আজঃ বুধবার ২৫ মে ২০২২
শিরোনাম

খুলনায় যাত্রীবাহী বাসচাপায় এসআই নাসিম নিহত

প্রকাশিত:সোমবার ১৮ এপ্রিল ২০২২ | হালনাগাদ:সোমবার ১৮ এপ্রিল ২০২২ | ২৭৭৫জন দেখেছেন
আব্দুল্লাহ আল মামুন

Image

যাত্রীবাহী বাসচাপায় মোটরসাইকেল চালক খুলনার সিটিএসবির উপ-পরিদর্শক (এসআই) নাসিম হোসেন নিহত হয়েছেন। সোমবার (১৮ এপ্রিল) বিকেল ৫টার দিকে রূপসা উপজেলার খুলনা-মোংলা মহাসড়কের ইলাইপুর মোড়ে এ দুর্ঘটনা ঘটে।

নিহত (এসআই) নাসিম হোসেন খুলনার বটিয়াঘাটার বিরাট কালবুনিয়া গ্রামের মো. আব্দুল ওয়াদুদ মোল্যার ছেলে।

পুলিশ ও প্রত্যক্ষদর্শীরা জানায়, খুলনা সিটিএসবির এসআই নাসিম তার সঙ্গী শফিকুল ইসলামকে নিয়ে মোটরসাইকেলযোগে বটিয়াঘাটার বাইনতলা থেকে রূপসার দিকে যাচ্ছিলেন। জাবুসা-ইলাইপুর সড়ক হয়ে মোটরসাইকেলটি খুলনা-মোংলা মহাসড়কে পৌঁছালে মোংলা থেকে ছেড়ে আসা রূপসাগামী জ্যোতি পরিবহন নামে যাত্রীবাহী বাস তাদের চাপা দেয়। এ সময় নাসিম ও আরোহী শফিকুল ছিটকে রাস্তার ওপর পড়ে গুরুতর আহত হন। পরে স্থানীয়রা তাদের উদ্ধার করে খুলনা মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি করে। সেখানে চিকিৎসাধীন অবস্থায় সন্ধ্যায় মারা যান এসআই নাসিম এবং গুরুতর আহত শফিকুল হাসপাতালে চিকিৎসাধীন।

পুলিশ ও প্রত্যক্ষদর্শীরা আরও জানায়, মোটরসাইকেলটি বাসের নিচে ঢুকে চেসিসের সঙ্গে আটকে গেলে বাসচালক মোটরসাইকেলটি চেসিসে সঙ্গে বাঁধিয়ে বাস চালিয়ে রূপসা বাস স্ট্যান্ডে চলে আসেন। পরে খবর পেয়ে পূর্ব রূপসা বাসস্ট্যান্ড পুলিশ ফাঁড়ির সদস্যরা বাসস্ট্যান্ড থেকে দুর্ঘটনা কবলিত বাসটি জব্দ করেন।

রূপসা থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) সরদার মোশাররফ হোসেন বিষয়টি নিশ্চিত করে জানান, দুর্ঘটনা কবলিত মোটরসাইকেল উদ্ধার ও ঘাতক বাসটি জব্দ করেছে পুলিশ। তবে বাসের চালক ও হেলপার পালিয়েছেন।


আরও খবর



ঈদ শেষেও কমেনি মুরগি-গরুর মাংসের দাম

প্রকাশিত:সোমবার ০৯ মে ২০২২ | হালনাগাদ:সোমবার ০৯ মে ২০২২ | ৩৮০জন দেখেছেন
দর্পণ নিউজ ডেস্ক

Image

ঈদুল ফিতরের আমেজ শেষে বেশির ভাগ মানুষ কর্মস্থলে ফিরলেও বাজারে এখনও ঈদের আমেজ কমেনি। বরং ঈদের কয়েক দিন আগে থেকে বাড়িয়ে বিক্রি করা মুরগি ও গরুর মাংসের পাশাপাশি রুই, পাঙ্গাশ ও তেলাপিয়াসহ অধিকাংশ মাছ বিক্রি হচ্ছে সেই বাড়তি দামে। দাম বাড়লেও ক্রেতা কম থাকায় বেচা-কেনা কম বলে জানিয়েছেন ব্যবসায়ীরা। তারা বলছেন, গরু কেনায় খরচ বেশি, তাই দাম বাড়তি দামে বিক্রি করতে হচ্ছে। ক্রেতারা বলছেন, মেহমানদের ভালো কিছু খেতে দেওয়ার জন্য বাড়তি দামেই কিনতে হচ্ছে গরুর মাংস।

রাজধানীর বিভিন্ন বাজার ঘুরে দেখা গেছে, ক্রেতাদের উপস্থিতি একেবারেই কম, অনেক দোকানও খোলেনি। তবে যে কয়টি দোকান খোলা রয়েছে সেগুলোতে গরুর মাংস বিক্রি হচ্ছে ৭০০ টাকা কেজিতে, ছাগল-খাসির মাংস বিক্রি হচ্ছে ৯০০ থেকে ১০০০ টাকা কেজিতে। ঈদের আগে একই দোকানে ৬৫০ টাকা কেজি বিক্রি হওয়া গরুর মাংস ঈদের দিন বিক্রি হয়েছে ৭০০ থেকে ৭৩০ টাকা কেজিতে।

মুরগির মধ্যে ব্রয়লার মুরগির মাংস বিক্রি হচ্ছে ১৭৫ থেকে ১৮০ টাকা কেজিতে। আকারে ছোট পাকিস্তানি কক বিক্রি হচ্ছে ২২০ টাকা থেকে ২৬০ টাকায় পিস। দেশি ছোট মুরগি বিক্রি হচ্ছে ৪০০-৪৫০ টাকা পিস। আর বড় সোনালী মুরগি বিক্রি হচ্ছে ২৮০ থেকে ৩২০ টাকা পিস। আর দেশি বড় মুরগি বিক্রি হচ্ছে ৫০০ থেকে ৬০০ টাকা পিস। অথচ ঈদের আগে ব্রয়লার মুরগি বিক্রি হয়েছিল ১৬০ টাকা কেজিতে। যা ঈদের সময় বিক্রি হয়েছে ১৮০ থেকে ১৯০ টাকা কেজিতে। অর্থাৎ ঈদের সময়ের বাড়তি দরে এখনও বিক্রি হচ্ছে মুরগির মাংসের দাম।

মহাখালী কাঁচাবাজারের মাংস ব্যবসায়ী সোহরাব হোসেন বলেন, গরুর মাংসের কেজি এক দাম ৭০০ টাকা। কম দামে বিক্রির কোনো সুযোগ নেই। গরু তো কম দামে কিনতে পারিনি, কেনার পাশাপাশি গরু আনার সময় বিভিন্ন বকশিস দিতে হয়েছে। আপনিই বলেন, গরুর মাংসের দাম না বাড়িয়ে বিক্রি না করে কী লোকসানে বিক্রি করব।

কারওয়ান বাজারের রাসনা মাংস বিতানের বিক্রেতা রশিদুল আলম বলেন, হাড়সহ মাংসের কেজি ৭০০ টাকা। হাড় ছাড়া শুধু মাংস ৭৮০ টাকা। এখন বিক্রি কম, ব্যবসাও কম। গত দুদিনে যা বিক্রি হয়েছে তাতে খুব বেশি লাভ হয়নি। দুই কারণে মাংস বেশি দামে বিক্রি করছি। এক হচ্ছে-গরু বেশি দামে কিনছি। আরেকটি হচ্ছে-খরচ পোষাতেই বেশি দামে বিক্রি করছি।

মহাখালী বাজারে মাংস কিনতে এসেছেন সালাহ উদ্দিন নামের একজন মধ্যবয়সী পুরুষ। তিনি বলেন, ঈদের দিন বেশকিছু মাংস কিনেছি, আজকে আমার মেয়ের বাড়ি থেকে আত্মীয় স্বজন আসবে তাদের ভালো খাবার দিতে হবে। সে জন্য গরুর মাংস কিনতে এসেছি। কিন্তু আজকে তো মনে হচ্ছে ঈদের দিনের চেয়েও দাম বেশি।

রাজধানীর বাড্ডা এলাকার সাদ্দাম গোস্ত বিতানের দোকানি সাইফুল ইসলাম বলেন, ঈদের দিন দুপুরে মাংস ৭০০ টাকায় বিক্রি করেছি, কিন্তু বিকেলে ৭৫০ টাকাও বিক্রি করেছি। আজকে ৭০০ টাকা কেজিতে বিক্রি করছি, গরুর বটের কেজি ২৫০ টাকা। আর কলিজা ৮০০ টাকা। গরুর পায়া ২০০০ থেকে ২৫০০ টাকা জোড়া। গরুর দাম বেশি হলেও আমাদের লাভ কিন্তু খুবই সীমিত।

মাংসের পাশাপাশি মাছের বাজার ক্রেতাদের উপস্থিতি কম। ঈদের আগের ২৪০-২৬০ টাকা বিক্রি হওয়া রুই মাছ বিক্রি হচ্ছে ৩০০ টাকা কেজিতে। একই দরে বিক্রি হচ্ছে কাতল মাছও। আর ২২০ টাকা কেজি বিক্রিত হওয়া কারফুর মাছ বিক্রি হচ্ছে ২৬০ টাকা কেজিতে। ৪৫০-৫০০ টাকা কেজির টেংরা মাছ বিক্রি হচ্ছে ৬০০ টাকা কেজিতে। ১২০ টাকা কেজির পাঙ্গাশ মাছ বিক্রি হচ্ছে ১৫০ থেকে ১৬০ টাকা কেজিতে। তেলাপিয়া মাস বিক্রি হচ্ছে ১৬০ টাকা থেকে ২০০ টাকা কেজিতে। চিংড়ি বিক্রি হচ্ছে ৬০০ থেকে ৬৪০ টাকা কেজিতে। পাবদা মাছ বিক্রি হচ্ছে ৩০০ টাকা কেজি। চাষের শিং মাছ বিক্রি হচ্ছে ২৫০ থেকে ৩৫০ টাকা কেজিতে। আর দেশি শিং মাছ বিক্রি হচ্ছে ৫০০-৬০০ টাকা কেজিতে। চাষের মাগুর মাছ বিক্রি হচ্ছে ২৬০ টাকা থেকে ৪০০ টাকা কেজিতে। এছাড়াও এক কেজি ওজনের (দুই-তিনটি) ইলিশ মাছ বিক্রি হচ্ছে ১০০০ হাজার টাকায়। 

নিউজ ট্যাগ: ঈদুল ফিতর

আরও খবর



ইইউ’র সদস্য হতে কয়েক দশক সময় লাগবে ইউক্রেনের : ম্যাক্রোঁ

প্রকাশিত:বুধবার ১১ মে ২০২২ | হালনাগাদ:বুধবার ১১ মে ২০২২ | ৩৬৫জন দেখেছেন
দর্পণ নিউজ ডেস্ক

Image

টানা আড়াই মাসেরও বেশি সময় ধরে রাশিয়ার সামরিক অভিযানের মধ্যে রয়েছে ইউক্রেন। আর তাই নিজেদের নিরাপত্তার খাতিরেই অবিলম্বে ইউরোপীয় ইউনিয়নের (ইইউ) সদস্যপদ চায় কিয়েভ। এমনকি ইইউয়ের সদস্যপদের দাবিতে সোচ্চার হয়েছেন ইউক্রেনের প্রেসিডেন্ট ভলোদিমির জেলেনস্কিও। তবে জেলেনস্কি তথা ইউক্রেনের ইইউয়ের সদস্যপদের সেই আশায় আপাতত গুড়েবালি। কারণ ইউক্রেনকে ইউরোপীয় ইউনিয়নের সদস্য করতে কয়েক দশক সময় লাগবে বলে জানিয়েছেন ফ্রান্সের প্রেসিডেন্ট ইমানুয়েল ম্যাক্রোঁ। মঙ্গলবার (১০ মে) এক প্রতিবেদনে এই তথ্য জানিয়েছে ব্রিটিশ সংবাদমাধ্যম বিবিসি।

সোমবার (৯ মে) ফ্রান্সের স্ট্রাসবার্গে ইইউর পার্লামেন্টে এক বক্তৃতায় প্রেসিডেন্ট ম্যাক্রোঁ একথা বলেন। সেখানে ইউরোপীয় ইউনিয়নে যোগ দেওয়ার জন্য সিদ্ধান্তের অপেক্ষায় থাকার পাশাপাশি ইউক্রেনকে তিনি একটি সমান্তরাল ইউরোপীয় সম্প্রদায়ে যোগ দেওয়ার পরামর্শ দেন।

ফ্রান্সের প্রেসিডেন্টের দাবি, এর ফলে ইইউয়ের সদস্য নয় এমন দেশগুলো অন্য উপায়ে ইউরোপের নিরাপত্তা কাঠামোয় যোগদানের অনুমতি পাবে।

গত ২৪ ফেব্রুয়ারি ভোরে ইউক্রেনে হামলা শুরু করে রাশিয়ান সৈন্যরা। দ্বিতীয় বিশ্বযুদ্ধের পর ইউরোপের প্রথম দেশ হিসেবে রাশিয়ার সশস্ত্র বাহিনী স্থল, আকাশ ও সমুদ্রপথে ইউক্রেনে এই হামলা শুরু করে। একসঙ্গে তিন দিক দিয়ে হওয়া এই হামলায় ইউক্রেনের বিভিন্ন শহরে রাশিয়ার ক্ষেপণাস্ত্র পড়েছে বৃষ্টির মতো। মস্কো অবশ্য ইউক্রেনে তাদের এই আগ্রাসনকে বিশেষ সামরিক অভিযান বলে আখ্যায়িত করছে। এছাড়া যুদ্ধের শুরুতে পুরো ইউক্রেনীয় ভূখণ্ড আক্রান্ত হলেও রাশিয়ার সামরিক বাহিনীর মূল মনোযোগ এখন দেশটির পূর্বাঞ্চলীয় ডনবাস এলাকায়।

ইউরোপীয় ইউনিয়নে ইউক্রেনের যোগদান নিয়ে ফ্রান্সের প্রেসিডেন্ট ইমানুয়েল ম্যাক্রোঁ এমন এক সময়ে মন্তব্য করলেন যখন ডনবাস অঞ্চলে কিয়েভ ও মস্কোর সেনাদের মধ্যে প্রচণ্ড লড়াই চলছে। সাম্প্রতিক সপ্তাহগুলোতে এই অঞ্চলে যুদ্ধের তীব্রতা বেড়েছে বহুগুণে। বিবিসি বলছে, চলতি বছরের ফেব্রুয়ারিতে ইউরোপীয় ইউনিয়নে যোগদানের প্রক্রিয়া শুরু করে ইউক্রেন। এর মাত্র চারদিন পরই পূর্ব ইউরোপের এই দেশটিতে সর্বাত্মক সামরিক অভিযান শুরু করে রাশিয়া।

স্ট্রাসবার্গের ইইউর পার্লামেন্টে বক্তৃতা করার সময় শনিবার প্রেসিডেন্ট ম্যাক্রোঁ বলেন, আমরা সকলেই ভালোভাবে জানি যে, ইউরোপীয় ইউনিয়নে (ইউক্রেনের) যোগদানের অনুমতি দেওয়ার প্রক্রিয়াটি বাস্তবিকই বেশ কয়েক বছর, সম্ভবত কয়েক দশক পর্যন্ত সময় লাগবে। যতক্ষণ না আমরা ইইউতে যোগদানের মান বা শর্ত কমানোর এবং আমাদের ইউরোপের ঐক্য পুনর্বিবেচনার সিদ্ধান্ত না নিচ্ছি ততক্ষণ পর্যন্ত এটিই সত্য।

ফরাসি প্রেসিডেন্ট আরও বলেন, ইউক্রেনকে দ্রুত ইইউয়ের সদস্যপদ দিতে গিয়ে এটি (সদস্যপদ) অর্জনের মানদণ্ড স্থগিত করা উচিত নয়। এর পরিবর্তে একটি সমান্তরাল ইউরোপীয় সম্প্রদায়ে যোগ দেওয়ার বিষয়টি বিবেচনায় নেওয়া উচিত। এর আগে রাশিয়ার সামরিক অভিযান শুরুর দিন দুয়েকের মাথায় ইউক্রেনকে অবিলম্বে ইউরোপীয় ইউনিয়নের সদস্যপদ দেওয়ার আহ্বান জানিয়েছিলেন দেশটির প্রেসিডেন্ট ভলোদিমির জেলেনস্কি।

সেসময় তিনি বলেন, আমাদের লক্ষ্য সব ইউরোপিয়ানদের সঙ্গে অবস্থান করা। সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ হচ্ছে সবার সঙ্গে সমতারভিত্তিতে থাকা। আমি নিশ্চিত আমাদের দাবি ন্যায্য এবং এটি সম্ভব।

নিউজ ট্যাগ: ইউক্রেন

আরও খবর



২৪ ঘণ্টায় দেশে আরও ৩০ জনের করোনা শনাক্ত

প্রকাশিত:শুক্রবার ২৯ এপ্রিল ২০২২ | হালনাগাদ:শুক্রবার ২৯ এপ্রিল ২০২২ | ৩১০জন দেখেছেন
দর্পণ নিউজ ডেস্ক

Image

দেশে গত ২৪ ঘণ্টায় করোনাভাইরাসে আক্রান্ত হয়ে কারো মৃত্যু হয়নি। এ নিয়ে টানা ৯ দিন করোনায় মৃত্যুশূন্য দেশ। তবে একই সময়ে নতুন করে করোনা শনাক্ত হয়েছে ৩০ জনের।

শুক্রবার বিকেলে স্বাস্থ্য অধিদপ্তর থেকে পাঠানো করোনা বিষয়ক এক প্রেস বিজ্ঞপ্তিতে এ তথ্য জানানো হয়।

দেশে এ পর্যন্ত করোনায় মোট মারা যাওয়ার সংখ্যা ২৯ হাজার ১২৭ জন অপরিবর্তিত থাকল। এছাড়াও মোট শনাক্ত রোগীর সংখ্যা দাঁড়িয়েছে ১৯ লাখ ৫২ হাজার ৬৭৪ জনে।

বিজ্ঞপ্তিতে বলা হয়, গত একদিনে করোনা থেকে সুস্থ হয়েছেন ৩২৬ জন। এ পর্যন্ত সুস্থ হয়েছেন ১৮ লাখ ৯৫ হাজার ১৪৬ জন। একই সময়ে ৪ হাজার ৭৬২টি নমুনা সংগ্রহ করা হয়। পরীক্ষা করা হয় ৪ হাজার ৭৫৪টি নমুনা। পরীক্ষার বিপরীতে শনাক্তের হার শূন্য দশমিক ৬৩ শতাংশ।


আরও খবর



জাতীয় কবি নজরুলের ১২৩তম জন্মবার্ষিকী আজ

প্রকাশিত:বুধবার ২৫ মে ২০২২ | হালনাগাদ:বুধবার ২৫ মে ২০২২ | ১৫০জন দেখেছেন
দর্পণ নিউজ ডেস্ক

Image

আজ বুধবার (২৫ মে) জাতীয় কবি কাজী নজরুল ইসলামের ১২৩তম জন্মবার্ষিকী। অবিভক্ত বাংলার (বর্তমানে ভারতের পশ্চিমবঙ্গ) বর্ধমান জেলার আসানসোলের জামুরিয়া থানার চুরুলিয়া গ্রামে ১৩০৬ বঙ্গাব্দের ১১ জ্যৈষ্ঠ (১৮৯৯ সালের ২৫ মে) জন্মগ্রহণ করেন তিনি। তার ডাক নাম ছিল দুখু মিয়া। তিনি ছিলেন বাংলা কবিতার একমাত্র বিদ্রোহী ও গানের বুলবুল। তার বাবার নাম কাজী ফকির আহমেদ ও মায়ের নাম জাহেদা খাতুন।

জাতীয় পর্যায়ে কবির জন্মবার্ষিকী উদযাপন উপলক্ষে ব্যাপক কর্মসূচি গ্রহণ করেছে সরকার। কবির জন্মবার্ষিকী উপলক্ষে সংস্কৃতি মন্ত্রণালয় তিন দিনব্যাপী কর্মসূচি গ্রহণ করেছে। এছাড়া কুমিল্লার বীরচন্দ্র গণপাঠাগার ও নগর মিলনায়তন প্রাঙ্গণে (টাউন হল) বেলা ১১টায় উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত থাকবেন তথ্য ও সম্প্রচারমন্ত্রী ড. হাছান মাহমুদ।

দিনটি উপলক্ষে বাংলাদেশ টেলিভিশন, বেতার ছাড়াও বেসরকারি বিভিন্ন টেলিভিশন ও বেতার বিশেষ অনুষ্ঠান প্রচার করবে। কবির জন্মদিনকে সামনে রেখে রাষ্ট্রপতি মো. আবদুল হামিদ এবং প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা পৃথক বাণী দিয়েছেন।

জাতীয় কবি কাজী নজরুল ইসলাম ছিলেন প্রেম, বিরহ-বেদনা ও সাম্যের মানুষ। তিনি ছিলেন বাংলা সাহিত্য-সংগীত তথ্য সংস্কৃতির অন্যতম প্রধান পুরুষ। ব্রিটিশবিরোধী আন্দোলনের সময় কাজী নজরুল ইসলামের লেখনী ধূমকেতুর মতো আঘাত করে জাগিয়ে তুলেছিল ভারতবাসীকে। বিদ্রোহী কবিতে পরিণত হন তিনি।

দুখু মিয়া হিসেবেও পরিচিত এ কবি সাম্রাজ্যবাদ, ফ্যাসিবাদ, নিপীড়ন, অনাচার, বৈষম্য, শোষণ ও পরাধীনতার বিরুদ্ধে অগ্নিকণ্ঠে সোচ্চার হয়ে লিখে গেছেন অসংখ্য গল্প, কবিতা, উপন্যাস ও গান। এছাড়াও তিনি ছিলেন চির প্রেমের কবি। প্রেম নিয়েছিলেন এবং দিয়েছিলেন। তিনি বিদ্রোহী কবি হলেও প্রেমিক রূপ ছিল প্রবাদপ্রতিম। এ কারণেই অনায়াসে এ কবি বলে গেছেন, আমার আপনার চেয়ে আপন যে জন খুঁজি তারে আমি আপনায়। এছাড়াও একাধারে তিনি কবি, গল্পকার, ঔপন্যাসিক, নাট্যকার, শিশু সাহিত্যিক, অনুবাদক, প্রাবন্ধিক, সম্পাদক, সাংবাদিক, গীতিকার, সুরকার, স্বরলিপিকার, গীতিনাট্যকার, গীতালেখ্য রচয়িতা, চলচ্চিত্র কাহিনীকার, চলচ্চিত্র পরিচালক, সঙ্গীত পরিচালক, গায়ক, বাদক, সঙ্গীতজ্ঞ ও অভিনেতা।

জাতীয় কবি কাজী নজরুল ইসলাম লিখে গেছেন ২২টি কাব্যগ্রন্থ, সাড়ে ৩ হাজার, মতান্তরে ৭ হাজার গানসহ ১৪টি সংগীত গ্রন্থ, ৩টি কাব্যানুবাদ ও ৩টি উপন্যাস গ্রন্থ, ৩টি নাটক, ৩টি গল্পগ্রন্থ, ৫টি প্রবন্ধ, ২টি কিশোর নাটিকা, ২টি কিশোর কাব্য, ৭টি চলচ্চিত্র কাহিনীসহ অসংখ্য কালজয়ী রচনা।

১৯৪১ সালের শেষ দিকে অসুস্থ হয়ে পড়েন এ কবি। এক বছরেরও বেশি সময় ধরে চিকিৎসা চলে লুম্বিনী পার্ক ও রাচি মেন্টাল হাসপাতালে। পরে ১৯৫৩ সালে ইংল্যান্ড ও জার্মানিতে পাঠানো হয় তাকে। এই সময়ে একেবারেই বাকশক্তি হারিয়ে ফেলেন তিনি। ফলে ১৯৫৩ থেকে ১৯৭২ সাল পর্যন্ত অসুস্থ অবস্থায় নীরবে-নিভৃতেই কাটে তার জীবন।

১৯৭২ সালের ২৪ মে জন্মদিনে ঢাকায় এনে তাকে জাতীয় কবির মর্যাদায় ভূষিত করেন স্বাধীন বাংলাদেশের স্থপতি বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান। কবির চল্ চল্ চল্- ঊর্ধ্ব গগনে বাজে মাদলকে সামরিক সংগীত হিসেবে নির্বাচিত করে সম্মানিতও করেন।

১৯৭৬ সালের ২৯ আগস্ট তৎকালীন পিজি (বর্তমানে বিএসএমএমইউ) হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় মৃত্যু হয় তার। মৃত্যুর পর ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের কেন্দ্রীয় মসজিদের পাশে রাষ্ট্রীয় মর্যাদায় সমাহিত করা হয় এ কবিকে। সেখানেই চিরনিদ্রায় শায়িত আছেন জাতীয় কবি কাজী নজরুল ইসলাম।


আরও খবর



সিরিয়ায় ইসরাইলি মিসাইল হামলায় নিহত ৯

প্রকাশিত:বুধবার ২৭ এপ্রিল ২০২২ | হালনাগাদ:বুধবার ২৭ এপ্রিল ২০২২ | ৩৫৫জন দেখেছেন
দর্পণ নিউজ ডেস্ক

Image

সিরিয়ার রাজধানী দামেস্কের কাছে বুধবার ইসরাইলের ছোড়া মিসাইলে নয়জন যোদ্ধা নিহত হয়েছেন। নিহতদের মধ্যে পাঁচজন সিরীয় সৈন্যও রয়েছেন। বার্তা সংস্থা এএফপি এক প্রতিবেদনে এ তথ্য জানিয়েছে।

২০২২ সালের শুরুর পর থেকে এই প্রথম দেশটিতে এ রকম রক্তক্ষয়ী অভিযান চালানো হয়েছে একটি যুদ্ধ পর্যবেক্ষক সংস্থা সিরিয়ান অবজারভেটরি ফর হিউম্যান রাইটস জানিয়েছে।

সিরিয়ায় ইরানের সামরিক বাহিনীর সঙ্গে সংশ্লিষ্ট একটি গোলাবারুদের গুদাম এবং বেশ কয়েকটি স্থাপনা হামলার লক্ষ্যবস্তু ছিল বলে সংস্থাটি জানিয়েছে।

স্থানীয় সময় বুধবার ভোরের দিকে ইসরাইলি শত্রুরা বিমান হামলা চালিয়েছে দামেস্কের আশপাশের কয়েকটি অবস্থান লক্ষ্য করা হয়েছে বলে সামরিক সূত্রের বরাত দিয়ে দেশটির সরকারি সংবাদ সংস্থা সানার প্রতিবেদনে বলা হয়েছে।

সিরিয়ার সরকার হামলায় নিহতের বিষয়টি নিশ্চিত করেছে। তবে এই বিষয়ে ইসরাইলের তরফ থেকে কোনো মন্তব্য পাওয়া যায়নি।


আরও খবর