আজঃ সোমবার ২৬ ফেব্রুয়ারী ২০২৪
শিরোনাম

পোষা বিড়ালের কামড়ে বাবা-ছেলের মৃত্যু

প্রকাশিত:মঙ্গলবার ০৫ ডিসেম্বর ২০২৩ | হালনাগাদ:মঙ্গলবার ০৫ ডিসেম্বর ২০২৩ | অনলাইন সংস্করণ
আন্তর্জাতিক ডেস্ক

Image

আদরের পোষা বিড়ালের কামড়ে মৃত্যু হলো বাবা ও ছেলের। পোষা বিড়াল ভেবে কেউ কামড়কে গুরুত্ব সহকারে নেয়নি। শেষ পর্যন্ত সেই অবহেলাই মৃত্যু ডেকে আনে দুজনের। ভারতের উত্তরপ্রদেশের কানপুরে এই ঘটনা ঘটেছে।

ভারতীয় সংবাদমাধ্যম হিন্দুস্তান টাইমসের প্রতিবেদনে বলা হয়, মৃত ব্যক্তি আকবরপুরের বাসিন্দা ছিলেন। তিনি স্থানীয় সরকারি স্কুলে শিক্ষকতা করতেন। তার ছেলের বয়স ২৪ বছর। অনেকদিন ধরে বাড়িতে বিড়াল পালেন তারা। হঠাৎই তার আচরণে বদল দেখা যায়। একদিন বিড়ালটি দুজনকে কামড় দেয় ও আঁচড় দেয়। তার এক সপ্তাহের মধ্যেই মৃত্যু হয়েছে দুজনের।

জানা গেছে, ওই দুই ব্যক্তির মৃত্যু হয়েছে রেবিস ভাইরাসের সংক্রমণে, যাকে জলাতঙ্ক বলা হয়। কিন্তু কীভাবে এই ভাইরাসে সংক্রমিত হলেন ওই দুজন, সে বিষয়ে খোজ চালাচ্ছিলেন স্বাস্থ্য কর্মকর্তারা। তখনই জানা যায়, বিড়ালটিকে কিছু দিন আগে একটি কুকুরে কামড়েছিল। তার পর থেকেই তার আচরণ বদলে যায়।

কর্মকর্তারা বলছেন, বিড়ালটির শরীরে রেবিস ভাইরাস প্রবেশ করে তখনই। এর পর বিড়ালটি তার মনিবদের কামড়ালে তারাও আক্রান্ত হয়ে পড়েন। পোষা বিড়াল বলে চিকিৎসকের কাছে যাননি তারা।


আরও খবর



লোহিত সাগরে ব্রিটিশ জাহাজে হুতির ক্ষেপণাস্ত্র হামলা

প্রকাশিত:শনিবার ১৭ ফেব্রুয়ারী ২০২৪ | হালনাগাদ:শনিবার ১৭ ফেব্রুয়ারী ২০২৪ | অনলাইন সংস্করণ
আন্তর্জাতিক ডেস্ক

Image

লোহিত সাগরে যুক্তরাজ্যের একটি জাহাজে আঘাত হেনেছে ইয়েমেনভিত্তিক সশস্ত্র গোষ্ঠী হুতির ক্ষেপণাস্ত্র। গোষ্ঠীটির দাবি, এডেন উপসাগর পার হওয়ার সময় জাহাজটিতে হামলা চালানো হয় এবং তাদের ক্ষেপণাস্ত্র সরাসরি আঘাত হানে। আরব নিউজের এক প্রতিবেদন থেকে এই তথ্য জানা যায়।

গত ৭ অক্টোবর গাজা থেকে ইসরায়েল অভিমুখে হাজার হাজার রকেট ছুড়ে মুক্তিকামী ফিলিস্তিনিদের সশস্ত্র সংগঠন হামাস। এতে ইসরায়েলে নিহত হয়েছেন এক হাজার ৪০০ জন। এরপরেই গাজায় পাল্টা আক্রমণ শুরু করে ইসরায়েলি বাহিনী। তাদের হামলায় এখন পর্যন্ত নিহত হয়েছে ২৩ হাজারের বেশি ফিলিস্তিনি। আহত হয়েছেন অন্তত ৩৫ হাজার। যাদের বেশিরভাগই বেসামরিক। এই সংঘাত ছড়িয়ে পড়তে শুরু করে মধ্যপ্রাচ্যের অন্যান্য অঞ্চলেও। অভিযান শুরুর পর থেকে একাধিকবার ইসরায়েলকে হুঁশিয়ারি দিয়েছে হুথি বিদ্রোহীরাও। এরপর থেকে নিয়মিত লোহিত সাগরে জাহাজ লক্ষ্য করে হামলা চালাচ্ছে ইরান সমর্থিত এই গোষ্ঠী।

শুক্রবারের (১৬ ফেব্রুয়ারি) হামলা নিয়ে হুতি মুখপাত্র ব্রিগেডিয়ার জেনারেল ইয়াহিয়া সারিয়ি বলেন, ফিলিস্তিনের প্রতিরোধ যোদ্ধাদের প্রতি সমর্থন জানিয়ে এই হামলা চালানো হয়েছে।

এর আগে পশ্চিমা দুটি মেরিটাইম সিকিউরিটি এজেন্সি জানিয়েছিল যে, ইয়েমেনের উপকূলে একটি জাহাজের কাছে বিস্ফোরণের ঘটনা ঘটেছে। এছাড়া, ব্রিটিশ মেরিটাইম ট্রেড অপারেশন্স এক বিবৃতিতে বলেছে, ইয়েমেনের উপকূলে একটি জাহাজের কাছে বিস্ফোরণের ঘটনা ঘটেছে। এরপর জাহাজটি পরবর্তী বন্দরের দিকে যাত্রা করে।


আরও খবর



৪৮ লাখ টাকার চুক্তিতে পরীক্ষায় বসেছিলেন তারা

প্রকাশিত:শনিবার ২৪ ফেব্রুয়ারী 20২৪ | হালনাগাদ:শনিবার ২৪ ফেব্রুয়ারী 20২৪ | অনলাইন সংস্করণ
নিজস্ব প্রতিবেদক

Image

রাজধানীতে বাংলাদেশ রেলওয়ের টিকিট কালেক্টর পদের নিয়োগ পরীক্ষা চলাকালে জালিয়াতির অভিযোগে তিন পরীক্ষার্থীকে আটক করা হয়েছে।

আজ শনিবার দুপর ২টার দিকে রাজধানীর ডেমরায় অবস্থিত সামসুল হক খান স্কুল অ্যান্ড কলেজ থেকে তাদের আটক করা হয়।

আটকরা হলেন ভোলার চরফ্যাশনের নীলকমল গ্রামের মো. শাহজাদা, গাইবান্ধার পলাশবাড়ী ছুট গ্রামের মো. রুবেল ও মাগুরার মোহাম্মদপুরের শিরগ্রামের মো. শিহাব।

জাতীয় নিরাপত্তা গোয়েন্দার (এনএসআই) ঢাকা উইংয়ের তথ্যের ভিত্তিতে তাদের আটক করে ডেমরা থানা-পুলিশ। রেলওয়ে কর্তৃপক্তা অভিযানে পুলিশকে সহায়তা করে। আটকদের কাছ থেকে মাস্টারকার্ড, ব্লুটুথ ও ইলেকট্রনিক সার্কিট জব্দ করা হয়েছে।

সূত্র জানায়, মাস্টারকার্ডের মাধ্যমে সিমকার্ড ব্যবহার করে ব্লুটুথ হেডফোনের মাধ্যমে অপর প্রান্ত থেকে উত্তরপত্রের সমাধান করে পরীক্ষার্থীকে পাঠানো হতো। আটকের সময় শিহাবের কান থেকে একটি ক্ষুদ্র ম্যাগনেটিক হিয়ারিং ডিভাইস পাওয়া যায়। পরে বিশেষ যন্ত্রের মাধ্যমে সেই ডিভাইস বের করা হয়।

আটক ব্যক্তিরা প্রত্যেকে একটি চক্রকে ১৬ লাখ টাকা করে চুক্তিতে পরীক্ষায় বসেছিলেন বলে জিজ্ঞাসাবাদে স্বীকার করেছেন। এই চক্রের বিরুদ্ধে মামলা প্রক্রিয়াধীন আছে।

বাংলাদেশ রেলওয়ের অতিরিক্ত মহাপরিচালক (অপারেশন) সরদার শাহাদাত আলী বলেন, নিয়োগ পরীক্ষায় অনেক পরীক্ষার্থী অনিয়মের চেষ্টা করেন এবং ধরা পড়েন। সে অনুযায়ী কর্তৃপক্ষ ও আইনশৃঙ্খলা বাহিনী ব্যবস্থা নিয়ে থাকে। কেউ প্রক্সি দিতে চেষ্টা করেন, কেউবা ইলেকট্রনিক ডিভাইসের মাধ্যমে জালিয়াতির চেষ্টা করেন। এসব অনিয়ম ধরা পড়ার সঙ্গে সঙ্গে ব্যবস্থা নেওয়া হয়। এ ক্ষেত্রে কোনো ব্যত্যয় ঘটবে না।


আরও খবর



১৫ ইসরায়েলি সেনাকে হত্যার দাবি করেছে হামাস

প্রকাশিত:সোমবার ০৫ ফেব্রুয়ারী ২০২৪ | হালনাগাদ:সোমবার ০৫ ফেব্রুয়ারী ২০২৪ | অনলাইন সংস্করণ
আন্তর্জাতিক ডেস্ক

Image

গাজায় মোটেও স্বস্তিতে নেই ইসরাইলি বাহিনী। থেমে থেমে গাজার প্রতিরোধ যোদ্ধারা ইসরাইলি বাহিনীর ওপর আক্রমণ অব্যাহত রেখেছে। পরিস্থিতি খারাপ দেখে গাজায় হামাসের হাতে বন্দি থাকা ইসরাইলি নাগরিকদের উদ্ধারে যুক্তরাষ্ট্রসহ বহু পক্ষ সমঝোতায় যাওয়ার চেষ্টা করছে।

হামাসের প্রধান শর্ত হচ্ছে গাজা যুদ্ধ পুরোপুরি বন্ধ করতে হবে। সেইসঙ্গে অবরুদ্ধ উপত্যকাটি থেকে সম্পূর্ণরূপে ইসরাইলি সেনাদের প্রত্যাহার করতে হবে। তবে সাময়িক যুদ্ধবিরতি চাইলেও পুরোপুরি সংঘাত বন্ধ করতে চায় না ইসরাইল।

এর মাঝেই হামাসের সামরিক শাখা আল কাসাম রোববার জানিয়েছে, তাদের যোদ্ধারা ইসরাইলের ১৫ সেনাকে খুব কাছ থেকে হামলা করে হত্যা করেছে।

কাসামের মুখপাত্র আবু ওবায়দা বলেছেন, গত কয়েক দিনে কাসাম যোদ্ধারা ইসরাইলের ৪৩টি সমরযান পুরোপুরি বা আংশিক ধ্বংস করেছে।

ওবায়দা আরও দাবি করেছেন, পয়েন্ট ব্ল্যাঙ্ক রেঞ্জ থেকে কাসাম যোদ্ধারা ১৫ ইসরাইলি সেনাকে হত্যা করেছে। এছাড়াও আরও এক ইসরাইলি সেনা কর্মকর্তা ও সাধারণ সৈন্যকে হত্যা করেছে কাসামের স্নাইপার বাহিনী।

কাসাম মুখপাত্র জানিয়েছেন, ইসরাইলি সেনাদের হতাহত করতে গেল কয়েকদিনে কাসাম ব্রিগেড ১৭টি সামরিক অভিযান চালিয়েছে। এছাড়াও ইসরাইল লক্ষ্য করে বেশ কয়েকটি রকেট হামলা চালানো হয়েছে।

আবু ওবায়দা আরো জানিয়েছেন, কাসাম ব্রিগেডের যোদ্ধারা একটি টানেলের প্রবেশ মুখেও ইসরাইলি সেনাদের একটি দলকে উড়িয়ে দিয়েছে। এইসব অভিযানে চারটি ইসরাইলি ড্রোন জব্দ করেছে হামাস যোদ্ধারা। তেল আবিব লক্ষ্য করে কয়েক ঝাঁক রকেট হামলা করার কথাও জানান আবু ওবায়দা।

সূত্র: মেহর নিউজ


আরও খবর



বন্ধ্যাত্বের চিকিৎসায় পরীক্ষাগারে ভ্রুণ নষ্ট হলে মামলা করা যাবে!

প্রকাশিত:বৃহস্পতিবার ২২ ফেব্রুয়ারী ২০২৪ | হালনাগাদ:বৃহস্পতিবার ২২ ফেব্রুয়ারী ২০২৪ | অনলাইন সংস্করণ
আন্তর্জাতিক ডেস্ক

Image

বন্ধ্যাত্বের চিকিৎসায় ইন-ভিট্রো ফার্টিলাইজেশন (আইভিএফ) পদ্ধতিতে শিশুর জন্ম দিতে গিয়ে হাসপাতালের পরীক্ষাগারে মানবভ্রুণ নষ্ট হলে মামলা করা যাবে এখন থেকে। কারণ, হিমায়িত মানবভ্রূণকেও বিবেচনা করা হবে শিশু হিসেবে।

সম্প্রতি এমনই এক রুল জারি করেছে যুক্তরাষ্ট্রের আলাবামা রাজ্যের সুপ্রিম কোর্ট। আদালত বলেছেন, দুর্ঘটনাক্রমে হিমায়িত মানবভ্রূণ নষ্ট বা ধ্বংসের জন্য ব্যক্তিকে আইনগতভাবে দায়ী করা যাবে। খবর বিবিসির।

সংবাদমাধ্যমটি বলছে, প্রজনন চিকিৎসা নিয়ে তর্কবিতর্কের নতুন একটি ক্ষেত্রের সূত্রপাত ঘটিয়েছে আলাবামার সুপ্রিম কোর্টের এই রুল। আদালতের এমন সিদ্ধান্তের পরিপ্রেক্ষিতে ইতোমধ্যে আইভিএফ সেবা সাময়িকভাবে বন্ধ ঘোষণা করেছে বার্মিংহাম হাসপাতালের আলাবামা বিশ্ববিদ্যালয় কর্তৃপক্ষ। যুক্তরাষ্ট্রের দক্ষিণাঞ্চলীয় অক্ষরাজ্যটির বৃহত্তম হাসপাতাল এটি। ফৌজদারি বিচারের মুখোমুখি হওয়ার আশঙ্কা থেকেই তারা এমন পদক্ষেপ নিয়েছে বলে জানা গেছে। রাজ্যের শীর্ষস্থানীয় চিকিৎসাসেবা প্রদানকারী প্রতিষ্ঠানটি এক বিবৃতিতে দুঃখ প্রকাশ করেছে এ সিদ্ধান্ত নিয়ে।

চিকিৎসা বিশেষজ্ঞসহ প্রজনন অধিকার গোষ্ঠীগুলো সতর্ক করে বলছে, আলাবামা অঙ্গরাজ্য ও তার বাইরে বন্ধ্যত্বের চিকিৎসার ক্ষেত্রে নেতিবাচক প্রভাব ফেলতে পারে আদালতের এই রুল।

আলাবামা বিশ্ববিদ্যালয় বলছে, তারা কৃত্রিম গর্ভধারণ পদ্ধতি আইভিএফ প্রক্রিয়ার পরবর্তী ধাপ সাময়িকভাবে বন্ধ রাখবে। তবে, তারা নারীদের ডিম্বাশয় থেকে ডিম্বাণু পুনরুদ্ধারের কাজ চালিয়ে যাবে। রক্ষণশীল গোষ্ঠীগুলো অবশ্য আদালতের এই রুলকে স্বাগত জানিয়েছে। ক্ষুদ্রতম ভ্রূণও আইনি সুরক্ষা পাওয়ার দাবি রাখে বলে অভিমত তাদের।


আরও খবর



শীর্ষ সন্ত্রাসী-জঙ্গি ছাড়া ডান্ডাবেড়ি পরানো যাবে না: হাইকোর্ট

প্রকাশিত:মঙ্গলবার ৩০ জানুয়ারী ২০২৪ | হালনাগাদ:মঙ্গলবার ৩০ জানুয়ারী ২০২৪ | অনলাইন সংস্করণ
আদালত প্রতিবেদক

Image

শীর্ষ সন্ত্রাসী ও জঙ্গি ছাড়া কাউকে ডান্ডাবেড়ি পরানো যাবে না বলে নির্দেশ দিয়েছেন হাইকোর্ট। এ বিষয়ে স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের পরিপত্র মেনে চলতে বলা হয়েছে। আজ মঙ্গলবার (৩০ জানুয়ারি) বিচারপতি মোস্তফা জামান ইসলামের নেতৃত্বে দ্বৈত বেঞ্চ এ আদেশ দেন। আগামী ১১ মার্চ এ সংক্রান্ত রুলের শুনানি হবে।

আদালতে রিটের পক্ষে শুনানি করেন ব্যারিস্টার কায়সার কামাল। সঙ্গে ছিলেন অ্যাডভোকেট মাকসুদ উল্লাহ। রাষ্ট্রপক্ষে ছিলেন ডেপুটি অ্যাটর্নি জেনারেল তুষার কান্তি রায়, সহকারী অ্যাটর্নি জেনারেল সেলিম আজাদ।

পরিপত্রে বলা হয়েছে, শীর্ষ সন্ত্রাসী, জঙ্গি, দুর্ধর্ষ প্রকৃতির বন্দিদের আদালতে হাজিরা বা অন্যত্র আনা-নেওয়ার ক্ষেত্রে ডান্ডাবেড়ি পরানো যাবে। আইনজীবী বলেন, এই পরিপত্র অনুসরণ করতে বলেছেন আদালত। এর বাইরে কোনো বন্দি বা আসামিকে ডান্ডাবেড়ি পরানো যাবে না। এর আগে পটুয়াখালীর মির্জাগঞ্জ উপজেলায় ছাত্রদল নেতা নাজমুল মৃধাকে ডান্ডাবেড়ি পরিয়ে বাবার জানাজায় অংশ নেওয়ার ঘটনার কারণ খুঁজতে এবং দেশে বিভিন্ন সময়ে ডান্ডাবেড়ি পড়ানোর ঘটনায় নির্দেশনা চেয়ে রিট দায়ের করা হয়। রিটটি করেন ব্যারিস্টার কায়সার কামাল।


আরও খবর