আজঃ বৃহস্পতিবার ২৫ জুলাই ২০২৪
শিরোনাম

কুষ্টিয়ায় ডোপ টেস্টে ধরা পড়ে ৮ পুলিশ সদস্য চাকরিচ্যুত

প্রকাশিত:সোমবার ৩০ নভেম্বর ২০২০ | হালনাগাদ:মঙ্গলবার ১৬ ফেব্রুয়ারী ২০২১ | অনলাইন সংস্করণ
Image

ডোপ টেস্টে মাদক সেবনের বিষয়টি প্রমাণিত হওয়ায় কুষ্টিয়া জেলায় কর্মরত আট পুলিশ সদস্যকে চাকরিচ্যুত করা হয়েছে।

এদের মধ্যে দু’জন উপপরিদর্শক (এসআই), দু’জন সহকারী উপপরিদর্শক (এএসআই) এবং বাকিরা কনস্টেবল পর্যায়ের বলে জানা গেছে। এছাড়া এক সার্জেন্টসহ দু’জনের বিষয়ে তদন্ত অব্যাহত রয়েছে।

পুলিশের একটি সূত্র জানায়, বর্তমান পুলিশ সুপার এসএম তানভীর আরাফাত দায়িত্ব নেয়ার পর মাদকের বিষয়ে কঠোর অবস্থান গ্রহণ করেন। মাদক ব্যবসায়ী, সেবনকারীদের বিষয়ে যেমন কঠোর ব্যবস্থা নেন, তেমনি পুলিশে কারা কারা মাদক ব্যবসা ও সেবনে সঙ্গে জড়িত সেটাও খুঁজে বের করার নির্দেশ দেন।

এরপর শীর্ষ মাদক ব্যবসায়ীদের পাকড়াও করার পাশাপাশি পুলিশেও শুরু হয় শুদ্ধি অভিযান। আইজিপির নির্দেশে পুলিশ সদস্যদের ডোপ টেস্ট করার উদ্যোগ নেন পুলিশ সুপার।

তিনি সহেন্দভাজন ও গোয়েন্দা থেকে প্রাপ্ত তথ্যের ভিত্তিতে ২০১৯ সালের মে মাসে প্রথম কয়েকজন পুলিশ সদস্যের ডোপ টেস্ট করানোর নির্দেশ দেন। পরীক্ষায় এসব সদস্যের নিয়মিত মাদক সেবনের রিপোর্ট আসে।

এরপর গত দেড় বছরে পর্যায়ক্রমে ১১ জনের ডোপ টেস্ট করা হয়। এর মধ্যে ৯ জনই মাদক সেবন করতেন বলে পরীক্ষায় প্রমাণিত হয়। পরীক্ষায় দু’জন এসআই ও দু’জন এএসআই মাদক সেবনে জড়িত বলে প্রমাণ পাওয়া যায়। এছাড়া এক এসআইয়ের কাছে মাদক পাওয়া যায়। যাদের মধ্যে একজন ট্রাফিক সার্জেন্ট রয়েছেন। মাদক সেবনকারী এসব পুলিশ সদস্য বিভিন্ন থানা ও ক্যাম্পে কর্মরত ছিলেন।

মাদকের বিষয়টি ধরা পড়ায় বিভাগীয় মামলার পাশাপাশি প্রথম দিকে অন্য জেলায় বদলি করা হয় তাদের। এর মধ্যে এক এসআইকে রাঙামাটিতে পাঠিয়ে দেয়া হয়। আর ওই সার্জেন্টকে কুষ্টিয়া পুলিশলাইনে সংযুক্ত রাখা হয়েছে। মাদক সেবনের বিষয়টি ধরা পড়ার পর অন্য সবাইকে বিভিন্ন জেলায় বদলি করা হয়। তারপরও তদন্তে প্রমাণিত হওয়ায় তাদের আটজনকে চাকরিচ্যুত করা হয়েছে।

পুলিশ সুপার এসএম তানভীর আরাফাত বলেন, মাদকের সঙ্গে কোনো আপস নয়। স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী ও আইজিপিও মাদকের সঙ্গে জড়িত পুলিশ সদস্যদের বিষয়ে কঠোর ব্যবস্থা নেয়ার নির্দেশ দিয়েছেন। তাই পুলিশে শুদ্ধি অভিযান চলছে। আমরা কুষ্টিয়া থেকে মাদক নির্মূলের পাশাপাশি পুলিশ থেকেও চিরতরে মাদকাসক্তদের বাড়িতে পাঠাতে চাই। পুলিশ ডিপার্টমেন্টে কোনো মাদক সেবনকারী থাকতে পারবে না।


আরও খবর



৫৪ ওমরাহ কোম্পানিকে কালো তালিকাভূক্ত করলো সৌদি আরব

প্রকাশিত:মঙ্গলবার ০২ জুলাই 2০২4 | হালনাগাদ:মঙ্গলবার ০২ জুলাই 2০২4 | অনলাইন সংস্করণ
আন্তর্জাতিক ডেস্ক

Image

অনিয়মের অভিযোগে ৫৪ ওমরাহ কোম্পানিকে কালো তালিকাভূক্ত করেছে সৌদি আরব। এর মধ্যে আরব ও ইসলামিক দেশের ১৯টি প্রতিষ্ঠান রয়েছে। দেশটির স্থানীয় সংবাদমাধ্যমের বরাত দিয়ে এ খবর জানিয়েছে গালফ নিউজ।

গত মাসে সৌদি আরবের পবিত্র নগরী মক্কায় হজ পালন করতে এসে অনেক হজযাত্রী মারা যান। এদের মধ্যে অনেকে সৌদি আরবে ভ্রমণ ভিসায় এসে হজ পালন করেন। আর এসব হজযাত্রীদের নিয়ম ভঙ্গে সহযোগিতা করে অনেক ট্রাভেল এজেন্সি। যার ফলে এবার তাদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেয়া হয়েছে। সৌদি আরবের আল ওয়াটন সংবাদমাধ্যমের খবরে এ তথ্য জানানো হয়েছে।

ওই সংবাদমাধ্যমের প্রতিবেদনে আরও জানানো হয়েছে, অনেক কোম্পানি সৌদি আরবের নিরাপত্তা এজেন্সির সঙ্গে মিলে নীতি ভঙ্গ করেছে।

অসমর্থিত সূত্রের বরাদ দিয়ে সংবাদমাধ্যমটি জানায়, এসব প্রতিষ্ঠানের অনেকে মানবপাচারের সঙ্গেও জড়িত। আবার অনেক প্রতিষ্ঠানের রেজিস্ট্রেশন নেই। ফলে তারা অবৈধভাবে অনেককে ওমরাহ ভিসা দিয়েছে।

সৌদি আরবের হজ ও ওমরাহ বিষয়ক উপমন্ত্রী আব্দুল ফাতাহ মাসাত সম্প্রতি ওমরাহ বিষয়ক প্রতিষ্ঠানের সঙ্গে নতুন ওমরাহ মৌসুম নিয়ে আলোচনা করেছেন। গত মাসে সৌদি আরবের পবিত্র নগরী মক্কায় ১৮ লাখ মুসল্লি পবিত্র হজ পালন করেন। এরপর থেকেই ওমরাহ পালনের মৌসুম শুরু হয়েছে।


আরও খবর



জবিতে অনির্দিষ্টকালের জন্য ক্লাস পরীক্ষা বন্ধ

প্রকাশিত:রবিবার ৩০ জুন ২০২৪ | হালনাগাদ:রবিবার ৩০ জুন ২০২৪ | অনলাইন সংস্করণ
বিশ্ববিদ্যালয় প্রতিনিধি

Image

আগামী ১ জুলাই থেকে অনির্দিষ্টকালের জন্য জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয়ের (জবি) ক্লাস ও পরীক্ষা বন্ধ ঘোষণা করেছে জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয় শিক্ষক সমিতি।

অর্থ মন্ত্রণালয়ের জারিকৃত পেনশন সংক্রান্ত বৈষম্যমূলক প্রজ্ঞাপন প্রত্যাহার, প্রতিশ্রুত সুপার গ্রেডে বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষকদের অন্তর্ভুক্তি এবং শিক্ষকদের জন্য স্বতন্ত্র বেতন স্কেল প্রবর্তনের দাবিতে সোমবার (১ জুলাই) থেকে জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয়ে সকল ধরনের ক্লাস-পরীক্ষা বন্ধ থাকবে বলে জানিয়েছেন জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয় শিক্ষক সমিতি (জবিশিস)।

রবিবার (৩০ জুন) জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয় শিক্ষক সমিতির ভারপ্রাপ্ত সভাপতি অধ্যাপক ড. মমিন উদ্দিন ও সাধারণ সম্পাদক ড. শেখ মাশরিক হাসানের সাক্ষরিত এক বিজ্ঞাপ্তি তে এ কর্মসূচি ঘোষণা করা হয়।

জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয় শিক্ষক সমিতির সাধারণ সম্পাদক ড. মাশরিক হাসান বলেন, আমরা আগেই বলেছিলাম আমাদের দাবি না মানলে সর্বাত্মক কর্মবিরতিতে যাবো। কিন্তু এখন পর্যন্ত আমাদের দাবি মেনে নেওয়া হয়নি। তাই আগামীকাল থেকে ক্লাস পরীক্ষা বন্ধ ঘোষণা করা হয়েছে।

বিজ্ঞপ্তিতে বলা হয় ১ জুলাই থেকে জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয়ের সকল বিভাগের সকল ক্লাস-পরীক্ষা বন্ধ থাকবে; অনলাইন, সান্ধ্যকালীন ক্লাস, শুক্র ও শনিবারের প্রফেশনাল কোর্সের ক্লাস বন্ধ থাকবে; সকল পরীক্ষা বর্জন করা হবে। মিডটার্ম, ফাইনাল ও ভর্তি পরীক্ষাসহ কোনও পরীক্ষা অনুষ্ঠিত হবে না।

বিভাগীয় চেয়ারম্যান বিভাগীয় অফিস, সেমিনার, কম্পিউটার ল্যাব ও গবেষণাগার বন্ধ থাকবে। অ্যাকাডেমিক কমিটি, সমন্বয় ও উন্নয়ন কমিটি, প্রশ্নপত্র সমন্বয় সভা অনুষ্ঠিত হবে না; অনুষদের ডিনবৃন্দ ডিন অফিস, ভর্তি পরীক্ষাসহ সংশ্লিষ্ট কর্যক্রম বন্ধ রাখবেন। নবীন বরণ অনুষ্ঠানের কর্মসূচি গ্রহণ করা যাবে না। কোনও সিলেকশন বোর্ডের সভা অনুষ্ঠিত হবে না। দায়িত্বপ্রাপ্ত কোন শিক্ষক প্রশাসনিক দায়িত্ব পালন করবেন না।

গত ১৩ মার্চ অর্থ মন্ত্রণালয় থেকে প্রত্যয় স্কিমের প্রজ্ঞাপন জারির পর থেকেই এর বিরুদ্ধে সরব হয়ে ওঠে বাংলাদেশ বিশ্ববিদ্যালয় শিক্ষক সমিতি ফেডারেশন। প্রত্যয় স্কিম বাতিলের দাবিতে ৪ জুন অর্ধদিবস কর্মবিরতি পালন করেন শিক্ষকেরা। ওই দিন ২৫, ২৬ ও ২৭ জুন অর্ধদিবস কর্মবিরতির পাশাপাশি ৩০ জুন পূর্ণদিবস কর্মবিরতি এবং ১ জুলাই থেকে দাবি আদায় না হওয়া পর্যন্ত সর্বাত্মক কর্মবিরতির ঘোষণা দেন তারা।


আরও খবর
যে কারণে চাকরি ছাড়লেন জাবি শিক্ষক

বৃহস্পতিবার ২৫ জুলাই ২০২৪




জাতীয় প্রেস ক্লাবের সামনে দুই বাসে আগুন

প্রকাশিত:মঙ্গলবার ১৬ জুলাই ২০২৪ | হালনাগাদ:মঙ্গলবার ১৬ জুলাই ২০২৪ | অনলাইন সংস্করণ
নিজস্ব প্রতিবেদক

Image

জাতীয় প্রেস ক্লাবের সামনে দুটি বাসে আগুন দেওয়া হয়েছে। মঙ্গলবার রাত ৮টা ২৫ মিনিটের দিকে এ ঘটনা ঘটে। প্রাথমিকভাবে আগুনের ঘটনায় হতাহতের কোনো খবর পাওয়া যায়নি।

সরেজমিন দেখা গেছে, হাইকোর্ট থেকে পল্টনের দিকে যাওয়ার পথে সচিবালয় এলাকায় মেট্রোরেল স্টেশনের সামনে বাস দুটিতে আগুন দেওয়ার ঘটনা ঘটে। এ সময় বাসের ভেতরে কাউকে দেখা যায়নি। আগুন লাগার কিছুক্ষণ পরে পুলিশ ঘটনাস্থলে পৌঁছায়। তবে এ ঘটনায় কাউকে আটক করতে পারেনি তারা।

পথচারীরা জানান, কয়েকটি ককটেল বিস্ফোরণ ঘটিয়ে বাসে আগুন দেওয়া হয়েছে।


আরও খবর



ফিরিঙ্গি বাজার ওয়ার্ডে অবসরপ্রাপ্ত শিক্ষক ও কৃতী শিক্ষার্থীদের সংবর্ধনা প্রদান

প্রকাশিত:মঙ্গলবার ০৯ জুলাই ২০২৪ | হালনাগাদ:মঙ্গলবার ০৯ জুলাই ২০২৪ | অনলাইন সংস্করণ
চট্টগ্রাম প্রতিনিধি

Image

চট্টগ্রাম নগরীর ৩৩ নং ফিরিঙ্গি বাজার ওয়ার্ডে কাউন্সিলর আলহাজ্ব হাসান মুরাদ বিপ্লব কতৃক এসএসসি-২০২৪ পরীক্ষায় উত্তীর্ণ কৃতি শিক্ষার্থী ও অবসরপ্রাপ্ত শিক্ষক/শিক্ষিকাবৃন্দদের নিয়ে এক সংবর্ধনা অনুষ্ঠানের আয়োজন করা হয়।

সোমবার সন্ধ্যায় নগরীর আলকরনস্থ ড্রীমল্যান্ড কমিউনিটি সেন্টারে রিনিক মুনের সঞ্চালনায় ও আলহাজ্ব হাসান মুরাদ বিপ্লবের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন আলহাজ্ব আ.জ.ম নাছির উদ্দীন, সাধারণ সম্পাদক, চট্টগ্রাম মহানগর আওয়ামী লীগ। সংবর্ধনায় বিশেষ অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন দিদারুল আলম দিদার, নব-নির্বাচিত চেয়ারম্যান, পটিয়া উপজেলা পরিষদ এবং অহিদ সিরাজ চৌধুরী স্বপন, সিআইপি পরিচালক, চট্টগ্রাম চেম্বার অব কমার্স এন্ড ইন্ডাস্ট্রি যুগ্ম-সাধারণ সম্পাদক, চট্টগ্রাম জেলা ক্রীড়া সংস্থা। এসময় অনুষ্ঠানে ২০২জন শিক্ষার্থী ও ১৯ জন অবসরপ্রাপ্ত শিক্ষক/শিক্ষিকাকে সংবর্ধনা প্রদান করা হয়।

অনুষ্ঠানের শুরুতেই ক্ষুদে শীল্পিদের আয়োজনে মনোজ্ঞ নৃত্য পরিবেশিত হয়। তারপর অতিথিদের ফুল দিয়ে বরনের মধ্য দিয়ে উত্তরীয় প্রদান করা হয় এবং আ.জ.ম নাছিরকে বিশেষ প্রেজেন্টেশন প্রদান করা হয়। এছাড়াও স্বপ্নযাত্রী নামক ম্যাগাজিনের মোড়ক উন্মোচন করা হয়।

এসময় বক্তারা বলেন, সরকারকে বিপাকে ফেলতে সর্বদা একটি অংশ বিরোধীতায় লিপ্ত। মুক্তিযুদ্ধের বিরোধী শক্তি গুলো বারবার মাথা চাড়া দিয়ে উঠছে তাই আমাদের সচেতন থাকতে হবে।

প্রধান অতিথির বক্তব্যে চসিক সাবেক মেয়র আ.জ.ম নাছির বলেন, চট্টগ্রামে আমার দেখা এটি একটি ব্যাতিক্রমি আয়োজন। একই মঞ্চে শিক্ষক ও শিক্ষার্থীদের সম্মাননা দেওয়া হচ্ছে। পরিবারের পর শিক্ষকরাই হলেন আমাদের সন্তানদের অবিভাবক। সন্তানকে ভালো মানুষ হিসেবে গড়ে তুলতে হলে শিক্ষকদের ভূমিকা অনস্বীকার্য। তাই রাজনীতিতে আসতে গেলে ছাত্রদের পরিবার ও শিক্ষক কতৃক অর্জিত জ্ঞান কাজে লাগাতে হবে। তবেই ভালো মানুষ হওয়া যাবে এবং রাষ্ট্র যোগ্য নেতৃত্ব খুঁজে পাবে। ভবিষ্যৎ প্রজন্ম তোমরাই আমাদের সম্পদ। তোমরা ভালো কাজ করলে বাবা মায়ের বুক গর্বে ভরে উঠবে।

সংবর্ধিত অতিথির বক্তব্যে পটিয়ার নবনির্বাচিত চেয়ারম্যান দিদারুল আলম বলেন, কোন পেশাই খারাপ না, রাজনীতি হলো মানবসেবা। রাজনীতিতে নিজের স্বার্থের কথা ভাবা যাবেনা, তবেই রাজনীতিতে প্রতিষ্ঠিত হওয়া যায়। আমরা কেউ বিপদগামী হইনি। আমাদের উদ্দেশ্য সৎ ছিলো। তাই আমরা আজও সম্মানিত হয়ে আসছি। আমাদের সকলের সামাজিক দায়বদ্ধতা থাকা উচিত। তবেই দেশ এগিয়ে যাবে।

অহিদ সিরাজ চৌধুরী সিআইপি বলেন, তারুণ্যের অবক্ষয় নয়, বিকাশ চাই; তারই আলোকে আজকের অনুষ্ঠান। ছাত্র শিক্ষক আর অভিভাবকের পাশাপাশি এভাবে জনপ্রতিনিধিদের এগিয়ে আসতে হবে। তবেই দেশ এগিয়ে যাবে। রাজনীতি করেও প্রতিষ্ঠিত হওয়া যায়। আমি ছাত্রদের বার্তা দিতে চাই, যারা ছোট বেলা থেকে রাজনীতি করে আসছে তারা আজ রাষ্ট্রের বিভিন্ন পর্যায়ে জনপ্রতিনিধি হিসেবে প্রতিষ্ঠিত। আমরা সকলে আজ প্রতিষ্ঠিত, আলোকিত বাংলাদেশ বিনির্মানে তাই ছাত্রদেরও রাজনীতিতে এগিয়ে আসতে হবে।

চসিক সংরক্ষিত আসন (৩৩, ৩৪, ৩৫) মহিলা কাউন্সিলর বেবী দোভাষ বলেন, আমি এ অনুষ্ঠানে এসে অত্যন্ত আনন্দিত। আমার ছোট ভাই ওয়ার্ড কাউন্সিলর বিপ্লবের এই মহৎ উদ্যোগের জন্য তাকে সাধুবাদ জানাই। সে এলাকায় সকল ধর্মীয় অনুষ্ঠানেও সহযোগিতা করে থাকেন। তবে শিক্ষার্থীদের উন্নতির পিছনে শিক্ষকদের ভূমিকা যেমন রয়েছে, অভিভাবকদের পরিশ্রমও কম নয়। যুগের সাথে তাল মিলিয়ে আমাদের দেশের শিক্ষার্থীরা বিদেশে অনেক পেশায় নিয়োজিত রয়েছে। তবে পেশা হিসেবে রাজনীতি এখন আর সুফলযোগ্য নয়, সেজন্য পড়ালেখাও দরকার।

সভাপতির বক্তব্যে ফিরিঙ্গীবাজার ওয়ার্ড কাউন্সিলর হাসার মুরাদ বিপ্লব বলেন, যে সকল শিক্ষকরা এতদিন পাঠদান করে এসেছেন, যেসব শিক্ষার্থীরা ভালো ফলাফল অর্জন করেছে এই সম্মাননাটুকু তাদের আগামীতে উচ্চশিক্ষায় অনুপ্রাণিত করবে। তারা আগামীতে দুর্নীতির বিরুদ্ধে রুখে দাঁড়াবে। প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা দেয়া ২০৪১ সালের স্মার্ট বাংলাদেশ গড়ার পিছনে অবদান রাখবে। যারা আমাদের দীর্ঘদিন ধরে পাঠদান করাচ্ছেন এবং শিক্ষার্থী ভালো ফলাফল অর্জন করেছেন। সেসব শিক্ষার্থীদের এই সম্মাননা দেয়াটুকু আগামীর উচ্চশিক্ষায় অনুপ্রাণিত করবে। আমার প্রাণপ্রিয় শিক্ষার্থীরা ১০টি বছর শ্রম দিয়ে ভাল ফলাফল করেছে, তাদের এই সম্মানটুকু অন্যদেরও ভালো ফলাফল পেতে আগ্রহী করবে। মেধাবীরা কাছে অনুরোধ থাকবে, যারা মেধাবী শিক্ষার্থীরা যাতে পিতা-মাতা কোনদিন অবহেলা না করে। আপনারা আগামীতে দুর্ণীতির বিরুদ্ধে রুখে দাঁড়াবেন। প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা দেয়া ২০৪১ সালের স্মার্ট বাংলাদেশ গড়ার পিছনে আপনার অবদান রাখবেন বলে আশা করছি।

তিনি আরও বলেন, আ.জ.ম নাছির উদ্দীন আমাদের অভিভাবক। তিনি মেয়র থাকাকালীন নগরীর সকল স্কুল ও কলেজে উন্নতির প্রচেষ্টা চালিয়েছিলেন। সম্প্রতি চসিকের স্মার্ট এলইডি লাইট চুক্তি সম্পন্ন হলো, সেটাও নাছির ভাইয়ের চসিক মেয়র থাকাকালীন প্রকল্প ছিল। সকল সীমাবদ্ধতা থাকা সত্ত্বেও তিনি নগরীকে উন্নয়নে আলোকিত করেছিলেন। এখন তাঁরই আর্দশ ও নীতি-নৈতিকতাগুলো অনুসরণ করে থাকি।

অনুষ্ঠানে সংবর্ধনা প্রাপ্ত শিক্ষক-শিক্ষিকারা হলেন- আলকরণ নূর আহমেদ সিটি কর্পোরেশন বালক উচ্চ বিদ্যালয়ের শাহদাৎ হোসেন, গাছবাড়িয়া সরকারি কলেজের রতন কুমার চক্রবর্তী, পাথরঘাটা বালিকা উচ্চ বিদ্যালয়ের খুরশীদা পারভিন চৌধুরী, এয়াকুব আলী দোভাষ বালিকা উচ্চ বিদ্যালয়ের অঞ্চল চৌধুরী, নিপা চৌধুরী, ফিরিঙ্গিবাজার সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের আব্দুল লতিফ, মনিশা দাসগুপ্ত, প্রীতি চৌধুরী, মিউনিসিপ্যাল মডেল স্কুল এন্ড কলেজের মিলন কান্তি চৌধুরী, সেন্ট ম্যারিস স্কুলের হোসনে আক্তার,জে এম সেন স্কুল এন্ড কলেজের রোকেয়া বেগম,জামান চৌধুরী,নাজনীন বেগম,রত্না দাস,দেবেশ চন্দ্র দাস, বান্ডেল বলিকা সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের আন্না চক্রবর্তী, দীপ্তি চক্রবর্তী ও আলকরণ সুলতান আহমেদ দেওয়ান বিদ্যালয়ের কবিতা রানী নাথ।

নিউজ ট্যাগ: চট্টগ্রাম

আরও খবর



বিসিএসের প্রশ্নফাঁস: পিএসসির তিন সদস্যের কমিটি গঠন

প্রকাশিত:মঙ্গলবার ০৯ জুলাই ২০২৪ | হালনাগাদ:মঙ্গলবার ০৯ জুলাই ২০২৪ | অনলাইন সংস্করণ
নিজস্ব প্রতিবেদক

Image

বিসিএসের প্রশ্নফাঁসের ঘটনায় তিন সদস্যের একটি তদন্ত কমিটি গঠন করেছে সরকারি কর্ম কমিশন (পিএসসি)। কমিশনের একজন যুগ্ম সচিবকে আহ্বায়ক করে এই কমিটি গঠন করা হয়েছে। কমিটিকে দ্রুত সময়ের মধ্যে প্রতিবেদন দাখিল করতে নির্দেশ দেওয়া হয়েছে।

মঙ্গলবার (৯ জুলাই) সকালে এ তথ্য জানিয়েছেন পিএসসির চেয়ারম্যান সোহরাব হোসাইন।

তিনি বলেন, প্রশ্নফাঁস নিয়ে যে ঘটনাটি ঘটেছে, তার ব্যাখ্যা আমরা দিয়েছি। তারপরও পুরো ঘটনাটি আরও অধিকতর তদন্ত করতে একজন যুগ্ম সচিবের নেতৃত্বে তিন সদস্যের কমিটি গঠন করা হয়েছে। কমিটি সবগুলো পক্ষের সঙ্গে কথা বলে দ্রুত সময়ের মধ্যে প্রতিবেদন দেবে।

কমিশনের যুগ্ম সচিব ড. আব্দুল আলীম খানকে তদন্ত কমিটির আহ্বায়ক করা হয়েছে। কমিটির অন্য দুইজন সদস্য হলেন, কমিশনের পরিচালক দিলাওয়েজ দুরদানা ও মোহাম্মদ আজিজুল হক।

গত ১২ বছরে বিসিএসসহ ৩০টি নিয়োগ পরীক্ষার প্রশ্নফাঁসের অভিযোগে পিএসসির কয়েকজন ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তাসহ ১৭ জনকে গ্রেপ্তার করে পুলিশের অপরাধ তদন্ত বিভাগ (সিআইডি)। আজ (মঙ্গলবার) সকালে তাদের আসামি করে রাজধানীর পল্টন থানার মামলা দায়ের হয়েছে।

এদিকে, বেসরকারি একটি টেলিভিশনের অনুসন্ধানী প্রতিবেদন প্রকাশের পর প্রশ্নফাঁসের যে অভিযোগ সামনে এসেছে, বিষয়টি যথাযথ কি না তা নিয়ে সন্দিহান সাংবিধানিক এই সংস্থাটি। সোমবার (৮ জুলাই) রাতে পিএসসি থেকে পাঠানো এক সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে এ তথ্য জানানো হয়েছে।

বিজ্ঞপ্তিতে প্রশ্নফাঁসের অভিযোগ ও সার্বিক পরিস্থিতি নিয়ে আনুষ্ঠানিকভাবে নিজেদের অবস্থান জানিয়েছে পিএসসি। তাতে ওই টেলিভিশন চ্যানেলে প্রচারিত অনুসন্ধানী প্রতিবেদনের বিষয়েও ব্যাখ্যা দিয়েছে প্রতিষ্ঠানটি। এতে সই করেছেন পিএসসির জনসংযোগ কর্মকর্তা এস এম মতিউর রহমান।

তাতে বলা হয়েছে, পরীক্ষার দুইদিন পরে প্রশ্নপত্র ফাঁসের অভিযোগের বিষয়টি যথাযথ কি না, তা নিশ্চিত হওয়ার কোনো সুযোগ নেই।

বিজ্ঞপ্তিতে বলা হয়, গত ৫ জুলাই অনুষ্ঠিত বাংলাদেশ রেলওয়ের নন-ক্যাডার উপসহকারী প্রকৌশলী পদের নিয়োগ পরীক্ষার প্রশ্নপত্র পরীক্ষা শুরুর ১ ঘণ্টা আগে প্রতিবেদকের হোয়াটসঅ্যাপে আসে বলে প্রতিবেদনে উল্লেখ করা হয়েছে।

স্বচ্ছতা নিশ্চিতকরণ ও প্রশ্নফাঁস রোধে প্রতিটি বিসিএস ক্যাডার পরীক্ষায় ন্যূনতম ছয় সেট প্রশ্নপত্র এবং নন-ক্যাডার পরীক্ষায় ন্যূনতম চার সেট প্রশ্নপত্র প্রণয়ন করা হয়। কোন সেটে পরীক্ষা অনুষ্ঠিত হবে, তা নির্ধারণ করা হয় পরীক্ষা শুরুর ৩০ থেকে ৩৫ মিনিট আগে। সেটিও লটারির মাধ্যমে।

এতে আরও বলা হয়, বিসিএস ক্যাডার পরীক্ষার ক্ষেত্রে লটারির সময় দেশের প্রথিতযশা দুইজন নাগরিক, কমিশনের চেয়ারম্যান, দায়িত্বপ্রাপ্ত সদস্য এবং পরীক্ষা সংশ্লিষ্ট সদস্যসহ কর্মকর্তা ও কর্মচারীরা উপস্থিত থাকেন। একইভাবে নন-ক্যাডার পরীক্ষার ক্ষেত্রে কমিশনের চেয়ারম্যান, দায়িত্বপ্রাপ্ত সদস্য ও পরীক্ষা সংশ্লিষ্ট সদস্যসহ কর্মকর্তা ও কর্মচারীরা উপস্থিত থাকেন।

গত ৫ জুলাই রেলওয়ের নন-ক্যাডার উপসহকারী প্রকৌশলী পদের নিয়োগ পরীক্ষার ক্ষেত্রে একই নিয়ম অনুসরণ করে সকাল ৯টা ২৫ মিনিটে লটারি করে কোন সেটের প্রশ্নপত্রে পরীক্ষা হবে, সে বিষয়টি সকাল ৯ টা ৩০ মিনিটে সংশ্লিষ্টদের এসএমএসের মাধ্যমে জানিয়ে দেওয়া হয়। এ কারণে কোন সেটের প্রশ্নপত্রে পরীক্ষা হবে, তা পরীক্ষা শুরুর ১ ঘণ্টা আগে কারোরই জানার সুযোগ নেই।

বিজ্ঞপ্তিতে পিএসসি আরও উল্লেখ করেছে, কমিশনের আওতাভুক্ত পরীক্ষার প্রশ্নপত্র প্রণয়ন, প্রশ্নপত্র সমীক্ষণ ও মুদ্রণ সর্বোচ্চ সতর্কতার সঙ্গে করা হয় এবং তা যথাযথভাবে সংরক্ষণ করা হয়। এসব কারণে পরীক্ষা শুরুর পূর্বে প্রশ্নফাঁস হওয়ার সম্ভাবনা থাকে না বললেই চলে।

পিএসসির দাবি, প্রশ্নফাঁসের বিষয়টি যেকোনো ব্যক্তির নজরে আসার সঙ্গে সঙ্গে যথাযথ কর্তৃপক্ষকে অবহিত করলে সে বিষয়ে তাৎক্ষণিক ব্যবস্থা গ্রহণের সুযোগ থাকে। কিন্তু পরীক্ষা অনুষ্ঠানের দুইদিন পরে প্রশ্নফাঁসের অভিযোগের বিষয়টি যথাযথ কি না, তা নিশ্চিত হওয়ার কোনো সুযোগ নেই।

বিজ্ঞপ্তিতে উল্লেখ করা হয়, পিএসসির কার্যক্রম ও নিয়োগ প্রক্রিয়া সম্পর্কে বাংলাদেশের শিক্ষিত তরুণ সমাজসহ জনমনে সুদৃঢ় আস্থা ও বিশ্বাস রয়েছে। পিএসসির নিয়োগ সংক্রান্ত কার্যক্রম সব মহলে প্রশংসিত হচ্ছে। সেই আস্থা ও বিশ্বাস সমুন্নত রাখার লক্ষ্যে যথাসময়ে অভিযোগ না হওয়া সত্ত্বেও যদি কোনো ব্যক্তি বা ব্যক্তিবর্গ গত ৫ জুলাই অনুষ্ঠিত পরীক্ষার প্রশ্নফাঁস বা প্রতারণা বা অন্য কোনো অবৈধ কার্যক্রমের সঙ্গে জড়িত প্রমাণ হয়, তাহলে কমিশন সংশ্লিষ্টের বিষয়ে আইনানুগ ব্যবস্থা গ্রহণে দৃঢ়প্রতিজ্ঞ।


আরও খবর
ট্রেন চলাচলের সিদ্ধান্ত এখনও হয়নি

বৃহস্পতিবার ২৫ জুলাই ২০২৪