আজঃ বুধবার ২৫ মে ২০২২
শিরোনাম

পুকুরে ডুবে একই পরিবারের ২ শিশুসহ নিহত-৩

প্রকাশিত:বুধবার ১১ মে ২০২২ | হালনাগাদ:বুধবার ১১ মে ২০২২ | ৪৪০জন দেখেছেন
দর্পণ নিউজ ডেস্ক

Image

চট্টগ্রামের বাঁশখালীতে নানার বাড়ি বেড়াতে এসে পুকুরে ডুবে একই পরিবারের দুই শিশু রাইসা (৬) ও জাইছার (৪) এবং  হুজাইফা (২) নামে আরও এক শিশুর মৃত্যু হয়েছে। মঙ্গলবার (১০ মে) বিকালে উপজেলার কাথরিয়া ইউনিয়নের ২ নম্বর ওয়ার্ড এলাকায় একাই পরিবারের দুই শিশু এবং বাঁশখালী পৌরসভার ৩ নম্বর ওয়ার্ড উত্তর জলদী নেয়াজর পাড়ায় অন্য আরেক শিশুর মৃত্যুর ঘটনা ঘটে।

নিহত দুই বোন রাইসা (৬) ও জাইছা (৪) কাথারিয়া ইউনিয়নের ৩ নম্বর ওয়ার্ডের মুহাম্মদ করিমের মেয়ে এবং পৌরসভার এলাকার মুহাম্মদ হামিদুর রহমান মেয়ে মুবাশ্বির  হুজাইফা (২)।

স্থানীয়  মুহাম্মদ আব্দুল আলীম বলেন, বাচ্চা দুটি নানার বাড়িতে বেড়াতে আসে। বাড়ির পাশে খেলতে গিয়ে সবার অগোচরে পাশের পুকুরে পড়ে যায়। অনেক খোঁজাখুঁজির পর বিকালে তাদেরকে পুকুর থেকে মৃত উদ্ধার করেন স্থানীয়রা।

নিহত শিশু হুজাইফার চাচা মুহাম্মদ শহিদ বলেন, সবার অগোচরে বাড়ির পাশে খেলতে গিয়ে পুকুরে পড়ে যায় হুজাইফা। সেখান থেকে উদ্ধার করে তাকে উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নিয়ে গেলে  কর্তব্যরত চিকিৎসক শিশুটিকে মৃত ঘোষণা করেন।

উল্লেখ্য, রোববার খেলতে গিয়ে উপজেলার পুকুরিয়া ইউনিয়নের তৈলারদ্বীপ শঙ্খ নদীতে একই পরিবারের মো. সাহেদ হোসেন ও রাজিব হোসেন নামের দুই শিশুর মৃত্যু হয়েছে।


আরও খবর



‘তেল-জ্বালানিসহ সবকিছুর দাম সারা বিশ্বেই ঊর্ধ্বমুখী’

প্রকাশিত:শুক্রবার ০৬ মে ২০২২ | হালনাগাদ:শুক্রবার ০৬ মে ২০২২ | ৩৯৫জন দেখেছেন
দর্পণ নিউজ ডেস্ক

Image

তেল, জ্বালানিসহ সবকিছুর দাম সারা বিশ্বে ঊর্ধ্বমুখী বলে মন্তব্য করেছেন আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক এবং সড়ক পরিবহণ ও সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদের। আজ শুক্রবার দুপুরে ঢাকা-নারায়ণগঞ্জ লিঙ্ক রোড ছয় লেনে উন্নীতকরণ কাজের অগ্রগতি পরিদর্শন শেষে এ মন্তব্য করেন তিনি।

সয়াবিন তেলের দাম বৃদ্ধি নিয়ে আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক বলেন, আমাদের প্রতিবেশী দেশসহ অনেক দেশে ডাবলেরও বেশি বেড়েছে। এর কারণ হলো ইউক্রেন যুদ্ধ। ইউক্রেন যুদ্ধের কারণে তেলের দামের ওপর প্রভাব পড়ছে। তেল, জ্বালানিসহ সবকিছুর দাম সারা বিশ্বেই ঊর্ধ্বমুখী। বাংলাদেশ তো আইসোলেটেড কোনো আইল্যান্ড নয়। কাজেই এর প্রভাব-প্রতিক্রিয়া সব জায়গায় পড়বে, কিছু করার নেই।

ঈদযাত্রা নিয়ে বিএনপির নেতাদের বক্তব্যের পরিপ্রেক্ষিতে আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক বলেন, আসল কথা হলো, মানুষ যখন আনন্দ পায়, বিএনপির তখন কষ্ট হয়, তাদের গায়ে জ্বালা হয়, তারা কষ্ট পায়। মানুষ নির্বিঘ্নে এবারের ঈদযাত্রা সম্পন্ন করেছে এবং ফিরতি যাত্রায়ও কোনো ভোগান্তি হয়নি।

শেখ হাসিনাকে সংকটের একজন ক্রাইসিস ম্যানেজার আখ্যায়িত করে ওবায়দুল কাদের বলেন, শেখ হাসিনা তাঁর দূরদর্শী রাজনীতি দিয়ে সব সংকট মোকাবিলা করেন ও করছেন। পৃথিবীতে যুদ্ধ হলে সংকট আসবেই। কিন্তু, মোকাবিলা করার সাহস ও সততা প্রধানমন্ত্রীর আছে।


আরও খবর



আনুষ্ঠানিকভাবে জানালে পি কে হালদারের বিষয়ে ব্যবস্থা

প্রকাশিত:শনিবার ১৪ মে ২০২২ | হালনাগাদ:শনিবার ১৪ মে ২০২২ | ৩৬০জন দেখেছেন
দর্পণ নিউজ ডেস্ক

Image

স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয় জানালে এবং আনুষ্ঠানিকভাবে জানানো হলে ভারতের পশ্চিমবঙ্গে গ্রেফতার প্রশান্ত কুমার (পি কে) হালদারকে দেশে ফিরিয়ে আনার বিষয়ে ব্যবস্থা নেওয়া হবে বলে জানিয়েছেন পররাষ্ট্রমন্ত্রী ড. এ কে আব্দুল মোমেন।

শনিবার (১৪ মে) বিকেলে রাজধানীর ফরেন সার্ভিস একাডেমিতে এক অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তব্যের পর সাংবাদিকদের এক প্রশ্নের জবাবে তিনি এ কথা জানান।

পি কে হালদারকে শনিবার ভারতের পশ্চিমবঙ্গের অশোকনগর থেকে গ্রেফতার করেছে ভারত সরকারের কেন্দ্রীয় তদন্ত সংস্থা এনফোর্সমেন্ট ডিরেক্টরেট (ইডি)।

এ বিষয়ে প্রশ্নের জবাবে পররাষ্ট্রমন্ত্রী মোমেন বলেন, পি কে হালদার ভারতে গ্রেফতার হওয়ার বিষয়ে পররাষ্ট্রমন্ত্রী হিসেবে আমি এখনো আনুষ্ঠানিকভাবে কিছু জানি না। জানার পরে যা যা অ্যাকশন নেওয়া প্রয়োজন, তা আমরা নেব।

পররাষ্ট্রমন্ত্রী আরও বলেন, অর্থ পাচারকারীদের বিরুদ্ধে অবশ্যই ব্যবস্থা নেওয়া হবে। এটা নিয়ে দুদক কাজ করছে। অনেকে নামে-বেনামে দেশ থেকে টাকা পাচার করছেন। তারা দেশের শত্রু। তাদের ধরে নিয়ে আসা ভালো। পি কে হালেদারের মতো মানুষদের ধরে নিয়ে আসার দুই-একটি দৃষ্টান্ত হলে তা আরও ভালো হবে।

এর আগে ফরেন সার্ভিস একাডেমিতে চন্দ্রাবতী একাডেমি আয়োজিত জাতীয় অধ্যাপক আনিসুজ্জামানের স্মরণসভা ও আলোকচিত্র গ্রন্থের প্রকাশনা অনুষ্ঠিত হয়। সুরের ধারার চেয়ারম্যান ও প্রখ্যাত সংগীতশিল্পী রেজওয়ানা চৌধুরী বন্যার সভাপতিত্বে অনুষ্ঠানে বিশেষ অতিথি ছিলেন বাংলা একাডেমির সভাপতি কথাসাহিত্যিক সেলিনা হোসেন এবং ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রো-ভিসি ড. মুহাম্মদ সামাদ।

অনুষ্ঠানে অধ্যাপক আনিসুজ্জামানের বিভিন্ন আলোকচিত্র নিয়ে কবি মারুফুল ইসলাম রচিত আমার মুক্তি আলোয় আলোয়’ গ্রন্থের মোড়ক উন্মোচন করা হয়।


আরও খবর



সর্বনিম্ন ২৫ হাজার টাকা বেতন চান সরকারি কর্মচারীরা

প্রকাশিত:রবিবার ২২ মে 20২২ | হালনাগাদ:রবিবার ২২ মে 20২২ | ৩১০জন দেখেছেন
দর্পণ নিউজ ডেস্ক

Image

ছয় সদস্য বিশিষ্ট পরিবারের ব্যয় বিবেচনায় সরকারি কর্মচারীদের বেতন সর্বনিম্ন ২৫ হাজার টাকা করাসহ সাত দফা দাবি জানিয়েছে বাংলাদেশ সরকারি কর্মচারী দাবি বাস্তবায়ন ঐক্য ফোরাম।

রোববার (২২ মে) সকালে জাতীয় প্রেস ক্লাবের মাওলানা মোহাম্মদ আকরাম খাঁ হলে আয়োজিত এক সংবাদ সম্মেলনে এসব দাবি জানায় সংগঠনটি।

ফোরামের নেতারা বলেন, নবম পে-স্কেল ঘোষণা না হওয়া পর্যন্ত অন্তর্বর্তীকালের জন্য ১১-২০তম গ্রেডভুক্ত কর্মচারীদের ৫০ শতাংশ মহার্ঘ ভাতা, শতভাগ পেনশন, স্বেচ্ছায় অবসরে চাকরির বয়সসীমা ২০ বছর নির্ধারণ এবং আনুতোষিক প্রতি ১ টাকায় ৩০০ টাকা নির্ধারণ করতে হবে এবং পে-কমিশনে কর্মচারীর প্রতিনিধি রাখতে হবে।

অন্য দাবিগুলোর হলো- সচিবালয়ের মতো এর বাইরে সব দপ্তর বা অধিদপ্তরে কর্মরত কর্মচারীদের পদবী ও গ্রেড পরিবর্তনসহ প্রজাতন্ত্রের কর্মচারীদের জন্য এক ও অভিন্ন নিয়োগ বিধি প্রণয়ন করতে হবে। প্রাথমিক বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষকদের প্রথম শ্রেণি ও সহকারী শিক্ষকদের দ্বিতীয় শ্রেণির কর্মকর্তার পদমর্যাদা ও শতভাগ বিভাগীয় পদোন্নতি দিতে হবে। ব্লক পদ প্রথা প্রত্যাহার, পদোন্নতিযোগ্য পদ শূন্য না থাকলেও নির্ধারিত সময়ের পর উচ্চতর পদের বেতন স্কেল দিতে হবে, ঝুঁকিপূর্ণ কর্মে নিয়োজিত কর্মচারীদের যৌক্তিকভাবে ঝুঁকিভাতা দিতে হবে ও আউট সোর্সিং নিয়োগ প্রথা বিলুপ্ত করতে হবে।

ফোরামের আহ্বায়ক হেদায়েত হোসেন লিখিত বক্তব্যে বলেন, ২০১৫ সালে ঘোষিত বেতন স্কেলে শুভঙ্করের ফাঁকির মধ্যে ১১-২০তম গ্রেডভুক্ত কর্মচারীদের বিভিন্নভাবে ঠকানো হয়েছে, বৈষম্যে নিপতিত করা হয়েছে। ১১-২০তম গ্রেডভুক্ত কর্মচারীদের মধ্যে সৃষ্ট বৈষম্য, আর্থিক দৈন্যতাসহ সার্বিক বিষয় নিরসনের জন্য বিভিন্ন কর্মচারী সংগঠন হতে সরকারের কাছে বিভিন্ন সময়ে দাবি পেশ করা হলেও তা উপেক্ষিত হয়েছে।

তিনি বলেন, জীবন ধারণের জন্য প্রয়োজনীয় নিত্যপণ্যের দাম ক্রমাগতভাবে বৃদ্ধির দৃষ্টান্ত আমাদের দেশের প্রচলিত প্রথা। এরই মধ্যে গত দুবছরে অস্বাভাবিকভাবে বেড়েছে নিত্যপণ্যের মূল্য। ফলে নিম্ন বেতনভুক্ত কর্মচারীরা দিশেহারা। এমনি পরিস্থিতিতে আর্থিক দৈন্যতায় নিপতিত প্রজাতন্ত্রের ১১-২০তম গ্রেডভুক্ত কর্মচারীদের প্রতিনিধিত্বকারী সমমনা সংগঠনসমূহ একাধিক মতবিনিময় সভায় মিলিত হয়ে একটি মঞ্চে এসে এক ও অভিন্ন দাবি সরকারের নিকট পেশ করছি।

সংবাদ সম্মেলনে আরও উপস্থিত ছিলেন ফোরামের সমন্বয়ক মো. লুৎফর রহমান, মুখ্য সমন্বয়ক মো. ওয়ারেছ আলী প্রমুখ।


আরও খবর



ময়মনসিংহে দেবরের দায়ের কোপে ভাবির মৃত্যু

প্রকাশিত:বুধবার ১৮ মে ২০২২ | হালনাগাদ:বুধবার ১৮ মে ২০২২ | ৩৫০জন দেখেছেন
দর্পণ নিউজ ডেস্ক

Image

ময়মনসিংহের তারাকান্দায় বাঁশ কাটাকে কেন্দ্র করে দেবরের দায়ের কোপে জাহানারা বেগম (৪৫) নামে এক নারী নিহত হয়েছেন। এ সময় স্ত্রীকে উদ্ধার করতে গেলে মো. ইদ্রিছ আলীকেও কুপিয়ে ও পিটিয়ে গুরুতর আহত করা হয়।

স্থানীয় সূত্রে জানা গেছে, উপজেলার রামপুর ইউনিয়নের বাহেলা গ্রামের মৃত লাল হোসেন খাঁর পুত্র ইদ্রিস আলীর সঙ্গে সহোদর ভাই সিদ্দিকুর রহমান ও হাবিবুর রহমানের জমাজমি ভাগবন্টন নিয়ে বিরোধ সৃষ্টি হয়। সোমবার ইদ্রিস আলী পৈত্রিক জমিতে থাকা বাশঁ কাটতে গেলে তার বড় ভাই সিদ্দিকুর রহমান বাধা দেয়। এ নিয়ে বাকবিতণ্ডা হয় এবং ইদ্রিছ আলীকে হত্যার হুমকি দেয়।

মঙ্গলবার (১৭ মে) বেলা সাড়ে ১১টায় ইদ্রিছ আলী স্থানীয় বাজার থেকে বাজার নিয়ে বাড়িতে ফিরে। এসময় পূর্ব শত্রুতার জের ধরে সহোদর ভাই সিদ্দিকুর রহমান ও হাবিবুর রহমানসহ ৮/১০ জন ধারালো অস্ত্রশস্ত্র নিয়ে ইদ্রিছ মিয়াকে (৫০) তার ঘরে ঢুকে জখম করে। জাহানারা বেগম স্বামীকে উদ্ধার করতে গেলে তাকেও কুপিয়ে ও পিটিয়ে গুরুতর জখম করে ফেলে রাখে।

নিহতের মেয়ে ঝর্ণা আক্তার (২২) ও তামান্না আক্তার (১৪) জানায়, গুরুতর আহত অবস্থায় জাহানারা বেগম ও ইদ্রিছ আলীকে ময়মনসিংহ মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে নিয়ে গেলে কর্তব্যরত চিকিৎসক তার মাকে মৃত ঘোষণা করে।

তারাকান্দা থানার ওসি আবুল খায়ের জানান, খুনের আলামত জব্দসহ নিহতের লাশ উদ্ধার করে ময়নাতদন্তের জন্য ময়মনসিংহ মেডিকেল কলেজ হাসপাতাল মর্গে পাঠানো হয়েছে। আসামি গ্রেফতার ও মামলা দায়েরের প্রস্তুতি চলছে।

নিউজ ট্যাগ: ময়মনসিংহ

আরও খবর



জামিনে কারামুক্ত সম্রাট

প্রকাশিত:বুধবার ১১ মে ২০২২ | হালনাগাদ:বুধবার ১১ মে ২০২২ | ৫৫৫জন দেখেছেন
দর্পণ নিউজ ডেস্ক

Image

ঢাকা মহানগর দক্ষিণ যুবলীগের বহিষ্কৃত সভাপতি ইসমাইল চৌধুরী সম্রাট জামিনে মুক্ত হয়েছেন। এসময় তার পাহারায় থাকা কারারক্ষীদের সরিয়ে নেওয়া হয়। বিকেল সাড়ে ৪টার দিকে তাকে জামিনে মুক্ত করা হয়।

বুধবার (১১ মে) বিকেলে ঢাকা কেন্দ্রীয় কারাগারের (কেরানীগঞ্জ) জেলার মাহবুবুল ইসলাম এ তথ্য নিশ্চিত করেন।

তিনি বলেন, কেন্দ্রীয় কারাগার থেকে কারা কর্মকর্তা জামিনের কাগজ নিয়ে বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিক্যাল বিশ্ববিদ্যালয়ের (বিএসএমএমইউ) সিসিইউতে চিকিৎসাধীন থাকা সম্রাটের কাছে নিয়ম-কানুন মেনে তাকে জামিনে মুক্ত করেন।

এর আগে আজই অবৈধ সম্পদ অর্জনের অভিযোগে মামলায় ঢাকার বিশেষ জজ আদালত-৬-এর বিচারক আল আসাদ মো. আসিফুজ্জামান শুনানি শেষে তার জামিন মঞ্জুর করেন।

তার আইনজীবী মাহবুবুল আলম দুলাল গণমাধ্যমকে জানান, সম্রাটের বিরুদ্ধে মোট চারটি মামলা করা হয়। অস্ত্র, মাদক ও অর্থপাচারের মামলায় ইতোমধ্যে জামিন পেয়েছেন তিনি। কারাগারে ছিলেন দুদকের মামলায়।

১৯৫ কোটি টাকা পাচারের অভিযোগে সম্রাটের বিরুদ্ধে মানিলন্ডারিং আইনে একটি মামলা করে পুলিশের অপরাধ তদন্ত বিভাগ-সিআইডি। সিআইডির অর্গানাইজড ক্রাইম বিভাগের উপপরিদর্শক রাশেদুর রহমান বাদী হয়ে রাজধানীর রমনা থানায় এই মামলা (মামলা নম্বর ১৪) করেন। সম্রাট তার সহযোগী এনামুল হক আরমানের মাধ্যমে ১৯৫ কোটি টাকা সিঙ্গাপুর ও মালয়েশিয়ায় পাচার করেছেন বলে মামলায় অভিযোগ আনা হয়েছে। সিআইডির সহকারী পুলিশ সুপার জিসানুল হক বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন।

সিআইডি কর্মকর্তারা জানান, ২০১১ সালের ২৭ ডিসেম্বর থেকে ২০১৯ সালের ৯ আগস্ট পর্যন্ত সম্রাট সিঙ্গাপুরে ৩৫ বার, মালয়েশিয়ায় তিনবার, দুবাইতে দুবার এবং হংকংয়ে একবার ভ্রমণ করেছেন। এছাড়া তার সহযোগী এনামুল হক আরমান ২০১১ সালের ১২ ডিসেম্বর থেকে ২০১৯ সালের ১৮ মে পর্যন্ত সিঙ্গাপুরে ২৩ বার ভ্রমণ করেছেন। সম্রাট ও আরমান অবৈধ অর্থ দিয়ে যৌথভাবে সিঙ্গাপুর ও মালয়েশিয়ায় ব্যবসা প্রতিষ্ঠান গড়ে তুলেছেন।

৬ অক্টোবর ভোরে কুমিল্লার চৌদ্দগ্রামের আলকরা ইউনিয়নের কুঞ্জুশ্রীপুর গ্রামে আত্মগোপনে থাকা সম্রাটকে গ্রেপ্তার করা হয়। তার সঙ্গে আরমানকেও গ্রেপ্তার করা হয়। পরে ঢাকায় এনে তাদের প্রাথমিক জিজ্ঞাসাবাদও করে র‌্যাব।

৬ অক্টোবর দুপুর ১টা ৪০ মিনিটে র‌্যাবের নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট সারওয়ার আলমের নেতৃত্ব একটি দল কাকরাইলে ভূঁইয়া ট্রেড সেন্টারে সম্রাটের কার্যালয়ে অভিযান শুরু করে। এদিন নিজ কার্যালয়ে পশুর চামড়া রাখার দায়ে তার ছয় মাসের জেল দিয়ে কারাগারে পাঠানোর নির্দেশ দেন নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট সারওয়ার আলম। এরপর সম্রাটকে কারাগারে পাঠানো হয়।


আরও খবর