আজঃ শুক্রবার ২১ জুন ২০২৪
শিরোনাম

অপহরণের পর স্কুলছাত্রীকে সংঘবদ্ধ ধর্ষণ, গ্রেপ্তার তিন

প্রকাশিত:বৃহস্পতিবার ১০ মার্চ ২০২২ | হালনাগাদ:বৃহস্পতিবার ১০ মার্চ ২০২২ | অনলাইন সংস্করণ
দর্পণ নিউজ ডেস্ক

Image

অলিউল্লাহ্ ইমরান, বরগুনাঃ

বরগুনা সদর উপজেলায় ১০ম শ্রেণির এক ছাত্রীকে (১৫) অপহরণের পর ধর্ষণের ঘটনা ঘটেছে। এঘটনায় তিন কলেজ ছাত্রকে গ্রেফতার ও ভিকটিমকে উদ্ধার করেছে পুলিশ।বৃহস্পতিবার (১০ মার্চ) বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন বরগুনা সদর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) আলী আহম্মেদ।

গ্রেপ্তারকৃত তিনজন হলেন- বরগুনা সদরের দক্ষিণ লবনগোলা এলাকার মতলেব আকনের ছেলে মো. মিরাজ (২১), একই এলাকার জলিল হাওলাদারের ছেলে মো রুমান (২০) ও জাকির ভুইয়ার ছেলে মো. জাহিদুল ইসলাম জাহিদ (২৩)।

সার্কেল এসপি মেহেদী হাসান বলেন, দশম শ্রেণির এক স্কুলছাত্রীকে অপহরণের পর ধর্ষণের অভিযোগ এনে বুধবার সকালে থানায় তিনজনের নামোল্লেখ করে পৃথক দুটি মামলা করেন ওই স্কুল ছাত্রীর বাবা। তিনি বলেন, অভিযান চালিয়ে ওই তিনজনকে গ্রেফতার করে আদালতের মাধ্যমে জেল হাজতে  প্রেরণ করা হয়েছে।

এ ঘটনায় স্কুল ছাত্রীর বাবা বাদী হয়ে বুধবার ৯ মার্চ সকালে তিনজনের বিরুদ্ধে পৃথক দুইটি থানায় অপহরণ ও ধর্ষণ মামলা দায়ের করেন। মামলার পরই পুলিশ তাদের গ্রেফতার করে।


আরও খবর



কক্সবাজারের যে সৈকতে পর্যটকদের প্রবেশ নিষিদ্ধ

প্রকাশিত:শনিবার ০৮ জুন ২০২৪ | হালনাগাদ:শনিবার ০৮ জুন ২০২৪ | অনলাইন সংস্করণ
মোহাম্মদ ফারুক, কক্সবাজার

Image

কক্সবাজারে উদ্বোধন হয়েছে নতুন একটি সমুদ্রসৈকত। যেটির নাম বোরি বিচ। এই বিচ থাকবে প্লাস্টিকমুক্ত ও শতভাগ পরিষ্কার-পরিচ্ছন্ন। শুধু জীববৈচিত্র্যের নিরাপদ আবাসস্থল হবে এই সৈকত। তাই বোরি বিচে কক্সবাজারে আগত পর্যটকদের যাওয়া নিষিদ্ধ ঘোষণা করা হয়েছে। এ ছাড়া যেতে পারবেন না স্থানীয় বাসিন্দারাও।

শনিবার (৮ জুন) দুপুরে মেরিন ড্রাইভ সড়কের রেজুখালসংলগ্ন উখিয়ার সোনারপাড়ায় এই সমুদ্রসৈকতের উদ্বোধন করেন বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি মন্ত্রণালয়ের সচিব মো. আলী হোসেন।

মূলত এই সমুদ্রসৈকত বাংলাদেশ সমুদ্র গবেষণা ইনস্টিটিউটের (বোরি) গবেষণার কাজে ব্যবহার করা হবে। এজন্য মেরিন ড্রাইভ সড়কের সোনারপাড়ার ২ দশমিক ৯১ কিলোমিটার সৈকত বোরিকে বুঝিয়ে দিয়েছে প্রশাসন। এখন থেকে এই সৈকতের দেখভাল করবে বোরি। প্রতিষ্ঠানটির বিজ্ঞানীরা সৈকতেই চালাবেন গবেষণা।

বাংলাদেশ সমুদ্র গবেষণা ইনস্টিটিউটের মহাপরিচালক অধ্যাপক তৌহিদা রশীদ বলেন, এই সমুদ্রসৈকত কেবল গবেষণার কাজে আমরা মডেল হিসেবে ব্যবহার করবো। আমাদের পর্যটনের সঙ্গে কোনও কনফ্লিক্ট (দ্বন্দ্ব) নেই। এই সৈকত শুধু জীববৈচিত্র্যের নিরাপদ আবাসস্থল হবে। এখানে কেউ এসে তাদের বিরক্ত করবে না। সৈকতটি থাকবে শতভাগ পরিষ্কার-পরিচ্ছন্ন এবং প্লাস্টিকমুক্ত। এটির রক্ষণাবেক্ষণের দায়িত্ব থাকবে বোরির।সৈকতের পাশে যে মানুষরা বসবাস করেন, তারাও এতে উপকৃত হবেন। স্থানীয় জনগোষ্ঠীকেও এখানে সম্পৃক্ত করা হবে।

বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি মন্ত্রণালয়ের সচিব মো. আলী হোসেন বলেন, বোরি বিচ সমুদ্রবিষয়ক গবেষণার একটি মডেল হবে। এখানে কীভাবে গবেষণার কাজ চলবে স্থানীয় জনগোষ্ঠীকে সে সম্পর্কে ধারণা দিতে মহড়ার আয়োজন করতে হবে।

এ সময় উপস্থিত ছিলেন পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের মেরিন অ্যাফেয়ারস ইউনিটের সচিব খুরশেদ আলম, চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয়ের উপউপাচার্য অধ্যাপক ড. বেনু কুমার দে, বিসিএসআইআরের চেয়ারম্যান ড. আফতাব আলী, কক্সবাজারের পুলিশ সুপার মাহফুজুল ইসলামসহ আরও অনেকে।


আরও খবর



বগুড়ায় স্ত্রী-সন্তানকে গলা কেটে হত্যা, স্বামী আটক

প্রকাশিত:রবিবার ০২ জুন 2০২4 | হালনাগাদ:রবিবার ০২ জুন 2০২4 | অনলাইন সংস্করণ
বগুড়া প্রতিনিধি

Image

বগুড়া শহরের বনানী এলাকায় একটি আবাসিক হোটেল থেকে আশামণি (২০) ও তার এক বছরের ছেলে আবদুল্লাহ আল রাফির মাথাবিহীন লাশ উদ্ধার করেছে পুলিশ। এ ঘটনায় ওই নারীর স্বামী আজিজুল হককে (২৩) আটক করেছে পুলিশ। তিনি চট্টগ্রাম সেনানিবাসে কর্মরত। তার বাড়ি বগুড়া জেলার ধুনট উপজেলার কালেরপাড়া।

আশা মনির লাশ হোটেলের বাথরুমের ভেতরে বিবস্ত্র অবস্থায় পড়েছিল। আর তার ১ বছর বয়সী ছেলে আব্দুল্লাহ আল রাফির মাথাবিহীন লাশ বস্তায় ভরে খাটের নিচে রাখাছিল।

রবিবার সকাল ১১টার দিকে পুলিশ দুটি লাশ উদ্ধার করে। প্রাথমিক জিজ্ঞাসাবাদে আজিজুল হক হত্যাকাণ্ডে জড়িত থাকার কথা স্বীকার করেছেন বলে পুলিশ জানায়।

নিহত আশামনির ভাই সনি জানান, সেনা সদস্য আজিজুল হকের সঙ্গে প্রায় তিন বছর আগে তার বোনের বিয়ে হয়। দুই মাসের ছুটি নিয়ে সে কিছুদিন আগে বগুড়ায় আসে। এরপর তার ভগ্নিপতি আজিজুল গত বৃহস্পতিবার শহরের নারুলি এলাকায় শ্বশুর বাড়িতে বেড়াতে আসে তিনি। ১ জুন বেড়ানোর কথা বলে স্ত্রী ও সন্তানকে নিয়ে শ্বশুরবাড়ি থেকে বের হয়ে যান আজিজুল হক। ২ জুন খুন ও আটক হওয়ার খবর পান তারা।

শুভেচ্ছা হোটেলের ব্যবস্থাপক রবিউল ইসলাম জানান, শনিবার সন্ধ্যার পর আজিজুল হক তার স্ত্রী ও এক বছর বয়সী সন্তানকে নিয়ে দোতলার একটি কক্ষে ওঠেন। এরপর রাত ১১টার দিকে তিনি হোটেল থেকে বের হয়ে যান। তিনি বলেন, আজ (রবিবার) সকাল ১১টার দিকে আজিজুল হক হোটেলে কক্ষের ভাড়া পরিশোধ করতে আসেন। কিন্তু তখন তার সঙ্গে স্ত্রী ও সন্তান না থাকায় আমাদের সন্দেহ হয়। এরপর আমরা তাকে আটক করে পুলিশে খবর দিই। পরে পুলিশ এসে ওই কক্ষের ভেতরে আজিজুল হকের স্ত্রীর গলকাটা বিবস্ত্র লাশ এবং বাথরুমে বস্তাবন্দী মাথাবিহীন সন্তানের লাশ দেখতে পান।

শাজাহানপুর থানার ওসি শহিদুল ইসলাম জানান, সেনা সদস্য আজিজুল হক হত্যাকাণ্ডের কথা স্বীকার করেছেন। তাকে জিজ্ঞাসাবাদ করা হচ্ছে। তার দাবি সে তার সন্তানের মাথা পাশের করতোয়া নদীকে ফেলে দিয়েছে। নিহত শিশুর মাথা খোঁজা হচ্ছে।

জেলা পুলিশ সুপার সুদীপকুমার চক্রবর্ত্তী জানান, পুলিশ সদস্যারা চেষ্টা করে শিশুর মাথা উদ্ধার করতে পানেনি। তবে রাজশাহী ফায়ার সার্ভিস থেকে ডুবুরি চাওয়া হয়েছে। তারা মাথা উদ্ধারে অভিযান চালাবে।


আরও খবর



সুপার এইটে উঠেছি, এখন যা পাবো সবই বোনাস: হাথুরুসিংহে

প্রকাশিত:বৃহস্পতিবার ২০ জুন ২০24 | হালনাগাদ:বৃহস্পতিবার ২০ জুন ২০24 | অনলাইন সংস্করণ
ক্রীড়া প্রতিবেদক

Image

বিশ্বকাপে বাংলাদেশের লক্ষ্য ছিল প্রথম রাউন্ড পেরিয়ে সুপার এইটে খেলা, সেই লক্ষ্য পূরণ হয়েছে। এখন আর হারানোর কিছু নেই। এই পর্বে যা পাওয়া যাবে সবই বোনাস বলে মন্তব্য করেছেন দলের হেড কোচ চন্ডিকা হাথুরুসিংহে।

হাথুরু বলেন, যখন আমরা টুর্নামেন্টে আসি, আমাদের প্রথম লক্ষ্য ছিল এই সুপার এইটে উঠা। তাই আমি মনে করি, আমরা দারুণভাবে তা অর্জন করেছি... । আমি বলতে পারি, বোলাররা আমাদের এখন পর্যন্ত প্রতিযোগিতায় টিকিয়ে রেখেছে? যে কারণে আমরা অবস্থান নিয়েই খেলেছি। সত্যিই ভালো; কন্ডিশন আমাদের পক্ষে কাজ করেছে।

সুতরাং আমাদের এগিয়ে যাওয়া এবং এই পর্যায়ে আসতে পেরে আমরা খুব খুশি। এখান থেকে আমাদের যা কিছু আসবে, সবকিছুই বোনাস। তাই, আমরা অনেক স্বাধীনতা নিয়ে খেলি। আমরা তিনটি দলকেই চ্যালেঞ্জ জানাতে যাচ্ছি। আমরা আমাদের সেরাটাই দিতে পারি- যোগ করেন হাথুরু।

বাংলাদেশের সুপার এইটের যাত্রা শুরু হবে আগামীকাল শুক্রবার ভোর সাড়ে ৬টায়। প্রতিপক্ষ গেল বছরের ওয়ানডে বিশ্বকাপজয়ী অস্ট্রেলিয়া। এরইমধ্যে দুই দলই সেরে নিয়েছে নিজেদের প্রস্তুতি। বিশ্ব আসরে অসিদের কাছে হারের বৃত্ত থেকে বাংলাদেশ বের হতে পারে কিনা, সেটিই এখন দেখার।


আরও খবর



গাজা যুদ্ধের ন্যায্যতা নিয়ে মার্কিন হাউজে নেতানিয়াহুর ভাষণ

প্রকাশিত:শুক্রবার ০৭ জুন ২০২৪ | হালনাগাদ:শুক্রবার ০৭ জুন ২০২৪ | অনলাইন সংস্করণ
আন্তর্জাতিক ডেস্ক

Image

ফিলিস্তিনের অবরুদ্ধ গাজা উপত্যকায় সশস্ত্র গোষ্ঠী হামাসের বিরুদ্ধে যুদ্ধ নিয়ে সত্য তুলে ধরবেন ইসরায়েলের প্রধানমন্ত্রী বেনিয়ামিন নেতানিয়াহু। ওয়াশিংটন সফরের সময় ২৪ জুলাই মার্কিন কংগ্রেসে এ নিয়ে ভাষণ দেবেন তিনি। রিপাবলিকান নেতাদের বরাতে ব্রিটিশ বার্তা সংস্থা রয়টার্স এই খবর জানিয়েছে।

এক বিবৃতিতে হাউস স্পিকার মাইক জনসন এবং সিনেট সংখ্যালঘু নেতা মিচ ম্যাকনেল বলেছেন, মার্কিন প্রতিনিধি পরিষদ এবং সিনেটের যৌথ অধিবেশনে ভাষণ দেবেন নেতানিয়াহু।

অপর একটি বিবৃতিতে নেতানিয়াহু বলেন, কংগ্রেসের উভয় কক্ষের সামনে ইসরায়েলের প্রতিনিধিত্ব করার এবং আমেরিকান জনগণ ও বিশ্ব প্রতিনিধিদের কাছে যারা আমাদের ধ্বংস করতে চায় তাদের বিরুদ্ধে ন্যায্য যুদ্ধের সত্যতা তুলে ধরার সুযোগ পেয়ে আমি খুবই অনুপ্রাণিত।

নেতানিয়াহুর এই সফরের খবরটি এমন সময় এলো যখন তার এবং মার্কিন প্রেসিডেন্ট জো বাইডেনের মধ্যে উত্তেজনা চলছে। বাইডেন শুরুর দিকে গাজায় ইসরায়েলের অভিযানকে সমর্থন দিয়েছেন। তবে সম্প্রতি নেতানিয়াহুর যুদ্ধ কৌশলের সমালোচনা করেছেন তিনি। দেশটিতে কিছু বোমার চালান আটকে রেখেছেন। মার্কিন সফরের সময় নেতানিয়াহু বাইডেনের সঙ্গে দেখা করবেন কিনা তা তাৎক্ষণিকভাবে স্পষ্ট নয়।

গাজায় হাজার হাজার বেসামরিকের মৃত্যুর কারণে কিছু ডেমোক্র্যাট এবং ভোটার নেতানিয়াহুর ওপর ক্ষুব্ধ। এর প্রভাব নভেম্বরের নির্বাচনের পড়তে পারে বলে মনে করছেন বিশ্লেষকরা।

এদিকে, যুদ্ধ বিষয়ে তার অবস্থানের জন্য বাইডেনের সমালোচনা করেছেন রিপাবলিকানরা। তারা বলছেন, ইসরায়েলকে সাহায্য করার জন্য যথেষ্ট পদক্ষেপ নিচ্ছেন না মার্কিন প্রেসিডেন্ট।

ইসরায়েলি কর্তৃপক্ষের মতে, ৭ অক্টোবর ইসরায়েলি ভূখেণ্ডে হামলা চালিয়ে প্রায় এক হাজার ২০০ জনকে হত্যা করে হামাস। এসময় ২৫০ জনেরও বেশি জনকে জিম্মি করে গাজায় নিয়ে যায় সশস্ত্র যোদ্ধারা।

এই হামলার প্রতিক্রিয়ায় ওইদিনই গাজায় পালটা হামলা শুরু করে ইসরায়েল। গাজার স্বাস্থ্য কর্মকর্তাদের মতে, ইসরায়েলের হাতে এখন পর্যন্ত ৩৬ হাজারেরও বেশি ফিলিস্তিনি নিহত হয়েছেন।


আরও খবর



‘স্মার্ট বাংলাদেশে’ মাথাপিছু আয় হবে সাড়ে ১২ হাজার ডলার

প্রকাশিত:বৃহস্পতিবার ০৬ জুন ২০২৪ | হালনাগাদ:বৃহস্পতিবার ০৬ জুন ২০২৪ | অনলাইন সংস্করণ
জ্যেষ্ঠ প্রতিবেদক

Image

স্মার্ট বাংলাদেশ বিনির্মাণের ভিশন ২০৪১ সাল। সেই স্মার্ট বাংলাদেশে মাথাপিছু আয় হবে কমপক্ষে ১২ হাজার ৫০০ মার্কিন ডলার বলে জানিয়েছেন অর্থমন্ত্রী আবুল হাসান মাহমুদ আলী।

বৃহস্পতিবার (৬ জুন) জাতীয় সংসদে ২০২৪-২৫ অর্থবছরের জন্য ৭ লাখ ৯৭ হাজার কোটি টাকার বাজেট প্রস্তাব করেন অর্থমন্ত্রী। সেখানে তিনি এ কথা বলেন।

বাজেট পেশের সময় মাথাপিছু আয়ের ক্ষেত্রে বিশাল প্রত্যাশা দেখিয়েছেন মন্ত্রী। তার আশা অনুযায়ী, ২০৪১ সাল থেকে একজন বাংলাদেশি বছরে ১৪ লাখ ৬৬ হাজার ২৫০ টাকা আয় করবেন। যদিও বর্তমানে মাথাপিছু আয় ২ হাজার ৭৮৪ ডলার, গত অর্থবছর যা ছিল ২ হাজার ৭৪৯ ডলার। ফলে বছরের ব্যবধানে ৩৫ ডলার বেড়েছে। বর্তমানে টাকার হিসাবে মাথাপিছু আয় ৩ লাখ ৬ হাজার ১৪৪ টাকা, যা গত অর্থবছর ছিল ২ লাখ ৭৩ হাজার ৩৬০ টাকা।

বিবিএস জানায়, ২০২০-২১ অর্থবছরে ২ হাজার ৫৯১ ও ২০২১-২২ অর্থবছরে মাথাপিছু আয় ছিল ২ হাজার ৭৯৩ ডলার।

অর্থমন্ত্রী বলেন, স্মার্ট বাংলাদেশে দারিদ্র্যসীমার নিচে থাকবে ৩ শতাংশের কম। চরম দারিদ্র্য নেমে আসবে শূন্যের কোঠায়। মূল্যস্ফীতি সীমিত থাকবে ৪ থেকে ৫ শতাংশের মধ্যে। বাজেট ঘাটতি থাকবে জিডিপির ৫ শতাংশের নিচে, রাজস্ব-জিডিপি অনুপাত হবে ২০ শতাংশের ওপর। বিনিয়োগ উন্নীত হবে জিডিপির ৪০ শতাংশে।


আরও খবর