আজঃ মঙ্গলবার ২৫ জুন ২০২৪
শিরোনাম

লক্ষ্মীপুরে ভোট গ্রহণ শুরু

প্রকাশিত:রবিবার ০৭ জানুয়ারী ২০২৪ | হালনাগাদ:রবিবার ০৭ জানুয়ারী ২০২৪ | অনলাইন সংস্করণ
লক্ষ্মীপুর প্রতিনিধি

Image

লক্ষ্মীপুরে দ্বাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনের ভোট গ্রহণ রোববার (৭ জানুয়ারি) সকাল ৮ টা থেকে শুরু হয়েছে। চলবে বিকেল ৪ টা পর্যন্ত।

জেলার চারটি সংসদীয় আসনে এবার ৩১ জন প্রার্থী প্রার্থী রয়েছেন। জেলায় মোট ভোটার ১৪ লাখ ৯৬ হাজার ৫৯৬। এর মধ্যে পুরুষ ভোটার ৭ লাখ ৭৪ হাজার ১৯৩, নারী ভোটার ৭ লাখ ২২ হাজার ৩৯৯, তৃতীয় লিঙ্গের ৪ জন। মোট ভোটকেন্দ্র ৪৭৭। জেলায় উপজেলার সংখ্যা ৫টি, পৌরসভা ৪টি, ইউনিয়ন ৫৮টি।

ভোট কেন্দ্র ঘিরে প্রায় ১৫শ পুলিশের সদস্য, র‍্যাবের ৮ টি টহল টিম, বর্ডার গার্ড বাংলাদেশ (বিজিবি) ১৩ প্লাটুন, কোষ্টগার্ড ১ প্লাটুন, সেনাবাহিনীর একটি রেজিমেন্ট এবং প্রায় ৬ হাজার আনসার সদস্য মোতায়েন থাকবে।

আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর পাশাপাশি জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট এবং নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট মোতায়েন রয়েছে।


আরও খবর



ঘূর্ণিঝড়ে ক্ষতিগ্রস্তদের জন্য সবকিছু করা হবে: প্রধানমন্ত্রী

প্রকাশিত:বৃহস্পতিবার ৩০ মে ২০২৪ | হালনাগাদ:বৃহস্পতিবার ৩০ মে ২০২৪ | অনলাইন সংস্করণ
দর্পণ নিউজ ডেস্ক

Image

প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বলেছেন, ঘূর্ণিঝড় রেমালের তাণ্ডবে ক্ষতিগ্রস্তদের বাড়িঘর নির্মাণ করে দেওয়াসহ যা যা প্রয়োজন সব করে দেওয়া হবে।

আজ বৃহস্পতিবার দুপুরে পটুয়াখালীর কলাপাড়া পৌর শহরের সরকারি মোজাহার উদ্দিন বিশ্বাস ডিগ্রি কলেজ মাঠে রিমালে ক্ষতিগ্রস্ত মানুষের মধ্যে ত্রাণসামগ্রী বিতরণ শেষে আয়োজিত সভায় তিনি এসব কথা বলেন।

শেখ হাসিনা বলেন, গণতন্ত্রের ধারাবাহিকতা আছে বলেই দেশে উন্নতি হচ্ছে। ক্ষমতায় আসার পর দেশের মানুষের ভাগ্য পরিবর্তনে কাজ করে যাচ্ছে সরকার। এই অঞ্চলের (উপকূলের) মানুষ প্রতিনিয়ত প্রকৃতির সঙ্গে লড়াই করে জীবনযুদ্ধে লিপ্ত হয়। প্রাকৃতিক দুর্যোগ আসবেই, সেটাকে মোকাবিলা করে মানুষের জীবনমান রক্ষা করাই আমাদের লক্ষ্য এবং সেটাই আমরা করে যাচ্ছি।

প্রাকৃতিক দুর্যোগে সমসময় মানুষের পাশে থাকার অঙ্গীকার ব্যক্ত করে প্রধানমন্ত্রী বলেন, ঘূর্ণিঝড়ে কৃষকদের ক্ষতিপূরণে সার-বীজসহ সব ধরনের সহযোগিতা দেওয়া হবে। ভেঙে যাওয়া বাঁধ ও ঘরবাড়ি নির্মাণ কাজ শুরু হয়েছে। উপকূলীয় অঞ্চলে দুর্যোগ সহনীয় ঘর করে দেওয়া হবে।

এর আগে ঘূর্ণিঝড় রেমালের তাণ্ডবে ক্ষতিগ্রস্ত এলাকা পরিদর্শন করেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। পরে তিনি কলাপাড়া পৌর শহরের সরকারি মোজাহার উদ্দিন বিশ্বাস ডিগ্রি কলেজ মাঠে দুই হাজার দুর্গত মানুষের মধ্যে ত্রাণসামগ্রী বিতরণ করেন।

আজ বেলা ১১টায় রাজধানীর তেজগাঁও বিমানবন্দর থেকে হেলিকপ্টারে দুর্গত এলাকার উদ্দেশে রওনা হন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা।

গত ২৬ মে রাত থেকে ২৭ মে শেষ রাত পর্যন্ত দেশের বিভিন্ন জেলার ওপর দিয়ে বয়ে যায় ঘূর্ণিঝড় রেমাল। এর প্রভাবে ঝড়, বৃষ্টি ও জলোচ্ছ্বাসে দেশের বিভিন্ন জেলার মতো উপকূলীয় জেলা পটুয়াখালীতেও ব্যাপক ক্ষয়ক্ষতি হয়।

পটুয়াখালী জেলায় ৩ লাখ ২৭ হাজার মানুষ ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে এবং প্রায় ২৩৫টি বাড়ি সম্পূর্ণ এবং ১ হাজার ৮৬৫টি আংশিকভাবে ধ্বংস হয়েছে। এ প্রাকৃতিক দুর্যোগে কৃষি খাতে ২৬ কোটি টাকা এবং মৎস্য খাতে ২৮ কোটি টাকার বেশি ক্ষতি হয়।


আরও খবর



বরগুনায় ঘূর্ণিঝড় রেমালে নিহত ১, আহত ৩৭

প্রকাশিত:মঙ্গলবার ২৮ মে ২০২৪ | হালনাগাদ:মঙ্গলবার ২৮ মে ২০২৪ | অনলাইন সংস্করণ
অলিউল্লাহ্ ইমরান, বরগুনা

Image

ঘূর্ণিঝড় রেমালের প্রভাবে ঘরের ওপর ভেঙে পড়া গাছ অপসারণের সময় ডাল ভেঙে পড়ে আব্দুর রহমান বয়াতি (৫৫) নামে এক বৃদ্ধ নিহত হয়েছেন। মঙ্গলবার (২৮ মে) এ তথ্য নিশ্চিত করেছেন বরগুনা সদর উপজেলা নির্বাহী অফিসার মো. শামীম মিঞা।

তিনি জানান, গতকাল সোমবার (২৭ মে) দুপুরে সদর উপজেলার আয়লা পাতাকাটা ইউনিয়নের ৪ নম্বর ওয়ার্ডের লেমুয়া গ্রামে এ ঘটনা ঘটে। নিহত আব্দুর রহমান বয়াতি ওই এলাকার মৃত্যু খুতি বয়াতির ছেলে।

জেলা প্রশাসক মোহা. হাবিবুর রহমান বলেন, বরগুনায় ঘূর্ণিঝড় রেমালের প্রভাবে ঘরের ওপর ভেঙে পড়া গাছ অপসারণের সময় একজনের মৃত্যু হয়েছে। এছাড়াও জেলায় প্রাথমিক তথ্য অনুযায়ী ৩৭ জন আহত হয়েছে বলে জানা গেছে।

তিনি আরও জানান, ঘূর্ণিঝড়ে বরগুনায় এখন পর্যন্ত যে তথ্য রয়েছে তাতে ৩ হাজার ৩৩৭টি ঘর সম্পূর্ণ বিধ্বস্ত হয়েছে। ১৩ হাজার ৩৪টি ঘর আংশিক বিধ্বস্ত হয়েছে। পুরো জেলায় ১২ কিলোমিটার বেড়িবাঁধ ভেঙে গিয়েছে। যার কারণে ৩০০ গ্রাম সাগরের পানিতে প্লাবিত হয়েছে। ৪ হাজার ১৫৭ হেক্টর মাছের ঘের পুকুর ভেসে গিয়েছে।

বিদ্যুৎ বিভাগের প্রাথমিক তথ্য অনুযায়ী বরগুনা জেলায় ৯০০ এর মতো খুঁটি পড়ে গিয়েছে। ২৫০টির মতো খুঁটি ভেঙে গিয়েছে। ১ হাজার ২০০ এর মতো স্পটে বিদ্যুতের তারের ওপর গাছ হেলে রয়েছে এবং ৯০০ এর মতো স্পটে বিদ্যুতের তারের গাছ পড়ে তার ছিঁড়ে গিয়েছে। পুরো জেলায় ২ লাখ ৩১ হাজার মানুষ বন্যার দুর্ভোগ আছে। তবে সবকিছু সচল করতে প্রত্যেকটি উপজেলাতেই প্রশাসন কাজ করছে।


আরও খবর



এবার মানব শুক্রাণুতে মাইক্রোপ্লাস্টিকের উপস্থিতি শনাক্ত

প্রকাশিত:শুক্রবার ২১ জুন ২০২৪ | হালনাগাদ:শুক্রবার ২১ জুন ২০২৪ | অনলাইন সংস্করণ
বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি ডেস্ক

Image

এবার মানব শুক্রাণুতে মাইক্রোপ্লাস্টিকের উপস্থিতির প্রমাণ মিলেছে। একটি গবেষণায় পরীক্ষা করা সব শুক্রাণুর নমুনায় মাইক্রোপ্লাস্টিক শনাক্ত হয়েছে। সম্প্রতি দ্য গার্ডিয়ানের এক প্রতিবেদনে এ তথ্য জানানো হয়েছে।

গবেষকরা বলছেন, মানব শুক্রাণুতে মাইক্রোপ্লাস্টিকের উপস্থিতি শনাক্ত হওয়ায় প্রজননের ওপর এর প্রভাব নিয়ে আরও গবেষণা করা জরুরি।

প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, কয়েক দশক ধরেই পুরুষের শুক্রাণুর পরিমাণ (স্পার্ম কাউন্ট) কমেছে। ৪০ শতাংশ স্পার্ম কাউন্ট কমার ব্যাখ্যা পাওয়া যায়নি। রাসায়নিক দূষণ এটির কারণ হতে পারে বলে অনেক গবেষণায় ইংগিত দেওয়া হয়েছে।

দ্য গার্ডিয়ান জানিয়েছে, চীনের জিনানে ৪০ জন সুস্থ পুরুষের শুক্রাণুর নমুনা নিয়ে পরীক্ষা করা হয়েছে। ইতালিতে আরেক গবেষণায় ১০ জন পুরুষের থেকে নমুনা নেওয়া হয়েছে। এর মধ্যে ছয়টি নমুনায় মাইক্রোপ্লাস্টিকের উপস্থিতি শনাক্ত হয়েছে। এছাড়া চীনের অপর এক গবেষণায় ২৫ জনের নমুনা সংগ্রহ করা হয়েছে। এরমধ্যে প্রায় অর্ধেকে মাইক্রোপ্লাস্টিক মিলেছে।

সম্প্রতি ইঁদুরের ওপর চালানো এক গবেষণায় দেখা গেছে, মাইক্রোপ্লাস্টিকের কারণে ইঁদুরের স্পার্ম কাউন্ট কমে গিয়েছে। এছাড়া এটির কারণে অস্বাভাবিক আচরণ ও হরমোনে ভারসাম্য নষ্ট হয়েছে।

বর্তমানে মাইক্রোপ্লাস্টিক নিয়ে বিস্তর গবেষণা চলছে। এতে সবত্রই মাইক্রোপ্লাস্টিক দূষণের প্রমাণ মিলছে। গত মে মাসে চালানো এক পরীক্ষায় ২৩টি পুরুষ অন্ডকোষের নমুনায় এ পরীক্ষা চালানো হয়। এতে সবকটিতেই এ ক্ষতিকর কণার উপস্থিতি শনাক্ত হয়।

এর আগে মানুষের রক্ত, প্লাসেন্টা ও বুকের দুধে মাইক্রোপ্লাস্টিকের অস্তিত্ব মেলে। এ সব গবেষণার ফলাফলে মানবদেহে সর্বত্র ক্ষতিকর এ কণার উপস্থিতির ইংগিত মিলে। তবে স্বাস্থ্যের ওপর এর ক্ষতিকর প্রভাব এখন জানা যায়নি। গবেষণাগারে দেখা গেছে, মানবদেহের কোষের ক্ষতি করে মাইক্রোপ্লাস্টিক।

প্রতিবছর লাখ লাখ টন প্লাস্টিক বর্জ্য পরিবেশে ফেলে দেওয়া হচ্ছে। যার একটি অংশ সৃষ্টিজগতের খাবার থেকে শুরু করে মানুষের শরীরে গিয়ে মিশছে। এভারেস্ট পর্বতের চূড়া থেকে সমুদ্রের তলদেশেও মাইক্রোপ্লাস্টিকের দূষিত কণা পৌঁছে গেছে।

চীনের কিংদাও ইউনিভার্সিটির গবেষক নিং লি ও তার সহকর্মীরা জানান, মানব স্বাস্থ্যের ওপর মাইক্রোপ্লাস্টিকের ক্ষতিকর প্রভাব রয়েছে বলে গবেষণা বৃদ্ধির সঙ্গে সঙ্গে মনে হচ্ছে প্রজননের ওপর এটির সম্পর্ক গুরুত্বপূর্ণ বলেও জানান তারা।


আরও খবর



রাবিতে সকল বিভাগের সমন্বিত অনলাইন রেজাল্ট ব্যবস্থা উদ্বোধন

প্রকাশিত:বুধবার ২৯ মে ২০২৪ | হালনাগাদ:বুধবার ২৯ মে ২০২৪ | অনলাইন সংস্করণ
আসিক আদনান, রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়

Image

রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ে (রাবি) অনলাইনে একযোগে মিলবে সকল বিভাগের অ্যাকাডেমিক রেজাল্ট। বুধবার (২৯ মে) সকাল সাড়ে ১১টায় বিশ্ববিদ্যালয়ের সৈয়দ নজরুল ইসলাম প্রশাসনিক ভবনে (পরীক্ষা নিয়ন্ত্রকের কক্ষে) বিশ্ববিদ্যালয় উপাচার্য অধ্যাপক গোলাম সাব্বির সাত্তার এ রেজাল্ট ব্যবস্থার উদ্বোধন করেন।

উদ্বোধনকালে বিশ্ববিদ্যালয় উপাচার্য বলেন, আমরা একটা নতুন যুগে পদার্পণ করতে চলেছি। আপনারা যে পদ্ধতিটা দেখলেন এটা চমৎকার একটি পদ্ধতি। এর পরেও আরও অনেক কিছু এটার সাথে যুক্ত করব। আমরা ট্রায়ালের মাধ্যমে শুরু করেছি। আমরা কাজ করব, কাজ করতে করতে বুঝব। আমাদের পক্ষে এটা করা সম্ভব কারণ আমাদের কাছে সার্পোটিং স্টাফ রয়েছে। আমাদের অ্যাকাউন্টস অটোমেশনে চলে যাচ্ছে। পাশাপাশি আইসিটিসহ সবকিছু 'আমব্রেলা' পদ্ধতির আওতায় চলে যাচ্ছে।

এখনও অনেক শিক্ষক রয়েছেন যাদের ই-মেইল নেই তারা কীভাবে অংশগ্রহণ করবে এমন প্রশ্নের জবাবে তিনি বলেন, আমরা অ্যাকাডেমিক কাউন্সিলকে বলে দিয়েছি যাদের ই-মেইল নেই তারা এই প্রক্রিয়ায় অংশ নিতে পারবে না।

এ সময় বিশ্ববিদ্যালয়ের আইসিটি সেন্টারের পরিচালক অধ্যাপক খাদেমুল ইসলাম বলেন, আমরা যতই ডিজিটালাইজ করি না কেন আমাদের নিজেদেরও স্মার্ট হতে হবে। কারণ একজন শিক্ষার্থীর কোনো পাওনা আছে কিনা সেটা হল প্রাধ্যক্ষ ও বিভাগের চেয়ারম্যানের অনলাইনে জানাতে হবে। তাছাড়া হলগুলো ও বিভাগীয় যে কর্মকর্তারা রয়েছে তাদেরকেও স্মার্ট হতে হবে। কারণ এখন তাদের কাছে আগের মতো কোনো চিঠিপত্র যাবে না। তাদেরকে আমরা শুধুমাত্র মেইল করব এবং নির্দিষ্ট একটি সময় থাকবে ঐ সময়ের মধ্যেই তাদেরকে সাবমিট করতে হবে। নির্দিষ্ট সময়ের মধ্যে সাবমিট করতে না পারলে তাকে ডিউ প্রসেসে আসতে হবে।

অনুষ্ঠানে উপস্থিত ছিলেন, বিশ্ববিদ্যালয়ের উপ-উপাচার্য (প্রশাসন)  অধ্যাপক সুলতান-উল-ইসলাম, উপাচার্য অধ্যাপক হুমায়ুন কবীর, ছাত্র উপদেষ্টা অধ্যাপক জাহাঙ্গীর আলম সাউদ, প্রক্টর অধ্যাপক আসাবুল হক, সকল অনুষদের ডিনবৃন্দসহ বিভিন্ন বিভাগে শিক্ষক, কর্মকর্তা-কর্মচারীবৃন্দ।


আরও খবর



মন্ত্রীর বিদায়ের পর চাপের মুখে নেতানিয়াহু

প্রকাশিত:সোমবার ১০ জুন ২০২৪ | হালনাগাদ:সোমবার ১০ জুন ২০২৪ | অনলাইন সংস্করণ
আন্তর্জাতিক ডেস্ক

Image

গাজায় চলমান সামরিক অভিযানকে কেন্দ্র করে ইসরায়েলের প্রধানমন্ত্রী বেনিয়ামিন নেতানিয়াহু দেশে-বিদেশে প্রবল চাপের মুখে রয়েছেন। বিশেষ করে অভ্যন্তরীণ রাজনীতির কারণে তার সরকারের অস্তিত্ব হুমকির মুখে পড়ছে।

গত বছরের ৭ অক্টোবর হামাসের হামলার পর জাতীয় ঐক্যের স্বার্থে বিরোধী নেতা বেনি গ্যান্টজ যুদ্ধকালীন মন্ত্রিসভায় যোগ দিয়ে নেতানিয়াহুর রাজনৈতিক অবস্থান অনেকটা জোরালো করেছিলেন। কিন্তু রোববার তিনি পূর্ব ঘোষণা অনুযায়ী পদত্যগ করেছেন।

উগ্র দক্ষিণপন্থি জোট সরকারের একমাত্র মধ্যপন্থি দলের প্রস্থান একাধিক সংকটের সময়ে ইসরায়েলে অস্থিরতা সৃষ্টি করবে বলে অনুমান করা হচ্ছে। এখনই সরকার পতনের আশঙ্কা না থাকলেও নেতানিয়াহুকে এবার জোটের কট্টরপন্থি সদস্যদের ওপর আরও বেশি নির্ভর করতে হবে।

ফলে সবচেয়ে ঘনিষ্ঠ সহযোগী দেশ আমেরিকার সঙ্গে মনোমালিন্য আরও তীব্র হবে বলে ধারণা করা হচ্ছে। নেতানিয়াহু নিজের সরকারের অস্তিত্ব টিকিয়ে রাখার স্বার্থে মার্কিন প্রশাসনের অনেক চাপ উপেক্ষা করার চেষ্টা করে চলেছেন।

গাজায় বিতর্কিত সামরিক অভিযানের পাশাপাশি উত্তরে লেবানন সীমান্তের অপর প্রান্তে হিজবুল্লাহর সঙ্গে আরও তীব্র সংঘাতের আশঙ্কা ইসরায়েলে অস্থিরতা সৃষ্টি করছে। গাজায় এক সেনা অভিযানে হামাসের কবল থেকে চার জন বন্দিকে জীবিত অবস্থায় উদ্ধার করা সম্ভব হলেও হামাসের কবলে এখনও অনেক বন্দি থেকে যাওয়ায় ইসরায়েলে প্রতিবাদ-বিক্ষোভ চলছে।

দেশের এমন সংকটের সময় মন্ত্রিসভা থেকে বিদায়ের কারণ ব্যাখ্যা করেছেন ইসরায়েলি সেনাবাহিনীর সাবেক কমান্ডার ও সাবেক প্রতিরক্ষামন্ত্রী বেনি গ্যান্টজ। ইসরায়েলের একাধিক সামরিক কর্মকর্তার মতে, তিনিও গাজায় সামরিক অভিযানের সমাপ্তির পর কোনও রাজনৈতিক সমাধানসূত্রের পরিকল্পনার অভাবের সমালোচনা করে আসছিলেন।

৮ জুনের মধ্যে তিনি নেতানিয়াহুর কাছে এক রাজনৈতিক সমাধানসূত্রের খসড়া দাবি করেছিলেন। রোববার এক সংবাদ সম্মেলনে গ্যান্টজ বলেন, নেতানিয়াহু আমাদের প্রকৃত জয়ের দিকে এগোনোর পথে বাধা সৃষ্টি করছেন। তাই ভারাক্রান্ত মনে আমাদের মন্ত্রিসভা ত্যাগ করতে হচ্ছে।

উল্লেখ্য, নেতানিয়াহু সরকারের পতন ঘটলে গ্যান্টজই পরবর্তী প্রধানমন্ত্রী হতে পারেন বলে ইসরায়েলের রাজনৈতিক মহলে মনে করা হচ্ছে। তিনি নেতানিয়াহুর উদ্দেশ্যে চলতি বছরেই ইসরায়েলে সাধারণ নির্বাচনের জন্য রাজি হওয়ার আহ্বান জানিয়েছেন।

ইসরায়েলে এমন রাজনৈতিক অস্থিরতার মাঝেই সোমবার দেশটিতে যাচ্ছেন মার্কিন পররাষ্ট্রমন্ত্রী অ্যান্টনি ব্লিংকেন। তিনি গাজায় অস্ত্রবিরতির পরিকল্পনার জন্য চাপ সৃষ্টি করতে চলেছেন। অবশ্য নেতানিয়াহুর রাজনৈতিক সংকট ও হামাসের নীরবতার কারণে সেই পরিকল্পনার ভবিষ্যৎ নিয়েও অনিশ্চয়তা দেখা দিচ্ছে।


আরও খবর