আজঃ বুধবার ২৫ মে ২০২২
শিরোনাম

নেত্রকোনায় প্রতিপক্ষের বল্লমের আঘাতে দর্জির মৃত্যু

প্রকাশিত:বৃহস্পতিবার ১২ মে ২০২২ | হালনাগাদ:বৃহস্পতিবার ১২ মে ২০২২ | ৩৯০জন দেখেছেন
দর্পণ নিউজ ডেস্ক

Image

নেত্রকোনায় দনাচাপুর গ্রামে বৃষ্টির সময় বাড়ির পানি ফিশারির পুকুরে নামার প্রতিবাদ করায় প্রতিপক্ষের বল্লমের আঘাতে বাবুল দত্ত (৫৫) নামে এক দর্জির মৃত্যু হয়েছে। বৃহস্পতিবার (১১ মে) সকালে নেত্রকোনা জেলার কেন্দুয়া উপজেলায় নওপাড়া ইউনিয়নের দনাচাপুর গ্রামে এ ঘটনা ঘটে।

নিহত বাবুল দত্ত দনাচাপুর গ্রামের প্রবোদ দত্তের ছেলে। তিনি পেশায় একজন দর্জি। পাশাপাশি তিনি ফিসারিতে মাছ চাষও করেতেন।

পুলিশ জানায়, দনাচাপুর গ্রামের সাবেক ইউপি সদস্য সুবল দেব ও তাদের পরিবারের লোকজনের বাড়ির বৃষ্টির পানি প্রতিবেশী বাবুল দত্তদের ফিশারি পুকুরে যাওয়ার কারণে তারা ক্ষতিগ্রস্ত হচ্ছিলেন। বৃহস্পতিবার সকালে বৃষ্টির পানি ফিসারিতে যাওয়ার কারণে বাবুল দত্ত ৭টার দিকে সুবলদের বাড়িতে গিয়ে এর প্রতিবাদ জানায়। এ নিয়ে বাবুল দত্তের সঙ্গে সুবল দেবের ঝগড়া শুরু হয়। ঝগড়ার এক পর্যায়ে সুবল দেব ও তাদের লোকজন দেশীয় অস্ত্রা নিয়ে বাবুল দত্তের ওপর হামলা করে। এ সময় প্রতিপক্ষের বল্লমের আঘাতে বাবুল দত্ত গুরুতর আহত হন। আশপাশের লোকজন মুমূর্ষ অবস্থায় বাবুলকে উদ্ধার করে কেন্দুয়া উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নিয়ে গেলে কর্তব্যরত চিকিৎসক মৃত ঘোষণা করেন।

কেন্দুয়া থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি তদন্ত) মীর মাহবুর রহমান বলেন, ঘটনাস্থলে পুলিশ পাঠানো হয়েছে। মরদেহ ময়নাতদন্তের জন্য নেত্রকোনা আধুনিক সদর হাসপাতাল মর্গে পাঠানো হয়েছে। অভিযুক্তদের আটকের চেষ্টা করা হচ্ছে।


আরও খবর



কানাডায় প্রচণ্ড ঘূর্ণিঝড়, ৯ লাখ বাড়িঘর বিদ্যুৎ বিচ্ছিন্ন

প্রকাশিত:রবিবার ২২ মে 20২২ | হালনাগাদ:রবিবার ২২ মে 20২২ | ২৩৫জন দেখেছেন
দর্পণ নিউজ ডেস্ক

Image

কানাডার পূর্বাঞ্চলীয় অন্টারিও ও কুইবেক প্রদেশে প্রবল ঝড়ের কারণে ৪ জনের মুত্যু এবং প্রায় ৯ লাখ বাড়িঘর বিদ্যুতহীন হয়ে পড়েছে। এক প্রতিবেদনে এমন তথ্য জানিয়েছে ভারতীয় সংবাদমাধ্যম এনডিটিভি।

অন্টারিও পুলিশ টুইটারে বলেছে, গ্রীষ্মকালীন শক্তিশালী বজ্রঝড়ের কারণে তিন জনের মৃত্যু এবং আরো অনেকে আহত হয়েছে। গাছ উপড়ে পড়ে ট্রেলারের ওপর দাঁড়ানো এক ব্যক্তির মৃত্যু হয়েছে, সত্তোরোর্ধ এক নারী হাঁটার সময় গাছ ভেঙ্গে পড়লে তার মৃত্যু হয় এবং অটোয়ায় ঝড়ের কবলে পড়ে আরো একজনের মৃত্যু হয়েছে। অপর এক পঞ্চাশোর্ধ নারী অটোয়া নদীতে ঝড়ের মধ্যে নৌকা ডুবিতে মারা গেছে।

স্থানীয় বিদ্যুৎ সরবরাহকারী হাইড্রো ওয়ান এবং হাইড্রো কুইবেক জানায়, শনিবার রাতে দুই প্রদেশের প্রায় ৯ লাখ বাড়িঘর বিদ্যুতহীন হয়ে পড়ে।


আরও খবর



পানি কমলেও তীব্র হচ্ছে যমুনার ভাঙন

প্রকাশিত:মঙ্গলবার ২৪ মে ২০২২ | হালনাগাদ:মঙ্গলবার ২৪ মে ২০২২ | ১৫০জন দেখেছেন
দর্পণ নিউজ ডেস্ক

Image

সিরাজগঞ্জ হার্টপয়েন্টে গত ১২ ঘণ্টায় যমুনা নদীর পানি ১০ সেন্টিমিটার কমেছে। মঙ্গলবার সকালে এখানে পানি ছিল ১২.৩৫ সেন্টিমিটার। বিকালে তা কমে গিয়ে ১২.২৫ সেন্টিমিটারে দাঁড়িয়েছে। সিরাজগঞ্জ পানি উন্নয়ন বোর্ডের গেজ রিডার হাসানুর রহমান এ তথ্য জানিয়েছেন। তিনি বলেন, গত ১২ ঘণ্টায় ১০ সেন্টিমিটার পানি কমে যাওয়ায়, নদীর তীরবর্তী এলাকায় ভাঙন আরও বৃদ্ধি পেয়েছে।

এদিকে যমুনায় বন্যার পানি কমতে থাকায় শাহজাদপুর উপজেলার জালালপুর ইউনিয়নের আরকান্দি, ঘাটাবাড়ি, জালালপুর, পাকুরতলা, কৈজুরি ইউনিয়নের ভেকা ও হাট পাচিল গ্রামে যমুনা নদীর ভাঙন আরও তীব্র আকার ধারণ করেছে। গত ২৪ ঘন্টায় এ ৬ গ্রামের অন্তত অর্ধশতাধিক বাড়িঘর যমুনা নদীগর্ভে বিলীন হয়ে গেছে। গৃহহীন হয়ে পড়েছে প্রায় ২ শাতাধিক মানুষ।

গত ২৪ ঘন্টায় পাচিল গ্রামে অন্তত ২০টি বাড়িঘর নদীগর্ভে বিলীন হয়েছে। এছাড়া অন্যান্য গ্রাম মিলিয়ে প্রায় অর্ধশত বাড়িঘর যমুনাগর্ভে চলে গেছে। সর্বস্ব হারিয়ে নিঃস্ব এসব অসহায় মানুষ শিশুসন্তানদের নিয়ে খোলা আকাশের নিচে মানবেতর জীবনযাপন করছে।  তাদের অভিযোগ চলতি পাচিল-আরকান্দি যমুনার তীর সংরক্ষণ বাঁধ নির্মাণ কাজের ঠিকাদারের লোকজন স্থানীয় দালালদের মাধ্যমে ভাঙ্গণ কবলিত বাড়িঘর রক্ষায় বালির বস্তা ফেলার নাম করে জন প্রতি ২০ হাজার টাকা থেকে ৩০ হাজার টাকা করে নিলেও শেষ পর্যন্ত দাবি অনুযায়ী আরও টাকা না দেয়ায় বস্তা ফেলা হয়নি। ফলে চোখের সামনে তাদের বাড়িঘর যমুনা নদীগর্ভে বিলীন হয়ে গেছে।

তারা আরও বলেন, সময়মতো বস্তা ফেলা হলে তাদের আজ এ অবস্থা হতো না। এজন্য তারা ঠিকাদারের লোকজনকে দায়ী করেন। এ বিষয়ে কথা বলতে চাইলে ঠিকাদারের লোকজন কেউ কথা বলতে রাজি হননি। ফলে তাদের বক্তব্য পাওয়া যায়নি।এ বিষয়ে কৈজুরি ইউনিয়নের চেয়ারম্যান মোয়াজ্জেম হোসেন খোকন বলেন, পাচিল গ্রামে যমুনা নদীর তীর সংরক্ষণ কাজের ঠিকাদারের গাফিলতিতে এ বছর গ্রামের মানুষ নদী ভাঙনের কবলে পড়ে নিঃস্ব হয়েছে। তারা সময়মতো বস্তা ফেললে এ ক্ষতি হতো না।

অপরদিকে জালালপুর গ্রামের আলহাজ আলী, কামরুল ইসলাম, মহির মেম্বর, লালচান বলেন, ভাঙনে ক্ষতিগ্রস্তদের পাশে এখনো কেউ এসে দাঁড়ায়নি ফলে তাদের দিন কাটছে অর্ধাহার-অনাহারে। তারা রোদ-বৃষ্টিতে ভিজে মানবেতর জীবনযাপন করছে।

এ বিষয়ে জালালপুর ইউনিয়নের চেয়ারম্যান আলহাজ সুলতান মাহমুদ জানান, তিনি স্থানীয় ইউপি সদস্যদের নিয়ে ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেছেন। এদের জন্য দ্রুত সাহায্য সহযোগিতা চেয়ে ঊর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষকে বিষয়টি অবহিত করেছি। কিন্তু এখনো কোনো বরাদ্দ পাইনি। পেলে ক্ষতিগ্রস্তদের মাঝে বিতরণ করা হবে।

এ বিষয়ে শাহজাদপুর উপজেলা প্রকল্প বাস্তবায়ন কর্মকর্তা আবুল কালাম আজাদ বলেন, সরেজমিন এলাকা পরিদর্শন করে এ বিষয়ে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

 


আরও খবর



ঢাকায় ভারতের পররাষ্ট্রমন্ত্রী জয়শঙ্কর

প্রকাশিত:বৃহস্পতিবার ২৮ এপ্রিল ২০২২ | হালনাগাদ:বৃহস্পতিবার ২৮ এপ্রিল ২০২২ | ৩৭০জন দেখেছেন
দর্পণ নিউজ ডেস্ক

Image

ঢাকায় পৌঁছেছেন ভারতের পররাষ্ট্রমন্ত্রী জয়শঙ্কর। বৃহস্পতিবার (২৮এপ্রিল) দুপুর ২ টা ১৫ মিনিটে রাজধানীর কুর্মিটোলায় বিমান বাহিনী ঘাঁটি বঙ্গবন্ধুতে তাঁকে স্বাগত জানান বাংলাদেশের পররাষ্ট্রমন্ত্রী ড. এ কে আব্দুল মোমেন।

জয়শঙ্কর বিকেল ৪টায় গণভবনে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সঙ্গে সাক্ষাৎ করবেন।

এরপর বিকেল ৫টায় ফরেন সার্ভিস অ্যাকাডেমিতে বাংলাদেশের পররাষ্ট্রমন্ত্রী ড. এ কে আবদুল মোমেনের সঙ্গে বৈঠক করবেন ভারতের পররাষ্ট্রমন্ত্রী। পরে পররাষ্ট্রমন্ত্রী ফরেন সার্ভিস অ্যাকাডেমিতে জয়শঙ্করের সম্মানে ইফতার এবং নৈশভোজের আয়োজন করবেন।

এর আগে বুধবার ভারতের পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয় জানিয়েছে, জয়শঙ্করের এ সফরকে দুই দেশের মধ্যে দ্বিপক্ষীয় উচ্চপর্যায়ের সফর এবং সম্পর্ক এগিয়ে নেওয়ার প্রচেষ্টা হিসেবে দেখা যেতে পারে।

এ বিষয়ে পররাষ্ট্রমন্ত্রী ড. এ কে আব্দুল মোমেন বলেন, ভারতের পররাষ্ট্রমন্ত্রী ড. এস. জয়শঙ্কর কিছু ভালো খবর নিয়ে আসবেন বলে আশা করছি। সুসংবাদের বিষয়ে বিস্তারিত না জানিয়ে তিনি বলেন, সম্ভবত তিনি (জয়শঙ্কর) সুসংবাদ নিয়ে আসবেন। তিনি আমাদের চমক দেবেন।

কী বিষয়ে আলোচনা হতে পারে জানতে চাইলে তিনি বলেন, অমীমাংসিত বিষয় এবং ভবিষ্যৎ সহযোগিতা নিয়ে সবসময় আলোচনা হয়। এরমধ্যে পানি, বাণিজ্য, কানেক্টিভিটি, সীমান্ত ব্যবস্থাপনাসহ অন্যান্য বিষয়গুলো রয়েছে।


আরও খবর



জাকাতের হিসাব করবেন কীভাবে

প্রকাশিত:শুক্রবার ২৯ এপ্রিল ২০২২ | হালনাগাদ:শুক্রবার ২৯ এপ্রিল ২০২২ | ৪৪৫জন দেখেছেন
দর্পণ নিউজ ডেস্ক

Image

নবীজির (সা.) ঘোষণা অনুযায়ী, রমজানে একটি নফল ইবাদতে একটি ফরজের সমান সওয়াব পাওয়া যায়। আর একটি ফরজ ইবাদতে মেলে সত্তর গুণ সওয়াব। জাকাত যেহেতু ফরজ ইবাদত, তাই এক হাজার টাকা জাকাত হিসেবে আদায় করা হলে সত্তর হাজার টাকা জাকাত আদায়ের সওয়াব পাওয়া যায় রমজানে। এ কারণে অনেকেই জাকাত আদায়ের জন্য বেছে নেন পবিত্র রমজান মাস।

যেসব ক্ষেত্রে জাকাত দিতে হয় :

জাকাত দিতে হয় স্বর্ণের, রুপার, নগদ সম্পদের, ব্যবসায়িক সম্পদের, জমাকৃত সম্পদের, উৎপাদিত কৃষি ফসলের। চারণভূমিতে চড়ে বেড়ায় এমন গরু, ছাগল, উট, দুম্বা যখন জাকাত ফরজ হওয়ার পরিমাণে হবে তখনও জাকাত দিতে হবে। ব্যাংকে জমাকৃত যেকোনো ধরনের টাকা জাকাতের সম্পদ হিসাবে গণনায় আসবে। এমনকি ফিক্সড ডিপোজিট হলেও মূল জমাকৃত টাকার জাকাত দিতে হবে। হজের জন্য জমাকৃত টাকার জাকাত দিতে হবে। তবে হজ কর্তৃপক্ষ বা হজ এজেন্টের কাছে টাকা জমা দেওয়া হয়ে গেলে অফেরতযোগ্য টাকার জাকাত লাগবে না।

যারা শেয়ার ব্যবসা করেন তারা শেয়ারের মার্কেট ভ্যালুর ওপর জাকাত দেবেন। বীমা থেকে যখন অর্থ পাওয়া যাবে তখন বিগত বছরসহ জাকাত আদায় করতে হবে। হারিয়ে যাওয়া, চুরি বা ছিনতাই হয়ে যাওয়া সম্পদে জাকাত নেই। ফেরত পাওয়ার সম্ভাবনা নেই এমন ঋণেরও জাকাত নেই। তবে এসব ফেরত পেলে শুধু সংশ্লিষ্ট বছরের জাকাত দিতে হবে। বিগত বছরের জাকাত দিতে হবে না।

বাড়িওয়ালার কাছে অগ্রিম ভাড়া হিসাবে জমাকৃত টাকার, দোকানের জন্য জামানতের টাকার জাকাত দিতে হবে। ব্যবসার সম্পদের ক্ষেত্রে জাকাত গণনায় কারখানা বা দোকানের মেশিনারিজের মূল্য ধরা হয় না। এমনিভাবে দোকান বা অফিস ডেকোরেশনের জিনিসপত্রের মূল্য জাকাতের হিসাবে আসে না। এসব ক্ষেত্রে শুধু কোম্পানি, কারখানা বা দোকানের আয় জাকাতের সম্পদ হিসেবে গণ্য হবে। কারখানার কাঁচামাল যেমন প্রেসের কালি, বস্ত্রকলের তুলা-সুতার মূল্যের জাকাত দিতে হবে।

বাড়ি ভাড়া দিলে শুধু ভাড়া থেকে আয়ের ওপর জাকাত দিতে হবে। বাড়ির মূল্যের ওপর জাকাত নেই। গাড়ি ভাড়ার ব্যবসায়ীরা গাড়ি থেকে আয়ের ওপর জাকাত দেবেন। গাড়ির মূল্যের ওপর জাকাত নেই। তবে যারা গাড়ি বিক্রির ব্যবসা করেন তারা গাড়ির মূল্যের ওপর জাকাত দেবেন। এমনিভাবে ফ্ল্যাট ও প্লট ব্যবসায়ীরাও ফ্ল্যাট ও প্লটের মূল্যের ওপর জাকাত দেবেন। নিজে ব্যবহারের জন্য প্লট কেনার জন্য টাকা জমা করলে বা কিস্তি দিলে যেহেতু তখনও সেই টাকার মালিক নিজেই থাকে তাই তা জাকাতের সম্পদ হিসেবে গণ্য হবে। তবে জমি ক্রয় চূড়ান্ত হয়ে গেলে সেই জমির মূল্যের জাকাত দিতে হবে না।

মুরগির ফার্ম থেকে ডিম উৎপাদন উদ্দেশ্য হলে ডিমের মূল্যের জাকাত দিতে হবে। মুরগির মূল্যের জাকাত দিতে হবে না। মুরগি এ ক্ষেত্রে কারখানার মেশিনারিজের মতো গণ্য হবে। তবে বয়লার ফার্ম হলে যাতে মুরগির বাচ্চা বড় করা হয় তাতে উৎপাদিত-পালিত মুরগির বাচ্চার মূল্যের জাকাত দিতে হবে। ফিসারিজের জন্য ভাড়াকৃত বা ক্রয়কৃত জমি বা পুকুরের মূল্যের জাকাত দিতে হবে না। তবে বিক্রিত মাছের মূল্যের ওপর জাকাত আসবে।

যেসব ক্ষেত্রে জাকাত দিতে হয় না :

নিত্যপ্রয়োজনীয় জিনিস, ব্যবহৃত কাপড়, ঘরোয়া ইলেকট্রনিক জিনিসপত্র যেমন ফ্রিজ, এসি, ফ্যান, কম্পিউটার, ওভেন, ওয়াশিং মেশিন ইত্যাদি, থাকার জন্য বাড়ি, আগামী ফসল না পাওয়া পর্যন্ত পারিবারিক খাবারের জন্য জমাকৃত ধান, গম, চাল, লেখাপড়ার জন্য বইপত্র এবং কৃষি সরঞ্জামাদি যেমন ট্রাক্টর, মাড়াই মেশিন ইত্যাদিতে জাকাত ফরজ হয় না।

জাকাতের সম্পদ থেকে যা বিয়োগ হবে :

ঋণের টাকায় জাকাত ওয়াজিব হয় না। বরং জাকাতের হিসাব করার সময় জাকাতযোগ্য সম্পদের হিসাব থেকে ঋণের টাকা বা সম্পদ বিয়োগ হবে। তবে দীর্ঘমেয়াদি ঋণ হলে শুধু আগামী এক বছরে প্রদেয় ঋণের টাকা বিয়োগ হবে। ব্যবসার সম্পদে জাকাত হিসাব করার সময় মহাজন বা মাল সরববাহকারীকে প্রদেয় টাকা বা সম্পদ বাদ যাবে। ডায়মন্ডের অলঙ্কার ব্যবহার করলে জাকাত দিতে হয় না। তবে ডায়মন্ডের ব্যবসায়ীরা ডায়মন্ডের মূল্যের জাকাত দেবেন।

ব্যবসায়িক সম্পদে ২.৫ ভাগ জাকাত দিতে হয়। ব্যবসার উদ্দেশ্যে কোনো বস্তু ক্রয় করার পর তা ব্যক্তিগত ব্যবহারে নিলে তার জাকাত দিতে হবে না। আবার ব্যক্তিগত ব্যবহারের ইচ্ছায় ক্রয়কৃত কোনো বস্তু নিয়ে ব্যবসা করার ইচ্ছা করলেই তা ব্যবসায়িক বস্তু হবে না। যখন তা বিক্রি করবে তখনই তা ব্যবসায়িক বস্তু হিসেবে গণ্য হবে। কোনো বস্তু বা অলঙ্কার বন্ধক রেখে টাকা উঠালে বন্ধকি বস্তু জাকাতের হিসাবে আসবে না। প্রভিডেন্ট ফান্ডে যা বাধ্যতামূলকভাবে কেটে নেওয়া হয়, এর জাকাত দিতে হয় না। যদি নিজের পক্ষ থেকে অতিরিক্ত টাকা কাটানো হয় বা জমা রাখা হয় তাহলে অতিরিক্তের ওপর জাকাত আসবে।

মোট জাকাতযোগ্য সম্পদ থেকে যা বিয়োগ দেওয়ার থাকে তা বিয়োগ করে মোট প্রদেয় জাকাতের সম্পদের ৪০ ভাগের ১ ভাগ বা ২.৫ ভাগ টাকা বা সম্পদ সারা বছরে জাকাত দিতে হবে।


আরও খবর
প্রথম হজ ফ্লাইট ৫ জুন শুরু

মঙ্গলবার ২৪ মে ২০২২




আরব আমিরাতে চাঁদ দেখা গেছে

প্রকাশিত:রবিবার ০১ মে ২০২২ | হালনাগাদ:রবিবার ০১ মে ২০২২ | ৩৮৫জন দেখেছেন
দর্পণ নিউজ ডেস্ক

Image

সংযুক্ত আরব আমিরাতের আকাশে আজ রবিবার পবিত্র শাওয়াল মাসের চাঁদ দেখা গেছে। ফলে দেশটিতে ঈদুল ফিতর উদযাপিত হবে আগামীকাল সোমবার (২ মে)। 

ইন্টারন্যাশনাল অ্যাস্ট্রনমি সেন্টার (আইএসি) রবিবার ঘোষণা করেছে যে, আবুধাবির আকাশে শাওয়াল মাসের চাঁদ উঠেছে।

তবে ধুলোময় আবহাওয়ার কারণে খালি চোখে ঈদের চাঁদ দেখা যায়নি। জ্যোতির্বিদ্যার কৌশল ব্যবহার করে চাঁদ ওঠার বিষয়টি নিশ্চিত হয়েছে আইএসি।এর মানে আগামীকাল, ২ মে (সোমবার) ঈদুল ফিতর হবে।


আরও খবর