আজঃ সোমবার ২৬ ফেব্রুয়ারী ২০২৪
শিরোনাম

জুমাবারের আমল

প্রকাশিত:শুক্রবার ০১ ডিসেম্বর ২০২৩ | হালনাগাদ:শুক্রবার ০১ ডিসেম্বর ২০২৩ | অনলাইন সংস্করণ
দর্পণ নিউজ ডেস্ক

Image

ইসলামে জুমার দিনকে সপ্তাহের সেরা দিন হিসাবে ঘোষণা করা হয়েছে। রাসূল (সা.) বলেন, দিবসগুলোর মধ্যে শ্রেষ্ঠ হলো জুমার দিন এবং তা আল্লাহর কাছে অধিক সম্মানিত (ইবনে মাজাহ : ১০৮৪)। এ দিনে যেসব আমলের কথা কুরআন-হাদিসে পাওয়া যায় তা তুলে ধরা হলো-

আগেভাগে মসজিদে যাওয়া

আল্লাহ বলেন, হে মুমিনগণ! জুমার দিনে যখন নামাজের আজান দেওয়া হয়, তখন তোমরা আল্লাহর স্মরণে দ্রুত ছুটে যাও এবং বেচাকেনা বন্ধ করো। এটা তোমাদের জন্য কল্যাণকর যদি তোমরা উপলব্ধি করতে পার (সূরা জুমুআ, আয়াত : ০৯)।

সতেরোটি নির্দেশনা

গোসল করা, (বুখারি :)। মিসওয়াক করা, (ইবনে মাজাহ : ১০৯৮)। উত্তম পোশাক পরিধান করা, (ইবনে মাজাহ : ১০৯৭,)। সুগন্ধি ব্যবহার করা, (বুখারি : ৮৮০)। মসজিদে প্রবেশের পর অন্য মুসল্লিদের ফাঁক করে বা গায়ের ওপর দিয়ে টপকে সামনের দিকে না যাওয়া, (বুখারি : ৯১০)। কাউকে উঠিয়ে দিয়ে সেখানে বসার চেষ্টা না করা, (বুখারি : ৯১১)। সালাতের জন্য কোনো একটা জায়গাকে নির্দিষ্ট করে না রাখা, যেখানে যখন জায়গা পাওয়া যাবে, সেখানেই সালাত আদায় করা, (আবু দাউদ : ৮৬২)। নির্ধারিত নামাজ আদায় করা। এমনকি ফরজ সালাতের আগে ও পরে দুই-চার রাকাত করে নফল সালাত আদায় করা, (বুখারি : ৯৩০)। গায়ে তেল ব্যবহার করা, (বুখারি : ৮৮৩)। হেঁটে মসজিদে গমন করা, (মুসলিম : ১৪০০)। মসজিদে যাওয়ার আগে কাঁচা পেঁয়াজ, রসুন না খাওয়া ও ধূমপান না করা, (বুখারি : ৮৫৩)। ঘুমের ভাব বা তন্দ্রাচ্ছন্ন হলে বসার জায়গা পরিবর্তন করে বসা, (আবু দাউদ : ১১১৯)। ইমামের খুতবা দেওয়া অবস্থায় দুই হাঁটু উঠিয়ে না বসা, (আবু দাউদ : ১১১০, ইবনে মাজাহ : ১১৩৪)। খুতবার সময় ইমামের কাছাকাছি বসা, (আবু দাউদ : ১১০৮)। এতটুকু জোরে আওয়াজ করে কোনো কিছু না পড়া বা তেলাওয়াত না করা, যাতে অন্যের সালাত ক্ষতিগ্রস্ত হয় বা মনোযোগে বিঘ্ন ঘটে (আবু দাউদ : ১৩৩২)। ইমামের খুতবার জন্য বের হওয়া থেকে সালাত শেষ করা পর্যন্ত নীরবতা অবলম্বন করা। তবে কেউ কথা বলতে দেখলে তাকে চুপ করতে বা বারণ করতেও হাদিসে নিষেধাজ্ঞা রয়েছে (আবু দাউদ : ১১১২) বেশি বেশি প্রার্থনা (দুআ) করা, (বুখারি : ৯৩৫)। ওই কাজগুলোর যথাযথ পালনের মাধ্যমে একজন ব্যক্তির জন্য এ জুমা ও তার পূর্ববর্তী জুমার মধ্যবর্তী যাবতীয় গুনাহের কাফফারা হয়ে যাবে। (আবু দাউদ, হাদিস : ৩৪৩)।

দরুদ পড়া

জুমার দিন বেশি বেশি দরুদ পাঠ করার ব্যাপারে রাসূল (সা.)-এর নির্দেশনা রয়েছে। তোমরা জুমার দিনে আমার ওপর বেশি বেশি দরুদ পাঠ করো, কেননা তোমাদের পাঠকৃত দরুদ আমার সামনে পেশ করা হয় (আবু দাউদ : ১০৪৭)। এছাড়া, মহান রব স্বয়ং রাসূল (সা.)-এর প্রতি দরুদ পাঠের তাগিদ দিয়েছেন। যেমন তিনি বলেছেন-আল্লাহ ও তাঁর ফেরেশতাগণ নবির প্রতি দরুদ পাঠান। হে ঈমানদারগণ! তোমরাও তাঁর প্রতি দরুদ ও সালাম পাঠাও (সূরা আহযাব, আয়াত : ৫৬)।

সূরা কাহাফ তেলাওয়াত করা

রাসূল (সা.) বলেছেন-যে ব্যক্তি জুমার দিন সূরা আল কাহাফ পড়বে, তার (ইমানের) নূর এ জুমা থেকে আগামী জুমা পর্যন্ত চমকাতে থাকবে (সুনানুল কুবরা লিল বায়হাক্বী : ৫৯৯৬)।

এ ব্যাপারে হাদিসে চমৎকার এক ঘটনা পাওয়া যায়। একদা এক লোক সূরা কাহাফ পাঠ করছিল। তার পাশেই দুটি রশি দিয়ে একটি ঘোড়া বাঁধা ছিল। ইতোমধ্যে লোকটিকে একটি মেঘে ঢেকে নিল। মেঘটি লোকটির নিকটবর্তী হতে থাকলে ঘোড়াটি তা দেখে চমকাতে আরম্ভ করল। অতঃপর যখন সকাল হলো, তখন লোকটি রাসূল (সা.)-এর দরবারে হাজির হয়ে উক্ত ঘটনা বর্ণনা করল। তা (শুনে) তিনি বললেন, ওটি প্রশান্তি ছিল, যা তোমার কুরআন পড়ার দরুন অবতীর্ণ হয়েছে (বুখারি : ৫০১১)।

বেশি বেশি ইস্তেগফার করা

এ দিন বেশি বেশি ক্ষমা প্রার্থনা করা এবং দোয়া করা উচিত। হাদিসে এসেছে-জুমার দিনে একটা এমন সময় আছে, যে সময় কোনো মুমিন বান্দা আল্লাহর কাছে ভালো কোনো কিছু প্রার্থনা করলে, অবশ্যই আল্লাহ তাকে তা দান করবেন। (বুখারি : ৯৫৩)।

নিউজ ট্যাগ: জুমাবারের আমল

আরও খবর
শবে বরাত সম্পর্কে হাদিসে যা বলা হয়েছে

রবিবার ২৫ ফেব্রুয়ারী ২০২৪




সর্বোচ্চ বেতন পেতে যে আট দক্ষতার দরকার

প্রকাশিত:বুধবার ০৭ ফেব্রুয়ারী ২০২৪ | হালনাগাদ:বুধবার ০৭ ফেব্রুয়ারী ২০২৪ | অনলাইন সংস্করণ
জীবন ধারা ডেস্ক

Image

কর্মজীবনকে সামনের দিকে এগিয়ে নেওয়ার সঙ্গে সঙ্গে আয় বাড়ানোর দিকেও নজর দিতে হবে। কিন্তু চলতি বছর আয় বাড়ানোর চিন্তা করতে হলে নতুন নতুন দক্ষতা অর্জন করতে হবে। কারণ, চাকরির বাজার ও শিল্প নিয়মিত পরিবর্তিত হচ্ছে এবং গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পূরণের জন্য নতুন নতুন কাজের সৃষ্টি হচ্ছে। এ জন্য দরকার নতুন দক্ষতা অর্জন করা।

২০২৪ সালে প্রতিযোগিতামূলক অগ্রগতির জন্য অন্তত আটটি দক্ষতা অর্জন করতে হবে। মার্কিন সাময়িকী ফোর্বস’–এর এক প্রতিবেদনে এ তথ্য জানানো হয়েছে। বলা হয়েছে, অন্তত আটটি দক্ষতা অর্জন করতে পারলে এই বছর সর্বোচ্চ বেতন ও নিরাপদ পদোন্নতির সম্ভাবনা অনেক।

১. ডেটা অ্যানালাইসিস : তথ্য বিশ্লেষণের দক্ষতা নেতৃত্বের ভূমিকাসহ বিভিন্ন পরিস্থিতিতে কর্মজীবনে কাজে আসে। চলতি বছর আপনি তথ্য বিশ্লেষণের দক্ষতা বাড়িয়ে ডেটা বিশ্লেষক হতে পারেন। এই দক্ষতা মূল সিদ্ধান্ত গ্রহণকারী হতে সহায়তা করে।

২. প্রজেক্ট ম্যানেজমেন্ট : বিশ্বব্যাপী একাধিক শিল্পের চাহিদাসম্পন্ন আরেকটি দক্ষতা হলো প্রজেক্ট ম্যানেজমেন্ট। প্রকল্প পরিচালকদের চাহিদা ২০৩২ সাল পর্যন্ত আগামী আট বছরের জন্য ৬ শতাংশ বাড়ছে। এর মধ্যে পুঙ্খানুপুঙ্খ সাংগঠনিক ও পদ্ধতিগত দক্ষতা, ঝুঁকি ব্যবস্থাপনা, সম্পর্কনির্মাণ দক্ষতা ও শক্তিশালী দল ব্যবস্থাপনা, সহযোগিতা এবং যোগাযোগের দক্ষতা অন্তর্ভুক্ত।

৩. ইউএক্স বা ইউআই : প্রযুক্তির এই যুগে প্রযুক্তি ব্যবহারকারীর অভিজ্ঞতা, মোবাইল ও ওয়েব অ্যাপস এবং এসব পণ্যের ব্যবহারকারী ইন্টারফেস ডিজাইন করা বর্তমান সময়ে অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ। এই কাজের জন্য ইউএক্স বা ইউআইয়ের দক্ষতা বাড়াতে হবে। স্ট্যাটিস্টার তথ্য অনুসারে, ২০২৩ সালের অক্টোবর প্রায় ৫ দশমিক ৩ বিলিয়ন মানুষ ইন্টারনেট ব্যবহার করেছেন। তাই এই দক্ষতা অর্জন করলে গ্রাহক, সরকারিবেসরকারি খাতের প্রতিষ্ঠান, শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানসহ নানা খাতে উচ্চ বেতনের সম্ভাবনা বাড়বে।

৪. ডিজিটাল মার্কেটিং : ডিজিটাল মার্কেটিংও ইউএক্স বা ইউআই দক্ষতার মতোই। এই দক্ষতা অনলাইন অভিজ্ঞতার ওপর ফোকাস করে এবং সম্ভাব্য গ্রাহকদের মনোযোগ আকর্ষণ করে, যাতে তাঁরা পণ্য বা পরিষেবার সঙ্গে জড়িত থাকেন। যদি ভিডিও সম্পাদনা, গ্রাফিক ডিজাইন, সোশ্যাল মিডিয়া, প্রভাবশালী বিপণন পছন্দ করেন বা ব্লগের জন্য কনটেন্ট লেখার অভিজ্ঞতা থাকে, তাহলে বুঝতে হবে আপনার ডিজিটাল বিপণন দক্ষতা রয়েছে। ডিজিটাল মার্কেটিং কোর্স করে নিজের দক্ষতা আরও বাড়িয়ে তুলতে হবে।

৫. এআই (আর্টিফিশিয়াল ইন্টেলিজেন্স) : বর্তমান সময়ে কৃত্রিম বুদ্ধিমত্তা বা এআই বিষয়ে দক্ষতা ছাড়া কর্মক্ষেত্রে উন্নতি করা কষ্টসাধ্য হবে। কৃত্রিম বুদ্ধিমত্তা একটি শক্তিশালী প্রযুক্তি, যা প্রায় সারা বিশ্বের প্রতিটি শিল্প বা সংস্থায় সংযোজন করা হচ্ছে। ম্যাককিনসে অ্যান্ড কোম্পানির প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, এই খাতে ২ দশমিক ৬ ট্রিলিয়ন থেকে ৪ দশমিক ৬ ট্রিলিয়ন মার্কিন ডলার পর্যন্ত পূর্বাভাস করা অর্থনৈতিক উন্নতিসহ অনেক সম্ভাবনা রয়েছে।

এআই দক্ষতা শেখার অর্থ এই নয় যে মেশিন লার্নিং ইঞ্জিনিয়ার বা এআই বিজ্ঞানী হওয়ার জন্য বছরের পর বছর পড়াশোনা করতে হবে; বরং নির্দিষ্ট কাজের প্রেক্ষাপটে নিজেকে এবং এআইয়ের আধুনিক ব্যবহারগুলো জেনে রাখতে হবে। এতে নিজের কাজের গুণমান ও আউটপুট বাড়বে এবং কাজের সময় কমবে। এই দক্ষতা ব্যবসায়িকভাবে সফল করতে পারে এবং ক্যারিয়ারের লক্ষ্য অর্জনে সহায়তা করতে পারে।

৬. নেতৃত্ব : নেতৃত্বের দক্ষতা একটি বিস্তৃত বিষয়, যা অন্যান্য দক্ষতার সঙ্গে বিশ্লেষণাত্মক চিন্তা, কৌতূহল, আজীবন শিক্ষা, পিপল ম্যানেজমেন্ট, স্থিতিস্থাপকতা, প্রেরণা ও আত্মসচেতনতার মতো বিভিন্ন দক্ষতাকে অন্তর্ভুক্ত করে। এসব দক্ষতাকে গত বছর ওয়ার্ল্ড ইকোনমিক ফোরামের চাকরির ভবিষ্যৎ প্রতিবেদনে উচ্চ স্থান দেওয়া হয়েছে। এই দক্ষতাগুলোকে উত্থানশীল দক্ষতা হিসেবে তালিকাভুক্ত করা হয়েছে। এ কারণে চলতি বছর এসব দক্ষতার ওপর বেশ গুরুত্ব দেওয়া হচ্ছে। তাই এ বিষয়ে দক্ষতা অর্জন করলে কর্মজীবনকে সামনের দিকে এগিয়ে নেওয়ার পাশাপাশি আয় বাড়ারও অনেক সম্ভাবনা আছে।

৭. ওয়েব ডেভেলপমেন্ট : অন্যান্য অনলাইন দক্ষতার পাশাপাশি নিয়োগকর্তাদের ওয়েব ডেভেলপমেন্টের দক্ষতাও প্রয়োজন। ইউএস ব্যুরো অব লেবার স্ট্যাটিস্টিকস আগামী কয়েক বছরে এই কাজের চাহিদা ১৬ শতাংশ বাড়ানোর প্রকল্প হাতে নিয়েছে। অনলাইন কোর্স, বুটক্যাম্প ও কম্পিউটার সায়েন্সে ডিগ্রি নেওয়ার মাধ্যমে ওয়েব ডেভেলপমেন্টের দক্ষতা অর্জন করা সম্ভব।

৮. সেলস : আপনার যদি দৃঢ় আন্তব্যক্তিক, সম্পর্ক-নির্মাণের দক্ষতা ও বহির্গামী ব্যক্তিত্ব থাকে, তাহলে সেলস ক্যারিয়ারের জন্য দক্ষতা অর্জন করা আপনার জন্য সহজ হবে। এই দক্ষতা বিকাশের মাধ্যমে আয় বাড়ার সম্ভাবনা সীমাহীন। কারণ, এই পেশাদাররা কেবল কমিশনই অর্জন করেন না, এ ক্ষেত্রে নেতৃত্ব ও বিভাগের পরিচালনার মাধ্যমে উচ্চ বেতনের পদের দিকে এগিয়ে যান।

অনেক অনলাইন প্ল্যাটফর্ম এ ক্ষেত্রে দক্ষতা অর্জনের কোর্স করায়। এসব কোর্স করে নিজের দক্ষতাকে আরও তীক্ষ্ণ করে তুলতে পারেন।

নিউজ ট্যাগ: কর্মজীবন

আরও খবর
নারীর জন্য প্রয়োজনীয় পাঁচ ভিটামিন

রবিবার ২৫ ফেব্রুয়ারী ২০২৪

২৩ ফেব্রুয়ারি : ইতিহাসে আজকের এই দিনে

শুক্রবার ২৩ ফেব্রুয়ারী ২০২৪




মোংলা বন্দরের ইনার বারে ড্রেজিং প্রকল্পের কাজ পুনরায় চালু

প্রকাশিত:মঙ্গলবার ০৬ ফেব্রুয়ারী ২০২৪ | হালনাগাদ:মঙ্গলবার ০৬ ফেব্রুয়ারী ২০২৪ | অনলাইন সংস্করণ
আবু বকর সিদ্দিক, মোংলা প্রতিনিধি

Image

মোংলা বন্দর চ্যানেলের ইনার বারে ড্রেজিং প্রকল্প দীর্ঘদিন বন্ধ থাকার পর চারটি কাটার সাকশন ড্রেজারের মাধ্যমে মোংলা বন্দর চ্যানেলের ইনার বারে ড্রেজিং প্রকল্পের কাজ বন্দরের বেসক্রিক এলাকার সেকশন-২ এবং সেকশন৪ এর মাধ্যমে পুনরায় শুরু হয়েছে।

মঙ্গলবার ৬ ফেব্রুয়ারি সকাল ১১ টায় মোংলা বন্দর কর্তৃপক্ষের এক সংবাদ বিজ্ঞপ্তির মাধ্যমে এসব তথ্য জানা যায়।

সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে আরো বলা হয়, প্রকল্পের কাজ ২০২১ সালে শুরু হয়ে প্রায় ৩৫ শতাংশ কাজ সমাপ্ত হওয়ার পর ২০২২ সালে ড্রেজিং মাটি ফেলার জমি সংকটের কারণে ড্রেজিং কার্যক্রম সাময়িকভাবে বন্ধ হয়ে যায়। উক্ত সময়ে সম্পন্নকৃত ড্রেজিং এর ফলে মোংলা বন্দরে ৮.৫ মিটার ড্রাফটের জাহাজ আনা সম্ভব হয়। কিন্তু প্রায় এক বছর যাবৎ ড্রেজিং বন্ধ থাকায় চ্যানেলের কিছু স্থানে পলি জমার কারণে নিয়মিতভাবে ৮.৫ মিটার ড্রাফটের জাহাজ এ বন্দরে আসতে পারছিল না। এখন ড্রেজিং মাটি ফেলার জমির ব্যবস্থা হওয়ায় পুরনায় ড্রেজিং কাজ শুরু হয়েছে।

মোংলা বন্দর কর্তৃপক্ষের চেয়ারম্যান রিয়ার এডমিরাল শাহীন রহমান বলেন, মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর প্রতিশ্রুতি বাস্তবায়নে মোংলা বন্দর কর্তৃপক্ষ সর্বদা সচেষ্ট রয়েছে। ইনারবারে চলমান ড্রেজিং প্রকল্পটি সমাপ্ত হলে ৯.৫ থেকে ১০ মিটার ড্রাফটের জাহাজ অনায়াসে মোংলা বন্দরে আসতে পারবে।

অধিক ড্রাফটের জাহাজ বন্দরে আগমনের ফলে মোংলা বন্দরের আয় বৃদ্ধির পাশিপাশি সরকারি রাজস্ব আয়ও বৃদ্ধি পাবে।


আরও খবর
ঝিনাইদহ জেলা কারাগারে কয়েদির মৃত্যু

সোমবার ২৬ ফেব্রুয়ারী ২০২৪




বশেফমুবিপ্রবিতে অংশীজন সভা অনুষ্ঠিত

প্রকাশিত:বৃহস্পতিবার ২২ ফেব্রুয়ারী ২০২৪ | হালনাগাদ:বৃহস্পতিবার ২২ ফেব্রুয়ারী ২০২৪ | অনলাইন সংস্করণ
জামালপুর প্রতিনিধি

Image

বঙ্গমাতা শেখ ফজিলাতুন্নেছা মুজিব বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ে (বশেফমুবিপ্রবি) জাতীয় শুদ্ধাচার কৌশল কর্মপরিকল্পনা অনুযায়ী সুশাসন প্রতিষ্ঠার নিমিত্তে অংশীজন সভা অনুষ্ঠিত হয়েছে।

বৃহস্পতিবার (২২ ফেব্রুয়ারি) দুপুরে উপাচার্যের সভাকক্ষে ২০২৩-২৪ অর্থবছরের বার্ষিক কর্মসম্পাদন চুক্তির (এপিএ) কর্মপরিকল্পনা বাস্তবায়নের অংশ হিসেবে শুদ্ধাচার ও নৈতিকতা কমিটির উদ্যোগে এ সভা হয়।

সভায় প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য অধ্যাপক ড. মো. কামরুল আলম খান ।

এপিএ ফোকাল পয়েন্ট সহকারী রেজিস্ট্রার মো. আনিসুজ্জামানের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠানে উপস্থিত ছিলেন রেজিস্ট্রার সৈয়দ ফারুক হোসেন, প্রক্টর (ভারপ্রাপ্ত) এস.এম. ইউসুফ আলী, ফিশারিজ বিভাগের প্রভাষক রুনা আক্তার জ্যোতি, অফিসার্স অ্যাসোসিয়েশনের সহ-সভাপতি এসএম মোদাব্বির হোসেন, সাধারণ সম্পাদক মো. সাব্বির হোসেন, কর্মচারী পরিষদের সভাপতি মো. আব্দুল মান্নান, সাধারণ সম্পাদক মো. মনিরুজ্জামান, সাংবাদিক প্রতিনিধি মো. আল ফাহাদ ও মিরাজুল ইসলাম, অভিভাবক প্রতিনিধি মো. নুরুল আমিন, শান্তা, লায়লা জান্নাত নাহিন, ছাত্র প্রতিনিধি কাওচার আহমেদ স্বাধীন, তাইফুল ইসলাম পলাশ প্রমুখ ।

অংশীজন সভায় বিশ্ববিদ্যালয়ের বিভিন্ন বিভাগ/দপ্তরের সেবার মান উন্নয়নকল্পে আলোচনা হয়।


আরও খবর
ঝিনাইদহ জেলা কারাগারে কয়েদির মৃত্যু

সোমবার ২৬ ফেব্রুয়ারী ২০২৪




টানা ব্যর্থতায় বার্সার দায়িত্ব ছাড়ছেন জাভি

প্রকাশিত:রবিবার ২৮ জানুয়ারী ২০২৪ | হালনাগাদ:রবিবার ২৮ জানুয়ারী ২০২৪ | অনলাইন সংস্করণ
ক্রীড়া প্রতিবেদক

Image

লজ্জার হার! ভিয়ারিয়ালের সাথে ৮ গোলের ম্যাচে বার্সা হজম করেছে ৫ গোল। বার্সার ৩ গোলের মধ্যে একটি আবার উপহার দিয়েছে ভিয়ারিয়াল!

শনিবার (২৭ জানুয়ারি) রাতে ৫-৩ ব্যবধানে শিষ্যদের হারের পর জাভি হার্নান্দেজ কাতালান কোচের দায়িত্ব ছাড়ার ঘোষণা দিয়েছেন। চলতি মৌসুম শেষ হলেই বার্সেলোনা ছাড়বেন জাভি। ভিয়ারিয়ালের বিপক্ষের ম্যাচ দিয়ে সর্বশেষ পাঁচ লড়াইয়ে তৃতীয় পরাজয় দেখল গতবারের লা লিগা চ্যাম্পিয়নরা।

খেলায় নির্ধারিত সময়ে ৩-৩ ব্যবধানে সমতা থাকলেও, যোগ করা সময়ে আরও দুই গোল খেয়ে বার্সা নিজেদের টানা দ্বিতীয় হার নিশ্চিত করে। ফলে টেবিল টপার রিয়াল মাদ্রিদের চেয়ে তাদের পয়েন্ট ব্যবধান বাড়ল ১০এ। ৪৪ পয়েন্ট নিয়ে বার্সা তিনে রয়েছে। ৫৪ পয়েন্ট নিয়ে শীর্ষে আছে রিয়াল মাদ্রিদ। তাদের চেয়ে ২ পয়েন্ট কম নিয়ে দুইয়ে চলতি মৌসুমের বড় চমক জিরোনা।

শিরোপা থেকে দূরত্ব আরও বেড়ে যাওয়ার পরই চূড়ান্ত সিদ্ধান্ত জানিয়ে দিলেন বার্সেলোনার কোচ জাভি, আগামি ৩০ জুনের পর আমি আর বার্সেলোনার কোচ থাকছি না। ক্লাবের ভালোর জন্য এই সিদ্ধান্ত। কেউ আমাকে বলেছিল, বার্সার স্যার অ্যালেক্স ফার্গুসন হতে। এটা অসম্ভব। বার্সায় এটা কখনো হবে না। আমরা এমন জায়গায় আছি, যেখান থেকে ফেরা সম্ভব নয়। আমি মনে করি এটাই ক্লাব ছাড়ার সময়, যা নিয়ে আজ বোর্ডের সঙ্গেও কথা বলেছি।

যদিও হুট করেই এই সিদ্ধান্ত নেননি জাভি। ক্লাবের জন্য সমস্যার কারণ হতে চান না তিনি, একদিন আগে আমি এই সিদ্ধান্ত নিয়েছি। এখন সেটা প্রকাশ্যে জানানোর সময়। আমি মনে করি খেলোয়াড়দেরও নিজেদের খুব মুক্ত ভাবতে দেওয়া উচিৎ। আমি ক্লাবের সমস্যার কারণ হতে চাই না। এই মুহূর্তে তাই আমার একটাই চিন্তা ক্লাব ছেড়ে দেওয়াই সবচেয়ে ভালো সমাধান হতে পারে। জুনে আমি দায়িত্ব ছাড়ছি।


আরও খবর



পারমাণবিক বোমারু বিমানে চড়ে পশ্চিমাদের ‘প্রচ্ছন্ন হুমকি’ দিলেন পুতিন

প্রকাশিত:শুক্রবার ২৩ ফেব্রুয়ারী ২০২৪ | হালনাগাদ:শুক্রবার ২৩ ফেব্রুয়ারী ২০২৪ | অনলাইন সংস্করণ
আন্তর্জাতিক ডেস্ক

Image

আবারও পারমাণবিক সক্ষমতার জানান দিলেন রুশ প্রেসিডেন্ট ভ্লাদিমির পুতিন। পারমাণবিক ওয়ারহেড বহনে সক্ষম একটি সুপারসনিক সামরিক বিমানে পরীক্ষামূলক যাত্রা করেছেন তিনি। তার এই পদক্ষেপ যুক্তরাষ্ট্রসহ পশ্চিমা বিশ্বকে রাশিয়ার পারমাণবিক সক্ষমতা সম্পর্কে স্মরণ করিয়ে দেয়া কি না, তা নিয়ে ইতোমধ্যেই জল্পনা দেখা দিয়েছে।

দেশটির রাষ্ট্রীয় গণমাধ্যমের বরাত দিয়ে শুক্রবার (২৩ ফেব্রুয়ারি) ব্রিটিশ বার্তা সংস্থা রয়টার্স এক প্রতিবেদনে এ তথ্য জানিয়েছে।

মস্কো ইউক্রেনের বিরুদ্ধে সামরিক হামলার দ্বিতীয় বার্ষিকী উদযাপনের মাত্র দুদিন আগে অর্থাৎ বৃহস্পতিবার (২২ ফেব্রুয়ারি) এ শক্তি প্রদর্শন করলো রাশিয়া। এ ধরনের যুদ্ধবিমান তৈরির মধ্যদিয়ে রাশিয়া যুদ্ধক্ষেত্রে আরও গতি অর্জনের চেষ্টা করছে।

রাষ্ট্রীয় টেলিভিশনে বলা হয়, সুপারসনিক এ বোমারু বিমানটিকে রাশিয়ার মধ্যাঞ্চলীয় কাজানে অবস্থিত বিমান প্রস্তুতকারক একটি কোম্পানির রানওয়ে থেকে উড্ডয়ন করে কিছুক্ষণের মধ্যে ফিরে আসতে দেখা যায়।

এ বিমান থেকে নেমে আসার পর রাষ্ট্রীয় সংবাদমাধ্যমের সাংবাদিকদের পুতিন বলেন, এটি সত্যিই একটি নতুন যন্ত্র। এটি বিভিন্ন দিক থেকে একেবারেই নতুন একটি বিমান। এটি পরিচালনা করাও অনেক সহজ। এমনকি আপনি একেবারে খালি ও অপ্রশিক্ষিত চোখ দিয়েও দেখতে পারেন।

এ বোমারু বিমানের কাছে কর্মকর্তাদেরকে পুতিনের শুভেচ্ছা জানানোর ভিডিও ফুটেজ রাষ্ট্রীয় টেলিভিশনে বারবার প্রচার করা হয়। ভিডিও ফুটেজে ৭১ বছর বয়সী রাশিয়ার এ নেতাকে বিমানটি থেকে সিঁড়ি বেয়ে নিচে নেমে আসতে দেখা যায়।

রাষ্ট্রীয় বার্তা সংস্থার খবরে বলা হয়, পুতিন বিমানটিতে ৩০ মিনিট সময় কাটিয়েছেন। এটি সোভিয়েত পরিকল্পিত একটি কৌশলগত বোমারু বিমান যা রাশিয়ার পারমাণবিক অস্ত্রাগারের অংশ।

ক্রেমলিনের মুখপাত্র দিমিত্র পেসকভ বলেছেন, সামরিক গোপন পথে বিমানটিতে প্রায় ৩০ মিনিট ভ্রমণ করেছেন পুতিন। টিইউ-১৬০ এম বিমানে চারজন ক্রু রয়েছে। এটি ১২টি ক্রুজ ক্ষেপণাস্ত্র বা ১২টি স্বল্পপাল্লার পারমাণবিক ক্ষেপণাস্ত্র বহন করতে সক্ষম। এছাড়া বিমানটি জ্বালানিবিহীন প্রায় ১২ হাজার কিলোমিটার একটানা উড্ডয়ন করতে পারে।

২০১৮ সালে স্বাক্ষরিত এক চুক্তির অধীনে, রাশিয়ার বিমান বাহিনীকে ২০২৭ সাল নাগাদ ১০টি টিইউ-১৬০ পারমাণবিক বিমান সরবরাহ করা হবে। আর এতে খরচ হবে অন্তত ১৫ বিলিয়ন রুবল।


আরও খবর