আজঃ শনিবার ২১ মে ২০২২
শিরোনাম

জনপদের সংবাদ | ফেনীতে বিশ্ব এইডস দিবস উপলক্ষে র‌্যালি ও আলোচনা সভা অনুষ্ঠিত

প্রকাশিত:মঙ্গলবার ০১ ডিসেম্বর ২০২০ | হালনাগাদ:মঙ্গলবার ১৬ ফেব্রুয়ারী ২০২১ | ৩৩৮৫জন দেখেছেন
দর্পণ নিউজ ডেস্ক

জনপদের সংবাদ


আরও খবর



বাজেট: বাড়তে পারে গ্যাস, বিদ্যুৎ, পানি ও জ্বালানির দাম

প্রকাশিত:রবিবার ২৪ এপ্রিল ২০২২ | হালনাগাদ:রবিবার ২৪ এপ্রিল ২০২২ | ৪৪৫জন দেখেছেন
দর্পণ নিউজ ডেস্ক

Image

করোনা মহামারির ভয়াবহতা কেটে যাওয়ার সঙ্গে নতুন এক পরিস্থিতির সৃষ্টি হয়েছে বিশ্বব্যাপী। তা হলো জ্বালানির মূল্য বৃদ্ধির ফলে প্রায় সব ক্ষেত্রে ব্যয় বেড়েছে। অথচ বিশ্বব্যাপী সংকুচিত হয়ে এসেছে কর্মবাজার। এতে মানুষের আয় কমার সঙ্গে কমেছে উৎপাদনও। কিন্তু চাহিদা কমেনি মোটেও। তবে বিলাসী পণ্যের চাহিদায় কিছুটা ছেদ পড়েছে। বাংলাদেশের প্রেক্ষাপটে মূল্যস্ফীতির চাপ বেড়েছে। বাড়ছে অনবরত। সাধারণ ও খাদ্য উভয় খাতের মূল্যস্ফীতি চোখ রাঙাচ্ছে। ধারাবাহিকভাবে চাপ বাড়ছে মূল্যস্ফীতির। যার ফলে বাজেটে ভর্তুকি বাড়ছে।

ভর্তুকির চাপ কমাতে গ্যাস, বিদ্যুৎ, জ্বালানিসহ নানা পরিষেবার দাম নতুন করে আরেক দফা বাড়ানোর কথা ভাবছে সরকার। বাজেটের খসড়া রূপরেখা অনুযায়ী আসছে অর্থবছরের বাজেটে ভর্তুকি, প্রণোদনা ও নগদ ঋণে সরকারের ব্যয় বাড়বে অন্তত ১ লাখ ৭৭ হাজার ১৪৫ কোটি টাকা। চলতি বছর এসব খাতের জন্য বরাদ্দ রয়েছে ১ লাখ ৪৯ হাজার ২৩৫ কোটি টাকা। সে হিসাবে এ খাতের জন্য বরাদ্দ বাড়বে অন্তত ২৮ হাজার কোটি  টাকা। এ ছাড়া এ খাতের বড় ব্যয় হিসেবে ঋণের সুদ পরিশোধেই অন্তত ৮০ হাজার কোটি টাকা বরাদ্দের প্রয়োজন হবে, এর মধ্যে চলতি বছর বরাদ্দ রাখা হয়েছে ৬৮ হাজার ৫৮৯ কোটি টাকা।

তবে আগামী বছরের বাজেটে যে কোনো উপায়ে ভর্তুকির চাপ কমাতে চায় সরকার। এতে বিভিন্ন ধরনের জ্বালানি, গ্যাস, বিদ্যুৎ ও অন্যান্য পরিষেবার দাম বাড়ানোর প্রস্তুতি নিয়ে রেখেছে সরকার। বাজেটের খসড়া রূপরেখায় বলা হয়, বিদ্যুতের মূল্য সমন্বয় করা না হলে আসছে বাজেটে শুধু বিদ্যুৎ খাতেই ১৮ হাজার কোটি টাকা ভর্তুকির প্রয়োজন হবে।

গ্যাসের ক্ষেত্রে একই রকম পর্যবেক্ষণ তুলে ধরেছেন বাজেট প্রণয়নের সঙ্গে জড়িত কর্মকর্তারা। গ্যাসের মূল্য সমন্বয় করা না হলে এ খাতেও আগামী বাজেটে ১৭ হাজার ৩০০ কোটি টাকা ভর্তুকির প্রয়োজন হবে। এ ছাড়া সারের ক্ষেত্রে প্রয়োজন হবে ১৫ হাজার কোটি টাকা। তবে সারের দাম বাড়ালে সরাসরি কৃষির ওপর এর প্রভাব পড়বে, কৃষকের ওপর ব্যয়ের চাপ বাড়বে বলে মনে করে অর্থ বিভাগ। তবু ভর্তুকি কমাতে দাম বাড়ানোর কোনো বিকল্প নেই বলে মনে করে সরকার। খসড়া বাজেটের তথ্যানুসারে ভর্তুকি, প্রণোদনা ও নগদ ঋণ খাতের মোট জিডিপির ১ দশমিক ৯ শতাংশ বরাদ্দ দেওয়ার প্রয়োজন হবে।

রবিবার অর্থ মন্ত্রণালয়ে বাজেট মনিটরিং ও সম্পদ ব্যবস্থাপনা কমিটির একটি বৈঠক অনুষ্ঠিত হয়েছে। সেই বৈঠকে পরবর্তী বাজেটের রূপরেখা মোটামুটি চূড়ান্ত করা হয়েছে। অবশ্য শেষ মুহূর্তে প্রধানন্ত্রীর অনুমোদনের আগ পর্যন্ত এসব অঙ্ক যে কোনো সময়ই পরিবর্তনযোগ্য।

অর্থ বিভাগের সূত্রগুলো বলছে, দীর্ঘ দুই বছরের চলমান কভিড-পরবর্তী অর্থনীতি পুনরুদ্ধারের চাহিদা, রাশিয়া-ইউক্রেন দামামায় বিশ্বব্যাপী সরবরাহ চেইনে মারাত্মক প্রভাব পড়েছে। এর মধ্যে ঋণের চাপ সহনীয় পর্যায়ে আনতে অনুৎপাদনশীল খাতে ব্যয় কমানোর চাপও রয়েছে। সেই সঙ্গে আবার মূল্যস্ফীতিও চোখ রাঙাচ্ছে। এমন পরিস্থিতিতে আগামী অর্থবছরের বাজেট তৈরির কাজ চলছে। রাশিয়া-ইউক্রেন চলমান যুদ্ধ পরিস্থিতিতে খাদ্য ও জ্বালানি পণ্যের দাম বাড়ার আশঙ্কা এবং দেশের প্রধান রপ্তানি বাজার ইউরোপীয় ইউনিয়নে মন্দার পূর্বাভাস সত্ত্বেও আগামী অর্থবছরে ৭ দশমিক ৫ শতাংশ জিডিপি প্রবৃদ্ধির লক্ষ্যমাত্রা নির্ধারণ করতে যাচ্ছে অর্থ মন্ত্রণালয়। একই সঙ্গে সার্বিক মূল্যস্ফীতির হার এখনকার তুলনায় নতুন অর্থবছর বেশ কমে আসবে বলে মনে করছেন মন্ত্রণালয়ের কর্মকর্তারা।

ফলে ২০২২-২৩ অর্থবছরের বাজেটে মূল্যস্ফীতির হার ৫ দশমিক ৫ শতাংশ নির্ধারণ করছে অর্থ মন্ত্রণালয়। খাদ্য মূল্যস্ফীতি নিয়ন্ত্রণে রাখতে সবচেয়ে বেশি গুরুত্ব দিচ্ছে সরকার। এ জন্য আগামী ২০২২-২৩ অর্থবছরের বাজেটে ভর্তুকি খাতে বরাদ্দ বাড়ানো হচ্ছে। চলতি অর্থবছর প্রণোদনা ও ঋণ খাতে প্রকৃত ব্যয় জিডিপির ১ দশমিক ১৭ শতাংশ ধরা হয়েছে। এটি আগামী ২০২২-২৩ অর্থবছরে বাড়িয়ে ১ দশমিক ৯০ শতাংশ করা হচ্ছে। অর্থাৎ চলতি অর্থবছরের বাজেটে ভর্তুকি ও প্রণোদনা খাতে ১ লাখ ৪৯ হাজার ২৩৫ কোটি টাকা বরাদ্দ রয়েছে। আগামী অর্থবছর সেটি বাড়িয়ে ১ লাখ ৭৭ হাজার ১৪৫ কোটি টাকা করা হচ্ছে। তবে এটি আন্তর্জাতিক বাজারের ওপর নির্ভর করবে।

নিউজ ট্যাগ: বাজেট

আরও খবর



সম্ভাবনার সেন্টমার্টিন

প্রকাশিত:বুধবার ১১ মে ২০২২ | হালনাগাদ:বুধবার ১১ মে ২০২২ | ৩১৫জন দেখেছেন
দর্পণ নিউজ ডেস্ক

Image

বাংলাদেশের একমাত্র প্রবাল দ্বীপ সেন্টমার্টিন। কক্সবাজার জেলা শহর থেকে ১২০ কিলোমিটার দূরে সাগর বক্ষে এ দ্বীপে টেকনাফ থেকে ট্রলারে, লঞ্চে কিংবা জাহাজে যেতে লাগে দুই থেকে সোয়া দুই ঘণ্টা। রূপ বৈচিত্র্যের অনন্য মহিমায় উদ্ভাসিত সেন্টমার্টিন দ্বীপে চমৎকার আবহাওয়া বিরাজ করে নবেম্বর থেকে ফেব্রুয়ারি মাস পর্যন্ত।

এই সময়কে প্রধান ভ্রমণ ঋতু হিসেবে চিহ্নিত করা হয়। বছরের বাকি সময় আবহাওয়া থাকে ভয়াবহ। সেন্টমার্টিনের স্বচ্ছ পানিতে জেলি ফিস, হরেক রকম সামুদ্রিক মাছ, কচ্ছপ আর প্রবাল অন্যতম আকর্ষণ ও অপার সম্ভাবনা। এটিই বাংলাদেশের একমাত্র প্রবাল দ্বীপ। ১৯৫৮ সালে এক ভূত্তত্ব জরিপে দেখা গেছে এই দ্বীপে প্রায় ১০ লাখ টন প্রবাল রয়েছে। এই দ্বীপে জীবন্ত প্রবালের ৩৯টি প্রজাতি চিহ্নিত করা গেছে।

প্রাণের বৈচিত্র্য রয়েছে যে দ্বীপগুলোতে, তাকে টিকিয়ে রাখার মধ্যেই রয়েছে অর্থনৈতিক উন্নয়নের চাবি। সেন্টমার্টিন দ্বীপ ও দ্বীপের চারদিকের জল এলাকার বিচিত্র প্রাণের সুরক্ষার মধ্যেই রয়েছে বাংলাদেশের পর্যটন ও মৎস্য আহরণ সম্ভাবনা। বন ও পরিবেশ মন্ত্রণালয়ের অধীনে সেন্টমার্টিন কনজারভেশন প্রকল্পে মার্কিন কোরাল বায়োলজিস্ট টমাস, টমাসিকের এক গবেষণা প্রতিবেদনে বলা হয়, সেন্টমার্টিনে প্রতিদিন সর্বোচ্চ ৮৫০ জন পর্যটক পরিদর্শন করলে দ্বীপটির ক্ষতি হবে না। অথচ শীত মৌসুমে দিনে তিন থেকে চার হাজার পর্যটক সেন্টমার্টিনে যাচ্ছেন, রাতে থাকছেন। একই সঙ্গে তারা চালিয়ে যাচ্ছেন পরিবেশের জন্য ক্ষতিকর কার্যকলাপ।

জীবন-জীবিকা: প্রতি বছর সেন্টমার্টিনে প্রায় ১০ লাখ পর্যটক আসা-যাওয়া করে। পর্যটকদের থাকার জন্য দ্বীপটিতে অপরিকল্পিতভাবে গড়ে উঠেছে প্রায় ৮৮টি হোটেল, মোটেল, রিসোর্ট। ১৯৭২ সালে যেখানে ১১২টি বসতি ছিল বর্তমানে সেখানে দেড় হাজার পরিবারের প্রায় সাড়ে সাত হাজার মানুষ বসবাস করছে। লোকসংখ্যা বৃদ্ধির সঙ্গে সঙ্গে বর্জ্যরে পরিমাণ বাড়ছে। এখানকার মানুষ মূলত মৎস্য শিকার করেই তাদের জীবিকা নির্বাহ করে। তবে পর্যটন শিল্পের বিকাশ হওয়ায় অনেকেই রেস্টুরেন্ট, আবাসিক হোটেল কিংবা গ্রোসারি শপের মাধ্যমে জীবিকা নির্বাহ করে থাকে। নারিকেল, পেঁয়াজ, মরিচ, টমেটো, এ দ্বীপের প্রধান কৃষিজাত পণ্য।

সেন্টমার্টিন হতে পারে দ্বিতীয় সিঙ্গাপুর: সেন্টমার্টিন দেশের একমাত্র প্রবাল দ্বীপ। এই দ্বীপে প্রায় ২শ প্রজাতির জীবের উপস্থিতি রয়েছে বলে দাবি করেন বিজ্ঞানীরা। সমীক্ষা অনুযায়ী, দ্বীপটি চতুর্দিকে প্রবাল পাথরের বেষ্টনীতে গড়া। এর গভীরে রয়েছে জমাট বাঁধা পাথর। এই পাথরের বেষ্টনী সাগরের তলদেশ দিয়ে মালয়েশিয়া পর্যন্ত বিস্তৃত। বঙ্গোপসাগরের বুকে জেগে উঠা এই দ্বীপটিই হতে পারে পর্যটনের ক্ষেত্রে বিশ্বের দ্বিতীয় সিঙ্গাপুর। তবে এ জন্য প্রয়োজন পরিকল্পিত উন্নয়ন এবং সুষ্ঠু নীতিমালা। দ্বীপবাসীকে সম্পৃক্ত করে সরকারী-বেসরকারী অংশীদারিত্বের ভিত্তিতে মাস্টার প্ল্যানের মাধ্যমে এখানে পর্যটন শিল্প বিকাশে উদ্যোগ নেয়া হলে দ্বীপটি হয়ে উঠতে পারে বিশ্বের অন্যতম প্রধান পর্যটন কেন্দ্র্র।

শৈবাল চাষের সম্ভাবনা: সেন্টমার্টিনে শৈবাল চাষের সম্ভাবনা রয়েছে। সামুদ্রিক বিজ্ঞানীরা বিভিন্ন গবেষণা ও বৈজ্ঞানিক পরীক্ষা-নিরীক্ষায় নিশ্চিত করেছেন যে, সেন্টমার্টিনে ১৪০ প্রজাতির সামুদ্রিক শৈবাল রয়েছে। যার অধিকাংশ মানুষের খাদ্যসহ হাঁস-মুরগি ও মাছের খাদ্য তৈরিতে ব্যবহার করা যাবে। স্থানীয় সূত্রে জানা যায়, সাধারণত চার ধরনের প্রবাল সংগ্রহ করা হয় যাদের স্থানীয় ভাষায় বলা হয় পাতা ফুল, গাছফুল, শৈবাল ও মগ। এদের মধ্যে গাছফুলের চাহিদা সবচেয়ে বেশি। বাহারি অলঙ্কার প্রস্তুতের জন্যেই এর ব্যবহার সবচেয়ে বেশি। প্রাকৃতিক সম্পদের মধ্যে প্রচুর চুনাপাথরসহ নানা প্রকার পাথর, রেডিয়াম, সামুদ্রিক শৈবাল, ঝিনুক, মুক্তা ও সিলিকন পাওয়া যায়। এছাড়া এই শৈবাল থেকে হ্যালোজেন জাতীয় উপাদান যেমন-ফ্লোরিন, ক্লোরিন, ব্রুমিন ও আয়োডিন এবং অন্যান্য মূল্যবান ধাতব পাওয়া যাবে। বৈজ্ঞানিকরা বলেছেন, সামুদ্রিক শৈবালে ঔষুধি গুণাগুণ রয়েছে। তাই এগুলো ওষুধ কারখানায় এবং জৈব সার তৈরিতে বিভিন্ন দেশে কাঁচামাল হিসেবে ব্যবহার হয়। আশার খবর হলো- সেন্টমার্টিনে বৈজ্ঞানিক পদ্ধতিতে ইতোমধ্যে শুরু হয়েছে সামুদ্রিক শৈবাল চাষ। এই প্রযুক্তি ব্যবহারের ফলে প্রবালদ্বীপ সেন্টমার্টিন হবে সামুদ্রিক শৈবাল ভা-ার। এখানকার চাষীরা শৈবাল চাষ ও বাণিজ্য করে আর্থিকভাবে সচ্ছল হবেন। অপরদিকে এই খাত থেকে বিপুল পরিমাণ বৈদেশিক মুদ্রাও অর্জন করা সম্ভব হবে।

মনোরম সৈকতের হাতছানি: সবুজ শ্যামল বৃক্ষ বেষ্টিত সাগর বুকে ভাসমান অনন্য শোভামণ্ডিত এই সেন্টমার্টিন। সেন্টমার্টিনের উভয়প্রান্তে ছোট বড় ৩৭টি সৈকত রয়েছে যা ভ্রমণপিপাসুদের পদচারণায় মুখরিত হয়ে ওঠে বছরের অক্টোবর থেকে ফেব্রুয়ারি পর্যন্ত সময়ে। সেন্টমার্টিনকে বাঁচাতে হবে আমাদের স্বার্থেই। সেজন্য সর্বসাধারণকে সচেতন থাকতে হবে পরিবেশ বিষয়ে। পর্যটন আইন মেনে চলতে হবে। ময়লা-আবর্জনা যত্রতত্র ফেলা যাবে না। স্থায়ী আবাসন কমাতে হবে। থাকার ব্যবস্থা বন্ধ করতে পারলে সবচেয়ে ভাল। পর্যটন পুলিশের সংখ্যা, বুথ ও নজরদারি বাড়াতে হবে। জীববৈচিত্র্য রক্ষায় কার্যকর ব্যবস্থা গ্রহণ করতে হবে।


আরও খবর



মোংলায় প্রধানমন্ত্রীর ঈদ উপহার প্রদান কার্যক্রমে ইউওন'র প্রেস ব্রিফিং

প্রকাশিত:সোমবার ২৫ এপ্রিল ২০২২ | হালনাগাদ:সোমবার ২৫ এপ্রিল ২০২২ | ৯৭৫জন দেখেছেন
দর্পণ নিউজ ডেস্ক

Image

মোংলা প্রতিনিধি:

মোংলায় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার ঈদ উপহারের ঘরে উঠছেন ১৪০টি পরিবার। আশ্রয়ণ প্রকল্পের তৃতীয় পর্যায়ে দেয়া এই ঘরে কেউ ইতিমধ্যে উঠছেন আবার কেউ কেউ উঠার অপেক্ষায় রয়েছেন। সোমবার (২৫ এপ্রিল) বেলা ১১ টায় উপজেলায় প্রেস ব্রিফিংয়ে এ তথ্য জানিয়েছেন উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা কমলেশ মজুমদার।

তিনি বলেন, উপজেলার চাঁদপাই ইউনিয়নের মাকড়ঢোন এলাকায় নির্মিত হচ্ছে ঘরগুলো। বেশির ভাগ ঘরেরই কাজ প্রায় সম্পন্ন হয়েছে। পৌরসভার শেষ সীমান্তে ও উপজেলার চাঁদপাই এবং বুড়িরডাঙ্গা ইউনিয়নের মাঝে আন্তর্জাতিক মোংলা-ঘাষিয়াখালী বঙ্গবন্ধু চ্যানেলের পাড়ে দৃষ্টিনন্দন পরিবেশে গড়ে তোলা হয়েছে আধুনিক এ ঘরগুলো।

 সেখানকার পরিবেশ দেখে যে কেউই ভাববেন এটি কোন রিসোর্টই হবে। এখানে ঘরের পাশাপাশি খোলা জায়গা ও পুকুর রয়েছে। রয়েছে ক্ষেত ও ফসল চাষের মাঠও। নতুন এ ঘরে দেয়া হচ্ছে বিদ্যুৎ সংযোগও। প্রত্যেক পরিবারকে আনুষ্ঠানিকভাবে ঘর ও জমির কাগজপত্র বুঝিয়ে দেয়া হয়েছে।

তৃতীয় পর্যায়ের এ ঘরগুলো পূর্বের দুই দফায় দেয়া ঘরের চেয়ে মজবুত ও ব্যয়বহুলও। এবারের প্রতিটি এ ঘরে ব্যয় হয়েছে ২ লাখ ৪৯ হাজার টাকা। এর আগে প্রতিটিতে ব্যয় ছিলো ১ লাখ ৯০ হাজার টাকা।

উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা কমলেশ মজুমদার বলেন, অত্যন্ত সুন্দর একটি পরিবেশে এ ঘরগুলো নির্মাণ করা হয়েছে। ঘর নির্মাণে মানসম্মত সামগ্রী ব্যবহার করা হয়েছে, যাতে খুব টেকসই হয়। কাজ শেষ পর্যায়ে উপকারভোগীরা নতুন এ ঘরেই ঈদ করতে পারবেন। 


আরও খবর



ঈদের নামাজের নিয়ত ও নিয়ম

প্রকাশিত:সোমবার ০২ মে 2০২2 | হালনাগাদ:সোমবার ০২ মে 2০২2 | ৫১০জন দেখেছেন
দর্পণ নিউজ ডেস্ক

Image

মুসলমানদের প্রধান ধর্মীয় উৎসব ঈদ। মুমিন মুসলমান প্রতি বছরে দুটি ঈদ উদযাপন করে থাকেন। যে কারণে অনেকেই ঈদের নামাজের নিয়ত, নিয়ম এবং তাকবির ভুলে যান। কেননা তাকবির হলো ঈদের দিনের প্রথম কাজ। মুসলিম উম্মাহর জন্য ঈদের নামাজ পড়া ওয়াজিব। ঈদের দিন যথাযথভাবে ঈদের নামাজ পড়ার জন্য নিয়ত, নিয়ম এবং তাকবির তুলে ধরা হলো-

ঈদের নামাজের নিয়ত

'নাওয়াইতু আন উসাল্লিয়া লিল্লাহি তাআলা রাকাআতাইন সালাতিল ইদিল ফিতরি মাআ সিত্তাতিত তাকবিরাতি ওয়াঝিবুল্লাহি তাআলা ইকতাদাইতু বিহাজাল ইমামি মুতাওয়াঝঝিহান ইলা ঝিহাতিল কাবাতিশ শারিফাতি 'আল্লাহু আকবার'।'

অর্থ : আমি ঈদুল ফিতরের দুই রাকাত ওয়াজিব নামাজ অতিরিক্ত ৬ তাকবিরের সঙ্গে এই ইমামের পেছনে কেবলামুখী হয়ে আল্লাহর জন্য আদায় করছি- 'আল্লাহু আকবার'।

ঈদের নামাজ পড়ার নিয়ম

১. ঈমামের সঙ্গে তাকবিরে তাহরিমা আল্লাহু আকবার বলে উভয় হাত বাঁধা।

২. তাকবিরে তাহরিমার পর ছানা পড়া-

'সুবহানাকা আল্লাহুম্মা ওয়া বিহামদিকা ওয়া তাবারাকাসমুকা ওয়াতাআলা যাদ্দুকা ওয়া লা ইলাহা গাইরুকা।

৩. এরপর অতিরিক্ত ৩ তাকবির দেওয়া।

৪. এক তাকবির থেকে আরেক তাকবিরের মধ্যে তিন তাসবিহ পরিমাণ সময় বিরত থাকা।

৫. প্রথম ও দ্বিতীয় তাকবিরে উভয় হাত উঠিয়ে তা ছেড়ে দেওয়া।

৬. তৃতীয় তাকবির দিয়ে উভয় হাত তাকবিরে তাহরিমার মতো বেঁধে নিতে হয়।

৭. আউজুবিল্লাহ-বিসমিল্লাহ পড়া

৮. সুরা ফাতেহা পড়া

৯. সুরা মিলানো। এরপর নিয়মিত নামাজের মতো রুকু ও সেজদার মাধ্যমে প্রথম রাকাত শেষ করা।

দ্বিতীয় রাকাত

১. বিসমিল্লাহ পড়া

২. সুরা ফাতেহা পড়া

৩. সুরা মিলানো।

৪. সুরা মিলানোর পর অতিরিক্ত ৩ তাকবির দেওয়া।

৫. প্রথম ও দ্বিতীয় তাকবিরে উভয় হাত উঠিয়ে তা ছেড়ে দেওয়া।

৬. তৃতীয় তাকবির দিয়ে উভয় হাত তাকবিরে তাহরিমার মতো বেঁধে নিতে হয়।

৭. এরপর রুকুর তাকবির দিয়ে রুকুতে যাওয়া।

৮. সেজদা আদায় করে

৯. বৈঠকে বসা; তাশাহহুদ, দরূদ, দোয়া মাসুরা পড়ে সালাম ফেরানোর মাধ্যমে নামাজ সম্পন্ন করা।

১০. নামাজের সালাম ফেরানোর পর তাকবির পড়া-

উচ্চারণ : আল্লাহু আকবর, আল্লাহু আকবার, লা ইলাহা ইল্লাল্লাহু ওয়াল্লাহু আকবার আল্লাহু আকবর ওয়া লিল্লাহিল হামদ।

১১. নামাজের পর ইমাম সাহেবের দুইটি খুতবা দেওয়া।

ঈদের নামাজ পড়ার পর ইমাম খুতবা দেবে আর মুসল্লিরা খুতবা মনোযোগের সঙ্গে শুনবে। অবশ্য অনেকেই খুতবা না দেওয়ার ব্যাপারে শিথিলতার কথা বলেছেন। খুতবা না দিলেও ঈদের নামাজ আদায় হয়ে যাবে বলে মত দিয়েছেন।

অতিরিক্ত তাকবির

অতিরিক্ত তাকবিরের ক্ষেত্রে অন্যান্য মাজহাবসহ অনেকেই প্রথম রাকাতে তাকবিরে তাহরিমাসহ ৭ তাকবির আর দ্বিতীয় রাকাআতে ৫ তাকবিরে দিয়ে থাকেন। যদি কেউ অতিরিক্ত ৬ তাকবির দেয় কিংবা অতিরিক্ত এগারো তাকবির দেয় তাতে নামাজের অসুবিধা হবে না বরং নামাজ হয়ে যাবে।

ঈদের নামাজের তাকবির পড়া

ঈদের চাঁদ দেখার পর থেকে অর্থাৎ ৩০ রমজান ইফতারের পর প্রথম কাজই হচ্ছে তাকবির তথা আল্লাহর কৃতজ্ঞতাজ্ঞাপন করা। আল্লাহর শুকরিয়া আদায় করে তাকবির পড়া। এটিই ঈদের প্রথম কাজ। আল্লাহ তাআলা কোরআনুল কারিমেও তাকবির পড়ার নির্দেশ দিয়েছেন এভাবে-

'আর তোমাদের আল্লাহ তাআলার মহত্ত্ব বর্ণনা কর, যাতে তোমরা কৃতজ্ঞতা স্বীকার কর।( সুরা বাকারা : আয়াত ১৮৫)

তাকবির হলো-

উচ্চারণ : আল্লাহু আকবর, আল্লাহু আকবার, লা ইলাহা ইল্লাল্লাহু ওয়াল্লাহু আকবার আল্লাহু আকবর ওয়া লিল্লাহিল হামদ।

আল্লাহ তাআলা রোজাদার মুমিন মুসলমানকে ঈদের নামাজ পড়ার তাওফিক দান করুন। আমিন।

নিউজ ট্যাগ: ঈদের নামাজ নিয়ম

আরও খবর



তিউনিসিয়া উপকূলে ৪ নৌকাডুবি, নিহত ১২

প্রকাশিত:রবিবার ২৪ এপ্রিল ২০২২ | হালনাগাদ:রবিবার ২৪ এপ্রিল ২০২২ | ৪৯৫জন দেখেছেন
দর্পণ নিউজ ডেস্ক

Image

তিউনিসিয়ার উপকূলে ভূমধ্যসাগরে চারটি নৌকা ডুবে অন্তত ১২ জনের মৃত্যু হয়েছে। তারা সবাই আফ্রিকান। রোববার রয়টার্সের প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, ওই নৌকাগুলোতে ভূমধ্যসাগর পাড়ি দিয়ে অবৈধভাবে ইতালি যাচ্ছিলেন কমপক্ষে ১২০ জন আরোহী। তাদের মধ্যে এখনো অন্তত ১০ জনের খোঁজ পাওয়া যায়নি বলে জানা গেছে।

সম্প্রতি তিউনিসিয়া ও লিবিয়া থেকে অবৈধভাবে সাগর পাড়ি দিয়ে ইতালি যাওয়ার চেষ্টা আবারও বেড়েছে। যুদ্ধবিধ্বস্ত মধ্যপ্রাচ্য ও করোনা মহামারির অভিঘাতে চরম আর্থিক সঙ্কটে পড়া অসহায় নাগরিকরা ইউরোপের দিকে ছুটছেন।

জাতিসংঘের শরণার্থী বিষয়ক হাইকমিশনার ইউএনএইচসিআর-এর পরিসংখ্যান অনুযায়ী, ২০২১ সালে ১ লাখ ২৩ হাজারেরও বেশি অভিবাসী ভূমধ্যসাগর পাড়ি দিয়ে অবৈধভাবে ইতালিতে গেছেন। ২০২০ সালে গিয়েছিল ৯৫ হাজারের বেশি।


আরও খবর