আজঃ বুধবার ২৫ মে ২০২২
শিরোনাম

‘ক্ষুধা ও দারিদ্রমুক্ত বাংলাদেশ বিনির্মানে শেখ হাসিনার বিকল্প নাই’

প্রকাশিত:রবিবার ০৮ মে ২০২২ | হালনাগাদ:রবিবার ০৮ মে ২০২২ | ১১২০জন দেখেছেন
হযরত আলী হিরু, স্বরূপকাঠি

Image

ক্ষুধা ও দারিদ্রমুক্ত বাংলাদেশ বিনির্মানে শেখ হাসিনার বিকল্প নাই বলে মন্তব্য করেছেন মৎস্য ও প্রাণিসম্পদ মন্ত্রী শ ম রেজাউল করিম (এমপি)।

মন্ত্রী রবিবার সকালে পিরোজপুরের স্বরূপকাঠিতে উপজেলা প্রশাসন আয়োজিত অসহায় ও দুঃস্থ পরিবারের মাঝে প্রধানমন্ত্রীর দেওয়া উন্নতমানের শুকনো খাবার বিতরণ অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তব্যে এ মন্তব্য করেন।

এসময় মন্ত্রী আরও বলেন, শেখ হাসিনার আমলে দেশে একটি লোকও না খেয়ে মারা যায়নি। করোনাকালীনসহ সকল দুঃসময়ে প্রধানমন্ত্রী এদেশের মানুষকে খাদ্য সহায়তা দিয়েছেন যেটা এখনও অব্যহত আছে। এদেশের অসহায়, দুঃস্থ ও নীপিড়িত মানুষের ভাগ্য উন্নয়নে তিনি সর্বদা কাজ করে যাচ্ছেন। গৃহহীন লোকদের জন্য জমিসহ ঘরের ব্যবস্থা করেছেন। বঙ্গবন্ধুর স্বপ্নের সুখি ও সমৃদ্ধ বাংলাদেশ গড়তে শেখ হাসিনাকে আবারও রাষ্ট্র ক্ষমতায় আনতে হবে। শেখ হাসিনা রাষ্ট্র ক্ষমতায় না থাকলে এদেশের উন্নয়নের অগ্রযাত্রার চাকা থমকে যাবে।

উপজেলা হলরুমে উপজেলা নির্বাহী অফিসার মো. মোশারেফ হোসেনের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত সভায় আরও বক্তব্য রাখেন সাবেক এমপি অধ্যক্ষ মো. শাহ আলম, উপজেলা চেয়ারম্যান আব্দুল হক, উপজেলা আওয়ামীলীগের সভাপতি মো. আব্দুল হামিদ, সাধারণ সম্পাদক এস এ ফুয়াদ, পৌর মেয়র গোলাম কবির, সাবেক উপজেলা চেয়ারম্যান এস এম মুইদুল ইসলাম, সাবেক মুক্তিযোদ্ধা কমান্ডার বীর মুক্তিযোদ্ধা কাজী সাখাওয়াত হোসেন, উপজেলা পূজা উদযাপন পরিষদের সভাপতি শশাংঙ্ক রঞ্জন সমদ্দার, ইউপি চেয়ারম্যান আব্দুর রশিদ ও হুমায়ুন আহম্মেদ প্রমুখ। অনুষ্ঠান সঞ্চালনা করেন উপজেলা কৃষি কর্মকর্তা চপল কৃষ্ণ নাথ ও উপজেলা প্রকল্প বাস্তবায়ন কর্মকর্তা মানষ কুমার দাস। সভাশেষে উপজেলা পাঁচ শত দুঃস্থ পরিবারের মাঝে প্রধানমন্ত্রীর দেওয়া খাদ্য সামগ্রী বিতরণ করেন মন্ত্রী শ ম রেজাউল করিম। পরে মন্ত্রী উপজেলার কৌরিখাড়া লঞ্চঘাটের নতুন পল্টুনের উদ্বোধন করেন। 


আরও খবর



নিহত প্রীতির পরিবার পেল ২০ লাখ টাকা অনুদান

প্রকাশিত:সোমবার ০২ মে 2০২2 | হালনাগাদ:সোমবার ০২ মে 2০২2 | ৪১০জন দেখেছেন
দর্পণ নিউজ ডেস্ক

Image

শাহজানপুরে সন্ত্রাসীর গুলিতে নিহত কলেজছাত্রী সামিয়া আফনান প্রীতির পরিবারকে ২০ লাখ টাকা অনুদান দিয়েছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা।

আজ সোমবার ধানমন্ডিতে আওয়ামী লীগ সভাপতির কার্যালয়ে দপ্তর সম্পাদক বিপ্লব বড়ুয়া অনুদানের চেক তুলে দেন। প্রীতির বাবা মোহাম্মদ জামাল উদ্দিন অনুদানের চেক গ্রহন করেন। পারিবারিক সঞ্চয় পত্র হিসেবে এ অনুদান দেওয়া হয়ে। এ সময় সাংবাদিক সোহেল সানিকেও ৩০ লাখ টাকার পারিবারিক সঞ্চয়পত্র দেওয়া হয়।

প্রধানমন্ত্রীর ত্রান তহবিল থেকে ২০১৯- ২২ সাল পর্যন্ত ১ হাজার ১২১ লক্ষ টাকা ৩৫ হাজার ব্যক্তি ও প্রতিষ্ঠানকে সহায়তা করেছেন। এর মধ্যে ২০১৯ সালে দেয়া হয়েছে ১৪০ কোটি টাকা, ২০২০ সালে ৫৮০ কোটি, ২০২১ সালে ৩২৪ কোটি, এবং২০২২ সালের এপর্যন্ত ৭৫ কোটি টাকা সহায়তা করা হয়েছে।


আরও খবর



কক্সবাজারে অসাবধানতায় নিজ বন্দুকের গুলিতে ফরেস্ট গার্ড নিহত

প্রকাশিত:বৃহস্পতিবার ১৯ মে ২০২২ | হালনাগাদ:বৃহস্পতিবার ১৯ মে ২০২২ | ৩৪৫জন দেখেছেন
দর্পণ নিউজ ডেস্ক

Image

কক্সবাজার উত্তর বনবিভাগের ঈদগাঁও রেঞ্জের ভোমরিয়াঘোনা ফরেস্ট অফিস এলাকায় অসাবধানতা বশত নিজ গুলিতে এক ফরেস্ট গার্ড (এফজি) নিহত হয়েছেন।

বুধবার দুপুরে ভাদিতলার পূর্ব পাশের বনে এ ঘটনা ঘটে।নিহত আখতারুজ্জামান (৪০) যশোরের কোতোয়ালি থানাধীন ইছালী গ্রামের বাসিন্দা রফি উদ্দিন বিশ্বাসের ছেলে।তিনি ঈদগাঁও রেঞ্জের ভোমরিয়াঘোনা বিটে বনরক্ষী হিসেবে দায়িত্বরত ছিলেন। তিনি এক ছেলে এক মেয়ের জনক।

কক্সবাজার দক্ষিণ বনবিভাগের বন কর্মকর্তা (ডিএফও) মো. আনোয়ার হোসেন সরকার জানান, আকতারুজ্জামান প্রতিদিনের মতো ডিউটি করছিলেন। শুনেছি তার বন্দুকটি কাজ করছিল না, তা ঠিক করার সময় অসাবধানতা বশত গুলি বের হয়ে বিদ্ধ হওয়ার পর আহত হন আখতারুজ্জামান। তাকে উদ্ধার করে কক্সবাজার সদর হাসপাতালে নেয়ার পথেই তিনি মৃত্যুর কোলে ঢলে পড়েন।

ভোমরিয়া ঘোনা বিটের হেডম্যান বাদশা মিয়া জানান, নিহত আখতারুজ্জামান আরেকজন সহকারীকে নিয়ে বনে নিয়মিত টহলে গিয়েছিলেন। সেখানে তার নামে বরাদ্দ থাকা বন্দুকটিতে ত্রুটি দেখা দিলে তা নিজেই মেরামতের চেষ্টা চালান আখতার। একপর্যায়ে বন্দুক থেকে এক রাউন্ড গুলি বের হয়ে তার গলার এক পাশে বিদ্ধ হয়ে অন্য পাশ দিয়ে বেরিয়ে যায়।

ঈদগাঁও থানার ওসি আবদুল হালিম বলেন, খবর পেয়ে ঘটনাস্থলে পুলিশ পাঠিয়ে আহত বনকর্মীকে উদ্ধার করা হয়। বন বিভাগের পক্ষ থেকে অভিযোগ বা মামলা হলে তদন্ত অনুযায়ী ব্যবস্থা নেওয়া হবে।


আরও খবর



চট্টগ্রাম-দোহাজারী রেলপথ

৫২ কিলোমিটার ডুয়েলগেজে রূপান্তরেই ১০,০৪৮ কোটি টাকা

প্রকাশিত:শনিবার ১৪ মে ২০২২ | হালনাগাদ:শনিবার ১৪ মে ২০২২ | ২৪০জন দেখেছেন
দর্পণ নিউজ ডেস্ক

Image

কক্সবাজারের সঙ্গে রেলসংযোগ স্থাপনে নির্মাণ করা হচ্ছে দোহাজারী-কক্সবাজার রেলপথ। যতিও চট্টগ্রাম থেকে দোহাজারী অংশটি জরাজীর্ণই রয়ে গেছে। তাই মিটারগেজ এ রেলপথটি ডুয়েলগেজে রূপান্তরের উদ্যোগ নেয়া হয়েছে। তবে প্রকল্পটির ব্যয় ধরা হয়েছে অনেক বেশি। সমজাতীয় প্রকল্পের তুলনায় তা প্রায় তিনগুণ। এমনকি নতুন রেলপথ নির্মাণের চেয়েও ডুয়েলগেজ রূপান্তরে ব্যয় বেশি ধরা হয়েছে।

তথ্যমতে, বর্তমানে চট্টগ্রাম থেকে দোহাজারী পর্যন্ত ৪৭ কিলোমিটার মিটারগেজ রেলপথ রয়েছে। এ পথটি ডুয়েলগেজে রূপান্তরের পাশাপাশি ঢাকা-চট্টগ্রাম রেলপথের সঙ্গে কানেক্টিং কার্ভও নির্মাণ করা হবে। এতে রেলপথটির দৈর্ঘ্য দাঁড়াবে ৫২ কিলোমিটার। প্রকল্পটি বাস্তবায়নে প্রায় ১০৩ একর জমি অধিগ্রহণ করতে হবে। ডাবল লাইন হওয়ায় ১০৭ কিলোমিটার ট্র্যাক ডুয়েলগেজে রূপান্তর ছাড়াও ২৪টি মেজর ও ৯৫টি মাইনর সেতু পুনর্নির্মাণ করতে হবে প্রকল্পটির আওতায়। এ প্রকল্পের আওতায় দুটি স্টেশন নতুন করে নির্মাণ করতে হবে।

চট্টগ্রাম-দোহাজারী রেলপথ ডুয়েলগেজে রূপান্তরে সম্ভাব্য ব্যয় ধরা হয়েছে ১১৬ কোটি ৮৪ লাখ ডলার বা ১০ হাজার ৪৮ কোটি ১৬ লাখ টাকা। এতে কিলোমিটারপ্রতি ব্যয় পড়ছে ১৯৩ কোটি ২৩ লাখ টাকা। অথচ দোহাজারী থেকে কক্সবাজার হয়ে গুনদুম পর্যন্ত ১২৮ কিলোমিটার ডুয়েলগেজ রেলপথ নির্মাণে ব্যয় ধরা হয়েছে ১৮ হাজার ৩৪ কোটি ৪৮ লাখ টাকা। এক্ষেত্রে নতুন রেলপথ নির্মাণে ব্যয় পড়ছে কিলোমিটারপ্রতি ১৪০ কোটি ৮৯ লাখ টাকা।

এদিকে জয়দেবপুর-ঈশ্বরদী মিটারগেজ রেলপথকে ডুয়েলগেজে রূপান্তরে কিলোমিটারপ্রতি ব্যয় পড়ছে ৬৪ কোটি ৯ লাখ টাকা। প্রকল্পটির আওতায় ১৯৮ দশমিক ২৯ কিলোমিটার রেলপথকে ডুয়েলগেজে রূপান্তরে ব্যয় পড়ছে ১২ হাজার ৭০৮ কোটি ৩২ লাখ টাকা। এ প্রকল্পটিতে ঋণ দিতে চায় জাপান আন্তর্জাতিক সহযোগিতা সংস্থা (জাইকা)। আজ এ প্রকল্পের পিডিপিপি নিয়েও ইআরডির সঙ্গে রেলওয়ের বৈঠক রয়েছে।

সূত্রমতে, চট্টগ্রাম-দোহাজারী রেলপথ ডুয়েলগেজে রূপান্তরে এডিবির কাছে ঋণ চাওয়া হয়েছে ৭৬ কোটি ৭৬ কোটি ডলার বা ছয় হাজার ৬০১ কোটি ৪০ লাখ টাকা। বাকি তিন হাজার ৩৪৬ কোটি ৭৬ লাখ টাকা সরকারের তহবিল থেকে দেয়া হবে। যদিও প্রকল্পটির ব্যয় অনেক বেশি মনে করছে এডিবি। গত মার্চে রেলওয়ে ও এডিবির মাঝে অনুষ্ঠিত দ্বিপক্ষীয় বৈঠকে এ মন্তব্য করেন এডিবির মিশনের ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তারা।

এ প্রসঙ্গে জানতে চাইলে রেলওয়ের মহাপরিচালক ডিএন মজুমদার বলেন, চট্টগ্রাম-দোহাজারী মিটারগেজ রেলপথ ডুয়েলগেজে রূপান্তর প্রকল্পটির আওতায় ডাবল লাইন নির্মাণ করা হবে। ফলে প্রকল্পটির আওতায় ১০৭ কিলোমিটার ডুয়েলগেজ রেলপথ নির্মাণ করা হবে। তাই ব্যয় কিছুটা বেশি পড়ছে। এছাড়া জমি অধিগ্রহণেও প্রচুর ব্যয় হবে। তাই ব্যয় কিছুটা বেশি ধরা হয়েছে।

যদিও এ বক্তব্য সঠিক নয় বলে মনে করছেন রেলওয়ের একাধিক ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তা। তারা জানান, জমি অধিগ্রহণ বাদ দিলেও রেলপথটি ডুয়েলগেজে রূপান্তরে কিলোমিটারপ্রতি ব্যয় হবে ১৪৬ কোটি ৫৩ লাখ টাকা। আর ডাবল লাইন ধরলেও কিলোমিটারপ্রতি ব্যয় পড়ে ৭১ কোটি ২১ লাখ টাকা। অথচ জয়দেবপুর-ঈশ্বরদী মিটারগেজ রেলপথ ডুয়েলগেজ রূপান্তর প্রকল্পে ব্যয় পড়ছে আরও কম। আর ওই প্রকল্পেও ডাবল লাইন নির্মাণ করা হবে।

সূত্র জানায়, চট্টগ্রাম-দোহাজারী রেলপথ ডুয়েলগেজে রূপান্তর প্রকল্পটির সম্ভাব্যতা যাচাই ও বিস্তারিত নকশা প্রণয়ন শেষ হয়েছে। ফেব্রুয়ারি মাসে প্রকল্পটির পিডিপিপি অনুমোদনের জন্য পরিকল্পনা কমিশনে পাঠানো হয়েছে। এতে দেখা যায়, প্রকল্পটির জমি অধিগ্রহণে ব্যয় ধরা হয়েছে দুই হাজার ৪২৮ কোটি ৩৯ লাখ টাকা। আর মূল ট্র্যাক (রেলপথ) নির্মাণে ব্যয় ধরা হয়েছে এক হাজার ৭৫৩ কোটি ৮৭ লাখ টাকা এবং মাটির কাজে (আর্থ ওয়ার্ক) এক হাজার ৭২ কোটি ৭৭ লাখ টাকা। এছাড়া উল্লেখযোগ্য ব্যয়ের মধ্যে রয়েছে স্টেশন ও বিল্ডিং নির্মাণে ৭১১ কোটি ৯৭ লাখ টাকা, সেতু ও কালভার্ট নির্মাণে এক হাজার ৩১৪ কোটি ৩৬ লাখ টাকা, সিগন্যালিং ও টেলিকমে ৩০৫ কোটি ৭৭ লাখ টাকা এবং প্ল্যান্ট ও ইক্যুইপমেন্টে ৩০৯ কোটি ৭৩ লাখ টাকা। এর বাইরে পরামর্শক খাতে ৫৮৮ কোটি টাকা ব্যয় ধরা হয়েছে। আর প্রাইস কনটিনজেন্সি খাতে ৭৩০ কোটি ৭৭ লাখ টাকা ও ফিজিকাল কনটিনজেন্সি খাতে ১৮২ কোটি ৬৯ লাখ টাকা ব্যয় ধরা হয়েছে।


আরও খবর



ট্রেনে ফিরে অর্ধলাখ টাকা জরিমানা আদায় করলেন টিটিই শফিকুল

প্রকাশিত:বুধবার ১১ মে ২০২২ | হালনাগাদ:বুধবার ১১ মে ২০২২ | ৪৯৫জন দেখেছেন
দর্পণ নিউজ ডেস্ক

Image

ট্রেনে ডিউটির প্রথম দিনেই অর্ধলাখ টাকা জরিমানা আদায় করলেন সেই টিটিই শফিকুল ইসলাম। বরখাস্তের আদেশ প্রত্যাহারের পর মঙ্গলবার (১০ মে) কাজে যোগ দিয়ে ২৪ ঘণ্টায় দুই ট্রেন থেকে ৪৯ হাজার ৯৫০ টাকা জরিমানা আদায় করেছেন তিনি। বুধবার (১১ মে) বিকালে তিনি জরিমানা আদায়ের বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন।

বরখাস্তের ৪ দিন পর মঙ্গলবার বেলা ১১টা ৫০ মিনিটে খুলনা থেকে চিলাহাটিগামী আন্তঃনগর রূপসা এক্সপ্রেসে টিটিই হিসেবে দায়িত্ব পালন শুরু করেন তিনি। চিলাহাটি থেকে সীমান্ত এক্সপ্রেস ট্রেনে টিকিট চেক করতে করতে আবার ফিরে আসেন। ওইদিন  দিবাগত রাতে ঈশ্বরদীতে পৌঁছান। দুটি ট্রেন থেকে প্রায় অর্ধলাখ টাকা আদায় করে তিনি সরকারি খাতে জমা দেন।

উল্লেখ্য, রোববার (৮ মে) রেলমন্ত্রীর ৩ আত্মীয়কে জরিমানা করে সাময়িক বরখাস্ত হওয়া টিটিই শফিকুল ইসলামকে দায়িত্বে পুনর্বহাল করা হয়। পাকশী বিভাগীয় রেলওয়ে কর্মকর্তা (ডিআরএম) শাহীদুল ইসলাম এ আদেশ দেন। একইসঙ্গে তদন্ত কাজ অব্যাহত আছে বলে ডিআরএম জানিয়েছেন।

টিটিই শফিকুল বলেন, ‌‌রেলমন্ত্রী স্যারের প্রতি আমি কৃতজ্ঞ। তিনি আমার বরখাস্তাদেশ প্রত্যাহারের আদেশ দিয়ে কাজ করার সুযোগ করে দিয়েছেন। আন্তরিকতা ও সততার সঙ্গে আগামী দিনেও দায়িত্ব পালন করবো।

নিউজ ট্যাগ: শফিকুল ইসলাম

আরও খবর



নাগরপুরে বড় ভাইয়ের হাতে ছোট ভাই খুন

প্রকাশিত:সোমবার ০৯ মে ২০২২ | হালনাগাদ:সোমবার ০৯ মে ২০২২ | ৪৬৫জন দেখেছেন
দর্পণ নিউজ ডেস্ক

Image

টাঙ্গাইলের নাগরপুরে জমি সংক্রান্ত বিরোধের জের ধরে বড় ভাইয়ের হাতে ছোট ভাইয়ের মৃত্যু হয়েছে। সোমবার (০৯ মে) উপজেলার মোকনা ইউনিয়নের ডাকাতিপাড়া গ্রামে এ ঘটনা ঘটে। নিহত সুমন মিয়া (২৫) ওই গ্রামের কলিম উদ্দিনের ছেলে।

নাগরপুর থানার উপ-পরিদর্শক (এসআই) মাসুদ জানান, জমিজমা নি‌য়ে তা‌দের প‌রিবারের ম‌ধ্যে দীর্ঘ দিন ধ‌রে বি‌রোধ চ‌লে আস‌ছিল। পুনরায় জমি নি‌য়ে ছোট ভাই সুমনের সঙ্গে কথা কাটাকা‌টির এক পর্যা‌য়ে বড় ভাই আ‌তোয়ার মিয়া ফলা দিয়ে আঘাত করে। এ‌তে সে গুরুতর আহত হ‌লে স্থানীয়রা তা‌কে উদ্ধার ক‌রে মির্জাপুর কুমুদিনী হাসপাতালে নেওয়ার পথে তার মৃত্যু হয়। তারা দুইজন সৎ ভাই ছিলেন।

নিউজ ট্যাগ: টাঙ্গাইল

আরও খবর