আজঃ মঙ্গলবার ২৭ ফেব্রুয়ারী ২০২৪
শিরোনাম

‘মাইরের ওপর ওষুধ নাই’ বক্তব্য দেওয়া ছাত্রলীগ নেতা গ্রেফতার

প্রকাশিত:শুক্রবার ০১ ডিসেম্বর ২০২৩ | হালনাগাদ:শুক্রবার ০১ ডিসেম্বর ২০২৩ | অনলাইন সংস্করণ
নরসিংদী প্রতিনিধি

Image

দুই দিন আগে গত বুধবার নরসিংদীর বাসাইলের নরসিংদী ক্লাবে আওয়ামী লীগ মনোনীত প্রার্থী বর্তমান সংসদ সদস্য নজরুল ইসলাম খাঁন হিরুকে বিজয়ী করার লক্ষে এক মত বিনিময় সভায় অনুষ্ঠানে যোগ দেয় জেলা ছাত্রলীগ সভাপতি আহসানুল ইসলাম।

নরসিংদী-১ আসনের স্বতন্ত্র প্রার্থী মোঃ কামরুল ইসলামের উদ্দেশ্যে বলেছিলেন স্বতন্ত্র মতন্ত্র বুঝিনা, মাইরের উপর কোন ঔষধ নাই। ছাত্রলীগের পোলাপাইন স্বতন্ত্ররে মানতো না। স্বতন্ত্ররে কেমনে পিডাইতে অয়,হে-ই আমাদের দেহায়সে। হেরে আমরা এমনেই পিডামু।

জেলা ছাত্রলীগের সভাপতির এমন বক্তব্য মূহুর্তেই সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে ভাইরাল হয়। এ ঘটনায় গত বৃহস্পতিবার নরসিংদী যুগ্ম জেলা ও দায়রা জজ এবং নরসিংদী-১ নির্বাচনী এলাকার নির্বাচনী অনুসন্ধান কমিটির সদস্য নাহিদুর রহমান নাহিদ ব্যাখ্যা চান ছাত্রলীগের ওই নেতার কাছে। এমন বক্তব্যে নির্বাচনী আইন ভঙ্গের কারণে কেন তার বিরুদ্ধে আইনগত ব্যবস্থা নেয়া হবেনা, তার কারণ জানতে চেয়েও শোকজ করা হয় এবং ২৪ ঘন্টার মধ্যে তাকে লিখিত ব্যাখ্যা দিতে বলা হয়। 

উল্লেখিত ঘটনার দুদিনের মাথায় আজ শুক্রবার দুপুর ১২টা ৫০ মিনিটে ডিবি পুলিশ কর্তৃক গ্রেপ্তার হয়েছেন ভাইরাল হওয়া জেলা ছাত্রলীগ সভাপতি আহসানুল ইসলাম রিমন।

ছালীগ সভাপতি আহসানুল ইসলাম রিমনের দেওয়া এমন বক্তব্য সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে ভাইরাল ও বিভিন্ন গণমাধ্যমে প্রকাশিত হয়। যা গণপ্রতিনিধিত্ব আদেশ ১৯৭২ (১৯৭২ সনের রাষ্ট্রপতি আদেশ নং ১৫৫) এর ৭৩ ও ৮৪ (ক) এবং সংসদ নির্বাচনে রাজনৈতিক দল ও প্রার্থীর আচরণ বিধিমালা, ২০০৮ এর ধারা ১১ (ক) এর লংঘন।

পরবর্তীতে আজ দুপুর ১২ টা ৫০ মিনিটে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের বঙ্গবন্ধু হল গেট থেকে ডিবি পুলিশ তাকে আটক ও গ্রেপ্তার করে। এ বিষয়ে জেলা প্রশাসক ও রিটার্নিং অফিসার নরসিংদী ড. বদিউল আলম বলেন, আমরা অবাধ, সুষ্ঠু ও প্রতিযোগিতামূলক নির্বাচন উপহার দিতে চাই। এতে কেউ বাধা প্রদান করলে বা নির্বাচনী আচরণ বিধিমালা ভঙ্গ করলে আমরা কঠোর আইনানুগ ব্যবস্থা গ্রহণ করব।


আরও খবর
ঝিনাইদহ জেলা কারাগারে কয়েদির মৃত্যু

সোমবার ২৬ ফেব্রুয়ারী ২০২৪




আরও ১০৮ শহীদ বুদ্ধিজীবীর তালিকা প্রকাশ

প্রকাশিত:রবিবার ১৮ ফেব্রুয়ারী ২০২৪ | হালনাগাদ:রবিবার ১৮ ফেব্রুয়ারী ২০২৪ | অনলাইন সংস্করণ
নিজস্ব প্রতিবেদক

Image

আরও ১০৮ শহীদ বুদ্ধিজীবীর তালিকা প্রকাশ করা হয়েছে। এ নিয়ে তিন দফায় ৪৪৩ জন শহীদ বুদ্ধিজীবীর তালিকা প্রকাশ করলো সরকার।

তৃতীয় ধাপে ১০৮ জন শহীদ বুদ্ধিজীবীর তালিকা প্রকাশ করে ১৫ ফেব্রুয়ারি গেজেট প্রকাশ করেছে মুক্তিযুদ্ধবিষয়ক মন্ত্রণালয়। এদের মধ্যে শিক্ষক, রাজনীতিক, সমাজকর্মী, চিকিৎসক, আইনজীবী, লেখক, চাকরিজীবী, প্রকৌশলী, নাট্যকার, সাংবাদিক, সংগীত শিল্পী এবং সংস্কৃতিকর্মী রয়েছেন।

গেজেটে বলা হয়েছে, শহীদ বুদ্ধিজীবীদের তালিকা প্রণয়নের জন্য গঠিত কমিটির সুপারিশের আলোকে শহীদ বুদ্ধিজীবীর সংজ্ঞা অনুযায়ী এদের তালিকা প্রকাশ করা হলো।

৬ জানুয়ারি মুক্তিযুদ্ধ বিষয়ক মন্ত্রণালয়ে শহীদ বুদ্ধিজীবী যাচাই-বাছাই কমিটির সভায় নতুন করে ১০৮ জনের নাম শহীদ বুদ্ধিজীবীর তালিকায় অন্তর্ভুক্ত করার বিষয়টি চূড়ান্ত করা হয়।

২০২১ সালের ৭ এপ্রিল ১৯১ জন শহীদ বুদ্ধিজীবীর নাম গেজেট আকারে প্রকাশ করে মুক্তিযুদ্ধবিষয়ক মন্ত্রণালয়। ২০২২ সালের ২৯ মে দ্বিতীয় তালিকায় ১৪৩ জন শহীদ বুদ্ধিজীবীর নাম অন্তর্ভুক্ত করা হয়।

শহীদ বুদ্ধিজীবীদের তালিকা প্রণয়নের জন্য ২০২০ সালের ১৯ নভেম্বর গবেষক, বীর মুক্তিযোদ্ধা এবং মুক্তিযুদ্ধবিষয়ক মন্ত্রণালয়ের কর্মকর্তাদের নিয়ে যাচাই-বাছাই কমিটি গঠন করা হয়।

কমিটি নির্ধারিত শহীদ বুদ্ধিজীবীর সংজ্ঞা অনুযায়ী, যে সব সাহিত্যিক, দার্শনিক, বিজ্ঞানী, চিত্রশিল্পী, শিক্ষক, গবেষক, সাংবাদিক, আইনজীবী, চিকিৎসক, প্রকৌশলী, স্থপতি, ভাস্কর, সরকারি ও বেসরকারি কর্মচারী, রাজনীতিবিদ, সমাজসেবী, সংস্কৃতিসেবী, চলচ্চিত্র, নাটক সঙ্গীত ও শিল্পকলার অন্যান্য শাখার সঙ্গে সংশ্লিষ্ট ব্যক্তি যাদের বুদ্ধিবৃত্তিক কর্মের মাধ্যমে স্বাধীন বাংলাদেশের অভ্যুদয়ে গুরুত্বপূর্ণ অবদান রেখেছেন এবং পাকিস্তানি দখলদার বাহিনী কিংবা তাদের সহযোগীদের হাতে শহীদ কিংবা চিরতরে নিখোঁজ হয়েছেন তারা শহীদ বুদ্ধিজীবী হিসেবে বিবেচিত হবেন।

২০২০ সালের ১৩ ডিসেম্বর কমিটির প্রথম সভায় প্রাথমিকভাবে এক হাজার ২২২ জন বুদ্ধিজীবীর তালিকা অনুমোদন দেওয়া হয়। প্রাথমিকভাবে ১৯৭২ সালে এক হাজার ৭০ জন শহীদের তালিকা, পরবর্তীসময়ে ডাক বিভাগ ১৫২ জন শহীদের ডাক টিকিট প্রকাশ করে সেই তালিকাও অনুমোদন দেওয়া হয় ওই সভায়।

১৯৭১ সালের ডিসেম্বরে স্বাধীনতা যুদ্ধের শেষ পর্যায়ে এসে পাকিস্তানি বাহিনী বুঝতে পারে, তাদের পক্ষে যুদ্ধে জেতা সম্ভব নয়। তখন তারা সাংস্কৃতিক, সামাজিক ও শিক্ষাগত দিক থেকে অঙ্কুরেই দুর্বল করে দিতে এক হত্যাযজ্ঞের পরিকল্পনা করে। পরিকল্পনা অনুযায়ী ১৪ ডিসেম্বর রাতে পাকিস্তানি বাহিনী তাদের এ দেশীয় দোসর রাজাকার, আলবদর ও আল শামস বাহিনীর সহায়তায় দেশের শ্রেষ্ঠ সন্তানদের তাদের বাসা থেকে তুলে এনে নির্মম নির্যাতনের পর হত্যা করে। এ গণহত্যা বাংলাদেশের ইতিহাসে বুদ্ধিজীবী হত্যাকাণ্ড নামে পরিচিত। বন্দি অবস্থায়ও বুদ্ধিজীবীদের বিভিন্ন স্থানে নিয়ে হত্যা করা হয়।

দেশ স্বাধীন হওয়ার পর তাদের ক্ষত-বিক্ষত ও বিকৃত লাশ রায়েরবাজার এবং মিরপুর বধ্যভূমিতে পাওয়া যায়। অনেকের লাশ শনাক্তও করা যায়নি। কারও কারও লাশের হসিদই মেলেনি। এ নির্মম হত্যাকাণ্ডের কথা স্মরণ করে প্রতি বছর ১৪ ডিসেম্বর বাংলাদেশে পালিত হয় শহীদ বুদ্ধিজীবী দিবস।

শহীদ বুদ্ধিজীবীর তৃতীয় তালিকা দেখুন এখানে।


আরও খবর



গ্রিসে বৈধতা পেলেন ৩ হাজার ৪০৫ বাংলাদেশি

প্রকাশিত:শনিবার ২৪ ফেব্রুয়ারী 20২৪ | হালনাগাদ:শনিবার ২৪ ফেব্রুয়ারী 20২৪ | অনলাইন সংস্করণ
আন্তর্জাতিক ডেস্ক

Image

গ্রিসে বৈধভাবে বসবাসে অনুমতি পেলেন ৩ হাজার ৪০৫ জন বাংলাদেশি। ২০২২ সালের ফেব্রুয়ারিতে দুই দেশের মধ্যে সই হওয়া একটি সমঝোতা চুক্তির আওতায় এই অনুমতি দিল গ্রিস।

ইউরোপের দেশটিতে বসবাসের অনুমতির জন্য আবেদন করেছিল ১০ হাজার ৩৩৭ জন বাংলাদেশি। জাচাইবাছাইয়ের পর ১ হাজার ৯ জনের আবেদন শেনজেন ভিসা রিপোর্টের ভিত্তিতে বাতিল হয়ে যায়। বাকি ৫ হাজার ৯০০ জনের আবেদন প্রক্রিয়াধীন রয়েছে বলে জানিয়েছে গ্রিসের অভিবাসন ও অ্যাসাইলেম মন্ত্রণালয়। 

২০২২ সালের ৯ ফেব্রুয়ারি পর্যন্ত গ্রিসে দুই বছর ধরে অবস্থান করা যেকোনো বাংলাদেশি আবেদনকারীর পাসপোর্টে ২ বছরের মেয়াদ থাকলে এই আবেদন করার ক্ষেত্রে যোগ্য বলে বিবেচিত হয়েছেন। তবে এই আবেদন করার আগে অ্যাথেন্সের বাংলাদেশ দূতাবাসের মাধ্যমে নাম রেজিস্ট্রেশন করতে হয়েছে আবেদনকারীদের। গত বছরের জানুয়ারি থেকে ডিসেম্বর পর্যন্ত এই রেজিস্ট্রেশন চলেছে। এই বছরও একই প্রক্রিয়ায় এখন পর্যন্ত ১১৩ বাংলাদেশি গ্রিসে বসবাসের অনুমতি চেয়ে আবেদন করেছেন।

গ্রিসের অভিবাসন ও অ্যাসাইলেম মন্ত্রী দিমিত্রিস কেইরিদিস এই বছরের শুরুতে বলেছিলেন ২০২৪ সাল হবে বৈধ অভিবাসনের বছর। এই লক্ষে অভিবাসন ব্যবস্থার আধুনিকায়ন শুরু করেছে দেশটি। গ্রিসের লক্ষ্য ২০২৬ সালের জুনের মধ্যে ৮ লাখ ৫০ হাজার অভিবাসন আবেদন নিষ্পন্ন করা।


আরও খবর
বিশ্ববাজারে আবারো কমেছে জ্বালানি তেলের দাম

মঙ্গলবার ২৭ ফেব্রুয়ারী ২০২৪




মুক্তি পেলেন সাবেক থাই প্রধানমন্ত্রী থাকসিন সিনাওয়াত্রা

প্রকাশিত:রবিবার ১৮ ফেব্রুয়ারী ২০২৪ | হালনাগাদ:রবিবার ১৮ ফেব্রুয়ারী ২০২৪ | অনলাইন সংস্করণ
আন্তর্জাতিক ডেস্ক

Image

থাইল্যান্ডের সাবেক প্রধানমন্ত্রী থাকসিন সিনাওয়াত্রা মুক্তি পেয়েছেন। আজ রোববার (১৮ ফেব্রুয়ারি) ভোরে দেশটির পুলিশ হাসপাতাল থেকে মুক্তি পেয়ে তিনি রাজধানী ব্যাংককে নিজের বাসভবনে ফিরে যান। ১৫ বছর স্বেচ্ছানির্বাসনে থেকে দেশে ফেরার ছয় মাসের মাথায় কারাগার থেকে মুক্তি পেলেন তিনি। খবর এএফপির।

থাইল্যান্ডের দুবারের নির্বাচিত প্রধানমন্ত্রী হিসেবে দায়িত্ব পালন করা এই বিতর্কিত ধনকুবের ২০০৬ সালে এক সামরিক অভ্যুত্থানের মাধ্যমে ক্ষমতাচ্যুত হয়েছিলেন। গত বছরের আগস্টে দেশে ফেরার পর ক্ষমতার অপব্যবহার ও দুর্নীতির কারণে আট বছরের কারাদণ্ড দেওয়া হয় তাকে। তবে দেশে ফেরার কয়েকদিনের মাথায় থাইল্যান্ডের রাজা মাহা ভাজিরালংকর্ন তার শাস্তি কমিয়ে আনেন এক বছরে। পরে গত সপ্তাহে সরকারের পক্ষ থেকে বলা হয় ৭৪ বছর বয়সী থাকসিন সিনাওয়াত্রা তার স্বাস্থ্য ও বয়সের কারণে কারাদণ্ডের মেয়াদ শেষ হওয়ার আগেই মুক্তি পাবেন। 

আরও পড়ুন>> বৈশ্বিক শান্তি সম্মেলনে যোগ দিতে বাংলাদেশকে আমন্ত্রণ জানিয়ে জেলেনস্কির টুইট

আজ রোববার ভোরে পুলিশ হাসপাতাল থেকে মুক্তির পর থাকসিন তার দুই মেয়ে পায়েতংতার্ন ও পিনতংতার সঙ্গে গাড়িতে করে তার বাড়িতে ফিরে আসেন। তবে এ সময় বেশকিছু লোককে হাসপাতালের বাইরে তার মুক্তির প্রতিবাদ জানাতে দেখা যায়। তার মুক্তির বিষয়ে অবশ্য বিস্তারিত জানা যায়নি। তবে ধরে নেওয়া হচ্ছে তিনি নজরদারিতে থাকবেন এবং তার পায়ের গোড়ালিতে একটি ট্যাগ বসানো থাকবে। পাশাপাশি তার চলাফেরাতেও থাকবে বিধিনিষেধ।

গত বছর যে দিনে থাকসিন সিনাওয়াত্রা দেশে ফিরে আসেন, সেই দিনেই তার দল পিউ থাই পার্টি সেনা সমর্থিত দলের সঙ্গে জোট গঠন করে ক্ষমতায় ফিরে আসে। ওই সময় থেকেই অনেকে ধারণা করেছিলেন, তার কারাদণ্ডের মেয়াদ কমিয়ে আনতে নেপথ্যে সমঝোতা হয়েছে। এই গুজব আরও জোরালো হয়ে ওঠে যখন দেখা যায়, জেলখানা থেকে তাকে পুলিশ হাসপাতালে পাঠানো হয়।

থাকসিন সিনাওয়াত্রা বুকের সমস্যা ও উচ্চ রক্তচাপের সমস্যায় ভুগছেন। আর এই সমস্যা নিয়েই তিনি হাসপাতালে গিয়েছিলেন। পরের কয়েক মাসে তার শরীরে দুটি অস্ত্রোপচার করা হয় বলে তার পরিবারের পক্ষ থেকে জানানো হয়েছিল।

সরকারি দলের সঙ্গে পিউ থাই পার্টির কোনো চুক্তির বিষয়কে অস্বীকার করেছেন থাই প্রধানমন্ত্রী শ্রেত্থা থাভিসিন। বরং তিনি বলেন, থাকসিন তার কারাদণ্ডের মেয়াদ পূর্ণ করেছেন। যদিও থাকসিন সিনাওয়াত্রাকে কারাগারের কক্ষে সময় কাটাতে হয়নি।


আরও খবর
বিশ্ববাজারে আবারো কমেছে জ্বালানি তেলের দাম

মঙ্গলবার ২৭ ফেব্রুয়ারী ২০২৪




অব্যাহত রয়েছে শৈত্যপ্রবাহ, পঞ্চগড়ে তাপমাত্রা বেড়ে ৯.৩

প্রকাশিত:বুধবার ৩১ জানুয়ারী ২০২৪ | হালনাগাদ:বুধবার ৩১ জানুয়ারী ২০২৪ | অনলাইন সংস্করণ
নিজস্ব প্রতিবেদক

Image

তাপমাত্রার বাড়লেও পঞ্চগড়ে এখনও অব্যাহত রয়েছে শৈত্যপ্রবাহ। সূর্যের দেখা মিললেও শীতের দাপট কমেনি এ জনপদে। বুধবার (৩১ জানুয়ারি) ভোর ৬টায় এ জেলায় তাপমাত্রা রেকর্ড করা হয়েছে ৯ দশমিক ৩ ডিগ্রি সেলসিয়াস। এ তথ্য নিশ্চিত করেছেন জেলার প্রথম শ্রেণির আবহাওয়া পর্যবেক্ষণাগারের ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা রাসেল শাহ।

তিনি জানান, আজ ভোরে এ জেলায় তাপমাত্রা রেকর্ড করা হয়েছে ৯ দশমিক ৩ ডিগ্রি সেলসিয়াস। যা মঙ্গলবারের তুলনায় ১ দশমিক ৭ ডিগ্রি সেলসিয়াস বেশি। সেদিন একই সময়ে তাপমাত্রা রেকর্ড হয়েছিল ৭ দশমিক ৬ ডিগ্রি সেলসিয়াস। 

আরও পড়ুন>> ন্যাটো কেন তৃতীয় বিশ্বযুদ্ধের প্রস্তুতি নিচ্ছে

তিনি আরও বলেন, তাপমাত্রা বাড়লেও এ অঞ্চলে এখন মৃদু শৈত্যপ্রবাহ বইছে। সপ্তাহের বেশি সময় ধরে এ অঞ্চলে শৈত্যপ্রবাহ বয়ে যাচ্ছে। গত ২৩ জানুয়ারি থেকেই এ জেলায় শৈত্যপ্রবাহ বইছে। এর মধ্যে গত ২৪ জানুয়ারি থেকে ৩০ জানুয়ারি পর্যন্ত এ জেলায় দেশের সর্বনিম্ন তাপমাত্রা রেকর্ড হয়েছে।

বিভিন্ন এলাকা ঘুরে দেখা গেছে, লাগাতার শীতের কারণে দুর্ভোগ বেড়েছে খেটে খাওয়া মানুষের। কাজকর্ম কমে যাওয়ায় অভাব-অনটনে দিন কাটছে তাদের।

এ দিকে ১০ ডিগ্রির নিচে তাপমাত্রা রেকর্ড হওয়ায় প্রাথমিক ও মাধ্যমিক বিদ্যালয়গুলোতে পাঠদান বন্ধ থাকলেও সকাল থেকেই স্কুল, কোচিং, প্রাইভেটে যেতে দেখা গেছে কোমলমতি শিশু-শিক্ষার্থীদের।


আরও খবর
সারা দেশে কমতে পারে রাতের তাপমাত্রা

সোমবার ২৬ ফেব্রুয়ারী ২০২৪




ভারতে পাচার হওয়া দুই নারীকে বেনাপোল হস্তান্তর

প্রকাশিত:মঙ্গলবার ২০ ফেব্রুয়ারী ২০24 | হালনাগাদ:মঙ্গলবার ২০ ফেব্রুয়ারী ২০24 | অনলাইন সংস্করণ
এম এ রহিম, বেনাপোল (যশোর)

Image

ভারতে পাচার হওয়া বাংলাদেশী দুই নারী দীর্ঘ আড়াই বছর পর ট্রাভেল পারমিট এর মাধ্যমে বেনাপোল চেকপোস্ট দিয়ে ইমিগ্রেশন পুলিশের কাছে হস্তান্তর করেছে ভারতীয় ইমিগ্রেশন পুলিশ।

মঙ্গলবার (২০ ফেব্রুয়ারি) বিকেলে বিজিবি বিএসএফের উপস্থিতিতে তাদেরকে ইমিগ্রেশন পুলিশের কাছে হস্তান্তর করা হয়। তারা গোপালগঞ্জের কাশিয়ানি থানা ও ঢাকা গেন্ডারিয়া থানার বাসিন্দা।

ফেরত আসা নারীরা জানান, দালালের খপ্পরে পড়ে প্রায় আড়াই বছর আগে ভারতে পাচার হন। পরে ভারতের পুলিশ কর্তৃক আটক হলে তারা জেল হাজতে প্রেরণ করেন। এরপর জেল হাজত থেকে একটি এনজিও সংস্থা ছাড়িয়ে তাদের হেফাজতে রাখার পর দু-দেশের সংশ্লিষ্ট মন্ত্রণালয়ের যোগাযোগের মাধ্যমে মঙ্গলবার বিকালে দেশে ফিরেছেন তারা।

এ ব্যাপারে ইমিগ্রেশনের ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা কামরুজ্জামান জানান, ভারতীয় ইমিগ্রেশন পুলিশ দুই নারীকে হস্তান্তর করেছে।ইমিগ্রেশনে আইনি প্রক্রিয়া সম্পন্ন করার পর বেনাপোল পোর্ট থানার নিকট হস্থান্তর করা হয়েছে।

নিউজ ট্যাগ: বেনাপোল

আরও খবর
ঝিনাইদহ জেলা কারাগারে কয়েদির মৃত্যু

সোমবার ২৬ ফেব্রুয়ারী ২০২৪