

কিন্তু ফ্রান্সের কাছ থেকে ভারত রাফাল কেনার পর পাকিস্তান বহুমুখী কাজে লাগানো যায়এমন একটি যুদ্ধবিমান কেনার চেষ্টা করছিল। তারই অংশ হিসেবে চীন থেকে জে-১০সি কিনল।


আরও খবর



নাইকো মামলায় খালেদার অভিযোগ গঠনের শুনানি ৮ মার্চ

প্রকাশিত:মঙ্গলবার ১৮ জানুয়ারী ২০২২ | হালনাগাদ:মঙ্গলবার ১৮ জানুয়ারী ২০২২ | ৩০০জন দেখেছেন
দর্পণ নিউজ ডেস্ক

Image
আদালত সময়ের আবেদন মঞ্জুর করে অভিযোগ গঠন শুনানির জন্য ১৮ জানুয়ারি দিন ধার্য করেন। খালেদা জিয়ার আইনজীবী জিয়া উদ্দিন জিয়া বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন

আলোচিত নাইকো দুর্নীতি মামলায় বিএনপি চেয়ারপারসন বেগম খালেদা জিয়ার বিরুদ্ধে অভিযোগ গঠন শুনানির জন্য আগামী ৮ মার্চ দিন ধার্য করেছেন আদালত।

মঙ্গলবার (১৮ জানুয়ারি) কেরানীগঞ্জ কেন্দ্রীয় কারাগারে অবস্থিত ঢাকার ৯ নম্বর (অস্থায়ী) বিশেষ জজ শেখ হাফিজুর রহমান এই দিন ধার্য করেন।

এদিন খালেদা জিয়া অসুস্থ থাকায় আদালতে উপস্থিত হতে পারেননি। এজন্য তার পক্ষে আইনজীবী অভিযোগ গঠন শুনানি পেছানোর জন্য সময়ের আবেদন করেন। আদালত সময়ের আবেদন মঞ্জুর করে অভিযোগ গঠন শুনানির জন্য ১৮ জানুয়ারি দিন ধার্য করেন। খালেদা জিয়ার আইনজীবী জিয়া উদ্দিন জিয়া বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন।

মামলা সূত্রে জানা গেছে, কানাডিয়ান প্রতিষ্ঠান নাইকোর সঙ্গে অস্বচ্ছ চুক্তির মাধ্যমে রাষ্ট্রের আর্থিক ক্ষতিসাধন ও দুর্নীতির অভিযোগে ২০০৭ সালের ৯ ডিসেম্বর দুর্নীতি দমন কমিশনের (দুদক) সহকারী পরিচালক মুহাম্মদ মাহবুবুল আলম তেজগাঁও থানায় খালেদা জিয়াসহ পাঁচজনের বিরুদ্ধে দুর্নীতির মামলাটি করেন।

২০১৮ সালের ৫ মে খালেদা জিয়াসহ ১১ জনের বিরুদ্ধে আদালতে অভিযোগপত্র দাখিল করা হয়। এতে তাদের বিরুদ্ধে রাষ্ট্রের প্রায় ১৩ হাজার ৭৭৭ কোটি টাকা আর্থিক ক্ষতির অভিযোগ আনা হয়।

মামলার আসামিরা হলেন- বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য ব্যারিস্টার মওদুদ আহমদ (প্রয়াত), সাবেক জ্বালানি প্রতিমন্ত্রী এ কে এম মোশাররফ হোসেন (প্রয়াত), সেসময়ের প্রধানমন্ত্রীর মুখ্য সচিব কামাল উদ্দিন সিদ্দিকী, জ্বালানি ও খনিজসম্পদ মন্ত্রণালয়ের সাবেক ভারপ্রাপ্ত সচিব খন্দকার শহীদুল ইসলাম, সাবেক সিনিয়র সহকারী সচিব সি এম ইউছুফ হোসাইন, বাপেক্সের সাবেক মহাব্যবস্থাপক মীর ময়নুল হক, বাপেক্সের সাবেক সচিব মো. শফিউর রহমান, ব্যবসায়ী গিয়াস উদ্দিন আল মামুন, বাগেরহাটের সাবেক সংসদ সদস্য এম এ এইচ সেলিম ও নাইকোর দক্ষিণ এশিয়া-বিষয়ক ভাইস প্রেসিডেন্ট কাশেম শরীফ।

নিউজ ট্যাগ: খালেদা জিয়া

আরও খবর



সংবাদ প্রচার করা আইপি টিভি বন্ধে জেলা প্রশাসকদের নির্দেশ

প্রকাশিত:বৃহস্পতিবার ২০ জানুয়ারী ২০22 | হালনাগাদ:বৃহস্পতিবার ২০ জানুয়ারী ২০22 | ৩৮৫জন দেখেছেন
দর্পণ নিউজ ডেস্ক

Image

যেসব ইউটিউব চ্যানেল ও নিবন্ধনবিহীন আইপিটিভিতে সংবাদ প্রচার করা হয় সেসব বন্ধে দেশের সব জেলা প্রশাসককে নির্দেশ দিয়েছেন তথ্য ও সম্প্রচারমন্ত্রী ড. হাছান মাহমুদ।

তিনি বলেছেন, সম্প্রচার নীতিমালা অনুযায়ী তারা এসব সংবাদ প্রচার করতে পারে না। কিন্তু দেশের কোনো কোনো জায়গায় এখনও আইপিটিভির মাধ্যমে সংবাদ প্রচার করা হয় এবং ইউটিউবের মাধ্যমেও সংবাদের বুলেটিন প্রচার করা হয়। এটি আমাদের সম্প্রচার নীতিমালা অনুযায়ী করতে পারে না।

বৃহস্পতিবার (২০ জানুয়ারি) রাজধানীর ওসমানী স্মৃতি মিলনায়তনে জেলা প্রশাসক সম্মেলনের এক অধিবেশন শেষে সাংবাদিকদের এ কথা বলেন তিনি।

 হাছান মাহমুদ বলেন, আমরা জেলা প্রশাসকদের কাছে সেই কথাটাই বলেছি, অনেক আইপিটিভি স্থানীয়ভাবে অনেক পপুলার। মানুষ তাদেরকে চিনে এবং নিয়মিত তাদের খবর প্রচার করছে। আমি বলছি সম্প্রচার নীতিমালা অনুযায়ী তারা এটা পারেন না এবং তারা যেন এ ব্যাপারে কার্যকর ব্যবস্থা নেয়।

তিনি জেলা প্রশাসকদের ধন্যবাদ জানিয়ে বলেন, গত বছর থেকে তারা যেভাবে ক্লিন ফিড বাস্তবায়নের জন্য মোবাইল কোর্ট পরিচালনা করেছেন এজন্য তাদের ধন্যবাদ জানিয়েছি। গত বছরের ১ অক্টোবর থেকে ক্লিন ফিড বাস্তবায়ন করা হয়েছে। এখনও তাদের সে ব্যাপারে নজর রাখতে বলেছি। যারা কেবল নেটওয়ার্ক প্রচার করেন তারা যেন স্থানীয়ভাবে টেলিভিশন চ্যানেল হিসেবে কোনো অনুষ্ঠান প্রচার না করে সেই ব্যাপারে সজাগ থাকতে বলেছি।

নিউজ ট্যাগ: আইপি টিভি

আরও খবর
ডিআরইউ’র সভাপতি মিঠু, সম্পাদক হাসিব

মঙ্গলবার ৩০ নভেম্বর ২০২১