আজঃ শনিবার ২৯ জানুয়ারী ২০২২
শিরোনাম

প্রাথমিক স্কুলেও নতুন শপথ পাঠের নির্দেশ

প্রকাশিত:শুক্রবার ১৪ জানুয়ারী ২০২২ | হালনাগাদ:শুক্রবার ১৪ জানুয়ারী ২০২২ | ৩২৫জন দেখেছেন
দর্পণ নিউজ ডেস্ক

Image

স্কুল-কলেজ ও মাদ্রাসার মতো প্রাথমিক বিদ্যালয়েও নতুন শপথ পাঠ করার বিষয়ে দিকনির্দেশনা দিয়েছে প্রাথমিক শিক্ষা অধিদপ্তর। গতকাল বৃহস্পতিবার প্রতিষ্ঠানটির এক আদেশে জেলা ও উপজেলা শিক্ষা কর্মকর্তা ও বিভাগীয় উপপরিচালকদের প্রাথমিক বিদ্যালয়ে প্রতিদিনের সমাবেশে জাতীয় সংগীতের পর নতুন শপথ পাঠ করানোর নির্দেশ দেওয়া হয়েছে।

নতুন শপথে বলা হয়েছে, জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের নেতৃত্বে পাকিস্তানি শাসকদের শোষণ ও বঞ্চনার বিরুদ্ধে এক রক্তক্ষয়ী মুক্তিসংগ্রামের মধ্য দিয়ে বাংলাদেশ স্বাধীনতা অর্জন করেছে। বিশ্বের বুকে বাঙালি জাতি প্রতিষ্ঠা করেছে তার স্বতন্ত্র জাতিসত্তা। আমি দৃপ্ত কণ্ঠে শপথ করছি যে, শহীদদের রক্ত বৃথা যেতে দেব না। দেশকে ভালোবাসব, দেশের মানুষের সার্বিক কল্যাণে সর্বশক্তি নিয়োগ করব। জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবের আদর্শে উন্নত, সমৃদ্ধ ও অসাম্প্রদায়িক চেতনার সোনার বাংলা গড়ে তুলব। মহান সৃষ্টিকর্তা আমাকে শক্তি দিন।

এর আগে ৩০ ডিসেম্বর দেশের সব শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানে শিক্ষার্থীদের এই শপথ পাঠ করার বিষয়ে দিকনির্দেশনা দেয় শিক্ষা মন্ত্রণালয়। ওইদিন শিক্ষা মন্ত্রণালয়ের উপসচিব আলমগীর হুসাইনের সই করা অফিস আদেশে বলা হয়, সব শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানের প্রতিদিনের সমাবেশে জাতীয় সংগীত পরিবেশনের পর নতুন শপথ পাঠ করতে হবে। ইংরেজি ও বিদেশি মাধ্যমের স্কুল-কলেজগুলোকেও মানতে হবে এ নির্দেশনা।

নিউজ ট্যাগ: শপথ পাঠ

আরও খবর



বঙ্গবন্ধুর স্বদেশ প্রত্যাবর্তন দিবস আজ

প্রকাশিত:সোমবার ১০ জানুয়ারী ২০২২ | হালনাগাদ:সোমবার ১০ জানুয়ারী ২০২২ | ৩৫৫জন দেখেছেন
দর্পণ নিউজ ডেস্ক

Image

আজ ১০ জানুয়ারি, বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের ঐতিহাসিক স্বদেশ প্রত্যাবর্তন দিবস। পাকিস্তানের বন্দিদশা থেকে মুক্তি পেয়ে ১৯৭২ সালের এ দিন তিনি সদ্যস্বাধীন বাংলাদেশের মাটিতে প্রত্যাবর্তন করেন।

এর আগে ১৯৭১ সালের ২৬ মার্চের প্রথম প্রহরে বাংলাদেশের স্বাধীনতা ঘোষণা করে বঙ্গবন্ধু সর্বস্তরের জনগণকে মুক্তিযুদ্ধে ঝাঁপিয়ে পড়ার আহ্বান জানান। স্বাধীনতা ঘোষণার পর পাকিস্তানের সামরিক শাসক জেনারেল ইয়াহিয়া খানের নির্দেশে তাকে গ্রেপ্তার করে তদানিন্তন পশ্চিম পাকিস্তানের কারাগারে নিয়ে আটক রাখা হয়।

১৯৭১ সালের ১৬ ডিসেম্বর পাকিস্তানি সৈন্যদের বিরুদ্ধে ৯ মাস যুদ্ধের পর চূড়ান্ত বিজয় অর্জিত হলেও ১০ জানুয়ারি বঙ্গবন্ধুর স্বদেশ প্রত্যাবর্তনের মধ্য দিয়ে জাতি বিজয়ের পূর্ণ স্বাদ গ্রহণ করে।

বঙ্গবন্ধু পাকিস্তান থেকে ছাড়া পান ১৯৭২ সালের ৭ জানুয়ারি ভোররাতে অর্থাৎ ৮ জানুয়ারি। এদিন বঙ্গবন্ধুকে বিমানে তুলে দেওয়া হয়। সকাল সাড়ে ৬টায় তিনি পৌঁছান লন্ডনের হিথরো বিমানবন্দরে। পরে ব্রিটেনের বিমান বাহিনীর একটি বিমানে করে পরের দিন ৯ জানুয়ারি দেশের পথে যাত্রা করেন।

১০ জানুয়ারি সকালে তিনি দিল্লিতে নামেন। সেখানে ভারতের তৎকালীন রাষ্ট্রপতি ভিভি গিরি, প্রধানমন্ত্রী ইন্দিরা গান্ধী, সমগ্র মন্ত্রিসভা, প্রধান নেতৃবৃন্দ, তিন বাহিনীর প্রধান এবং অন্যান্য অতিথি ও সেদেশের জনগণের কাছ থেকে উষ্ণ সংবর্ধনা পান শেখ মুজিব। এরপর এদিন দিল্লি থেকে দুপুর ১টা ৪১ মিনিটে ঢাকার মাটিতে পা রাখেন। আনন্দে আত্মহারা লাখ লাখ বাঙালি ঢাকা বিমান বন্দর থেকে রেসকোর্স ময়দান (বর্তমানে সোহরাওয়ার্দী উদ্যান) পর্যন্ত তাকে স্বতঃস্ফূর্ত সংবর্ধনা জানান। বিকেল পাঁচটায় রেসকোর্স ময়দানে প্রায় ১০ লাখ লোকের উপস্থিতিতে তিনি ভাষণ দেন।

এদিকে বঙ্গবন্ধুর জন্মশতবার্ষিকী উদযাপন জাতীয় বাস্তবায়ন কমিটি বঙ্গবন্ধুর ঐতিহাসিক স্বদেশ প্রত্যাবর্তন দিবস উপলক্ষে ‌মুক্ত স্বদেশে জাতির পিতা প্রতিপাদ্যে বিশেষ অনুষ্ঠানের আয়োজন করেছে।

সোমবার (১০ জানুয়ারি) বিকেল ৩টায় অনুষ্ঠানটি বাংলাদেশ টেলিভিশনের শহিদ মনিরুল আলম মিলনায়তন থেকে সব টেলিভিশন চ্যানেল, অনলাইন ও সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে সরাসরি সম্প্রচারিত হবে। প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা গণভবন থেকে ভার্চুয়ালি যুক্ত থেকে অনুষ্ঠানে সভাপতিত্ব করবেন। অনুষ্ঠানে বাবা-মাকে নিয়ে বঙ্গবন্ধুকন্যা শেখ রেহানার লেখা কবিতা আবৃত্তি হবে। আলোচনা পর্বে বঙ্গবন্ধুর স্বদেশ প্রত্যাবর্তন দিবসের ওপর বিশিষ্ট আলোচকেরা আলোচনা করবেন।

দিবসটি পালন উপলক্ষে আওয়ামী লীগ ও দলের বিভিন্ন সহযোগী সংগঠন ব্যাপক কর্মসূচি গ্রহণ করেছে। আওয়ামী লীগের কর্মসূচির মধ্যে রয়েছে, সোমবার সকাল সাড়ে ৬টায় দলের কেন্দ্রীয় কার্যালয়, বঙ্গবন্ধু ভবন ও সারাদেশে সংগঠনের সব কার্যালয়ে জাতীয় ও দলীয় পতাকা উত্তোলন। সকাল সাড়ে ৮টায় বঙ্গবন্ধু ভবনের সামনে রক্ষিত জাতির পিতার প্রতিকৃতিতে শ্রদ্ধাঞ্জলি নিবেদন। বেলা ১১টায় শেখ মুজিবের স্মৃতি বিজড়িত টুঙ্গিপাড়ায় তার সমাধিতে আওয়ামী লীগের প্রতিনিধি দলের শ্রদ্ধা নিবেদন।

স্বদেশ প্রত্যাবর্তন দিবস উপলক্ষে বিকেল সাড়ে ৩টায় ২৩ বঙ্গবন্ধু এভিনিউস্থ কেন্দ্রীয় কার্যালয়ে সীমিত পরিসরে আওয়ামী লীগের আলোচনা সভা অনুষ্ঠিত হবে। আলোচনা সভায় ভিডিও কনফারেন্সের মাধ্যমে বক্তব্য রাখবেন আওয়ামী লীগ সভাপতি ও প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা।


আরও খবর



পুলিশ সপ্তাহ শুরু আজ

প্রকাশিত:রবিবার ২৩ জানুয়ারী ২০২২ | হালনাগাদ:রবিবার ২৩ জানুয়ারী ২০২২ | ২৯৫জন দেখেছেন
দর্পণ নিউজ ডেস্ক

Image

দক্ষ পুলিশ, সমৃদ্ধ দেশ, বঙ্গবন্ধুর বাংলাদেশ’—এই প্রতিপাদ্য নিয়ে আজ রবিবার (২৩ জানুয়ারি) থেকে শুরু হচ্ছে পুলিশ সপ্তাহ-২০২২। করোনাভাইরাসের প্রকোপের কারণে এবার পুলিশ সপ্তাহের আয়োজনে কিছুটা ভিন্নতা এসেছে। প্রতিবছর প্রধানমন্ত্রী উপস্থিত থেকে বার্ষিক পুলিশ প্যারেডের মধ্য দিয়ে পুলিশ সপ্তাহ উদ্বোধন করতেন। সেখানে এবার তিনি ভার্চুয়ালি যুক্ত থাকবেন। তা ছাড়া, প্রধানমন্ত্রীর সঙ্গে পুলিশ কর্মকর্তাদের নিয়মিত যে দরবার হয়, করোনার কারণে এবার তাও বাতিল করা হয়েছে। ২৩ থেকে ২৭ জানুয়ারি পাঁচ দিনব্যাপী এই পুলিশ সপ্তাহ চলবে।

পুলিশ সদরদপ্তর সূত্র বলছে, প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা আজ সকাল ১০টায় রাজারবাগ পুলিশ লাইনস মাঠে বার্ষিক পুলিশ প্যারেডের মধ্য দিয়ে পুলিশ সপ্তাহ-২০২২-এর উদ্বোধন করবেন। প্রধানমন্ত্রী প্যারেডে ভার্চুয়ালি উপস্থিত থেকে পুলিশের বিভিন্ন কন্টিনজেন্ট ও পতাকাবাহী দলের সুশৃঙ্খল ও দৃষ্টিনন্দন প্যারেড পরিদর্শন এবং অভিবাদন গ্রহণ করবেন।

রাজারবাগ পুলিশ লাইনস মাঠে উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে পুলিশের ১১টি ইউনিট প্যারেডের মধ্যে ৯টি ইউনিট অংশ নেবে। প্যারেডে অংশ নিতে ঢাকার বাইরে থেকে পুলিশের কোনো সদস্যকে আনা হয়নি। রেঞ্জ ডিআইজি (উপ-মহাপরিদর্শক), ৬৪ জেলার পুলিশ সুপার, মহানগর পুলিশ কমিশনারসহ ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তারা উপস্থিত থাকবেন।

এবার বার্ষিক পুলিশ প্যারেডে অধিনায়ক হিসেবে নেতৃত্ব দেবেন পুলিশ সুপার মো. ছালেহ উদ্দিন। তাঁর নেতৃত্বে বিভিন্ন কন্টিনজেন্টের পুলিশ সদস্যরা প্যারেডে অংশ নেবেন।

নিউজ ট্যাগ: পুলিশ সপ্তাহ

আরও খবর



নেত্রকোনায় গরিবের ঘর পেল ধনী ব্যক্তি

প্রকাশিত:মঙ্গলবার ২৫ জানুয়ারী ২০২২ | হালনাগাদ:মঙ্গলবার ২৫ জানুয়ারী ২০২২ | ৩৯০জন দেখেছেন
দর্পণ নিউজ ডেস্ক

আমিনুল ইসলাম মনি, নেত্রকোনা :  অনিয়ম করে নেত্রকোণা মোহনগঞ্জ উপজেলার গৃহহীনদের জন্য বরাদ্দকৃত সরকারি ঘর উঠল সম্পদশালীর বাড়িতে, অনিয়ম লুকানোর জন্য ঘরের ডিজাইন বদল করা হয়েছে ও দুর্যোগ সহনীয় ঘরের নেইমপ্লেট সরিয়ে কৌশলে ঐ স্হানে আয়না বসিয়ে দিয়ে গরিবের ঘর নিয়ে আরাম আয়েশ করেই বসবাস করার অভিযোগ উঠেছে সোহেল মিয়া নামে এক ব্যক্তির বিরুদ্ধে।

এ ঘটনা নেত্রকোনার মোহনগঞ্জ উপজেলায় । ওই উপকারভোগীর নাম মো. সোহেল মিয়া। তিনি উপজেলার তেতুলিয়া ইউনিয়নের নওয়াগাঁও গ্রামের মৃত. রতন মিয়ার ছেলে।

উপজেলা প্রকল্প বাস্তবায়ন কর্মকর্তার কার্যালয় (পিআইও) সূত্রে জানা গেছে, ২০১৯-২০ অর্থ বছরে  গ্রামীন অবকাঠামো সংস্কার রক্ষণাবেক্ষণ (টিআর/কাবিখা) কর্মসূচির আওতায় গৃহহীনদের জন্য দুর্যোগ সহনীয় বাসগৃহ নির্মাণ করা হয়। প্রতিটি ঘর নির্মাণে ব্যয় ধরা হয় দুই লাখ ৯৮ হাজার টাকা।  এ প্রকল্পের আওতায় উপজেলার সাত ইউনিয়নে মোট ৩৬ জন গৃহহীনকে দুর্যোগ সহনীয় ঘর দেওয়া হয়। এরমধ্যে তেতুলিয়া ইউনিয়নের নওয়াগাও গ্রামের মো. সোহেল মিয়া কারসাজি করে নিজের নামে একটি ঘর বরাদ্দ নিয়েছেন। যদিও তার চার একরের বেশি জমি রয়েছে।

আজকের দর্পণ নেত্রকোনা জেলা প্রতিনিধির অনুসন্ধানে বেরিয়ে এসেছে সোহেল মিয়ার নানা অনিয়মের চিত্র।

সরেজমিন ঘুরে এলাকাবাসী সাথে কথা বলে জানা গেছে, সোহেল মিয়ার চার একরের বেশি জমি রয়েছে। তার বাড়িতে আগে থেকেই একটি বিল্ডিং  ছিল। প্রতারণা করে গৃহহীনের কোটায়  ঘরটি বরাদ্দ নেয়। পরে ঘরের বরাদ্দকৃত ইট, টিনসহ যাবতীয় মালামাল নিয়ে পুরনো ঘরটির সাথে মিশিয়ে ফেলেন। অনিয়ম লুকাতে ঘরের ডিজাইন পরিবর্তন করেছেন সোহেল মিয়া। কাগজপত্র ঘেঁটে দেখা গেছে ২০ সালের জানুয়ারি মাসে ওই প্রকল্পের ঘর বরাদ্দের তালিকা চুড়ান্ত করা হয়। ৩৬ জন উপকারভোগীর তালিকায় সোহেল মিয়ার নাম রয়েছে ১১ নম্বরে। আর নওয়াগাও গ্রামে একমাত্র উপকারভোগী হিসেবে তার নাম রয়েছে। এ গ্রামে আর কেউ ঘর পাননি। এছাড়া দুইটি টিউবওয়েল ও একটি হাজার ফুটের সাব-মার্সেবল নিয়েছেন তিনি। এরমধ্যে  একটি ৯০ ফুটের ডবল টিউবওয়েল, হাজার ফুটের আরও একটি টিউবওয়েল ও একটি হাজার ফুটের সাব-মার্সিবল পানির মটর ব্যবস্থা নিয়েছেন সোহেল।  এ নিয়ে গ্রামে নানা গুঞ্জন রয়েছে।

নওয়াগাও  গ্রামের বাসিন্দা মাসুদ মিয়া বলেন,  চার একরের বেশি জমি রয়েছে সোহেলের। অনিয়ম করে গৃহহীনদের ঘর নিজের নামে নিয়েছেন। যদিও আগে থেকেই তার একটি বিল্ডিং ছিল। প্রকল্পের ওই ঘরের বরাদ্দকৃত ইট, সিমেন্ট ও অন্যান্য জিনিসপত্র তার আগের সাথে মিলিয়ে ভিন্ন নকশার বড় একটি ঘর বানিয়ে ফেলা হয়েছে। এছাড়া প্রভাব কাটিয়ে সোহেল  নিজের নামে জনস্বাস্থ্যের দেয়া  দুইটি টিউবওয়েল ও একটি হাজার ফুটের সাব-মার্সেবল নিয়েছেন তিনি। এরমধ্যে  একটি ৯০ ফুটের ডবল টিউবওয়েল, হাজার ফুটের আরও একটি টিউবওয়েল ও একটি হাজার ফুটের সাব-মার্সিবল পানির মটর ব্যবস্থা নিয়েছেন সোহেল।

উপকারভোগী মো. সোহলে মিয়ার সাথে মুঠোফোনে  যোগাযোগ করা হলে তিনি বলেন, সরকারি ঘর ব্যক্তিগত ঘরের সাথে ডিজাইন বদল  করা অন্যায় জানলে আমি এটা করতাম না।

এ বিষয়ে উপজেলা প্রকল্প বাস্তবায়ন কর্মকর্তা (পিআইও) রাকিবুল হাসান বলেন, আমি এখানে আসার আগে এ তালিকা চুড়ান্ত হয়েছে। ফলে আমার কিছু করার ছিল না। আর তার সম্পদ কি আছে আমার জানা নেই। আমরা বিষয়টি খতিয়ে দেখছি। যদি এমনটি হয়ে থাকে তবে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেয়া হবে।

এ বিষয়ে উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) সাব্বির আহদে আকুঞ্জির সাথে সরাসরি বিষয়টি নিয়ে কথা বলার চেষ্টা করা হলে তিনি বারবার  এড়িয়ে যান।


আরও খবর



রাজশাহীতে করোনায় আরও ৪ জনের মৃত্যু

প্রকাশিত:বুধবার ০৫ জানুয়ারী ২০২২ | হালনাগাদ:বুধবার ০৫ জানুয়ারী ২০২২ | ৩২২৫জন দেখেছেন
দর্পণ নিউজ ডেস্ক

Image

রাজশাহী মেডিকেল কলেজ (রামেক) হাসপাতালের করোনা ইউনিটে একদিনে চারজনের মৃত্যু হয়েছে। এদের মধ্যে করোনায় একজন এবং উপসর্গ নিয়ে তিনজন মারা গেছেন। মঙ্গলবার সকাল ৯টা থেকে বুধবার সকাল ৯টার মধ্যে তাদের মৃত্যু হয়।

এর আগে সর্বশেষ গত ৩১ ডিসেম্বর রামেক হাসপাতালে একজন করোনা সংক্রমণে মারা যান। এর পর ১ জানুয়ারি সকাল ৯টার পর থেকে ৪ জানুয়ারি সকাল ৯টা পর্যন্ত টানা মৃত্যুহীন ছিল করোনা ইউনিট।

রামেক হাসপাতালের পরিচালক ব্রিগেডিয়ার জেনারেল শামীম ইয়াজদানী এ তথ্য নিশ্চিত করেছেন।

তিনি জানান, গত ২৪ ঘণ্টায় রামেক হাসপাতালে করোনা সংক্রমণে একজন রোগী মারা গেছেন। এ ছাড়া করোনা সংক্রমণের উপসর্গ নিয়ে মারা গেছেন আরও তিনজন। এদের মধ্যে দুজন রাজশাহী এবং একজন নাটোর জেলার বাসিন্দা।

হাসপাতালের আইসিইউ এবং ২৯ ও ৩০ নম্বর ওয়ার্ডে দুজন করে রোগীর মৃত্যু হয়েছে। এদের মধ্যে তিন পুরুষ এবং দুই নারী রয়েছেন। তাদের দুজনের বয়স ৪১ থেকে ৬০ বছরের মধ্যে। অন্য দুজন ষাটোর্ধ্ব।


আরও খবর



সাতক্ষীরায় ৫৩ প্রতিমা ভাঙচুর : তিন দিনেও গ্রেপ্তার হয়নি কেউ

প্রকাশিত:বৃহস্পতিবার ২৭ জানুয়ারী ২০২২ | হালনাগাদ:বৃহস্পতিবার ২৭ জানুয়ারী ২০২২ | ১৯৫জন দেখেছেন
দর্পণ নিউজ ডেস্ক

Image

সাতক্ষীরায় ৫৩টি প্রতিমা ভাঙচুরের ঘটনার তিন দিন পেরিয়ে গেলেও কাউকে গ্রেপ্তার করতে পারেনি পুলিশ। পুলিশের দাবি, আসামিকে শনাক্ত করা সম্ভব হয়নি। এতে প্রাণের আশঙ্কায় ভুগছেন প্রতিমাশিল্পী রঞ্জন কুমার পাল। তবে তাঁকে সব ধরনের নিরাপত্তা দেওয়ার কথা বলেছেন সদর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা মো. গোলাম কবির।

জানা গেছে, সাতক্ষীরা সদর উপজেলার আগরদাঁড়ি গ্রামের পেশাদার প্রতিমাশিল্পী রঞ্জন কুমার পালের বাড়ির কারখানায় গত সোমবার রাতে প্রতিমা ভাঙচুরের ঘটনা ঘটে। এ সময় শতভাগ প্রস্তুত চারটি কালীমূর্তি এবং রঙপলিশের জন্য রাখা আরও ৪৯টি সরস্বতী প্রতিমা ভাঙা হয়।

রঞ্জন পাল জানান, চারটি কালীপ্রতিমা গত মঙ্গলবার ডেলিভারি দেওয়ার কথা ছিল। বাকিগুলো ৫ ফেব্রুয়ারি ডেলিভারি দেওয়ার কথা। ‌অর্ডার থাকলেও কাজ করতে সাহস পাচ্ছি না বলেন তিনি।

রঞ্জন জানান, এ বিষয়ে সাতক্ষীরা থানায় মামলা করা হয়েছে। তবে এখনও কাউকে গ্রেপ্তার করতে পারেনি পুলিশ। অপরাধীদের দ্রুত আইনের আওতায় এনে বিচারের দাবি জানান রঞ্জন।

প্রতিমাশিল্পী রঞ্জন বলেন, এ ঘটনার পর হিন্দু বৌদ্ধ খ্রিস্টান ঐক্য পরিষদের সাধারণ সম্পাদক স্বপন কুমার শীল এবং মানবাধিকারকর্মী মাধব চন্দ্র দত্ত তাঁর সঙ্গে দেখা করে সহায়তার প্রতিশ্রুতি দিয়েছেন। এ সময় তাঁরা ন্যক্কারজনক এ ঘটনার তীব্র নিন্দা জানান।

সাতক্ষীরা সদর আসনের সংসদ সদস্য বীর মুক্তিযোদ্ধা মীর মোস্তাক আহমেদ রবি বলেন, আমি ঢাকায় থাকায় রঞ্জন পালের বাড়িতে যেতে পারিনি। তবে আমার প্রতিনিধি দল সেখানে পাঠিয়েছি। তাঁকে সব ধরনের সহায়তা দেওয়ার আশ্বাস দিয়েছি। একই সঙ্গে পুলিশকে যথাযথ আইনগত ব্যবস্থা গ্রহণের নির্দেশ দিয়েছি।

জানতে চাইলে সদর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মো. গোলাম কবির বলেন, মামলা রেকর্ড করেছি। এখন পর্যন্ত কোনো আসামিকে নিশ্চিতভাবে শনাক্ত করতে পারিনি। তবে খুব শিগগিরই দুর্বৃত্তদের গ্রেপ্তার করা হবে।

ঘটনাস্থল পরিদর্শন করা হয়েছে উল্লেখ করে ওসি কবির বলেন, ‌রঞ্জন পালকে সব ধরনের নিরাপত্তা সহায়তা দেওয়ার কথা জানিয়েছি।

নিউজ ট্যাগ: সাতক্ষীরা

আরও খবর