আজঃ রবিবার ০৩ ডিসেম্বর ২০২৩
শিরোনাম

পুঁজি হারিয়ে বেশির ভাগ চামড়ার গুদামই এখন বন্ধ

প্রকাশিত:শুক্রবার ০৪ আগস্ট ২০২৩ | হালনাগাদ:শুক্রবার ০৪ আগস্ট ২০২৩ | অনলাইন সংস্করণ
মামুন হোসেন, পাবনা

Image

ব্যবসায়ীক মন্দায় পুঁজি হারিয়ে হারাতে বসেছে পাবনার ঐত্যিহ্যবাহী পশুর চামড়া ব্যবসা। চামড়া শিল্পে সুষ্ঠু বাজার ব্যবস্থাপনা না থাকায় ট্যানারি মালিকদের কাছে জিম্মি হয়ে পড়েছে চামড়া ব্যবসায়ীরা। বর্তমানে পশুর চামড়া ন্যায্য দামে বিক্রি করতে না পেরে অনেকে আর্থিক ক্ষতির সম্মুখীন হয়েছে বলে অভিযোগ উঠেছে।

একসময়ে চামড়া ব্যবসাকে কেন্দ্র করে গড়ে উঠা পাবনার পশ্চিম সাধুপাড়া এলাকার চামড়াপট্টিতে এখন নেই কোন আগের মত কর্ম চাঞ্চল্যতা। নেই আগের সেই পশুর চামড়ার রমরমা দিনগুলো। একসময় ঈদের দুই তিন দিন ক্রেতা বিক্রেতার ভীড়ি থাকলেও এখন আর চোখে পড়ে না। কিছু সংখ্যক ব্যবসায়ী বাপ দাদার পৈতৃক ব্যবসা হিসেবে ধরে রাখলেও শ্রমিক খরচ, লবণের দাম বৃদ্ধি, চামড়ার ন্যায্য দাম না পাওয়ায় এবং এ পেশায় লাভের সংখ্যা খুব কম হওয়ায় কোন রকমে টিকে আছে তারা। এখন চামড়াপট্টিতে বেশিরভাগ গুদাম নেই, চামড়াও নেই। চামড়ার ব্যবসা ছেড়ে এখন অনেকে অটোরিকশা চালানো থেকে শুরু করে বিভিন্ন পেশায় জীবিকা নির্বাহ করছে।

সরেজমিনে খোঁজ নিয়ে জানা গেছে, এক সময় পশুর চামড়ার রমরমা ব্যবসা হলেও অনেক ব্যবসায়ী ট্যানারি মালিকদের কাছ থেকে বকেয়া টাকা তুলতে ব্যর্থ হয়ে পরবর্তীতে ব্যবসা ধরে রাখতে পারেননি। আবার অনেকে চামড়া ব্যবসায় ঋণ না পেয়ে পুঁজির অভাবে পেশা পরিবর্তন করতে বাধ্য হয়েছে। তাই এ পেশার সাথে সম্পৃক্ত অল্প সংখ্যক ব্যবসায়ীর দাবি, চামড়া শিল্পে ঋণের ব্যবস্থাসহ কাঁচা চামড়া সংরক্ষণের ব্যবস্থা না করা হলে এক সময় একেবারেই হারিয়ে যাবে এ পেশা।

একসময় পাবনা পশ্চিম সাধুপাড়া এলাকায় গড়ে ওঠেছিল চামড়াপট্টি। প্রায় ৩০ জন ব্যবসায়ী চামড়া কেনাবেচার সঙ্গে যুক্ত ছিলেন। আগে চামড়ার ব্যবসার এতোই প্রসার ঘটে ছিল যে লবণ দিয়ে সংরক্ষণ করে রাখা চামড়ার দুর্গন্ধে আশপাশের মানুষ রাস্তা দিয়ে চলাচল করতে পারতো না। অথচ এখন সেই চামড়াপট্টিতে চামড়া নেই। সময়মতো বকেয়া টাকা তুলতে ব্যর্থ হওয়া, চামড়ার ভালো বাজার না পাওয়াসহ নানা সমস্যার কারণে চামড়াপট্টিতে বর্তমানে হাতে গোনা দুই থেকে তিনজন ব্যবসায়ী কোন মত টিকে আছে। পেশা বদল করে নেয়া বেশিরভাগ চামড়া ব্যবসায়ী এখন শুধু ঈদুল আজহাতে মৌসুমী ব্যবসায়ী হিসেবে কোরবানির পশুর চামড়া কেনাবেচা করে থাকে।

পাবনা পশ্চিম সাধুপাড়া এলাকার চামড়া ব্যবসায়ী আমজাদ হোসেন আজম, মো. রাজু শেখ, ইমদাদুলহক ইন্দু, আবদুল হান্নান মিলন, শাকিলসহ বেশ কয়েকজন চামড়া ব্যবসায়ী জানান, ট্যানারি মালিকদের নির্ধারিত দামে চামড়া বিক্রি করতে হয়। বেশি দামে চামড়া কেনা থাকলেও কম দামে বিক্রি করা ছাড়া কোন উপায় থাকে না তাদের।

তারা আরও জানান, চামড়া সংরক্ষণ করে রাখবে সেই সুযোগও নেই তাদের। নগদ দামে চামড়া কিনে বেশ কিছু টাকা বাকি রেখে ট্যানারিগুলোতে তাদের চামড়া বিক্রি করতে হচ্ছে। অতীতে প্রসিদ্ধ ট্যানারি মালিকের মৃত্যুর কারণে চামড়াপট্টির অনেক ব্যবসায়ী বকেয়া লাখ লাখ টাকা আজও তুলতে না পেরে মূলধনের অভাবে তারা আজ পথে বসেছে। চামড়া বিক্রি করে বছরের পর বছর ধর্ণা দিয়েও বকেয়া টাকা তুলতে পারিনি অনেকে। তারা জানান, শুধু তারাই নয়, তাদের মতো অনেকেই আজ পুঁজি হারিয়ে পথে বসেছে অথবা ধার-দেনা করে অন্য পেশায় যুক্ত হয়েছে। তাই চামড়া শিল্পে ব্যাংক ঋণ চালু করাসহ সুষ্ঠু বাজার ব্যবস্থাপনা গড়ে তোলার জন্য সরকারের কাছে দাবি জানান তারা।

পাবনা হাজিরহাট বেতে পাড়ার আইসা ডেইরি ফ্রাম ও চামড়া আড়ৎ ব্যবসায়ী আব্দুল খালেক জানান, চামড়া ব্যবসা টিকিয়ে রাখতে আমরা এ ব্যবসা শুরু করেছি। মসজিদ মাদ্রাসা যেন এই চামড়ার ন্যায্য মূল্য পায় এজন্য আমরা এ পেশায় সম্পৃক্ত হয়েছি।

তিনি জানান, পাবনার সবচেয়ে বেশি পশুর চামড়া ক্রয় করে থাকি আমরা। পাবনায় চামড়া ব্যবসা যেন হারিয়ে না যায় এজন্যই তারা এই পেশা ধরে রাখার চেষ্টা করছেন বলে জানান তিনি। তিনি আরও জানান, চামড়া প্রতি  ৮০০ থেকে ৯০০ টাকা দরে চামড়া কিনে থাকেন তারা, তবে সব মিলিয়ে চামড়া প্রতি তাদের খরচ হয় ১৩০০ টাকার মত। তিনি বলেন, বর্তমানে চামড়ার বাজার নেই। ট্যানারি ছাড়া স্থানীয়ভাবে চামড়া সংরক্ষণে বিকল্প কোন ব্যবস্থাও নেই, আমদানি কম অন্যদিকে লবণের দাম বৃদ্ধি। ঢাকার ব্যবসায়ীরা চামড়ার ন্যায্য মূল্য না দেওয়ায় এব্যবসা টিকিয়ে রাখা কঠিন হচ্ছে বলে তিনি দাবি করেন।

এ বিষয়ে বাংলাদেশ ক্ষুদ্র ও কুটির শিল্প করপোরেশন (বিসিক) এর পাবনা (ভারপ্রাপ্ত) উপ-মহাব্যবস্থাপক মো. রফিকুল ইসলাম বলেন, গত দুই বছর হলো চামড়া শিল্প নিয়ে কাজ করছি। চামড়া ব্যবসা যেন আগের মত চাঙ্গা হয় এজন্য বিসিক নিরলস ভাবে কাজ করছে। তিনি বলেন, সরকারি রেট অনুযায়ী চামড়া ক্রয় বিক্রয় হচ্ছে কি-না আমরা সে বিষয়েও মনিটরিং করছি। এর পাশাপাশি বিসিক ঋণ কার্যক্রমও চালু আছে। চামড়া শিল্প রক্ষায় সহজ শর্তে ঋণসহ নানা সহয়োগিতার আশ্বাস দেন স্থানীয় এই বিসিক কর্মকর্তা।

তিনি বলেন, যেসকল চামড়াগুলি জেলা পর্যায়ে আছে এই চামড়াগুলি নিয়ে ব্যবসায়ীরা যেন ক্ষতিগ্রস্ত না হয় এ ব্যাপারেও তারা তাদের সাথে যোগাযোগ রক্ষা করে চলছে।


আরও খবর



প্রধান বিচারপতির বাসভবনে হামলা

সাবেক স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী আলতাফ হোসেন আটক

প্রকাশিত:রবিবার ০৫ নভেম্বর ২০২৩ | হালনাগাদ:রবিবার ০৫ নভেম্বর ২০২৩ | অনলাইন সংস্করণ
নিজস্ব প্রতিবেদক

Image

সাবেক স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী ও বিমানবাহিনী প্রধান এবং বর্তমানে বিএনপির ভাইস প্রেসিডেন্ট এয়ার ভাইস মার্শাল (অব.) আলতাফ হোসেন চৌধুরীকে আটক করেছে র‌্যাব।

রোববার (৫ নভেম্বর) সকালে তাকে টঙ্গী এলাকায় আত্মগোপনে থাকা অবস্থায় আটক করে র‌্যাব। সকালে এ তথ্য জানান র‌্যাবের লিগ্যাল অ্যান্ড মিডিয়া উইংয়ের পরিচালক কমান্ডার খন্দকার আল মঈন।

তিনি বলেন, গত ২৮ অক্টোবর প্রধান বিচারপতির বাসভবনে হামলা, নাশকতা ও সহিংসতা মামলার এজাহারভুক্ত আসামি বিএনপির ভাইস প্রেসিডেন্ট এয়ার ভাইস মার্শাল (অব.) আলতাফ হোসেন চৌধুরী। তিনি টঙ্গী এলাকায় আত্মগোপনে ছিলেন। গোপন খবরের ভিত্তিতে তাকে আটক করা হয়েছে।

প্রাথমিক জিজ্ঞাসাবাদের জন্য আলতাফ হোসেন চৌধুরীকে র‌্যাব সদর দপ্তরে আনা হয়েছে। এ বিষয়ে পরবর্তী আইনগত ব্যবস্থার কথা পরে জানানো হবে বলেও জানান র‌্যাবের এই কর্মকর্তা।


আরও খবর



প্রধানমন্ত্রীর সঙ্গে তৃণমূল বিএনপি নেতাদের সাক্ষাৎ

প্রকাশিত:সোমবার ২০ নভেম্বর ২০23 | হালনাগাদ:সোমবার ২০ নভেম্বর ২০23 | অনলাইন সংস্করণ
নিজস্ব প্রতিবেদক

Image

আওয়ামী লীগ সভাপতি ও প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সঙ্গে প্রায় আড়াই ঘণ্টা বৈঠক করেছেন তৃণমূল বিএনপির নেতারা। গতকাল রবিবার রাতে বৈঠক থেকে বেরিয়ে তারা জানিয়েছেন আসন্ন দ্বাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে তৃণমূল বিএনপি অংশ নিচ্ছে।

অবশ্য এর আগে গত ১৬ নভেম্বর নির্বাচনে যাওয়ার ঘোষণা দেন তৃণমূল বিএনপির চেয়ারপারসন শমসের মুবিন চৌধুরী।

মাগরিবের পর তৃণমূল বিএনপির একটি প্রতিনিধি দল গণভবনে যান। রাত ১০টার কিছুক্ষণ আগে তারা গণভবন থেকে বেরিয়ে আসেন।

আরও পড়ুন>> আমরা হবো প্রধান বিরোধীদল : তৈমূর আলম

দলটির নেতারা সাংবাদিকদের জানান, আগামী নির্বাচন নিয়ে তাদের সঙ্গে প্রধানমন্ত্রীর আলাপ হয়েছে। তৃণমূল বিএনপি নির্বাচনে অংশ নেবে।

প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সঙ্গে গণভবনে সাক্ষাতে কোন বিষয় নিয়ে কথা হয়েছে জানতে চাইলে তৃণমূল বিএনপির মহাসচিব তৈমুর আলম খন্দকার বলেন, এটা রাষ্ট্রীয় বিষয়। আমি কিছু বলতে পারব না। আলোচনার বিষয়বস্তু সম্পর্কে সেখান (প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়) থেকে জেন নিন।


আরও খবর



রাজধানীতে বিপুল বিস্ফোরক জব্দ, আটক ২

প্রকাশিত:মঙ্গলবার ২১ নভেম্বর ২০২৩ | হালনাগাদ:মঙ্গলবার ২১ নভেম্বর ২০২৩ | অনলাইন সংস্করণ
নিজস্ব প্রতিবেদক

Image

রাজধানীতে অভিযান চালিয়ে বিপুল বিস্ফোরক জব্দসহ দুজনকে আটক করেছে র‌্যাব-৩। আজ মঙ্গলবার (২১ নভেম্বর) এক সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে এমন দাবি করেছে সংস্থাটি।

বিজ্ঞপ্তিতে বলা হয়েছে, ফকিরাপুলের কালভার্ট রোড এলাকার একটি বাড়ি থেকে উচ্চমাত্রার বিপুল বিস্ফোরক জব্দ করে র‌্যাব-৩। একইসঙ্গে ওই বাড়ি থেকে সংস্থাটি মাদকদ্রব্যও জব্দ করেছে। এ সময় দুজনকে আটক করা হয়। 

আরও পড়ুন>> বর্তমান রিজার্ভকে ‘স্বস্তিদায়ক’ বলছে বাংলাদেশ ব্যাংক

বিজ্ঞপিতে র‌্যাব দাবি করেছে, নাশকতার উদ্দেশে ফকিরাপুলের ওই বাড়িতে এসব বিস্ফোরক সংরক্ষণ করা হয়েছিল।

র‍্যাব-৩-এর অধিনায়ক এসব তথ্য নিশ্চত করে জানান, আগামীকাল এ বিষয়ে দুপুর পৌনে ১২টায় র‌্যাবের মিডিয়া সেন্টারে সংবাদ সম্মেলনে বিস্তারিত তুলে ধরা হবে।


আরও খবর



বিএনপিকে বুড়ো আঙুল দেখিয়েছে জনগণ: তথ্যমন্ত্রী

প্রকাশিত:মঙ্গলবার ২৮ নভেম্বর ২০২৩ | হালনাগাদ:মঙ্গলবার ২৮ নভেম্বর ২০২৩ | অনলাইন সংস্করণ
নিজস্ব প্রতিবেদক

Image

বিএনপির কর্মসূচি জনগণ মানছে না মন্তব্য করে আওয়ামী লীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক এবং তথ্য ও সম্প্রচারমন্ত্রী ড. হাছান মাহমুদ বলেছেন, জনগণ বিএনপিকে বুড়ো আঙুল দেখিয়ে দিয়েছে। সচিবালয়ের নিজ দপ্তরে আয়োজিত প্রেস ব্রিফিংয়ে আজ মঙ্গলবার (২৮ নভেম্বর) তথ্যমন্ত্রী এসব কথা বলেন।

হাছান মাহমুদ বলেন, বিএনপির কর্মসূচি কেউ মানছে না। সড়কে কোথাও কোথাও যানজট লেগে থাকছে। এভাবে গাড়ি চলার মানে হলো, ওদেরকে (বিএনপি) বুড়ো আঙুল দেখিয়ে দেওয়া। এরপরও লজ্জা হয় না ওদের। আমরা চাই, বিএনপি ধ্বংসাত্মক কর্মসূচি থেকে বেরিয়ে এসে নির্বাচনে অংশগ্রহণ করুক। 

আরও পড়ুন>> শরিকদের জন্য ১০০ আসন ছেড়ে দেওয়া হবে: ওবায়দুল কাদের

ব্রিফিংয়ে সাংবাদিকের এক প্রশ্নের জবাবে তথ্যমন্ত্রী বলেন, দেশের উন্নয়নে রাজনৈতিক স্থিতিশীলতা প্রয়োজন। বিএনপি এখন যেভাবে জ্বালাও-পোড়াও করছে তাতে দেশের স্থিতিশীলতা নষ্ট হচ্ছে। রাজনৈতিক স্থিতিশীলতা ছাড়া কখনই উন্নয়ন সম্ভব নয়।

নির্বাচন নিয়ে আওয়ামী লীগের এই যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক বলেন, তফসিল পেছানো নিয়ে প্রধান নির্বাচন কমিশনার যা বলেছেন তা যথার্থ। আমরা এখনও আশা করি, বিএনপির শুভবুদ্ধির উদয় হবে।


আরও খবর



সরকারি-বেসরকারি স্কুলে ভর্তির লটারি পেছালো

প্রকাশিত:বুধবার ২২ নভেম্বর ২০২৩ | হালনাগাদ:বুধবার ২২ নভেম্বর ২০২৩ | অনলাইন সংস্করণ
নিজস্ব প্রতিবেদক

Image

সরকারি-বেসরকারি স্কুলে প্রথম থেকে নবম শ্রেণিতে ভর্তির ডিজিটাল লটারির তারিখ পেছানো হয়েছে। নতুন সিদ্ধান্ত অনুযায়ী, ২৬ নভেম্বরের পরিবর্তে আগামী ২৮ নভেম্বর লটারি অনুষ্ঠিত হবে।

রোববার (২৬ নভেম্বর) এইচএসসি ও সমমান পরীক্ষার ফল প্রকাশের তারিখ নির্ধারিত হওয়ায় লটারির কার্যক্রম পিছিয়ে দেওয়া হয়েছে বলে জানিয়েছেন মাধ্যমিক ও উচ্চশিক্ষা অধিদপ্তরের (মাউশি) কর্মকর্তারা।

মাধ্যমিক ও উচ্চশিক্ষা অধিদপ্তর (মাউশি) থেকে এরই মধ্যে টেকনিক্যাল সহায়তা দেওয়া প্রতিষ্ঠান টেলিটককে এ বিষয়ে চিঠি পাঠানো হয়েছে। মাউশির মহাপরিচালক অধ্যাপক নেহাল আহমেদ চিঠিতে সই করেন। ওই চিঠিতে ২৮ নভেম্বর সরকারি-বেসরকারি স্কুলে ভর্তির লটারির প্রস্তুতি নিতে বলা হয়েছে।

চিঠিতে বলা হয়েছে, আগামী ২৮ নভেম্বর, মঙ্গলবার সরকারি মাধ্যমিক বিদ্যালয় ও বেসরকারি (মহানগর ও জেলার সদর উপজেলা পর্যায়) মাধ্যমিক বিদ্যালয়ের আবেদনকৃত শিক্ষার্থীদের অনলাইন লটারি অনুষ্ঠানের দিন ধার্য করা হয়েছে। ধার্যকৃত তারিখ অনুযায়ী লটারি অনুষ্ঠানের ভেন্যু আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা ইনস্টিটিউট নির্ধারণসহ যাবতীয় আনুষ্ঠানিকতা আয়োজন সংক্রান্ত প্রস্তুতি বিষয়ে অধিদপ্তরকে অবহিত করার জন্য নির্দেশক্রমে অনুরোধ করা হলো।

মাউশির ভর্তি কমিটি সূত্র জানায়, এবার স্কুলগুলোতে মোট শূন্য আসন রয়েছে ১১ লাখ ২২ হাজার ৯৪টি। এরমধ্যে সরকারি স্কুলে শূন্য আসন ১ লাখ ১৮ হাজার ১০১টি। এর বিপরীতে আবেদন করেছে ৫ লাখ ৬৩ হাজার ১৩ জন। অর্থাৎ সরকারি স্কুলে শূন্য আসনের প্রায় পাঁচগুণ বেশি আবেদন জমা পড়েছে।

অন্যদিকে বেসরকারি স্কুলে শিক্ষার্থী সংকট দেখা গেছে। সারাদেশের বেসরকারি স্কুলে শূন্য আসন সংখ্যা ১০ লাখ ৩ হাজার ৯৯৩টি। এর বিপরীতে আবেদন করেছে মাত্র ৩ লাখ ১০ হাজার ৭৭৯ শিক্ষার্থী। অর্থাৎ বেসরকারি স্কুলে এবারও প্রায় ৭ লাখ আসন শূন্য থাকবে।

গত ২৪ অক্টোবর ঢাকা মহানগরসহ দেশের সব সরকারি ও বেসরকারি মাধ্যমিক স্কুলে ভর্তির আবেদন শুরু হয়। প্রথম দফায় ১৪ নভেম্বর বিকেল ৫টা পর্যন্ত আবেদনের দিন ধার্য ছিল। এরপর ভর্তির সময় চারদিন বাড়িয়ে ১৮ নভেম্বর করা হয়। সেদিন বিকেল ৫টা পর্যন্ত আবেদন করতে পেরেছে শিক্ষার্থীরা। এবার ভর্তির আবেদন ফি ছিল ১১০ টাকা। টেলিটকের মাধ্যমে তা পরিশোধ করার শেষ সময় ছিল শনিবার (১৯ নভেম্বর) দিনগত রাত ১২টা পর্যন্ত।


আরও খবর