আজঃ শুক্রবার ০১ মার্চ ২০২৪
শিরোনাম

মৃতদেহ কেটে বানান নেকলেস!

প্রকাশিত:বৃহস্পতিবার ১৩ অক্টোবর ২০২২ | হালনাগাদ:বৃহস্পতিবার ১৩ অক্টোবর ২০২২ | অনলাইন সংস্করণ
দর্পণ নিউজ ডেস্ক

Image

২০১৯ সালে ক্যালিফোর্নিয়ার করকোরান জেলে জেইম ওসুনা নামে এক বন্দি তাঁর কুঠুরিতে থাকা অন্য এক আবাসিক লুইস রোমেরোকে নির্যাতন ও শিরশ্ছেদ করে খুন করেন। জেলের ভিতরে খুন করা সত্ত্বেও রক্ষীরা ঘুণাক্ষরে এই খুনের কথা টের পাননি।

কিন্তু ওসুনার নৃশংসতার সূত্রপাত হয়েছিল এর অনেক আগে। ২০১১ সালে ছয় সন্তানের মা ৩৭ বছর বয়সি ইভেট পেনাকে খুন করার জন্য ওসুনাকে গ্রেফতার করা হয়। ছবছরেরও বেশি সময় ধরে এই মামলাটি চলে। ২০১৭ সালে তিনি দোষী সাব্যস্ত হন।

স্বঘোষিত শয়তানের উপাসক ওসুনা অনেক দিন ধরে নজরে আসার চেষ্টা করলেও ২০১১ সালে ইভেটকে খুন করার পরই তিনি প্রকৃতপক্ষে সংবাদমাধ্যমের শিরোনামে উঠে আসেন।

১৯৮৮ সালের ৭ মার্চ জন্ম ওসুনার। এক বছর পরে, তাঁর মা এবং বাবার বিবাহবিচ্ছেদ হয়ে যায়। এর পর তাঁর মা মিশেল আবার বিয়ে করেন জেফ নামে এক ব্যক্তিকে। ২০০০ সালে মিশেল এবং জেফ মারা যান।

সৎবাবা ছোটবেলা থেকেই ওসুনার উপর নির্যাতন চালাতেন। পাঁচ বছর বয়সে ওসুনার সৎবাবা তাঁকে গাছে বেঁধে মারধর করতেন। ওসুনাকে মারধর করতেন সৎকাকাও।

২০০৮ সালে একটি পার্টিতে জেন নামে এক মহিলার সঙ্গে দেখা হয় ওসুনার। দুবছর ধরে প্রেম করার পর ২০১০ সালের ফেব্রুয়ারিতে তাঁরা একে অপরকে বিয়ে করেন।

২০১০ সালের অগস্টে স্ত্রীকে মারধর করার জন্য পুলিশ ওসুনাকে গ্রেফতার করে। নমাস জেলে থাকার পর তিনি ছাড়া পান। একই বছরে জেন এবং ওসুনার প্রথম সন্তান জন্ম নেয়।

কিশোর বয়সেই অপরাধ জগতে নাম লেখান ওসুনা। স্থানীয় একটি গ্যাংয়ের সদস্য ছিলেন তিনি। কম বয়স থেকে মাদকাসক্তও হয়ে পড়েছিলেন তিনি। মাত্র ১৫ বছর বয়সে ধারালো অস্ত্র দিয়ে হামলা চালানোর অভিযোগে তাঁকে গ্রেফতার করা হয়।

এর পর থেকে মাঝেমধ্যেই বিভিন্ন অপরাধের জন্য বেশ কয়েক বার জেলে থাকতে হয় ওসুনাকে। এর পর ইভেটকে খুনের অভিযোগে তাঁকে ২০১১ সালে গ্রেফতার করা হয়। গ্রেফতারের পর ওসুনা দাবি করেন, ইভেটের মৃত্যুর আগে তাঁর সঙ্গে দেখা হলেও তিনি ইভেটকে খুন করেননি।

ওসুনা আদালতে জোর গলায় বলেন যে, এই খুন তিনি করেননি। এর পর বিচার চলাকালীন তাঁকে দীর্ঘ প্রায় ছবছর জেলে কাটাতে হয়। শুনানি চলাকালীনই নিজের মুখে বিভিন্ন ধরনের ট্যাটু করান ওসুনা।

২০১৭ সালের মে মাসে ইভেটকে খুন করার জন্য ওসুনাকে দোষী সাব্যস্ত করে আদালত। দোষী সাব্যস্ত হওয়ার পর তিনি বেপরোয়া হয়ে ওঠেন। সাংবাদিকদের সামনেই বলেন, তিনি মানুষকে নির্যাতন করতে পছন্দ করেন। আবার কী ভাবে খুন করা যায় তার উপায় তিনি খুঁজে বার করবেন বলেও জানান তিনি। যাবজ্জীবন কারাদণ্ড হয় তাঁর।

দোষী সাব্যস্ত হওয়ার পর ওসুনাকে করকোরান জেলে পাঠানো হয়। এই জেলেই তিনি তাঁর জীবনের সব থেকে নৃশংস অপরাধটি করেন। কথা মতো আরও একটি খুন করেন ওসুনা।

করকোরান জেলে ওসুনার পরিচয় হয় লুইস রোমেরো নামে অন্য এক আবাসিকের সঙ্গে। মাত্র ১৭ বছর বয়সে রোমেরো গ্রেফতার হন। এর পর থেকে দীর্ঘ ২৭ বছর ধরে তিনি জেলেই দিন কাটাচ্ছিলেন।

কম্পটনে এক মহিলাকে গুলি করে খুন করায় দোষী ছিলেন রোমেরো। ২০১৯ সালের মার্চ মাসে রোমেরো আগের সংশোধনাগার থেকে করকোরান জেলে পৌঁছন। কারারক্ষীরা তাঁকে এবং ওসুনাকে একই কুঠুরিতে রেখেছিলেন।

ওসুনা এবং রোমেরোকে এক কুঠুরিতে রাখার ২৪ ঘণ্টার মধ্যে রোমেরোকে খুন করে তাঁর দেহ টুকরো টুকরো করে ফেলেন ওসুনা।

রোমেরোকে টুকরো টুকরো করে খুন করতে একটি রেজার-ব্লেড ব্যবহার করেছিলেন ওসুনা। পরে জানা গিয়েছিল, প্রথমে ওসুনা রোমেরার একটি চোখ এবং একটি আঙুল কেটে ফেলেন। এর পর তিনি রোমেরোর পাঁজরের কিছু অংশ এবং তাঁর ফুসফুস কেটে ফেলেন।

এর পর ওই রেজার দিয়ে রোমেরোর মাথাও কেটে ফেলেন ওসুনা। মুখের দুপাশে এমন ভাবে কেটে ফেলেন যাতে রোমেরোকে দেখে মনে হয় যেন তিনি হাসছেন (ব্যাটমান সিনেমায় জোকার চরিত্রের মুখ যে রকম ছিল)।

তবে রোমেরা যে খুন হয়েছেন তা প্রায় এক দিন পর্যন্ত বুঝতে পারেননি কারারক্ষীরা। রক্ষীরা যখন এক দিন পর ওসুনার কুঠুরিতে পৌঁছন, তখন তাঁদের হাড়হিম হয়ে যায়। কারারক্ষীরা দেখেন রোমেরোর দেহ টুকরো টুকরো করা অঙ্গপ্রত্যঙ্গ থেকে হার বানিয়ে তা গলায় পরে বসে আছেন ওসুনা।

ওসুনা ঠান্ডা গলায় কারারক্ষীদের কাছে নিজের অপরাধ স্বীকার করেছিলেন। এর পর থেকেই ওসুনাকে নিয়ে সাবধান হয়ে যান কারারক্ষীরা। তাঁকে একটি আলাদা কুঠুরিতে বন্ধ করে রাখা হয়। অন্য বন্দিদেরও ওই কুঠুরির আশপাশে যাওয়ার উপরও নিষেধাজ্ঞা জারি করেন কর্তৃপক্ষ। বর্তমানেও করকোরান সংশোধনাগারেই বন্দি রয়েছেন ওসুনা।


আরও খবর
ক্যালেন্ডারের উপহার : ৩৬৬ দিনের ২৯ ফেব্রুয়ারি আজ

বৃহস্পতিবার ২৯ ফেব্রুয়ারী ২০২৪

লিপ ইয়ার না থাকলে কী হতো

বৃহস্পতিবার ২৯ ফেব্রুয়ারী ২০২৪




টঙ্গীতে বহুতল ভবন লাগা আগুন নিয়ন্ত্রণে

প্রকাশিত:বুধবার ২৮ ফেব্রুয়ারী ২০২৪ | হালনাগাদ:বুধবার ২৮ ফেব্রুয়ারী ২০২৪ | অনলাইন সংস্করণ
গাজীপুর প্রতিনিধি

Image

গাজীপুরের টঙ্গীতে মরিয়ম ম্যানশন নামের একটি বহুতল ভবনে অগ্নিকাণ্ড ঘটেছে। এতে ছয়জন সামান্য অগ্নিদগ্ধ হন। টঙ্গী ও উত্তরা ফায়ার সার্ভিসের ছয়টি ইউনিটের প্রায় দেড় ঘণ্টার প্রচেষ্টায় আগুন নিয়ন্ত্রণে আসে।

আজ বুধবার (২৮ ফেব্রুয়ারি) ভোর সাড়ে ৫টায় টঙ্গী বাজার এলাকার মরিয়ম ম্যানশন নামের সাত তলা ভবনে এ ঘটনা ঘটে।

এতে দ্বগ্ধদের মধ্যে রয়েছেন ব্যবসায়ী লিখন, লিটন, রাকিব, সাগর, রোমান ও মনোয়ারুল। তাদের কারো হাত, মাথার চুল ও পা আগুনে সামান্য ঝলসে গেছে। তারা স্থানীয় ক্লিনিকে চিকিৎসা নিয়েছেন।

স্থানীয়রা জানায়, টঙ্গী বাজার এলাকায় মরিয়ম ম্যানশন নামের একটি সাত তলা ভবনের দ্বিতীয় তলায় একটি প্রাইভেট ব্যাংক তাদের কার্যক্রম পরিচালনা করে। ভবনের বাকি অংশ স্থানীয় ব্যবসায়ীরা গুদাম হিসেবে মালামাল মজুদ করেন। আজ বুধবার ভোর ৫টার দিকে ওই ভবনের চার তলায় আগুন দেখতে পেয়ে স্থানীয়রা নেভানোর চেষ্টা করেন। পরে চার তলায় লাগা আগুন পাঁচ তলায় ও ছয় তলায় ছড়িয়ে পড়লে ফায়ার সার্ভিসে খবর দেওয়া হয়। পরে ফায়ার সার্ভিসের একাধিক ইউনিট এসে ৭টা ১০ মিনিটে আগুন নিয়ন্ত্রণে আনেন।

এ ঘটনায় আফরিন ট্রেডার্সের মালিক মো. সোহেল ও মনির হোসেনসহ ১০ ব্যবসায়ীর গুদামজাত করা কয়েক কোটি টাকার মালামালের ক্ষয়-ক্ষতি হয়েছে বলে জানা গেছে।

টঙ্গী ফায়ার সার্ভিসের কর্মকর্তা আবু মোহাম্মদ সাজেদুল কবির জোয়ার্দার বলেন, বুধবার ভোরে একটি মার্কেটে আগুন লাগার খবর পাই। পরে টঙ্গী ফায়ার সার্ভিসের মোট তিনটি ইউনিট আগুন নেভানোর চেষ্টা চালাচ্ছে। আগুনের তীব্রতা বেড়ে যাওয়ায় উত্তরা ফায়ার স্টেশনের আরো তিনটি ইউনিট আগুন নিয়ন্ত্রণে কাজ শুরু করে।


আরও খবর
৯ ছাত্রীর চুল কাটার ঘটনায় শিক্ষিকা বরখাস্ত

বৃহস্পতিবার ২৯ ফেব্রুয়ারী ২০২৪




দৌলতপুরে প্রাইভেট হাসপাতাল থেকে নবজাতক শিশু চুরি

প্রকাশিত:বুধবার ০৭ ফেব্রুয়ারী ২০২৪ | হালনাগাদ:বুধবার ০৭ ফেব্রুয়ারী ২০২৪ | অনলাইন সংস্করণ
রফিকুল ইসলাম, কুষ্টিয়া

Image

কুষ্টিয়ার দৌলতপুর উপজেলার আল্লার দর্গায় অবস্থিত আনোয়ারা বিশ্বাস মা ও শিশু হাসপাতাল থেকে তিন দিন বয়সের এক নবজাতক শিশু চুরির অভিযোগ উঠেছে।

বুধবার (৭ ফেব্রুয়ারি) দুপুরের দিকে এ ঘটনা ঘটেছে।

নবজাতক শিশুটি কুষ্টিয়ার ভেড়ামারা উপজেলার মহিষাডড়া গ্রামের মসজিদ পাড়ার দিপু আলীর ছেলে। দিপু একই এলাকার নিহারুল ইসলামের ছেলে।

নবজাতকের পিতা দিপু আলী বলেন, গত ৫ ফেব্রুয়ারি দুপুরে সিজারিয়ান অপারেশনের মাধ্যমে আমার স্ত্রী রিয়া খাতুনের ছেলে সন্তান জন্ম দেয়।

বুধবার দুপুরে আমার শাশুড়ী রহিমন নেছা আমার বাচ্চা কোলে নিয়ে হাসপাতালের ভিতরে বসে ছিল। এমন সময় একটি মহিলা বাচ্চাকে কোলে নিতে চায়, ওই সময় পানি আনার প্রয়োজন হলে বাচ্চাটি ওই মহিলার কোলে দিয়ে পানি আনতে গেলে বাচ্চা নিয়ে সেই অপরিচিত মহিলা চলে যায়। আমি এই ঘটনার তদন্ত করে আমার বাচ্চা ফেরত চাই।

এ বিষয়ে আনোয়ারা বিশ্বাস মা ও শিশু হাসপাতালে দায়িত্বরত ম্যানেজার আব্দুর রাজ্জাক বলেন, এই ঘটনায় আমাদের কোন গাফিলতি নাই। আমরা সময় মত সকল কিছুর খোঁজ-খবর রাখি। তবে তাদের আত্মীয় স্বজনের কাছে থেকে কেউ যদি বাচ্চা নিয়ে চলে যায়, তাহলে আমাদের কিছু করার থাকে না।

এ বিষয়ে দৌলতপুর ভেড়ামারা সার্কেলর অতিরিক্ত পুলিশ সার্কেল মহসীন আল মুরাদ বলেন, বিষয়টি দুঃখজনক। আমরা ঘটনা শোনার সাথে সাথে ঘটনা স্থানে এসে তদন্ত শুরু করেছি এবং নবজাতক উদ্ধারে পুলিশের সকল ইউনিট কাজ করছে।

নিউজ ট্যাগ: কুষ্টিয়া

আরও খবর
৯ ছাত্রীর চুল কাটার ঘটনায় শিক্ষিকা বরখাস্ত

বৃহস্পতিবার ২৯ ফেব্রুয়ারী ২০২৪




চিতাবাঘটির হত্যাকাণ্ড তদন্তে মতপার্থ্যক্য

প্রকাশিত:রবিবার ০৪ ফেব্রুয়ারী ২০২৪ | হালনাগাদ:রবিবার ০৪ ফেব্রুয়ারী ২০২৪ | অনলাইন সংস্করণ
পঞ্চগড় প্রতিনিধি

Image

পঞ্চগড়ের আটোয়ারী উপজেলার তোড়িয়া ইউনিয়নের দ্বারখোর সীমান্ত এলাকার নাগর নদ থেকে উদ্ধার মৃত চিতাবাঘটিকে হত্যা করা হয়েছে প্রাথমিক তদন্তে এই তথ্য উঠে এসেছে। তবে হত্যাকাণ্ডের ধরন নিয়ে মতপার্থ্যক রয়েছে সংশ্লিষ্টদের মধ্যে। ময়নাতদন্ত প্রতিবেদন ও পূর্ণাঙ্গ তদন্ত শেষে মৃত্যুর আসল কারণ যাবে বলছেন তারা।

শুক্রবার (২ ফেব্রুয়ারি) বাঘটিকে মৃত অবস্থায় উদ্ধারের পর বন বিভাগ থেকে জানানো হয়, তাদের ধারণা বাঘটি ভারত থেকে এসেছে। বাঘের মৃত্যুর কারণ অনুসন্ধানে নামে দুটি টিম। একটির তদন্ত করছেন বন অধিদপ্তরের বন্যপ্রাণী অপরাধ দমন ইউনিটের তিন সদস্য। অপরটি স্থানীয়ভাবে জেলা বন বিভাগ, উপজেলা প্রশাসন ও প্রাণী সম্পদ অধিদপ্তর সমন্বিতভাবে তদন্ত করছে।

বন্যপ্রাণী অপরাধ দমন ইউনিটের তদন্ত কমিটির প্রধান বন্যপ্রাণী পরিদর্শক অসীম মল্লিক বলেন, আমরা স্থানীয় লোকজন, জনপ্রতিনিধি, আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর কাছ থেকে তথ্য নিয়েছি। প্রাথমিক তদন্তে আমরা পেয়েছি বাঘটিকে হত্যায় স্থানীয়রা জড়িত ছিল। হত্যা করা হয় শ্বাসরোধে। ময়নাতদন্তের প্রতিবেদন পেলে সম্পূর্ণ নিশ্চিত হওয়া যাবে।

স্থানীয়ভাবে গঠিত তদন্ত কমিটির প্রধান আটোয়ারী উপজেলা প্রাণী সম্পদ কর্মকর্তা জাহাঙ্গীর আলম বলেন, হত্যার কারণ হিসেবে পিটিয়ে, বিষ প্রয়োগসহ তিন ধরনের তথ্য এসেছে। ময়নাতদন্তে এ ধরনের কোনো আলামত পাওয়া যায়নি। হত্যার বিষয়টি নিশ্চিত হওয়ার জন্য ভিসেরা পরীক্ষা করা প্রয়োজন। এজন্য ঢাকায় ল্যাবে নমুনা পাঠানো হয়েছে। প্রতিবেদন কত দিনের মধ্যে আসবে তা বলা যাচ্ছে না।

সামাজিক মাধ্যমে ছড়িয়ে পড়া একটি ভিডিওতে দেখা যায় দ্বারখোর সীমান্ত এলাকার মানুষ বাঘটিকে লাঠিসোটা নিয়ে ধাওয়া করছেন। তখন বাঘটি ভয়ে নদের পানিতেই ছোটাছুটি করছে। মানুষজন নদীতে নেমে মাছ ধরার জাল দিয়ে বাঘটিকে তাড়া করতে থাকেন। তখন নদের তীরে একটি জঙ্গলে আশ্রয় নেয় বাঘটি। সেখানেও ধাওয়া দিলে আবার নদীতে নামে বাঘটি। একপর্যায়ে বাঘটি ক্লান্ত হয়ে স্থানীয়দের জালে ধরাশায়ী হয়। পরে বাঘটিকে ধরে পিটিয়ে ও শ্বাসরোধে হত্যা করা হয়।

প্রত্যক্ষদর্শীরা জানান, হত্যার পর বাঘটিকে একটি বাঁশে বেঁধে নেওয়া হয় বোধঁগাঁও বিজিবি ক্যাম্পে। সেখান থেকে বাঘটিকে নেওয়া হয় বারঘাটি পুলিশ তদন্ত কেন্দ্রে। সেখান থেকে বাঘটিকে ময়নাতদন্তের জন্য আটোয়ারী উপজেলা প্রাণী সম্পদ অফিসে নেওয়া হয়।

স্থানীয় কৃষক আব্দুল জব্বার বলেন, চেঁচামেচি শুনে আমি কাছে যাই। দেখি বাঘটি বসে আছে। কাছে গেলেও বাঘটি নড়াচড়া করতে পারছিল না। আমরা তখন একটি জাল দিয়ে বাঘটিকে ঢেকে দেই। তখন বাঘটি নড়াচরা শুরু করলে একটি লাঠি দিয়ে ভালো করে জালে পেঁচিয়ে ধরি। তখন বাঘটি মনে হয় মারা গিয়ে নদীতে ডুবে যাচ্ছিল। পরে নদী থেকে ডাঙায় নিয়ে একটি বাশঁ দিয়ে বাঘের চার পা বেঁধে সামনে নিয়ে আসি।

স্থানীয়দের দাবি নয় দিন আগে এক কৃষকের গরু খেয়ে ফেলেছিল বাঘটি। পরে গরুটিতে বিষ ছিটিয়ে রাখা হয়। সেই গরুটি আবারো খেয়ে নদীতে পানি খেতে নামে বাঘটি। সেখানেই মরে পড়ে থাকতে দেখেন নাগর নদে মাছ ধরতে যাওয়া কয়েকজন। পরে বাঘটিতে উদ্ধার করা হয়।

স্থানীয় গৃহবধূ ময়না বেগম বলেন, গত রবিবার আমার একটি গরু মারা যায়। গরুটিকে বাঘ নাকি শিয়াল আক্রমন করেছিল জানি না। তবে আমার ছোট ছেলে বলেছিল আমাদের এতবড় ক্ষতি করল, আমি তাকেও মেরে ফেলব। এরপর সে গরুর মধ্যে অল্প করে দানাদার বিষ দিয়েছে বলে শুনেছি। এখন বাঘটি বিষ খেয়ে মারা গেছে, নাকি ঠান্ডায় অসুস্থ বা অন্য কোনো কারণে মারা গেছে আমি জানি না।

তোড়িয়া ইউনিয়ন পরিষদের ১ নম্বর ওয়ার্ডের সদস্য নজরুল ইসলাম বলেন, ঘটনাস্থল থেকে আমার বাড়ি সাড়ে তিন কিলোমটিার দূরে। স্থানীয়দের কাছে শুনতে পাই একটি বাঘ গরু খেয়েছে। পরে গরুতে বিষ দেওয়া হলে বাঘটি গরুটি খেয়ে মারা যায়। বাঘটিকে পিটিয়ে হত্যার বিষয়টি আমি জানতাম না। ঢাকা থেকে একটা টিম এসেছে শুনেছি, আমার সঙ্গে কোনো যোগাযোগ করেনি।

বন অধিদপ্তরের বন্যপ্রাণী অপরাধ দমন ইউনিটের বন্যপ্রাণী পরিদর্শক অসীম মল্লিক বলেন, আমরা বিশেষ পরীক্ষা-নিরীক্ষার জন্য বাঘের শরীর এবং উদ্ধারকাজে ব্যবহৃত জাল থেকে কিছু নমুনা সংগ্রহ করেছি। বিষ টোপের কারণে না কি আঘাতে বাঘের মৃত্যু হয়েছে, সেটা পরে নিশ্চিত করে বলা যাবে। আমাদের তদন্তে উঠে আসা বিষয়গুলো নিয়ে দোষীদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নিতে সুপারিশ করব।

বন্যপ্রাণী (সংরক্ষণ ও নিরাপত্তা) আইন-২০১২ অনুযায়ী কোনো ব্যক্তি চিতা বাঘ হত্যা করলে তিনি সর্বোচ্চ তিন বছর কারাদণ্ড অথবা সর্বোচ্চ তিন লাখ টাকা পর্যন্ত অর্থদণ্ড অথবা উভয় দণ্ডে দণ্ডিত হবেন। একই অপরাধের পুনরাবৃত্তি ঘটাইলে সর্বোচ্চ পাঁচ বছর পর্যন্ত কারাদণ্ড অথবা সর্বোচ্চ পাঁচ লাখ টাকা অর্থদণ্ড বা উভয় দণ্ডে দণ্ডিত হবেন। তবে শর্ত থাকে চিতা বাঘ কোনো ব্যক্তিকে আক্রান্ত করলে এবং এতে তার জীবনশঙ্কার সৃষ্টি হলে জীবন রক্ষার্থে আক্রমণকারী চিতা বাঘ হত্যার ক্ষেত্রে এই ধারার বিধান প্রযোজ্য হবে না। তবে আরও শর্ত থাকে এ সংক্রান্ত বিষয়ে কোনো মামলা দায়েরের প্রশ্ন দেখা দিলে, সংশ্লিষ্ট স্টেশন কর্মকর্তা ওয়ার্ডেনের সঙ্গে পরামর্শ করে মামলা দায়ের করতে পারবেন। বাঘের মৃত্যুর ঘটনায় শনিবার (৩ ফেব্রুয়ারি) বিকাল পর্যন্ত থানায় কোনো মামলা বা অভিযোগ দায়ের হয়নি।

জানতে চাইলে পঞ্চগড় বন বিভাগের রেঞ্জ কর্মকর্তা মধুসুধন বর্মন বলেন, হত্যা হলেও সেটা পিটিয়ে না কি শ্বাসরোধে তা নিশ্চিত হয়। ঢাকা থেকে বন বিভাগের লোকজন এসে তদন্ত করছে। স্থানীয়ভাবেও তিন সদস্যর একটি তদন্ত দল তদন্ত করছে। মামলা দায়ের প্রক্রিয়াধীন রয়েছে। যারা দোষী শনাক্ত হবেন আইন অনুযায়ী অবশ্যই তাদের সর্বোচ্চ শাস্তি নিশ্চিত করা হবে।

নিউজ ট্যাগ: পঞ্চগড়

আরও খবর
৯ ছাত্রীর চুল কাটার ঘটনায় শিক্ষিকা বরখাস্ত

বৃহস্পতিবার ২৯ ফেব্রুয়ারী ২০২৪




সাতক্ষীরা সীমান্ত নদী ইছামতি থেকে বিএসএফ সদস্যের মৃতদেহ উদ্ধার

প্রকাশিত:শুক্রবার ২৩ ফেব্রুয়ারী ২০২৪ | হালনাগাদ:শুক্রবার ২৩ ফেব্রুয়ারী ২০২৪ | অনলাইন সংস্করণ
সাতক্ষীরা প্রতিনিধি

Image

সাতক্ষীরার সীমান্ত নদী ইছামতিতে ঘূর্ণিঝড়ে ট্রলার ডুবে ভারতীয় বিএসএফ সদস্য রিয়াজুল ইসলাম (৩০) নিহত হয়েছেন। দেবহাটা উপজেলার দক্ষিণ হাড়তদ্দাহ এলাকায় নদীর চরে তার মৃতদেহ পড়ে ছিল। পরে ভারতীয় বিএসএফ উদ্ধার অভিযান পরিচালনা করে মৃতদেহটি নিয়ে যায়।

বৃহস্পতিবার (২২ ফেব্রুয়ারি) রাত ১১টার দিকে ঘূর্ণিঝড়ের কবলে পড়ে ইছামতি নদীতে টহলকারী ট্রলার ডুবে এ দুর্ঘটনা ঘটে। শুক্রবার (২৩ ফেব্রুয়ারি) সকালে তার মৃতদেহ খুঁজে পাওয়া যায়। নিহত বিএসএফ সদস্য সৈনিক পদে চাকরিরত ছিলেন।

১৭ বিজিবির শাখরা টাউন শ্রীপুর কোম্পানি কমান্ডার সুবেদার মুজিবর রহমান জানান, রাতে আকস্মিক ঘূর্ণিঝড় ও বৃষ্টিপাত হয়। ওই সময়ে নদীতে ভারতীয় বিএসএফের একটি টহলকারী ট্রলার অবস্থান করছিল। ঘূর্ণিঝড় কবলে পড়ে ট্রলারটি ডুবে যায়। রাতেই বিএসএফ অভিযান করে ট্রলারের মাঝিকে খুঁজে পায়। তবে একজন সৈনিক নিখোঁজ ছিলেন। নদীতে তখন জোয়ার ছিল। সকালে ভাটার সময় নিখোঁজ ট্রলার ও বিএসএফ সৈনিকের মৃতদেহ দক্ষিণ হাড়তদ্দাহ বালুরচরে পড়ে থাকতে দেখা যায়। তখন ভারতীয় বিএসএফ উদ্ধার অভিযান পরিচালনা করে মৃতদেহটি নিয়ে যায়। বিএসএফের কাছে থাকা অস্ত্র উদ্ধার হলেও একটি ওয়ারলেস পাওয়া যায়নি।


আরও খবর
৯ ছাত্রীর চুল কাটার ঘটনায় শিক্ষিকা বরখাস্ত

বৃহস্পতিবার ২৯ ফেব্রুয়ারী ২০২৪




২১ বছর সমুদ্রসীমার অধিকার নিয়ে কেউ কথা বলেনি: প্রধানমন্ত্রী

প্রকাশিত:বৃহস্পতিবার ২২ ফেব্রুয়ারী ২০২৪ | হালনাগাদ:বৃহস্পতিবার ২২ ফেব্রুয়ারী ২০২৪ | অনলাইন সংস্করণ
নিজস্ব প্রতিবেদক

Image

প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বলেছেন, জাতির পিতাকে হত্যার পর ২১ বছর সমুদ্রসীমার অধিকার নিয়ে কেউ কোনো কথা বলেনি। বৃহস্পতিবার (২২ ফেব্রুয়ারি) সকালে বঙ্গবন্ধু আন্তর্জাতিক সম্মেলন কেন্দ্রে দ্য টেরিটোরিয়াল ওয়াটারস অ্যান্ড মেরিটাইম জোন অ্যাক্ট-১৯৭৪র সুবর্ণজয়ন্তী উপলক্ষে আয়োজিত অনুষ্ঠানে তিনি এ কথা বলেন।

প্রধানমন্ত্রী বলেন, আমাদের বিশাল সমুদ্রসীমায় আমাদের কোনো অধিকার ছিল না। ১৯৭৫ সালে জাতির পিতাকে হত্যা করে সংবিধান লঙ্ঘন করে যারা ক্ষমতায় এসেছিল, ২১টা বছর তারা সমুদ্রসীমার অধিকার নিয়ে কেউ কোনো কথা বলেনি।

তিনি বলেন, জাতির পিতা ভারতের সঙ্গে আমাদের স্থল সীমানার চুক্তি করে গিয়েছিলেন। সংবিধান সংশোধন করে চুক্তি বাস্তবায়ন করেন। তবে পরবর্তীতে সেটা কার্যকর করা হয়নি। এর ২১ বছর পর আমরা সরকারে এসে বিষয়গুলো নিয়ে কাজ শুরু করি।

সরকারপ্রধান বলেন, সে সময় কাজগুলো খুব গোপনীয়তার সঙ্গে শুরু করতে হয়েছিল। আমাদের সমুদ্রসীমা যাতে নিশ্চিত হয় সেজন্য জাতিসংঘে আমরা সই করে আসি। 

আরও পড়ুন>> পোস্তগোলা সেতু সংস্কার শুরু: বিকল্প পথ ব্যবহারের নির্দেশনা

তিনি বলেন, সমুদ্রসীমার সম্পদ আহরণ করে দেশের মানুষের আর্থ সামাজিক উন্নয়নে কাজে লাগানোর ওপর জোর দিয়েছে সরকার। আমাদের তরুণ সমাজ অত্যন্ত মেধাবী। তাদের পথ দেখালেই বীরদর্পে সামনে এগিয়ে যাবে। আমরা সেটাই চাই।

প্রধানমন্ত্রী বলেন, জাতির পিতাকে হত্যার পর বাংলাদেশ থমকে গিয়েছিল। আমরা আবার সেখান থেকে শুরু করে উন্নয়নশীল দেশে উন্নীত করেছি। আমরা চাই, ২০৪১ সালের বাংলাদেশ হবে উন্নত, সমৃদ্ধ, স্মার্ট বাংলাদেশ। আধুনিক প্রযুক্তি ও জ্ঞানসম্পন্ন নাগরিক গড়ে তুলতে চাই। আমরা বিশ্বের বুকে মাথা উচু করে দাঁড়াবো। মর্যাদা নিয়ে চলবো। সব পরিকল্পনা ও কর্মসূচি নিয়ে রেখেছি। সময়ের সঙ্গে তাল মিলিয়ে সময়োপযোগী করে আমাদের পরিকল্পনাগুলো বাস্তবায়ন করতে হবে।

তিনি বলেন, খনিজ সম্পদসহ সব আমাদের উত্তোলন করতে হবে। কাজে লাগাতে হবে। এজন্য যথাযথ বিনিয়োগও প্রয়োজন। এজন্য আলাপ আলোচনা করছি। আন্তর্জাতিক টেন্ডারও দিয়েছি। আমরা বিশাল সমুদ্রসীমার যথাযথ ব্যবহার করে দেশের মানুষের আর্থ সামাজিক উন্নয়নে কাজে লাগাতে চাই।

সরকারপ্রধান বলেন, আমরা কারো সঙ্গে যুদ্ধে লিপ্ত হবো না। তবে দেশের স্বাধীনতা ও সার্বভৌমত্ব রক্ষার সামর্থ্য থাকতে হবে। ফোর্সেস গোল তৈরি করেছি। সে অনুযায়ী কাজ করে যাচ্ছি।

এসময় তিনি বিদেশি বিনিয়োগকারীদের আহ্বান জানিয়ে বলেন, আপনারা আসুন। বাংলাদেশে বিনিয়োগ করুন। আমাদের ভৌগলিক অবস্থানের কারণেই বিনিয়োগ করে আপনারাও লাভবান হবেন।


আরও খবর