আজঃ বৃহস্পতিবার ২২ ফেব্রুয়ারী ২০২৪
শিরোনাম

শাহীন আনাম মাহফুজ আনাম হিন্দুদের ঐক্যে চিড় ধরানোর ষড়যন্ত্রে লিপ্ত

প্রকাশিত:শুক্রবার ২৪ সেপ্টেম্বর ২০২১ | হালনাগাদ:শুক্রবার ২৪ সেপ্টেম্বর ২০২১ | অনলাইন সংস্করণ
দর্পণ নিউজ ডেস্ক

Image

বেসরকারি সংস্থা মানুষের জন্য ফাউন্ডেশনের নির্বাহী পরিচালক শাহীন আনাম এবং তার স্বামী মাহফুজ আনাম হিন্দু সম্প্রদায়ের ঐক্যে চিড় ধরানোর ষড়যন্ত্রে লিপ্ত। তারা কৌশলে সরকারের বিরুদ্ধে হিন্দুদের দাঁড় করিয়ে দেওয়ার চক্রান্ত করছে। হিন্দু উত্তরাধিকার আইন সংশোধনের দাবি তুলে কার্যত এই ধর্মে বিশৃঙ্খলা ছড়িয়ে দেওয়ার পাঁয়তারা করছে। শুক্রবার সকালে ঢাকা রিপোর্টার্স ইউনিটি কার্যালয়ে হিন্দু আইন পরিবর্তন প্রতিরোধ সম্মিলিত পরিষদের এক সংবাদ সম্মেলনে এসব কথা বলা হয়।

সম্মিলিত পরিষদের সঙ্গে ৪৩টি সংগঠন একাত্মতা প্রকাশ করেছে বলে জানানো হয়। এ সময় বিভিন্ন সংগঠনের নেতারা বলেন, সনাতনী সমাজে বিবাহ চুক্তি নয়, এটি একটি পবিত্র ব্রত। বিবাহের মাধ্যমে স্বামী-স্ত্রী শাস্ত্রবিধি ও হিন্দু আইন অনুযায়ী অবিচ্ছেদ্যভাবে একাত্ম হয়ে যান। তারা পরিবারের সম্পদ-সম্পত্তিও যৌথভাবে ভোগ করে থাকেন। যুগ যুগ ধরে শাস্ত্রীর বিধানের ঐশীবন্ধনে হিন্দু সম্প্রদায়ের তথা সনাতনী সমাজের পরিবারগুলো শান্তিময়-ভারসাম্যপূর্ণ অবস্থায় চলমান। কতিপয় এনজিওসহ একটি বিশেষ মহলের কারসাজিতে তা বিনষ্ট করার ষড়যন্ত্র চলছে।

তাঁরা আরও বলেন, কতিপয় এনজিও এবং সংগঠন হিন্দু উত্তরাধিকার আইন পরিবর্তনের প্রচেষ্টা চালাচ্ছে, তারা আসলে হিন্দুদের প্রতিনিধিত্বই করে না। এ অবস্থায় তাদের দাবি হাস্যকর ছাড়া আর কিছু নয়। বক্তারা ক্ষোভ প্রকাশ করে বলেন, বাংলাদেশের শান্তিপ্রিয় সনাতনী সমাজ হিন্দু আইন পরিবর্তন চায় না।

এক প্রশ্নের জবাবে হিন্দু আইন পরিবর্তন প্রতিরোধ সম্মিলিত পরিষদের সভাপতি অ্যাডভোকেট ড. জেঁকে পাল বলেন, হিন্দু আইন পরিবর্তনের জন্য যেসব এনজিও কথা বলছে আমরা তাদের বিরুদ্ধে কথা বলেছি। আমরা তাদের বিরুদ্ধে সোচ্চার হয়েছি। কেউ কেউ বলছে আমরা সরকারের বিরুদ্ধে আন্দোলন করছি। এটি একেবারেই অসত্য। আমাদের আন্দোলন কতিপয় চিহ্নিত এনজিও এবং তার কর্ণধারদের বিরুদ্ধে; যারা উদ্দেশ্যপ্রণোদিত হিন্দু উত্তরাধিকার আইন পরিবর্তনের নামে হিন্দু সম্প্রদায়ে বিশৃঙ্খলা সৃষ্টির পাঁয়তারা করছে।

হিন্দু আইন পরিবর্তন প্রতিরোধ সম্মিলিত পরিষদের অন্যতম নেতা রামকৃষ্ণ বলেন, বিভিন্ন এনজিও প্রতিনিধি যারা হিন্দু ধর্মের বিভেদ সৃষ্টির চেষ্টা করছেন এবং বলছেন হিন্দু ধর্মে নারীরা অধিকার পান না তারা নিজেরাই স্বামীহীন। হিন্দু আইন পরিবর্তনের যে চক্রান্ত চলছে তা মানুষের জন্য ফাউন্ডেশন নামক এনজিওর স্বার্থসিদ্ধির জন্য এবং হিন্দুদের মধ্যে বিভেদ সৃষ্টির জন্য। হিন্দু ধর্মে নারীদের বিয়ে এবং সম্পত্তি নিয়ে ধোঁয়াশা তৈরি করা হচ্ছে তা অবান্তর এবং মিথ্যা। এ ধরনের ঘটনার সঙ্গে হিন্দু শাস্ত্রের কোন সম্পর্ক নেই। যারা বিদেশি প্রভুদের ফাঁদে পা দিয়ে তাদের কাছ থেকে অর্থ নিয়ে নিজেদের সংগঠনকে টিকিয়ে রাখতে হিন্দু সমাজে বিভেদ সৃষ্টির চেষ্টা করছেন তাদের এই অপচেষ্টা সফল হবে না। এই ষড়যন্ত্রকারীদের চিহ্নিত করে তাদের বিরুদ্ধে দুর্বার আন্দোলন গড়ে তোলার আহ্বান জানান তিনি।

হিন্দু সংগঠনের আরেক নেতা প্রণব মট চন্দ্র বলেন, হিন্দুধর্ম আইন পরিবর্তনের নামে যে অশান্তি সৃষ্টি করা হচ্ছে, তার বিরুদ্ধে হিন্দু সমাজ সোচ্চার। আমরা শান্তিতে আছি, শান্তিতে থাকতে চাই। হিন্দু আইন পরিবর্তনের নামে যে অশান্তি সৃষ্টি হচ্ছে, তার জন্য সব দায় শাহীন আনামদের নিতে হবে। সরকারকে অস্থিতিশীল করার জন্য বিদেশ থেকে মানুষের জন্য ফাউন্ডেশন ও একটি বিশেষ মহল হিন্দু শাস্ত্রের বিধি-বিধান পরিবর্তন প্রচেষ্টায় লিপ্ত। তারা জানে হিন্দু সম্প্রদায়ের সরকারের বড় সমর্থক আর এই বন্ধন ভাঙতেই তারা এ ষড়যন্ত্র করছে। সরকারকে বিশ্বের কাছে হেয় প্রতিপন্ন করতেই এই গভীর ষড়যন্ত্রে লিপ্ত হয়েছে তারা।. আমরা এই ষড়যন্ত্র যেকোনো মূল্যে প্রতিহত করবো। আমরা সারা বাংলাদেশে হিন্দু সম্প্রদায় কর্তৃক পরিচালিত সব সংগঠন তাদের ষড়যন্ত্রের বিরুদ্ধে সোচ্চার।

সুপ্রিমকোর্টের আইনজীবী অ্যাডভোকেট বিভাস চন্দ্র বলেন, আমরা সম্প্রতি ঢাকেশ্বরী মন্দিরে হিন্দু সম্প্রদায়ের নেতৃবৃন্দ বসে ছিলাম। তারা সর্বসম্মতিক্রমে সিদ্ধান্ত নিয়েছি হিন্দু আইনে কোনো পরিবর্তন প্রয়োজন নেই। আইনটি বর্তমানে যে অবস্থায় রয়েছে তা সংশোধনের প্রয়োজন নেই। আমাদের পূর্বপুরুষরা এই আইন সংশোধনের হাত দিতে সাহস পায়নি। আমরা যারা মনে করছি আইনের সংশোধন করা দরকার, তাদের প্রতি আমাদের অনুরোধ আইনের কোনো পরিবর্তন প্রয়োজন নেই এবং এটি সম্ভব নয়।

ইসকন ফুড ফর লাইফ, ঢাকার পরিচালক রুপানুগ গৌরদাস ব্রহ্মচারী বলেন, এটি মানুষের জন্য ফাউন্ডেশন নয় এটি ও অমানুষের জন্য ফাউন্ডেশন। তাদের মতলব সবার সামনে উন্মুক্ত হোক এটাই আমরা চাই। আমরা মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর কাছে অনুরোধ জানাই আমাদের কথাগুলো বুঝুন এবং হিন্দু আইন পরিবর্তনের কোনো প্রয়োজন নেই। যদি হিন্দু আইন পরিবর্তনের নীলনকশার তারা বন্দনা করেন তাহলে মানুষের জন্য ফাউন্ডেশন এর বিরুদ্ধে দুর্বার আন্দোলন গড়ে তোলা হবে।

এর আগে লিখিত বক্তব্যে হিন্দু আইন পরিবর্তন প্রতিরোধ সম্মিলিত পরিষদের সাধারণ সম্পাদক শ্যামল কুমার রায় বলেন, প্রায় তিন দশক ধরে একটি বিশেষ মহল বাংলাদেশের হিন্দু সম্প্রদায়ের পারিবারিক বন্ধন ও সম্প্রীতিকে ধ্বংস করার গভীর চক্রান্তে লিপ্ত রয়েছে। সে পথ ধরেই কতিপয় স্বার্থান্বেষী এনজিও উদ্দেশ্যপ্রণোদিতভাবে হিন্দু নারীদের সম্পত্তিতে অধিকার নেই এ বাহানা তুলে হিন্দু সম্প্রদায়ের শাস্ত্রীয় বিধি বিধান পরিবর্তন প্রচেষ্টার মাধ্যমে হিন্দু সম্প্রদায়ের মধ্যে বিভেদ সৃষ্টি করার গভীর চক্রান্তে নতুন করে মেতে ওঠেছে । আওয়ামী লীগ যখনই রাষ্ট্রীয় ক্ষমতায় অধিষ্ঠিত থাকে উক্ত মহলটি তখনই হিন্দু ধর্মীয় তথা বিবাহ সংক্রান্ত আইন পরিবর্তনের ব্যাপারে অতি উৎসাহী হয়ে ওঠে।

এ সময় তিনি শাহীন আনাম, তাকে সহায়তাকারী তার স্বামী মাহফুজ আনাম এবং আরেক এনজিও বাঁচতে শেখার নির্বাহী পরিচালক এঙ্গেলা গোমেজের বিরুদ্ধে দ্রুত আইনানুগ ব্যবস্থা গ্রহণের দাবি জানান। তাদের বিরুদ্ধে শাস্তিমূলক ব্যবস্থা গ্রহণ না হওয়া পর্যন্ত সম্মিলিত পরিষদ তথা ৪৩ টি সংগঠনের আন্দোলন অব্যাহত রাখার ঘোষণা দেন তিনি।


আরও খবর
দেশে ৩০ শতাংশ খাদ্য অপচয় হয়: কৃষিমন্ত্রী

বুধবার ২১ ফেব্রুয়ারী ২০২৪




‘বিএনপি-জামায়াত জঙ্গিগোষ্ঠীকে মদদ দেওয়ায় সাবধান থাকতে হবে’

প্রকাশিত:শনিবার ০৩ ফেব্রুয়ারী ২০২৪ | হালনাগাদ:শনিবার ০৩ ফেব্রুয়ারী ২০২৪ | অনলাইন সংস্করণ
নিজস্ব প্রতিবেদক

Image

বিএনপি-জামায়াত জঙ্গি সংগঠনগুলোকে মদদ দিয়ে যাচ্ছে, বাংলাদেশের জনগণকে সাবধানে থাকার আহ্বান জানিয়েছেন আইনমন্ত্রী আনিসুল হক।

শনিবার (৩ ফেব্রুয়ারি) দুপুরে আখাউড়া উপজেলার ধরখার ইউনিয়নের আখাউড়া বনগজ সেতু উদ্বোধন শেষে সাংবাদিকদের প্রশ্নে এমন মন্তব্য করেছেন। পরে ইউনিয়ন আওয়ামীলীগের উদ্যোগে বনগজ ঈদগাঁহ মাঠে আয়োজিত জনসভায় প্রধান অতিথি হিসেবে যোগদান করেন।

আনিসুল হক বলেন, বিএনপির প্রতিষ্ঠাতারা হত্যা করে রাজনীতি করতেন। বাংলাদেশের মানুষ তাদেরকে চিনে ফেলছে, তারা আর সেই খেলা খেলতে পারবেন না। এখন বাংলাদেশের মানুষ বাংলাদেশের ভাগ্য নিয়ন্ত্রণ করবে। 

আরও পড়ুন>> ইজতেমায় ফের তিন মুসল্লির মৃত্যু, মোট মৃতের সংখ্যা দশ

আইনমন্ত্রী আরও বলেন, বাংলাদেশের মানুষ ৭ জানুয়ারি ভোট দিয়ে তাদের জনপ্রতিনিধি নির্বাচিত করেছেন। এই জনপ্রতিনিধিরাই বাংলাদেশের মানুষকে সেবা করবে, সেটাই ম্যান্ডেট এবং সেটায় হবে।

আনিসুল হক হুশিয়ারি উচ্চারণ করে বলেন, বিএনপি-জামায়াত যদি সন্ত্রাস করতে চান, তারা যদি বাংলাদেশের অর্জন নষ্ট করতে চান তাহলে আইন কঠোরভাবে বাস্তবায়ন করা হবে। আমরা কোনো সন্ত্রাস সহ্য করব না। আমরা উন্নয়নের পথে হাঁটছি আমাদেরকে পেছনের দিকে নিয়ে যাওয়া যাবে না। যারা পেছন দিকে নেওয়ার চেষ্টা করে তাদেরকে আমরা আইনের মাধ্যমে ব্যবস্থা নেব।

আরও পড়ুন>> আদভানিকে ‘ভারতরত্ন’ প্রদান আমার জন্য খুবই আবেগপূর্ণ মুহূর্ত: মোদি

এ সময় বীর মুক্তিযোদ্ধা মো. শানু মিয়ার সভাপতিত্বে বিশেষ অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি মোহাম্মদ আলী চৌধুরী, পৌরসভার মেয়র তাকজিল খলিফা কাজল প্রমুখ।


আরও খবর
দেশে ৩০ শতাংশ খাদ্য অপচয় হয়: কৃষিমন্ত্রী

বুধবার ২১ ফেব্রুয়ারী ২০২৪




দক্ষিণ সুরমায় স্কোয়াশ চাষে সফল কৃষক জহির উদ্দিন

প্রকাশিত:মঙ্গলবার ১৩ ফেব্রুয়ারী ২০২৪ | হালনাগাদ:মঙ্গলবার ১৩ ফেব্রুয়ারী ২০২৪ | অনলাইন সংস্করণ
সিলেট প্রতিনিধি

Image

সিলেট জেলার দক্ষিণ সুরমা উপজেলায় স্কোয়াশ চাষে সফল হয়েছেন প্রবাস ফেরত কৃষক জহির উদ্দিন। উপজেলার জালালপুর ইউনিয়নে বাড়ির পাশে প্রথমবারের মতো পরীক্ষামূলক ২ বিঘা জমিতে স্কোয়াশ চাষ করেছেন তিনি। দুএকদিন পর পর জমি থেকে ফলন তুলে স্থানীয় বাজারে বিক্রি করছেন। অনেকে এসে জমি থেকে কিনে নিয়ে যাচ্ছেন।

সরেজমিনে পরিদর্শনে গিয়ে দেখা যায়, উপজেলার জালালপুর ইউনিয়নের রায়খাইলের জহির উদ্দিনের জমিতে আবাদকৃত স্কোয়াশ গাছে ফলন এসেছে। প্রতি পিস ফলনের ওজন ৫০০ গ্রাম থেকে দেড় কেজি পর্যন্ত। দুজন শ্রমিক নিয়ে জমিতে পরিচর্যা করছেন তিনি। পাশের জমিতে চাষ করেছেন টমেটো, কাঁচা মরিচ, ফুলকপি, বাঁধাকপি ও বেগুনসহ নানা ধরনের শীতকালীন সবজি।

কৃষক জহির উদ্দিন জানান, প্রবাস থেকে ফিরে আর কিছু করতে না পেরে স্থানীয় কিছু পতিত জমিতে সবজি চাষ শুরু করি। প্রাথমিক ভাবে সফলতা লাভ করায়

৪ বছর ধরে কৃষি কাজ করছি। কৃষিকে পেশা হিসেবে বেছে নিয়েছি। আমার এ সফলতা দেখে এলাকার অনেকেই আজ কৃষি কাজে এগিয়ে এসেছে পাশাপাশি পতিত জমি গুলো ও চাষাবাদের আওতায় চলে এসেছে। আমি এবার প্রথমবারের মতো ২ শতক জমিতে পরীক্ষামূলক স্কোয়াশ চাষ করেছি। বাজার থেকে বীজ নিয়ে বপন করেছি। প্রথমবারই সফল হয়েছি। জমিতে আগে থেকে মালচিং করা ছিল। তাই তেমন খরচ হয়নি। মাত্র ৩ হাজার টাকা খরচ হয়েছে। এরই মধ্যে ২৫ হাজার টাকা বিক্রি করেছি। আরও ৪০ হাজার টাকা বিক্রি করতে পারবো।

তিনি আরো বলেন, একটি গাছে ১০-২০ কেজি পর্যন্ত ফলন হয়। ঢাকার কয়েকটি সুপার শপের সঙ্গে আলোচনা হয়েছে। তারা আগামীতে আমার কাছ থেকে স্কোয়াশ কিনে নেবেন। তাই আগামীতে সিদ্ধান্ত নিয়েছি চাষের পরিধি আরও বাড়াবো।

এছাড়া ৪ বছর ধরে আগাম সবজি চাষ করে যাচ্ছি। প্রথমে সামান্য জায়গায় আগাম টমেটো চাষ শুরু করি। এবছর  ৩ শতক জমিতে টমেটো, ২ শতকে শসা,১ শতকে তাল বেগুন,২ শতকে জালি কুমড়াও ২ শতকে ঢেড়স চাষ করেছি। ফলন ভালো হয়েছে, আশা করি আর্থিক ভাবে লাভবান হতে পারবো।

দক্ষিণ সুরমা উপজেলা কৃষি কর্মকর্তা গৌতম পাল বলেন, উপজেলার জালালপুর ইউনিয়নের জহির উদ্দিন খুবই পরিশ্রমী একজন কৃষক। তিনি সব সময় আগাম সবজি চাষ করে ভালো লাভবান হয়ে থাকেন। এবার স্কোয়াশ চাষ করে সফল হয়েছেন। তাকে সব সময় কৃষি অফিস থেকে পরামর্শসহ বিভিন্ন ধরনের সহযোগিতা করা হয়।

উল্লেখ্য, জহির উদ্দিন গত বছর তার জমিতে মরুভূমির ফসল সাম্মাম চাষ করে বেশ সাড়া জাগিয়েছিলেন। তার এ ব্যতিক্রমী উদ্যোগ দেখতে বিভাগ ও জেলার কৃষি কর্মকর্তারা পরিদর্শন করেছিলেন।


আরও খবর



ভাষা শহীদদের প্রতি শ্রদ্ধা জানাল আওয়ামী লীগ

প্রকাশিত:বুধবার ২১ ফেব্রুয়ারী ২০২৪ | হালনাগাদ:বুধবার ২১ ফেব্রুয়ারী ২০২৪ | অনলাইন সংস্করণ
জ্যেষ্ঠ প্রতিবেদক

Image

মহান শহীদ দিবস ও আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবসে ভাষা শহীদদের প্রতি শ্রদ্ধা জানিয়েছে দেশের বৃহৎ রাজনৈতিক দল বাংলাদেশ আওয়ামী লীগ। আওয়ামী লীগ সভাপতি শেখ হাসিনার নেতৃত্বে শহীদ মিনারের বেদীতে পুষ্পস্তবক অর্পণ করে ভাষা শহীদদের প্রতি শ্রদ্ধা জানানো হয়।

এ সময় আওয়ামী লীগের সভাপতিমন্ডলীর সদস্য বেগম মতিয়া চৌধুরী, আব্দুর রাজ্জাক, মোহাম্মদ ফারুক খান, মোস্তফা জালাল মহিউদ্দিন, জাহাঙ্গীর কবির নানক, যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক ড. হাছান মাহমুদ, মাহবুব উল আলম হানিফ, আ ফ ম বাহাউদ্দিন নাছিম, দীপু মণি, সাংগঠনিক সম্পাদক আহমদ হোসেন, বিএম মোজাম্মেল হক, আবু সাঈদ আলম মাহমুদ স্বপন, মির্জা আজম, এসএম কামাল হোসেন, সুজিত রায় নন্দী প্রমুখ উপস্থিত ছিলেন।

এর আগে একুশে ফেব্রুয়ারির প্রথম প্রহরে জাতির পক্ষ থেকে কেন্দ্রীয় শহীদ মিনারে পুষ্পস্তবক অর্পণ করে মহান ভাষা শহীদদের প্রতি শ্রদ্ধা নিবেদন করেন রাষ্ট্রপতি মো. সাহাবুদ্দিন ও প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা।

পুষ্পস্তবক অর্পণের পর রাষ্ট্রপতি ও প্রধানমন্ত্রী কিছুক্ষণ নীরবে দাঁড়িয়ে থেকে ভাষা আন্দোলনের শহীদদের স্মৃতির প্রতি গভীর শ্রদ্ধা নিবেদন করেন। এ সময় অমর একুশের কালজয়ী গান আমার ভাইয়ের রক্তে রাঙানো একুশে ফেব্রুয়ারি…’ বাজানো হয়।

এর আগে রাত ১১টা ৫১ মিনিটে প্রধানমন্ত্রী শহীদ মিনারে এসে পৌঁছলে তাকে অভ্যর্থনা জানান ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য অধ্যাপক ড. এ এস এম মাকসুদ কামাল।

রাত ১১টা ৫৩ মিনিটে রাষ্ট্রপতি রাষ্ট্রপতি মো. সাহাবুদ্দিন মিনার অঙ্গনে উপস্থিত হলে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা ও ঢাবি উপাচার্য তাকে অভ্যর্থনা জানান।


আরও খবর
জামিনে মুক্তি পেলেন বিএনপি নেতা আলাল

বৃহস্পতিবার ২২ ফেব্রুয়ারী ২০২৪




শেখ হাসিনা অর্থনৈতিক মুক্তির উত্তরাধিকার: ওবায়দুল কাদের

প্রকাশিত:শনিবার ১০ ফেব্রুয়ারী ২০২৪ | হালনাগাদ:শনিবার ১০ ফেব্রুয়ারী ২০২৪ | অনলাইন সংস্করণ
জ্যেষ্ঠ প্রতিবেদক

Image

শেখ হাসিনাকে বাংলাদেশের অর্থনৈতিক মুক্তির ‌উত্তরাধিকার হিসেবে আখ্যা দিয়েছেন আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ওবায়দুল কাদের।

শনিবার (১০ ফেব্রুয়ারি) সকালে গণভবনের জাতীয় ও তৃণমূল নেতাকর্মীদের সঙ্গে প্রধানমন্ত্রীর সাক্ষাৎ অনুষ্ঠানে তিনি এ কথা বলেন।

ওবায়দুল কাদের বলেন, শেখ হাসিনা হচ্ছে বাংলাদেশের অর্থনৈতিক মুক্তির উত্তরাধিকার। বাংলাদেশে বঙ্গবন্ধু জাতির পিতা শেখ মুজিবুর রহমানকে হত্যার পর গত ৪৮ বছরে তার মত জনপ্রিয় নেতা সৃষ্টি হয়নি। সাহসী রাজনীতিকের নাম শেখ হাসিনা।

ওবায়দুল কাদের বলেন, হয়তো পাঁচ বছর পর নির্বাচন, তিনি হয়তো দেশের কোনো প্রত্যন্ত অঞ্চলে গিয়েছেন, নেতাকর্মীদের সঙ্গে সাক্ষাৎ করেছেন, তখনই হয়তো একটা দুইটা নাম লিখে রেখেছেন। যখন জাতীয় নির্বাচন হচ্ছে অথবা সংরক্ষিত আসনে নির্বাচন হচ্ছে তখনই ওই ডায়রি থেকে নাম এনে প্রার্থিতা ঠিক করে নেন। এই হচ্ছেন শেখ হাসিনা।

তিনি বলেন, পনেরো বছরের আগের বাংলাদেশ ও পরের বদলের যাওয়া যে বাংলাদেশ, সে বদলে যাওয়া বাংলাদেশের রূপান্তরের রূপকার শেখ হাসিনা। আমাদের এই জনপদের সৃষ্টি ক্ষেত্রে মহান দুজন মানুষ কাজ করেছেন। একজন (বঙ্গবন্ধু) আমাদের স্বাধীনতা দিয়ে গেছেন এবং স্বাধীনতা দিয়ে তিনি যে ল্যাগেসি, যে উত্তরাধিকার রেখে গেছেন, তিনি নেই কিন্তু সে সবসময়ের জন্য রয়ে গেছে। আরেকজন মুক্তির জন্য কাজ করছেন তিনি শেখ হাসিনা।

তিনি আরও বলেন, সবচেয়ে দক্ষ প্রশাসকের নাম শেখ হাসিনা, সবচেয়ে সাহসী রাজনীতিকের নাম শেখ হাসিনা, সফল কূটনীতিকের নাম শেখ হাসিনা।


আরও খবর
জামিনে মুক্তি পেলেন বিএনপি নেতা আলাল

বৃহস্পতিবার ২২ ফেব্রুয়ারী ২০২৪




ঘণ্টাখানেক বন্ধ থাকার পর ফের সচল মেট্রোরেল

প্রকাশিত:শনিবার ১৭ ফেব্রুয়ারী ২০২৪ | হালনাগাদ:শনিবার ১৭ ফেব্রুয়ারী ২০২৪ | অনলাইন সংস্করণ
নিজস্ব প্রতিবেদক

Image

যান্ত্রিক ত্রুটির কারণে ঘণ্টাখানেক বন্ধ থাকার পর মেট্রোরেল চলাচল আবারও শুরু হয়েছে। মিরপুরের পল্লবীতে একটি ট্রেনের দরজা স্বয়ংক্রিয়ভাবে খোলা ও বন্ধ হওয়ার কাজ করছিল না। এ জন্য ট্রেন চলাচল বন্ধ হয়ে যায়।

শনিবার (১৭ ফেব্রুয়ারি) বিকেল সোয়া ৩টার দিকে যান্ত্রিক ত্রুটি দেখা দেয়। চারটার দিকে ট্রেন সচল হয়। ঢাকা ম্যাস ট্রানজিট কোম্পানি লিমিটেড (বিএমটিসিএল) কর্তৃপক্ষ বিষয়টি নিশ্চিত করেছে।

সূত্র জানিয়েছে, মেট্রোরেলে কোনো ত্রুটি দেখা দিলে পুরো ব্যবস্থা বন্ধ করে কারণ খুঁজতে হয়। তাই সমস্যা সমাধানে কিছুটা সময় লাগে।

এর আগে গত ১৪ ফেব্রুয়ারি মিরপুরের কাজীপাড়ায় মেট্রোরেলের তারে ঘুড়ি আটকে পড়ায় মতিঝিল থেকে উত্তরাগামী ট্রেন চলাচল বন্ধ করে দেয়া হয়।


আরও খবর
দেশে ৩০ শতাংশ খাদ্য অপচয় হয়: কৃষিমন্ত্রী

বুধবার ২১ ফেব্রুয়ারী ২০২৪