আজঃ মঙ্গলবার ২৮ জুন ২০২২
শিরোনাম

ময়মনসিংহে মাদকাসক্ত বড়ভাইকে হত্যা করল ছোটভাই

প্রকাশিত:বৃহস্পতিবার ২৩ জুন ২০২২ | হালনাগাদ:বৃহস্পতিবার ২৩ জুন ২০২২ | ৩৬০জন দেখেছেন
দর্পণ নিউজ ডেস্ক

Image

ময়মনসিংহের ঈশ্বরগঞ্জে মাদকাসক্ত বড়ভাইকে হত্যা করলো ছোটভাই। এ ঘটনাটি ঘটেছে মঙ্গলবার রাতে মগটুলা ইউনিয়নের নওপাড়া গ্রাম।

পুলিশ ও এলাকাবাসী জানায়, নওপাড়া গ্রামের নোমান মিয়ার মাদকাসক্ত পুত্র জারমান মিয়া (২৪) মাদকের টাকার জন্য নিজ ঘর থেকে জোর করে একটি ছাগল নিয়ে বিক্রি করতে চাইলে ছোট ভাই সিয়াম মিয়া (১৯) তাকে বাঁধা দেয়। এ নিয়ে দুই ভাইয়ের মধ্যে ধস্তাধস্তি হয়। এক পর্যায়ে ছোট ভাই সিয়াম ঘরে থাকা দা দিয়ে বড় ভাই জারমানকে আঘাত করে।

পরে পরিবারের লোকজন গুরুত্ব আহত জারমানকে চিকিৎসার জন্য ময়মনসিংহ মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে নিয়ে গেলে কর্তব্যরত চিকিৎসক তাকে মৃত ঘোষণা করেন। বুধবার নিহতের লাশ নিয়ে বাড়ি চলে আসলে পুলিশ খবর পেয়ে লাশ উদ্ধার করে ময়নাতদন্তের জন্য ময়মনসিংহ মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে প্রেরণ করে।

ঈশ্বরগঞ্জ থানার ওসি মোস্তাছিনুর রহমান বলেন, হত্যার ঘটনায় নিহতের বাবা বাদী হয়ে পুত্র সিয়ামকে আসামি করে মামলা করেছেন। আসামি গ্রেফতারের চেষ্টা চলছে।

নিউজ ট্যাগ: বড়ভাইকে হত্যা

আরও খবর



মেসি আছে বলেই আমরা বিশ্বকাপের দাবিদার: মার্টিনেজ

প্রকাশিত:শুক্রবার ০৩ জুন ২০২২ | হালনাগাদ:শুক্রবার ০৩ জুন ২০২২ | ৩৮৫জন দেখেছেন
দর্পণ নিউজ ডেস্ক

Image

আর যা-ই হোক না হোক, কাতার বিশ্বকাপই যে লিওনেল মেসির শেষ বিশ্বকাপ হতে যাচ্ছে, তা নিশ্চিত। আগামী ২৪ জুনই ৩৫তম জন্মদিনের কেক কাটবেন, আগামী নভেম্বরে শুরু হতে যাওয়া বিশ্বকাপই মেসির শিরোপা নিয়ে বিশ্বমঞ্চ ছেড়ে যাওয়ার শেষ সুযোগ। সে পথে এবার কি আত্মবিশ্বাসের জোরও একটু বেশি আর্জেন্টিনার?

হওয়ারই কথা। গত বছরের জুলাইয়ে ২৮ বছরের শিরোপাখরা ঘুচিয়ে কোপা আমেরিকা জিতেছেন মেসিরা, তা-ও ব্রাজিলের ফুটবলতীর্থ মারাকানায় নেইমারের ব্রাজিলকেই হারিয়ে। এর ১১ মাস পর গত পরশু ইংল্যান্ডের ফুটবল-তীর্থ ওয়েম্বলিতে আবার আর্জেন্টিনার শিরোপার উল্লাস, এবার ইউরোপ আর দক্ষিণ আমেরিকার আন্তঃমহাদেশীয় শ্রেষ্ঠত্বসূচক লা ফিনালিসিমা’ জয়ের পথে হারিয়েছে গত বছরের জুলাইয়ে একই দিনে ইউরো জেতা ইতালিকে।

তবে মেসির বিশ্বকাপ স্বপ্নে সবচেয়ে বড় শক্তি সম্ভবত তাঁর সতীর্থরাই। একে তো আর্জেন্টিনা দল হিসেবে অনেকটা গুছিয়ে উঠেছে, তার ওপর এই দলটার সবাই-ই যেন মেসিকে কিছু এনে দিতে চোয়ালবদ্ধ। গোলকিপার এমিলিয়ানো মার্তিনেজের কথায়ও তা পরিষ্কার। তাঁর সোজা কথা, মেসির জন্য আর্জেন্টিনার সবাই সিংহের মতো লড়বে।

২০১৮ বিশ্বকাপে কিলিয়ান এমবাপ্পের ফ্রান্সের কাছে ৪-৩ গোলে শেষ ষোলোতে যখন বিদায় নেন মেসি, ধরে নেওয়া হয়েছিল, হয়তো সেটিই তাঁর শেষ বিশ্বকাপ। কিন্তু এরপর লিওনেল স্কালোনি দায়িত্ব নিয়ে আস্তে আস্তে আর্জেন্টিনা দলের খোলনলচেই বদলে ফেলেছেন।

মেসি-দি মারিয়াদের মতো তারকাদের সঙ্গে লো সেলসো, দি পলদের মতো তরুণ প্রতিভাবানদের নিয়ে আর্জেন্টিনা এখন ভারসাম্যপূর্ণ একটা দল। তার চেয়েও আর্জেন্টাইনদের কাছে সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ সম্ভবত এটি যে এই আর্জেন্টিনা আগের মতো পুরোপুরি মেসিনির্ভর’ কৌশলে খেলে না।

তবে মেসির জন্য খেলে। দি পল, লো সেলসোদের কথায় সেটি এর আগেও অনেকবার উঠে এসেছে। নতুন করে একটু অন্যভাবে কথাটা বলেছেন এমিলিয়ানো মার্তিনেজও, এক বছর আগেও আমরা কিছুই ছিলাম না। এখন শিরোপা জিতেছি বলেই সবাই ভাবতে শুরু করেছে, আমরা বিশ্বকাপের অন্যতম ফেবারিট হয়ে গেছি। তবে আমরা সব সময়ই বিশ্বকাপের জন্য ফেবারিটদের তালিকায় থাকব, কারণ আমাদের দলে বিশ্বের সেরা খেলোয়াড় (মেসি) আছে। ওর জন্য আমরা সবাই সিংহের মতো লড়ব।’

স্কালোনির অধীনে ধীরে ধীরে গুছিয়ে উঠতে থাকার পথচলায় আর্জেন্টিনার গত ১১ মাসে দুই শিরোপার পেছনে এমিলিয়ানো মার্তিনেজেরও বড় অবদান। গোলপোস্ট তো আর্জেন্টিনার সোনালি প্রজন্মের দলেরও বড় দুর্বলতা ছিল, গত জুনে আকাশি-সাদা জার্সিতে অভিষেকের পর থেকে গোলপোস্টে মার্তিনেজ বড় ভরসার নামই হয়ে উঠেছেন।

প্রতিপক্ষ বল কেড়ে নিতে চাপ তৈরি করলে তিনি কীভাবে সামলাবেন, সেটি নিয়ে এখনো সংশয় আছে, তবে গোল ঠেকানোতে এমিলিয়ানো এই সময়ে আলোচিত গোলকিপারদের একজন। কোপা আমেরিকা জয়ের পথে কলম্বিয়ার বিপক্ষে সেমিফাইনালে টাইব্রেকারে দুটি শট ঠেকিয়ে সেই যে পাদপ্রদীপের আলোয় এসেছেন, এর পর থেকে এমিলিয়ানো এই আর্জেন্টিনা দলের অপরিহার্য অংশ।

সেই এমিলিয়ানো মার্তিনেজের কথা তো গুরুত্বের সঙ্গে নিতেই হয়! তবে এমিলিয়ানোর পরের কথাটা আর্জেন্টিনার প্রতিদ্বন্দ্বীরা হয়তো ভালো চোখে নেবেন না।

আর্জেন্টিনার লা ফিনালিসিমা জয়কে বড় শিরোপা হিসেবে দেখা হবে কি না, সে নিয়ে অনেকের সংশয় আছে। ইউরোপের ক্লাব ফুটবলে উয়েফা সুপার কাপের’ মতোই টুর্নামেন্টটা, দুই শিরোপাজয়ীর মধ্যে সেরা নির্ধারণী। কিন্তু এক ম্যাচের টুর্নামেন্ট বলে অনেকে এটিকে তত গুরুত্ব দিতে রাজি নন। আর্জেন্টিনার প্রতিদ্বন্দ্বীরা তো মোটেই রাজি নন।

তবে এ নিয়ে প্রশ্নে এমিলিয়ানো মার্তিনেজের যুক্তি, আমাদের কাছে এটা একটা ফাইনালই, আনুষ্ঠানিকভাবে উয়েফার স্বীকৃতি পাওয়া ফাইনাল হিসেবেই দেখছি এটিকে। আর এই শিরোপা আমাদের আত্মবিশ্বাস আরও বাড়িয়ে দিচ্ছে।’

ফিনালিসিমায় আর্জেন্টিনার প্রতিপক্ষ ইতালি বিশ্বকাপে সুযোগ পায়নি, এ নিয়েও আর্জেন্টিনার শিরোপা জয় নিয়ে ফোঁড়ন কাটেন অনেকে। তবে এখানেও এমিলিয়ানো মার্তিনেজের যুক্তি, মানুষ হয়তো বলে যে আমরা ইউরোপের অসাধারণ কোনো দলের বিপক্ষে খেলিনি। তবে ওরা ইউরো জিতেছে। আমরা দেখিয়েছি আমরা যে কারও সঙ্গে লড়াই করতে পারি।’


আরও খবর



ফেসবুক অ্যাকাউন্ট সুরক্ষিত রাখার উপায়

প্রকাশিত:শনিবার ১৮ জুন ২০২২ | হালনাগাদ:শনিবার ১৮ জুন ২০২২ | ২৯৫জন দেখেছেন
দর্পণ নিউজ ডেস্ক

Image

প্রযুক্তির দুনিয়া যতই উন্নত হোক না কেন হ্যাকাররা সেভাবেই নিজেদের তৈরি করছে। সাইবার অপরাধীদের যন্ত্রণায় সামাজিক যোগাযোগের মাধ্যম থেকে শুরু করে ডিভাইস কোনো কিছুই সুরক্ষিত নেই। সাইবার ক্রাইম এই মুহূর্তে বিশ্বের উদীয়মান সমস্যাগুলোর মধ্যে একটি।

সম্প্রতি এক ইন্টেলিজেন্স ফার্ম দাবি করেছে, একজন হ্যাকার ৪ মাসে ১০ লাখেরও বেশি ফেসবুক অ্যাকাউন্টের ক্রেডেন্সিয়াল পেয়েছে। এর কারণ অবশ্যই ফেসবুক ফিশিং স্ক্যাম।  ফিশিং হলো এক ধরনের অনলাইন স্ক্যাম। এতে সাইবার ক্রিমিনালরা ব্যবহারকারীদের টার্গেট করে কোনো জনপ্রিয় উৎস যেমন ইন্টারনেট সার্ভিস প্রোভাইডার, ব্যাংক বা কোনো মর্টগেজ ফার্ম থেকে প্রলোভনমূলক ই-মেইল পাঠায়। এরা সাধারণত ভোক্তাদের থেকে বিভিন্ন ধরনের ব্যক্তিগত তথ্য দাবি করে।

গবেষকরা বিভিন্ন পরীক্ষা-নিরীক্ষা চালিয়ে এবং বিশ্লেষণ করে জানিয়েছেন যে, এই ধরনের থ্রেট অ্যাকশন এবং অপরাধমূলক ই-মেইল কলম্বিয়া থেকে পরিচালিত হচ্ছে বলে ধারণা তাদের। প্রতিদিনই গড়ে হাজার হাজার ফেসবুক অ্যাকাউন্ট এই ফিশিং স্ক্যামের খপ্পরে চলে আসছে। ব্যবহারকারীদের ব্যক্তিগত তথ্য চুরি করেছে হ্যাকাররা।

সম্প্রতি পিআইএক্সএম নামের একটি অ্যান্টি-ফিশিং স্ক্যাম ফার্ম ফেসবুকের ল্যান্ডিং পেজের বিকল্প হিসেবে ফোনের লগইন গেটওয়ে হিসেবে ব্যবহার করেছে। ফলে দেখা গিয়েছে যে, যারাই তাদের পেজে অ্যাকাউন্টের ইনফরমেশন ইনপুট করেছে তাদেরই তথ্য চুরি হয়েছে। এরপর তারা আরও গভীরে গিয়ে বিষয়টি পরীক্ষা করেছেন। সেসময় আরও বেশ কিছু চাঞ্চল্যকর তথ্য উঠেছে।পরীক্ষায় দেখা যাচ্ছে, স্ক্যামিংয়ের জন্য ক্রিমিনালরা আসল সার্ভারের মতো অবিকল আরেকটি রেফারেন্স সার্ভার তৈরি করে। এই রেফারেন্স সার্ভার অ্যাকাউন্ট ব্যবহারকারীদের ইনপুট করা যাবতীয় তথ্য সংগ্রহের জন্য ডেটাবেস সার্ভার হোস্ট হিসেবে কাজ করছে।

এছাড়াও ট্রাফিক মনিটরিং অ্যাপ্লিকেশনের একটি লিঙ্কও পেয়েছেন গবেষকরা। যা অ্যান্টি-ফিশিং ফার্মকে ট্র্যাকিং মেট্রিক্স খোঁজার সুযোগ করে দিয়েছে। এখানে অবশ্য শুধু সাইবার ক্রিমিনালদের ব্যবহৃত পেজ নয়, একই সঙ্গে অন্যান্য জাল ল্যান্ডিং পেজও খুঁজে পেয়েছেন পিআইএক্সএম অ্যান্টি-ফিশিং স্ক্যাম ফার্মের বিশেষজ্ঞরা। এই বিপদজনক লিঙ্কগুলোর উৎস মূলত ফেসবুক। এই লিঙ্কের মাধ্যমেই ক্রিমিনালরা বিভিন্ন ভিকটিমদের অ্যাকাউন্ট হ্যাক করে এবং তারপর ওই একই লিংককে বিভিন্ন ভাবে আরও মানুষের মধ্যে, বিশেষ করে ব্যবহারকারীর পরিচিতদের মধ্যে ছড়িয়ে দেয়, যাতে আরও বেশি সংখ্যক মানুষের অ্যাকাউন্ট হ্যাক করা যায়। এরা আম্যাজন, গিলটিচের মতো মতো জনপ্রিয় ওয়েবসাইটগুলোর ইউআরএল ব্যবহার করে নকল ফেসবুক ল্যান্ডিং পেজ তৈরি করে। ব্যবহারকারীরা একবার এসব পেজে ঢুকলে স্ক্যামিং নিশ্চিত।

তাই আপনার ফেসবুক অ্যাকাউন্ট সুরুক্ষিত রাখতে যা করতে পারেন-

যে কোনো লিংকে ওপেন করা থেকে বিরত থাকুন। কোনো লিংক সন্দেহজনক মনে হলে ক্লিক করবেন না। যদি ঘনিষ্ঠ কোনো বন্ধু বা ফেসবুক বন্ধুর কাছ থেকে কোনো ই-মেইল, ম্যাসেঞ্জারে বার্তা বা পোস্ট পান, যা হয়তো তার স্বাভাবিক আচরণের সঙ্গে মেলে না, সবচেয়ে ভালো হবে সেটায় ক্লিক না করা বা সাড়া না দেওয়া। ফেসবুকের সিকিউরিটি এন্ড লগইন পাতায় গিয়ে দেখতে পারবেন, কোনো কোনো ডিভাইসে আপনার আইডি লগইন হয়েছে। অ্যাকাউন্টের নিরাপত্তার জন্য বাড়তি কিছু ব্যবস্থা নেওয়ার পরামর্শ দিয়েছে ফেসবুক। এর সবগুলোই রয়েছে আপনার অ্যাকাউন্টের সিকিউরিটি এন্ড লগইন পাতায়। ফেসবুকের পাসওয়ার্ড অন্য কোনো ক্ষেত্রে ব্যবহার করা উচিত নয় বা এটি কারো সঙ্গে শেয়ার করা ঠিক না। পাসওয়ার্ড হতে হবে ছোটবড় অক্ষর ও নম্বর মিলিয়ে কমপক্ষে ৮ সংখ্যার, কেউ যাতে সহজে ধারণা করতে না পারে। ফেসবুকের টু ফ্যাক্টর অপশন অন করে রাখুন। এতে আপনার পাসওয়ার্ড জানা থাকলেও আপনার পারমিশন ছাড়া অন্য কেউ আপনার অ্যাকাউন্টে ঢুকতে পারবে না।যেখানে সেখানে নিজের ফেসবুক অ্যাকাউন্ট লগইন করবেন না। তবে কাজের ক্ষেত্রে একান্ত প্রয়োজন হলে অবশ্যই তা মনে করে লগআউট করে বের হোন। কখনো কাউকে পাসওয়ার্ড শেয়ার করবেন না। এমনকি কোথাও লিখে রাখা থেকেও বিরত থাকুন। ফেসবুকের বিভিন্ন জনপ্রিয় পেজে ঢোকার আগে অবশ্যই চেক করে নিন। পেজের লিংকের ইউআরএল খেয়াল করুন। কোনো ইউআরএল না থাকলে বুঝে নিন পেজটি নকল।

নিউজ ট্যাগ: ফেসবুক

আরও খবর



বিড়ি শিল্প রক্ষার্থে জাতীয় রাজস্ব বোর্ড ঘেরাও; স্মারকলিপি প্রদান

প্রকাশিত:সোমবার ০৬ জুন ২০২২ | হালনাগাদ:সোমবার ০৬ জুন ২০২২ | ৩৯০জন দেখেছেন
দর্পণ নিউজ ডেস্ক

Image

বাজেটে বিড়ির উপর বিদ্যমান শুল্ক কমানো, বিড়ির উপর অর্পিত অগ্রিম ১০ শতাংশ আয়কর প্রত্যাহার, বিড়ি শিল্পে নিয়োজিত শ্রমিকদের সুরক্ষা আইন প্রণয়ন এবং দেশীয় শিল্প হিসেবে বিড়িকে রক্ষা করার দাবি জানিয়েছেন বাংলাদেশ বিড়ি শ্রমিক ফেডারেশন।

সোমবার (৬ জুন) সকাল ১০ টায় জাতীয় রাজস্ব বোর্ড এর সামনে আয়োজিত মানববন্ধন কর্মসূচি থেকে এ দাবি জানান তারা। মানববন্ধন চলাকালে জাতীয় রাজস্ব বোর্ড ঘেরাও করে বিড়ি শ্রমিকরা। 

মানববন্ধন শেষে জাতীয় রাজস্ব বোর্ড এর চেয়ারমানের মাধ্যমে প্রধানমন্ত্রী বরাবর স্মারকলিপি প্রদান করা হয়।    

মানববন্ধনে বক্তরা বলেন, বিড়ি শিল্প দেশীয় শ্রমিকবান্ধব শিল্প। অথচ দেশের প্রাচীন শ্রমঘন বিড়ি শিল্প ধ্বংসের চক্রান্ত করা হচ্ছে। ব্রিটিশ আমেরিকান টোব্যাকো কোম্পানি (বিএটিবি) ও জাতীয় রাজস্ব বোর্ডের (এনবিআর) কতিপয় অসাধু কর্মকর্তা বিড়ি শিল্প ধ্বংসের চক্রান্তে লিপ্ত রয়েছেন। তারা বিড়ির উপর ষড়যন্ত্রমূলকভাবে মাত্রাতিরিক্ত করের বোঝা চাপিয়ে দিচ্ছে। বিড়ি মালিকরা এই মাত্রাতিরিক্ত করের বোঝা সহ্য করতে না পেরে কারখানা বন্ধ করতে বাধ্য হচ্ছে। ফলে বিড়ি কারখানায় নিয়োজিত শ্রমিকরা কর্ম হারিয়ে পরিবার নিয়ে অনাহারে, অর্ধাহারে দিনাতিপাত করছে। শ্রমিকদের কর্মরক্ষার্থে সরকারের কাছে আমরা বিড়ি উপর বিদ্যমান শুল্ক কমানোর জোর দাবি জানাচ্ছি।

বক্তারা আরো বলেন, বিড়ি শতভাগ দেশীয় প্রযুক্তি নির্ভর শিল্প। সমাজের অসহায়, হতদরিদ্র, স্বামী পরিত্যক্তা, নদী ভাঙ্গন কবলিত জনগণ, শারীরিক বিকলাঙ্গসহ লক্ষ লক্ষ সুবিধা বঞ্চিত শ্রমিক ও পরিবারের রুটি-রুজির একমাত্র অবলম্বন এই বিড়ি শিল্প। অন্যদিকে সিগারেটের সবকিছু বিদেশ থেকে আমদাদিকৃত ও প্রযুক্তি নির্ভর। বিদেশী বহুজাতিক কোম্পানী এদেশের মানুষের ফুসফুস পুড়িয়ে হাজার হাজার কোটি টাকা পাচার করছে। ব্রিটিশ বেনিয়াদের দোসর ও নব্য মীরজাফর আত্মা এবং প্রজ্ঞা বিড়ি শিল্প ও শ্রমিক ধ্বংস করতে বিভিন্ন অপপ্রয়াস চালিয়ে যাচ্ছে। বিড়ি শিল্প ধ্বংসের চক্রান্ত বন্ধ করা না হলে আমরা শ্রমিকদের নিয়ে সকল চক্রান্ত প্রতিহত করবো। একইসাথে দেশের স্বার্থে, দেশের শ্রমজীবি মানুষের স্বার্থে দেশীয় শ্রমিকবান্ধব বিড়ি শিল্পকে রক্ষার জোর দাবি জানান শ্রমিকরা।

বাংলাদেশ বিড়ি শ্রমিক ফেডারেশনের যুগ্ম সম্পাদক হারিক হোসেনের সঞ্চালনায় মানববন্ধনে সভাপতিত্ব করেন ফেডারেশনের সভাপতি এম. কে. বাঙ্গালী। বক্তব্য রাখেন, বাংলাদেশ বিড়ি শ্রমিক ফেডারেশনের সহ-সভাপতি নাজিম উদ্দিন, সহ-সভাপতি লোকমান হাকিম, সাধারণ সম্পাদক আব্দুর রহমান, সাংগঠনিক সম্পাদক আব্দুল গফুর, যুগ্ম সম্পাদক লুৎফর রহমান, প্রচার সম্পাদক শামীম ইসলাম, কার্যকরী সদস্য আনোয়ার হোসেন প্রমূখ।


আরও খবর



নাবালককে হত্যার অভিযোগে গরু গ্রেফতার

প্রকাশিত:বুধবার ০৮ জুন ২০২২ | হালনাগাদ:বুধবার ০৮ জুন ২০২২ | ৪৯৫জন দেখেছেন
দর্পণ নিউজ ডেস্ক

Image

১২ বছরের এক নাবালককে হত্যার অভিযোগে একটি গরুকে গ্রেফতার করল পুলিশ। ঘটনাটি ঘটেছে দক্ষিণ সুদানের লেকস্ স্টেটের নিকটবর্তী একটি খামারে। নাবালকটিকে এমনভাবে গরুটি আক্রমণ করে যে, ঘটনাস্থলেই তার মৃত্যু হয়। পুলিশ আধিকারিকেরা জানিয়েছেন, তাঁরা গরুর মালিককেও হেফাজতে রেখেছেন।

হত্যার দায়ে কোনও প্রাণীকে গ্রেফতার করা এই প্রথম নয়। এর আগেও একটি বাচ্চা ভেড়াকে একই অভিযোগে গ্রেফতার করেছিল সুদানের পুলিশ। সাজা হিসাবে ভেড়াটিকে মিলিটারি ক্যাম্পে তিন বছরের জন্য রাখা হয়েছে।

অ্যাধিউ চ্যাপিং নামে এক মহিলাকে হত্যার অভিযোগে ভেড়াটিকে গ্রেফতার করা হয়।সুদানের আইন অনুযায়ী, কোনও পশুর আক্রমণে কেউ মারা গেলে, তার বিরুদ্ধে সাজার নির্দেশ দেওয়া হয়। সাজা খাটার নির্ধারিত সময় পার হলে সেই পশুটিকে ক্ষতিপূরণ হিসাবে নিহতের পরিবারের হাতে তুলে দেওয়া হয়। দীর্ঘ সময় ধরে এই প্রথাই চলে এসেছে সুদানে।

 

নিউজ ট্যাগ: গরু গ্রেফতার

আরও খবর



অনলাইনে ভ্রমণ কর দেবেন যেভাবে

প্রকাশিত:রবিবার ২৯ মে ২০২২ | হালনাগাদ:রবিবার ২৯ মে ২০২২ | ৩৮৫জন দেখেছেন
দর্পণ নিউজ ডেস্ক

Image

ট্রাভেল ট্যাক্স বা ভ্রমণ কর সম্পর্কে মোটামুটি সবারই কমবেশি ধারণা আছে! সড়কপথে ভ্রমণের জন্য যে কর প্রদান করা হয় সেটিই মূলত ট্রাভেল ট্যাক্স। যদিও এই ভ্রমণ কর পরিশোধ করা বেশ ঝক্কির কাজ ছিল একসময়। তবে ডিজিটাল এই যুগে এখন আর ভ্রমণ কর পরিশোধ করতে সোনালী ব্যাংকের মতিঝিল বা নিউমার্কেট শাখায় যেতে হবে না। ঘরে বসে অনলাইনের মাধ্যমেই কয়েক মিনিটের মধ্যেই পরিশোধ করতে পারবেন ট্রাভেল ট্যাক্স।

২০২০ সালের ২৫ জানুয়ারি জাতীয় রাজস্ব বোর্ড জানায়, এখন থেকে অনলাইনেই ভ্রমণ কর দেওয়া যাবে। তবে কীভাবে অনলাইনে ভ্রমণ কর পরিশোধ করতে হয় তা জানা নেই অনেকেরই। চলুন তবে জেনে নেওয়া যাক ধাপে ধাপে কীভাবে কাজটি করবেন-

অনলাইনে ভ্রমণ কর প্রদানের জন্য প্রথমে ভিজিট করুন জাতীয় রাজস্ব বোর্ড এর ওয়েবসাইটে। তারপর উপরের বেশ কয়েকটি অপশনের মধ্য থেকে ই-সার্ভিস এ ক্লিক করুন। তারপর কয়েকটি সাব অপশন দেখতে পাবেন। ইনকাম ট্যাক্স নামক অপশনে ক্লিক করলে আবার ৬টি অপশন খুঁজে পাবেন। তার মধ্য থেকে ৫ নম্বর অপশন অর্থাৎ ট্রাভেল ট্যাক্স এ ক্লিক করুন। দেখবেন একটি ভিন্ন পেইজ আপনার সামনে চলে এসেছে। একটি ফরম দেখতে পাবেন আপনি। প্রথমেই দেখবেন লাল অক্ষরে লেখা আছে অনুগ্রহপূর্বক পাসপোর্টের সাথে মিল রেখে ফরমটি ইংরেজিতে পূরণ করুন।

বেনাপোল, দর্শনা ও ভোমরা স্থল বন্দর দিয়ে ভ্রমণকারীরা এই সেবা পাবেন। শীঘ্রই অন্যান্য বন্দর এই সেবার আওতায় আসবে। নিশ্চয় বুঝতে পারছেন, বর্তমানে মাত্র ৩ স্থলবন্দরের জন্য অনলাইনে ভ্রমণ কর পরিশোধ করা যাবে। আপনার নাম, পাসপোর্ট নম্বর, যাত্রীর ধরন (প্রাপ্তবয়স্ক নাকি শিশু), পরিবহনের ধরন (সড়কপথ, জলপথ, আকাশপথ), গন্তব্যস্থল, মোবাইল নম্বর যথাযথ স্থানে লিখুন। এরপর ট্রাভেল ট্যাক্স হিসেবে সড়কপথে ৫০০ টাকা, জলপথে ৮০০টাকা (প্রাপ্তবয়স্কদের জন্য) প্রদান করতে হবে। সঙ্গে ৫-১২ বছরের শিশু থাকলে সড়কপথে ২৫০ টাকা ও জলপথে ৪০০ টাকা ভ্রমণ কর দিতে হবে। তবে এর কমবয়সীদের জন্য কোনো ভ্রমণ কর দিতে হবে না। বিমান ও ট্রেনে সাধারণত টিকিটের সঙ্গেই ভ্রমণ কর কেটে নেওয়া হয় এজন্য আলাদাভাবে তা দেওয়ার প্রয়োজন পড়ে না।

ফরমের সব তথ্য পূরণ করার উপর নীল রঙের সাবমিট বাটনে ক্লিক করতে হবে। এবার আপনার দেওয়া সব তথ্য পুনরায় দেখানো হবে। এ পর্যায়ে ভালো করে দেখুন সব তথ্য ঠিক আছে না। যদি কোথাও সংশোধনের প্রয়োজন হয় তাহলে এডিট অপশনে ক্লিক করে ঠিক করুন। এবার প্রসিড টু পেমেন্ট অপশনে ক্লিক করুন। তারপর পেমেন্ট গেইটওয়েতে গিয়ে সোনালী ব্যাংক, কার্ড ও মোবাইল ওয়ালেট এই ৩টি অপশন পাবেন। যার মধ্যে কার্ড ক্লিক করলে আপনার ডেবিট বা ক্রেডিট কার্ড দিয়ে পরিশোধ করতে পারবেন ভ্রমণ কর। আর মোবাইল ওয়ালেট বেছে নিলে শুধু বিকাশের মাধ্যমে ভ্রমণ কর পরিশোধ করতে পারবেন। সবগুলো প্রক্রিয়া সঠিকভাবে সম্পন্ন করার পর ই-চালান পেয়ে যাবেন। এটিই হলো আপনার ভ্রমণ কর পরিশোধের প্রমাণপত্র। ই-চালন প্রিন্ট করে রাখতে হবে। একই সঙ্গে ফরমে দেওয়া আপনার মোবাইল নম্বরে একটি এসএমএস আসবে। সেটিও রেখে দিন। অনলাইনে ভ্রমণ কর প্রদানের ক্ষেত্রে আপনার খরচ সবে সর্বোচ্চ ১০ টাকা। পাশাপাশি ট্রাভেল ট্যাক মোবাইল অ্যাপ ব্যবহার করেও ভ্রমণ কর পরিশোধ করতে পারবেন।

নিউজ ট্যাগ: ট্রাভেল ট্যাক্স

আরও খবর