আজঃ রবিবার ০৩ মার্চ ২০২৪
শিরোনাম

সাইবার অপরাধীদের নতুন অস্ত্র চ্যাটজিপিটি

প্রকাশিত:শনিবার ১১ মার্চ ২০২৩ | হালনাগাদ:শনিবার ১১ মার্চ ২০২৩ | অনলাইন সংস্করণ
বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি ডেস্ক

Image

প্রযুক্তির পরিবর্তনের সঙ্গে পাল্লা দিয়ে বাড়ছে সাইবার অপরাধ। গুগলের মতো সার্চ ইঞ্জিনের বিকল্প হিসেবে সম্প্রতি বাজারে এসেছে কৃত্রিম বুদ্ধিমত্তা (এআই) নির্ভর চ্যাটজিপিটি। পূর্বনির্ধারিত ও প্রশিক্ষিত ভাষাভিত্তিক এই চ্যাটবটকে ‍মুক্তিপণ আদায়ের নতুন অস্ত্র হিসেবে ব্যবহার করছেন সাইবার অপরাধীরা।

ক্যামব্রিজভিত্তিক সাইবার নিরাপত্তা প্রতিষ্ঠান ডার্করেস এক প্রতিবেদনে জানায়, চ্যাটজিপিটি বাজারে আসার আগ পর্যন্ত কোনো ব্যক্তি বা ব্যবসা প্রতিষ্ঠান থেকে মুক্তিপণ আদায়ের জন্য সাইবার অপরাধীদের বড় অস্ত্র ছিল ই-মেইল।

ফাঁদে ফেলার জন্য কোনো ব্যক্তি বা প্রতিষ্ঠানের ই-মেইল আইডিতে একটি ভাইরাসসমৃদ্ধ লিংক পাঠাতো সাইবার অপরাধীরা। লিংকটিতে ক্লিক করলেই ব্যস, ওই ব্যক্তি বা প্রতিষ্ঠানটির গুরুত্বপূর্ণ সব তথ্য হাতিয়ে নিতে পারত তারা। এরপর সেগুলো ফেরত দেওয়ার জন্য ভুক্তভোগীদের কাছে বিপুল অর্থ দাবি করা হতো। কিন্তু চ্যাটজিপিটির কারণে এখন আর সে ধরনের লিংক পাঠানোর দরকার নেই। কারণ এখন চ্যাটজিপিটিকে কাজে লাগিয়ে অন্যভাবে যে কোনো প্রতিষ্ঠান সম্পর্কে বিভিন্ন গুরুত্বপূর্ণ তথ্য জানা সম্ভব বলে মনে করে ডার্করেস।

ডার্করেসের প্রতিবেদনে বলা হয়, চ্যাটজিপিটি বাজারে আসার পর আমাদের কাস্টমারদের আইডিতে আক্রমণ স্থিতিশীল রয়েছে। এর একটা অর্থ হলো, অপরাধীরা চ্যাটজিপিটি নির্ভর হয়ে পড়েছেন।  কারণ এআইসম্পন্ন ভাষাভিত্তিক জটিল চ্যাটবটটি দিয়ে অন্যভাবে অন্যের সাইটে ঢুঁ মারা যায়। এ অবস্থায় ভাইরাসযুক্ত লিংক পাঠানো পুরনো মডেলে পরিণত হয়েছে। কারণ চ্যাটজিপিটি অনেক বেশি সূক্ষ্ম ও জটিল কাজ করতে পারে। মুক্তিপণ আদায়ের ক্ষেত্রে সম্প্রতি চ্যাটজিপিটির ব্যবহার বাড়তে দেখা গেছে।

গত বছরের নভেম্বরে মাইক্রোসফটের অর্থায়নে তৈরি করা চ্যাটজিপিটি বাজারে আনে ওপেন এআই নামে একটি প্রতিষ্ঠান। এটি মানুষের তথ্য সংগ্রহের ধারণাকেই বদলে দিয়েছে। শুধু তথ্য নয়, কোনো বিষয়ে সংক্ষেপে জানতে এই চ্যাটবটের কোনো তুলনা নেই। তবে অপরাধীরা এখনও পুরোদস্তুর চ্যাটজিপিটি ব্যবহার শুরু করতে পারেনি বলে মনে করে ডার্করেস। তারা এটাকে রপ্ত করতে সার্বিকভাবে প্রস্তুত হচ্ছে।

ডার্করেসের প্রতিবেদনে বলা হয়, অপরাধীদের তৎপরতা নিয়ে চ্যাটজিপিটিকে এখন পর্যন্ত দৃশ্যত কোনো পদক্ষেপ নিতে দেখা যায়নি। তাই তাদের উদ্ভাবনকে কাজে লাগিয়ে অপরাধ বাড়ার বিষয়টি সহজে অনুমেয়। এদিকে গার্ডিয়ানের এক প্রতিবেদনে বলা হয়, গত বছরের ডিসেম্বর পর্যন্ত ডার্করেসের মুনাফা আগের বছরের একই সময়ের তুলনায় প্রায় ৯০ শতাংশ কমেছে।  তবে নিজেদের ব্যবসা কিছুটা খারাপ গেলেও গ্রাহক ধরে রাখতে এবং নতুন গ্রাহক আকর্ষণ করতে নিজেরা কাজ করছেন বলে জানান ডার্করেসের প্রধান নির্বাহী ক্যাথি গ্রাহাম ও অর্থ বিভাগের প্রধান পপি গুস্তাফসন।

এক বিবৃতিতে এই দুই কর্মকর্তা বলেন, অর্থনৈতিক সংকটের কারণে আমাদের ব্যবসা কিছুটা চ্যালেঞ্জে পড়েছে। সম্প্রতি আমাদের আয়ও কমেছে। কিন্তু বছরওয়ারি হিসাবে ২০২২ সালে আমাদের আয় ও মুনাফা উভয়ই বেড়েছে।

নিউজ ট্যাগ: চ্যাটজিপিটি

আরও খবর



এনআইডি সংক্রান্ত দুর্নীতিতে কোনো ছাড় দেব না: সিইসি

প্রকাশিত:শনিবার ০২ মার্চ 2০২4 | হালনাগাদ:শনিবার ০২ মার্চ 2০২4 | অনলাইন সংস্করণ
নিজস্ব প্রতিবেদক

Image

জাতীয় পরিচয়পত্র (এনআইডি) সংক্রান্ত দুর্নীতিতে আমরা কোনো ছাড় দেব না। এক্ষেত্রে সংশ্লিষ্ট কর্মকর্তাকে পুলিশের কাছে হস্তান্তর করতে দ্বিধান্বিত হব না।

শনিবার (২ মার্চ) জাতীয় ভোটার দিবস উপলক্ষে আয়োজিত এক আলোচনা সভায় প্রধান অতিথির বক্তব্যে এমন হুঁশিয়ারি দেন প্রধান নির্বাচন কমিশনার (সিইসি) কাজী হাবিবুল আউয়াল।

তিনি বলেন, এনআইডির গুরুত্ব অনেক বেড়েছে। এটা এখন অপরিহার্য। সম্পত্তি ভাগাভাগি নিয়ে অনেক সময় সংকট দেখা যায়। এটা এখনো যায়নি। তবে আগের চেয়ে এনআইডি এখন অনেকটাই সুষ্ঠু অবস্থায় এসে পৌঁছেছে। এটা ছাড়া অনেক কাজ এখন আমিও করতে পারব না।

সিইসি বলেন, খুব বেশি নয়, যারা অতি চালাক তারা একাধিক কার্ড করে ফেলেন। তাই আমাদের কর্মকর্তারা সতর্কতার সঙ্গে কাজ করবেন। সম্পত্তি বেহাত করার জন্য যে এনআইডি কার্ড করা হয় আমি হয়তো ভুল করে দিতে পারি। কিন্তু সচেতনভাবে অপরাধের সঙ্গে অংশ হিসেবে যদি এটা আমরা করে থাকি তাহলে আমাদের টলারোন্স জিরো হবে। আমরা ওই ধরনের কর্মকর্তাদের পুলিশে হস্তান্তর করতে দ্বিধান্বিত হব না।

তিনি বলেন, এখন এনআইডিরই বাই প্রোডাক্ট হয়ে গেছে ভোটার কার্ড। এনআইডি বিষয় আজ নয়, আজ ভোটার দিবস। কীভাবে এটি বর্তমান পর্যায়ে এলো এটি ইতিহাসের একটা বিষয়।

সভায় অন্যদের মধ্যে নির্বাচন কমিশনার মো. আহসান হাবিব খান, মো. আলমগীর, রাদেশা সুলতানা, ইসি সচিব মো. জাহাংগীর আলমসহ সংস্থাটির সব স্তরের কর্মকর্তা-কর্মচারীরা উপস্থিত ছিলেন।


আরও খবর



নিউজিল্যান্ডকে হোয়াইটওয়াশ করল অস্ট্রেলিয়া

প্রকাশিত:রবিবার ২৫ ফেব্রুয়ারী ২০২৪ | হালনাগাদ:রবিবার ২৫ ফেব্রুয়ারী ২০২৪ | অনলাইন সংস্করণ
ক্রীড়া প্রতিবেদক

Image

টি-টোয়েন্টি থেকে টি-টেনে রূপ নেওয়া ম্যাচে বৃষ্টি আইনে ২৭ রানে জিতে নিউজিল্যান্ডকে হোয়াইটওয়াশ করলো অস্ট্রেলিয়া। সেই সঙ্গে টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপের প্রস্তুতিও সেরে নিলো দলটি।

এক ম্যাচ হাতে রেখেই সিরিজ জিতে নিয়েছিল অস্ট্রেলিয়া। এবার শেষ ম্যাচেও দারুণ জয়ে কিউদের ধবলধোলাই করল অজিরা। বৃষ্টি বাধায় সফরকারীদের ইনিংস শেষ হয় ১০.৪ ওভারে। যেখানে ৪ উইকেট হারিয়ে ১১৮ রান সংগ্রহ করে তারা। দ্বিতীয় ইনিংস ১০ ওভারে নেমে আসার পর নিউজিল্যান্ড ৩ উইকেটে তুলতে পারে ৯৮ রান।

আগে ব্যাট করতে নামা অস্ট্রেলিয়া নিয়মিত বিরতিতে উইকেট হারালেও ঝড়ো গতিতে রান তুলেছে। যদিও ওপেনার ট্রাভিস হেড ৩০ বলে ৩৩ রানের ওয়ানডে ধাচের ইনিংস খেলেছেন। কিন্তু পরে ম্যাথু শর্ট ১১ বলে ২৭ রানের এবং গ্লেন ম্যাক্সওয়েল ৯ বলে ২০ রানের ঝড়ো ইনিংস খেলে অজিদের বড় সংগ্রহ পাইয়ে দেন। এছাড়া শেষদিকে জশ ইংলিস (৮ বলে ১৪*) এবং টিম ডেভিড (৩ বলে ৮*) ছোট কিন্তু গুরুত্বপূর্ণ ইনিংস খেলেন।

জবাবে নিউজিল্যান্ডের গ্লেন ফিলিপস ছাড়া সেভাবে কেউ দাঁড়াতে পারেননি। চারে নামা ফিলিপস ২৪ বলে ৪০ রান করে অপরাজিত থাকেন। কিন্তু বাকিদের কেউ সেভাবে রান তুলতে পারেননি। দ্বিতীয় সর্বোচ্চ ১৭* রান করেছেন মার্ক চ্যাপম্যান। কিন্তু এজন্য তিনি বল খেলেছেন ১৫টি। রানের সঙ্গে পাল্লা না দিতে পারায় হার মানতে হয় তাদের।


আরও খবর



ঘূর্ণিঝড়ের পূর্বাভাস জানালো আবহাওয়া অফিস

প্রকাশিত:রবিবার ১৮ ফেব্রুয়ারী ২০২৪ | হালনাগাদ:রবিবার ১৮ ফেব্রুয়ারী ২০২৪ | অনলাইন সংস্করণ
নিজস্ব প্রতিবেদক

Image

আগামী এপ্রিলের মধ্যে বঙ্গোপসাগরে একটি ঘূর্ণিঝড় সৃষ্টি হতে পারে। এ ছাড়া থার্মোমিটারের পারদ ওঠতে পারে ৪০ ডিগ্রি সেলসিয়াসে। তিন মাসের এক বুলেটিনে সম্প্রতি এমন তথ্য জানিয়েছেন আবহাওয়া অধিদপ্তরের পরিচালক মো. আজিজুর রহমান।

বুলেটিনে বলা হয়, এপ্রিল মাস পর্যন্ত সামগ্রিকভাবে দেশে স্বাভাবিক বৃষ্টিপাতের সম্ভাবনা আছে। বঙ্গোপসাগরে দুই থেকে তিনটি লঘুচাপ সৃষ্টি হতে পারে, যার মধ্যে একটি নিম্নচাপ/ঘূর্ণিঝড়ে পরিণত হতে পারে। এ ছাড়া দিন ও রাতের তাপমাত্রা স্বাভাবিক থাকতে পারে। শেষরাত থেকে সকাল পর্যন্ত হালকা/মাঝারি ধরনের কুয়াশা পড়তে পারে।

এদিকে, এই সময়ের মধ্যে দেশের পশ্চিম, উত্তর, উত্তর-পশ্চিমাঞ্চল, উত্তরাঞ্চল ও মধ্যাঞ্চলে ৪-৮ দিন বৃষ্টি ও শিলাবৃষ্টিসহ হালকা/মাঝারি ধরনের কালবৈশাখী ঝড় হতে পারে। মার্চ ও এপ্রিল স্বাভাবিক বৃষ্টিপাতের আভাসও রয়েছে। অন্যদিকে, দেশে তিন থেকে পাঁচটি মৃদু (৩৬-৩৮ ডিগ্রি সে.) অথবা মাঝারি (৩৮-৪০ ডিগ্রি সে.) ধরনের তাপপ্রবাহ বয়ে যেতে পারে। গত বছর এপ্রিলে সর্বোচ্চ তাপমাত্রা উঠেছিল ৪২ ডিগ্রি সেলসিয়াসে।


আরও খবর
সারা দেশে কমতে পারে রাতের তাপমাত্রা

সোমবার ২৬ ফেব্রুয়ারী ২০২৪




বিশ্ববিদ্যালয়ের স্বার্থেই বক্তব্য প্রচার করা হয়েছে : কুবি উপাচার্য

প্রকাশিত:মঙ্গলবার ০৬ ফেব্রুয়ারী ২০২৪ | হালনাগাদ:মঙ্গলবার ০৬ ফেব্রুয়ারী ২০২৪ | অনলাইন সংস্করণ
জেলা প্রতিনিধি

Image

নিজের বক্তব্য তিনটি দৈনিক পত্রিকায় প্রচারের অভিযোগ উঠেছে কুমিল্লা বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য অধ্যাপক ড. এ এফ এম আবদুল মঈনের বিরুদ্ধে। তবে উপাচার্য বলছেন, এটা আমার নিজস্ব কোনো বক্তব্য না। আমাকে জড়িয়ে বিশ্ববিদ্যালয়ের সম্মানহানী করে যে বিকৃত সংবাদ পরিবেশন হয়েছিল সে অবস্থান পরিষ্কার করতেই এই ব্যাখ্যা ছাপানো হয়েছিল।

খোঁজ নিয়ে জানা যায়, গত বছরের ১৩ আগস্ট একটি জাতীয় দৈনিক এবং একটি স্থানীয় দৈনিকে একটি সংবাদের ব্যাখ্যা ছাপানো হয়। এরপর ১৪ আগস্ট আরেকটি জাতীয় দৈনিকে একই ব্যাখ্যা ছাপানো হয়। এই ব্যাখ্যা ছাপানোর ক্ষেত্রে বিশ্ববিদ্যালয় কর্তৃপক্ষ মোট দুই লাখ ১৩ হাজার ৮০ টাকা (ভ্যাট, ট্যাক্স সহ) খরচ করে।

এর আগে ২০২৩ সালের ৩১ জুলাই কয়েকটি দৈনিক ও অনলাইন মাধ্যমে দুর্নীতি হচ্ছে তাই বাংলাদেশে উন্নয়ন হচ্ছে : কুবি উপাচার্য শীর্ষক সংবাদ প্রকাশিত হয়। এরই প্রেক্ষিতে উপাচার্য তিনটি আঞ্চলিক ও জাতীয় দৈনিকে নিজের বক্তব্য ও বিশ্ববিদ্যালয়ের ভাবমূর্তি ক্ষুণ্ণ হওয়ার বিপরীতে মন্তব্য প্রচার করেন তিনি।

এ ব্যাপারে বিশ্ববিদ্যালয়ের জনসংযোগ কর্মকর্তা (অতিরিক্ত দায়িত্ব) মোহাম্মদ এমদাদুল হক বলেন, এ ব্যাপারে কোন নীতিমালা নেই। উপাচার্যের সাথে বিশ্ববিদ্যালয়ের সম্মানও জড়িত। সেই জায়গা থেকে বহুল প্রচারিত দৈনিকগুলোতে সংবাদের বাখ্যা প্রচার করা হয়েছে।

এ বিষয়ে কোষাধক্ষ্য অধ্যাপক ড. মো. আসাদুজ্জামান বলেন, উপাচার্য স্যার কোনো পাবলিক প্লেইসে তার বক্তব্য দেননি। বরং তিনি একটি বিভাগের অনুষ্ঠানে শুধু সেই বিভাগের শিক্ষক-শিক্ষার্থীদের উদ্দেশ্যে এই বক্তব্য দেন। ফলে তা বিকৃত করে উপস্থাপন বিশ্ববিদ্যালয়ের সুনাম নষ্ট করারই প্রচেষ্টা।

তিনি আরও বলেন, এ ধরনের সংবাদ প্রচার করে উপাচার্য স্যারের বক্তব্য বিকৃত করে কুমিল্লা বিশ্ববিদ্যালয়েরই সুনাম নষ্ট করা হয়েছে। এ প্রেক্ষিতেই বিশ্ববিদ্যালয়ের পক্ষে উপাচার্য স্যার তার বক্তব্য উপস্থাপন করে তার ও বিশ্ববিদ্যালয়ের অবস্থান পরিষ্কার করেছেন। কিছু দুষ্কৃতিকারী যে মাধ্যমে জনসাধারণের কাছে বিশ্ববিদ্যালয়ের সুনাম নষ্ট করেছেন, এখন আমাদেরও তো সে মাধ্যমেই আমাদের অবস্থান জানাতে হবে। সে দিক থেকে আমার মনে হয়না গণমাধ্যমে এভাবে বক্তব্য উপস্থাপন ভুল কিছু। এটা বিশ্ববিদ্যালয়েরই স্বার্থেই করা কাজ।

উপাচার্য অধ্যাপক ড. এ এফ এম আবদুল মঈন জানান, শিক্ষার্থীদের এক অনুষ্ঠানে ক্রিটিক্যাল থিংকিং বিষয়ে বোঝাতে গিয়ে আমি একটি বক্তব্য দিয়েছিলাম। বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য হিসেবে আমি শিক্ষার্থীদের বলেছিলাম তারা যেন মুখস্ত বিদ্যার পরিবর্তে তাদের ক্রিটিকাল থিংকিং গড়ার প্রতি জোড় দেয়। শিক্ষক ও শিক্ষার্থীরা আমার বক্তব্য অনুধাবন করলেও কতিপয় সাংবাদিক; যারা বিভিন্ন সময়ে আমাকে বিশ্ববিদ্যালয়ের একাডেমিক উন্নয়নের পথে বাঁধা দিয়েছে, তারা আমার বক্তব্যকে বিকৃত ও খণ্ডিতভাবে প্রচার করে। যা জনমনে বিভ্রান্তি ছড়ানোর পাশাপাশি বিশ্ববিদ্যালয়ের ইমেজ নষ্ট করেছে।

তিনি আরও বলেন, আমাকে এবং বিশ্ববিদ্যালয়কে জড়িয়ে এমন প্রচারণায় শিক্ষক-শিক্ষার্থীরাও প্রতিবাদ করেছেন। পরে আমরা বিশ্ববিদ্যালয়ের পক্ষ থেকে ওই সংবাদপত্রে প্রতিবাদলিপি দিয়েছিলাম। কিন্তু তারা আমাদের প্রতিবাদ প্রকাশ করেনি। বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীদের উদ্দেশ্যে দেয়া আমার বক্তব্যেকে বিকৃত, খণ্ডিত ও মিসলিডিং করে যে সংবাদ প্রচার করা হয়েছে, মানুষকে সে সম্পর্কে সঠিক বক্তব্য জানানোর জন্য আমাদের বিকল্প পথ অনুসরণ করতে হয়েছে। প্রতিষ্ঠানের সুনাম ক্ষুণ্ণ হয় এমন কোন অপপ্রচার সম্পর্কে দেশের নাগরিকদের সঠিক তথ্য অবগত করার ক্ষেত্রে কোনও বাঁধা থাকার কথা নয়।


আরও খবর
জাবির ‘ডি’ ইউনিটের ফল প্রকাশ

বৃহস্পতিবার ২৯ ফেব্রুয়ারী ২০২৪




গাজায় ত্রাণ নিতে আসা জনতার ওপর নির্বিচারে গুলি, নিহত ১০৪

প্রকাশিত:শুক্রবার ০১ মার্চ ২০২৪ | হালনাগাদ:শুক্রবার ০১ মার্চ ২০২৪ | অনলাইন সংস্করণ
আন্তর্জাতিক ডেস্ক

Image

গাজা উপত্যকার দক্ষিণ-পশ্চিমে খাবারের জন্য অপেক্ষা করছিলেন ফিলিস্তিনিরা। এ সময় ইসরায়েল খাবারের জন্য অপেক্ষারত ফিলিস্তিনিদের ওপর নির্বিচারে হামলা চালায়। এতে অন্তত ১০৪ জন ফিলিস্তিনি নিহত এবং অন্তত ৭০০ জন আহত হয়েছে। কিন্তু গাজার স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয় বলছে, নিহত হয়েছেন কমপক্ষে ১১২ জন এবং  আহত হয়েছেন ৭৫০ জনেরও বেশি। গাজা শহরের পশ্চিমে আল-নাবুসি এলাকায় ঘটনাটি ঘটেছে বলে জানা গেছে।

এ ঘটনায় ফিলিস্তিনি নেতারা এবং প্রতিবেশী দেশগুলো গাজায় সহায়তা সংগ্রহকারী নিরস্ত্র ফিলিস্তিনিদের লক্ষ্যবস্তু করায় ইসরায়েলের নিন্দা করেছে। ফিলিস্তিনি কর্তৃপক্ষের প্রেসিডেন্ট মাহমুদ আব্বাসের কার্যালয় বলেছে, ইসরায়েলি দখলদার সেনাবাহিনী কুৎসিত গণহত্যা চালিয়েছে।

আব্বাসের অফিসের উদ্ধৃতি দিয়ে ওয়াফা বার্তা সংস্থা বলেছে, এই বিপুল সংখ্যক নিরীহ বেসামরিক নাগরিকদের যারা হত্যা করেছে তারা গণহত্যামূলক যুদ্ধের একটি অবিচ্ছেদ্য অংশ। এর সম্পূর্ণ দায় দখলদার ইসরায়েলের এবং আন্তর্জাতিক আদালতে তাদের জবাবদিহি করতে হবে।

গাজার স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয় বেসামরিকদের রক্ষা করার একমাত্র উপায় হিসেবে, যুদ্ধবিরতি জারি করার জন্য জরুরি হস্তক্ষেপ করার জন্য আন্তর্জাতিক সম্প্রদায়কে আহ্বান জানিয়েছে। এদিকে ফিলিস্তিনি গোষ্ঠী হামাস এই হামলাকে ফিলিস্তিনি জনগণের বিরুদ্ধে অপরাধী ইহুদিবাদীদের জঘন্য গণহত্যা বলে অভিহিত করেছে।

এক বিবৃতিতে এই গোষ্ঠীটি বলেছে, সাহায্য-প্রার্থীদের ওপর মারাত্মক আক্রমণ যুদ্ধাপরাধের ইতিহাসে নজিরবিহীন।

গাজায় গণহত্যা, জাতিগত নির্মূল এবং আন্তর্জাতিক আইন লঙ্ঘন বন্ধ করতে ইসরাইলকে বাধ্য করতে জাতিসংঘের নিরাপত্তা পরিষদ এবং আরব রাষ্ট্রগুলোর প্রতি আহ্বান জানিয়েছে হামাস।

স্থানীয় এক প্রত্যক্ষদর্শী এএফপিকে বলেন, গাজা শহরের পশ্চিম নাবুলসি গোলচত্বরে ত্রাণের ট্রাকের দিকে খাবারের জন্য মরিয়া হাজার হাজার মানুষ ছুটে আসেন। সেই সময় এই সহিংসতার ঘটনা ঘটে। নিরাপত্তার কারণে নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক ওই প্রত্যক্ষদর্শী বলেন, ত্রাণ-বোঝাই ট্রাকগুলো কিছু সেনা ট্যাংকের খুব কাছাকাছি চলে আসে। ওই সময় হাজার হাজার মানুষ ট্রাকের দিকে ছুটে আসেন। তারা ট্রাকগুলোতে হামলে পড়েন। লোকজন ট্যাংকের খুব কাছে চলে আসায় ইসরায়েলি সেনারা ভিড় লক্ষ্য করে গুলি চালায়।

পরে ইসরায়েলি একটি সূত্র নাম প্রকাশ না করার শর্তে এএফপিকে বলেছে, লোকজন এমনভাবে ইসরায়েলি বাহিনীর কাছাকাছি এসেছিল, যা সেনাদের জন্য হুমকি হয়ে দাঁড়িয়েছিল। পরে গুলি ছুড়ে হুমকি মোকাবিলা করা হয়েছে।

তবে ইসরায়েলের সেনাবাহিনীর একজন মুখপাত্র বলেন, ওই এলাকায় কোনো ধরনের গোলাবর্ষণের কথা তাদের জানা নেই। পরে সেনাবাহিনী বলেছে, উত্তর গাজায় ত্রাণ পরিবাহী ট্রাক এলে ধাক্কাধাক্কি ও পদদলিত হয়ে কয়েক ডজন মানুষ আহত হয়েছেন। ইসরায়েলি একটি সূত্র জানিয়েছে, দেশটির সশস্ত্রবাহিনী ভিড়ের মাঝে হুমকি হিসেবে চিহ্নিত করে কয়েকজন ব্যক্তির ওপর গুলি চালিয়েছিল।

সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে ছড়িয়ে পড়া ভিডিওতে দেখা যায়, একাধিক ট্রাকে করে অনেক মৃতদেহ পরিবহন করা হচ্ছে এবং অনেক আহত ব্যক্তিকে দেখা যায়। তবে ভিডিওটির সত্যতা নিশ্চিত করেত পারেনি। আরেকটি ভিডিওতে দেখা গেছে, একটি হাসপাতালের মেঝেতে আহতদের চিকিৎসা দেওয়া হচ্ছে।


আরও খবর