আজঃ বৃহস্পতিবার ২৫ জুলাই ২০২৪
শিরোনাম

পাহাড়ি ঢল সাগরে নামতে যত বাধা

প্রকাশিত:বুধবার ২২ জুন 20২২ | হালনাগাদ:বুধবার ২২ জুন 20২২ | অনলাইন সংস্করণ
দর্পণ নিউজ ডেস্ক

Image

ভারত থেকে ৫৩টি নদীর মাধ্যমে বাংলাদেশের হাওর, খাল ও নদীতে পানি আসে। সে পানি যায় বঙ্গোপসাগরে। গবেষণায় দেখা গেছে, বঙ্গোপসাগরে যাওয়া পানির ৫৬ ভাগ ভারতের, ৪৪ ভাগ বাংলাদেশের। তবে বাংলাদেশ হয়ে এই পানি সাগরে যেতে পথে পথে পড়ে নানা বাধার মুখে। নদীর নাব্য সংকট, অপরিকল্পিত বাঁধ ও পূর্ব-পশ্চিমে আড়াআড়ি মহাসড়কই পানির প্রবাহে মূল বাধা হয়ে দাঁড়ায়। তখনই ভারত থেকে আসা অতিবৃষ্টির পানি বাংলাদেশের উত্তর, পশ্চিম ও পূর্ব এলাকায় আটকে বন্যা সৃষ্টি করে।

নদী বিষয়ক সংগঠন রিভারাইন পিপল বাংলাদেশের তথ্যানুযায়ী, বাংলাদেশের তিন পাশ দিয়ে ভারতের ৫৩টি নদী দিয়ে পানি ঢোকে। এরমধ্যে বড় নদীগুলো হলোগঙ্গা, ব্রহ্মপুত্র ও সুরমা-কুশিয়ারা-মেঘনা। মাঝারি নদীগুলোর মধ্যে আছে মহানন্দা, ধরলা, তিস্তা, দুধকুমার, ভোগাই, সোমেশ্বরী, যাদুকাটা, গোমতী, মনু, খোয়াই ও ফেনী। ছোট নদী আছে ৩৯টি। এছাড়াও ছোট ঝিরি ও ছরা দিয়েও পানি বাংলাদেশে আসে। কেবল একটি নদী দিয়ে বাংলাদেশ থেকে পানি যায় ভারতে। ওই নদীর নাম কুলিক। সেটি অবশ্য মৃতপ্রায়।

বন্যার পানি প্রবেশের রুট: ভারত থেকে আসা পাহাড়ি ঢল বাংলাদেশের ছোট বড় মিলিয়ে প্রায় তিন শতাধিক নদ-নদী দিয়ে সাগরে মেশে। এই পথগুলোই বাধাগ্রস্ত হয়েছে। ভারত থেকে আসা বন্যার পানি প্রধান তিনটি রুট দিয়ে বাংলাদেশে ঢোকে। এ বিষয়ে রিভারাইন পিপল-এর মহাসচিব শেখ রোকন  বলেন, এর একটি হলো গঙ্গা। যার পানি রাজশাহী দিয়ে বাংলাদেশে ঢোকে। দ্বিতীয়টি ব্রহ্মপুত্র। যার পানি কুড়িগ্রাম দিয়ে প্রবেশ করে। অপরটি হলো মেঘনা। হাওর অঞ্চল, সুরমা, কুশিয়ারা, সোমেশ্বরী, জাদুকাটাসহ ১৭টি নদী আছে, যেগুলোর পানি ভারত থেকে এসে হাওর অঞ্চল দিয়ে বাংলাদেশে ঢুকছে। এগুলো সব মেঘনার সঙ্গে মিলিত হয়।

দুই ধরনের বন্যা: একসময় বাংলাদেশে পাঁচ ধরনের বন্যায় সমতল ভূমি প্লাবিত হতো বলে গবেষকরা জানিয়েছেন। তবে এখন দুই ধরনের বন্যা বেশি পরিচিত। শেখ রোকন বলেন, একটি উপকূলীয় বন্যা। এটি দক্ষিণাঞ্চলে হয় ঘূর্ণিঝড় বা জলোচ্ছ্বাসের সময়। আরেকটি পাহাড়ি ঢল। পাহাড়ি এলাকার বৃষ্টি গড়িয়ে নিম্নভূমিতে চলে আসে। এটি আকস্মিক বন্যা। দূরে কোথাও বা প্রতিবেশী দেশে প্রচুর বৃষ্টি হলে সেই পানি নদীপথে নিচের দিকে আসতে থাকে। এতে বেশি ক্ষতি হয় বাংলাদেশের। সাধারণত এ ধরনের পাহাড়ি ঢল দেখা যায় মে মাসে। যা ইতোমধ্যে তিনবার হয়েছে। আরেকটি আছে মৌসুমি বন্যা। যখন মেঘগুলো হিমালয়ে ধাক্কা খায়, তখন প্রচুর বৃষ্টি হয়। সেই পানি গঙ্গা, ব্রহ্মপুত্র ও মেঘনা অববাহিকা দিয়ে বঙ্গোপসাগরে যায়। এই বন্যা তিন অববাহিকাতেই হয়। তিন অববাহিকায় যদি আলাদা আলাদা সময়ে হয় তখন বাংলাদেশের তেমন বিপদ হয় না। পানি নেমে যাওয়ার সময় পায়। কিন্তু একই সময় তিন অববাহিকায় বন্যা হলে দেশের উত্তর, পশ্চিম ও পূর্ব দিক প্লাবিত হয়। বেশি দিন পানি আটকে থাকে। এবারও তাই হচ্ছে।

শেখ রোকন বলেন, মেঘনায় যখন পানি আসে তখন যমুনার পানি নামতে পারে না। আবার একই সময় যদি গঙ্গা দিয়ে পানি আসে, তখন মেঘনা ও যমুনার পানি নামতে পারে না। এবার মেঘালয়, আসাম, অরুণাচল, সিকিম, ভুটান, নেপালে বৃষ্টি হয়েছে। তাই মেঘনা ও যমুনায় বন্যা দেখা দিয়েছে। এরপর বিহার ও পশ্চিমবঙ্গে বৃষ্টি হওয়ায় গঙ্গাতেও বন্যা হয়েছে। এতে বাংলাদেশ প্লাবিত হয়েছে।

বন্যা-চক্র: শেখ রোকন জানালেন, বন্যা একটি চক্র মেনে চলে। পাঁচ থেকে সাত বছর পর পর বড় বন্যা হয়। ২০১৭, ২০১৪, ২০০৭-০৮, ২০০৪, ১৯৯৮, ১৯৯৪ এবং ১৯৮৮ সালে ভয়াবহ বন্যা হয়েছে। এই সাইকেলটা মেনে এবারও বন্যা হয়েছে।

পানি কেন সাগরে যেতে পারছে না: বাংলাদেশের মোট আয়তনের প্রায় ৮০ ভাগ ভূমিই নদ-নদী অববাহিকায় পড়ে। ছোট বড় মিলিয়ে নদ-নদী আছে তিন শতাধিক। এগুলোর কোথাও না কোথাও সারা বছর ভাঙন লেগেই থাকে। বর্ষায় ভারত থেকে আসা ঢলে এ ভাঙন আরও তীব্র হয়। যে পরিমাণ পানি আসে তা বাংলাদেশের বড় নদীগুলো ধারণ করতে পারে না।

বন্যা বড় হওয়ার বিষয়ে শেখ রোকন বলেন, ভারতের মেঘালয় ও আসামে অনেক উন্নয়ন কর্মকাণ্ড চলছে। তারা হাইওয়ে করছে। বন উজাড় করছে। বিভিন্ন খনিতে কাজ চলছে। পাহাড়ে যখন গাছপালা থাকে তখন পলিমাটি ধুয়ে নদীতে আসে না। কিন্তু যখন গাছ না থাকে তখন সব ধুয়ে নদীতে যায়। এতে বাংলাদেশের নদীর গভীরতা কমছে ও পানি সমতলে চলে আসছে। সুরমা নদীর তলদেশে বর্জ্য ও পলিথিনের স্তর পেয়েছি আমরা। এ কারণেও নদী পানি ধরে রাখতে পারছে না। এছাড়া যেসব ছরা দিয়ে হাওরে পানি যেত সেগুলোও দখল হয়েছে, সংকুচিত হয়েছে। পানি প্রতিবন্ধকতার আরও কিছু বড় কারণ আছে, যেমননাব্য সংকট, প্লাবন ভূমিতে বাঁধ, সড়ক ও স্থাপনা। এসব জায়গা আগে পানি ধারণ করতো। কিন্তু সেগুলো বন্ধ হয়েছে। জনবসতি হয়েছে। পানি যাওয়ার জায়গা পাচ্ছে না। আমাদের মহাসড়কগুলো পূর্ব-পশ্চিম দিকে আড়াআড়ি করে নির্মাণ করা হয়েছে। এগুলো হওয়া উচিত ছিল উত্তর-দক্ষিণে। পূর্ব-পশ্চিমে মহাসড়ক হওয়ায় পানি সহজে নামতে পারে না।

বালু উত্তোলন: শেখ রোকন বলেন, দেশের সবকটি নদী দিয়ে বালু উত্তোলন করা হয়। নির্বিচারে বালু উত্তোলন করায় নদীর গতিবেগ নষ্ট হয়। ভাটিতে গিয়ে নদীর কোথাও চর পড়ে। এতে পানি প্রবাহও ঠিক থাকে না। এ ছাড়া উজান থেকে প্রবাহ স্বল্পতার কারণেও নদী ভাঙছে। প্রবাহ কমায় উজান থেকে আসা মাটি ও বালু মাঝপথে আটকে যাচ্ছে। তখন তীরে পানির চাপ বাড়ে, বন্যা হয়।

পাহাড়ি ঢল দ্রুত সাগরে নামাতে হলে: হাওর মাস্টারপ্ল্যানে বলা হয়েছে, বাংলাদেশের বুক চিরে যাওয়া নদীগুলো দিয়ে ১ লাখ ৫৯ হাজার কিউসেক (এক কিউসেক মানে প্রতি সেকেন্ডে এক ঘনমিটার পানির প্রবাহ) সাগরে যায়। মোট যত পানি সাগরে নামে তার ৫৬ ভাগ ভারত থেকে আসে। ৪৪ ভাগ বাংলাদেশের অভ্যন্তরীণ বৃষ্টিপাতের। আর তাই পাহাড়ি ঢল দ্রুত সাগরে নামাতে হলে বাংলাদেশের নদীর প্রবাহ ঠিক রাখতে হবে বলে জানান শেখ রোকন। এছাড়া, প্লাবন ভূমিতে উন্নয়ন কাজ না করা, হাওর অঞ্চলের নদীগুলোর নাব্য ফিরিয়ে আনা এবং নির্বিচারে বালু উত্তোলন বন্ধের পরামর্শও দিয়েছেন তিনি।


আরও খবর



মার্টিনেজের নৈপুণ্যে পেরুকে হারিয়ে গ্রুপ চ্যাম্পিয়ন আর্জেন্টিনা

প্রকাশিত:রবিবার ৩০ জুন ২০২৪ | হালনাগাদ:রবিবার ৩০ জুন ২০২৪ | অনলাইন সংস্করণ
ক্রীড়া প্রতিবেদক

Image

গ্রুপ পর্বের প্রথম দুই ম্যাচ জিতে আগেই কোপা আমেরিকার কোয়ার্টার ফাইনাল নিশ্চিত করে রেখেছিল আর্জেন্টিনা। গুরুত্বের বিবেচনায় পেরুর বিপক্ষে ম্যাচটা ছিল অনেকটা নিয়মরক্ষার। সে কারণেই কিনা আগের ম্যাচের একাদশ থেকে ৯ জনকে পরিবর্তন করে পেরুর বিপক্ষে খেলতে নামে আলবিসেলেস্তেরা। লিওনেল মেসিও ছিলেন বিশ্রামে। নিষেধাজ্ঞা পাওয়ার কারণে ডাগআউটে ছিলেন না কোচ লিওনেল স্কালোনিও। যদিও জয় পেতে বেগ পেতে হয়নি আলবিসেলেস্তেদের।

আজ মায়ামির হার্ডরক স্টেডিয়ামে পেরুর বিপক্ষে ২-০ গোলে জয় পেয়েছে বর্তমান চ্যাম্পিয়ন আর্জেন্টিনা। ম্যাচের দ্বিতীয়ার্ধে আর্জেন্টিনার পক্ষে জোড়া গোল করেন লাউতারো মার্টিনেজ। ম্যাচে ৭৪ শতাংশ সময় বলের নিয়ন্ত্রণ ছিল আর্জেন্টিনার। ১২টি শটের মধ্যে ৬টি লক্ষ্যে রাখতে সক্ষম হয়। অপরদিকে, পেরু ৬টি শটের মধ্যে লক্ষ্যে রাখে একটি।

শুরুতেই বল দখলে এগিয়ে থেকে পেরুর ওপর চাপ বাড়াতে থাকে আর্জেন্টিনা। ম্যাচের ২১ মিনিটে প্রথম সুযোগ পায় পেরু। কার্লোস জামব্রানোর হেড বাইরে দিয়ে চলে যায়। ২৭ মিনিটে দারুণ এক সুযোগ পায় আর্জেন্টিনা। পারেদেসের দূরপাল্লার ফ্রি-কিক দারুণভাবে তালুবন্দি করেন পেরু গোলরক্ষক গালেসে। বিরতির ঠিক আগে আবারও পেরুকে বাঁচিয়ে দেন গালেস। লা সেলসোর শট দারুণভাবে বাঁচিয়ে দেন তিনি। গোলশূন্যভাবেই শেষ হয় প্রথমার্ধ।

বিরতি থেকে ফিরে আক্রমণের ধার বাড়ায় আর্জেন্টিনা। যার সুফল আসে মিনিট দুয়েকের মধ্যেই। ডি মারিয়ার থেকে বল পেয়ে জালে জড়াতে ভুল করেননি লাউতারো মার্টিনেজ। এ নিয়ে তিন ম্যাচেই গোলের দেখা পেলেন বিশ্বজয়ী তারকা। ৮৬ মিনিটে আরও একটা গোল করে ব্যবধান দ্বিগুণ করেন মার্টিনেজ। শেষ পর্যন্ত ২-০ গোলের জয় নিয়ে গ্রুপের শীর্ষে থেকেই মাঠ ছাড়ে আর্জেন্টিনা।

গ্রুপ চ্যাম্পিয়ন আর্জেন্টিনার পয়েন্ট ৯। আরেক ম্যাচে কানাডার সাথে গোলশূন্য ড্র করে আসর থেকে বিদায় নিয়েছে চিলি। ৩ ম্যাচে ২ পয়েন্ট তাদের, ১ পয়েন্ট পাওয়া পেরুরও আসর শেষ। ৪ পয়েন্ট তোলা কানাডা কোয়ার্টারে খেলবে।


আরও খবর
প্যারিস অলিম্পিকে নতুন যা থাকছে

বৃহস্পতিবার ২৫ জুলাই ২০২৪




ভাঙনরোধে কাজ করছে সরকার : এনামুল হক শামীম

প্রকাশিত:বুধবার ০৩ জুলাই ২০২৪ | হালনাগাদ:বুধবার ০৩ জুলাই ২০২৪ | অনলাইন সংস্করণ
শরীয়তপুর প্রতিনিধি

Image

সাবেক পানিসম্পদ উপমন্ত্রী একেএম এনামুল হক শামীম এমপি বলেছেন, আগামী বর্ষাকে সামনে রেখে সারাদেশে নদীভাঙন রোধে কাজ করছে সরকার। কোথাও যেন ভাঙন না হয়, সে লক্ষ্যে আগে থেকেই কাজ করা হচ্ছে। ঝুঁকিপূর্ণ এলাকা চিহ্নিত করে দ্রুততম সময়ের মধ্যে স্থায়ী প্রকল্প নেওয়া হচ্ছে। কয়েক বছরের মধ্যে বাংলাদেশের মানুষ অনেকাংশে জলাবদ্ধতা ও নদীভাঙন থেকে রক্ষা পাবে।

বুধবার (৩ জুলাই) সকালে শরীয়তপুরের নড়িয়ায় পদ্মা নদীর ডানতীর রক্ষা প্রকল্প পরিদর্শন ও বিভিন্ন স্থানে জিও ব্যাগ ডাম্পিং শেষে সাংবাদিকদের সাথে আলাপকালে এসব কথা বলেন তিনি।

এনামুল হক শামীম আরও বলেন, দেশকে পিছিয়ে নেওয়ার জন্য বিএনপি-জামায়াত এখনো নানা অপপ্রচার চালাচ্ছে। এরা গুজব ছড়িয়ে বাংলাদেশের মানুষকে বিভ্রান্ত করতে চায়। তারা জানে দেশের মানুষের ভোটের মধ্য দিয়ে তারা কখনোই ক্ষমতায় আসতে পারবে না। এ কারণে তারা ভোটের রাজনীতি ছেড়ে সরকারের বিরুদ্ধে, আওয়ামী লীগের বিরুদ্ধে ও বঙ্গবন্ধু কন্যা শেখ হাসিনার বিরুদ্ধে ষড়যন্ত্রে লিপ্ত হয়েছে। তাই এই ষড়যন্ত্রের বিরুদ্ধে সবাইকে ঐক্যবদ্ধ কাজ করতে হবে।

আওয়ামী লীগের সাবেক এই সাংগঠনিক সম্পাদক বলেন, জননেত্রী শেখ হাসিনার যে দুর্নীতিবিরোধী জিরো টলারেন্স নীতি তা বাস্তবায়ন করতে হবে। সমাজের সর্বস্তরের মানুষ এগিয়ে এলে দুর্নীতিকে প্রতিরোধ করা সম্ভব হবে।

এসময় তাঁর সঙ্গে ছিলেন, শরীয়তপুর পানি উন্নয়ন বোর্ডের নির্বাহী প্রকৌশলী এসএম আহসান হাবীব, নড়িয়া উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি বীর মুক্তিযোদ্ধা ফজলুল হক মাল, সাধারণ সম্পাদক হাসানুজ্জামান খোকন, সখিপুর থানা আওয়ামী লীগের সভাপতি হুমায়ুন কবির মোল্যা, সাধারণ সম্পাদক আতিকুর রহমান মানিক সরকার প্রমূখ। পরে বিকালে তিনি সখিপুর হাজী শরীয়তউল্যাহ কলেজ ও সিরাজ সিকদার কলেজে বৃক্ষরোপন কর্মসূচিতে অংশগ্রহণ করেন।


আরও খবর



লক্ষ্মীপুর-ঢাকা মহাসড়কে কোটা আন্দোলনকারীদের অবরোধ

প্রকাশিত:বৃহস্পতিবার ১৮ জুলাই ২০২৪ | হালনাগাদ:বৃহস্পতিবার ১৮ জুলাই ২০২৪ | অনলাইন সংস্করণ
লক্ষ্মীপুর প্রতিনিধি

Image

কোটা আন্দোলনের কেন্দ্রীয় কর্মসূচি শাটডাউনের অংশ হিসেবে লক্ষ্মীপুর-ঢাকা আঞ্চলিক মহাসড়ক অবরোধ করে বিক্ষোভ করছে সাধারণ শিক্ষার্থীরা। এসময় কোটা প্রথা বিলুপ্তের দাবিতে বিভিন্ন ধরণের স্লোগান দেয় তারা। 

বৃহস্পতিবার (১৮ জুলাই) সকালে তারা লক্ষ্মীপুর কেন্দ্রীয় শহীদ মিনারে অবস্থান নেয়। পরে তারা বিক্ষোভ মিছিল বের করে ঝুমুর এলাকায় জেলা প্রশাসক কার্যালয়ের সামনে অবস্থান নেয়। এতে নোয়াখালী-কুমিল্লা-চট্টগ্রাম ও ঢাকাবাহী যানবাহন চলাচল বন্ধ রয়েছে। দুপুর ১২ টার দিকে উত্তেজিত শিক্ষার্থীরা একটি ওষুধ সরবরাহকারী গাড়ি ভাঙচুরের চেষ্টা করে।

এদিকে আন্দোলনরত স্থানে পুলিশের দেখা মেলেনি। তবে ঘটনাস্থলের অদূরে জেলা পুলিশ সুপার কার্যালয় এলাকায় আইনশৃঙ্খলাবাহিনীকে অবস্থান নিতে দেখা গেছে।

সদর মডেল থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) ইয়াছিন ফারুক মজুমদার বলেন, শিক্ষার্থীরা আন্দোলন শেষে চলে গেছে। এসময় কোন অপ্রীতিকর ঘটনা ঘটেনি।


আরও খবর



এমপি আনার হত্যা: জবানবন্দিতে যে নতুন তথ্য দিলো দুই আসামি

প্রকাশিত:বৃহস্পতিবার ০৪ জুলাই ২০২৪ | হালনাগাদ:বৃহস্পতিবার ০৪ জুলাই ২০২৪ | অনলাইন সংস্করণ
নিজস্ব প্রতিবেদক

Image

ডিএমপির অতিরিক্ত পুলিশ কমিশনার (ডিবি) মোহাম্মদ হারুন অর রশীদ জানিয়েছেন, এমপি আনোয়ারুল আজীম আনার হত্যায় ১৬৪ ধারায় জবানবন্দিতে হত্যাকাণ্ডের নতুন তথ্য দিয়েছেন আসামি ফয়সাল ও মুস্তাফিজ। বৃহস্পতিবার (৪ জুলাই) গণমাধ্যমকে তিনি এই তথ্য জানান।

মোহাম্মদ হারুন অর রশীদ বলেন, চট্টগ্রামের ফটিকছুড়ি থেকে আসামি ফয়সাল ও মুস্তাফিজকে যখন গ্রেপ্তার করা হয় তখনই তারা আমাদের হত্যাকাণ্ডের বিষয়টি অকপটে স্বীকার করেছিলেন। এরপরও আরও বিস্তারিত জানতে আমরা আদালতে রিমান্ড আবেদন করি। আসামিরা আমাদের জানায়, আক্তারুজ্জামান শাহিন ফয়সাল ও মুস্তাফিজের পাসপোর্ট ও ভিসার ব্যবস্থা করে দিয়েছিলেন।

তিনি আরও বলেন, যতদিন তাদের পাসপোর্ট হয়নি ততদিন তারা শাহিনের বাসায় ছিলেন। সেখানে থেকেই শাহিনের পিএস এর মাধ্যমে ভুয়া কাগজপত্র তৈরি করে। এরপর তাদেরকে ২০ হাজার টাকা করে দিয়েছিলেন শাহিন। যেনো ফয়সাল ও মুস্তাফিজ রেলযোগে ভারত চলে যান। পরে প্রথমে সেখানে গিয়ে তারা হোটেলে ছিল। পরে সঞ্জীভা গার্ডেনে উঠেন।

ডিবিপ্রধান বলেন, এমপি আনার গোপালের বাসার থেকে বের হবার পর ফয়সাল লাল গাড়িতে করে তাকে নিয়ে এসে শিমুল ভূঁইয়ার কাছে পৌঁছে দেয়। পরে শাহিনের পিএস পিন্টুর মাধ্যমে ক্লু ফোন পায়। পরে সিয়ামের মাধ্যমে বাসায় নিয়ে যায়। এরপর চেয়ার-চাপাতিও ফয়সাল ও মুস্তাফিজ সেই বাসায় নিয়ে যায়।

মোহাম্মদ হারুন অর রশীদ বলেন, হত্যাকাণ্ড সংগঠিত হওয়ার পর সবাই ওই বাসার থেকে বরে হওয়ার পর ফয়সাল ও মুস্তাফিজ সেই বাসায় থেকে যায়। তখন শাহিনে তাদেরকে বুঝায় যে বাসাটি যেনো ভালোভাবে পরিষ্কার করা হয়। কোথাও যেনো রক্তের দাগ লেগে না থাকে। তাহলে সিআইডি এলে বুঝে যাবে। এবং তাদেরকে গ্রেপ্তার করা হবে। এরপর যেনো তারা বাংলাদেশে ফিরে।

তিনি আরও বলেন, ফয়সাল ও মুস্তাফিজের বাংলাদেশে ফেরার টিকিটও শাহিন করে দিয়েছিলেন। তারা দেশে ফিরে শাহিনের বাসায় উঠে। এরপর ১৯ তারিখ শিমুল ভূঁইয়া গ্রেপ্তার হওয়ার পর তারা লাগেজ ফেলে শাহিনের সিকিউরিটি গার্ডের কাছে রাখা ৩০ হাজার টাকা নিয়ে বিভিন্ন স্থানে পালিয়ে বেড়িয়েছে।


আরও খবর
ট্রেন চলাচলের সিদ্ধান্ত এখনও হয়নি

বৃহস্পতিবার ২৫ জুলাই ২০২৪




টেন মিনিট স্কুলে ৫ কোটি টাকার বিনিয়োগ প্রস্তাব বাতিল

প্রকাশিত:মঙ্গলবার ১৬ জুলাই ২০২৪ | হালনাগাদ:মঙ্গলবার ১৬ জুলাই ২০২৪ | অনলাইন সংস্করণ
নিজস্ব প্রতিবেদক

Image

বাংলাদেশের সবচেয়ে বড় অনলাইন শিক্ষাদান প্রতিষ্ঠান টেন মিনিট স্কুলে বড় অংকের বিনিয়োগ প্রস্তাব বাতিল করেছে সরকারি প্রতিষ্ঠান স্টার্টআপ বাংলাদেশ।

মঙ্গলবার সকালে স্টার্টআপ বাংলাদেশের ভেরিফায়েড ফেসবুকে এমনই একটি পোস্ট শেয়ার করা হয়। সেখানে লেখা হয়েছে, টেন মিনিট স্কুল- এর জন্য ৫ কোটি টাকার বিনিয়োগ প্রস্তাব স্টার্টআপ বাংলাদেশের পক্ষ থেকে বাতিল করা হলো।

এদিকে ডাক, টেলিযোগাযোগ ও তথ্যপ্রযুক্তি প্রতিমন্ত্রী জুনাইদ আহমেদ পলকও তার ফেসবুকে এমনই একটি পোস্ট শেয়ার করেছেন।

তিনি লিখেছেন, টেন মিনিট স্কুল- এর জন্য ৫ কোটি টাকার বিনিয়োগ প্রস্তাব স্টার্টআপ বাংলাদেশের পক্ষ থেকে বাতিল করা হলো।

তবে কী কারণে বিনিয়োগ বাতিল করা হয়েছে- সেটা জানতে চাইলে গণমাধ্যমকে প্রতিমন্ত্রী বলেন, বিনিয়োগ বাতিলের কারণ প্রকাশ্যে জানানো চুক্তির বরখেলাপ।

এর আগে গত ১৪ জুলাই রাজধানীর আগারগাঁওয়ের আইসিটি টাওয়ারে বাংলাদেশ কম্পিউটার কাউন্সিল অডিটোরিয়ামে এ বিষয়ে এক সংবাদ সম্মেলন অনুষ্ঠিত হয়। এতে প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত থেকে প্রতিমন্ত্রী জুনাইদ আহমেদ পলক বাংলাদেশ স্টার্টআপ সামিট ২০২৪ এর উদ্বোধন ঘোষণা করেন।

প্রসঙ্গত, কোটা সংস্কারের দাবি নিয়ে টেন মিনিট স্কুলের প্রতিষ্ঠাতা ও ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের সাবেক শিক্ষার্থী আয়মান সাদিক বেশ সরব রয়েছেন। তিনি বলেছেন, কোটা আন্দোলন ২০১৮ সালে শুরু হয়েছিল। তখনও আমি প্রোপারলি এ আন্দোলনকে সমর্থন জানিয়েছি। মেধা হবে বাংলাদেশের সবচেয়ে বড় কোটা। এটাতে কোনো ডাউট থাকা উচিত না।

এমনকি তার নিজের ফেসবুক পেজের কভার ফটোতেও লেখা রয়েছে কোটা সংস্কার চাই, মেধা হোক সবচেয়ে বড় কোটা


আরও খবর
ট্রেন চলাচলের সিদ্ধান্ত এখনও হয়নি

বৃহস্পতিবার ২৫ জুলাই ২০২৪