আজঃ সোমবার ২৬ ফেব্রুয়ারী ২০২৪
শিরোনাম

নয় বছরেও সংস্কার হয়নি ভেঙে পড়া সেতু

প্রকাশিত:বুধবার ২৯ নভেম্বর ২০২৩ | হালনাগাদ:বুধবার ২৯ নভেম্বর ২০২৩ | অনলাইন সংস্করণ
Image

আমতলী (বরগুনা) প্রতিনিধি:

বরগুনার আমতলী উপজেলার আঠারোগাছিয়া ইউনিয়নের উত্তর সোনাখালী বাজারে খালের ওপর ঢালাই সেতুটির মাঝখানের অংশ ২০১৪ সালে ভেঙে পড়ে। ২০১৫ সালে সেতুটি ঝুঁকিপূর্ণ ঘোষণা করা হয়। এলাকাবাসী ভাঙ্গাঅংশে কাঠের পাটাতন দিয়ে ঝুঁকি নিয়ে এলাকার লোকজন ও যানবাহন চলাচল করছে। এতে এলাকার বাসিন্দাদের দুর্ভোগ পোহাতে হচ্ছে।

এলাকাবাসী সূত্রে জানা গেছে, লোহার কাঠামোর ওপর ঢালাই দিয়ে ২০০৭ সালে সেতুটি নির্মাণ করে স্থানীয় সরকার প্রকৌশল অধিদপ্তর (এলজিইডি)। কিন্তু ২০১৪ সালে সেতুর মাঝ বরাবর ভেঙে পণ্যবাহী একটি ট্রলি নদীতে পড়ে যায়। ওই ভাঙ্গা অংশ নয় বছর পেরিয়ে গেলেও সংস্কার করা হয়নি। এ কারণে এলাকার অন্তত ২০ হাজার মানুষ দুর্ভোগ পোহাচ্ছে। এর মধ্যে রয়েছে বিভিন্ন শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানের শিক্ষার্থী। প্রতিদিন ভাঙা সেতুর ওপর দিয়ে সোনাখালী স্কুল অ্যান্ড কলেজ, সোনাখালী সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়, মধ্য সোনাখালী সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়, গেরাবুনিয়া সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়, পূর্ব সোনাখালী সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় ও মাহবুব আলম মোল্লা মাদ্রাসার শিক্ষার্থীরা যাতায়াত করে।

সরেজমিনে দেখা গেছে, সেতুর ওই ভাঙা অংশের কাঠের পাটাতন নড়বড়ে। তা ছাড়া সেতুর উত্তর প্রান্ত দেবে গেছে।

আঠারগাছিয়া ইউনিয়নের মো. সোহেল রানা বলেন, সেতুটির অংশবিশেষ ভেঙে পড়ায় এলাকার কয়েক হাজার মানুষকে দুর্ভোগ পোহাতে হচ্ছে। শিগগির সেতুটি সংস্কার করা প্রয়োজন।

আঠারোগাছিয়া ইউনিয়ন পরিষদের (ইউপি) চেয়ারম্যান মো. রফিকুল ইসলাম রিপন বলেন, জনগুরুত্বপূর্ণ সেতুটি ভেঙে যাওয়ায় বারবার জেলা প্রকৌশল বিভাগকে জানানো হয়। কিন্তু আট বছরেও মেরামত করা হয়নি। স্থানীয়ভাবে ভাঙা অংশে কাঠের পাটাতন দেওয়া হয়েছে। ওই পাটাতন দিয়ে ঝুঁকি নিয়ে মানুষ ও যানবাহন চলাচল করছে।

উপজেলা প্রকৌশলী আব্দুল্লাহ্ আল মামুনকে একাধিকবার ফোন করলেও তাকে পাওয়া যায়নি।

বরগুনা এলজিইডি নির্বাহী প্রকৌশলী সুপ্রিয় মুখার্জী বলেন, সেতুটি ঝুঁকিপূর্ণ সেটা আপনাকে কে বলেছে। আপনার কাছে কি কোন ডকুমেন্ট আছে যে সেতুটি ঝুঁকিপূর্ণ।


আরও খবর



আফ্রিকায় প্রায় ১০ কোটি শিশু ও তরুণ স্কুলে যায় না

প্রকাশিত:শুক্রবার ১৬ ফেব্রুয়ারী ২০২৪ | হালনাগাদ:শুক্রবার ১৬ ফেব্রুয়ারী ২০২৪ | অনলাইন সংস্করণ
আন্তর্জাতিক ডেস্ক

Image

আফ্রিকান ইউনিয়নের (এইউ) শিক্ষা, বিজ্ঞান, প্রযুক্তি এবং উদ্ভাবন বিষয়ক কমিশনার মোহাম্মাদ বেলহোসিন বৃহস্পতিবার বলেছেন, আফ্রিকাজুড়ে ৫ থেকে ১৯ বছর বয়সী প্রায় ১০ কোটি শিশু এবং তরুণ সামাজিকভাবে সমন্বয় না থাকার কারণে স্কুলে যাওয়ার সুযোগ থেকে বঞ্চিত হচ্ছে। খবর সিনহুয়ার।

ইথিওপিয়ার রাজধানী আদ্দিস আবাবায় এইউ সম্মেলন চলাকালে বেলহোসিন সাংবাদিকদের বলেন, এসব শিশু ও তরুণ সকল দিক থেকে চরম ঝুঁকির মুখে রয়েছে। কারণ, তারা সহজেই সন্ত্রাসী গোষ্ঠী, মাদক ব্যবসায়ী এবং মানব পাচারকারী চক্রের দ্বারা পরিচালিত হতে পারে।

তিনি আরো বলেন, তাদের অনেকে অপরাধমূলক কর্মকান্ডের সাথে জড়িয়ে পড়তে পারে বা আফ্রিকার বিভিন্ন দেশে বা এ মহাদেশের বাইরে চলে যেতে পারে।

তিনি বৃত্তিমূলক ও কারিগরি প্রশিক্ষণের মাধ্যমে এসব শিশু ও যুবককে সহায়তা করার প্রয়োজনীয়তার উপর এবং তাদের আত্ম কর্মসংস্থানের জন্য প্রয়োজনীয় দক্ষতা অর্জনের ওপর জোর দেন।

কমিশনার স্বীকার করেন, আফ্রিকা মানসম্পন্ন শিক্ষা প্রদানে নানা ধরনের অসুবিধাসর মুখোমুখী হয়। বিশেষকরে নিচের স্তরের শিক্ষা প্রদানের ক্ষেত্রে। যার ফলে সাব-সাহারান আফ্রিকার ১০ শিশুর ৯জনই ১০ বছর বয়সের মধ্যে একটি সাধারণ পাঠ্য পড়তে এবং বুঝতে অক্ষম রয়ে গেছে।

২০৩০ সাল নাগাদ সার্বজনীন শিক্ষা কভারেজ অর্জনের জন্য আফ্রিকায় প্রায় ৯০ বিলিয়ন মার্কিন ডলার প্রয়োজন উল্লেখ করে তিনি তহবিল ঘাটতি মেটাতে এ মহাদেশকে সহায়তায় এগিয়ে আসার জন্য বিশ্বের প্রতি আহ্বান জানিয়েছেন।


আরও খবর



আমবয়ানের মধ্য দিয়ে বিশ্ব ইজতেমা শুরু, মুসল্লির ঢল

প্রকাশিত:শুক্রবার ০২ ফেব্রুয়ারী 2০২4 | হালনাগাদ:শুক্রবার ০২ ফেব্রুয়ারী 2০২4 | অনলাইন সংস্করণ
জেলা প্রতিনিধি

Image

টঙ্গীর তুরাগ তীরে আমবয়ানের মধ্য দিয়ে আনুষ্ঠানিকভাবে শুরু হলো মুসলিম বিশ্বের দ্বিতীয় বৃহত্তম জমায়েত বিশ্ব ইজতেমা। শুক্রবার (২ ফেব্রুয়ারি) ফজর নামাজের পর পাকিস্তানের মাওলানা আহমদ বাটলার আমবয়ানের মধ্য দিয়ে শুরু হয়েছে বিশ্ব ইজতেমার প্রথম পর্ব। আর তা তাৎক্ষণিকভাবে বাংলায় তরজমা করছেন মাওলানা নুরুর রহমান।

শুক্রবার ভোরে তথ্যটি নিশ্চিত করেছেন বিশ্ব ইজতেমার প্রথম পর্বের মিডিয়া সমন্বয়ক মো. হাবিবুল্লাহ রায়হান।

তিনি বলেন, মাওলানা আহমদ বাটলা সাহেবের বয়ানের পর সকাল ১০টায় তালিম করবেন পাকিস্তানের মাওলানা জিয়াউল হক সাহেব। তার তালিমের পরপরই দেশের বৃহত্তম জুমার নামাজের প্রস্তুতি শুরু করা হবে। শুক্রবার জুমার নামাজ পড়াবেন মাওলানা জুবায়ের সাহেব। জুমার নামাজের পর বয়ান করবেন জর্ডানের মাওলানা খতিব সাহেব, আছরের নামাজের পর বাংলাদেশের হাফেজ মাওলানা জুবায়ের সাহেব ও মাগরিবের পর ভারতের মাওলানা আহমদ লাট সাহেব বয়ান করবেন।

শীত ও বৃষ্টিসহ নানা ভোগান্তি উপেক্ষা দেশবিদেশের বিভিন্ন প্রান্তের মুসল্লিদের পদচারণায় মুখর হয়ে উঠেছে বিশ্ব ইজতেমা ময়দানসহ আশপাশের এলাকা। শুক্রবার ফজর নামাজের পর আমবয়ানের মধ্য দিয়ে শুরু হওয়া এবারের বিশ্ব ইজতেমার প্রথম পর্ব শেষ হবে আগামী রোববার আখেরি মোনাজাতের মধ্য দিয়ে। ৯ ফেব্রুয়ারি দ্বিতীয় পর্বের ইজতেমা শুরু হবে।

প্রথম পর্বের বিশ্ব ইজতেমা শুরুর দু-দিন আগে বুধবার থেকেই মুসল্লিরা ময়দানে স্থান না পেয়ে ময়দানের আশপাশের বিভিন্ন অলিগলি, ফুটপাত সড়ক ও আশেপাশের খোলা জায়গায় অবস্থান নিয়েছেন। ইতোমধ্যে মুসল্লির আগমনে কানায় কানায় পূর্ণ হয়ে গেছে ইজতেমা ময়দান।

বৃহস্পতিবার মাগরিবের নামাজের পরপরই ইজতেমা ময়দানে জড়ো হওয়া লাখ লাখ মুসল্লি বৃষ্টির বাগড়ায় পড়েন। এতে ভোগান্তি বাড়ে তাদের। বৃহস্পতিবার দিনভর আকাশ মেঘলা থাকলেও সন্ধ্যার আগ পর্যন্ত সেভাবে বৃষ্টি হয়নি। কয়েক দফায় সামান্য গুঁড়িগুঁড়ি বৃষ্টি হয়েছিল। তবে মাগরিবের নামাজের পর থেকে বৃষ্টি নামা শুরু হয়েছে। এতে বেশ ভোগান্তিতে পড়েন মুসল্লিরা।

ইজতেমা ঘিরে মুসল্লিদের নিরাপত্তা ব্যবস্থা : গাজীপুর মেট্টোপলিটন পুলিশের কমিশনার মো. মাহবুব আলম বলেন, বিশ্ব ইজতেমা ঘিরে পর্যাপ্ত নিরাপত্তা ব্যবস্থা নেওয়া হয়েছে। ইজতেমায় গাজীপুর মেট্টোপলিটন পুলিশের ছয় হাজার সদস্যের পাশাপাশি র‌্যাব, ঢাকা মেট্টোপলিটন পুলিশ এবং পোশাকে ও সাদা পোশাকে গোয়েন্দা বাহিনীর পর্যাপ্ত সংখ্যক আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর সদস্য দায়িত্ব পালন করছেন।

তিন মুসল্লির মৃত্যু : এবারের ইজতেমায় এ পর্যন্ত তিনজন মুসল্লির মৃত্যু হয়েছে। গত বুধবার দুজন ও  বৃহস্পতিবার একজন মুসল্লির মৃত্যু হয়। তারা হলেনইউনুছ মিয়া (৬০), জামান (৪০) ও আব্দুস সাত্তার (৭০)। এদের মধ্যে ইউনুছ মিয়ার বাড়ি ব্রাহ্মণবাড়িয়া জেলার সরাইল থানায়, জামানের বাড়ি চাঁপাইনবাবগঞ্জ জেলায় এবং আব্দুস সাত্তারের বাড়ি নেত্রকোণা জেলায়। তিনজনই বার্ধক্যজনিত কারণে মারা গেছেন বলে জানা গেছে।

নিউজ ট্যাগ: বিশ্ব ইজতেমা

আরও খবর
শবে বরাত সম্পর্কে হাদিসে যা বলা হয়েছে

রবিবার ২৫ ফেব্রুয়ারী ২০২৪




‘ভাষা আন্দোলনের নেতৃত্ব দানকারীদের অন্যতম প্রধান ছিলেন বঙ্গবন্ধু’

প্রকাশিত:বৃহস্পতিবার ২২ ফেব্রুয়ারী ২০২৪ | হালনাগাদ:বৃহস্পতিবার ২২ ফেব্রুয়ারী ২০২৪ | অনলাইন সংস্করণ
মশিউর রাহাত (পিরোজপুর)

Image

পিরোজপুর ১ আসনের সংসদ সদস্য শ ম রেজাউল করিম এমপি বলেছেন, প্রতিষ্ঠিত সত্য যে ভাষা আন্দোলনের নেতৃত্ব দানকারীদের অন্যতম প্রধান ছিলেন আমাদের স্বাধীনতার জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান।

বুধবার সন্ধ্যায় পিরোজপুরের শারিকতলা ইউনিয়নের শনিরহাটে মহান ২১ ফেব্রুয়ারি আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবস উপলক্ষে আলোচনা সভার প্রধান অতিথির বক্তব্যে এ কথা বলেন।

তিনি আরও বলেন, এই বাংলাদেশ অর্জন এমনি এমনি আসে নাই। ভাষা আন্দোলন থেকে কিন্তু শুরু আর সেটাকে পুর্ণঙ্গতা পায় ছেষট্টির ৬ দফা আন্দোলনে। পরে ৬২ সালের শিক্ষা কমিশন আন্দোলন। ৬৯ এ গণঅভ্যুথান। ৭১ এ মুক্তিযুদ্ধ। মূল কথা ভাষা আন্দোলনের মাধ্যমে শুরু হয়ে ৭১ এ মহান মুক্তিযুদ্ধের মধ্য থেকে আমরা আমাদের বাঙালিত্বকে খুঁজে পেয়েছি।

এ সময় রেজাউল করিম ওই এলাকার কিছু সন্ত্রাসী কর্মকান্ডের কথা উল্লেখ করে বলেন, আমরা এ অবস্থার পরিত্রাণ করবো। এ এলাকায় যে সকল উন্নয়ন হয় নাই আমি তা করবো। আমি আপনাদের সেবক হিসেবে আপনাদের পাশে আছি। ভয় পাবেন না।

আলোচনা অনুষ্ঠানে বাবুল তালুকদারের সভাপতিত্বে আরও বক্তব্য রাখেন, জেলা আওয়ামী লীগের সহ-সভাপতি আক্তারুজ্জামান ফুলু ও উপজেলা পরিষদের ভাইস চেয়ারম্যান বায়েজিদ হোসেন।


আরও খবর



দাম্পত্য জীবনের ইতি টানলেন এশা

প্রকাশিত:বুধবার ০৭ ফেব্রুয়ারী ২০২৪ | হালনাগাদ:বুধবার ০৭ ফেব্রুয়ারী ২০২৪ | অনলাইন সংস্করণ
বিনোদন ডেস্ক

Image

সংসার ভাঙল বলিউড অভিনেত্রী এশা দেওলের। ২০১২ সালের জুন মাসে হিরে ব্যবসায়ী ভরত তখতানির সঙ্গে গাঁটছড়া বাঁধেন এশা। গেল মাসেই গুঞ্জন উঠেছিল এ তারকা দম্পতির বিচ্ছেদের। আর এক মাস না যেতেই সে গুঞ্জনে সিলমোহর দিলেন এশা। তবে এশা ও ভরতের সংসার কেন ভাঙল, সে বিষয় জানা যায়নি।

ভারতীয় গণমাধ্যম দিল্লি টাইমসকে যৌথ একটি বিবৃতি পাঠিয়েছেন এশা ও ভরত। বিবৃতিতে এ দম্পতি লেখেন- আমরা যৌথভাবে আলাদা হয়ে যাওয়ার সিদ্ধান্ত নিয়েছি। জীবনের এই পরিবর্তনে সবচেয়ে বেশি গুরুত্বপূর্ণ ও অগ্রাধিকার পাবে আমাদের দুই সন্তান। আমাদের প্রাইভেসি রক্ষা করলে সম্মানিত বোধ করব।

মূলত, সোশ্যাল মিডিয়া রেডিট থেকে এশা দেওল ও ভরতের বিয়েবিচ্ছেদের গুঞ্জন চাউর হয়। সংসার ভাঙার কারণ ব্যাখ্যা করে নেটিজেনরা দাবি করেছিলেন, ভরত অন্য মেয়ের সঙ্গে সম্পর্কে জড়িয়ে এশার সঙ্গে প্রতারণা করেছেন। তবে কী কারণে সংসার ভেঙে গেলো, তার কোনো ব্যাখ্যা বিবৃতিতে দেননি এই দম্পতি।

প্রসঙ্গত, ২০১২ সালের জুন মাসে হিরে ব্যবসায়ী ভরত তখতানির সঙ্গে গাঁটছড়া বাঁধেন এশা। ২০১৭ সালে প্রথম সন্তান রাধ্যার জন্ম হয়। এর ঠিক দুবছর পর দ্বিতীয় সন্তান মীরার জন্ম হয়।

২০০২ সালে রোমান্টিক থ্রিলার সিনেমা কোই মেরে দিল সে পুছে দিয়ে হিন্দি সিনেমায় অভিষেক হয় এশার। ছবিটির জন্য ফিল্মফেয়ারে সেরা নবাগত অভিনেত্রীর পুরস্কার পান এশা। এরপর এশাকে দেখা যায় ধুম, নো এন্ট্রি, কাল ইত্যাদি সিনেমায়।


আরও খবর
ভারতীয় পরিচালক কুমার সাহানি আর নেই

রবিবার ২৫ ফেব্রুয়ারী ২০২৪




আমাদের দলের বিষয়ে মানুষের ধারণা ভালো নয় : জি এম কাদের

প্রকাশিত:শনিবার ০৩ ফেব্রুয়ারী ২০২৪ | হালনাগাদ:শনিবার ০৩ ফেব্রুয়ারী ২০২৪ | অনলাইন সংস্করণ
রাজনীতি ডেস্ক

Image

জাতীয় পার্টির বিষয়ে মানুষের ধারণা ভালো নয় বলে মন্তব্য করেছেন দলটির চেয়ারম্যান গোলাম মোহাম্মদ কাদের (জি এম কাদের)।

শনিবার (৩ ফেব্রুয়ারি) বনানীতে জাতীয় পার্টির চেয়ারম্যানের কার্যালয়ে আয়োজিত এক সংবর্ধনা অনুষ্ঠানে তিনি এ মন্তব্য করেন।

জি এম কাদের বলেন, অনেকে বলছে আমাদের দল ভাগ হয়ে যাবে। দল ভাগ হওয়ার সম্ভাবনা আমি এই মুহূর্তে দেখছি না। এরশাদ সাহেবের নাম ও আদর্শ দিয়ে আরও দশটি দল যে কেউ গঠন করতে পারে। কিন্তু আমাদের দল ভেঙে আরেকটি দল গঠন করার পরিবেশ পরিস্থিতি এই মুহূর্তে দেখছি না। তবে একটা জিনিস আমি বলতে চাই, আমাদের দলের ব্যাপারে মানুষের পারসেপশন (ধারণা) কিন্তু ভালো নয়।

জি এম কাদের বলেন, আমরা অন্য দলের মাধ্যমে নিয়ন্ত্রিত হয়েছি, সেটা পার্শিয়ালি কারেক্ট। আমরা সেখান থেকে বেরিয়ে আসার চেষ্টা করছি। আমাদের দলের মধ্যে ব্যাপকভাবে সংশোধন হওয়ার দরকার আছে। আমরা যদি সেটা না করতে পারি তবে সামনের দিকে দল ভাঙবে না, তবে দলের অস্তিত্ব থাকবে না। দলকে মানুষ ভালোবাসবে না, দলের প্রতি মানুষের আস্থা থাকবে না।

জাতীয় সংসদের বিরোধী দলীয় নেতা বলেন, সরকারি দলের মন্ত্রীদের বক্তব্যে মনে হয় আমরা কি মধ্যযুগীয় ব্যবস্থায় চলে যাচ্ছে কি না। হয়ত সাধারণ মানুষ এটি খেয়াল করে না। শ্রদ্ধেয় আইনমন্ত্রী সেদিন একটি কথা বললেন, সাগর-রুনির হত্যাকাণ্ডের বিষয়ে ১০৭ বার সময় নেওয়া হয়েছে, ১২ বছর চলে গেছে। তারপর উনি বলেছেন আরো ৫০ বছর লাগলে দিতে হবে। এটাকে আমি দেখেছি মধ্যযুগীয় ব্যবস্থার মতো। মধ্যযুগে পেশিশক্তির মাধ্যমে সবকিছু নির্ণয় করা হতো। অর্থাৎ জোর যার মুল্লুক তার। বিচারব্যবস্থা যদি বিলম্ব হয় তার মানে হচ্ছে, সে বিচার আর পাওয়া যাবে না। এই বিচার যদি আরো ৫০ বছর বিলম্ব হয় তাহলে এটি তো বিচারহীনতা হলো। তাহলে আমরা কি দেশকে বিচারাধীনতা উপহার দিতে যাচ্ছি?

জাতীয় পার্টির চেয়ারম্যান বলেন, এই নির্বাচন নিয়ে আওয়ামী লীগ বিভ্রান্তিকর একটি স্টেটমেন্ট দিয়েছে। তারা বলেছে আওয়ামী লীগের ২৬টা সিট ছেড়ে দিলাম জাতীয় পার্টির ফেভারে। কিন্তু তারা সেসব ছাড়ে নাই, সব জায়গায় তাদের লোক দিয়ে রেখেছে। আমাদের অনেক প্রার্থী বিভ্রান্ত হয়েছে। অনেকে এটাকে মহাজোট বলেছেন, আবার অনেকে এটাকে সিট ভাগাভাগির কথা বলেছেন। আমি প্রথম দিন থেকে বলেছি, এটা মহাজোট হয়নি। সিট ভাগাভাগিও হয়নি। এটা বিভ্রান্তিকর, আওয়ামী লীগ ইচ্ছাকৃতভাবে করেছে। এটি না হলে আমাদের ফলাফল এর চেয়ে আরো ভালো হতো।

তিনি দলের নেতাকর্মীদের উদ্দেশ্যে বলেন, দলকে টেকাতে হলে সবাইকে এক লাইনে থাকতে হবে। আমরা যদি ব্যর্থ হই তবে দল মানুষের কাছে গ্রহণযোগ্য হবে না। আমরা ভাঙন নিয়ে চিন্তিত নই। কিন্তু আমাদের নিজেদের মধ্যে যে ত্রুটি আছে সেগুলো সারিয়ে তুলতে হবে।

অনুষ্ঠানে আরও বক্তব্য রাখেন জাতীয় পার্টির মহাসচিব বীর মুক্তিযোদ্ধা মো. মুজিবুল হক চুন্নু। উপস্থিত ছিলেন দলের প্রেসিডিয়াম সদস্য শেরীফা কাদের, ঢাকা মহানগর উত্তরের আহ্বা‌য়ক বীর মুক্তিযোদ্ধা মো. তৈয়বুর রহমান, সদস্য সচিব মো. সুলতান আহমেদ সেলিম।


আরও খবর