আজঃ মঙ্গলবার ২৮ জুন ২০২২
শিরোনাম

নাসিরনগরে বন্যা পরিস্থিতির অবনতি, খোলা হয়েছে ২৬টি আশ্রয় কেন্দ্র

প্রকাশিত:বুধবার ২২ জুন 20২২ | হালনাগাদ:বুধবার ২২ জুন 20২২ | ৩০৫জন দেখেছেন

Image

ব্রাহ্মণবাড়িয়া প্রতিনিধি:

ব্রাহ্মণবাড়িয়ার নাসিরনগরে বন্যা পরিস্থিতির আরো অবনতি হয়েছে। গত কয়েকদিনের টানা বৃষ্টি ও উজান থেকে নেমে আসা পাহাড়ি ঢলে হাওর বেষ্টিত এই উপজেলার নিম্নাঞ্চল প্লাবিত হয়েছে। পানি বৃদ্ধি অব্যাহত থাকায় প্রতিদিনই বাড়ছে প্লাবিত হওয়া এলাকার সংখ্যা। ক্ষতিগ্রস্থদের অভিযোগ তারা সরকারিভাবে কোনো ধরণের সহযোগিতা পাচ্ছেন না। তবে উপজেলা প্রশাসনের দাবি ক্ষতিগ্রস্থদের সহায়তা করা হচ্ছে।

উপজেলা প্রশাসন ও স্থানীয় বাসিন্দারা জানান, দিন দিন উপজেলায় বন্যা পরিস্থিতি অবনতি হচ্ছে। ইতিমধ্যেই প্রায় ৩০ কিলোমিটার আধাপাকা-পাকা সড়ক পানিতে তলিয়ে গেছে। উপজেলার প্রায় ৭০টি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের চারপাশে পানি উঠেছে। বেশ কিছু স্কুলেও পানি ঢুকেছে। এতে করে পাঠদান ব্যাহত হচ্ছে। শিক্ষা অফিস থেকে কোন আদেশ না পাওয়ায় ঝুঁকি নিয়ে পানি ভেঙ্গে শিক্ষক-শিক্ষার্থীরা স্কুলে যাচ্ছেন। বন্যা কবলিত এলাকাগুলোতে বিশুদ্ধ খাবার পানি, গো-খাদ্যসহ শুকনো খাবারের সংকট দেখা দিচ্ছে। পানি বৃদ্ধি অব্যাহত থাকায় বাড়ি-ঘর তলিয়ে যাওয়ার ভয়ে মানুষের মধ্যে শঙ্কার সৃষ্টি হয়েছে।

খোঁজ নিয়ে জানা গেছে উপজেলার বুড়িশ্বর, কুন্ডা, ভলাকুট, গোয়ালনগর, ধরমন্ডল, গোকর্ণ ও চাপরতলা ইউনিয়নের বেশীর ভাগ এলাকাই প্লাবিত হয়েছে। ইতিমধ্যেই উপজেলা প্রশাসনের পক্ষ থেকে ২৬টি আশ্রয় কেন্দ্র খোলা হয়েছে। এছাড়া উপজেলার বুড়িশ্বর ইউনিয়নের শ্রীঘর এসএসডিপি উচ্চ বিদ্যালয় আশ্রয় কেন্দ্রে হিসেবে ব্যবহৃত হচ্ছে। এখন পর্যন্ত আশ্রয় কেন্দ্রগুলোতে ৬৯টি পরিবার আশ্রয় নিয়েছে।

উপজেলা শিক্ষা অফিসার মোঃ ইকবাল মিয়া বলেন, উপজেলার ১২৩টি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের মধ্যে ৭০টি বিদ্যালয়ের চারপাশে পানি উঠেছে। কিছু বিদ্যালয়ের ভেতরেও পানি ঢুকেছে। স্কুল বন্ধ করার জন্য সরকারিভাবে কোন নির্দেশনা আসেনি। আদেশ আসলে ব্যবস্থা নেয়া হবে।

উপজেলা কৃষি অফিসার আবু সাঈদ তারেক বলেন, বন্যায় উপজেলার প্রায় ৩ হাজার হেক্টর বোনা আমন ধানি জমির ধান পানির নীচে সম্পূর্ন এবং ১ হাজার হেক্টর ধানি জমি আংশিক পানির নিচে তলিয়ে গেছে। তাছাড়া ৮ হেক্টর শাকসবজির জমি ও তলিয়ে গেছে। তিনি বলেন, দ্রুত পানি নেমে গেলে ধানের কোন ক্ষতি হবে না।

উপজেলা নির্বাহী অফিসার (ভারপ্রাপ্ত) মোনাব্বর হোসেন বলেন, বন্যা পরিস্থিতির কিছুটা অবনতি হয়েছে। আমরা প্রতিদিন বন্যা কবলিত এলাকায় যাচ্ছি। এখন পর্যন্ত আশ্রয় কেন্দ্রগুলোতে ৬৯টি পরিবার আশ্রয় নিয়েছে।


আরও খবর



তিন বিশ্বরেকর্ড করল পদ্মা সেতু

প্রকাশিত:বৃহস্পতিবার ০২ জুন 2০২2 | হালনাগাদ:বৃহস্পতিবার ০২ জুন 2০২2 | ৬১০জন দেখেছেন
দর্পণ নিউজ ডেস্ক

Image

পদ্মা সেতু দেশের দীর্ঘতম সেতু। পানিপ্রবাহের দিক থেকে অ্যামাজনের পর পদ্মা নদীই বিশ্বে বৃহত্তম। প্রমত্তা পদ্মায় সেতু তৈরিতে তিন-তিনটি বিশ্বরেকর্ড হয়েছে। কারিগরি ও প্রাকৃতিক বাধা জয় করে নিজস্ব অর্থায়নে নির্মিত পদ্মা সেতু শুধু বাংলাদেশের অর্থনৈতিক সক্ষমতার প্রতীক নয়, সেতুটি অভূতপূর্ব।

পদ্মা সেতুতে পিলারের (খুঁটি) সংখ্যা ৪২। দুটি পিলার নদীর দুই তীরে। বাকি ৪০টি নদীর পানিতে। পিলার নির্মাণে ৯৮ থেকে ১২২ মিটার গভীর পাইলিং করা হয়েছে, যা বিশ্বরেকর্ড। কোনো সেতু নির্মাণে এত গভীর পাইলিং করতে হয়নি। পদ্মা সেতুর পাইলগুলো তিন মিটার ব্যাসার্ধের। অন্য কোনো সেতুর পাইলের ব্যাসার্ধও এত নয়। পদ্মা সেতুর প্রতিটি পাইল ৫০ মিলিমিটার পুরু স্টিলের পাইপে মোড়া। হাইড্রোলিক হ্যামারের মাধ্যমে পিটিয়ে পাইল পাইপগুলো নদীতে পোঁতা হয়েছে। বিশ্বে কোনো সেতু নির্মাণে এত গভীরে স্টিল পাইপ পুঁততে হয়নি।

সেতুর দুই তীরে পিলারে পাইলের সংখ্যা ১২টি করে। নদীতে ৪০টি পিলার নির্মাণে প্রতিটিতে ছয়টি করে পাইল করার পরিকল্পনা ছিল। কিন্তু ১০০ মিটার গভীরেও পাথরের স্তর না পাওয়ায় ৬, ৭, ৮, ৯, ১০, ১১, ১২, ২৬, ২৭, ২৯, ৩০, ৩১, ৩২ ও ৩৫ নম্বর পিলারে একটি করে বাড়তি পাইল করতে হয়েছে। ফলে পদ্মা সেতুর জন্য সব মিলিয়ে ২৮০টি পাইল করতে হয়েছে।

পদ্মা সেতু আরেক বিশ্বরেকর্ড গড়েছে বিয়ারিংয়ের ক্ষমতায়। পিলার ও সেতুর নিচের অংশের (লোয়ার ডেক) পাটাতনের মাঝে রয়েছে ১০ হাজার টনের 'ফ্রিকশন পেন্ডুলাম বিয়ারিং'। এত শক্তিশালী বিয়ারিং পৃথিবীর আর কোনো সেতুতে নেই। বিয়ারিংয়ের সক্ষমতার কারণে ৯ মাত্রার ভূমিকম্পেও টিকে থাকবে পদ্মা সেতু।

পদ্মা সেতু নির্মাণে নদীর দুই তীরে ১৪ কিলোমিটার তীর বাঁধানো হয়েছে। প্রায় ৯ হাজার কোটি টাকা ব্যয় হয়েছে নদীশাসনে। এত বেশি ব্যয় আর কোনো সেতু তৈরির নদীশাসনে করতে হয়নি। নদীশাসনে ১ কোটি ৩৩ লাখ কংক্রিট ব্লক ব্যবহার করা হয়েছে। সাড়ে চার কোটি জিও ব্যাগভর্তি বালু ফেলা হয়েছে।

আগামী ২৫ জুন বহুল প্রতীক্ষিত পদ্মা সেতুতে যান চলাচলের উদ্বোধন করবেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। তবে ২৪ বছর আগে ১৯৯৮ সালে সেতুর পরিকল্পনা করে প্রাক-সমীক্ষা করা হয়। দুই যুগে নানা চড়াই-উতরাই পেরিয়ে স্বপ্নের পদ্মা সেতু এখন বাস্তব।

নিউজ ট্যাগ: পদ্মা সেতু

আরও খবর



বান্দরবানে পাহাড় থেকে পা পিছলে পড়ে ১ জনের মৃত্যু

প্রকাশিত:মঙ্গলবার ৩১ মে ২০২২ | হালনাগাদ:মঙ্গলবার ৩১ মে ২০২২ | ৪২৫জন দেখেছেন
দর্পণ নিউজ ডেস্ক

Image

বান্দরবানের বাকীছড়ায় পাহাড়ে ঢালু পথ থেকে পড়ে মেমং মারমা (৫৫) নামে এক জনের মৃত্যু হয়েছে। সোমবার (৩০ মে) বিকালে এ ঘটনা ঘটে।

নিহত মেমং মার্মা রোয়াংছড়ি উপজেলার বাসিন্দা।

আইনশৃঙ্খলা বাহিনী ও স্থানীয়রা জানায়, বান্দরবান সদর উপজেলার কুহালং ইউনিয়নের বাকীছড়ায় পাহাড়ের ঢালু পথে পায়ে হেঁটে আত্মীয়ের বেড়াতে যাচ্ছিলেন রোয়াংছড়ি উপজেলার মেমং মারমা। বৃষ্টিতে পিচ্ছিল হয়ে যাওয়া পাহাড়ি পথ থেকে পা পিছলে ঝিরিতে পড়ে যান তিনি। এতে ঘটনাস্থলেই তার মৃত্যু হয়। খবর পেয়ে পুলিশ ও স্থানীয়রা ঘটনাস্থলে গিয়ে লাশ উদ্ধার করে।

ঘটনার সত্যতা নিশ্চিত করে বান্দরবান সদর থানার এসআই কারিমুজ্জামান জানান, বাকীছড়াতে পাহাড়ের ঢালু পথ দিয়ে হেঁটে যাওয়ার সময় পা পিছলে খাদে পড়ে একজনের মৃত্যু হয়েছে। লাশ উদ্ধার করে ময়নাতদন্তের জন্য মর্গে পাঠানো হয়েছে।


আরও খবর



যুক্তরাষ্ট্রে হাসপাতালের মধ্যে গোলাগুলি, নিহত ৪

প্রকাশিত:বৃহস্পতিবার ০২ জুন 2০২2 | হালনাগাদ:বৃহস্পতিবার ০২ জুন 2০২2 | ৩৩৫জন দেখেছেন
দর্পণ নিউজ ডেস্ক

Image

যুক্তরাষ্ট্রের ওকলাহোমা অঙ্গরাজ্যের তুলসা শহরে একটি মেডিকেল সেন্টারের বন্দুকধারীর গুলিতে মারা গেছেন চার জন। স্থানীয় সময় বুধবার (১ জুন) রাইফেল ও হ্যান্ডগান নিয়ে সশস্ত্র এক ব্যক্তি হামলা চালায় ওই মেডিকেল সেন্টারে।

মার্কিন পুলিশের বরাত দিয়ে বৃহস্পতিবার (২ জুন) এই তথ্য জানিয়েছে আন্তর্জাতিক গণমাধ্যম। হামলায় নিহতদের মধ্যে কর্মচারী ও রোগীরাও রয়েছেন বলে ধারণা করা হচ্ছে।তুলসার ডেপুটি পুলিশ প্রধান জোনাথন ব্রুকস সাংবাদিকদের বলেন, অভিযুক্ত বন্দুকধারীও মারা গেছেন। মূলত আত্মঘাতী আঘাতের কারণেই প্রাণ হারিয়েছেন ওই অভিযুক্ত।

ব্রুকস আরও বলেছেন, পুলিশ হামলাকারী লোকটির পরিচয় শনাক্তের চেষ্টা করছে। তার বয়স ৩৫ থেকে ৪০ বছরের মধ্যে বলেও জানিয়েছেন তিনি। মেডিকেল সেন্টারে গোলাগুলির সময় ফোন পেয়ে তিন মিনিটের মধ্যে কর্মকর্তারা ঘটনাস্থলে পৌঁছান। এর পাঁচ মিনিট পর সেখানে হামলার শিকার কয়েকজন ব্যক্তি ও সন্দেহভাজন হামলাকারীর সঙ্গে যোগাযোগ করেন তারা। অভিযুক্ত বন্দুকধারীর হাতে একটি রাইফেল ও একটি হ্যান্ডগান পাওয়া গেছে।

উল্লেখ্য, তুলসা শহরটি ওকলাহোমা অঙ্গরাজ্যের রাজধানী ওকলাহোমা সিটি থেকে প্রায় ১০০ মাইল (১৬০ কিলোমিটার) উত্তর-পূর্বে অবিস্থিত। শহরটিতে প্রায় ৪ লাখ ১১ হাজার মানুষ বসবাস করেন।


আরও খবর



স্বরূপকাঠিতে কলেজের অবৈধ কমিটি বাতিলের দাবীতে মানববন্ধন বিক্ষোভ

প্রকাশিত:বৃহস্পতিবার ০৯ জুন ২০২২ | হালনাগাদ:বৃহস্পতিবার ০৯ জুন ২০২২ | ২৫৪৫জন দেখেছেন
দর্পণ নিউজ ডেস্ক

Image

হযরত আলী হিরু, স্বরূপকাঠি প্রতিনিধি:

পিরোজপুরের স্বরূপকাঠির ঐতিহ্যবাহী রাজবাড়ী ডিগ্রী কলেজের নবগঠিত আহবায়ক কমিটিকে অবৈধ ঘোষণা করে কমিটি বাতিলের দাবী করে মানববন্ধন ও বিক্ষোভ মিছিল অনুষ্ঠিত হয়েছে। বৃহস্পতিবার (০৯ জুন) দুপুরে কলেজের ছাত্রছাত্রী, অভিবাবক ও সর্বস্তরের জনগনের ব্যানারে কলেজের সম্মুখে ওই কর্মসূচি অনুষ্ঠিত হয়।

ঘন্টাব্যাপী ওই মানববন্ধনে জনপ্রতিনিধি, কলেজের বর্তমান ও প্রাক্তন শিক্ষার্থী, অভিবাবক সহ নানা শ্রেনীর পেশার মানুষ অংশ নেয়। এসময় সংক্ষিপ্ত বক্তব্যে বক্তারা অভিযোগ করেন, গত বছর স্থানীয় সংসদ সদস্য মৎস্য ও প্রাণিসম্পদ মন্ত্রণালয়ের মন্ত্রী শ ম রেজাউল করিমের ডিও লেটার অনুযায়ী গুয়ারেখা ইউনিয়নের মো. জাহিদুল হক উজ্জলকে সভাপতি করে একটি কমিটি করা হয়। সেই কমিটির মেয়াদ এবছরের ৬ জুন শেষ হয়েছে।

মন্ত্রী এ বছর নতুন কমিটিতে  ওই এলাকার পলাশ সিকদারকে সভাপতি করার জন্য ডিও লেটার দেন। কিন্তু কলেজের ভারপ্রাপ্ত অধ্যক্ষ রহিমা খাতুন চলতি বছরের ২২ মে জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয়ের কলেজ পরিদর্শকের কাছে জাহিদুল হক উজ্জলকে আহবায়ক করার প্রস্তাব দিয়ে একটি আবেদনপত্র পাঠান। সেই অনুযায়ী একটি পকেট আহবায়ক কমিটি গঠন করা হয়েছে। তাদের অভিযোগ ভারপ্রাপ্ত অধ্যক্ষ প্রভাবিত হয়ে মন্ত্রীর ডিও লেটারকে উপক্ষা করে ওই কমিটি করেছেন। মানববন্ধনে তারা ভারপ্রাপ্ত অধ্যক্ষের অপসারণ দাবী করেন।

এসময় বক্তব্য দেন শিক্ষক মো. রফিকুল ইসলাম পান্নু, ইউপি সদস্য আসাদুজ্জমান খোকন, অভিবাবক মজিবুর রহমান হাওলাদার, হেমায়ত উদ্দিন ও নুরুল ইসলাম সিকদার প্রমুখ। পরে এক বিক্ষোভ মিছিল কলেজের ক্যাম্পাস প্রদক্ষিণ করে।

এ ব্যাপারে কলেজের সাবেক সভাপতি জাহিদুল হক উজ্জল জানান, আমি যে কমিটিতে ছিলাম সেই কমিটির মেয়াদ চলতি বছরের ৬ জুন শেষ হয়েছে। এখন কলেজের পক্ষ থেকে আমাকে আহবায়ক করে কোন কমিটি করা হয়েছে কিনা আমার জানা নেই তবে কমিটিতে থাকা না থাকা নিয়ে আমার কোন আপত্তি অনাপত্তি নেই।

বিষয়টি নিয়ে কলেজের ভারপ্রাপ্ত অধ্যক্ষ রহিমা খাতুনের কাছে জানতে চাইলে তিনি জানান, যেহেতু কলেজের বর্তমান কমিটির মেয়াদ শেষ হয়েছে তাই নতুন কমিটি করার জন্য জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয়ে একটি আহবায়ক কমিটির জন্য প্রস্তাব পাঠিয় সে অনুযায়ী কমিটি গঠন করা হয়েছে। আহবায়ক কমিটির মাধ্যমই একটি নিয়মিত কমিটি করতে চেয়েছিলাম। এছাড়া তার বিরুদ্ধে অন্য যেসব অভিযোগ আনা হয়েছে সেটা ভিত্তিহীন বলে তিনি দাবী করেন।


আরও খবর



বাবা হওয়ার পর কি বদল আসে পুরুষদের শরীরে

প্রকাশিত:সোমবার ২০ জুন ২০22 | হালনাগাদ:সোমবার ২০ জুন ২০22 | ৪৪৫জন দেখেছেন
দর্পণ নিউজ ডেস্ক

Image

শিশুর জন্মের পর মায়ের শরীর ও মনে নানা রকমের পরিবর্তন আসে। তা নিয়ে গবেষণাও হয় বিস্তর। যেহেতু মাতৃত্বের একটি বড় দিক মা ও সন্তানের স্বাস্থ্যের সঙ্গে জড়িত, তাই সেটা অস্বাভাবিকও নয়। কিন্তু বাবা হওয়ার পর পুরুষদের শরীরে কেমন পরিবর্তন আসে বা আদৌ আসে কি না, তা নিয়ে খুব বেশি গবেষণা হয় না।

সাম্প্রতিক কালে অবশ্য বিষয়টি নিয়ে আলোচনা শুরু হয়েছে। কিছু গবেষণাও দেখাচ্ছে যে সত্যিই, পিতৃত্বের পর পুরুষদের দেহে কিছু কিছু বদল আসা অস্বাভাবিক নয়। নিশ্চিত ভাবে না বলতে পারলেও বিশেষজ্ঞদের ধারণা, এই বদলের পিছনে মূলত রয়েছে বিশেষ কিছু হরমোনের মাত্রার পরিবর্তন। বিশেষ করে টেস্টোস্টেরন হরমোনের মাত্রা নাকি অনেকটাই কমে বাবা হওয়ার পর। এই হরমোন পুরুষদের যৌনলক্ষণগুলিকে স্পষ্ট করে। বিশেষজ্ঞদের কেউ কেউ বলছেন, এই হরমোনের মাত্রা কমে যাওয়া খারাপ নয়, বরং বাবা হিসেবে আরও ভাল হতে সাহায্য করে।

বিশেষজ্ঞদের একাংশের মতে, এই হরমোন মানুষকে আগ্রাসী করে। ফলে হরমোনটির মাত্রা কিছুটা কমে গেলে মানুষ অপেক্ষাকৃত ভাবে ধীর, স্থির হয়ে ওঠে। সন্তানকে সামলাতে যে গুণটি অত্যন্ত জরুরি। পাশাপাশি, এই হরমোন কমে গেলে অক্সিটোসিন নামক একটি হরমোনের মাত্রা বেড়ে যাওয়ার সম্ভাবনা থাকে। সেই হরমোনটিকে লাভ হরমোনও বলা হয়ে থাকে। এই হরমোনের প্রভাবে খুশি থাকে মন। সাম্প্রতিক কিছু গবেষণা বলছে, বাবারা যখন সন্তানের সঙ্গে খেলাধুলো করেন, তখন এই হরমোনের মাত্রা বেড়ে যায় শরীরে।


আরও খবর
বিফ সাসলিক তৈরির রেসিপি

সোমবার ২৭ জুন ২০২২