আজঃ বুধবার ২৪ জুলাই 20২৪
শিরোনাম

অস্ট্রেলিয়ার কাছে হেরে সুপার এইট শুরু বাংলাদেশের

প্রকাশিত:শুক্রবার ২১ জুন ২০২৪ | হালনাগাদ:শুক্রবার ২১ জুন ২০২৪ | অনলাইন সংস্করণ
ক্রীড়া প্রতিবেদক

Image

১৪০ রানের মামুলি পুঁজি দাঁড় করানোর পর দ্রুতই উইকেটের দরকার ছিল বাংলাদেশের। তবে সেটি পারেননি টাইগার বোলাররা। ওপেনিংয়ে হেড ও ওয়ার্নারের ৬৫ রানের অবিচ্ছিন্ন জুটিতে ম্যাচ থেকেই ছিটকে যায় বাংলাদেশ। অস্ট্রেলিয়ার ইনিংসের ১১ দশমিক ২ ওভারের পর অ্যান্টিগায় বৃষ্টিতে আর খেলা হয়নি। ১১ দশমিক ২ ওভার পর ডিএলএস পদ্ধতিতে ২৮ রানে এগিয়ে ছিল অজিরা। শেষ পর্যন্ত ফলে সে ব্যবধানেই অজিদের কাছে হেরেছে বাংলাদেশ।

শুক্রবার (২১ জুন) স্যার ভিভিয়ান রিচার্ড স্টেডিয়ামে টস হেরে ব্যাটিংয়ে নেমে নাজমুল হাসান শান্তর ৩৬ বলে ৪১ রান এবং হৃদয়ের ২৮ বলে ৪০ রানের ইনিংসে ভর করে ১৪০ রানের পুঁজি দাঁড় করায় বাংলাদেশ। জবাবে ঝোড়ো ব্যাটিংয়ে ১১ দশমিক ২ ওভারে ২ উইকেট হারিয়ে ১০০ রান তোলে অজিরা। এরপর খেলা শুরু না হওয়ায় বৃষ্টি-আইনে ২৮ রানে জিতেছে মিচেল মার্শের দল।

তাওহীদ হৃদয়ের ক্যাচ মিসের সুবাদে উড়ন্ত সূচনা পায় অস্ট্রেলিয়া। তানজিমকে কাট করতে গিয়ে পয়েন্টে ক্যাচ তুলেছিলেন ওয়ার্নার। তবে ক্যারি করা সেই ক্যাচ লুফে নিতে পারেননি হৃদয়। এতে ৫ রানে জীবন পান এই ওপেনার।

জীবন পেয়েই আগ্রাসী হয়ে উঠেন ওয়ার্নার। ঝোড়ো ব্যাটিংয়ে পাওয়ার প্লেতে কোনো উইকেট না হারিয়ে ৫৯ রান তুলে নেন হেড-ওয়ার্নার জুটি।

এরপর উইকেটের খোঁজে রিশাদকে আক্রমণে এনেছিলেন শান্ত। তবে বেরসিক বৃষ্টিতে বন্ধ হয়ে যায় খেলা। প্রায় ৩০ মিনিট পর ফের খেলা শুরু হয়। এই ওভারের পঞ্চম বলে রিশাদের হাত ধরে প্রথম উইকেটের দেখা পায় বাংলাদেশ। ট্রাভিস হেডের বিদায়ে ভাঙে তাদের ৬৫ রানের জুটি।

হেডের পর অজি অধিনায়কের উইকেটও নিজের ঝুলিতে পুরেন রিশাদ। সুইপের চেষ্টা করে এলবিডব্লুর ফাঁদে পড়েন মার্শ। রিভিউ নিলেও তা কাজে আসেনি। আম্পায়ার্স কলে প্যাভিলিয়নে পথ ধরেন তিনি। এতে ৪ রানের মধ্যে ২ উইকেট হারায় অজিরা। এরপর বিশ্বমঞ্চে নিজের অষ্টম ফিফটি তুলে নেন ওয়ার্নার। ৩৪ বলে এই মাইলফলকে পৌঁছান অজি ওপেনার।

অজিদের দলীয় ১০০-এর পরই ফের হানা দেয় বৃষ্টি। ১১ দশমিক ২ ওভার শেষে ডিএলএস পদ্ধতিতে ২৮ রানে এগিয়ে ছিল অস্ট্রেলিয়া। পরে বৃষ্টিতে আর খেলা না হওয়ায় ডাকওয়ার্থ লুইস পদ্ধতিতে সে ব্যবধানে জয় নিয়ে মাঠ ছাড়ে অজিরা।

এর আগে, টস হেরে ব্যাটিংয়ে নেমে শুরুটা ভালো হয়নি লাল-সবুজ শিবিরের। রানের খাতা খোলার আগেই প্যাভিলিয়নে ফেরেন ওপেনার তানজিদ। মিচেল স্টার্কের প্রথম দুটি বল লো ফুলটস ছিল, তৃতীয়টি ফুললেংথে। তাতে ব্যাট নামিয়েও আটকাতে পারেননি তরুণ এই ওপেনার। ব্যাটের নিচের অংশে লেগে সরাসরি স্ট্যাম্পে ঢুকে বল।

দ্বিতীয় উইকেটে লিটনকে নিয়ে ৫৮ রানের জুটি গড়েন শান্ত। তবে দশম বলে রানের দেখা পাওয়া লিটনও বেশিক্ষণ টেকেননি। ২৫ বলে মাত্র ১৬ রান করে ফেরেন তিনি। জাম্পার ওপর চড়াও হতে গিয়ে স্লগ সুইপের চেষ্টা করেছিলেন। মিস হয়ে বলটি ঢুকে স্ট্যাম্পে।

সারপ্রাইজ প্যাকেজ হিসেবে চারে ব্যাট করতে রিশাদ হোসেনকে পাঠানো হয়েছিল। তিনিও সুবিধা করতে পারেননি। ম্যাক্সওয়েলকে জোরের ওপর খেলতে গিয়ে ক্যাচ দিয়ে থাকেন তিনি।

এরপর ৫ চার ও এক ছক্কায় ৩৬ বলে ৪১ রান করে শান্ত বিদায় নিলে চাপে পড়ে বাংলাদেশ। জাম্পাকে সুইপ করতে গিয়ে ব্যাটে-বলে হয়নি শান্তর। আবেদনে সাড়া দেন রিচার্ড ইলিংওর্থ। তবে আম্পায়ারের সিদ্ধান্ত রিভিউ করার প্রয়োজন বোধ করেননি বাংলাদেশের অধিনায়ক।

এরপর ১০ বল মোকাবিলা করেও দুই অঙ্কের কোটা পেরোতে পারেননি সাকিব। এদিন মাত্র ৩ বল থিতু হতে পেরেছিলেন মাহমুদউল্লাহ রিয়াদ। চলতি টুর্নামেন্টে প্রথমবার সুযোগ পেয়ে গোল্ডেন ডাক উপহার দেন মেহেদী হাসান।

শেষ ওভারে সতীর্থদের আসা-যাওয়ার মিছিলে রানের চাকা সচল রাখা হৃদয়কে ফিরিয়ে হ্যাটট্রিক পূর্ণ করেন কামিন্স। হৃদয়ের দুটি করে চার-ছক্কায় ২৮ বলে ৪০ রানে ভর করে টেনেটুনে সম্মানজনক পুঁজি পায় টাইগাররা।


আরও খবর



স্মারকলিপি দিতে বঙ্গভবনে শিক্ষার্থীদের প্রতিনিধি দল

প্রকাশিত:রবিবার ১৪ জুলাই ২০২৪ | হালনাগাদ:রবিবার ১৪ জুলাই ২০২৪ | অনলাইন সংস্করণ
নিজস্ব প্রতিবেদক

Image

সরকারি চাকরিতে কোটার যৌক্তিক সংস্কারের এক দফা দাবিতে বৈষম্যবিরোধী ছাত্র আন্দোলনের সমন্বয়ক প্যানেলের ১২ সদস্য বিশিষ্ট প্রতিনিধি দল বঙ্গভবনে রাষ্ট্রপতির কাছে স্মারকলিপি প্রদান করতে গেছেন।

রোববার (১৪ জুলাই) আন্দোলন চলাকালে বেলা সোয়া ২টার দিকে পুলিশের সহায়তায় তারা বঙ্গভবনে যান।

প্রতিনিধি দলে রয়েছেন- সারজিস আলম, নাহিদ ইসলাম, আসিফ মাহমুদ, হাসিব আল ইসলাম, রিফাত রশিদ, সুমাইয়া আক্তার, আব্দুল কাদের, নিদ্রা, আশিক, মাহিন, মাসুদ ও সিফাত।

অন্যদিকে, পুলিশের বাধার মুখে গুলিস্তানের পাতাল মার্কেট সংলগ্ন বঙ্গবন্ধু চত্বরে অবস্থান করছেন আন্দোলনকারীরা।

এর আগে, পর্যায়ক্রমে সচিবালয় ও গুলিস্তান জিরো পয়েন্টে দেওয়া পুলিশের ব্যারিকেড ভেঙে সামনে অগ্রসর হন আন্দোলনকারীরা।

এর আগে, গত ১১ জুলাই শাহবাগ মোড়ে পুলিশের সঙ্গে আন্দোলকারীদের ধাক্কাধাক্কির ঘটনা ঘটে। এমনকি ব্যারিকেড ভেঙে খানেকটা সামনে অগ্রসর হয় এবং জলকামানের ওপর উঠে উল্লাসও করেন অনেক আন্দোলনকারী। এ ঘটনায় শিক্ষার্থীদের বিরুদ্ধে রাজধানীর শাহবাগ থানায় মামলা হয়। মামলাটি প্রত্যাহার ও নিজেদের এক দফা দাবি নিয়ে গতকাল বঙ্গভবন অভিমুখে গণপদযাত্রা ও রাষ্ট্রপতি বরাবর স্মারকলিপি প্রদানের কর্মসূচি হাতে নেয় প্ল্যাটফর্মটি। এ ছাড়া তাদের বিরুদ্ধে করা এই মামলাকে মিথ্যা অভিহিত করে তা প্রত্যাহারের জন্য ২৪ ঘণ্টার আলটিমেটামও দেয় এ প্ল্যাটফর্মটি।

গতকাল সাড়ে ৬টার দিকে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের কেন্দ্রীয় লাইব্রেরির সামনে আয়োজিত এক সংবাদ সম্মেলনে কর্মসূচি ঘোষণা করে বৈষম্যবিরোধী ছাত্র আন্দোলনের অন্যতম সমন্বয়ক হাসনাত আব্দুল্লাহ বলেন, কোটাবৈষম্য নিরসন করে সংসদে আইন পাসের লক্ষ্যে জরুরি অধিবেশন আহ্বান ও ২৪ ঘন্টার মধ্যে মিথ্যা মামলা প্রত্যাহারের দাবিতে রোববার (আজ) সকাল ১১টায় বঙ্গভবন অভিমুখে গণপদযাত্রা ও মহামান্য রাষ্ট্রপতি বরাবর স্মারকলিপি প্রদান করা হবে।


আরও খবর
আরও ৩ দিনের এইচএসসি পরীক্ষা স্থগিত

বৃহস্পতিবার ১৮ জুলাই ২০২৪




মোংলায় নৌকা ডুবে নিখোঁজ জেলের লাশ উদ্ধার

প্রকাশিত:শুক্রবার ২৮ জুন ২০২৪ | হালনাগাদ:শুক্রবার ২৮ জুন ২০২৪ | অনলাইন সংস্করণ
বাগেরহাট প্রতিনিধি

Image

মোংলা-ঘাষিয়াখালী আন্তর্জাতিক নৌ চ্যানেলের জয়খাঁ এলাকায় লাইটার জাহাজের ধাক্কায় মাছ ধরার নৌকা ডুবে নিখোঁজ জেলে মহিদুল শেখের (২৫) লাশ নদী থেকে উদ্ধার করেছে নৌ পুলিশ। মৃত জেলে মহিদুল শেখ মোংলা উপজেলার সোনাইলতলা ইউনিয়নের উলুবুনিয়া গ্রামের রশিদ শেখের ছেলে।

শুক্রবার (২৮ জুন) সকাল আনুমানিক ১০টার দিকে মোংলা-ঘাষিয়াখালী আন্তর্জাতিক নৌ চ্যানেলের মাদ্রাসা রোডের পশ্চিম পাড় থেকে লাশটি উদ্ধার করা হয়। মোংলা নৌ পুলিশের ইনচার্জ সৈয়দ ফকরুল ইসলাম এসব তথ্য নিশ্চিত করেছেন।

মহিদুলের নিকট আত্বীয় ও স্থানীয়রা বলেন, আমরা ৪টি ট্রলার নিয়ে মহিদুলকে খুঁজতে থাকি। ২টি ট্রলার রামপালের দিকে আর ২টি ট্রলার নিয়ে মোংলার দিকে খুঁজতে থাকি। এমন সময় মোংলা-ঘাষিয়াখালী আন্তর্জাতিক নৌ চ্যানেলে লাশটি ভাসতে দেখি। পরে নৌ পুলিশের সহায়তায় আমরা লাশটি উদ্ধার করি।

মোংলা নৌ পুলিশের ইনচার্জ সৈয়দ ফকরুল ইসলাম বলেন, সকালে মোংলা মাদ্রাসা রোডের পশ্চিম দিকের মোংলা-ঘাষিয়াখালী আন্তর্জাতিক নৌ চ্যানেলে ভেসে উঠে। নিহতের ভাই মহিদুলের লাশের পরিচয় শনাক্ত করেন। পরে পুলিশ ফাঁড়ির সদস্যদের সহযোগিতায় লাশটি উদ্ধার করা হয়। আইনানুগ প্রক্রিয়া শেষে লাশ তার পরিবারের কাছে হস্তান্তর করা হবে।

এর আগে বৃহস্পতিবার (২৬ জুন) ভোর রাত ৪টার দিকে মোংলা-ঘাষিয়াখালী আন্তর্জাতিক নৌ ক্যানেলের জয়খাঁ এলাকায় এলপিজি পরিবহনকারী একটি জাহাজের পাখার সাথে দঁড়ি পেচিয়ে ট্রলারটি ডুবে যায়। ওই সময় ট্রলারে থাকা জেলে তারিকুল সাঁতরিয়ে কুলে উঠতে পারলেও নিখোঁজ হন মহিদুল শেখ। নিখোঁজের সন্ধানে তল্লাশী অভিযান চালান থানা পুলিশ, নৌপুলিশ ও ফায়ার সার্ভিসের ডুবুরি দল।

নিহত মহিদুল শেখের ১০ মাসের ও ২ বছরের দুটি ছেলে সন্তান রয়েছে।

নিউজ ট্যাগ: বাগেরহাট

আরও খবর



আলমগীর-বাদশাহর নেতৃত্বে পিরোজপুর জেলা শ্রমিক লীগের নতুন কমিটি

প্রকাশিত:মঙ্গলবার ১৬ জুলাই ২০২৪ | হালনাগাদ:মঙ্গলবার ১৬ জুলাই ২০২৪ | অনলাইন সংস্করণ
মশিউর রহমান রাহাত, পিরোজপুর

Image

জাতীয় শ্রমিক লীগের পিরোজপুর জেলা শাখার নতুন কার্যকরী কমিটি গঠিত হয়েছে। শ্রমিক নেতা  মো. আলমগীর হোসেনকে সভাপতি এবং মো. বাদশাহ মোল্লাকে সাধারণ সম্পাদক করে আগামী ৩ বছরের জন্য ৭১ সদস্যের কার্যকরী কমিটি অনুমোদন পেয়েছে। জাতীয় শ্রমিক লীগের সভাপতি নুর কুতুব আলম মান্নান এবং সাধারণ সম্পাদক কেএম আযম খসরু গতকাল সোমবার কমিটি অনুমোদন দিয়েছে।

কমিটির অন্যরা হলেন, সহ-সভাপতি আবুল কালাম মৃধা, শেখ রাজু আহম্মেদ মনা, শাহ জালার সিকদার, মো. জাকির খান, মাহমুদ হাসান আবুল, মো. সুলতান আহম্মেদ, শহিদুল ইসলাম সিকদার, মতিউর রহমান হাওলাদার, মতিউর রহমান, মো. ফরিদ আহমেদ, ফায়েজ আহমেদ, ফারুক হোসেন, আব্দুল মান্নান বাবুল ও আজিবর ফকির।

যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক মো. বশির সিকদার, মো. লাভলু হাওলাদার, আলমগীর মহাজন, মো. মিঠু সরদার, রিয়াজুল ইসলাম ও জাকির খান।

সহ-সাধারণ সম্পাদক মো. কাইয়ুম শেখ, মতিউর রহমান, সেলিম শেখ, মোস্তফা মোল্লা ও রুবেল শেখ। সাংগঠনিক সম্পাদক নুরুল ইসলাম, মিরাজুল ইসলাম তালুকদার, শেখ নাজমুল হুদা তানিম, শামীম সিকদার, মো. কামাল হোসেন ও মো. রেজাউল করিম। সহ-সাংগঠনিক সম্পাদক সায়েম কাজী, জলিল জোমাদ্দার, মোস্তফা, এনাম কাজী ও নাছির খান। প্রচার ও প্রকাশনা সম্পাদক আলমগীর খান এবং সহ-প্রচার ও প্রকাশনা সম্পাদক মো. সোহেল। দপ্তর সম্পাদক হাছান আল-আমিন (সুমন) এবং সহ-দপ্তর সম্পাদক শামীম সিকদার। অর্থ বিষয়ক সম্পাদক বেলায়েত হোসেন এবং সহ-অর্থ বিষয়ক সম্পাদক জসীম।

আইন ও দর কষাকষি সম্পাদক মামুন মাঝি এবং সহ- আইন ও দর কষাকষি সম্পাদক সেলিম। শিক্ষা, সাহিত্য ও গবেষণা সম্পাদক মো. হান্নান হাওলাদার এবং সহ-শিক্ষা, সাহিত্য ও গবেষণা সম্পাদক মিয়াধ শেখ। ক্রীড়া ও সাংস্কৃতিক বিষয়ক সম্পাদক মাসুম মোল্লা এবং সহ-ক্রীড়া ও সাংস্কৃতিক বিষয়ক সম্পাদক অরুন কুমার শীল।

শ্রমিক কল্যান ও উন্নয়ন সম্পাদক মো. মাসুম হাওলাদার এবং সহ-শ্রমিক কল্যান ও উন্নয়ন সম্পাদক বিশ্বজিৎ শীল।  ত্রাণ ও পূর্নবাসন বিষয়ক সম্পাদক মান্নান শেখ এবং সহ-ত্রাণ ও পূর্নবাসন বিষয়ক সম্পাদক রানা শেখ। মহিলা বিষয়ক সম্পাদক ইরানী শেখ এবং সহ-মহিলা বিষয়ক সম্পাদক শিল্পী।

কার্যকরী সদস্য আব্দুর রশীদ, আবদুল্লাহ আল মামুন, মানিক মল্লিক, রেজাউল, সেলিম সিকদার, হায়দার খান, হুমায়ুন হাওলাদার, তৌহিদুল শেখ, জাহাঙ্হীর মাতুব্বর, সোহাগ হাওলাদার, আব্দুর রহিম হাওলাদার, হায়দার বেপারী, শহিদ শেখ, মো. বেল্লাল এবং মো. ফরিদ।

নিউজ ট্যাগ: শ্রমিক লীগ

আরও খবর



চট্টগ্রামে মার্কেটে ভয়াবহ আগুন, ৩ জনের মৃত্যু

প্রকাশিত:শুক্রবার ২৮ জুন ২০২৪ | হালনাগাদ:শুক্রবার ২৮ জুন ২০২৪ | অনলাইন সংস্করণ
রাহুল সরকার, চট্টগ্রাম ব্যুরো

Image

চট্টগ্রাম নগরের কোতোয়ালি থানার রিয়াজউদ্দিন বাজার এলাকায় রেজওয়ান কমপ্লেক্স ও মোহাম্মদী প্লাজা নামে দুটি মার্কেটে অগ্নিকাণ্ডের ঘটনায় ৩ জনের মৃত্যুর খবর পাওয়া গেছে। এ ঘটনায় আরও ২ জন আহত হয়েছেন। বৃহস্পতিবার (২৭ জুন) দিবাগত ১টা ৩৫ মিনিটের দিকে এ ঘটনা ঘটে।

নিহতদের মধ্যে দুজনের নাম পাওয়া গেছে তারা হলেন- মোহাম্মদ রিদোয়ান ও সাহেদ হোসেন। অপর এক জনের নাম এখনো জানা যায়নি।

স্থানীয়রা জানান, রেজওয়ান কমপ্লেক্সের ব্রাদার্স টেলিকম নামে একটি দোকান থেকেই আগুনের সূত্রপাত। এরপর ওই দোকান থেকে পাশের মার্কেটেও আগুন ছড়িয়ে পড়ে। রেজওয়ান কমপ্লেক্স মার্কেটটি আটতলা বিশিষ্ট। সেখানে মোবাইলের যন্ত্রাংশসহ বিভিন্ন ইলেকট্রনিকস পণ্যের দোকান রয়েছে। আট তলা ভবনটিতে আগুন লাগার পর ওপরে কয়েকটি কক্ষে ধোঁয়ায় দম বন্ধ হয়ে বেশ কয়েকজন অসুস্থ হয়ে পড়লে তাদের উদ্ধার করে চট্টগ্রাম মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে নেওয়ার পর কর্তব্যরত চিকিৎসক তিন জনকে মৃত ঘোষণা করেন।

বিষয়টি নিশ্চিত করে চট্টগ্রাম ফায়ার সার্ভিসের উপ-সহকারী পরিচালক আবদুর রাজ্জাক বলেন, রাত ১টা ৩৫ মিনিটের দিকে এই অগ্নিকাণ্ডের খবর পাওয়া যায়। সঙ্গে সঙ্গে আগ্রাবাদ, নন্দনকানন ও চন্দনপুরা স্টেশনের ৯টি ইউনিট ঘটনাস্থলে পৌঁছে আগুন নিয়ন্ত্রণে কাজ করে। প্রায় চার ঘণ্টার চেষ্টায় সকাল সাড়ে ৫টায় আগুন নিয়ন্ত্রণে আসে।

রিয়াজউদ্দিন বাজার তামাকুমন্ডি লেইন বণিক কল্যাণ সমিতির সাধারণ সম্পাদক মোজাম্মল হক বলেন, আগুন লাগার পর ঘুমন্ত কয়েকজন কর্মচারী মার্কেটের বিভিন্ন দোকান আটকা পড়ে। তাদের মধ্যে ৩ জনকে মৃত অবস্থায় উদ্ধার করা হয়েছে। আগুন লাগার পর তারা বের হতে না পেরে আগুনের ধোঁয়ায় দম বন্ধ হয়ে মারা গেছে। আরও মারা যাওয়ার সম্ভবনা রয়েছে।


আরও খবর



জাতিসংঘ পুলিশের কার্যক্রমে অবদান রাখার অঙ্গীকার স্বরাষ্ট্রমন্ত্রীর

প্রকাশিত:শুক্রবার ২৮ জুন ২০২৪ | হালনাগাদ:শুক্রবার ২৮ জুন ২০২৪ | অনলাইন সংস্করণ
কূটনৈতিক প্রতিবেদক

Image

স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী আসাদুজ্জামান খান বলেছেন, জাতিসংঘ পুলিশের কার্যক্রমে ফলপ্রসূ অবদান রাখাতে বাংলাদেশ প্রস্তুত। শুক্রবার (২৮ জুন) জাতিসংঘের বাংলাদেশ স্থায়ী মিশন এ তথ্য জানায়।

নিউইয়র্কে জাতিসংঘের সাধারণ পরিষদে জাতিসংঘ পুলিশ প্রধানদের চতুর্থ সম্মেলনে শান্তিরক্ষা কার্যক্রমে অভিনব কৌশল ও সম্ভাব্য সংঘাতের ক্ষেত্র প্রধান সেশনে প্রথম বক্তা হিসেবে তিনি এসব কথা বলেন। 

সম্মেলনে দেওয়া বক্তব্যে বর্তমান পরিস্থিতি ও প্রেক্ষাপটে, জাতিসংঘ শান্তিরক্ষা মিশনে প্রাসঙ্গিক ও নির্দিষ্ট লক্ষ্যভিত্তিক বিশেষায়িত পুলিশিং-এর বিষয়ে গুরুত্বারোপ করেন স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী। শান্তিরক্ষা কার্যক্রম চলমান দেশগুলোর আইন ও নিরাপত্তা সংক্রান্ত সংস্থার দক্ষতাবৃদ্ধির ওপরও জোর দেন তিনি। 

স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী জাতিসংঘ শান্তিরক্ষা কার্যক্রমে নারী পুলিশ সদস্য প্রেরণ বৃদ্ধিতে বাংলাদেশের অঙ্গীকার পুনর্ব্যক্ত করেন। তিনি জাতিসংঘ শান্তিরক্ষীদের বিরুদ্ধে নানবিধ অপপ্রচার রোধে জাতিসংঘের গৃহীত ব্যবস্থায় বাংলাদেশের অবদান তুলে ধরেন। 

এই সম্মেলন চলাকালে গাম্বিয়ার স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী আবদৌলে সানিয়াং, জাতিসংঘের আন্ডার-সেক্রেটারি-জেনারেল ফর পিস অপারেশন্স জ্যঁ পিয়েরে লাখোয়া এবং আন্ডার-সেক্রেটারি-জেনারেল ফর অপারেশনাল সাপোর্ট অতুল খারের সঙ্গে তিনটি পৃথক বৈঠক করেন স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী। জাতিসংঘের আন্ডার-সেক্রেটারি-জেনারেলদের সঙ্গে বৈঠকে স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী, শান্তিরক্ষা কার্যক্রমে নিত্য নতুন চ্যালেঞ্জ মোকাবিলা এবং পরিবর্তিত পরিস্থিতির সঙ্গে মানিয়ে নেওয়ার জন্য বাংলাদেশের প্রস্তুতি ও সক্ষমতার বিষয়টি তুলে ধরেন। 

নিউইয়র্কে জাতিসংঘ সদর দফতরে ২৬-২৭ জুন দুই দিনব্যাপী জাতিসংঘ পুলিশ প্রধানদের চতুর্থ সম্মেলন  অনুষ্ঠিত হয়। 

স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী আসাদুজ্জামান খান, এমপি বাংলাদেশ প্রতিনিধি দলের নেতৃত্ব দিচ্ছেন। জাতিসংঘে বাংলাদেশের স্থায়ী প্রতিনিধি মোহাম্মদ আব্দুল মুহিত, বাংলাদেশ পুলিশের অতিরিক্ত মহাপরিদর্শক কামরুল আহসান এবং স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয় ও বাংলাদেশ পুলিশের ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তারা বাংলাদেশ প্রতিনিধি দলের সদস্য হিসেবে সম্মেলনে যোগ দিয়েছেন।


আরও খবর