আজঃ মঙ্গলবার ২৩ জুলাই ২০২৪
শিরোনাম

পানি বাড়ায় খুলে দেওয়া হয়েছে তিস্তার ৪৪ জলকপাট

প্রকাশিত:শুক্রবার ১৪ জুন ২০২৪ | হালনাগাদ:শুক্রবার ১৪ জুন ২০২৪ | অনলাইন সংস্করণ
নিজস্ব প্রতিবেদক

Image

টানা বৃষ্টি ও পাহাড়ি ঢলে তিস্তার পানি বাড়তে শুরু করেছে। ইতোমধ্যে ডালিয়ায় তিস্তা ব্যারাজের ৪৪টি জলকপাট খুলে দিয়েছে কর্তৃপক্ষ। পানি বিপৎসীমার কাছাকাছি প্রবাহিত হওয়ায় নদীপাড়ে আতঙ্ক বিরাজ করছে।

রংপুর পানি উন্নয়ন বোর্ডের তথ্য মতে, সন্ধ্যা ৬ টায় কাউনিয়া পয়েন্টে ২৮ দশমিক ৭০ সেন্টিমিটার পানি প্রবাহ রেকর্ড করা হয়। ফলে দশমিক পাঁচ সেন্টিমিটার নিচ দিয়ে প্রবাহিত হচ্ছে তিস্তা নদীর পানি। বিকেল ৩টায় ২৮ দশমিক ৬৩ সেন্টিমিটার, ভোর ৬ টায় ২৮ দশমিক ৪০ সেন্টিমিটার ও সকাল ৯টায় ২৮ দশমিক ৫০ সেন্টিমিটার ও দুপুর ১২ টায় ২৮ দশমিক ৫৫ সেন্টিমিটার।

অপরদিকে একইদিন বিকেল ৩ টায় দেশের বৃহত্তম সেচ প্রকল্প তিস্তা ব্যারাজের ডালিয়া পয়েন্টে তিস্তার পানিপ্রবাহ রেকর্ড করা হয়েছে ৫১ দশমিক ৩০ সেন্টিমিটার। যা বিপৎসীমার দশমিক ৮৫ সেন্টিমিটার নিচ দিয়ে প্রবাহিত হচ্ছে। এরআগে এ পয়েন্টে সকাল ৬টায় ৫১ দশমিক ৭৫ সেন্টিমিটার, সকাল ৯টায় ৫১ দশমিক ৬০ সেন্টিমিটার ও দুপুর ১২টায় ২৮ দশমিক ৪৬ সেন্টিমিটার পানির প্রবাহ রেকর্ড করা হয়।

কাউনিয়া উপজেলার বালাপাড়া ইউনিয়নের চেয়ারম্যান আনছার আলী জানান, ভোর থেকে তিস্তার পানি হু হু করে বাড়ছে। বর্ষার আগে তিস্তায় পানি বৃদ্ধি পাওয়ায় তীরবর্তী ও চরাঞ্চল গ্রামের মানুষদের মাঝে কিছুটা আতঙ্ক বিরাজ করে। এসময় বন্যা হলে নদীপাড়ের মানুষেরা ক্ষতিগ্রস্ত হবেন। পাশাপাশি নদীর তীরবর্তী আবাদি জমিগুলো তলিয়ে বাদাম ও শাক-সবজিসহ উঠতি বিভিন্ন ফসলের কিছুটা ক্ষতি হবে।

কাউনিয়ার চরগনাই গ্রামের বাসিন্দা আফতার আলী বলেন, ভোর থাকি নদীত পানি বারবের নাগছে। হামরা ভয়ত আছি। পানি কোনো সময় বা সময় বাড়িত ঢোকে। ঈদের আগত বন্যা হইলে খুব বিপদে পড়ি যামো।

রংপুর পানি উন্নয়ন বোর্ডের নির্বাহী প্রকৌশলী রবিউল ইসলাম বলেন, উজানের ঢল আর গত কয়েকদিন ধরে বৃষ্টিপাতে বৃহস্পতিবার বিকেল থেকে ডালিয়া পয়েন্টে তিস্তায় পানি বাড়তে থাকে। পরিস্থিতি স্বাভাবিক রাখতে ব্যারাজের ৪৪ গেটই খুলে রাখা হয়েছে। শুক্রবার বিকেলের দিকে ডালিয়া পয়েন্টে তিস্তার পানি কিছুটা কমতে শুরু করেছে। তবে ভাটিরদিকে রংপুর জেলার কাউনিয়া পয়েন্টে তিস্তার পানি বিপদসীমার কাছ দিয়ে প্রবাহিত হচ্ছে। তাই ভাটির অঞ্চলে সার্বক্ষণিক নদীপাড়ের পরিস্থিতির খোঁজখবর রাখা হচ্ছে।

তিনি আরও বলেন, এখন পর্যন্ত বন্যার কোনো আভাস পাওয়া যায়নি। ভারতে বৃষ্টিপাতের পরিমাণ বেশি হলে উজান থেকে নেমে আসা ঢলে আমাদের এখানে নদীর পানি আরও বাড়তে পারে। তবে বর্ষা মওসুমের আগে তিস্তায় পানি বাড়ায় নদী পাড়ের মানুষের মাঝে কিছুটা আতঙ্ক বিরাজ করে।

কাউনিয়া উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) মহিদুল হক বলেন, বন্যার এখন পর্যন্ত আভাস পাওয়া যায়নি। তবে বন্যায় যাতে কেউ ক্ষতিগ্রস্ত না হয় সে ব্যাপারে সরকারিভাবে সব ধরনের আগাম প্রস্তুতি নেওয়া আছে। পাশাপশি স্থানীয় প্রতিনিধিদের সার্বক্ষণিক নদীপাড়ের পরিস্থিতির খোঁজখবর রাখতে বলা হয়েছে।


আরও খবর



‘বাজপাখি’ মার্তিনেজ নৈপুণ্যে সেমিতে আর্জেন্টিনা

প্রকাশিত:শুক্রবার ০৫ জুলাই ২০২৪ | হালনাগাদ:শুক্রবার ০৫ জুলাই ২০২৪ | অনলাইন সংস্করণ
ক্রীড়া প্রতিবেদক

Image

ম্যাচের নির্ধারিত সময় শেষ। ইকুয়েডরের বিপক্ষে ১-০ গোলে এগিয়ে আর্জেন্টিনা। অপেক্ষা রেফারির শেষ বাঁশির। যেই বাঁশিতে মিলবে সেমির টিকিট। কিন্তু হঠাৎই গ্যালারিতে শুনশান নীরবতা। স্তব্ধ গোটা আর্জেন্টাইন শিবির। অতিরিক্ত যোগ করা সময়ে জন ইয়েবোহের দারুণ ক্রস হেডে জালে জড়ান কেভিন রদ্রিগেজ। ১-১ গোলে সমতায় চলে আসে ম্যাচটা। এক্সটা সময়ের খেলা না থাকায় সরাসরি ম্যাচ গড়ায় টাইব্রেকারে। আর্জেন্টিনাকে টেনে তোলার দায়িত্বটা আরও একবার বর্তায় গোলরক্ষক এমেলিয়ানো মার্তিনেজের কাঁধে। এ দফায়ও টেনে তুলেছেন বাজপাখি খ্যাত মার্তিনেজ।

আর্জেন্টিনার হয়ে টাইব্রেকারে শট নিতে এসে প্রথম বলটিই পোস্টে রাখতে পারেননি মেসি। ইকুয়েডরের প্রথম শট রুখে দিয়ে আর্জেন্টিনাকে বাঁচান মার্তিনেজ। দ্বিতীয় শটে ভুল করেনি জুলিয়ান আলভারেজ। এগিয়ে নেন দলকে। এদিকে ফের ইকুয়েডরের শট রুখে দেন মার্তিনেজ। দলকে এগিয়ে নেন তিনি। এরপর আর ভুল করেনি কেউ। ১ গোলে এগিয়ে থেকে ম্যাচটা শেষ পর্যন্ত জিতে যায় আর্জেন্টিনা। টাইব্রেকারে ৪-২ গোলের জয়ে সেমিফাইনালে পা রাখে আর্জেন্টিনা। যেখানে আর্জেন্টিনার জয়ের নায়ক মার্তিনেজ।

এদিন প্রথমার্ধে ১-০ গোলে এগিয়ে থাকা আর্জেন্টিনা বড় ভুলটা করে বসে ম্যাচের ৫৮ মিনিটে। ম্যাচে সমতায় ফেরার সেরা সুযোগটা পেয়ে যায় ইকুয়েডর। ডি বক্সে প্রতিপক্ষের আক্রমণ ঠেকাতে গিয়ে ভুল করে বসেন ডি পল। বল লাগে তার হাতে। পেনাল্টি পেয়ে যায় ইকুয়েডর। শট নিতে আসেন এনার ভ্যালেন্সিয়া। পেনাল্টিতে আর্জেন্টাইন গোলরক্ষকে ঠিকই বোকা বানিয়েছিলেন তিনি। তার শট নেওয়ার উল্টো পাশে ঝাঁপ দিয়েছিল মার্তিনেজ। তবে শেষ পর্যন্ত বোকা হতে হয়েছে তাকেও। তার নেওয়া দুর্বল শট বাধা পায় গোলবারে। বড় বিপদ থেকে বেঁচে যায় আর্জেন্টিনা।

এরপর দলে বেশ কিছু পরিবর্তন এনেও ছন্দ খোঁজে পাচ্ছিল না আর্জেন্টিনা। ব্যবধান বাড়িয়ে নেওয়া দূরের কথা উল্টো ইকুয়েডর চাপে ফেলছিল আর্জেন্টিনাকে। আর্জেন্টিনার রক্ষণের কঠিন পরীক্ষাও নিচ্ছিল দলটি। তবে সেই পরীক্ষায় নির্ধারিত সময়ে পাস করে গেলেও হাল ছাড়েনি ইকুয়েডর। নির্ধারিত ৯০ মিনিট পর্যন্ত দারুণ লড়াই করেও ম্যাচে সমতা টানতে পারেনি ইকুয়েডর। মনে হচ্ছিল সেমিতে চলে যাচ্ছে আর্জেন্টিনা। তবে শেষ পর্যন্ত অতিরিক্ত যোগ করা সময়ে ঘটে বড় বিপত্তি। জন ইয়েবোহের দারুণ ক্রস হেডে জালে জড়ান কেভিন রদ্রিগেজ। স্তব্ধ হয়ে যায় পুরো গ্যালারি। ম্যাচ গড়ায় টাইব্রেকারে।

যেখানে বরাবরের মতোই এদিনও দলকে টেনে তুলেছেন মার্তিনেজ। সবশেষ কোপা, কাতার বিশ্বকাপ থেকে শুরু করে টাইব্রেকারে কখনোই আর্জেন্টিনাকে হারতে দেননি মার্তিনেজ। সেই মার্তিনেজ আরও একবার তাই করে দেখালেন। দলকে জেতালেন দারুণ দক্ষতায় দুটি গোল আটকে দিয়ে। ৪-২ গোলে জয় পেল আর্জেন্টিনা। অথচ, এমন ম্যাচে নিষ্প্রভ মেসি, গোল করতে ব্যর্থ হয়েছেন টাইব্রেকারেও। তাতে বড় বিপদেই পড়ে গিয়েছিল দল। তবে এ যাত্রায় আর্জেন্টিনাকে বাঁচিয়ে দিয়েছেন দিবু ও দলের বাকিরা। দলকে নিয়ে গেছেন সেমিফাইনালে।

এর আগে কোয়ার্টার ফাইনালের ম্যাচে এদিন চোট শঙ্কা দূর করে ম্যাচের শুরুর একাদশেই মাঠে নেমেছেন লিওনেল মেসি। তার সঙ্গে আক্রমণভাগে রাখা হয়েছে দারুণ ছন্দে থাকা লাওতারো মার্তিনেজকে। দুজনে অবশ্য তেমন কোনো সুযোগ তৈরি করতে পারেননি গোলের। প্রথমার্ধে নিজেদের রক্ষণে কড়া পাহারা বসিয়ে আর্জেন্টিনাকে আটকে রাখছিল ইকুয়েডর। তাতে কঠিন হয়ে উঠছিল গোল পাওয়া। তবে সেই কঠিন বাধা টপকে দলকে এগিয়ে দিয়েছেন মার্টিনেজ।

ম্যাচের ৩৫ মিনিটে এঞ্জো ফার্নান্দেজ গোলের উদ্দেশ্যে ডি বক্সে ঢুকে জোরাল শট নিলে সেটি বাধা পেয়ে কর্নার কিক পায় আর্জেন্টিনা। আর সেই কর্নার কিকটিই শেষ পর্যন্ত আর্জেন্টিনার জন্য হয়ে উঠে আশীর্বাদ। কর্নার কিকটি প্রথমে হেড করেন ম্যাক অ্যালিস্টার। তার হেড এক রকম গোলবারের আরেক পাশে দাঁড়িয়ে থাকা লিসান্দ্রো মার্টিনেজ পেয়ে যান একা। যা খুব সহজেই হেড দিয়ে জালে পাঠিয়ে দেন তিনি। আর্জেন্টিনা লিড নেয় ১-০ গোলে।


আরও খবর



মতিউরের সঙ্গে আরজিনার স্পর্শকাতর ফোনালাপ ফাঁস

প্রকাশিত:শুক্রবার ০৫ জুলাই ২০২৪ | হালনাগাদ:শুক্রবার ০৫ জুলাই ২০২৪ | অনলাইন সংস্করণ
নিজস্ব প্রতিবেদক

Image

ছাগলকাণ্ডে আলোচিত জাতীয় রাজস্ব বোর্ডের (এনবিআর) সদ্য সাবেক সদস্য মতিউর রহমান ও তার অধস্তন নারী কর্মকর্তা আরজিনা খাতুনের মধ্যে মোবাইল ফোনে ব্যক্তিগত আলাপচারিতার অডিও রেকর্ড ফাঁস হয়েছে। এতে নতুন করে তোলপাড় শুরু হয়েছে।

এদিকে এনবিআরের কর্মকর্তা-কর্মচারীদের অভিযোগ, শুধু মতিউর রহমানের বান্ধবী হিসেবে বহু সুবিধা হাসিল করেছেন আরজিনা। অবৈধ পথে উপার্জিত অর্থে বনেছেন অঢেল সম্পত্তির মালিক। এছাড়া ঢাকায় অভিজাত অ্যাপার্টমেন্ট, গ্রামে বিলাসবহুল বাড়ি, ৫০০ ভরি স্বর্ণালংকারসহ নামে-বেনামে গড়েছেন বিপুল সম্পদ। আরজিনার দুর্নীতি ও অবৈধ সম্পদের অভিযোগ গড়িয়েছে দুর্নীতি দমন কমিশন (দুদক) পর্যন্ত।

ফাঁস হওয়া ফোনালাপ

মতিউর : তোমার কাছে ... চাই, কখন দিতে পারবা?

আরজিনা : আজকে...!

মতিউর : আজকের প্রোগ্রাম ঠিক আছে?

আরজিনা : আজকে... কালকে যাই। আজ শুক্রবারতো, মানে কি বলে বের হব, কোনো ইয়ে পাচ্ছি না। বাসায় আছেতো। কালকে হলে ভালো হয়। কালকেতো থাকবা ঢাকায়।

মতিউর : দীর্ঘশ্বাস... ঠিক আছে। কালকে মনে হয় পারব না।

আরজিনা : কষ্ট পেলে... মানে শুক্রবারতো, কোনো ইয়ে খুঁজে পাচ্ছি না। বাইরে যে থাকব, আবার মাইন্ড... মানে যদি কোনো সন্দেহ তৈরি হয়।

মতিউর : ফের দীর্ঘশ্বাস... ওকে।

জানা গেছে, মতিউর রহমানের সম্পর্ককে কাজে লাগিয়ে নানা অনৈতিক সুবিধা নিয়ে অঢেল সম্পদের মালিক হয়েছেন এনবিআরের ওই আরজিনা খাতুন। রাজধানীতে বিলাসবহুল ইন্টেরিয়রে মোড়ানো ফ্ল্যাট, গ্রামে আলিশান বাড়ি, পরিবারের সদস্যদের নামে-বেনামে জমিসহ বিপুল সম্পদের মালিক হয়েছেন এনবিআরের ওই আরজিনা খাতুন। মাত্র ৩ বছরে আরজিনা কিনেছেন অন্তত ৫০০ ভরি স্বর্ণালংকার। যার ২০০ ভরিই চোরাচালানের মাধ্যমে বিদেশ থেকে আনা হয়েছে বলে দুদকের কাছে অভিযোগ জমা পড়েছে। আরজিনা খাতুন বর্তমানে রাজস্ব বোর্ডের মূসক মনিটরিং, পরিসংখ্যান ও সমন্বয়ের দ্বিতীয় সচিব। এর আগে চট্টগ্রাম কাস্টমস হাউজের উপকমিশনার ছিলেন তিনি।

দুদক সূত্রে জানা গেছে, ১০ জুন আরজিনার দুর্নীতি ও অবৈধ সম্পদের খতিয়ান তুলে ধরে দুদকে অভিযোগ জমা দেন এক ব্যক্তি। তাতে বলা হয়, মিথ্যা তথ্য দিয়ে পণ্য আমদানি, মানি লন্ডারিং, স্বর্ণ চোরাচালান চক্রের সঙ্গে যোগসাজশ আর আলোচিত এনবিআরের সদ্য সাবেক সদস্য মতিউর রহমানের সংস্পর্শে এসে দুর্নীতির মাধ্যমে বিপুল সম্পদ অর্জন করেছেন আরজিনা।

দুদকে জমা অভিযোগের সূত্র ধরে খোঁজ নিয়ে জানা গেছে, রাজধানীর মিরপুরে প্রায় ২ হাজার বর্গফুটের একটি বিলাসবহুল ফ্ল্যাট রয়েছে তার। ১ কোটি ৩০ লাখ টাকায় কেনা ফ্ল্যাটটিতে পরিবার নিয়ে বসবাস করেন। কিন্তু রেজিস্ট্রেশনসহ দলিলে ফ্ল্যাটটির দাম দেখানো হয়েছে মাত্র ৬৮ লাখ। ফ্ল্যাটটি কেনার জন্য তিনি ২০২০ সালে ব্যাংক থেকে ঋণ নেন। কিন্তু অনুসন্ধানে দেখা গেছে, ঋণ নেওয়ার ১ বছর আগেই ফ্ল্যাট কিনে রেজিস্ট্রেশন সম্পন্ন করেন। তাও ঋণের টাকার দ্বিগুণ দামে। প্রায় ৫০ লাখ টাকা খরচ করে বাসায় বিলাসবহুল আসবাব ও অত্যাধুনিক ইন্টেরিয়র করেছেন। আরজিনার গ্রামের বাড়ি রাজবাড়ীর নারোয়া ইউনিয়নের তালুতপারা গ্রামে। কাস্টমসে চাকরির ৩ বছরের মধ্যে গ্রামের ছন আর টিনের বাড়িটিকে বদলে করেছেন আলিশান এক ভবন।

দুদকে জমা দেওয়া অভিযোগে বলা হয়েছে, চট্টগ্রামে বদলির পর ২০২২ সালেই গ্রামে তার পরিবারের সদস্যদের নামে কিনেছেন ৫টি জমি। যার বাজারমূল্য অর্ধকোটি টাকা। এছাড়াও গ্রামে আরও প্রায় এক কোটি টাকার জমি বন্ধক নিয়েছেন আরজিনা। সেসব জমির দলিলও এসেছে গণমাধ্যমের হাতে। তার ঘনিষ্ঠজনরা জানান, আরজিনার ব্যবহৃত বেশিরভাগ গহনাই অনেক দামি। তার অন্তত ১০ লাখ টাকা মূল্যমানের হীরার গহনা রয়েছে।

২০১৮ থেকে ২০২৩ সালের মধ্যে তিনি অন্তত ৫০০ ভরি স্বর্ণ আর ডায়মন্ডের অলংকার কিনেছেন নগদ টাকায়। যার ২০০ ভরি এক সিএন্ডএফ ব্যবসায়ীর মাধ্যমে ৩ ধাপে চোরাচালানের মাধ্যমে আনার তথ্য ও দালিলিক প্রমাণ দুদকে করা অভিযোগের সঙ্গে জমা দেওয়া হয়েছে। ২০২২ থেকে শেয়ার ব্যবসাও করেছেন তিনি। এক দিনে ১০ লাখ টাকা বিনিয়োগে দ্বিগুণ লাভের নজিরও আছে তার। তার তিনটি ব্যাংক অ্যাকাউন্টে বিপুল নগদ টাকা ও সঞ্চয়পত্রে বিনিয়োগও আছে।

অভিযোগ আছে-মতিউর রহমানের সঙ্গে নিবিড় সম্পর্কে জড়ানোর পর থেকে আলাদিনের চেরাগ হাতে পান আরজিনা। তরতর করে বাড়তে থাকে তার সম্পত্তি। মতিউরের সঙ্গে একই ব্রোকারেজ হাউজে শেয়ার ব্যবসায় বিনিয়োগ ছিল আরজিনার। অভিযোগ আছে, কারসাজি করে মতিউরই আরজিনাকে শেয়ার বাজারে মুনাফা তুলে দেন।

এদিকে, দুদকের আইনজীবী মাহমুদ হোসেন জাহাঙ্গীর বলেন, উপপরিচালক মো. আনোয়ার হোসেনের আবেদনের পরিপ্রেক্ষিতে মতিউরের বিপুল সম্পদ ক্রোকের আদেশ দিয়েছেন আদালত। এসব সম্পদের মধ্যে আছে, বরিশালে মুলাদী উপজেলায় মতিউরের নামে থাকা ১১৪ শতাংশ জমি, তার প্রথম স্ত্রী লায়লা কানিজের নামে থাকা নরসিংদী জেলার রায়পুরা উপজেলার মারজাল ইউনিয়নের ২৬টি সম্পত্তির ৫২২ দশমিক ৫২ শতাংশ জমি ও রাজধানীর বসুন্ধরায় ডি ব্লকের ২৪৪৫ বর্গফুটের ফ্ল্যাট।

মতিউরের ছেলে আহম্মেদ তৌফিকুর রহমান অর্ণবের নামে ১৯ দলিলে থাকা ২৭৫ দশমিক ৮৫ শতাংশ জমি। এছাড়া আছে নরসিংদীর রায়পুরায় মতিউর-লায়লা দম্পতির মেয়ে ফারজানা রহমান ইপ্সিতার ৫টি দলিলে ১০৬ দশমিক ৫৬ শতাংশ জমি ও ঢাকার বসুন্ধরায় ডি ব্লকের এক নাম্বার রোডে ৫ কাঠা জমির ওপর বহুতল ভবন। মতিউরের দ্বিতীয় স্ত্রী শাম্মী আখতার শিভলীর নামে থাকা ধানমন্ডির জিগাতলার একটি প্লট এবং বসুন্ধরার এন ব্লকে ৫ কাঠা জমি।

গত ২৪ জুন দুদকের আবেদনের পরিপ্রেক্ষিতে ঢাকার জ্যেষ্ঠ বিশেষ জজ মোহাম্মদ আসসামছ জগলুল হোসেন মতিউর রহমান, তার স্ত্রী লায়লা কানিজ ও তাদের পুত্র আহম্মেদ তৌফিকুর রহমান অর্ণবকে (ইফাত) বিদেশ গমনে নিষেধাজ্ঞা দেন। যদিও ৩০ জুন বিদেশযাত্রা প্রত্যাহার চেয়ে আদালতে আবেদন করেছেন লায়লা কানিজ। ২৮ জুলাই এ বিষয়ে আদালতে শুনানি হওয়ার জন্য দিন ধার্য রয়েছে। ঈদুল আজহার আগে ছাগলকাণ্ডে আলোচিত হলে জাতীয় রাজস্ব বোর্ডের সদস্য মো. মতিউর রহমান পরিবারের নানা অপকীর্তি ও বিপুল অবৈধ সম্পদের তথ্য সামনে আসতে থাকে।


আরও খবর
মেট্রোরেল চলাচল পুরোপুরি বন্ধ

বৃহস্পতিবার ১৮ জুলাই ২০২৪




ঈদ-গ্রীষ্মের ছুটি শেষে খুলল প্রাথমিক বিদ্যালয়

প্রকাশিত:বুধবার ০৩ জুলাই ২০২৪ | হালনাগাদ:বুধবার ০৩ জুলাই ২০২৪ | অনলাইন সংস্করণ
নিজস্ব প্রতিবেদক

Image

ঈদুল আজহা ও গ্রীষ্মকালীন ছুটি মিলিয়ে ২০ দিনের ছুটি কাটানোর পর আজ বুধবার (৩ জুলাই) খুলে দেওয়া হলো দেশের সব প্রাথমিক স্কুল। গত ১৩ জুন থেকে শুরু হয় ছুটি। শিক্ষাপঞ্জি হিসেবে মঙ্গলবার (২ জুলাই) পর্যন্ত বন্ধ ছিল এসব স্কুল।

প্রাথমিক ও গণশিক্ষা মন্ত্রণালয়ের তথ্য কর্মকর্তা মাহবুবুর রহমান তুহিন বলেন, ঈদ ও গ্রীষ্মকালীন ২০ দিনের ছুটি শেষে প্রাথমিক বিদ্যালয় খুলছে। বন্যা ও অতিবৃষ্টির কারণে স্কুলের ছুটি বাড়ানোর কোনো সিদ্ধান্ত নেই।

এর আগে, শিখন ঘাটতি পূরণে মাধ্যমিকে ঘোষিত ছুটি এক সপ্তাহ কমিয়ে গত ২৬ জুন থেকে খুলে দেওয়া হয় স্কুল-কলেজ। তবে প্রাথমিকে পূর্ব ঘোষিত ছুটি বহাল রাখা হয়। এদিকে মৌসুমি বায়ুর প্রভাবে সারাদেশে মুষলধারে বৃষ্টি হচ্ছে। বন্যার কবলে পড়েছে সিলেট। এ পরিস্থিতির মধ্যেই খুলছে প্রাথমিক স্কুল।

শিক্ষা মন্ত্রণালয় বছরের শুরুতে শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানের ছুটির তালিকা, বিভিন্ন পরীক্ষা ও মূল্যায়নের সূচি ঘোষণা করে। মাধ্যমিক ও উচ্চশিক্ষা বিভাগ থেকে স্কুল এবং কারিগরি ও মাদ্রাসা শিক্ষা বিভাগ থেকে মাদ্রাসা ও কারিগরি শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানের ছুটির তালিকা প্রকাশ করা হয়।

অন্যদিকে প্রাথমিক ও গণশিক্ষা মন্ত্রণালয় থেকে দেশের প্রাথমিক বিদ্যালয়গুলোর ছুটির তালিকা, বিভিন্ন পরীক্ষা ও মূল্যায়নের সূচি জানানো হয়।


আরও খবর
আরও ৩ দিনের এইচএসসি পরীক্ষা স্থগিত

বৃহস্পতিবার ১৮ জুলাই ২০২৪




হ্যাকারদের দখলে আবহাওয়া অফিসের ওয়েবসাইট

প্রকাশিত:মঙ্গলবার ০৯ জুলাই ২০২৪ | হালনাগাদ:মঙ্গলবার ০৯ জুলাই ২০২৪ | অনলাইন সংস্করণ
দর্পণ নিউজ ডেস্ক

Image

আবহাওয়া অধিদফতরের সরকারি ওয়েবসাইট হ্যাক হয়েছে বলে জানিয়েছেন সংস্থাটির উপ-পরিচালক শামীম হাসান ভূইয়া। মঙ্গলবার (৯ জুলাই) সকালে গণমাধ্যমকে তিনি এ কথা জানান।

শামীম হাসান ভূইয়া জানান, Bmd.gov.bd নামক সরকারি ওয়েবসাইটে আবহাওয়ার পূর্বাভাস প্রকাশ করা হয়। কিন্তু সোমবার (৮ জুলাই) রাত থেকে সেটির দখলে নিয়েছে ODIYAN911 নামের একটি হ্যাকার পেজ।

তিনি বলেন, রাতের কোনো এক সময়ে হ্যাকাররা ওয়েবসাইটটি হ্যাক করেছে। ফলে আবহাওয়ার বার্তা প্রদান সংক্রান্ত কার্যক্রম বাধাগ্রস্ত হচ্ছে।

তবে রাত থেকেই আইটি টিম কাজ করছে জানিয়ে শামীম হাসান ভূইয়া বলেন, যত দ্রুত সম্ভব ওয়েবসাইট উদ্ধার করার চেষ্টা চলছে।


আরও খবর
মেট্রোরেল চলাচল পুরোপুরি বন্ধ

বৃহস্পতিবার ১৮ জুলাই ২০২৪




সংসদ সদস্য হবার পেছনে নিরাপদ খাদ্যের বড় ভূমিকা আছে: ফেরদৌস

প্রকাশিত:রবিবার ৩০ জুন ২০২৪ | হালনাগাদ:রবিবার ৩০ জুন ২০২৪ | অনলাইন সংস্করণ
প্রেস বিজ্ঞপ্তি

Image

২০২৪-২৫ অর্থবছর মেয়াদে বাংলাদেশ নিরাপদ খাদ্য কর্তৃপক্ষের সাথে এক বছরের চুক্তি স্বাক্ষর শেষে ঢাকা-১০ আসনের সংসদ সদস্য ও চিত্রনায়ক ফেরদৌস আহমেদ বলেন, গত দশ পনেরো বছর ধরে আমি চেষ্টা করছি ভিন্ন কিছুর সাথে সম্পৃক্ত হতে। সেগুলোর মধ্যে অন্যতম হলো নিরাপদ খাদ্য কর্তৃপক্ষের সাথে সম্পৃক্ত হওয়া। আমার মনে হয়, সংসদ সদস্য হবার পেছনে নিরাপদ খাদ্যের একটা বড় ভূমিকা আছে।

বাংলাদেশ নিরাপদ খাদ্য কর্তৃপক্ষের (বিএফএসএ) কার্যক্রমকে সম্প্রসারণ ও জনসাধারণের কাছে ব্যাপকভাবে পৌঁছানোর লক্ষ্যে সংসদ সদস্য ও চিত্রনায়ক ফেরদৌস আহমদের সাথে এক বছরের জন্য চুক্তি স্বাক্ষর করে কর্তৃপক্ষ। চুক্তি স্বাক্ষর অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তব্যে ফেরদৌস বলেন, নিরাপদ খাদ্যের সাথে যখন সংযুক্ত হলাম, এরপর থেকে মাঠে-ঘাটে, জন-প্রান্তরে, মানুষের সাথে মেশার যে ব্যাপারটা ছিলো, সেটা কিন্তু এই জায়গা থেকেই শুরু হয়েছে।

কর্তৃপক্ষের সম্মেলন কক্ষে আয়োজিত এ অনুষ্ঠানে তিনি আরও বলেন, যারা ভেজাল দেয়, তারা একদিনে শুধরাবার না। এটা দীর্ঘদিনের অনুশীলনের বিষয়। তাই নিরাপদ খাদ্যের কাজটা আরো নিষ্ঠার সাথে সুন্দরভাবে করতে হবে। তিনি আরো সরবভাবে নিরাপদ খাদ্য আন্দোলনের সাথে সম্পৃক্ত হওয়ার আশাবাদ ব্যক্ত করে বলেন, শুধু ঢাকা কেন্দ্রিক জনসচেতনতামূলক কার্যক্রম পরিচালনা না করে অন্যান্য বিভাগে ও জেলাসমূহেও কার্যক্রম পরিচালনা করতে হবে।

বিকেল তিনটায় শুরু হওয়া এ অনুষ্ঠানে সভাপতি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন বিএফএসএ চেয়ারম্যান জাকারিয়া। তিনি সংসদ সদস্য ফেরদৌস আহমেদকে সাথে নিয়ে নিরাপদ খাদ্য কর্তৃপক্ষকে অনেক দূর এগিয়ে নিয়ে যাবার আশাবাদ ব্যক্ত করে বলেন, যেহেতু তিনি (ফেরদৌস) এখন নীতি নির্ধারণ প্রক্রিয়ার সাথে জড়িত আছেন, তাই আমরা চাইবো তিনি যেনো নিরাপদ খাদ্য কর্তৃপক্ষকে অনেকদূর এগিয়ে নিয়ে যান।

অনুষ্ঠানে স্বাগত বক্তব্য দেন নিরাপদ খাদ্য কর্তৃপক্ষের সদস্য আবু নূর মো. শামসুজ্জামান। তিনি বলেন, এ চুক্তির ফলে নিরাপদ খাদ্য কর্তৃপক্ষের ভাবমূর্তি দেশের জনসাধারণের কাছে আরো উজ্জ্বল হবে।

উল্লেখ্য যে, গত অর্থবছর অর্থাৎ ২০২৩-২৪ অর্থবছরে ফেরদৌস আহমেদ প্রথমবারের মতো বাংলাদেশ নিরাপদ খাদ্য কর্তৃপক্ষের শুভেচ্ছাদূত হিসেবে কাজ শুরু করেন। ২০২৪-২৫ অর্থবছরের জন্য পূনরায় তাঁকে শুভেচ্ছাদূত হিসেবে সম্পৃক্ত করা হয়। অনুষ্ঠান সঞ্চালনার দায়িত্বে ছিলেন কর্তৃপক্ষের পরিচালক মো. মিজানুর রহমান।


আরও খবর