আজঃ মঙ্গলবার ০৫ মার্চ ২০২৪
শিরোনাম

ইতিহাসে আজকের এই দিনে

প্রকাশিত:বৃহস্পতিবার ৩০ নভেম্বর ২০২৩ | হালনাগাদ:বৃহস্পতিবার ৩০ নভেম্বর ২০২৩ | অনলাইন সংস্করণ
দর্পণ নিউজ ডেস্ক

Image

আজ বৃহস্পতিবার, ৩০ নভেম্বর ২০২৩। একনজরে দেখে নিন ইতিহাসের এ দিনে ঘটে যাওয়া উল্লেখযোগ্য ঘটনা, বিশিষ্টজনের জন্ম-মৃত্যুদিনসহ গুরুত্বপূর্ণ আরও কিছু বিষয়।

ঘটনাবলি:

১৭৩১ - বেইজিংয়ে ভয়াবহ ভূমিকম্প হয়।

১৭৭৬ - ক্যাপ্টেন কুক প্রশান্ত মহাসাগরে তৃতীয় ও শেষ অভিযান শুরু করেন।

১৭৮২ - ইংল্যান্ড মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের স্বাধীনতা স্বীকার করে।

১৮৩৮ - মেক্সিকো ফ্রান্সের বিরুদ্ধে যুদ্ধ ঘোষণা করে।

১৮৬৩ - উমাচরণ ভট্টাচার্য মুদ্রিত মাসিক পত্রিকা সচিত্র ভারত সংবাদ প্রাকাশিত হয়।

১৮৬৬ - শিকাগোতে প্রথম পানির নিচে হাইওয়ে টানেল তৈরির কাজ শুরু হয়।

১৯৬২ - উথান্ট জাতিসংঘের মহাসচিব নির্বাচিত হন।

১৯৬৬ - বারবাডোজ স্বাধীনতা লাভ করে।

১৯৭৩ - বঙ্গবন্ধু কর্তৃক বাংলাদেশে দালাল আইনে সাজাপ্রাপ্তও বিচারাধীন সকল রাজবন্দীর প্রতি সাধারণ ক্ষমা ঘোষণা করা হয়।

১৯৭৭ - আর্ন্তজাতিক কৃষি উন্নয়ন তহবিল-IFAD প্রতিষ্ঠিত হয়।

১৯৭৭ - হাঁ-না ভোটে জিয়াউর রহমানের গণআস্থা লাভ করেন।

জন্ম:

১৪৮৫ - ইতালির মহিলা কবি ভোরোনিকা গামবারার জন্ম গ্রহণ করেন।

১৫০৮ - আন্ড্রেয়া পালাডিও, তিনি ছিলেন ইতালীয় স্থপতি।

১৫৫৪ - ফিলিপ সিডনি, তিনি ছিলেন ইংরেজ সৈনিক, সভাসদ ও কবি।

১৬৬৭ - বিখ্যাত আইরিশ লেখক জোনাথন সুইফট আয়ারল্যান্ডের রাজধানী ডাবলিনে জন্মগ্রহণ করেন।

১৭৫৬ - আর্নেস্ট চলাডনি, তিনি ছিলেন জার্মান পদার্থবিজ্ঞানী ও লেখক।

১৮১৭ - থিওডর মম্সেন, তিনি ছিলেন নোবেল পুরস্কার বিজয়ী জার্মান আইনজ্ঞ, ঐতিহাসিক ও পণ্ডিত।

১৮৩৫ - স্যামুয়েল ল্যাঙ্গহোর্ণ ক্লিমেন্স, তিনি ছিলেন একজন মার্কিন রম্য লেখক, সাহিত্যিক ও প্রভাষক। তিনি অবশ্য মার্ক টোয়েইন নামে বেশি পরিচিত।

১৮৫৮ - স্যার জগদীশ চন্দ্র বসু, তিনি ছিলেন বাংলাদেশের একজন সফল বিজ্ঞানী।

১৮৬৯ - নিল্স গুস্তাফ দালেন, তিনি ছিলেন নোবেল পুরস্কার বিজয়ী সুইডিশ পদার্থবিজ্ঞানী ও প্রকৌশলী।

১৮৭৪ - উইনস্টন চার্চিল, তিনি ছিলেন ইংরেজ রাজনীতিবিদ ও লেখক।

১৮৮৯ - এডগার ডগলাস আদ্রিয়ান, তিনি ছিলেন নোবেল পুরস্কার বিজয়ী ইংরেজ শারীরবিজ্ঞানী ও একাডেমিক।

১৯০৮ - বুদ্ধদেব বসু, তিনি ছিলেন বিশ শতকের বাঙালি কবি।

১৯১৫ - হেনরি টাউব, তিনি ছিলেন নোবেল পুরস্কার বিজয়ী কানাডিয়ান বংশোদ্ভূত আমেরিকান রসায়নবিদ ও একাডেমিক।

১৯৩৭ - রিডলি স্কট, তিনি ইংরেজ পরিচালক, প্রযোজক তিনি উৎপাদন ডিজাইনার।

১৯৪৩ - টেরেন্স মালিক, তিনি আমেরিকান পরিচালক, প্রযোজক ও চিত্রনাট্যকার।

১৯৪৪ - জর্জ গ্রাহাম, তিনি স্কটিশ ফুটবল খেলোয়াড় ও ম্যানেজার।

১৯৫৩ - নন্দিত সংগীতশিল্পী সুবীর নন্দী।

১৯৬৫ - আল্ডাইর, তিনি সাবেক ব্রাজিলিয়ান ফুটবলার।

১৯৭৮ - গায়েল গার্সিয়া বেরনাল, তিনি মেক্সিক্যান অভিনেতা ও পরিচালক।

১৯৮৪ - নিগেল ডি জং, তিনি ডাচ ফুটবল।

১৯৮৮ - ফিলিপ হিউজ, তিনি ছিলেন অস্ট্রেলীয় ক্রিকেটার।

১৯৯১ - মোহাম্মাদ নাসির হোসেন, তিনি বাংলাদেশী ক্রিকেটার।

মৃত্যু:

১০১৬ - এডমন্ড আয়রনসিডে, তিনি ছিলেন ইংরেজ রাজা।

১৭১৮ - ফ্রান্সের রাজা দ্বাদশ চার্লস যুদ্ধে নিহত হন।

১৭৫৯ - মোগল সম্রাট দ্বিতীয় আলমগীর নিজ মন্ত্রীর হাতে নিহত হন।

১৯০০ - অস্কার ওয়াইল্ড, তিনি ছিলেন আইরিশ প্রাবন্ধিক, ঔপন্যাসিক, নাট্যকার ও কবি।

১৯৩৩ - কবি মোজাম্মেল হক।

১৯৩৫ - ফার্নান্দো পেশোয়া, তিনি ছিলেন পর্তুগিজ কবি, দার্শনিক ও সমালোচক।

১৯৩৮ - ইরানের সংগ্রামী ও স্বাধীনচেতা আলেম আয়াতুল্লাহ সাইয়েদ হাসান মোদাররেস দেশটির তৎকালীন স্বৈরাচারি রাজা রেজা খানের অনুচরদের হাতে উত্তর-পূর্বাঞ্চলীয় শহর কাশমারে শাহাদত বরণ করেন।

১৯৫৩ - ফ্রান্সিস পিকাবিয়া, তিনি ছিলেন ফরাসি চিত্রশিল্পী ও কবি।

১৯৭৯ - যেপপো মার্কস, তিনি ছিলেন আমেরিকান অভিনেতা ও গায়ক।

১৯৮৪ - অভিনেত্রী ও সঙ্গীতশিল্পী ইন্দুবালা দেবী।

১৯৮৮ - মিশরের প্রখ্যাত ক্বারী আবদুল বাসেত মোহাম্মাদ আবদুস সামাদ।

১৯৮৯ - আহমাদউ আহিদজ, তিনি ছিলেন ক্যামেরুনের রাজনীতিবিদ ও ১ম রাষ্ট্রপতি।

১৯৯৪ - গায় ডেবরড, তিনি ছিলেন ফরাসি তাত্ত্বিক ও লেখক।

১৯৯৮ - আবদুল্লাহ আল মুতী শরফুদ্দিন, তিনি ছিলেন বাংলাদেশের প্রখ্যাত শিক্ষাবিদ, বিজ্ঞান লেখক ও বিজ্ঞান কর্মী।

২০১২ - ইন্দ্র কুমার গুজরাল, তিনি ছিলেন ভারতীয় রাজনীতিবিদ ও ১২ তম প্রধানমন্ত্রী।

২০১৭ - একজন বাংলাদেশী ব্যবসায়ী, রাজনীতিবিদ, টেলিভিশন উপস্থাপক এবং ঢাকা উত্তর সিটি কর্পোরেশনের মেয়র আনিসুল হক।


আরও খবর
ইতিহাসে আজকের এই দিনে

শুক্রবার ২৬ জানুয়ারী ২০২৪

২৫ জানুয়ারি : ইতিহাসে আজকের এই দিনে

বৃহস্পতিবার ২৫ জানুয়ারী ২০২৪




শরীরে ম্যাগনেশিয়ামের ঘাটতি হলে কী হয়

প্রকাশিত:মঙ্গলবার ০৬ ফেব্রুয়ারী ২০২৪ | হালনাগাদ:মঙ্গলবার ০৬ ফেব্রুয়ারী ২০২৪ | অনলাইন সংস্করণ
জীবন ধারা ডেস্ক

Image

ম্যাগনেমিয়াম শরীরের জন্য অতি প্রয়োজনীয় একটি খনিজ। বিভিন্ন শারীরিক ক্রিয়াকলাপে এই খনিজটি অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ। তারপরও শরীরে এর অভাব প্রায়ই দেখা যায়। সামগ্রিক স্বাস্থ্য এবং সুস্থতা বজায় রাখার জন্য শরীরে ম্যাগনেশিয়ামের ঘাটতি হয়েছে কীনা তা সনাক্ত করা প্রয়োজন। শরীরে ম্যাগনেশিয়ামের ঘাটতি হলে কয়েকটি রখ্ষণ দেখা দেয়। যেমন-

পেশি ক্র্যাম্প : পেশির সক্রিয়তা এবং সংকোচনের জন্য ম্যাগনেসিয়াম অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ। শরীরে এর ঘাটতি হলে পেশিতে ক্র্যাম্প দেখা দেয়। ঘন ঘন পেশিতে ক্রাম্প হলে বুঝতে হবে শরীরে ম্যাগনেশিয়ামের ঘাটতি হয়েছে।

ক্লান্তি এবং দুর্বলতা : শরীরে ম্যাগনেশিয়ামের ঘাটতি হলে ক্লান্তি এবং দুর্বলতা দেখা দেয়। আপনি যদি প্রায়ই অলস বোধ করেন বা প্রতিদিনের কাজকর্ম করা কঠিন মনে করেন তাহলে তা ম্যাগনেশিয়ামের অভাবে হতে পারে।

অনিয়মিত হৃৎস্পন্দন : ম্যাগনেমিয়ামের ঘাটতি হলে অনিয়মিত হৃৎস্পন্দন হতে পারে। আপনি যদি হৃৎপিণ্ডে ধড়ফড় বা অনিয়ম লক্ষ্য করেন, তাহলে স্বাস্থ্য বিশেষজ্ঞের সাথে পরামর্শ করা গুরুত্বপূর্ণ।

বমি বমি ভাব এবং ক্ষুধা হ্রাস: হজমসংক্রান্ত সমস্যা যেমন বমি বমি ভাব এবং ক্ষুধা হ্রাস ম্যাগনেশিয়ামের অভাবে হতে পারে। এই খনিজটি পরিপাকতন্ত্রের কার্যকারিতা ঠিক রাখে। আপনি যদি ঘন ঘন গ্যাস্ট্রিকের সমস্যায় ভোগেন তাহলে তা ম্যাগনেশিয়ামের ঘাটতির কারণে হতে পারে।

অস্বাভাবিক ক্যালসিয়াম স্তর : ম্যাগনেসিয়াম এবং ক্যালসিয়াম হাড়ের স্বাস্থ্য এবং স্নায়ুর কার্যকারিতা বজায় রাখতে কাজ করে। শরীরে এই খনিজগুলির ভারসাম্যহীনতা হলে পেশির ক্র্যাম্পসহ বিভিন্ন সমস্যা হতে পারে। শরীরের সামগ্রিক খনিজের ভারসাম্যের জন্য ম্যাগনেসিয়াম এবং ক্যালসিয়ামের মাত্রা পরীক্ষা করা গুরুত্বপূর্ণ।


আরও খবর
মজাদার ফুলকপির বিরিয়ানি

সোমবার ০৪ মার্চ ২০২৪




মানবতাবিরোধী অপরাধ: নকলার ৩ জনের আমৃত্যু কারাদণ্ড

প্রকাশিত:সোমবার ১২ ফেব্রুয়ারী ২০২৪ | হালনাগাদ:সোমবার ১২ ফেব্রুয়ারী ২০২৪ | অনলাইন সংস্করণ
আদালত প্রতিবেদক

Image

একাত্তরে মুক্তিযুদ্ধকালীন মানবতাবিরোধী অপরাধের মামলায় শেরপুরের নকলার আকরামসহ ৩ আসামির আমৃত্যু কারাদণ্ড দিয়েছেন আদালত। সোমবার চেয়ারম্যান বিচারপতি মো. শাহিনুর ইসলামের নেতৃত্বাধীন তিন সদস্যের আন্তর্জাতিক অপরাধ ট্রাইব্যুনাল এ রায় দেন।

কারাগারে থাকা তিন আসামি হলেন- আমিনুজ্জামান ফারুক, মোখলেসুর রহমান ও এ কে এম আকরাম হোসেন। আসামিদের বিরুদ্ধে হত্যা, নির্যাতন, অগ্নিসংযোগের চারটি অভিযোগের ওপর শুনানি হয়। তাদের বিরুদ্ধে রাষ্ট্রপক্ষে ১৩ জন সাক্ষী সাক্ষ্য দেন। এর আগে ২৪ জানুয়ারি উভয়পক্ষের শুনানি শেষে মামলাটি রায়ের জন্য অপেক্ষমান (সিএভি) রেখেছিলেন ট্রাইব্যুনাল। পরে গতকাল রায়ের জন্য আজকের দিন নির্ধারণ করেন আদালত। 

আরও পড়ুন>> ‘সন্ত্রাস-জঙ্গিবাদ-মাদকের হাত থেকে দেশকে রক্ষা করতে চাই’

নকলার চার রাজাকারের বিরুদ্ধে একাত্তরে মানবতাবিরোধী অপরাধের অভিযোগ তদন্ত করে ২০১৭ সালের ২৬ জুলাই প্রতিবেদন দাখিল করে আন্তর্জাতিক অপরাধ ট্রাইব্যুনালের তদন্ত সংস্থা। একই বছরের ৩১ অক্টোবর ট্রাইব্যুনালে ফরমাল চার্জ দাখিল করা হয়।

২০১৮ সালের ৩০ আগস্ট আসামিদের বিরুদ্ধে চারটি অভিযোগে চার্জ গঠন করে বিচার শুরুর আদেশ দেন আন্তর্জাতিক অপরাধ ট্রাইব্যুনাল। চারজনের মধ্যে বিচার চলাকালে মারা যায় আসামি এমদাদুল হক খাজা।


আরও খবর



ইমরানের নির্দেশে বিরোধী দলেই যাচ্ছে পিটিআই

প্রকাশিত:শনিবার ১৭ ফেব্রুয়ারী ২০২৪ | হালনাগাদ:শনিবার ১৭ ফেব্রুয়ারী ২০২৪ | অনলাইন সংস্করণ
আন্তর্জাতিক ডেস্ক

Image

পাকিস্তানে সাধারণ নির্বাচন অনুষ্ঠিত হওয়ার ৯ দিন পার হয়ে গেলেও সরকার গঠন নিয়ে রাজনৈতিক অনিশ্চয়তা এখনও অব্যাহত রয়েছে। এরই মধ্যে দেশটির সাবেক প্রধানমন্ত্রী ইমরান খানের নির্দেশে তার দল বিরোধী দলে যাওয়ার সিদ্ধান্ত নিয়েছে।

পাকিস্তানি গণমাধ্যম জিও টিভি শুক্রবার এ তথ্য জানিয়েছে।

প্রতিবেদনে বলা হয়, শুক্রবার পাকিস্তান তেহরিক-ই-ইনসাফ (পিটিআই) ঘোষণা করেছে যে তারা দলের প্রতিষ্ঠাতা ইমরান খানের নির্দেশে কেন্দ্র ও পাঞ্জাবে বিরোধী দল গঠন করবে।

পিটিআই দেশে সম্প্রীতি ও পুনর্মিলনের পরিবেশ চায় এমনটাই জানিয়েছে এ সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছে বলে জানায় দলটি।

শুক্রবার পিটিআই নেতা ব্যারিস্টার সাইফ ইসলামাবাদে কওমি ওয়াতান পার্টির (কিউডব্লিউপি) সাথে বৈঠকের পর সাংবাদিকদের সাথে কথা বলার সময় বলেন, পিটিআই জাতীয় পরিষদ এবং পাঞ্জাব বিধানসভায় বিরোধী বেঞ্চে বসার সিদ্ধান্ত নিয়েছে

তিনি সাংবাদিকদের বলেন, অনেক রাজনীতিবিদ অভিযোগের মুখোমুখি হন যে তাদের ক্ষমতার লালসা আছে কিন্তু আমরা কেন্দ্র এবং পাঞ্জাবে বিরোধী দলে বসার সিদ্ধান্ত নিয়েছি। যদিও আমরা যে ভোট পেয়েছি সে অনুযায়ী আসন পেলে আমরা সরকার গঠন করতাম

এ সময় তিনি ভোটে কারচুপি হয়েছে অভিযোগ করে ফলাফলগুলি ফর্ম-৪৭-এ পরিবর্তন করা হয়েছিল বলে জানান।

তিনি আরও বলেন, কিছু লোক উল্লাস করবে যে তারা সরকার গঠন করতে পেরেছে, তবে এই উদযাপনটি স্বল্পস্থায়ী হবে

পাকিস্তানের ইতিহাসের সবচেয়ে বড় নির্বাচনের আয়োজন হয়েছিল গত ৮ ফেব্রুয়ারি। তবে নির্বাচনের ফলাফল রাজনৈতিক নেতাদের প্রত্যাশা অনুযায়ী হয়নি। কারণ তাঁদের কেউই সাধারণ সংখ্যাগরিষ্ঠতা পায়নি।


আরও খবর
আইনি লড়াইয়ে বড় জয় পেলেন ট্রাম্প

মঙ্গলবার ০৫ মার্চ ২০২৪




ডিসিদের আগে নিজের ঘর দুর্নীতিমুক্ত করতে বললেন দুদক চেয়ারম্যান

প্রকাশিত:সোমবার ০৪ মার্চ ২০২৪ | হালনাগাদ:সোমবার ০৪ মার্চ ২০২৪ | অনলাইন সংস্করণ
নিজস্ব প্রতিবেদক

Image

জেলা প্রশাসকদের (ডিসি) নিজের ঘর দুর্নীতিমুক্ত করে তারপর অন্যদের দুর্নীতির খোঁজখবর রাখতে বলেছেন দুর্নীতি দমন কমিশনের (দুদক) চেয়ারম্যান মোহাম্মদ মঈনউদ্দীন আবদুল্লাহ।

সোমবার (৪ মার্চ) রাজধানীর ওসমানী স্মৃতি মিলনায়তনে জেলা প্রশাসক সম্মেলনে দুদকের অধিবেশন শেষে সাংবাদিকদের সামনে এ কথা তুলে ধরেন দুদক চেয়ারম্যান।

তিনি বলেন, আমি জেলা প্রশাসকদের বলেছি, আপনি নিজে দুর্নীতিমুক্ত কি না, আপনার অফিস দুর্নীতি মুক্ত কি না, আগে নিজের কাছে প্রশ্ন করুন। তাদের বলেছি, যদি আপনার অফিস দুর্নীতিমুক্ত না হয়, নিজের অফিসকে দুর্নীতিমুক্ত করুন। জেলা-উপজেলা, ইউনিয়ন পর্যায়ে আপনাদের অধীনে যেসব অফিস আছে সেগুলো দুর্নীতিমুক্ত করার চেষ্টা করেন। নিজের ঘর দুর্নীতি মুক্ত করুন, তারপর অন্যান্য দুর্নীতির খোঁজখবর রাখুন।

জেলা প্রশাসকদের সরকারের প্রতিনিধি উল্লেখ করে মোহাম্মদ মঈনউদ্দীন আবদুল্লাহ বলেন, তারা ৩০-৩৫টা কমিটির প্রধান। জেলার সমস্ত কার্যক্রম সম্পর্কে তারা অবহিত থাকেন। এজন্য অনিয়ম-দুর্নীতির তথ্যগুলো তাদের কাছে আগে আসে। জেলা প্রশাসকদের আমরা এই বিষয়ে সচেতন থাকতে বলেছি। তাদের বলেছি, কোথায় দুর্নীতি-অনিয়ম হচ্ছে এইগুলো আপনাদের কাছে আগে আসে। কীভাবে সব তথ্য আসতে পারে সেই ম্যাকানিজম তৈরি করে, তথ্য সংগ্রহ করে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেবেন। যেগুলো দুদকে পাঠানো দরকার ওইগুলো পাঠিয়ে দেবেন। কোন কারণে যদি সরাসরি পাঠাতে সমস্যা হয় তাহলে প্রতি ১৫ দিন পর পর একটা গোপন প্রতিবেদন দেন মন্ত্রিপরিষদে। সেখানে দিলে আমরাও জেনে যাব।

প্রতিকার ও প্রতিরোধ দুদকের প্রধান দুই কাজ উল্লেখ করে তিনি বলেন, অনুসন্ধান তদন্ত করে মামলার মাধ্যমে আদালতে সোপর্দ করি, এটা প্রতিকার। জেলা প্রশাসকের সাহায্য ছাড়া প্রতিরোধ আমরা সুচারুভাবে করতে পারি না। দুর্নীতি যেন না হয় সেজন্য আমাদের সাহায্য করতে তাদের প্রতি আহ্বান জানিয়েছি। জেলা ও বিভাগীয় অফিসে তারা যেন সার্বিক সহায়তা করেন। জেলা পর্যায়ে আমাদের লোকবল যথেষ্ট নয়, এজন্য প্রতিরোধমূলক কার্যক্রমে তাদের সহায়তা চেয়েছি।


আরও খবর



এবারের বইমেলায় বিক্রি ৬০ কোটি টাকা

প্রকাশিত:শনিবার ০২ মার্চ 2০২4 | হালনাগাদ:শনিবার ০২ মার্চ 2০২4 | অনলাইন সংস্করণ
নিজস্ব প্রতিবেদক

Image

গেল বছরের তুলনায় এ বছর অমর একুশে বইমেলায় অন্তত ১৩ কোটি টাকার বেশি বই বিক্রি হয়েছে। মেলায় মোট ৬০ কোটির টাকার বেশি বই বিক্রি হয়েছে। গত বছর বিক্রি হয়েছিল ৪৭ কোটি টাকা। এ বছর বই প্রকাশিত হয়েছে ৩ হাজার ৭৫১টি। গত বছর প্রকাশিত হয় ৩ হাজার ৭৩০টি বই।

শনিবার (২ মার্চ) বিকেলে অমর একুশে বইমেলার সমাপনী অনুষ্ঠানে এ তথ্য জানান বাংলা একাডেমির উপ-পরিচালক শাহেদ মমতাজ। অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি ছিলেন প্রধানমন্ত্রীর শিক্ষা ও সংস্কৃতি বিষয়ক উপদেষ্টা কামাল আবদুল নাসের চৌধুরী। সম্মানীয় অতিথি ছিলেন নবনিযুক্ত সংস্কৃতি প্রতিমন্ত্রী নাহিদ ইজাহার খান। বিশেষ অতিথি ছিলেন সংস্কৃতি সচিব খলিল আহমদ। অনুষ্ঠানে সভাপতিত্ব করেন বাংলা একাডেমির সভাপতি কথাসাহিত্যিক সেলিনা হোসেন। এতে স্বাগত বক্তব্য দেন বাংলা একাডেমির মহাপরিচালক কবি মুহম্মদ নূরুল হুদা।

নবনিযুক্ত সংস্কৃতি প্রতিমন্ত্রী নাহিদ ইজাহার খান বলেন, গেল ১ ফেব্রুয়ারি বইমেলার উদ্বোধনী আয়োজনে এসেছিলাম। জীবনে চিন্তাও করিনি বইমেলার সমাপনী আয়োজনে আমি সংস্কৃতি প্রতিমন্ত্রী হিসেবে হাজির হবো। নতুন দায়িত্ব পাওয়ার অনুভূতি ব্যক্ত করতে গিয়ে নাহিদ ইজাহার খান বলেন, আমি কোনো প্রতিশ্রুতি দিতে চাই না। কোনো প্রমিজে বিশ্বাস করি না, কাজ দিয়ে নিজেকে প্রমাণ করতে চাই। প্রতিশ্রুতি তো ভঙ্গ হয়ে যায়। আমরা সবাই মিলে যদি একটি টিমওয়ার্ক করতে পারি, তাহলে কাজটি ভালো হবে।

বইমেলা স্থানান্তরের বিষয়ে তিনি বলেন, বাংলা একাডেমি ও সোহরাওয়ার্দী উদ্যানের বইমেলা এখন ঐতিহ্য হয়ে গেছে। এই বইমেলা সরানোর বিষয়ে কথা উঠেছে। আমরা কোনো না কোনো ব্যবস্থা করে বইমেলা এখানে রাখার ব্যবস্থা করবো।


আরও খবর
একুশে বইমেলার সময় বাড়লো ২ দিন

মঙ্গলবার ২৭ ফেব্রুয়ারী ২০২৪

শেষ ছুটির দিনে জমজমাট বইমেলা

রবিবার ২৫ ফেব্রুয়ারী ২০২৪