আজঃ মঙ্গলবার ২৮ জুন ২০২২
শিরোনাম

পণ্য এনে দেয়ার কথা বলে অর্থ আত্মসাৎ, গ্রেফতার ২

প্রকাশিত:বুধবার ২৫ মে ২০২২ | হালনাগাদ:বুধবার ২৫ মে ২০২২ | ৪৪৫জন দেখেছেন
দর্পণ নিউজ ডেস্ক

Image

এক্সপোর্ট-ইমপোর্ট ব্যবসা প্রতিষ্ঠানের নামে বিদেশ থেকে মালামাল আমদানি করে দেওয়ার কথা বলে মানুষের টাকা আত্মসাৎ করে আসছিল একটি চক্র। চক্রটির দুই সদস্যকে গ্রেফতার করেছে পুলিশের অপরাধ তদন্ত বিভাগ (সিআইডি)।

বুধবার (২৫ মে) সকালে রাজধানীর মালিবাগে সিআইডির কার্যালয়ে এক সংবাদ সম্মেলনে পুলিশের এই বিশেষ ইউনিটের অতিরিক্ত ডিআইজি ইমাম হোসেন এ তথ্য জানান।

সিআইডি’র কাছে ভুক্তভোগীরা অভিযোগ করলে বিষয়টি অনুসন্ধান শুরু করে তারা। অর্থ আত্মসাতের সত্যতা পায়। সিআইডির ঢাকা মেট্রো-পশ্চিমের একটি টিম এএসপি মো. জিয়াউর রহমানের নেতৃত্বে অভিযান পরিচালনা করে যাত্রাবাড়ী এলাকা থেকে চক্রের মূলহোতা ও ইকোম্যাক্স কার্গোর কথিত চেয়ারম্যান আরাফাত হোসাইন (৪০) এবং ভুয়া ওই প্রতিষ্ঠানের অর্থ পরিচালক মো. নাজিম উদ্দিনকে (৪২) গ্রেফতার করে।

ইমাম হোসেন বলেন, প্রতারণা করে বিভিন্ন মানুষের কাছ থেকে তারা মোটা অঙ্কের টাকা আত্মসাৎ করেছে। তিন সদস্যের ওই চক্রটি ইকোম্যাক্স” নামক এক্সপোর্ট-ইমপোর্ট ব্যবসার নামে একটি ভুয়া প্রতিষ্ঠান গড়ে তোলে। তারা যাত্রাবাড়ী এলাকায় অফিস ভাড়া করে ব্যবসা পরিচালনা করে আসছে। অল্প সময়ে এবং কম খরচে চীন থেকে যেকোনও ধরনের পণ্য এনে দেওয়ার প্রতিশ্রুতি দিয়ে ৫০ শতাংশ মূল্য অগ্রিম গ্রহণ করতো। পরে চট্টগ্রাম পোর্টে মালামাল পৌঁছে যাওয়ার কথা বলে বাকি ২০ শতাংশ টাকা নিয়ে নিতো।’

চক্রটি আস্থা অর্জন করার জন্য মানুষের সঙ্গে চুক্তিপত্র করতো। তাদের প্রতিশ্রুত পণ্যের মধ্যে আছে গার্মেন্টস এক্সেসরিজ, কম্পিউটার যন্ত্রাংশ, মেডিক্যাল সরঞ্জাম, বাইক, কাপড়, সিলিকাজেল, লোগো ইত্যাদি। তারা ভাড়া করা মার্কেটিং অফিসারদের বিভিন্ন ব্যবসা প্রতিষ্ঠানে পাঠিয়ে চীন থেকে চাহিদা অনুযায়ী পণ্য এনে দেওয়ার অফার দিতো। মোটা অঙ্কের টাকা সংগ্রহ শেষে বিভিন্ন সমস্যার অজুহাতে সময়ক্ষেপণ করে অফিস ও মোবাইলফোন নম্বর বন্ধ করে গা ঢাকা দিতো।

ইমাম হোসেন বলেন, চক্রের এক সদস্য ইতোপূর্বে চীনে পড়াশুনা করতো বলে জানা যায়। আরেক সদস্য মেডিক্যাল ইকুইপমেন্ট ক্রয়ের জন্য চীনে যাতায়াত করতো। চক্রটির ৩৫ জনের কাছ থেকে আনুমানিক তিন কোটি টাকা আত্মসাতের প্রাথমিক প্রমাণ পাওয়া গেছে।’

নিউজ ট্যাগ: অর্থ আত্মসাৎ

আরও খবর



বন্যার কবলে সিলেটের লক্ষাধিক মানুষ

প্রকাশিত:বৃহস্পতিবার ১৬ জুন ২০২২ | হালনাগাদ:বৃহস্পতিবার ১৬ জুন ২০২২ | ৩৪০জন দেখেছেন
দর্পণ নিউজ ডেস্ক

Image

টানা বৃষ্টি ও উজান থেকে নেমে আসা পাহাড়ি ঢলে এক মাসের মধ্যে ফের বন্যার কবলে পড়েছেন সিলেটের লক্ষাধিক মানুষ। নগরের প্রায় ৫০টি এলাকার বাসা-বাড়ি ও সড়ক বন্যার পানিতে তলিয়ে গেছে। এতে চরম ভোগান্তিতে পড়েছেন এসব এলাকার মানুষ।

সরেজমিনে দেখা যায়, নগরীর ঘাসিটুলা, কলাপাড়া, শামীমাবাদ, ডহর, তালতলা, কালিঘাট, সোবহানীঘাট, শাহজালাল উপশহর, তেররতন, হবিনন্দি, সাদিপুর, বোরহানবাগ, শিবগঞ্জ এলাকার রাস্তাগুলো পানিতে ডুবে গেছে। বেশ কিছু বাসায় পানি ঢুকে পড়েছে। নিরাপদ আশ্রয়ে যাওয়ার চেষ্টা করছেন অনেক পরিবার।

এদিকে ফের বন্যা দেখা দিলেও এখন পর্যন্ত কোনো আশ্রয়কেন্দ্র খোলা হয়নি। তবে প্রস্তুতি আছে বলে জানিয়েছে সিলেট সিটি করপোরেশন। প্রয়োজন দেখা দিলেই সময়মতো খোলা হবে হবে আশ্রয়কেন্দ্র।

সিলেট সিটি করপোরেশনের (সিসিক) মেয়র আরিফুল হক চৌধুরী বলেন, নগরের বেশ কয়েকটি এলাকার রাস্তা-ঘাট, বাসা-বাড়ি ও শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানে পানি প্রবেশ করেছে। বিষয়টি আমরা পর্যবেক্ষণ করছি। আশ্রয়কেন্দ্র খোলাসহ বন্যা পরিস্থিতিতে করণীয় ঠিক করতে নগর ভবনে সভা চলছে। আমাদের সব প্রস্তুতি রয়েছে।

তিনি জানান, বন্যা দেখা দেওয়া এলাকাগুলোতে এখনও বিশুদ্ধ পানির সংকট তৈরি হয়নি। এমন পরিস্থিতি হলে সিসিক প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণ করবে।

পানি বাড়ছে কুশিয়ারা নদী ফেঞ্চুগঞ্জ পয়েন্টেও। বৃহস্পতিবার দুপুর দশমিক ৩২ সেন্টিমিটার ওপর দিয়ে প্রবাহিত হচ্ছে। বুধবার বিকেল ৩টায় কুশিয়ারার এ পয়েন্টে পানি বিপৎসীমার দশমিক ১৭ সেন্টিমিটার ওপর দিয়ে প্রবাহিত হয়।

এছাড়া একই সময়ে সিলেটের জৈন্তাপুরে সারি নদী বিপৎসীমার দশমিক ৪৭ সেন্টিমিটার ওপর দিয়ে প্রবাহিত হচ্ছে। বুধবারের তুলনায় সারি নদীর এ পয়েন্টে আজ দুপুর ১২টা পর্যন্ত পানি কমেছে দশমিক ৫ সেন্টিমিটার।

সিলেট আবহাওয়া অফিসের জ্যেষ্ঠ আবহাওয়াবিদ সাইয়িদ চৌধুরী জানান, আরও পাঁচদিন সিলেটে বৃষ্টিপাত অব্যাহত থাকবে। তাছাড়াও সিলেটের গোয়াইনঘাট, সুনামগঞ্জের ছাতক ও দোয়ারাবাজারের উজানে ভারতে ভারী বৃষ্টিপাত হচ্ছে। যার কারণে পাহাড়ি ঢল নামছে।

নিউজ ট্যাগ: সিলেটে বন্যা

আরও খবর



পদ্মা সেতু ঘিরেই সোনালী ভবিষ্যত দেখতে পাচ্ছেন গোপালগঞ্জবাসী

প্রকাশিত:বুধবার ২২ জুন 20২২ | হালনাগাদ:বুধবার ২২ জুন 20২২ | ৫০০জন দেখেছেন

Image

গোপালগঞ্জ থেকে আশিক জামান

আর মাত্র বাকি কয়েকদিন। এর পরেই বাংলাদেশের দক্ষিণ-পশ্চিমাঞ্চলের ২১ টি জেলার মানুষের স্বপ্নের দিন। আগামী ২৫ শে জুন খুলে দেওয়া হবে স্বপ্নের পদ্মা সেতু। এতে দক্ষিণ-পশ্চিম অঞ্চলের ২১ জেলার  মানুষের ভাগ্যের পরিবর্তন হবে।

এই ২১ টি জেলার মধ্যে গোপালগঞ্জ অন্যতম। এ পদ্মাসেতু খুলে দেওয়ার সাথে সাথে এজেলার মানুষ আরো অর্থনৈতিক ভাবে সমৃদ্ধশালী হবে। এ জেলার মানুষের ভাগ্য বদলে নতুন দিগন্ত উন্মোচন করবে পদ্মা সেতু। এই সেতু ঘিরেই সোনালী ভবিষ্যত দেখতে পাচ্ছেন এই জেলার প্রায় ১৫ লক্ষ মানুষ। পদ্মা সেতু চালু হলে রাজধানী ঢাকাসহ সারা দেশের সঙ্গে এ জেলার যোগাযোগ ব্যবস্থা সহজ হবে। পিছিয়ে পড়া এই জেলা ব্যবসা-বাণিজ্যের ক্ষেত্রে আরও মনোযোগ কাড়বে, গড়ে উঠবে এ জেলায় নতুন নতুন শিল্প কলকারখানা। ফলে এ জেলার  অর্থনীতির চাকা ঘোরার পাশাপাশি বাড়বে বেকারদের কর্মসংস্থান। পদ্মা সেতু শুধু যোগাযোগ ব্যবস্থা সহজ করবে না, এতে শিক্ষা  কৃষি, মৎস্য, জরুরি স্বাস্থ্যসেবা ও শিল্প পর্যটনসহ বেশ কিছু খাতে অর্থনৈতিক উপযোগও সৃষ্টি হবে। পাশাপাশি গড়ে উঠবে বিভিন্ন শিল্প কলকারখানা, ইপিজেড, বিমানবন্দর, গার্মেন্টস শিল্প ও কৃষিশিল্প।

কৃষি

গোপালগঞ্জ জেলাকে অর্থনৈতিক ভাবে সবচেয়ে সমৃদ্ধ করেছে কৃষিখাত। জেলার প্রায় দেড়লাখ হেক্টর জমিতে এজেলার কৃষকেরা নানান ফসল উৎপাদন করে। এরমধ্যে ব্যতিক্রম ফসল সবজি। পদ্মা সেতুর কারণে যোগাযোগ ব্যবস্থা সহজ হওয়ায় কৃষকদের নিজস্ব ক্ষেতে ফলানো কৃষিপণ্য এ জেলার চাহিদা মিটিয়ে পৌঁছে যাবে রাজধানী ঢাকাসহ দেশের বিভিন্ন অঞ্চলে। এতে কৃষকেরা তাদের ন্যায্যমূল্য পাবে।

এ বিষয়ে সদর উপজেলার রঘুনাথ পুর গ্রামের কৃষক আবদুল মতিন মিয়ার সাথে কথা হলে তিনি বলেন, আমি প্রায় পঞ্চাশ বিঘা জমিতে বছরের ১২ মাস বিভিন্ন শাকসবজী চাষ করি। এ জেলা ছাড়া বাইরে বিক্রি করতে পারতাম না। তাই ন্যায্য মূল্যও পেতাম না। পদ্মা সেতু চালু হলে। রাজধানী ঢাকার সাথে যোগাযোগ ব্যবস্থা সহজ হবে। ফেরীঘাটের ভোগান্তি ছাড়াই সরাসরি সবজি নিয়ে সময় মতো ঢাকায় পৌঁছাতে পারবো। আমাদের কষ্ট করে ফলানো সবজীর ন্যায্য মূল্য পাবো।

স্বাস্থ্য

পদ্মা সেতু চালু হলে গোপালগঞ্জের স্বাস্থ্য খাতে বড় ভূমিকা রাখবে। পদ্মা সেতুর জন্য এ জেলায় রাজধানী ঢাকা থেকে কোন চিকিৎসক আসতেন না। রোগীদের উন্নত চিকিৎসার জন্য ঢাকায় নেওয়ার সময় ফেরীঘাটে সময় ব্যয় হওয়ার জন্য বেশির ভাগ রোগী ফেরি ঘাটে মারা যেতেন। পদ্মা সেতু চালু হলে এ জেলার মানুষ ভোগান্তি ছাড়াই অল্পসময়ে ঢাকা পৌঁছাতে পারবে। নিতে পারবেন জরুরি স্বাস্থ্যসেবা।

গোপালগঞ্জ সিভিল সার্জন ডাঃ নিয়াজ মাহমুদ  বলেন, পদ্মা সেতু চালু হওয়ার ফলে রাজধানী ঢাকার সাথে গোপালগঞ্জের যোগাযোগ ব্যবস্থার আমূল পরিবর্তন হবে। পদ্মা সেতু না থাকায় ঢাকার অনেক বড় বড় চিকিৎসক আমাদের জেলায় আসতে চাইতেন না। পদ্মা সেতুর খুলে দেওয়ার পর চিকিৎসার ক্ষেত্রে অনেক পরিবর্তন হবে। ভালো চিকিৎসক এ জেলায় এসে মানুষকে চিকিৎসা দিতে পারবে। অনেক সময় নদী পার হতে গিয়ে রোগী মারা যেত। জরুরি ওষুধ আনতে অনেক সময় লাগত। ওষুধের জন্য অনেক রোগী মারা যেত। পদ্মা সেতু চালু হলে ওষুধ, চিকিৎসকসহ আর কোন সমস্যা হবে না।

পর্যটন

পদ্মা সেতু চালু হলে গোপালগঞ্জে পর্যটন খাত অর্থনৈতিক ভাবে বড় ভূমিকা রাখবে। এ জেলায় রয়েছে বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের সমাধিস্থল। ইতিমধ্যে জাতির পিতার সমাধিস্থলকে ঘিরে তৈরী করা হয়েছে স্থাপত্য শৈলীর নানান নিদর্শন। আর চোখ জুড়ানো বিস্তৃর্ন সবুজের মাঠ। এ সমাধিস্থলকে ঘিরে সারা বছর পর্যটকদের ভিড় এমনিতে লেগে থাকে। পদ্মা সেতু চালু হলে গোপালগঞ্জের সাথে সারাদেশের যোগাযোগ ব্যবস্থা সহজ হবে। দেশের বিভিন্ন অঞ্চল থেকে পর্যটক আসবে। আরো বেশি পর্যটকদের সমাগম হবে। এতে এ জেলার পর্যটন শিল্পকে আরো বিকাশিত করবে।

এছাড়াও মুক্তিযুদ্ধ, বঙ্গবন্ধু ও টুঙ্গিপাড়াকে নিয়ে বিশ্বমানের গবেষকেরা গবেষণায় আগ্রহী হবেন।

শিক্ষা

গোপালগঞ্জ জেলায় দুটি বিশ্ববিদ্যালয়সহ বেশ কয়েকটি শিক্ষা প্রতিষ্ঠান রয়েছে। পদ্মা সেতুর কারণে যোগাযোগ ব্যবস্থা সহজ হওয়ায় দেশের বিভিন্ন অঞ্চলের মেধাবী শিক্ষার্থীরা এ সব প্রতিষ্ঠানে শিক্ষার জন্য আগ্রহী হবেন।

এবিষয়ে বশেমুরবিপ্রবির বিজিএমই বিভাগের সহকারী প্রভাষক ইমদাদুল হক সোহাগ বলেন, বিশ্ববিদ্যালয় হচ্ছে একই সাথে জ্ঞান বিতরণ এবং জ্ঞান সৃষ্টির জায়গা। জ্ঞান সৃষ্টির জন্য প্রথমত যে জিনিসটা প্রয়োজন সেটা হচ্ছে বিশ্বমানের গবেষক দরকার। পদ্মা সেতু চালু হওয়ার সাথে সাথে জাতির জনকের পূন্যভূমি গোপালগঞ্জ বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ে প্রতি বিশ্ব মানের গবেষকরা আরো আকৃষ্ট হবেন। সেই সাথে সাথে মেধাবী শিক্ষার্থীরাও এ বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রতি আকৃষ্ট হবেন।

শিল্প কলকারখানা

পদ্মা সেতু চালু হওয়ার দেশি বিদেশি বিনিয়োগকারীরা এ জেলায় বিনিয়োগে আকৃষ্ট হবেন। এ জেলায় গড়ে উঠবে বিভিন্ন শিল্প কলকারখানা। এ জেলার বেকারত্বের কর্মসংস্থান হবে। ভাগ্যের পরিবর্তন আনবে এ জেলার বেকারদের।

কর্মসংস্থান

পদ্মা সেতু চালু হওয়ার পর ২১ জেলার মধ্যে সবচেয়ে বেশি কর্মসংস্থান হবে এ জেলায়। পদ্মা সেতুকে ধিরে এ জেলায় তৈরি করা  বিশাল বিশাল সরকারি বেসরকারী স্থাপনার কাজ প্রায় শেষ হয়েছে। পাশাপাশি বিনিয়োগ হচ্ছে বেসরকারি খাতে। সবগুলোই খুলে দেওয়া হবে পদ্মা সেতু চালু হলে। নির্মাণ করা হচ্ছে বেসরকারি শিল্প কলকারখানাও। যা এ জেলার অর্থনীতিতে বড় পরিবর্তন আনবে।

এ বিষয়ে গোপালগঞ্জ জেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক মাহাবুব আলী খান বলেন, পদ্মা সেতুকে ঘিরে এ জেলায় বেশ কয়েকটি সরকারি বেসরকারী প্রতিষ্ঠান নির্মাণ করা হয়েছে। সবগুলো পদ্মা সেতু চালু হওয়ার পর প্রধানমন্ত্রী উদ্বোধন করবেন। এ ছাড়াও বেশ কয়েকটি শিল্প কলকারখানা নির্মাণ করা হচ্ছে। সরকারি বেসরকারী প্রতিষ্ঠান ও শিল্প কলকারখানা চালু হওয়ার পর এ জেলার বেকারদের কর্মসংস্থানের সুযোগ হবে। কমবে এ জেলার বেকারত্বের হার। এর পাশাপাশি এ জেলা শিল্পাঞ্চল জেলা হিসেবে পরিচিতি লাভ করবে।

এবিষয়ে জেলা প্রশাসক শাহিদা সুলতানা বলেন,পদ্মা সেতু চালু হলে গোপালগঞ্জ শুধু শিল্পাঞ্চলই নয় আধুনিক পর্যটন নগরীতে রুপ নিবে। এ জেলার মাটিতেই চিরনিদ্রায় শায়িত আছেন জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান। এ সমাধিস্থলকে ঘিরে সারাবছর বিভিন্ন জেলা থেকে পর্যটক আসতে থাকে। পদ্মা সেতু চালু হওয়ার পর এ জেলার অর্থনীতির চাকা সচল হবে। পদ্মা সেতুকে ঘিরে অপেক্ষামান যে সব নবনির্মিত যে সব সরকারি বেসরকারী প্রতিষ্ঠান ও শিল্প কলকারখানা গড়ে উঠেছে সবকয়টিতে এ জেলার বেকারদের কর্মসংস্থানের সুযোগ হবে। এতে এ জেলার বেকারত্বের হার কমার পাশাপাশি অর্থনৈতিক ভাবে এ জেলা স্বাবলম্বী হবে।


আরও খবর



অপসাংবাদিকতায় জরিমানা করতে পারবে প্রেস কাউন্সিল

প্রকাশিত:সোমবার ২০ জুন ২০22 | হালনাগাদ:সোমবার ২০ জুন ২০22 | ৪০৫জন দেখেছেন
দর্পণ নিউজ ডেস্ক

Image

অপসাংবাদিকতার জন্য সংবাদ সরবরাহকারী প্রতিষ্ঠানকে জরিমানা করতে পারবে প্রেস কাউন্সিল। এমন বিধান রেখে প্রেস কাউন্সিল (সংশোধন) আইন ২০২২ এর খসড়া নীতিগত অনুমোদন দিয়েছে মন্ত্রিসভা।

সোমবার (২০ জুন) প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত মন্ত্রিসভা বৈঠকে তথ্য ও সম্প্রচার মন্ত্রণালয়ের উপস্থাপন করা এ আইনের খসড়া অনুমোদন দেওয়া হয়। প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়ে এ বৈঠক হয়।

বৈঠক শেষে সচিবালয়ে প্রেস ব্রিফিংয়ে মন্ত্রিপরিষদ সচিব খন্দকার আনোয়ারুল ইসলাম এ তথ্য জানান। তিনি বলেন, খসড়া আইনে অপসাংবাদিকতার জন্য সংবাদ সরবরাহকারী প্রতিষ্ঠানকে অর্থদণ্ডের কথা রাখা হয়েছে। আগে প্রেস কাউন্সিল শুধু তিরস্কার করতে পারতো।

এটা প্রিন্ট ও ডিজিটাল সব সংবাদ মাধ্যমের জন্য বলবৎ হবে বলেও জানান মন্ত্রিপরিষদ সচিব।


আরও খবর



দেশের মানুষের জন্য হজযাত্রীদের কাছে দোয়া চাইলেন প্রধানমন্ত্রী

প্রকাশিত:শুক্রবার ০৩ জুন ২০২২ | হালনাগাদ:শুক্রবার ০৩ জুন ২০২২ | ৩৫৫জন দেখেছেন
দর্পণ নিউজ ডেস্ক

Image

পবিত্র নগরী মক্কা-মদিনায় হজ পালনকালে দেশ ও দেশের জনগণের সমৃদ্ধি ও কল্যাণের জন্য দোয়া করতে হজ যাত্রীদের আহ্বান জানিয়েছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা।

শুক্রবার (০৩ জুন) সকালে ১৪৪৩ হিজরি বর্ষের হজযাত্রীদের সঙ্গে শুভেচ্ছা বিনিময় এবং হজ কার্যক্রম ২০২২-এর উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে (ভার্চ্যুয়াল) তিনি এ আহ্বান জানান। রাজধানীর বিমানবন্দর এলাকার আশকোনা হজ ক্যাম্পে আয়োজিত এ অনুষ্ঠানে গণভবন থেকে ভিডিও কনফারেন্সে অংশ নেন প্রধানমন্ত্রী।

প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বলেন, আপনারা পবিত্র হজ পালন করতে যাচ্ছেন, আল্লাহর দরবারে যাচ্ছেন। বাংলাদেশের জন্য দোয়া করবেন, প্রাকৃতিক দুযোর্গ অথবা করোনা ভাইরাসের মতো এ রকম অতিমারির হাত থেকে এ দেশ যেন রক্ষা পায়, বিশ্ব যেন রক্ষা পায়। বিশেষ করে আমাদের দেশের জন্য, দেশের মানুষের জন্য দোয়া করবেন। সেটাই চাই।

তিনি বলেন, আজ আমরা যেভাবে অর্থনৈতিক উন্নতি করছি, এ উন্নয়নের পথে আমরা যেন এগিয়ে যেতে পারি।  বাংলাদেশের সব মানুষ যেন অন্ন, বস্ত্র, বাসস্থান, শিক্ষা, চিকিৎসার সুযোগ পায়, উন্নত জীবন পায়, সুন্দর জীবন পায়, সে জন্য আপনারা দোয়া করবেন। দেশের জনগণের পাশাপাশি নিজের হারানো আপনজনদের জন্য দোয়া করার আহ্বান জানান শেখ হাসিনা।

হজে গিয়ে হাজিদের নিয়ম-কানুন মেনে চলার আহ্বান জানিয়ে সরকারপ্রধান বলেন, যারা যাবেন হজে, অবশ্যই সৌদি আরবের যে সমস্ত নিয়ম কানুন এবং আইন আছে, সেগুলো মেনে চলতে হবে। আপনার নিজের ইবাদত বন্দেগি যেমন করা, আবার দেশের মান সম্মান রক্ষা করা- এটাও কিন্তু সবার কর্তব্য। সে কথাটা আপনারা মাথায় রাখবেন।


আরও খবর



ঝিনাইদহ পৌরসভার নির্বাচন স্থগিত

প্রকাশিত:রবিবার ১২ জুন ২০২২ | হালনাগাদ:রবিবার ১২ জুন ২০২২ | ৪০০জন দেখেছেন
দর্পণ নিউজ ডেস্ক

Image

আইনগত জটিলতা পরিহারের লক্ষে ঝিনাইদহ পৌরসভার নির্বাচন স্থগিত করেছে নির্বাচন কমিশন। রবিবার নির্বাচন কমিশনের উপসচিব আতিয়ার রহমান সাক্ষরিত এক প্রজ্ঞাপনে এ তথ্য জানা গেছে।

২ জুন নির্বাচনী আচরণ বিধি লঙ্ঘনের দায়ে আওয়ামী লীগের মেয়র প্রার্থী আব্দুল খালেকের প্রার্থিতা বাতিল করে নির্বাচন কমিশন। এ আদেশের বিরুদ্ধে আব্দুল খালেক হাইকোর্টে রিট করেন।  বিচারপতি জাফর আহমেদ ও বিচারপতি কাজী জিন্নাত হকের সমন্বয়ে গঠিত বেঞ্চ শুনানি শেষে নির্বাচন কমিশনের  ২ জুনের প্রজ্ঞাপন ৮ জুন হতে এক মাসের জন্য স্থগিত করেন। সেই সঙ্গে উক্ত বেঞ্চ নির্বাচন কমিশনের ২ জুনের প্রজ্ঞাপন কেন অবৈধ ও বেআইনি ঘোষণা  করা হবে না সেটি জানতে চেয়ে রুল জারি করেন। নির্বাচন কমিশন ও সংশ্লিষ্টদের রুলের  জবাব দিতে বলা হয়।

হাইকোর্টের আদেশের বিরুদ্ধে সংশ্লিষ্ট পক্ষ সুপ্রিম কোর্টে আপিল করে। শুনানি শেষে সুপ্রিম কোর্টের  আপিল বিভাগ  আজ আপিল খারিজ করে দেন।

নির্বাচন কমিশনের প্রজ্ঞাপনে বলা হয়- হাইকোর্টের আদেশ প্রতিপালনে আইনগত জটিলতা পরিহারে ঝিনাইদহ পৌরসভার আগামী ১৫ জুন তারিখে অনুষ্ঠিতব্য নির্বাচন স্থগিতের সিদ্ধান্ত নেয় নির্বাচন কমিশন।


আরও খবর