আজঃ বুধবার ২৫ মে ২০২২
শিরোনাম

ইভটিজিংকে কেন্দ্র করে ইউপি চেয়ারম্যানের ওপর কিশোর গ্যাংয়ের হামলা

প্রকাশিত:বুধবার ১১ মে ২০২২ | হালনাগাদ:বুধবার ১১ মে ২০২২ | ৪৮০জন দেখেছেন

Image

নোয়াখালী প্রতিনিধি:

নোয়াখালীর সেনবাগ উপজেলায় ইভটিজিংকে কেন্দ্র করে ৯নং নবীপুর ইউনিয়নের চেয়ারম্যান মো.বেলায়েত হোসেন সোহেলের ওপর হামলা চালিয়েছে কিশোর গ্যাং। এ ঘটনায় স্থানীয়রা কয়েকটি দেশীয় অস্ত্রসহ কিশোর গ্যাংয়ের চার সদস্যকে আটক করে পুলিশে সোপর্দ করে।

গতকাল মঙ্গলবার ১০ মে সন্ধ্যা ৬টার দিকে ওই ইউনিয়নের ২নং ওয়ার্ডের গোপালপুর গ্রামের নূরানী মাদ্রাসা সংলগ্ন কালামিয়ার টেক এলাকায় এ হামলার ঘটনা ঘটে।

আটককৃত কিশোর গ্যাংয়ের সদস্যরা হলো, নবীপুর ইউনিয়নের গোপালপুর গ্রামের অন্তর (১৯) ও বেগমগঞ্জ উপজেলার রফিকপুর গ্রামের টিপু (২৪) আবদুল গনি পারভেজ (২৫) ইমরান হোসেন ওরফে শান্ত (২০)।

নবীপুর ইউনিয়নের ২নম্বর ওয়ার্ডের ইউপি সদস্য (মেম্বার) আবদুল ছোবহান জানান, গতকাল মঙ্গলবার দুপুরের দিকে নবীপুর ইউনিয়নের ২নম্বর ওয়ার্ডের গোপালপুর গ্রামের জসিমের নতুন বাড়িতে কিশোরী মেয়েরা বাড়ির পুকুরে গোসল করতে গেলে ইভটিজিং করে একই গ্রামের হারিস মোল্লা বাড়ির বাশারের ছেলে ইভটিজার রবি (২৩) ও তার সাঙ্গপাঙ্গরা। সে দীর্ঘদিন থেকে ওই মেয়েদের উক্ত্যক্ত করে আসছে। পরে ভুক্তভোগী কিশোরীদের পরিবার বিষয়টি স্থানীয় ইউপি সদস্য ও চেয়ারম্যানকে জানায়। স্থানীয় জনপ্রতিনিধিদের অবহিত করার অভিযোগে বিকেলের দিকে রবি ও কিশোর গ্যাংয়ের বহিরাগত সদস্যরা ইভটিজিংয়ের শিকার কিশোরীদের বসতঘরে হামলা চালায় এবং তাদেরকে শারীরিক ভাবে লাঞ্ছিত করে।

ইউপি সদস্য আরো জানায়,খবর পেয়ে চেয়ারম্যান আমাকে ঘটনাস্থলে পাঠালে বহিরাগত কিশোর গ্যাংয়ের সদস্যরা চলে যায়। একপর্যায়ে কিশোর গ্যাং বাহিনীর প্রধান রবির মা ও ইভটিজিংয়ের শিকার কিশোরীদের মায়ের মধ্যে তুমুল বাকবিতন্ডা বেধে যায়। তখন আমি বিষয়টি চেয়ারম্যান কে জানাই। যে এ সমস্যা আমার পক্ষে সমাধান করা সম্ভব নয়। তখন চেয়ারম্যান আমাকে জানায় আপনি ঘটনাস্থলে থাকেন আমি আসছি।

ইউপি সদস্য জানায়,চেয়ারম্যান এসে দুই পক্ষকে নিবৃত করে। অভিযুক্ত রবিকে চেয়ারম্যানের প্রাইভেট কারে তুলে নেয়। একপর্যায়ে আসস্মিক রবির কিশোর গ্যাংয়ের ৩০-৩৫জন সদস্য চেয়ারম্যান ও তাঁর ভাগনে নজরুল ইসলামের (৩৫) ওপর হকিস্টিক,রড দিয়ে হামলা চালায়। এতে চেয়ারম্যান বাম চোখে ও কপালে গুরুত্বর আঘাত পায়। হামলাকারীরা চেয়ারম্যানের ব্যবহৃত প্রাইভেটকারও ভাংচুর করে। খবর পেয়ে এলাকাবাসী এগিয়ে এলে হামলাকারীরা পালিয়ে যাওয়ার সময় চারজনকে আটক করে স্থানীয়রা। পরে চেয়ারম্যানকে উদ্ধার করে সেনবাগ উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে প্রাথমিক চিকিৎসা দেওয়া হয়। সেখান থেকে রাত পৌনে ১টার দিকে তাদেরকে উন্নত চিকিৎসার জন্য ২৫০ শয্যা বিশিষ্ট নোয়াখালী জেনারেল  হাসপাতালে ভর্তি করা হয়।

এ বিষয়ে জানতে চাইলে  ৯নং নবীপুর ইউনিয়নের চেয়ারম্যান মো.বেলায়েত হোসেন সোহেল বলেন, ইভটিজিং নিয়ে বিরোধের জের ধরে ইভটিজার কিশোর গ্যাং বাহিনীর সদস্যরা এ হামলা চালায়। এ ঘটনায় থানায় মামলার প্রস্তুতি চলছে।

বিষয়টি নিশ্চিত করেন সেনবাগ থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) ইকবাল হোসেন পাটোয়ারী। তিনি বলেন, ইভটিজিংকে কেন্দ্র করে উদ্ভুত পরিস্থিতিতে চেয়ারম্যান সমস্যা সমাধানে গেলে তাঁর ওপর হামলার এ ঘটনা ঘটে। পরে স্থানীয় লোকজন চারজনকে আটক করে পুলিশে সোপর্দ করে। আটককৃতদের থানায় এনে রাখা হয়েছে। ভুক্তভোগীদের লিখিত এজহার পেলে আটকৃতদের ওই মামলায় গ্রেফতার দেখিয়ে নোয়াখালী চীফ জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট আদালতে সোপর্দ করা হবে।


আরও খবর



উত্তরাঞ্চলে ঈদযাত্রায় ভোগান্তি বাড়াবে চার লেনের কাজ

প্রকাশিত:বৃহস্পতিবার ২৮ এপ্রিল ২০২২ | হালনাগাদ:বৃহস্পতিবার ২৮ এপ্রিল ২০২২ | ৪৯০জন দেখেছেন
দর্পণ নিউজ ডেস্ক

Image

ঈদযাত্রায় ঢাকা-রংপুর মহাসড়কের বগুড়া অংশে দুর্ভোগের আশঙ্কা করছেন যাত্রীরা। গত মার্চে প্রকল্পের মেয়াদ শেষ হলেও বগুড়া অংশের কাজের অগ্রগতি মাত্র ৪৫ ভাগ। এ ছাড়া মহাসড়কের মাঝখানে চলছে ওভারব্রিজ নির্মাণের কাজ। ফলে ঈদযাত্রায় মহাসড়কে যানজট ও দুর্ভোগের আশঙ্কা করছেন উত্তরাঞ্চলের যাত্রী ও চালকরা। অন্যদিকে ঈদ ঘনিয়ে আসায় উত্তরবঙ্গের প্রবেশদ্বার সিরাজগঞ্জের বঙ্গবন্ধু সেতু পশ্চিম সংযোগ মহাসড়কে যানবাহনের চাপ বৃদ্ধি পেয়েছে। মঙ্গলবার (২৬ এপ্রিল) ভোর থেকে অতিরিক্ত চাপে মহাসড়কের অন্তত চারটি পয়েন্টে ধীরগতিতে চলছে যানবাহন। রাতের বেলায় পণ্যবাহী ট্রাক চলাচল বাড়ায় এ চাপ আরও বৃদ্ধি পায়। যার প্রভাবে সকাল পর্যন্ত মহাসড়কের বেশ কয়েকটি পয়েন্টে যান চলাচলে ধীরগতি সৃষ্টি হয়েছে।

এদিকে ঈদ সামনে রেখে ভিড় বাড়ছে ভোলা-লক্ষ্মীপুর রুটে। কিন্তু এখনো এ রুটে বাড়ানো হয়নি লঞ্চ। এতে দুর্ভোগে পড়ছেন এ রুটের যাত্রীরা। লঞ্চ-সিট্রাকের অভাবে বাধ্য হয়েই যাত্রীরা জীবনের ঝুঁকি নিয়ে ট্রলারে যাতায়াত করছেন। বিপজ্জনক এ রুটে উত্তাল মেঘনায় ঝুঁকিপূর্ণ পারাপারের কারণে দুর্ঘটনার আশঙ্কা করছেন যাত্রীরা। বর্তমানে ঢাকা-রংপুর মহাসড়কে মহাস্থান এলাকায় খানাখন্দে ভরা। একই অবস্থা মহাসড়কের বগুড়া অংশের প্রায় ৪৭ কিলোমিটার এলাকাজুড়ে।

ঢাকায় বঙ্গবন্ধু কৃষি ইউনির্ভাসিটির শিক্ষার্থী আবু রাসেল বলেন, আমি গাজীপুর থেকে দুপুর ১২টায় রওনা দিয়ে বিকাল সাড়ে ৪টায় বগুড়ায় এলাম। ঢাকা থেকে বগুড়ায় আসার এতটা জ্যাম ছিল না। কিন্তু বগুড়া থেকে ঢাকা যাওয়ার রাস্তাটা পুরোটাই ব্লক ছিল। বগুড়া মোটর মালিক গ্রুপের সাধারণ সম্পাদক আমিনুর ইসলাম বলেন, সিএনজিচালিত অটোরিকশা, আটোটেম্পো, নসিমন, করিমন মহাসড়কে চলাচল করলে এগুলো দুর্ঘটনা এবং যানজটের কারণ হয়ে দাঁড়াবে।

বগুড়া হাইওয়ে পুলিশের পুলিশ সুপার মুনশী শাহাবুদ্দীন বলেন, ঈদযাত্রায় আমাদের ট্রাফিক ম্যানেজমেন্টটা সত্যিই চ্যালেঞ্জিং। রাস্তায় নির্মাণ কাজ চলছে। তাই হাইওয়ে পুলিশের পক্ষ থেকে সরু রাস্তা, সরু সেতুতে আমরা স্পেশাল টেক-কেয়ার করব। ধারণা করা হচ্ছে গত বছরের তুলনায় এবার গাড়ির সংখ্যা বাড়বে। ৬০ থেকে ৭০ হাজার গাড়ি প্রতিদিন বঙ্গবন্ধু সেতু পার হয়ে আসতে পারে। ঈদযাত্রায় মহাসড়কে যানজটসহ জনদুর্ভোগ কমাতে রাস্তায় কোনো গাড়ি নষ্ট হলে তা অপসারণ করার জন্য আমরা পর্যাপ্ত মেকার, রেকার ও চেনপুলির ব্যবস্থা করেছি।

সিরাজগঞ্জের হাটিকুমরুল হাইওয়ে থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) লুৎফর রহমান জানান, বঙ্গবন্ধু সেতু হয়ে ঢাকার সঙ্গে উত্তরের ১৬ ও দক্ষিণের ৬ জেলায় চলাচলকারী যানবাহনের সেতু গোলচত্বর থেকে হাটিকুমরুল গোলচত্বর পর্যন্ত ২২ কিলোমিটার মহাসড়ক ব্যবহারের বিকল্প নেই। প্রতিবছরই ঈদ মৌসুমে এ মহাসড়কে অতিরিক্ত যানবাহনের চাপ সৃষ্টি হওয়ায় যানজটে নাকাল হতে হয় যাত্রীদের। এই মহাসড়ক দিয়ে প্রতিদিন প্রায় ২০ থেকে ২৫ হাজার যানবাহন চলাচল করে। ঈদের সময় এ সংখ্যা দাঁড়ায় ৩৫ থেকে ৪০ হাজারে। মহাসড়কে ঈদযাত্রা নির্বিঘ্ন করতে বঙ্গবন্ধু সেতু পশ্চিম মহাসড়কে প্রায় ৪৫০ জন পুলিশ মোতায়েন থাকবে। যে কোনো পরিস্থিতি মোকাবিলায় ১৫০ জন করে তিন ভাগে বিভক্ত হয়ে পালাক্রমে দায়িত্ব পালন করবেন।

এদিকে ভোলা হয়ে দেশের দক্ষিণ-পশ্চিমাঞ্চলের ২১ জেলার যোগাযোগের সহজ মাধ্যম নৌপথ। তাই ওই সব অঞ্চলের যাত্রীদের ভোলা-লক্ষ্মীপুর রুট ব্যবহার করতে হয়। এ রুটটি ডেঞ্জার জোনের আওতায় থাকায় শুধু সিট্রাক ও সিসার্ভে সনদধারী লঞ্চ চলাচলের অনুমতি রয়েছে। ঈদ উপলক্ষে ঘরমুখো যাত্রীদের চাপ বাড়লেও এ রুটে এখনো বাড়ানো হয়নি কোনো লঞ্চ। বর্তমানে এ রুটে দুটি সিট্রাক ও একটি লঞ্চ চলাচল করলেও ঈদের সময় যাত্রী চাপ সামাল দেওয়া অসম্ভব হয়ে পড়বে। তাই বাধ্য হয়েই ছোট ছোট ট্রলারে নদী পারাপার হবেন যাত্রীরা।

অবৈধ ট্রলারে যাত্রী পারপার বন্ধে অভিযান চলছে জানিয়েছেন ইলিশা নৌপুলিশের ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মোহাম্মদ শাহজালাল বলেন, লঞ্চ সংকট থাকায় যাত্রীরা বাধ্য হয়ে ট্রলারে পারাপার হন। আমরা নিয়মিত অভিযান করছি।

ভোলা নৌবন্দরের বিআইডব্লিটিএ সহকারী পরিচালক শহিদুল ইসলাম বলেন, ঈদ উপলক্ষে খুব শিগগিরই আরও তিনটি লঞ্চ দেওয়া হবে। তখন আর মানুষের এমন ভোগান্তি থাকবে না।


আরও খবর



ভাসানটেক সরকারি কলেজে

ক্রীড়া-সাহিত্য-সাংস্কৃতিক প্রতিযোগিতার পুরস্কার বিতরণ

প্রকাশিত:রবিবার ২২ মে 20২২ | হালনাগাদ:রবিবার ২২ মে 20২২ | ৩৩৫জন দেখেছেন
দর্পণ নিউজ ডেস্ক

Image

ঢাকার ভাসানটেক সরকারি কলেজের বার্ষিক ক্রীড়া, সাহিত্য ও সাংস্কৃতিক প্রতিযোগিতার পুরস্কার বিতরণ ও সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান ২১ মে (শনিবার) কলেজের স্বাধীনতা মিলনায়তনে অনুষ্ঠিত হয়। পুরস্কার বিতরণ অনুষ্ঠানে বক্তাগণ শিক্ষার্থীদের পরিপূর্ণ মানসিক ও শারীরিক বিকাশে শিক্ষার পাশাপাশি ক্রীড়া ও সংস্কৃতি চর্চার উন্মুক্ত সুযোগ জরুরি বলে মন্তব্য করে কলেজে পড়াশুনার পাশাপাশি প্রতিযোগিতামূলক খেলাধুলা ব্যবস্থার ভূয়সী প্রশংসা করেন এবং শিক্ষার্থীদের পড়ালেখার সাথে মানবিক গুণাবলি অর্জনের ওপর গুরুত্বারোপ করেন।

তারা বলেন, প্রাতিষ্ঠানিক জ্ঞান অর্জনের পাশাপাশি খেলাধুলা, শিল্প-সাহিত্য ও সাংস্কৃতিক চর্চা, সামাজিক কর্মকাণ্ড, রাষ্ট্রীয় অনুষ্ঠানসহ বিভিন্ন ক্ষেত্রে আমাদের অংশীদারিত্ব সমন্বয় করে চলতে হবে। অবশ্যই খেয়াল রাখতে হবে শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের মাধ্যমে আমরা যে জ্ঞান অর্জন করছি সেটা যেন আমাদের বাস্তব জীবনে কাজে লাগাতে পারি। শুধু পড়া লেখায় নয়, ভাল মানুষ এবং সুনাগরিক হতে হলে খেলাধুলার এবং শিল্প-সাহিত্য ও সাংস্কৃতিক চর্চার কোন বিকল্প নেই। এসব কর্মকাণ্ড উন্নত জাতি গঠনে সহায়ক ভূমিকা যেমন রাখে, তেমনি আমাদের শরীর ও মনকে সতেজ রাখে। সেইসাথে শিক্ষার্থীদের অবশ্যই বঙ্গবন্ধু,ভাষা আন্দোলন, মুক্তিযুদ্ধসহ দেশের সঠিক ইতিহাস জানতে হবে এবং শৃঙ্খলার সাথে জীবন পরিচালিত করতে হবে।

বার্ষিক ক্রীড়া, সাহিত্য ও সাংস্কৃতিক প্রতিযোগিতার পুরস্কার বিতরণ ও সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠানে সভাপতিত্ব করেন ভাসানটেক সরকারি কলেজের অধ্যক্ষ অধ্যাপক মাহমুদা খাতুন। প্রধান অতিথি হিসেবে দিনব্যাপী আয়োজনের উদ্বোধন ও পুরস্কার বিতরণ করেন মাধ্যমিক ও উচ্চশিক্ষা অধিদপ্তরের মহাপরিচালক অধ্যাপক নেহাল আহমেদ। পুরস্কার বিতরণ অনুষ্ঠানে স্বাগত বক্তব্য রাখেন ক্রীড়া এবং সাহিত্য ও সাংস্কৃতিক প্রতিযোগিতার আহবায়ক এবং কলেজের দর্শন বিভাগের সহযোগী অধ্যাপক ড. মো. বজলুর রহমান রফিক। বিশেষ অতিথি হিসেবে বক্তব্য রাখেন কলেজের শিক্ষক পরিষদের সম্পাদক আতিয়া খন্দকার, মাধ্যমিক ও উচ্চ মাধ্যমিক শিক্ষা অধিদপ্তরের পরিচালক (মনিটরিং এণ্ড ইভ্যালুয়েশন) অধ্যাপক আমির হোসেন, পরিচালক (ঢাকা অঞ্চল) অধ্যাপক মো: মনোয়ার হোসেন প্রমুখ।

শনিবার অনুষ্ঠানের শুরুতে সকাল সাড়ে ১০টায় প্রধান অতিথিবৃন্দ সকলে বঙ্গবন্ধু স্মৃতি স্মারক বাংলাদেশের হৃদয় হতে’ ম্যুরালে পুষ্পস্তবক প্রদান করেন, বৃক্ষরোপন করেন এবং শেখ রাসেল দেয়ালিকা কর্নার পরিদর্শন করেন। তিনি কলেজের আইটি ও ভাষা ল্যাব-এরও উদ্বোধন করেন। মিলনায়তনে আয়োজিত পুরস্কার বিতরণ ও সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠানের শুরুতেই জাতীয় সঙ্গীত পরিবেশন শেষে সদ্য প্রয়াত বিশিষ্ট সাংবাদিক, লেখক আবদুল গাফফার চৌধুরীর স্মৃতির প্রতি শ্রদ্ধা জানিয়ে দাঁড়িয়ে এক মিনিট নিরবতা পালন করা হয়। অনুষ্ঠানে বিভিন্ন প্রতিযোগিতায় বিজয়ী ছাত্র-ছাত্রীদের মাঝে পুরস্কার প্রদান করা হয়। শেষ পর্বে উপস্থিত অতিথিবৃন্দসহ শিক্ষক-শিক্ষার্থীরা মনোজ্ঞ সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান উপভোগ করেন।

অনুষ্ঠানে আলোচনায় অংশ নিয়ে বক্তাগণ বলেন, শিক্ষা, খেলাধূলা এবং সংস্কৃতি একে অপরের পরিপূরক। ক্রীড়া, শিল্প-সাহিত্য, সংস্কৃতি ও সৃজনশীল কর্মকাণ্ডে অংশগ্রহণের মাধ্যমে শিক্ষার্থীদের শারীরিক ও মানসিক বিকাশ ঘটে। যার ফলে শিক্ষার্থীরা নিজেদের সুনাগরিক হিসেবে নিজেকে গড়ে তুলতে পারে। শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানে লেখাপড়ার পাশাপাশি ক্রীড়া ও সাংস্কৃতিক চর্চায় সমান গুরুত্ব দেওয়ার আহ্বান জানিয়ে তারা আরো বলেন, প্রতিযোগিতার মধ্য দিয়ে শিশুদের মেধা ও মননের বিকাশ ঘটে। শিক্ষার্থীদের  শুধুমাত্র পড়ালেখা করলে হবে না, এর পাশাপাশি সহশিক্ষা কার্যক্রম হিসাবে ক্রীড়া, শিল্প-সাহিত্য ও সাংস্কৃতিক চর্চা নিয়মিতভাবে করতে হবে। তবেই শিক্ষার্থীর সৃজনশীলতা, মননশীলতা বিকশিত হবে। প্রতিটি শিক্ষার্থীকে ভালো ছাত্র হওয়ার আগে অবশ্যই একজন মানবিক গুণাবলী সম্পন্ন ভালো মানুষ হতে হবে। বঙ্গবন্ধুর সোনার বাংলা বিনির্মাণে ‘সোনার মানুষ’ হিসেবে গড়ে উঠতে শিক্ষার্থীদের আন্তরিক প্রয়াসী হওয়ার প্রতিও সকলে আহ্বান জানান।


আরও খবর



ঈদে ভক্তদের জন্য কর্নিয়ার ‘শাকালাকা মন’

প্রকাশিত:শনিবার ৩০ এপ্রিল ২০২২ | হালনাগাদ:শনিবার ৩০ এপ্রিল ২০২২ | ৪১০জন দেখেছেন
দর্পণ নিউজ ডেস্ক

Image

এই সময়ের জনপ্রিয় গায়িকাদের একজন জাকিয়া সুলতানা কর্নিয়া। ২০১২ সালে পাওয়ার ভয়েস প্রতিযোগিতা থেকে তার উঠে আসা। এরইমধ্যে একাধিক শ্রোতাপ্রিয় গান উপহার দিয়েছেন তিনি। এবার ঈদে তিনটি গান নিয়ে আসছেন এই গায়িকা। তারমধ্যে সবচেয়ে বেশি আগ্রহের তালিকায় রয়েছে শাকালাকা মন। গানটির কথা লিখেছেন অর্জিন। সুর ও সংগীতায়োজনে নাভেদ পারভেজ। ভিডিও নির্মাণ করেছেন উজ্জ্বল রহমান। এতে নেচে গেয়ে পারফর্ম করেছেন গায়িকা নিজেই।


গানটি নিয়ে কর্নিয়া বলেন, রাস্তা দিয়ে একটা মেয়ে যখন হাই হিল পরে হেঁটে যায় তখন আশপাশে থাকা ছেলেরা অবাক হয়ে থাকিয়ে থাকে। খুশিতে তাদের নাচতে ইচ্ছে করে এমনই গল্প নিয়ে এই গান-ভিডিওটি তৈরি করা হয়েছে। ভিডিওতে আমি হাই হিল পরেছি, নেচেছি। সব মিলিয়ে খুব এন্টারটেইনিং একটা কাজ হয়েছে। গানটি দর্শক-শ্রোতাদের এবারের ঈদ আনন্দে বাড়তি মাত্রা যোগ করবে বলে আমার বিশ্বাস

উল্লেখ্য, ঈদে কর্নিয়ার শাকালাকা মন গানচিত্রটি উন্মুক্ত করা হবে ইউটিউবে আরটিভি মিউজিকের চ্যানেলে।


আরও খবর



সাভারে মেশিনের নিচে চাপা পড়ে পোশাক শ্রমিকের মৃত্যু

প্রকাশিত:রবিবার ১৫ মে ২০২২ | হালনাগাদ:রবিবার ১৫ মে ২০২২ | ৪০০জন দেখেছেন

Image

সাভার (ঢাকা) প্রতিনিধি:

সাভারে একটি পোষাক তৈরীর গার্মেন্টসের মেশিনের নিচে চাপা পড়ে এক শ্রমিকের মৃত্যুর ঘটনা ঘটে। রোববার (১৫ মে) বেলা ১২টার দিকে বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন শিল্প পুলিশের সহকারী উপ-পরিদর্শক (এএসআই) কুরবান আলী।

এরআগে, শনিবার (১৪ মে) রাতে কাজী আবেদীন টেক্স লিমিটেড নামের পোশাক তৈরি কারখানার একটি মেশিন সরাতে গিয়ে তারা মিয়া (৪০) নামের গার্মেন্টস শ্রমিকের মৃত্যু ঘটে ৷

নিহত তারা মিয়া সাভারের বনপুকুর এলাকার মোঃ সিরাজের ছেলে। তিনি কাজী আবেদীন টেক্স লিমিটেড কারখানায় অপারেটর হিসেবে কাজ করতেন।

স্থানীয়রা জানায়, গতকাল রাতে কারখানায় মেশিন সরানোর সময় নিচে পড়ে গুরুতর আহত হয় তারা মিয়া। পরে তাকে উদ্ধার এনাম মেডিকেল হাসপাতালে নেওয়া হলে কর্তব্যরত চিকিৎসক তাকে মৃত ঘোষণা করে৷ পরে ময়নাতদন্তের জন্য তাকে সোহরাওয়ার্দী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে পাঠানো হয়েছে।

শিল্প পুলিশ-১ এর সাভার জোন সহকারী উপ-পরিদর্শক (এএসআই) কুরবান আলী বলেন, গতকাল রাতে কারখানায় শ্রমিক আহত হয়। পরে হাসপাতালে নিয়ে গেলে তার মৃত্যু হয়। তার মরদেহ এখন সোহরাওয়ার্দী মেডিকেলে আছে৷


আরও খবর



কোনো ষড়যন্ত্রই জাতিকে পিছিয়ে দিতে পারবে না : কাদের

প্রকাশিত:শুক্রবার ২০ মে ২০22 | হালনাগাদ:শুক্রবার ২০ মে ২০22 | ২৯০জন দেখেছেন
দর্পণ নিউজ ডেস্ক

Image

আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ওবায়দুল কাদের বলেছেন, জনকল্যাণমুখী সৎ-সাহসী ও দেশপ্রেমিক নেতা রাষ্ট্র পরিচালনার দায়িত্বে থাকলে, কোনো ষড়যন্ত্রই জাতিকে পিছিয়ে দিতে পারবে না। বঙ্গবন্ধু কন্যা প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা ও পদ্মা সেতু তার জ্বলন্ত দৃষ্টান্ত।

আজ শুক্রবার এক বিবৃতিতে ওবায়দুল কাদের একথা বলেন।

বিবৃতিতে সড়ক পরিবহণ ও সেতুমন্ত্রী বলেন, সকল প্রতিবন্ধকতা ডিঙিয়ে সফলভাবে পদ্মা সেতু নির্মাণ নিয়ে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার দেওয়া বক্তব্য নিয়ে বিএনপি মহাসচিব ও তাদের নেতারা দূরভিসন্ধিমূলক ভুল ব্যাখ্যা দিয়ে বিভ্রান্তি সৃষ্টির পাঁয়তারায় লিপ্ত রয়েছে। এমনকি বিষয়টি ভিন্নখাতে প্রবাহিত করে উদ্দেশ্যপ্রণোদিতভাবে তথাকথিত হত্যার হুমকির বয়ান তৈরি করছে বিএনপি।

সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদের তাঁর বিবৃতিতে স্পষ্ট করে বলেন, বিরোধী পক্ষকে দমন ও পীড়নের রাজনীতি আওয়ামী লীগ করে না। বরং বিএনপির প্রতিষ্ঠাতা জিয়াউর রহমানের নেতৃত্বেই ১৫ আগস্ট জাতির পিতা বঙ্গবন্ধুকে সপরিবারে হত্যার মধ্য দিয়ে বিএনপির হাত ধরেই হত্যা-ক্যু- ষড়যন্ত্রের মাধ্যমে বিরোধী রাজনৈতিক পক্ষকে নির্মূল করার অপরাজনীতি শুরু করা হয়।

এখনো এই চিহ্নিত মহল ক্রমাগতভাবে দেশের স্বার্থ ও জনকল্যাণ বিরোধী বিভিন্ন ষড়যন্ত্র করে যাচ্ছে উল্লেখ করে আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক বলেন, প্রধানমন্ত্রী তাঁর বক্তব্যের মধ্য দিয়ে দেশবিরোধী এই গোষ্ঠীর মুখোশ উন্মোচন ও জনগণকে সতর্ক করতে চেয়েছেন।

সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদের বলেন, বঙ্গবন্ধু কন্যা একজন স্বপ্নবান মানুষ, যিনি বাংলার মানুষের ভাগ্যোন্নয়নে নিরলসভাবে স্বপ্ন বাস্তবায়নে কাজ করে যাচ্ছেন। প্রজন্ম থেকে প্রজন্মন্তরে বাংলার মানুষ শেখ হাসিনার মহিমান্বিত নেতৃত্বকে মূল্যায়ন করবে।

বঙ্গবন্ধু কন্যা শেখ হাসিনার রাজনৈতিক সততা, সাহসিকতা, নিষ্ঠা ও বলিষ্ঠ নেতৃত্ব আজ তাঁকে বিশ্বসভায় এক অনন্য সফল রাষ্ট্রনায়ক হিসেবে অভিষিক্ত করেছে বলে জানান ওবায়দুল কাদের।

গত চার দশকে বাংলাদেশের যা কিছু অর্জন, তা একমাত্র শেখ হাসিনার নেতৃত্বেই অর্জিত হয়েছে উল্লেখ করে আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক তাঁর বিবৃতিতে আরো বলেন, শেখ হাসিনার নেতৃত্বে বাংলাদেশ আজ উন্নয়ন- অগ্রগতি ও সমৃদ্ধির অভিযাত্রায় এগিয়ে যাচ্ছে, আগামীতেও এগিয়ে যাবে। কোন প্রকার ষড়যন্ত্র, অপপ্রচার অগ্রগতির এই গতিধারা থামাতে পারবে না।


আরও খবর