আজঃ রবিবার ০৫ ডিসেম্বর ২০২১
শিরোনাম

ইউপি চেয়ারম্যান পদে এবার তৃতীয় লিঙ্গের ঋতু

প্রকাশিত:বৃহস্পতিবার ১৮ নভেম্বর ২০২১ | হালনাগাদ:বৃহস্পতিবার ১৮ নভেম্বর ২০২১ | ৭৬৫জন দেখেছেন
দর্পণ নিউজ ডেস্ক

Image

ঝিনাইদহ জেলার কালীগঞ্জ উপজেলার ত্রিলোচনপুর ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচনে তৃতীয় লিঙ্গ (হিজরা) নজরুল ইসলাম ঋতু চেয়ারম্যান পদে প্রার্থী হয়েছেন। আনারস প্রতীক নিয়ে তিনি প্রতিদ্বন্দ্বিতা করছেন। এই প্রথম তৃতীয় লিঙ্গের প্রার্থী হওয়ায় এলাকায় আলোড়ন সৃষ্টি হয়েছে। আগামী ২৮ নভেম্বর ভোট গ্রহণ অনুষ্ঠিত হবে।

কালীগঞ্জ উপজেলার দাদপুর গ্রামের বাসিন্দা নজরুল ইসলাম ঋতু ঢাকার যাত্রাবাড়ীতে থাকেন। চার ভাইয়ের মধ্যে তিনি তৃতীয়। মাঝে মধ্যে গ্রামে আসেন। কিছু সামাজিক কাজকর্ম করেন। আপদ বিপদে গ্রামের মানুষকে সাহায্য করেন। এভাবেই এলাকায় পরিচিত হয়ে উঠেন।

করোনায় আরও পাঁচজনের মৃত্যু, শনাক্ত  ২৪৪করোনায় আরও পাঁচজনের মৃত্যু, শনাক্ত  ২৪৪

নজরুল ইসলাম ঋতু জানান, স্বতন্ত্র প্রার্থী হিসাবে আনারস মার্কা নিয়ে লড়ছেন। ভোটার তালিকায় তার নাম আছে নজরুল হিজরা বলে। এ নামেই তিনি মনোনয়নপত্র জমা দিয়েছেন। নির্বাচনে তার প্রতিদ্বন্দ্বী নৌকার মার্কার প্রার্থী বর্তমান চেয়ারম্যান নজরুল ইসলাম ও ইসলামী আন্দোলন বাংলাদেশ মনোনীত পাখা মার্কার প্রার্থী মো. মাহবুবুর রহমান।  বিজয়ী হলে তিনি এলাকার উন্নয়ন ও মানুষের  সেবা করবেন বলে জানান।

প্রতীক নিয়ে তিনি ভোটারদের বাড়ি বাড়ি যাচ্ছেন। ভোট চাচ্ছেন, দোয়া চাচ্ছেন। প্রচারে গেলে উৎসাহী ভোটাররা তার পাশে ভিড় করছেন।

নিউজ ট্যাগ: ইউপি চেয়ারম্যান

আরও খবর



বালুবাহী ট্রাক্টরচাপায় প্রাণ গেল কলেজছাত্রের

প্রকাশিত:মঙ্গলবার ৩০ নভেম্বর ২০২১ | হালনাগাদ:মঙ্গলবার ৩০ নভেম্বর ২০২১ | ২৫৫জন দেখেছেন
দর্পণ নিউজ ডেস্ক

Image

নওগাঁর আত্রাইয়ে সড়ক দুর্ঘটনায় নাইমুল হাসান নাইম (২১) নামে এক কলেজছাত্র নিহত হয়েছে। গতকাল সোমবার (২৯ নভেম্বর) রাতে উপজেলার পুরাতন রেলওয়ে স্টেশনের খোলাপাড়া এলাকায় এই দুর্ঘটনা ঘটে। সে রানীনগর উপজেলার আমিলপুর গ্রামের ইউনুস আলীর ছেলে এবং নওগাঁ সরকারি ডিগ্রি কলেজের অনার্স তৃতীয় বর্ষের ছাত্র।

স্থানীয় ও পুলিশ সূত্রে জানা গেছে, গতকাল সোমবার রাত ৮টার দিকে কলেজ ছাত্র নাইমুল ও তার বন্ধু আকাশ মোটরসাইকেল যোগে আত্রাই থেকে নিজ বাড়িতে ফিরছিলেন। পথিমধ্যে নওগাঁ-আত্রাই সড়কের আত্রাই পুরাতন রেলওয়ে স্টেশনের খোলাপাড়া এলাকায় একটি বালুবাহী ট্রাক্টরের সঙ্গে তাদের ধাক্কা লাগে। এতে মোটরসাইকেল থেকে দুজনই ছিটকে পড়ে গেলে ওই ট্রাক্টর তাদের চাপা দিয়ে পালিয়ে যায়।

পরে স্থানীয়রা তাদের গুরুতর আহত অবস্থায় উদ্ধার করে আত্রাই উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নিয়ে যায়। সেখানে নাইম মারা যায় এবং আকাশের অবস্থা আশঙ্কাজনক হওয়ায় উন্নত চিকিৎসার জন্য তাকে রামেক হাসপাতালে প্রেরণ করা হয়েছে।

আত্রাই থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) আবুল কালাম আজাদ ঘটনার সত্যতা নিশ্চিত করেছেন।


আরও খবর



বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব রেলসেতু নির্মাণে ব্যবহৃত হবে বসুন্ধরা সিমেন্ট

প্রকাশিত:বৃহস্পতিবার ১৮ নভেম্বর ২০২১ | হালনাগাদ:বৃহস্পতিবার ১৮ নভেম্বর ২০২১ | ৪৬৫জন দেখেছেন
দর্পণ নিউজ ডেস্ক

Image

বসুন্ধরা সিমেন্ট ও আইএইচআই-এসএমসিসি জেভির মধ্যে বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব রেলসেতু প্রকল্পে সিমেন্ট সরবরাহ চুক্তি সই হয়েছে। বৃহস্পতিবার (১৮ নভেম্বর) বসুন্ধরা সিমেন্ট ও আইএইচআই-এসএমসিসি জেভির মধ্যে ওই চুক্তি সই হয়।

স্বনামধন্য দুটি জাপানি নির্মাণ প্রতিষ্ঠান আইএইচআই (ইশিকাবাজিমা-হারিমা হেভি ইন্ডাস্ট্রিজ কো. লিমিটেড) এবং এসএমসিসি (সুমিতোমো মিতসুই কনস্ট্রাকশন কো. লিমিটেড) এর যৌথ উদ্যোগে নির্মিত এই প্রকল্পের মধ্য দিয়ে যোগাযোগ ব্যবস্থার আরো উন্নয়ন ও সহজীকরণ সম্ভব হবে।

দেশের সর্ববৃহৎ ও সর্বাধুনিক ভিআরএম প্রযুক্তিতে তৈরি বসুন্ধরা সিমেন্ট। ফ্যাক্টরি, উৎপাদন ক্ষমতা, সরবরাহ ব্যবস্থা ও সর্বোপরি গুণগতমানের নিশ্চয়তা যাচাই সাপেক্ষে বসুন্ধরা সিমেন্টেকে বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব রেলসেতু প্রকল্প নির্মাণ কাজে ব্যবহার করার যৌথভাবে সিদ্ধান্ত নিয়েছে এ দুটি জাপানি প্রতিষ্ঠান।

অনুষ্ঠানে আইএইচআই-এসএমসিসি জেভির পক্ষ থেকে উপস্থিত ছিলেন প্রজেক্ট ম্যানেজার শিনজি কাইফুকু, ডেপুটি প্রজেক্ট ম্যানেজার ইয়াসুইয়োশি ওয়াতানাবে, লিড, কিউএ/কিউসি তানজিল আহমেদ আপন এবং বসুন্ধরা গ্রুপের পক্ষ থেকে চিফ মার্কেটিং অফিসার (সিমেন্ট সেক্টর) খন্দকার কিংশুক হোসেন, চিফ এক্সেকিউটিভ অফিসার (বিআইডিএল-ড্রেজিং) কমোডর এম খুরশিদ মালিক (অব.), হেড অব ফাইন্যান্স (ট্রেজারার, সেক্টর বি) নূরে আলম ছিদ্দিকী, এজিএম (করপোরেট সেলস) এ কে এম লুৎফুল হক (খসরু) এবং অন্যান্য ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তারা।


আরও খবর
আলেশা মার্টের কার্যক্রম বন্ধ ঘোষণা

বৃহস্পতিবার ০২ ডিসেম্বর 2০২1




১০ নভেম্বর: ইতিহাসের এই দিনে

প্রকাশিত:বুধবার ১০ নভেম্বর ২০২১ | হালনাগাদ:বুধবার ১০ নভেম্বর ২০২১ | ৫৯৫জন দেখেছেন
দর্পণ নিউজ ডেস্ক

Image
এক নজরে দেখে নিন ইতিহাসের এ দিনে ঘটে যাওয়া উল্লেখযোগ্য ঘটনা, বিশিষ্টজনের জন্ম-মৃত্যুদিনসহ গুরুত্বপূর্ণ আরও কিছু বিষয়

১০ নভেম্বর গ্রেগরীয় বর্ষপঞ্জী অনুসারে বছরের ৩১৫তম (অধিবর্ষে ৩১৬তম) দিন। বছর শেষ হতে আরো ৫০ দিন বাকি রয়েছে। এক নজরে দেখে নিন ইতিহাসের এ দিনে ঘটে যাওয়া উল্লেখযোগ্য ঘটনা, বিশিষ্টজনের জন্ম-মৃত্যুদিনসহ গুরুত্বপূর্ণ আরও কিছু বিষয়।


ঘটনাবলি

    ১৪৯৮ - পর্তুগালের বিখ্যাত নাবিক ভাস্কো দা গামার সমুদ্র অভিযান শুরু হয়।

    ১৭৯৩ - শিক্ষাব্রতী ধর্মযাজক উইলয়াম কেরি ইংল্যান্ড থেকে কলকাতায় এসে পৌঁছান।

    ১৭৯৮ -  ব্রিটিশ গভর্নরের আদেশে কলকাতায় রবিবারে ঘোড়দৌড় ও সব রকম জুয়াখেলা নিষিদ্ধ হয়।

    ১৮৬৬ - কেশব চন্দ্র সেনের নেতৃত্বে কলকাতায় ভারতবর্ষীয় আদি ব্রহ্মসমাজ প্রতিষ্ঠিত হয়।

    ১৯০৮ -  এলিজাবেথ ন্যারেথ অ্যান্ডারসন বৃটেনের প্রথম মহিলা নির্বাচিত হন।

    ১৯১৭ -  রাশিয়ায় বিপ্লবের পর লেনিনের নেতৃত্বে গঠিত হয় শ্রমিক-কৃষকের প্রথম সরকার।

    ১৯১৮ - মিত্রশক্তি ও জার্মানির মধ্যে যুদ্ধবিরতি চুক্তি স্বাক্ষরিত। প্রথম বিশ্বযুদ্ধের পরিসমাপ্তি।

    ১৯৪২ - দ্বিতীয় বিশ্বযুদ্ধের সময় নাৎসিরা ফ্রান্স দখল করে।

    ১৯৫২ - ক্যালিফোর্নিয়ায় প্রথম ভিডিও রেকর্ডারের কার্যক্রম প্রদর্শিতি হয়।

    ১৯৫৩ - পোলিও রোগের ভাইরাস আবিস্কৃত হয়।

    ১৯৬৫ - ব্রিটেনে হত্যার দায়ে মৃত্যুদন্ড আইন রহিত ঘোষণা করা হয়।

    ১৯৬৬ - এডুইন ইউগেন অলড্রিন এবং জেমস এ লোভেল নভোযান জিনিনি-১২ তে চড়ে চারদিনের সফরে মহাশূন্যে যাত্রা করেন।

    ১৯৬৮ - মালদ্বীপের প্রজাতন্ত্র গঠিত হয়।

    ১৯৭০ - ইসলামী সম্মেলন সংস্থা (ওআইসি) প্রতিষ্ঠিত হয়।

    ১৯৭২ - বাংলাদেশ আওয়ামী যুবলীগের প্রতিষ্ঠা করা হয়।

    ১৯৮২ - দক্ষিণ লেবাননে ঘাঁটি গেড়ে বসা ইহুদীবাদী ইসরাইলের সেনা কমান্ডের সদর দফতরে শহীদ আহমাদ কাসির ভয়াবহ বোমা হামলা চালান।

    ১৯৮৯ - বার্লিন প্রাচীর ভেঙ্গে ফেলার কাজ শুরু হয়।

    ১৯৯০ -  নেপালের রাজা বীরেন্দ্র নতুন সংবিধান চালু করে দলহীন পঞ্চায়েত ব্যবস্থার অবসান ঘটান।

    ১৯৯০ -  মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র উপসাগর এলাকায় দুই লাল সেনা পাঠায়।

    ১৯৯১ - কিউবা থেকে সোভিয়েত ফৌজ প্রত্যাহারের কথা ঘোষণা করা হয়।

    ১৯৯৫ - মানবাধিকার লংঘনের অভিযোগে কমনওয়েলথ থেকে নাইজেরিয়ার সদস্যবাতিল করা হয়।

    ১৯৯৬ - বাংলাদেশ ভারত সীমান্ত বাণিজ্য চালুর সিদ্ধান্ত গ্রহণ করা হয়।

    ১৯৯৯ -  জাতিসংঘ সংস্থা ইউনেস্কো নির্বাহী পরিষদের নির্বাচনে বাংলাদেশ এশিয়া প্যাসিফিক গ্রুপ থেকে সদস্য নির্বাচিত হয়।

 

জন্ম

    ১৪৯৩ - পারাচেলসুস, সুইস জার্মান চিকিৎসক, উদ্ভিদবিদ ও জ্যোতিষী।

    ১৭৪৩ - কার্ল পিটার থাউনবেরগ, সুইডিশ উদ্ভিদবিদ, পতঙ্গবিশারদ ও মনোবৈজ্ঞানিক।

    ১৭৭১ - মারি ফ্রাঁসোয়া বিশা, আধুনিক কোষতত্ত্বের জনক।

    ১৮১৮ - রাশিয়ার খ্যাতনামা উপন্যাস লেখক ইভান তুরগেনেভ।

    ১৮২১ - ফিওদোর দস্তয়েভ্‌স্কি, বিখ্যাত রুশ সাহিত্যিক।

    ১৮৩২ - এমিলে গাবরিয়াউ, তিনি ছিলেন ফরাসি লেখক ও সাংবাদিক।

    ১৮৪১ - ব্রিটেন ও আয়ারল্যান্ডের রাজা সপ্তম অ্যাডওয়ার্ড।

    ১৮৬৪ - আলফ্রেড হারমান ফ্রিয়েড, নোবেল পুরস্কার বিজয়ী অস্ট্রিয়ান সাংবাদিক ও সমাজ কর্মী।

    ১৮৭২ - ভারতের খ্যাতনামা হিন্দুস্তানি শাস্ত্রীয় সংগীত শিল্পী আবদুল করিম খাঁ।

    ১৮৭৬ - স্যার আবদুল হালিম গজনভি, বাঙালি রাজনীতিবিদ, শিল্পপতি।

    ১৮৭৭ - আল্লামা মুহাম্মদ ইকবাল, তিনি ছিলেন বিভাগপূর্ব ভারতবর্ষের ফার্সী ভাষী মুসলিম কবি, দার্শনিক ও রাজনীতিবিদ।

    ১৮৮৫ - ডি.এইচ লরেন্স, ইংরেজ সাহিত্যিক।

    ১৮৮৮ - মাওলানা আবুল কালাম আজাদ ভারতীয় স্বাধীনতা আন্দোলনের নেতা ও ভারতের প্রথম শিক্ষামন্ত্রী।

    ১৮৯৭ - রোনাল্ড জর্জ রেফর্ড নোরিশ, তিনি ছিলেন নোবেল পুরস্কার বিজয়ী ইংরেজ রসায়নবিদ ও অধ্যাপক।

    ১৯০১ - আলেকসান্দার ফাদায়েভ, সোভিয়েত লেখক।

    ১৯০৭ - সুফী মোতাহার হোসেন, বাঙালি কবি।

    ১৯০৮ - গজেন্দ্রকুমার মিত্র, ভারতীয় কথাসাহিত্যিক ও প্রকাশক।

    ১৯১১ - জ্যোতিরিন্দ্র মৈত্র, বিংশ শতকের অন্যতম প্রধান আধুনিক বাঙালি গায়ক ও কবি।

    ১৯১৩ - হেডি লেমার, তিনি ছিলেন অস্ট্রীয় বংশোদ্ভূত মার্কিন চলচ্চিত্র অভিনেত্রী।

    ১৯১৪ - হাওয়ার্ড ফাস্ট, মার্কিন লেখক ও চিত্রনাট্যকার।

    ১৯২৮ - হুমায়ূন রশীদ চৌধুরী, বাংলাদেশের জাতীয় সংসদের স্পীকার ও কূটনীতিবিদ।

    ১৯২৮ - কার্লোস ফুয়েন্তেস, মেক্সিকান ঔপন্যাসিক।

    ১৯২৯ - ইমরে কার্তেজ, তিনি নোবেল পুরস্কার বিজয়ী হাঙ্গেরিয়ান লেখক।

    ১৯৩২ - অনিতা বসু , ব্রিটিশ বিরোধী স্বাধীনতা আন্দোলনের একজন ব্যক্তিত্ব

    ১৯৩৫ - রবীন্দ্র সংগীতে ১৯৯৭ সালে সংগীত নাটক অকাদেমি পুরস্কার প্রাপ্ত অর্ঘ্য সেন, বিশিষ্ট রবীন্দ্র সংগীত শিল্পী।

    ১৯৩৬ - মালা সিনহা, নেপালী-ভারতীয় অভিনেত্রী।

    ১৯৩৬ - সুজান কোনার, মার্কিন টেলিভিশন ও চলচ্চিত্র অভিনেত্রী।

    ১৯৩৯ - আব্দেল মাজিদ লাখাল, তিউনিশিয়ার অভিনেতা ও পরিচালক।

    ১৯৪৮ - লুইজ ফেলিপে স্কলারি, তিনি সাবেক ব্রাজিলের ফুটবলার ও ম্যানেজার।

    ১৯৬০ - আনড্রেয়াস ব্রেহমা, তিনি সাবেক জার্মান ফুটবলার ও ম্যানেজার।

    ১৯৬৪ - অ্যালিসন ডোডয়, আইরিশ মডেল ও অভিনেত্রী।

    ১৯৬৭ - রিকি আটর, তিনি ইংরেজ ফুটবলার।

    ১৯৭৪ - লিওনার্ডো ডিক্যাপ্রিও, মার্কিন অভিনেতা ও প্রযোজক।

    ১৯৭৭ - মানিশ, পর্তুগিজ ফুটবলার।

    ১৯৮৩ - ফিলিপ লাম, জার্মান ফুটবলার।

    ১৯৮৪ - সেভেন, তিনি দক্ষিণ কোরিয়ার গায়ক, ড্যান্সার ও অভিনেতা।

    ১৯৯০ - জরজিনিও ওয়িজনাল্ডুম, ওলন্দাজ ফুটবলার।

 

মৃত্যু

    ০৯৫৯ - কনস্টান্টটাইন সপ্তম, তিনি ছিলেন বাইজেন্টাইনের সম্রাট।

    ১০২৮ - কনস্ট্যান্টিন অষ্টম, তিনি ছিলেন বাইজেন্টাইন সম্রাট।

    ১৭৭৮ - গিওভানি বাটিস্টা পিরানেসি, তিনি ছিলেন ইতালিয়ান ভাস্কর ও চিত্রকর।

    ১৮২৩ - অর্থনীতিবিদ ডেভিট রিকার্ডো।

    ১৮৪৮ -  রবার্ট বলুম, তিনি ছিলেন জার্মান কবি ও রাজনীতিবিদ।

    ১৮৫৫ - সারেন কিয়েরকেগর ডেনীয় দার্শনিক এবং তাত্ত্বিক।

    ১৯১৯ - পাভেল খিস্ট্যাকভ, তিনি ছিলেন রাশিয়ান চিত্রশিল্পী ও শিক্ষক।

    ১৯২৩ - সমাজসেবক রাজনীতিক লেখক আশ্বিনীকুমার দত্ত।

    ১৯৪৮ - পাকিস্তানের প্রতিষ্ঠাতা মোহাম্মদ আলী জিন্নাহ।

    ১৯৫৩ - ইংরেজ কবি ডিলান টমাস।

    ১৯৫৩ - সৌদি আরবের বাদশাহ আবদুল আজিজ ইবন সৌদ।

    ১৯৭০ - জেনারেল চার্লস দ্য গল, তিনি ছিলেন ফরাসি সাধারণ ও নীতি ও ১৮ তম প্রেসিডেন্ট।

    ১৯৭১ - সোভিয়েত রাষ্ট্রনায়ক নিকিতা ক্রুশ্চেভ।

    ১৯৭৩ - আর্টটুরি ইলমারি ভিরটানেন, তিনি ছিলেন নোবেল পুরস্কার বিজয়ী ফিনিশ রসায়নবিদ ও একাডেমিক।

    ১৯৮০ - উপমহাদেশের বিশিষ্ট কমিউনিস্ট নেতা পি সি যোশী।

    ১৯৮৪ - প্রখ্যাত বাঙালি নট ও নাট্যকার মহেন্দ্র গুপ্ত।

    ১৯৮৫ - মারি-জর্জ পাস্কাল, তিনি ছিলেন ফরাসি অভিনেত্রী।

    ১৯৮৭ - প্রগতিবাদী রাজনৈতিক নেত্রী মণিকুন্তলা সেন।

    ১৯৯৯ - মোহাম্মদউল্লাহ, বাংলাদেশের রাষ্ট্রপতি ছিলেন।

    ২০০১ - জিওভান্নি লিওন, তিনি ছিলেন ইতালীয় রাজনীতিবিদ ও ৬ষ্ঠ প্রেসিডেন্ট।

    ২০০৪ - আইরিস চ্যাং, তিনি ছিলেন আমেরিকান ইতিহাসবিদ, সাংবাদিক ও লেখক।

    ২০০৪- ইয়াসির আরাফাত, তিনি ছিলেন নোবেল পুরস্কার বিজয়ী ফিলিস্তিন ইঞ্জিনিয়ার, রাজনীতিবিদ, ফিলিস্তিন জাতীয় কর্তৃপক্ষের ১ম প্রেসিডেন্ট।

    ২০০৫ - পিটার ড্রুকের, অস্ট্রিয়ান বংশোদ্ভূত আমেরিকান লেখক, তাত্তিক ও শিক্ষাবিদ।

    ২০০৮ - ইমাম সামুডরা, তিনি ছিলেন ইন্দোনেশিয়ান সন্ত্রাসীর।

    ২০১২ - সের্গেই নিকলস্কয়, তিনি ছিলেন রাশিয়ান গণিতবিদ ও অধ্যাপক।

 

ছুটি ও অন্যান্য

জাতীয় শিক্ষা দিবস (ভারত)


আরও খবর
শুরু হলো মহান বিজয়ের মাস

বুধবার ০১ ডিসেম্বর ২০২১

১৬ নভেম্বর: ইতিহাসের এই দিনে

মঙ্গলবার ১৬ নভেম্বর ২০২১




আন্তর্জাতিক ক্রিকেটকে বিদায় জানালেন ক্রিস গেল

প্রকাশিত:শনিবার ০৬ নভেম্বর ২০২১ | হালনাগাদ:শনিবার ০৬ নভেম্বর ২০২১ | ৫৪০জন দেখেছেন
দর্পণ নিউজ ডেস্ক

Image

ক্রিকেটের সংক্ষিপ্ত ফরম্যাটের ইউনিভার্স বস হিসেবেই বেশ জনপ্রিয় ওয়েস্ট ইন্ডিজের তারকা ক্রিকেটার ক্রিস গেইল। ক্যারিবীয় এই ব্যাটিং দানব টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপের সপ্তম আসরে নিজেদের শেষ ম্যাচে অবসরের ঘোষণা দেন।

২০১২ ও ২০১৬ সালে ওয়েস্ট ইন্ডিজের টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপজয়ী দলের অনত্যম সদস্য ছিলেন গেইল।

টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপের মতো বড় আসরে ৩৩ ম্যাচে অংশ নিয়ে রেকর্ড ৬৩টি ছক্কা হাঁকিয়েছেন গেইল।

ওয়েস্ট ইন্ডিজের হয়ে ২০০০ সালের মার্চ থেকে ২০১৪ সালের সেপ্টেম্বর পর্যন্ত ১০৩টি টেস্ট খেলে ১৫টি সেঞ্চুরি ৩৭টি ফিফটির সাহায্যে ৭ হাজার ২১৪ রান সংগ্রহ করেন গেইল।

১৯৯৯ সালের সেপ্টেম্বর থেকে ২০১৯ সালের আগস্ট পর্যন্ত ৩০১টি ওয়ানডে ম্যাচে অংশ নিয়ে ২৫টি সেঞ্চুরি আর ৫৪টি ফিফটির সাহায্যে করেছেন ১০ হাজার ৪৮০ রান।

আর ২০০৬ সালের ফেব্রুয়ারি থেকে ২০২১ সালের ৬ নভেম্বর পর্যন্ত আন্তর্জাতিক টি-টোয়েন্টির সংক্ষিপ্ত ফরম্যাটে ৭৮ ম্যাচে অংশ নিয়ে ২টি সেঞ্চুরি আর ১৪টি ফিফটির সাহায্যে গেইলের সংগ্রহ ১ হাজার ৮৮৪ রান।

আন্তর্জাতিক ক্রিকেটে টেস্ট, ওয়ানডে ও টি-টোয়েন্টি মিলে ওয়েস্ট ইন্ডিজের হয়ে ৪৮২ ম্যাচে তৃতীয় সর্বোচ্চ ১৯ হাজার ৫৭৮ রান সংগ্রহ করেন গেইল। ক্যারিবীয় দলের হয়ে ৪৩০ ম্যাচে সবচেয়ে বেশি ২২ হাজার ৩৫৮ রান করেন ব্রায়ান লারা। ৪৫৪ দ্বিতীয় সর্বোচ্চ ২০ হাজার ৯৮৮ রান করেন শিবনারায়ন চন্দরপল।

নিউজ ট্যাগ: ক্রিস গেল

আরও খবর



লালকার্ড হাতে শিক্ষার্থীদের নতুন কর্মসূচি

প্রকাশিত:শনিবার ০৪ ডিসেম্বর ২০২১ | হালনাগাদ:শনিবার ০৪ ডিসেম্বর ২০২১ | ১১৭০জন দেখেছেন
দর্পণ নিউজ ডেস্ক

Image

গণপরিবহনে হাফ পাস ও সড়কে অনিয়ম বন্ধসহ বিভিন্ন দাবির প্রতিবাদে এবার লালকার্ড হাতে নিয়ে আন্দোলনে অংশ নিয়েছেন শিক্ষার্থীরা। আজ (৪ ডিসেম্বর) দুপুর ১২টার পর খিলগাঁও মডেল কলেজের শিক্ষার্থীরা রামপুরা ব্রিজ এলাকায় লাল কার্ড হাতে নিয়ে আন্দোলনে নামেন।

এ সময় তারা নয় দফা দাবি আদায়ে কাল দুপুর ১২টায় শাহবাগ থেকে লাশের প্রতীকী মিছিল করার ঘোষণা দেন। সব শ্রেণি-পেশার মানুষকে মিছিলে অংশ নেওয়ার আহবান জানান আন্দোলনকারী শিক্ষার্থীরা। পাশাপাশি সব জেলায় মানববন্ধন ও ১০ ডিসেম্বর মহাসমাবেশের ঘোষণা দেন তারা।

দাবি পূরণ না হওয়া পর্যন্ত শিক্ষার্থীরা ধারাবাহিকভাবে আন্দোলন চালিয়ে যাবে বলেও ঘোষণা করেন। শিক্ষার্থীদের আন্দোলনে যান চলাচল সম্পূর্ণ বন্ধ না হলেও প্রগতি সরণির এক পাশে যান চলাচল কিছুটা ব্যাহত হচ্ছে।

এর আগে গতকাল শুক্রবার (৩ ডিসেম্বর) সকালে রামপুরা ব্রিজে আন্দোলনরত শিক্ষার্থীদের কর্মসূচিতে মারধরের ঘটনা ঘটে। আন্দোলনের সময় রামপুরা আইডিয়াল স্কুল ও কলেজের এক শিক্ষার্থীকে পুলিশের মারধরের অভিযোগ আনা হয়। এতে ছড়িয়ে পড়ে উত্তেজনা। চালকদের লাইসেন্স না থাকায় গাড়ি থামিয়ে দিলে এমন ঘটনা ঘটে বলে জানায় শিক্ষার্থীরা।

আন্দোলনকারীরা বলেন, সারাদেশের শিক্ষার্থীকেই হাফ পাস দিতে হবে। এদিকে, এইচএসসি পরীক্ষার্থীদের কথা ভেবে সীমিত আকারে আন্দোলন চালিয় যাওয়ার ঘোষণা দেয় শিক্ষার্থীরা।


আরও খবর