আজঃ বুধবার ২৮ ফেব্রুয়ারী ২০২৪
শিরোনাম

নালিতাবাড়ীতে পরিবারের ৮ জনকে কুপিয়ে জখমের ঘটনায় নিহত ১

প্রকাশিত:সোমবার ১৪ নভেম্বর ২০২২ | হালনাগাদ:সোমবার ১৪ নভেম্বর ২০২২ | অনলাইন সংস্করণ
দর্পণ নিউজ ডেস্ক

Image

শেরপুরের নালিতাবাড়ী উপজেলায় জমি নি‌য়ে বিরোধের জেরে একই পরিবারের আটজনকে কুপিয়ে জখম করার ঘটনায় জালাল উদ্দীন (৬৫) চিকিৎসাধীন অবস্থায় মারা গেছেন। রবিবার (১৩ নভেম্বর) বিকেলে ঢাকা মেডিকেল ক‌লেজ হাসপাতা‌লে চিকিৎসাধীন অবস্থায় তার মৃত্যু হয়।

এর আগে গত ৩ নভেম্বর বিকেল ৩টার দিকে উপজেলার পোড়াগাঁও ইউনিয়নের পশ্চিম সমেশ্চুড়া জোড়ার পাড় গ্রামের প্রতিপক্ষ নই মিয়া, তার ছেলে শফিকুল ও তাদের লোকজন কু‌পি‌য়ে মারাত্মক জখম করে জালাল উদ্দীনসহ তার পরিবারের আটজনকে।

এ সময় মারাত্মকভাবে আহত হন জালাল উদ্দিন (৬৫), তার স্ত্রী মনোয়ারা বেগম (৫০), তাদের মেয়ে জামেনা খাতুন (৩৩), ছেলে আব্দুর রশিদ (৩৮), মনির হোসেন (২৫), এরশাদ আলী (২২), ছেলে আব্দুর রশিদের স্ত্রী শাহনাজ বেগম (৩০) এবং মনিরের পাঁচ মাসের অন্তঃসত্ত্বা স্ত্রী মর্জিনা বেগম (২২)। 

এ ঘটনায় জালাল উ‌দ্দি‌নের সন্তান বাদী হ‌য়ে না‌লিতাবাড়ী থানায় ১৫ জন‌কে আসামি ক‌রে মামলা ক‌রেন। পু‌লিশ তিনজন আসামিকে গ্রেফতার ক‌রেন। এলাকাবাসী জানায়, অর্পিত ছয় শতাংশ জমি নিয়ে বিরোধ চলছিল ভূমিহীন জালাল উদ্দিন ও প্রতিবেশী নই মিয়ার মধ্যে।

নই মিয়া দাবি করে আসছিলেন, ছয় শতাংশ অর্পিত জমি জালাল উদ্দিন জোর করে ভোগদখল করছেন। এ নিয়ে দীর্ঘদিন ধরে উভয়পক্ষের মধ্যে বিরোধ চলছে। স্থানীয় ইউনিয়ন পরিষদ ও থানায় কয়েক দফা সালিশ হলেও কোনো সুরাহা হয়নি। ৩ নভেম্বর বৃহস্পতিবার নই মিয়ার ছেলে শফিকুলের দেওয়া একটি মামলায় হাজিরা দেওয়ার জন্য জালাল উদ্দিনসহ তার পরিবারের আটজন শেরপুর আদালতে যান।

এ সুযোগে নই মিয়া, তার ছেলে শফিকুল ও সোহান ৩০-৪০ জন লোককে নিয়ে জালাল উদ্দিনের দখলে থাকা জমিতে ঘর তুলতে শুরু করেন। জালাল উদ্দিনরা বাড়ি ফিরলে এ অবস্থা দেখে প্রতিবাদ করলে পূর্ব  থেকে প্রস্তুতি নিয়ে থাকা নই মিয়া, তার ছেলে শফিকুল ও তার লোকজন ধারালো অস্ত্র দিয়ে জালাল উদ্দিন ও তার পরিবারের আটজনকে কুপিয়ে আহত করেন। পরে স্থানীয়দের সহযোগিতায় জালাল উদ্দিনের জামাতা আন্তাজ আলী আহতদের প্রথমে নালিতাবাড়ী উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নেন। আহতদের মধ্যে জালাল উদ্দীন, তার স্ত্রী  মনোয়ারা বেগম, মেয়ে জামেনা খাতুন ও ছেলের বউ শাহনাজ এ চারজনের অবস্থা গুরুতর হওয়ায় তাদের ময়মনসিংহ মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে এবং বাকিদের মধ্যে দুজনকে শেরপুর সদর হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। অপর দুইজন প্রাথমিক চিকিৎসা নিয়ে বাড়ি ফিরে যায়, এদিকে আহত জালাল উদ্দীনের অবস্থা আরো অবনতি  হলে তাকে ৬ নভেম্বর  ময়মনসিংহ  মেডিকেল  কলেজ হাসপাতাল থেকে ঢাকা মেডিকেল  কলেজ হাসপাতালে স্থানান্তর করা হয়, সেখানে  চিকিৎসা চলাকালীন রবিবার বিকেলে তার মৃত্যু হয়।

জালাল উদ্দিনের ছেলে মঞ্জুরুল ইসলাম (২৮) বলেন, আমরা ভূমিহীন, আমাদের নিজস্ব কোনো জমিজমা নেই। স্থানীয় স‌মেশ্চুড়া মৌজার ২১৪ দাগের ছয় শতাংশ জমিসহ ঝোড়ার কিছু সরকারি জমিতে ৫০ বছরের বেশি সময় ধরে বাড়িঘর করে বসবাস করে আসছি। নই মিয়া আমাদের বসত বাড়ি থেকে উচ্ছেদ করার জন্য ষড়যন্ত্র করে আসছিল, গত ৩ নভেম্বর বৃহস্পতিবার তারা আমার বৃদ্ধ বাবা, মা, ভাই, বোন ও ভাবিদের ধারালো অস্ত্র দিয়ে আঘাত করে গুরুতর জখম করে, এ ঘটনায় আমার বাবা ১০ দিন মৃত্যুর সাথে পাঞ্জা লড়ে ঢাকা মেডিকেল এ মারা গেছে। আমি নই মিয়া গংদের বিচার চাই।

এ ব্যাপারে নালিতাবাড়ী সার্কেল এর অতিরিক্ত পুলিশ সুপার আফরোজা নাজনিন বলেন, আমরা বিষটি গুরুত্বের সঙ্গে দেখছি, ঘটনার পরপরই কয়েকজনকে আটক করে জেল হাজতে প্রেরণা করা হয়েছিল। যেহেতু একজন মারা গেছে এখন তদন্তকারী কর্মকর্তা, ওসিসহ আমরা বসে পরবর্তী আইনগত ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে।

নিউজ ট্যাগ: কুপিয়ে জখম

আরও খবর
সিলেট নগরী থেকে গৃহবধূর গলিত লাশ উদ্ধার

বুধবার ২৮ ফেব্রুয়ারী ২০২৪




উখিয়ায় ভেসে আসা মরদেহ থেকে ৯৯টি বুলেট ও ২টি ম্যাগজিন উদ্ধার

প্রকাশিত:রবিবার ১১ ফেব্রুয়ারী ২০২৪ | হালনাগাদ:রবিবার ১১ ফেব্রুয়ারী ২০২৪ | অনলাইন সংস্করণ
মোহাম্মদ ফারুক, কক্সবাজার

Image

মিয়ানমারে চলমান সংঘাতের মধ্যে কক্সবাজারের উখিয়ায় খালের ঝিরি দিয়ে মিয়ানমার থেকে অজ্ঞাত মরদেহের সঙ্গে থাকা ৯৯টি বুলেট ও ২টি ম্যাগজিন উদ্ধার করা হয়েছে।

রবিবার (১১ ফেব্রুয়ারি) ১২টার দিকে উখিয়ার বালুখালি খালে এ মরদেহটি জোয়ারের পানিতে ভেসে আসে। বিষয়টি জানিয়েছেন প্রত্যক্ষদর্শী স্থানীয় বালুখালি এলাকার মুদির দোকানদার মিসবাহ উদ্দিন। ওই মরদেহটি শনিবার (১০ ফেব্রুয়ারি) বালুখালি খালে নাফ নদী হয়ে জোয়ারের পানিতে ভেসে এসেছিল। পরে ভাটার সময় দেখলাম সেটি সরে দূরে চলে গিয়েছিল।

তিনি আরও বলেন, রবিবার মরদেহটি আবারও ভেসে আসলো। এখনো সেটি দেখা যাচ্ছে। এটা দেখার জন্য অনেক লোক জড়ো হয়েছে।

উখিয়া থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মোহাম্মদ শামীম হোসাইন বলেন, ভেসে আসা মরদেহটি খাঁকি রঙের হেলমেড পরিহিত ছিল। কোমরে ব্যাল্ট ছিল, শরীরের সঙ্গে বাঁধা একটি ব্যাগ থেকে ৯৯টি বুলেট, ২টি ম্যাগজিন পাওয়া যায়।

মরদেহটি মিয়ানমার থেকে ভেসে আসতে পারে বলে ধারণা পুলিশের। কারণ সম্প্রতি উখিয়ার সীমান্তবর্তী এলাকায় কোন লোক নিখোঁজ হওয়ার খবর পাওয়া যায়নি।


আরও খবর
সিলেট নগরী থেকে গৃহবধূর গলিত লাশ উদ্ধার

বুধবার ২৮ ফেব্রুয়ারী ২০২৪




সৈকতে একের পর এক ভেসে আসছে মৃত মা কাছিম

প্রকাশিত:শনিবার ২৪ ফেব্রুয়ারী 20২৪ | হালনাগাদ:শনিবার ২৪ ফেব্রুয়ারী 20২৪ | অনলাইন সংস্করণ
জেলা প্রতিনিধি

Image

কক্সবাজার সমুদ্র উপকূল জুড়ে ভেসে আসছে সামুদ্রিক মৃত মা কাছিম। শুক্রবার (২৩ ফেব্রুয়ারি) একদিনে ভেসে এসেছে ২৪টি মৃত মা কাছিম। গত দেড় মাসে সাগরের পানির তোড়ে ভেসে এসেছে ৮৩টি সামুদ্রিক মা কাছিম। মৃত এসব কাছিমের প্রত্যেকটির পেটে ডিম রয়েছে। ভেসে আসা মৃত মা কাছিমগুলোকে পরীক্ষা-নিরীক্ষা করার পর সৈকতের বালিতে পুঁতে ফেলেছেন বাংলাদেশ সমুদ্র গবেষণা ইনস্টিটিউটের কর্মকর্তারা।

উদ্বেগ প্রকাশ করে বাংলাদেশ সমুদ্র গবেষণা ইনস্টিটিউটের (বোরি) জ্যেষ্ঠ বৈজ্ঞানিক কর্মকর্তা মো. তরিকুল ইসলাম জানান, শুক্রবার বেলা ১০টা থেকে সন্ধ্যা ৬টা পর্যন্ত কক্সবাজার সমুদ্রসৈকতের হিমছড়ি থেকে টেকনাফ পর্যন্ত ২৪টি মৃত কচ্ছপ পাওয়া গেছে। গত জানুয়ারি থেকে চলতি মাসের ফেব্রুয়ারি পর্যন্ত ৮৩টি মৃত মা কাছিম ভেসে এসেছে উপকূলে। এসব কাছিমের প্রত্যেকটির পেটে রয়েছে ডিম।

একের পর এক মা কাছিমের মৃত্যু অনুসন্ধানের কথা উল্লেখ করে তিনি বলেন, যে কাছিমগুলো মৃত অবস্থায় পাওয়া গেছে সেগুলোর বেশিরভাগের শরীরে আঘাতের চিহ্ন রয়েছে। এছাড়া কিছু কিছু মৃত কাছিমের শরীরে জেলেদের জাল ও রশি প্যাঁচানো অবস্থায় পাওয়া গেছে।

তরিকুল ইসলাম বলেন, ইতোমধ্যে বোরির একদল গবেষক মৃত মা কাছিমের তথ্য-উপাত্ত সংগ্রহ করে প্রাথমিকভাবে একটি ফলাফল পেয়েছেন। তা হচ্ছে সামুদ্রিক মা কাছিমের এখন প্রজনন মৌসুম। সমুদ্রের বালিয়াড়িতে ডিম দিতে আসার পথে জেলেদের জালে আটকা পড়ে মারা যাচ্ছে।

বাংলাদেশ সমুদ্র গবেষণা ইনস্টিটিউটসহ বিভিন্ন এনজিও সংস্থার সমন্বয়ে এ পর্যন্ত ৭৮টি কাছিম থেকে ৯ হাজার ১০৮টি ডিম সংগ্রহ করা হয়েছে। এসব মা কাছিম সমুদ্রপাড়ে ডিম দিয়ে সুস্থ ও জীবিত অবস্থায় সাগরে ফিরতে সক্ষম হয়েছে। তাই সমুদ্রে মাছ ধরার নৌযান ও জেলেদের গতিবিধিসহ নানাভাবে সচেতনতার কোনও বিকল্প নেই বলে মনে করেন সমুদ্রবিজ্ঞানিরা।


আরও খবর
সিলেট নগরী থেকে গৃহবধূর গলিত লাশ উদ্ধার

বুধবার ২৮ ফেব্রুয়ারী ২০২৪




রমজানে কোনো পণ্যের সংকট হবে না : বাণিজ্য প্রতিমন্ত্রী

প্রকাশিত:শুক্রবার ১৬ ফেব্রুয়ারী ২০২৪ | হালনাগাদ:শুক্রবার ১৬ ফেব্রুয়ারী ২০২৪ | অনলাইন সংস্করণ
নিজস্ব প্রতিবেদক

Image

আগামী রমজানে কোনো পণ্যের সংকট হবে না বলে জানিয়েছেন বাণিজ্য প্রতিমন্ত্রী আহসানুল ইসলাম টিটু। শুক্রবার (১৬ ফেব্রুয়ারি) সকালে টাঙ্গাইলের দেলদুয়ার নিজ বাস ভবনে দলীয় নেতাকর্মীদের সাথে মতবিনিময় শেষে সাংবাদিকদের তিনি এই কথা বলেন।

বাণিজ্য প্রতিমন্ত্রী বলেন, ইতোমধ্যে মন্ত্রীর নির্দেশে ৪টি পণ্যের ক্যারিট কমিয়ে দেওয়া হয়েছে। এই সপ্তাহেই আমরা আমদানিকারক ও যারা তৈরি করে তাদের সাথে বসে তেলের দাম ঠিক করে দেওয়া হবে৷ সেই সাথে খেজুরের টেরিস কমিয়ে দেওয়া হয়েছে।

তিনি বলেন, ভারত আমাদের পেঁয়াজ ও চিনি সরবরাহের জন্য রাজি হয়েছে৷ রমজানে অন্যান্য পণ্যের সংকট রোধে পার্শ্ববর্তী দেশগুলোর সাথে কথা চলছে।

প্রতিমন্ত্রী বলেন, আমনের আবাদ ভালো হওয়ায় বর্তমানে প্রায় ১৭ লাখ টনের বেশি চাল মজুদ রয়েছে। সেই সাথে খাতুনগঞ্জ, মৌলভীবাজার, বাদামতলীসহ হোলসেল মার্কেটগুলো যেনো পণ্য আমদানি করে সরবরাহ ঠিক রাখতে পারে, সেই ব্যবস্থা করবে সরকার।

দেলদুয়ার উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি ফজলুল হকের সভাপতিত্বে মতবিনিময় সভায় বক্তব্য রাখেন সহসভাপতি এস প্রতাপ মুকুল, উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যান মাহমুদুল ইসলাম মারুফ প্রমুখ।


আরও খবর



বাংলাদেশে বিনিয়োগের জন্য জমি চায় সৌদি আরব

প্রকাশিত:বৃহস্পতিবার ২২ ফেব্রুয়ারী ২০২৪ | হালনাগাদ:বৃহস্পতিবার ২২ ফেব্রুয়ারী ২০২৪ | অনলাইন সংস্করণ
নিজস্ব প্রতিবেদক

Image

পররাষ্ট্রমন্ত্রী ড. হাছান মাহমুদ বলেছেন, বাংলাদেশে বিনিয়োগের জন্য ৬০০ একর জমি চেয়েছে সৌদি আরব। সেই জমি দেওয়ার বিষয়ে আলোচনা হয়েছে। আজ বৃহস্পতিবার বিকেলে নিজ মন্ত্রণালয়ে সাংবাদিকদের সঙ্গে আলাপকালে পররাষ্ট্রমন্ত্রী এ কথা বলেন।

চট্টগ্রামের মীরসরাইয়ে অর্থনৈতিক অঞ্চলে ৬০০ একর জমি দেওয়ার বিষয় নিয়ে হাছান মাহমুদ বলেন, সৌদি আরবকে ৩০০ একর জমি মীরসরাই ইকোনোমিক জোনে দেওয়ার প্রতিশ্রুতি দেওয়া হয়েছে। আরও ৩০০ একর তারা চায়। মোট ৬০০ একর সেখানে দেওয়ার জন্য আমরা আলাপ-আলোচনা করেছি, যাতে ডেডিকেটেড সৌদি ইনভেস্টমেন্ট সেখানে হয়।

বাংলাদেশে সৌদি বিনিয়োগ নিয়ে পররাষ্ট্রমন্ত্রী বলেন, আমাদের এনার্জি সেক্টরে সৌদি আরব ইনভেস্ট করতে যাচ্ছে। আমাদের গ্রিন ইনার্জি সেক্টরে তারা ইনভেস্ট করার জন্য আগ্রহী। ফ্লটিং সোলার প্যানেলের মাধ্যমে ১০০০ মেগাওয়াট বিদ্যুৎ উৎপাদনের জন্য তারা আগ্রহ ব্যক্ত করেছে। একইসঙ্গে চট্টগ্রাম বন্দরের পতেঙ্গা টার্মিনাল তারা অপারেট করতে যাচ্ছে। সেখানে ১.২ বিলিয়ন মার্কিন ডলার তারা ইনভেস্ট করবে। সেটি ২০ বছরের জন্য তাদের ব্যবহারের অনুমতি দেওয়া হচ্ছে।

ঢাকায় নিযুক্ত সৌদি আরবের রাষ্ট্রদূত মি. ঈসা ইউসুফ ঈসা আলদুহাইলানের সঙ্গে বৈঠকের বিষয়ে পররাষ্ট্রমন্ত্রী বলেন, সৌদি যুবরাজ মোহাম্মদ বিন সালমানের সম্ভাব্য সফর নিয়ে আলোচনা হয়েছে। তাকে আমন্ত্রণ জানানো হয়েছে। তিনি সেই আমন্ত্রণ গ্রহণ করেছেন। এই বছরের সেকেন্ড হাফে তার সফর কীভাবে হতে পারে, সে নিয়ে আমরা আলোচনা করেছি।


আরও খবর



শাহজাহানপুরে একটি বাসায় দুই দফা বিস্ফোরণে ৭ জন দগ্ধ

প্রকাশিত:বুধবার ২৮ ফেব্রুয়ারী ২০২৪ | হালনাগাদ:বুধবার ২৮ ফেব্রুয়ারী ২০২৪ | অনলাইন সংস্করণ
নিজস্ব প্রতিবেদক

Image

রাজধানীর শাহজাহানপুরের ঝিল মসজিদের পাশের ১টি বাসায় গ্যাস লাইনের লিকেজ থেকে অগ্নিকাণ্ডে ৭ জন দগ্ধ হয়েছেন। তাদেরকে শেখ হাসিনা জাতীয় বার্ন ও প্লাস্টিক সার্জারি ইনস্টিটিউটের অবজারভেশনে রেখে চিকিৎসা দেওয়া হচ্ছে।

গতকাল ২৭ ফেব্রুয়ারি মঙ্গলবার সন্ধ্যা ৬টার দিকে এই অগ্নিকাণ্ডের ঘটনা ঘটে। এর আগে একই বাসায় একই দিনে সকাল ৮টার

দগ্ধ আলী আকবর জানান, পঞ্চম তলা বাসার নিচতলায় রান্নাঘরে প্রায় সময় গ্যাসের গন্ধ পাওয়া যেত। সকাল ৮টার দিকে রান্না ঘরের পাশে হঠাৎ আগুন ধরে যায়। এতে হালকা শব্দ হয় তখনই ৭ জন দগ্ধ হন। পরে তাদেরকে উদ্ধার করে বার্ন ইনস্টিটিউটে নিয়ে আসা হয়।

শেখ হাসিনা বার্ন ইনস্টিটিউটের জরুরী বিভাগের চিকিৎসকরা জানান, গ্যাস লিকেজ থেকে দগ্ধ হয়ে আমার এখানে ৬ জন এসেছেন। এদের মধ্য মিন্টু হাওলাদারের শরীর ৪০ শতাংশ পুড়ে গেছে। বাকিদের শরীরের বিভিন্ন জায়গা আগুনে দগ্ধ হয়েছে। সবাইকে অবজারভেশনে রেখে চিকিৎসা দেওয়া হচ্ছে।

দগ্ধরা হলেন- মিন্টু হাওলাদার (৪০), তার মেয়ে মারিয়া ইশরাত (১৮), সেনেটারি মিস্ত্রি মনির হোসেন (৪১), দেলোয়ার হোসেন (৫৭), প্রতিবেশী আলী আকবর (৩৫), বাচ্চু মিয়া (৪৫) ও সিরাজ শেখ ( ৪৮)।


আরও খবর