আজঃ বৃহস্পতিবার ২২ ফেব্রুয়ারী ২০২৪
শিরোনাম

কুড়িগ্রামে জামায়াত-শিবিরের ৮ নেতাকর্মী আটক

প্রকাশিত:সোমবার ২০ নভেম্বর ২০23 | হালনাগাদ:সোমবার ২০ নভেম্বর ২০23 | অনলাইন সংস্করণ
মোঃ মাসুদ রানা, কুড়িগ্রাম

Image

কুড়িগ্রামের ভূরুঙ্গামারীতে চলমান জামায়াত-বিএনপির হরতালের সমর্থনে রাস্তা অবরোধ করে মিছিল করার সময় জামায়াত ও শিবিরের ৮ নেতাকর্মীকে আটক করেছে থানা পুলিশ।

সোমবার সকাল ৬টায় শহরের সাদ্দাম মোড় থেকে এদের আটক করা হয়। পরে দুপুরে তাদেরকে কুড়িগ্রাম কোর্টে পাঠানো হয়।

আটককৃতরা হলো ভুরুঙ্গামারী সদর ইউনিয়নের বাগভান্ডার গ্রামের ফজলুল হক (৬০), আব্দুল করিম (৭০), মিনহাজ (৪৫), আমিনুল ইসলাম (৪৫), এনামুল হক (২৩), আমিনুর রহমান (২১), আরিফুল ইসলাম (২১) ও সাব্বির রহমান (১৯)।

ভূরুঙ্গামারী থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) রুহুল আমিন জানান, রাস্তা অবরোধ করে জনগণের ভোগান্তি ও সরকারী কাজে বাঁধা প্রদানের অভিযোগে তাদের নামে মামলা করা হয়েছে এবং আটককৃতদের কুড়িগ্রাম কোর্টে পাঠানো হয়েছে।


আরও খবর



‘ভাষা আন্দোলনের নেতৃত্ব দানকারীদের অন্যতম প্রধান ছিলেন বঙ্গবন্ধু’

প্রকাশিত:বৃহস্পতিবার ২২ ফেব্রুয়ারী ২০২৪ | হালনাগাদ:বৃহস্পতিবার ২২ ফেব্রুয়ারী ২০২৪ | অনলাইন সংস্করণ
মশিউর রাহাত (পিরোজপুর)

Image

পিরোজপুর ১ আসনের সংসদ সদস্য শ ম রেজাউল করিম এমপি বলেছেন, প্রতিষ্ঠিত সত্য যে ভাষা আন্দোলনের নেতৃত্ব দানকারীদের অন্যতম প্রধান ছিলেন আমাদের স্বাধীনতার জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান।

বুধবার সন্ধ্যায় পিরোজপুরের শারিকতলা ইউনিয়নের শনিরহাটে মহান ২১ ফেব্রুয়ারি আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবস উপলক্ষে আলোচনা সভার প্রধান অতিথির বক্তব্যে এ কথা বলেন।

তিনি আরও বলেন, এই বাংলাদেশ অর্জন এমনি এমনি আসে নাই। ভাষা আন্দোলন থেকে কিন্তু শুরু আর সেটাকে পুর্ণঙ্গতা পায় ছেষট্টির ৬ দফা আন্দোলনে। পরে ৬২ সালের শিক্ষা কমিশন আন্দোলন। ৬৯ এ গণঅভ্যুথান। ৭১ এ মুক্তিযুদ্ধ। মূল কথা ভাষা আন্দোলনের মাধ্যমে শুরু হয়ে ৭১ এ মহান মুক্তিযুদ্ধের মধ্য থেকে আমরা আমাদের বাঙালিত্বকে খুঁজে পেয়েছি।

এ সময় রেজাউল করিম ওই এলাকার কিছু সন্ত্রাসী কর্মকান্ডের কথা উল্লেখ করে বলেন, আমরা এ অবস্থার পরিত্রাণ করবো। এ এলাকায় যে সকল উন্নয়ন হয় নাই আমি তা করবো। আমি আপনাদের সেবক হিসেবে আপনাদের পাশে আছি। ভয় পাবেন না।

আলোচনা অনুষ্ঠানে বাবুল তালুকদারের সভাপতিত্বে আরও বক্তব্য রাখেন, জেলা আওয়ামী লীগের সহ-সভাপতি আক্তারুজ্জামান ফুলু ও উপজেলা পরিষদের ভাইস চেয়ারম্যান বায়েজিদ হোসেন।


আরও খবর



ইসরায়েলকে গাজায় গণহত্যা রোধে পদক্ষেপ গ্রহণের নির্দেশ: আন্তর্জাতিক আদালত

প্রকাশিত:শুক্রবার ২৬ জানুয়ারী ২০২৪ | হালনাগাদ:শুক্রবার ২৬ জানুয়ারী ২০২৪ | অনলাইন সংস্করণ
আন্তর্জাতিক ডেস্ক

Image

ফিলিস্তিনের গাজা উপত্যকায় গণহত্যা রোধে প্রয়োজনীয় পদক্ষেপ নিতে ইসরায়েলকে নির্দেশ দিয়েছেন আন্তর্জাতিক আদালত। গাজায় সামরিক তৎপরতা বন্ধের রায় জানিয়ে ইন্টারন্যাশনাল কোর্ট অব জাস্টিস (আইসিজে) জানান, ইসরায়েলকে নিশ্চিত করতে হবে যে তার বাহিনী গাজায় আর গণহত্যা চালাবে না ও কথিত গণহত্যার প্রমাণ সংরক্ষণ নিশ্চিত করবে।

শুক্রবার (২৬ জানুয়ারি) সন্ধ্যায় দক্ষিণ আফ্রিকার করা মামলায় এই রায় দিয়েছেন নেদারল্যান্ডসের হেগ ভিত্তিক জাতিসংঘের প্রতিষ্ঠানটি।

রায়ে ইসরায়েলকে গণহত্যা প্রতিরোধে সব ব্যবস্থা গ্রহণের পাশাপাশি ধ্বংসযজ্ঞ থামাতে ও নিজেদের পক্ষে প্রমাণ সংরক্ষণ করারও নির্দেশ দিয়েছে আইসিজে। এই আদেশে গাজায় ফ্যাক্ট-ফাইন্ডিং মিশন, আন্তর্জাতিক ম্যান্ডেট ও অন্যান্য সংস্থার মাধ্যমে সমস্ত প্রমাণের নির্ভরযোগ্যতা স্বীকৃতি দেওয়ার বিষয়ও অন্তর্ভুক্ত রয়েছে।

আদালতের অস্থায়ী ব্যবস্থার মধ্যে রয়েছে;

১. ইসরায়েলকে অবশ্যই গণহত্যামূলক বলে বিবেচিত হতে পারে এমন যেকোন কাজ প্রতিরোধ করার জন্য সমস্ত ব্যবস্থা গ্রহণ করতে হবে; একটি গোষ্ঠীর সদস্যদের হত্যা করা, শারীরিক ক্ষতি ঘটানো, একটি গোষ্ঠীর ধ্বংস ঘটাতে পরিকল্পিত পরিস্থিতি সৃষ্টি করা, জন্ম রোধ করা ইত্যাদি।

২. ইসরায়েলকে অবশ্যই নিশ্চিত করতে হবে যে তার সামরিক বাহিনী কোনো গণহত্যামূলক কাজ করবে না।

৩. ইসরায়েলকে অবশ্যই গাজায় গণহত্যার জন্য উস্কানি হিসেবে বিবেচনা করা যেতে পারে এমন কোনো প্রকাশ্য মন্তব্য প্রতিরোধ ও শাস্তি দিতে হবে।

৪. মানবিক প্রবেশাধিকার নিশ্চিত করতে ইসরাইলকে অবশ্যই ব্যবস্থা নিতে হবে।

৫. ইসরায়েলকে অবশ্যই গণহত্যার মামলায় ব্যবহার করা যেতে পারে এমন প্রমাণ ধ্বংসের হাত থেকে রক্ষা করতে হবে।

৬. ইসরায়েলকে এই আদেশের এক মাসের মধ্যে আদালতে একটি প্রতিবেদন জমা দিতে হবে।

এছাড়া, আদালত হামাসের হাতে জিম্মিদের ভাগ্য নিয়েও গভীর উদ্বেগ প্রকাশ করেছে এবং তাদের অবিলম্বে মুক্তির আহ্বান জানিয়েছেন।

এর আগে, গাজায় গণহত্যার অভিযোগে ইসরায়েলে বিরুদ্ধে গত ডিসেম্বরে (২০২৩) জাতিসংঘের আন্তর্জাতিক বিচার আদালতে (আইসিজে) মামলা করে দক্ষিণ আফ্রিকা। এর প্রায় দুই সপ্তাহ পর চলতি মাসের শুরুর দিকে (১১ ও ১২ জানুয়ারি) আইসিজেতে দুই দিনের শুনানি হয়। শুনানিতে দক্ষিণ আফ্রিকার পক্ষ থেকে অনুরোধ জানানো হয়, আদালত যেন জরুরি ভিত্তিতে ইসরাইলকে গাজায় সামরিক অভিযান বন্ধের নির্দেশ দেন।

উল্লেখ্য, ৭ অক্টোবর ইসরায়েলে হামাসের হামলার পর থেকে গাজায় নির্বিচার হামলা শুরু করে ইসরাইলি বাহিনী। তাদের এই হামলায় হামাসশাসিত গাজা উপত্যকা কার্যত ধ্বংস হয়ে গেছে। এখন পর্যন্ত ২৬ হাজারের বেশি নিরীহ ও নিরস্ত্র ফিলিস্তিনি নিহত হয়েছেন, যাদের বেশির ভাগই শিশু ও নারী।


আরও খবর
সাত দশক পর পাকিস্তানে প্রথম নারী মুখ্যমন্ত্রী

বৃহস্পতিবার ২২ ফেব্রুয়ারী ২০২৪

রাশিয়াকে ‘জুলফিকার’ ক্ষেপণাস্ত্র দিচ্ছে ইরান

বৃহস্পতিবার ২২ ফেব্রুয়ারী ২০২৪




মিয়ানমার ইস্যুতে জটিল সমীকরণে বাংলাদেশ

প্রকাশিত:বৃহস্পতিবার ০৮ ফেব্রুয়ারী ২০২৪ | হালনাগাদ:বৃহস্পতিবার ০৮ ফেব্রুয়ারী ২০২৪ | অনলাইন সংস্করণ
নিজস্ব প্রতিবেদক

Image

সীমান্তের ওপারে রাখাইন রাজ্যে চলমান সংঘাতের জেরে বাংলাদেশে আশ্রয় নেওয়া সীমান্তরক্ষীদের (বিজিপি) ফিরিয়ে নিতে মিয়ানমারের সঙ্গে যোগাযোগ করে এ পর্যন্ত ইতিবাচক সাড়া মেলেনি। একেই বাংলাদেশে আশ্রিত রোহিঙ্গাদের প্রত্যাবাসন নিয়ে জটিলতা কাটছে না। এমতাবস্থায় নতুন করে সীমান্তরক্ষীদের আশ্রয়দানের পর যে পরিস্থিতি সৃষ্টি হয়েছে, তাতে করে বাংলাদেশকে বুঝেশুনে পদক্ষেপ নেওয়ার পরামর্শ দিচ্ছেন বিশ্লেষকরা। এসব বিষয় যত দ্রুত সম্ভব আন্তর্জাতিক ফোরামে তুলে ধরারও পরামর্শ দিচ্ছেন তারা।

গত কয়েকদিন থেকে রাখাইনে চলছে বিরামহীন গুলির আওয়াজ। বুধবার (০৭ ফেব্রুয়ারি) পর্যন্ত মিয়ানমারের সীমান্তরক্ষী বাহিনী বিজিপি ও সেনাসদস্যসহ মোট ৩২৮ জন বাংলাদেশে আশ্রয় নিয়েছে। প্রায় ১৫ লাখ রোহিঙ্গার বোঝা মাথায় নিয়ে চলা বাংলাদেশের সামনে তাই স্বাভাবিকভাবে নতুন সংকট তৈরি হয়েছে। সীমান্তরক্ষী বাহিনী বিজিবির মহাপরিচালক মেজর জেনারেল মোহাম্মদ আশরাফুজ্জামান সিদ্দিকী বলেছেন, আর একজনকেও বাংলাদেশে ঢুকতে দেওয়া হবে না।

আন্তর্জাতিক সম্পর্ক বিশ্লেষক ড. ইমতিয়াজ আহমেদ জানান, মিয়ানমারের সেনাদের পালিয়ে অন্য দেশে আশ্রয় নেওয়ার ঘটনা নতুন কিছু নয়। তিনি বলেন, ভারতের সীমান্তে এর আগে এমনটা হয়েছে। গত বছরও দেশটিতে আশ্রয় নেয়। ভারত সরকার দ্রুত তাদের নিজ দেশে ফেরত পাঠিয়েছে। চীনও তাই করেছে।

ড. ইমতিয়াজ জানান, পশ্চিমা সমর্থিত মিয়ানমারের বিদ্রোহী গ্রুপ পিপলস ডিফেন্স ফোর্স (পিডিএফ) জান্তা সরকারের ওপর হামলার তীব্রতা বাড়িয়েছে। তবে চীন চায় না পিডিএফ একক ক্ষমতা কাঠামো তৈরি করুক। সে কারণে তারা আরাকান আর্মিসহ বিভিন্ন গ্রুপকে সহায়তা দিচ্ছে। তিনি বলেন, আরাকান আর্মি সব দিক থেকে তাদের ক্ষমতা শক্তিশালী করেছে। অনেক জায়গা দখলও করেছে। যার প্রভাবে মিয়ানমারের জান্তা সেনারাও অনেক সময় পিছু হটছে। যাদের অনেকে বাংলাদেশে আশ্রয় পর্যন্ত নিয়েছে। যত দ্রুত পারা যায় তাদের মিয়ানমারে ফেরত পাঠানো দরকার। তার আগে দেখে নিতে হবে ভারত ও চীন কীভাবে বিষয়টি সমাধান করছে।

রোহিঙ্গা ইস্যুতে আন্তর্জাতিক আদালতের নির্দেশনা স্মরণ করিয়ে দিয়ে ড. ইমতিয়াজ বলেন, রোহিঙ্গাদের ওপর নতুন করে হামলা হলে গণহত্যা হিসেবে বিবেচিত হতে পারে। এ কারণে তাদের ওপর হামলার ঘটনা দেখা যাচ্ছে না। এমন পরিস্থিতিতে নতুন করে রোহিঙ্গা অনুপ্রবেশের সুযোগ নেই বলে মনে করেন এই আন্তর্জাতিক সম্পর্ক বিশ্লেষক।

রাখাইনে সংঘর্ষ চলতে থাকলে তা ভারত ও চীনের জন্যও হুমকি হয়ে উঠতে পারে বলে জানান ড. ইমতিয়াজ। তিনি বলেন, বাংলাদেশের উচিত বড় আকারে এ দুই দেশের সঙ্গে আলোচনায় বসা। পররাষ্ট্রমন্ত্রী ভারতে যাওয়ার আগে ইতোমধ্যে জানিয়েছেন তিনি ভারতের সঙ্গে বিষয়টি নিয়ে কথা বলবেন। সেই আলোচনায় ভারতকেও কথা বলতে হবে। আর যদি বাংলাদেশের দিকে হতাহত আরও বেড়ে যায় এবং মর্টারশেল বন্ধ না হয়, তা হলে আন্তর্জাতিকীকরণ আরও বাড়ানো দরকার। পাশাপাশি জাতিসংঘে যদি বিষয়টি উঠাতে হয়, তা হলে এখন থেকেই প্রস্তুতি নিতে হবে। বিভিন্ন ফোরামকে কাজে লাগাতে হবে।

রাখাইন রাজ্যের পরিস্থিতি ভবিষ্যৎ রোহিঙ্গা প্রত্যাবাসনের ওপর প্রভাব ফেলবে বলে মনে করেন নিরাপত্তা বিশ্লেষক ব্রিগেডিয়ার জেনারেল (অব) এম সাখাওয়াত হোসেন। তিনি বলেন, রাখাইনের সংঘাতের ওপর এ অঞ্চলে চীন-ভারতের দ্বন্দ্বও নির্ভর করবে। পালিয়ে আসারা কোনো বন্দি নয়, আবার শরণার্থীও নয়। তারা একটা পক্ষ ত্যাগ করে প্রাণ বাঁচাতে বাংলাদেশে আশ্রয় নিচ্ছেন। এখন বিজিবির হেফাজতে রাখা মানে হচ্ছে, তারা যে এখানে এসে আত্মসমর্পণ করেছে, সেটা গৃহীত হয়েছে।

এই নিরাপত্তা বিশ্লেষক বলেন, রাখাইন অঞ্চলে ভারত, চীন ও যুক্তরাষ্ট্রের বলয় তৈরি হয়েছে। কাজেই রণক্ষেত্র না হলেও বাংলাদেশ একটা বড় সমস্যার সম্মুখীন হতে যাচ্ছে। ভূ-রাজনৈতিক আঙ্গিকে বাংলাদেশের অবস্থান বিশেষ করে রোহিঙ্গা প্রত্যাবাসন সীমান্ত এবং সার্বিক নিরাপত্তা নিশ্চিতের পথ খোঁজা জরুরি। পরিস্থিতি কীভাবে সামাল দেবে, সেটা সরকারকে বিবেচনা করতে হবে।


আরও খবর
দেশে ৩০ শতাংশ খাদ্য অপচয় হয়: কৃষিমন্ত্রী

বুধবার ২১ ফেব্রুয়ারী ২০২৪




সাকিবের প্রত্যাবর্তনের ম্যাচেও রংপুরের হার, জয়রথ অব্যাহত খুলনার

প্রকাশিত:শুক্রবার ২৬ জানুয়ারী ২০২৪ | হালনাগাদ:শুক্রবার ২৬ জানুয়ারী ২০২৪ | অনলাইন সংস্করণ
ক্রীড়া প্রতিবেদক

Image

বিপিএল-২০২৪ আসরে ঢাকায় দুই ম্যাচের দু'টিতেই জয় পাওয়া এনামুল হক বিজয়ের খুলনা টাইগার্স সিলেট পর্বের শুরুটাও করলো জয়ের মাধ্যমে। সিলেটে প্রথম ম্যাচে সোহান-সাকিবদের রংপুর রাইডার্সকে ২৮ রানে হারিয়েছে তারা। খুলনার ১৬০ রানের জবাবে ১৩২ রানেই অল-আউট হয় রাইডার্সরা। এতে করে টানা ৩ জয়ে ৬ পয়েন্ট নিয়ে টেবিলের শীর্ষে অবস্থান বিজয়দের অপ্রতিরোধ্য খুলনা টাইগার্স।

শুক্রবার (২৬ জানুয়ারি) দুপুরে সিলেট আন্তর্জাতিক স্টেডিয়ামে রান তাড়া করতে নেমে প্রথম ৫ ওভারে মাত্র ১৩ রান করে রংপুর, হারায় ২ উইকেট। ৮ বলে ২ রান করে বাবর আজম ও ৫ বলে ১ রান করে বিদায় নেন ব্রান্ডন কিং। দলীয় ৪৯ রানে রনি তালুকদার আউট হন টেস্ট মেজাজে খেলে। ২৫ বলে ১৫ রান করেন তিনি।

তখন রানের চাকা সচল রেখেছিলেন শামিম পাটোয়ারি। থার্ডলেগের দিকে বেশ কয়েক চার হাঁকান তিনি। শেষ পর্যন্ত ২২ বলে ৩০ রান করে থামেন তিনি। আগ্রাসী ছিলেন মোহাম্মদ নবি। নবির মারের মধ্যেই একে একে প্যাভিলিয়নে ফেরেন আজমতউল্লাহ ওমরজাই, নুরুল হাসান, সাকিব আল হাসান ও মাহেদী হাসান। আজমত ৪, নুরুল ১, সাকিব ২ ও মেহেদী ১২ রান করেন। ফলে জয়ের দৌড়ে অনেকটা পিছিয়ে পড়ে রংপুর।

নবি ৫০ রানে আউট হলে ৮ বল বাকি থাকতেই শেষ হয় রংপুরের ইনিংস। ৩০ বলে ৪টি চার ও ৩টি ছয় হাঁকান আফগান অলরাউন্ডার। খুলনার হয়ে শানাকা ৪টি উইকেট নেন। ২টি করে উইকেট পান ওয়াসিম জুনিয়র ও মোহাম্মদ নেওয়াজ। এক উইকেট নেন নাসুম আহমেদ।

এর আগে তিন বিদেশির (মোহাম্মদ নেওয়াজ, দাসুন শানাকা ও এভিন লুইস) ব্যাটে লড়াইয়ের পুঁজি পায় খুলনা। নির্ধারিত ওভার শেষে ৬ উইকেট হারিয়ে ১৬০ রান করে তারা। টস হেরে ব্যাট করতে নামা খুলনার শুরুটা খুবই বাজে হয়। আজমতউল্লাহ ওমরজাইয়ের প্রথম ওভারে মাত্র ১ রান উঠাতে সক্ষম হয় তারা, সেটিও লেগ বাই থেকে। ৭ বল খেললেও রানের খাতা খোলার আগেই ক্যাচআউট হন খুলনার অধিনায়ক এনামুল হক বিজয়।

আজমতউল্লাহকে বিজয়ের মেডেন ওভার দেওয়ার দৃশ্যটি নন-স্ট্রাইকপ্রান্তে দাঁড়িয়ে দেখেছিলেন ওয়েস্ট ইন্ডিজের বিধ্বসী ব্যাটার এভিন লুইস। সেই ওমরজাইয়ের ওপরই পঞ্চম ওভারে চড়াও হন লুইস। মাত্র ৪ বল ফেস করেই ১৭ রান নেন তিনি, পঞ্চম ওভারে সাকুল্যে আসে ১৮ রান। মাহমুদুল হাসান জয় ও আফিফ হোসেন স্কোরবোর্ডে তেমন অবদান রাখতে পারেননি। জয় ৭ ও আফিফ ৪ রান করে প্যাভিলিয়নে ফেরেন। লুইস ২৫ বলে ৩৭ রান করে আউট হন দলীয় ৬৪ রানে। টপঅর্ডারের ৪টি উইকেট ভাগাভাগি করে নেন হাসান মাহমুদ ও শেখ মাহেদী।

এরপর লঙ্কান অলরাউন্ডার দাসুন শানাকা ও পাকিস্তানি অলরাউন্ডার মোহাম্মদ নেওয়াজের ব্যাটে শক্ত ভীত গড়ার চেষ্টা করে খুলনা। পঞ্চম উইকেটে দুজনে মিলে গড়েন ৭৭ রানের জুটি। হাসান মাহমুদের বলে বোল্ড আউট হয়ে ব্যক্তিগত ৪০ রানে আউট হন শানাকা। ৩৩ বলের ইনিংসে ৫টি চার ও একটি ছয় হাঁকান লঙ্কান অলরাউন্ডার। রিপন মণ্ডলের ওভারে আউট হওয়া নেওয়াজ ৩৪ বলে করেন ৫৫ রান। তার ইনিংসে ছিল ৫টি চার ও ৩টি ছয়ের মার। বাকিদের মধ্যে ওয়াসিম জুনিয়র ৭ ও হাবিবুর রহমান সোহান ১ রান করেন।

সংক্ষিপ্ত স্কোর:

খুলনা টাইগার্স- ১৬০/৬ (২০ ওভার) (বিজয় ০, লুইস ৩৫*, জয় ৭, আফিফ, শানাকা ৪০, নওয়াজ ৫৫)

রংপুর রাইডার্স- ১৩২/১০ (১৮.৪ ওভার) (রনি ১৫, বাবর ২, কিং ১, শামীম ৩০, নবি ৫০)


আরও খবর
দ্রুততম ১০ হাজার রানের কীর্তি গড়লেন বাবর আজম

বৃহস্পতিবার ২২ ফেব্রুয়ারী ২০২৪




নওগাঁ-২ আসনে ঈগল প্রতীকে লড়বেন রেজা

প্রকাশিত:বুধবার ৩১ জানুয়ারী ২০২৪ | হালনাগাদ:বুধবার ৩১ জানুয়ারী ২০২৪ | অনলাইন সংস্করণ
ফয়সাল আহম্মেদ, নওগাঁ প্রতিনিধি

Image

স্থগিত হওয়া পুনঃ তফসিলে দ্বাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে নওগাঁ-২ (পত্নীতলা-ধামইরহাট) আসনে স্বতন্ত্র প্রার্থী হিসেবে হাইকোর্টের আপিল বিভাগে রিটের শুনানীতে গত ৩০ জানুয়ারি অবশেষে মেহেদী মাহমুদ রেজা প্রার্থীতা ফিরে পেয়েছেন।

তিনি বাংলাদেশ মুক্তিযোদ্ধা সংসদ কমান্ড, কেন্দ্রীয় কমিটির যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক পদে আছেন। পরে জেলা রিটার্নিং অফিসার ও জেলা প্রশাসক গোলাম মওলা কর্তৃক ঈগল প্রতীক বরাদ্দ পান। বিষয়টির সত্যতা নিশ্চিত করেন প্রার্থী নিজেই।

জানা যায়, প্রতীক বরাদ্দ পরপরই এলাকায় সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে খবরটি ছড়িয়ে পড়লে তাঁর সমর্থক ও নেতাকর্মীদের মাঝে আনন্দের বন্যা বয়ে যায়। বর্তমানে তিনি ঈগল প্রতীক নিয়ে ভোটযুদ্ধ লড়ছেন বলে ভোটারদের নিকট দোয়া ও ভোট কামনা করছেন তরুণ এই আওয়ামী লীগ নেতা।

এতে এ আসনে বৈধ প্রার্থী হিসেবে এখন মোট ৪ জনে দাঁড়ালো। অন্যরা হলেন- বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের মনোনীত নৌকা প্রতীকের প্রার্থী সাবেক হুইপ শহীদুজ্জামান সরকার (বাবলু) এমপি, বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের সাবেক সহ-সম্পাদক কেন্দ্রীয় উপ-কমিটি ও নওগাঁ জেলা আ. লীগের সদস্য ইঞ্জিনিয়ার ড. আখতারুল আলম স্বতন্ত্র প্রার্থী হিসেবে পেয়েছেন ট্রাক প্রতীক ও জাতীয় পার্টির প্রেসিডিয়াম সদস্য ও দলীয় মনোনীত প্রার্থী অ্যাড. তোফাজ্জল হোসেন লাঙ্গল প্রতীক নিয়ে লড়ছেন।

উল্লেখ্য, বৈধভাবে মনোনীত স্বতন্ত্রপ্রার্থী বীরমুক্তিযোদ্ধা আমিনুল হকের মৃত্যুতে নির্বাচন কমিশন ভোটগ্রহণ স্থগিত করে। পরে ৮ জানুয়ারি নির্বাচন কমিশনের আদেশক্রমে সচিব মো. জাহাংগীর আলম স্বাক্ষরিত প্রজ্ঞাপনে পুনরায় তফসিল জারি করেন। এ আসনে ভোটগ্রহণ অনুষ্ঠিত হবে ১২ ফেব্রুয়ারি সোমবার।


আরও খবর