আজঃ শুক্রবার ০৩ ডিসেম্বর ২০২১
শিরোনাম

হত্যার দায়ে ছেলের ফাঁসির আদেশ, মাসহ ২ জনের যাবজ্জীবন

প্রকাশিত:বুধবার ০৩ নভেম্বর ২০২১ | হালনাগাদ:বুধবার ০৩ নভেম্বর ২০২১ | ১০২৫জন দেখেছেন

Image

নড়াইল প্রতিনিধি:

নড়াইল শহরের ভওয়াখালীতে হালিমা বেগম নামে এক প্রতিবেশিকে হত্যার দায়ে ছেলে সেলিম সরদারকে ফাঁসির আদেশ ও ১০ হাজার টাকা জরিমানা এবং মা মোমেনা বেগমসহ অপর প্রতিবেশি সাজ্জাদ খানকে যাবজ্জীবন কারাদণ্ডাদেশ দিয়েছেন আদালত। বুধবার (৩ নভেম্বর) সকাল সাড়ে ১০টার দিকে জেলা ও দায়রা জজ মুন্সী মোঃ মশিয়ার রহমান এ আদেশ দেন। এর মধ্যে আসামি মোমেনা বেগম রায় ঘোষণার সময় আদালতে উপস্থিত ছিলেন। বাকিরা পলাতক আছেন। মোমেনা ও সাজ্জাদকে যাবজ্জীবন কারাদণ্ড ছাড়াও ১০ হাজার টাকা জরিমানা, অনাদায়ে আরো ছয় মাসের বিনাশ্রম কারাদণ্ড দেয়া হয়েছে।

ফাঁসির আদেশপ্রাপ্ত সেলিম ভওয়াখালীর সলেমান সরদারের ছেলে এবং যাবজ্জীবনপ্রাপ্ত সাজ্জাদ কবির খানের ছেলে।

মামলার বিবরণে জানা যায়, ২০১৪ সালের ১৭ মে আসামি সেলিম সরদার ব্র্যাক ব্যাংকের ম্যানেজারের টাকা ছিনতাই করেন। ঘটনাটি প্রতিবেশি হালিমা বেগম দেখে স্থানীয় লোকজনকে জানান। ওইদিন সন্ধ্যা ৭টার দিকে সেলিমের মা আসামি মোমেনা বেগম ভূক্তভোগী হালিমাকে তাদের বাড়িতে ডেকে নিয়ে আসেন। কথাকাটির এক পর্যায়ে সেলিম সরদার কোদাল দিয়ে হালিমাকে মাথায় আঘাত করেন। এ সময় সেলিমের মা মোমেনা বেগম এবং অপর আসামি সাজ্জাদ খান হালিমাকে কিল, লাথিসহ মারধর করে। আহত হালিমা খুলনা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় মারা যান। সাক্ষীদের সাক্ষ্য-প্রমাণ শেষে আদালত তিন আসামির বিরুদ্ধে বুধবার সকালে এ রায় ঘোষণা করেন।


আরও খবর



বিশ্বে করোনায় মৃত্যু-শনাক্ত আরও বাড়ল

প্রকাশিত:বুধবার ১৭ নভেম্বর ২০২১ | হালনাগাদ:বুধবার ১৭ নভেম্বর ২০২১ | ৩৬৫জন দেখেছেন
দর্পণ নিউজ ডেস্ক

Image

করোনাভাইরাসে গত ২৪ ঘণ্টায় বিশ্বজুড়ে আরও ৭ হাজার ১১২ জনের মৃত্যু হয়েছে। এ সময় রোগী শনাক্ত হয়েছে ৪ লাখ ৮৪ হাজার ৮১২ জন। এর আগে (মঙ্গলবার) ৫ হাজার ২২০ জনের মৃত্যু এবং ৪ লাখ ৪৭ জন আক্রান্ত হয়েছিলেন।

বুধবার (১৭ নভেম্বর) সকালে করোনা আক্রান্ত, মৃত্যু ও সুস্থতার হিসাব রাখা ওয়েবসাইট ওয়ার্ল্ডোমিটারস থেকে এসব তথ্য পাওয়া গেছে।

ওয়ার্ল্ডোমিটারসের সর্বশেষ তথ্য অনুযায়ী, করোনায় বিশ্বজুড়ে এখন পর্যন্ত মোট ২৫ কোটি ৫০ লাখ ৫৬ হাজার ৫৯৮ জন আক্রান্ত হয়েছেন। এরমধ্যে ৫১ লাখ ২৯ হাজার ২২৫ জনের মৃত্যু হয়েছে।

এদিকে গত ২৪ ঘণ্টায় যুক্তরাষ্ট্রে আক্রান্ত হয়েছেন ৮৫ হাজার ৮৫৯ জন এবং মারা গেছেন ১ হাজার ২৫০ জন। রাশিয়ায় মারা গেছেন ১ হাজার ২৪০ জন এবং সংক্রমিত হয়েছেন ৩৬ হাজার ৮১৮ জন। জার্মানিতে আক্রান্ত হয়েছেন ৩৯ হাজার ৯৮৫ জন এবং মারা গেছেন ২৯৯ জন। ব্রাজিলে মারা গেছেন ১৪০ জন এবং সংক্রমিত হয়েছেন ৪ হাজার ৯১৮ জন।

এছাড়া করোনায় আক্রান্ত হয়ে গত ২৪ ঘণ্টায় ইরানে ১৩৪ জন, তুরস্কে ২২৭ জন, ইউক্রেনে ৮৩৮ জন, মেক্সিকোতে ৫৭ জন মারা গেছেন।

উল্লেখ্য, ২০১৯ সালের ডিসেম্বরে চীনের উহানে প্রথম করোনাভাইরাসে আক্রান্ত রোগী শনাক্ত হয়। এরপর গত বছরের ১১ মার্চ বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা (ডব্লিউএইচও) করোনাকে বৈশ্বিক মহামারি হিসেবে ঘোষণা করে। এর আগে একই বছরের ২০ জানুয়ারি বিশ্বজুড়ে জরুরি পরিস্থিতি ঘোষণা করে সংস্থাটি।


আরও খবর
ভারতে ধরা পড়ল ওমিক্রন

বৃহস্পতিবার ০২ ডিসেম্বর 2০২1

দেশে দেশে ছড়িয়ে পড়েছে ওমিক্রন

বৃহস্পতিবার ০২ ডিসেম্বর 2০২1




চাঁদে জমি উপহার পেলেন মিম

প্রকাশিত:বুধবার ১০ নভেম্বর ২০২১ | হালনাগাদ:বুধবার ১০ নভেম্বর ২০২১ | ৫৪৫জন দেখেছেন
দর্পণ নিউজ ডেস্ক

Image

নজরকাড়া গ্ল্যামারে শোবিজ মাতিয়ে চলেছেন বিদ্যা সিনহা মিম। আজ বুধবার (১০ নভেম্বর) তার জন্মদিন। বিশেষ দিনটি পরিবারের সঙ্গে কাটিয়েছেন নায়িকা। জন্মদিনে প্রিয় মানুষ, ভক্ত-অনুরাগীদের শুভেচ্ছায় সিক্ত হচ্ছেন এই অভিনেত্রী। বিশেষ দিনটিতে চাঁদে জমি উপহার পেয়েছেন মিম।

বিশেষ এই উপহার প্রসঙ্গে বিদ্যা সিনহা মিম গণমাধ্যমকে বলেন, 'তিন-চার বছর আগে জন্মদিনে বাবা আমাকে একটি গাড়ি দিয়েছিল। ওটা আমার কাছে অন্যরকম প্রিয় ছিল। এবার জন্মদিনে যদি বলি, আমার ছোট বোন আমাকে যে গিফট করবে সেই চিন্তাই করিনি। ওর গিফটটা খুবই সুইটেড। সে আমার জন্য চাঁদে জমি কিনে আমাকে গিফট করেছে। আমার নামেই কিনেছে। রাত ১২টার সময় সেই কাগজ আমাকে দিয়েছে।'

তিনি আরও বলেন, 'ও (বোন) ছোট মানুষ। ও যে এইটা করেছে, কোথায় থেকে যে ওর মাথায় এই জিনিসটা আসল! এটা আমার কাছে খুবই স্পেশাল।'

সোশ্যাল মিডিয়ায় নিয়মিত ছবি পোস্ট করে সরব উপস্থিতির জানান দেন মিম। তার ফেসবুক ওয়ালে ভেসে বেড়ায় বাহারি ছবি। সোশ্যাল মিডিয়ায় প্রকাশের পরপরই তার ছবিগুলো দেখতে হুমড়ি খেয়ে পড়েন নেটিজেনরা। রীতিমত অন্তর্জালে ঝড় তুলেন এই অভিনেত্রী। মিমের রূপ অনেক আগেই ভক্তদের হৃদয়ে দাগ কেটেছে। তার ছবি থেকে চোখ ফেরানো দায়। আর সেটি মাথায় রেখেই মিমের পোস্টে কমেন্ট করেন নেটিজেনরা।

বেশ কিছুদিন ধরেই পর্দায় মিমের উপস্থিতি কম। মুক্তির অপেক্ষায় রয়েছে তার অভিনীত তিনটি সিনেমা। সেগুলো হলো- পরান, দামাল ও ইত্তেফাক।

সম্প্রতি বলিউডে অভিনয়ের সুযোগ পেয়েও ফিরিয়ে দিয়েছেন বিদ্যা সিনহা মিম। কিন্তু যে কারণে তিনি সিনেমাটি ফিরিয়ে দিয়েছেন, সেটি জানার পর সকলেই তার প্রশংসায় পঞ্চমুখ। সিনেমার গল্পে বাংলাদেশকে নেতিবাচকভাবে উপস্থাপন করা হয়েছে বলে লোভনীয় প্রস্তাব পাওয়া সত্ত্বেও রাজি হননি এই লাক্স তারকা। অবশেষে সেই চরিত্রে অভিনয় করছেন আরেক লাক্স তারকা আজমেরি হক বাঁধন।


আরও খবর



ধর্মঘট অব্যাহত রাখবে ট্রাক-কাভার্ড ভ্যান মালিকরা

প্রকাশিত:সোমবার ০৮ নভেম্বর ২০২১ | হালনাগাদ:সোমবার ০৮ নভেম্বর ২০২১ | ৩০৩৫জন দেখেছেন
দর্পণ নিউজ ডেস্ক

Image

বাস ও লঞ্চ মালিকদের ভাড়া বাড়ানোর দাবি মেনে নিয়েছে সরকার। নতুন ভাড়ায় বাসের চাকা ঘুরছে রাস্তায়। তবে ট্রাক ও কাভার্ডভ্যান মালিকদের দাবির বিষয়ে এখনও কোনো সিদ্ধান্ত জানায়নি সরকার। তাই তেলের দাম না কমা পর্যন্ত ধর্মঘট অব্যাহত রাখার কথা জানিয়েছেন বাংলাদেশ ট্রাক-কাভার্ড ভ্যান পণ্য পরিবহন মালিক-শ্রমিক ঐক্য পরিষদ।

পরিষদের আহ্বায়ক রুস্তম আলী খান রোববার (৭ নভেম্বর) জানান, সরকারের পক্ষ থেকে আমাদের সঙ্গে কেউ কথা বলেননি। তাই জ্বালানি তেলের দাম না কমা পর্যন্ত আমরা ধর্মঘট অব্যাহত রাখব।

অন্যদিকে কাভার্ডভ্যান-ট্রাক প্রাইমমুভার পণ্য পরিবহন মালিক অ্যাসোসিয়েশন অতিরিক্ত মহাসচিব আবদুল মোতালেব বলছেন, স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী বলেছিলেন প্রধানমন্ত্রীর সঙ্গে আলোচনা করে আমাদেরকে ডেকে পাঠাবেন। এরপরে আমাদের সঙ্গে আলোচনা করবেন। অথচ, এখন পর্যন্ত আমাদের কাছে এ বিষয়ে কোনো সংবাদ পৌঁছায়নি। সরকার এখনও আমাদের অফিসিয়ালি ডেকে পাঠান নেই।

তিনি বলেন, আমরা প্রতিদিন রেডি হয়ে বসে থাকি কেউ আমাদের ডাকবেন বলে। ডেকে একটা সমাধান দেবেন, কিন্তু আমাদের ডাকা হয় না। আমাদের কাজ বন্ধ হয়ে আছে।

 


আরও খবর
ফেরি চলাচল স্বাভাবিক

বুধবার ২৪ নভেম্বর ২০২১




দলীয় পদ হারালেন গাজীপুরের মেয়র জাহাঙ্গীর

প্রকাশিত:শুক্রবার ১৯ নভেম্বর ২০২১ | হালনাগাদ:শুক্রবার ১৯ নভেম্বর ২০২১ | ৮৭০জন দেখেছেন
দর্পণ নিউজ ডেস্ক

Image

জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানকে নিয়ে কটূক্তি করার দায়ে সাংগঠনিকভাবে দোষী সাব্যস্ত হয়েছেন গাজীপুর সিটি করপোরেশনের মেয়র জাহাঙ্গীর আলম। তাকে আওয়ামী লীগের প্রাথমিক সদস্যপদ থেকে অব্যাহতি দেওয়া হয়েছে। পাশাপাশি হারাতে হচ্ছে গাজীপুর মহানগর আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদকের পদও।

শুক্রবার (১৯ নভেম্বর) বিকেল ৪টায় বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের কেন্দ্রীয় কার্যনির্বাহী সংসদের বৈঠকে এমন সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়।

মেয়র জাহাঙ্গীরের বিরুদ্ধে নেওয়া হবে আইনগত ব্যবস্থা বলে জানা গেছে আওয়ামী লীগের বৈঠক সূত্র থেকে।

এছাড়া বৈঠকে আওয়ামী লীগের প্রেসিডিয়ামের সদস্য অন্তর্ভুক্ত করা হয়েছে রাজশাহী সিটি করপোরেশনের মেয়র ও রাজশাহী মহানগর আওয়ামী লীগের সভাপতি এএইচএম খায়রুজ্জামান লিটন, বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের কেন্দ্রীয় কার্যনির্বাহী সদস্য মোফাজ্জল হোসেন চৌধুরী মায়া বীরবিক্রম ও অ্যাডভোকেট কামরুল ইসলাম।


আরও খবর



খালেদার অসুস্থতা নিয়ে রাজনীতি না করার অনুরোধ ড. হাছানের

প্রকাশিত:বুধবার ২৪ নভেম্বর ২০২১ | হালনাগাদ:বুধবার ২৪ নভেম্বর ২০২১ | ৪০০জন দেখেছেন
দর্পণ নিউজ ডেস্ক

Image
বেগম জিয়ার বিষয়ে বিএনপির ভূমিকাই রহস্যজনক। আর সরকারের ভূমিকা অত্যন্ত স্পষ্ট। বাংলাদেশে যাতে বেগম জিয়া সর্বোচ্চ চিকিৎসা পান সেটা নিশ্চিত করতে সরকার বদ্ধপরিকর

বিএনপি চেয়ারপারসন বেগম খালেদা জিয়ার অসুস্থতা নিয়ে অসুস্থ রাজনীতি না করতে বিএনপিকে অনুরোধ জানিয়েছেন তথ্য ও সম্প্রচারমন্ত্রী ড. হাছান মাহমুদ।

বুধবার (২৪ নভেম্বর) দুপুরে সচিবালয়ে তথ্য ও সম্প্রচার মন্ত্রণালয় সভাকক্ষ চট্টগ্রাম জার্নালিস্ট ফোরামের নবনির্বাচিত পরিষদের সঙ্গে মতবিনিময় শেষে সাংবাদিকদের এক প্রশ্নের জবাবে তিনি এ অনুরোধ জানান।

তিনি বলেন, বেগম জিয়াকে অসুস্থ রেখে রাজনৈতিক উদ্দেশ্য হাসিল করতে চায় বিএনপি। এতে করে বেগম জিয়াকে অসম্মান জানানো হচ্ছে। খালেদা জিয়ার জীবন সংকটাপন্ন এটি কে বলেছেন, মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর, রিজভীসহ বিএনপির কেন্দ্রীয় নেতারা। কোনো ডাক্তার এখনও বলেনি বেগম খালেদা জিয়ার জীবন সংকটাপন্ন। এখন বিএনপির নেতারা চিকিৎসক হয়ে গেছেন। এখন বিএনপি নেতাদের প্রেসক্রিপশনে সরকার সিদ্ধান্ত নেবে কি না সেটাও ভেবে দেখার বিষয়।

তথ্যমন্ত্রী বলেন, অতীতেও আমরা দেখেছি, বেগম জিয়া যখন অসুস্থ হয়েছেন তখন তারা দাবি তুলেছে বেগম জিয়াকে বিদেশ পাঠাতে হবে। হাঁটু ও গাঁয়ের তাপমাত্রা বেড়ে গেলেও তাকে বিদেশ পাঠাতে হবে। কিছু হলেই বিদেশ পাঠাতে হবে এই জিকির তোলার কারণ কি? কারণ রাজনৈতিক উদ্দেশ্যপ্রণোদিত। তারা বেগম জিয়াকে বিদেশে পাঠিয়ে দিতে চান। তারা বিশেষত বেগম জিয়াকে পাঠাতে চান লন্ডনে যেখানে তারেক জিয়া আছে।

তিনি বলেন, দণ্ডপ্রাপ্ত আসামি হয়েও বেগম জিয়া যাতে সেখান থেকে আবার রাজনীতি করতে পারেন। তারেক রহমানও দণ্ডপ্রাপ্ত আসামি হয়ে সেখান থেকে রাজনীতি করছেন। বেগম জিয়াকে পাঠিয়ে দিয়ে তারা সেই কাজটি করতে চান। আসলে বেগম জিয়াকে বিদেশ পাঠানোর দাবি, তার স্বাস্থ্যগত কারণে নয়, রাজনৈতিক কারণে এ দাবি উত্থাপন হচ্ছে। ডাক্তাররা এই দাবি করছে না, এ দাবি করছেন বিএনপি নেতারা। তারা রাজনৈতিক উদ্দেশ্যেই এ দাবি করছে।

ড. হাছান মাহমুদ বলেন, বেগম জিয়ার যাতে সঠিক চিকিৎসা হয় সেজন্য সরকার সর্বোচ্চ ব্যবস্থা করে দিতে বদ্ধপরিকর। দেশের অভ্যন্তরে যেকোনো ব্যবস্থা নিতে চায় সরকার। দেশের অনেক বিশেষজ্ঞ চিকিৎসক আছে, তারা কি বলেছেন? তারা কি সরকারের কাছে আবেদন জানিয়েছেন? দেশের সর্বোচ্চ চিকিৎসক দিয়ে মেডিকেল বোর্ড গঠন করে বেগম জিয়ার আসলে কি হয়েছে সেটা পরীক্ষা করার কথা সেটা তো তারা বলছেন না। তারা বলছেন, বিদেশ পাঠিয়ে দিতে হবে।

তিনি বলেন, বিএনপি শুধু নানা কথাবার্তা বলছেন, সভা-সেমিনার করছেন। আর এই সভা-সেমিনার করার একটি প্রতিযোগিতাও দেখা দিয়েছে তাদের মধ্যে। কারণ তাদের আবার পদ রক্ষা করতে হয়। দৃষ্টি আকর্ষণ করতে হয় বেগম জিয়া ও তারেক রহমানের। সেজন্য তারা আবার অনশনও করছেন। এটি হচ্ছে বাস্তবতা। আমি বিএনপিকে অনুরোধ জানাবো, বেগম জিয়ার অসুস্থতা নিয়ে অসুস্থ রাজনীতি না করার জন্য। বেগম জিয়াকে অসুস্থ রেখে তারা রাজনৈতিক উদ্দেশ্য হাসিল করতে চায়। এতে করে বেগম জিয়াকে অসম্মান জানানো হচ্ছে।

বেগম জিয়ার বিদেশ যাওয়া নিয়ে সরকার রহস্যজনক আচরণ করছে- বিএনপির এমন মন্তব্যের বিষয়ে জানতে চাইলে তথ্যমন্ত্রী বলেন, বেগম জিয়ার বিষয়ে বিএনপির ভূমিকাই রহস্যজনক। আর সরকারের ভূমিকা অত্যন্ত স্পষ্ট। বাংলাদেশে যাতে বেগম জিয়া সর্বোচ্চ চিকিৎসা পান সেটা নিশ্চিত করতে সরকার বদ্ধপরিকর। দেশের সব বড় বড় চিকিৎসকদের নিয়ে বেগম জিয়ার চিকিৎসা করাতে চাইলে সেটাও করতে চায় সরকার। কিন্তু বেগম জিয়া অসুস্থ হলে বিদেশ নিতে চায় এটিই আসলে রহস্যজনক।

দিন দিন হাতির মৃত্যু বেড়ে যাচ্ছে এ বিষয়ে কোনো উদ্যোগ নেওয়া হবে কি না জানতে চাইলে তথ্যমন্ত্রী বলেন, আসলে দিন দিন যেভাবে হাতির মৃত্যু বেড়ে যাচ্ছে গত কয়েক বছরে ১৩৭টি হাতির মৃত্যু হয়েছে। এটি সত্যিই উদ্বেগজনক। এর অনেকগুলো কারণ আছে। যেমন- নানা কারণে বনভূমি কমে গেছে, হাতির আবাসস্থল ধ্বংস হচ্ছে, রোহিঙ্গা ক্যাম্পের জন্য হাতির আবাসস্থল ধ্বংস হয়েছে। আবাসস্থলগুলোতে মানুষ বসবাস করছে, চাষাবাদ করছে। হাতি যাতে আসতে না পারে সেজন্য ফাঁদ পাতা হচ্ছে। এগুলো সত্যিই উদ্বেগজনক। এক্ষেত্রে খুব দ্রুত আমাদের ব্যবস্থা নিতে হবে। সবাইকে বিনীত অনুরোধ জানাবো পৃথিবী শুধু মানুষের জন্য নয়, মহান স্রষ্টার সব সৃষ্টির বিষয়টি আমাদের মাথায় রাখতে হবে।


আরও খবর