আজঃ শনিবার ২৯ জানুয়ারী ২০২২
শিরোনাম

কুড়িগ্রামে ডায়রিয়া ওয়ার্ডে বেড সংখ্যার ৫ গুণ রোগী

প্রকাশিত:বুধবার ১২ জানুয়ারী ২০২২ | হালনাগাদ:বুধবার ১২ জানুয়ারী ২০২২ | ৩৮০জন দেখেছেন

Image

কুড়িগ্রাম প্রতিনিধি:

উত্তরের সীমান্ত ঘেঁষে জেলা কুড়িগ্রামে শীতের তীব্রতার সঙ্গে পাল্লা দিয়ে বাড়ছে ডায়রিয়া আক্রান্ত রোগীর সংখ্যা। শয্যা সংকটে ওয়ার্ডের মেঝেতে বিছানা করে চিকিৎসা নিচ্ছেন রোগীরা। এমনকি মেঝেতে একই বেডে সর্বোচ্চ ৩ জন রোগী গাদাগাদি করে বসে চিকিৎসা নিচ্ছেন।

বুধবার (১২জানুয়ারি) দুপুরে কুড়িগ্রাম জেনারেল হাসপাতালের ডায়রিয়া ওয়ার্ডে গিয়ে এচিত্র দেখা গেছে।

হাসপাতালটির ডায়রিয়া ওয়ার্ডের অনুযায়ী বুধবার সকাল ৮:৩০ টা পর্যন্ত মোট ৫৬ জন রোগী ভর্তি আছেন। এর মধ্যে শিশুর সংখ্যা ৪৩ জন। যা মোট রোগীর প্রায় ৭৭ শতাংশ। এছাড়াও একই দিনের সকাল ৯ টা থেকে দুপুর ১ টা পর্যন্ত ১৭ জন রোগী ভর্তি হয়েছেন বলে জানিয়েছে হাসপাতাল কর্তৃপক্ষ।

পাশাপাশি গত এক সপ্তাহের (৫ থেকে ১২ জানুয়ারি) পর্যন্ত ডায়রিয়া ওয়ার্ডে দৈনিক গড়ে ৪৭ জন রোগী চিকিসাধীন অবস্থায় ছিলেন যা ওই ওয়ার্ডের শয্যা সংখ্যার ৪ গুণ বেশি।

দুপুরে হাসপাতালের ডায়রিয়া ওয়ার্ডে গেলে কর্তব্যরত সিনিয়র স্টাফ নার্স আসমা খাতুন জানান, গত কয়েকদিন ধরে ডায়রিয়া রোগীর সংখ্যা বাড়ছে। এসব রোগীর মধ্যে শিশুই বেশি। ১২ বেডের এই ডায়রিয়া ওয়ার্ডে বুধবার সকাল ৯ টা পর্যন্ত ৫৬ জন ডায়রিয়া আক্রান্ত রোগী ভর্তি হন। এখনও রোগী আসতেছে। তাই সবাইকে বেডে জায়গা দেয়া সম্ভব হচ্ছে না।

ডায়রিয়া ওয়ার্ডের মেঝেতে একই বিছানায় যায়গা হয়েছে আদিত্য (৮ মাস), আরাফাত (১১ মাস), রিয়া মনি (১০ মাস) নামের ৩ শিশুর। তারা বিভিন্ন যায়গা থেকে আজকে সকালে ভর্তি হন বলে জানিয়েছে রোগীর সাথে আসা অবিভাবকেরা। গাদাগাদি করে থাকায় রোগীর স্বজনদেরও কষ্ট হচ্ছে বলে জানিয়েছেন তারা।

অপরদিকে কুড়িগ্রাম সদরের ভোগডাঙা ইউনিয়ন থেকে আসা রাফিয়া মনি (১৭ মাস) কে ভর্তি করানো হয় গতকাল।  মেঝেতে কোনমতে বিছানা করে শিশুকে কোলে নিয়ে রাফিয়া মনির মা মোছা ছালেহা বেগম বলেন, হাসপাতালে এত ভীড় থাকলে আমি নিজেও অসুস্থ হবো। তারপরেও হাসপাতালে এসেছি আমার সন্তানের চিকিৎসার জন্য। এমন পরিস্থিতিতে চিকিৎসার মান নিয়ে সন্তোষ প্রকাশ না করলেও কোন অভিযোগ করেননি তিনি।

কুড়িগ্রাম জেনারেল হাসপাতালের আবাসিক মেডিকেল অফিসার (আরএমও) ডা. পুলক কুমার সরকার জানান, রোগীর সংখ্যার তুলনায় শয্যা এবং ডাক্তার পর্যাপ্ত  না থাকায় চিকিৎসা সেবা দিতে কিছুটা হিমশিম খেতে হচ্ছে। তবে সদ্য নিয়োগপ্রাপ্ত ৬০ জন নার্স দিয়ে মানসম্মত চিকিৎসা সেবা দেয়ার সর্বোচ্চ চেষ্টা করা হচ্ছে।


আরও খবর



কক্সবাজারে পৌঁছেছেন তুরস্কের স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী

প্রকাশিত:শনিবার ০৮ জানুয়ারী ২০২২ | হালনাগাদ:শনিবার ০৮ জানুয়ারী ২০২২ | ৪০০জন দেখেছেন
দর্পণ নিউজ ডেস্ক

Image

কক্সবাজারে পৌঁছেছেন তুরস্কের স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী সোলাইমান সয়লু। আজ শনিবার সকাল ৮টায় বিশেষ বিমানযোগে তুরস্কের ইস্তাম্বুল থেকে সরাসরি কক্সবাজার আন্তর্জাতিক বিমানবন্দরে পৌঁছান তিনি। কক্সবাজার বিমানবন্দরে তাঁকে অভ্যর্থনা জানান দুর্যোগ ব্যবস্থাপনা ও ত্রাণ প্রতিমন্ত্রী ডা. মো. এনামুর রহমান এমপি।

জানা যায়, তুরস্কের স্বরাষ্ট্রমন্ত্রীর নেতৃত্বে সফরে আসা ২০ সদস্যের প্রতিনিধি দলটি উখিয়ার রোহিঙ্গা ক্যাম্পে তুরস্ক সরকার ও বিভিন্ন সংস্থা কর্তৃক পরিচালিত ফিল্ড হাসপাতালসহ নানা কার্যক্রম পরিদর্শন করবেন। পরে দুপুরে ঢাকা হয়ে রাতেই তুরস্কে ফিরে যাওয়ার কথা রয়েছে।

তুরস্কের স্বরাষ্ট্রমন্ত্রীকে অভ্যর্থনাকালে আরও উপস্থিত ছিলেন কক্সবাজারের জেলা প্রশাসক মো. মামুনুর রশীদ, পুলিশ সুপার মো. হাসানুজ্জামান এবং তুরস্ক দূতাবাসের কর্মকর্তারা।

নিউজ ট্যাগ: কক্সবাজার

আরও খবর



ফ্রান্সে রেকর্ড, একদিনে আক্রান্ত ২ লাখ ৩২ হাজার

প্রকাশিত:শনিবার ০১ জানুয়ারী ২০২২ | হালনাগাদ:শনিবার ০১ জানুয়ারী ২০২২ | ৪৫০জন দেখেছেন
দর্পণ নিউজ ডেস্ক

Image

করোনাভাইরাসের নতুন ধরন ওমিক্রনে বিপর্যস্ত ইউরোপের বিভিন্ন দেশ। যুক্তরাজ্যে একদিনে সর্বোচ্চ সংক্রণের এবার ফ্রান্সের সর্বোচ্চ সংক্রমণের রেকর্ড হলো। এক প্রতিবেদনে এ তথ্য জানিয়েছে রয়টার্স।

প্রতিবেদনে বলা হয়, শুক্রবার (৩১ ডিসেম্বর) ফ্রান্সে করোনায় আক্রান্ত হয়েছেন ২ লাখ ৩২ হাজার ২০০ জন। মহামারি শুরু হওয়ার পর গত দুই বছরে এত বেশি দৈনিক সংক্রমণ ঘটেনি দেশটিতে।

ইংরেজি নববর্ষ উপলক্ষে শুক্রবার টেলিভিশনে দেওয়া শুভেচ্ছাবার্তায় দেশবাসীকে সতর্ক থাকা ও করোনাবিধি মেনে চলার আহ্বান জানিয়ে ফ্রান্সের প্রেসিডেন্ট ইমানুয়েল ম্যাক্রোঁ বলেন, মনে হয়, আমরা সবাই এটি বুঝতে পারছি যে, সামনের অনাগত সপ্তাহগুলো আমাদের জন্য কঠিন হয়ে উঠবে।

ইউরোপের অন্যান্য দেশগুলোর তুলনায় তবে ফ্রান্সে সংক্রমণের হার অনেক বেশি। গত ৩ দিন ধরে দেশটিতে দৈনিক আক্রান্ত রোগীর সংখ্যা ছাড়াচ্ছে দুই লাখের কোঠা। ফলে ফ্রান্স ওমিক্রনের উপকেন্দ্র বা এপিসেন্টার হয়ে উঠবে বলে শঙ্কা প্রকাশ করেছেন ইউরোপের জনস্বাস্থ্য বিশেষজ্ঞরা।

সংক্রমণের এই ঊর্ধ্বগতি ঠেকাতে জনগণকে টিকা গ্রহণের আহ্বান জানিয়েছেন ম্যাক্রোঁ। তবে তিনি জানিয়েছেন, আপাতত নতুন কোনো বিধিনিষেধ আরোপের কোনো পরিকল্পনা সরকারের নেই।


আরও খবর



চোখের জল কেন নোনতা?

প্রকাশিত:শুক্রবার ৩১ ডিসেম্বর ২০২১ | হালনাগাদ:শুক্রবার ৩১ ডিসেম্বর ২০২১ | ৫১০জন দেখেছেন
দর্পণ নিউজ ডেস্ক

Image

কান্না পাক, না পাক। চোখের জল তৈরি হবে। চোখ বন্ধ করলেই জলে ভরে যায়। না হলে যে চোখ শুকিয়ে যাবে!

তিন ধরনের অশ্রু হয়। বেসাল, ইরিট্যান্ট আর ইমোশনাল। চোখে সাধারণ অবস্থায় যে জল তৈরি হয়, তা হল বেসাল। চোখ যাতে শুকিয়ে না যায়, তার যত্ন নেয় এই জল। ইরিট্যান্ট অশ্রু তৈরি হয় হঠাৎ চোখে কোনও অস্বস্তির কারণ ঘটলে। হয়তো ধুলো ঢুকল কিংবা পেঁয়াজ কাটার সময়ে ঝাঁঝ গেল। মন খারাপ, রাগ, অভিমানে তৈরি হয় অন্য অশ্রু। ইমোশনাল। এ সময়ে জলের পরিমাণ থাকে সবচেয়ে বেশি।

বেশি কান্না পেলে চোখের জল ঠোঁটে এসে পড়েই। ফলে অশ্রুর স্বাদ কারও অজানা নয়। সকলেই বলবেন, চোখের জলের স্বাদ খানিকটা নোনতা। কিন্তু কেন? তা কেউ জানেন কি?

ল্যাকরিমাল গ্ল্যান্ড থেকে তৈরি হয় চোখের জল। জলের সঙ্গে এতে থাকে ফ্যাটি অয়েল আর ম্যুকাস। আর থাকে প্রায় দেড় হাজার রকমের প্রোটিন। ম্যুকাস চোখ শুকিয়ে যাওয়া থেকে বাঁচায়। আর তেলের উপস্থিতি আছে অন্য কারণে। চোখের জল যাতে উবে না যায় সহজে, সেই দায়িত্ব তেলের। এ সবের সঙ্গে ইমোশনাল চোখের জলে থাকে আরও একটি পদার্থ। তা হল স্ট্রেস হরমোন। সবে মিলেই চোখের জলের নোনতা স্বাদ তৈরি করে।

নিউজ ট্যাগ: চোখের জল

আরও খবর
আজ আপনার জন্মদিন হলে

শুক্রবার ২৮ জানুয়ারী ২০২২




রাজধানীতে মাদক বিক্রি ও সেবনের অভিযোগে গ্রেপ্তার ৭০

প্রকাশিত:সোমবার ১৭ জানুয়ারী ২০২২ | হালনাগাদ:সোমবার ১৭ জানুয়ারী ২০২২ | ২৭০জন দেখেছেন
দর্পণ নিউজ ডেস্ক

Image

মাদক বিক্রি ও সেবনের অভিযোগে ৭০ জনকে গ্রেপ্তার করেছে ঢাকা মেট্রোপলিটন পুলিশের (ডিএমপি) বিভিন্ন অপরাধ ও গোয়েন্দা বিভাগ। গ্রেপ্তারের সময় তাদের হেফাজত থেকে ৬ হাজার ৪৬০ পিস ইয়াবা, ১১২ গ্রাম ১৭৭ পুরিয়া হেরোইন, ১৪ কেজি ৮৯০ গ্রাম ১৪৭ পুড়িয়া গাঁজা, ১০টি নেশাজাতীয় ইনজেকশন, ১ গ্রাম আইস ও ১৮ বোতল ফেনসিডিল পাওয়া যায় বলে এক প্রতিবেদনে জানিয়েছে ডিএমপি নিউজ।

প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, ঢাকা মেট্রোপলিটন পুলিশের নিয়মিত মাদকবিরোধী অভিযানের অংশ হিসেবে রোববার সকাল ৬টা থেকে সোমবার সকাল ৬টা পর্যন্ত ২৪ ঘণ্টায় রাজধানীর বিভিন্ন থানা এলাকায় অভিযান চালিয়ে তাদের গ্রেপ্তার এবং মাদকদ্রব্য উদ্ধার করা হয়।

গ্রেপ্তার করা ব্যক্তিদের বিরুদ্ধে সংশ্লিষ্ট থানায় মাদকদ্রব্য নিয়ন্ত্রণ আইনে ৫৪টি মামলা রুজু হয়েছে বলেও প্রতিবেদনে উল্লেখ করা হয়।


আরও খবর
রাজধানীতে মাদকসহ গ্রেফতার ৫৯

শুক্রবার ২৮ জানুয়ারী ২০২২




মৎস্যসম্পদ ধ্বংসকারী অবৈধ জাল অপসারণে বিশেষ কম্বিং অপারেশন শুরু

প্রকাশিত:রবিবার ০২ জানুয়ারী 2০২2 | হালনাগাদ:রবিবার ০২ জানুয়ারী 2০২2 | ৪৫০জন দেখেছেন
দর্পণ নিউজ ডেস্ক

Image

দেশের মৎস্যসম্পদ ধ্বংসকারী অবৈধ জাল অপসারণে বিশেষ কম্বিং অপারেশন শুরু করেছে সরকার। মৎস্য ও প্রাণিসম্পদ মন্ত্রণালয় চলতি বছর ১৭টি জেলায় বেহুন্দী জাল, কারেন্টজালসহ মৎস্য সম্পদ ধ্বংসকারী সকল প্রকার অবৈধ জাল অপসারণে ৩০ দিনব্যাপী বিশেষ এ অভিযান পরিচালনা করছে। জাটকা ও সামুদ্রিক মাছের ডিম, লার্ভী ও পোনা রক্ষায় গত ৩০ ডিসেম্বর ২০২১ তারিখ থেকে থেকে শুরু হওয়া এ অভিযান চার ধাপে চলবে ২০ ফেব্রুয়ারি ২০২২ পর্যন্ত।

বিশেষ কম্বিং অপারেশনের আওতাভুক্ত ১৭টি জেলা হচ্ছে পিরোজপুর, ঝালকাঠি, পটুয়াখালী, বরগুনা, ভোলা, বরিশাল, নোয়াখালী, বাগেরহাট, খুলনা, সাতক্ষীরা, কক্সবাজার, চট্টগ্রাম, মুন্সিগঞ্জ, লক্ষ্মীপুর, শরিয়তপুর, মাদারীপুর ও চাঁদপুর।

উল্লেখ্য, দি প্রটেকশন অ্যান্ড কনজারভেশন অব ফিশ রুলস্, ১৯৮৫ অনুযায়ী সরকার ২০১৩ সালে মৎস্য সম্পদ ধ্বংসকারী বেহুন্দি জাল, মশারি জাল, চরঘেরা জাল, বেড়/জগৎবেড় জাল, কারেন্ট জাল প্রভৃতি ক্ষতিকারক জালের ব্যবহার নিষিদ্ধ করে প্রজ্ঞাপন জারি করেছে এবং ইলিশ আহরণের জালের ফাঁস ৬ দশমিক ৫ সেন্টিমিটার বা ২ দশমিক ৬ ইঞ্চি নির্ধারণ করেছে। মৎস্যসম্পদের জন্য ক্ষতিকর এসব জালের ব্যবহার বৃদ্ধি পেলে জাটকাসহ সামুদ্রিক ও উপকূলীয় বিভিন্ন প্রজাতির মাছের ডিম, রেণু ও পোনা বিনষ্ট হবে এবং উন্মুক্ত জলাশয়ে মাছের উৎপাদনে বিরূপ প্রভাব পড়ার পাশাপাশি জলজ জীববৈচিত্র্য নষ্ট হবে। সরকার কর্তৃক নিষিদ্ধঘোষিত এসব জাল ব্যবহারকারীকে সর্বোচ্চ ৫ হাজার টাকা জরিমানা অথবা ১ বছর থেকে সর্বোচ্চ ২ বছরের কারাদণ্ড অথবা উভয় দণ্ডে দন্ডিত করার বিধান রয়েছে।


আরও খবর