আজঃ শনিবার ১৩ এপ্রিল ২০২৪
শিরোনাম

হাসপাতালের সেবা নিয়ে জিরো টলারেন্সে থাকব : স্বাস্থ্যমন্ত্রী

প্রকাশিত:রবিবার ২৫ ফেব্রুয়ারী ২০২৪ | হালনাগাদ:রবিবার ২৫ ফেব্রুয়ারী ২০২৪ | অনলাইন সংস্করণ
স্বাস্থ্য ডেস্ক

Image

স্বাস্থ্যখাতে অনিয়মরোধে জিরো টলারেন্স বজায় থাকবে জানিয়ে স্বাস্থ্য ও পরিবার কল্যাণমন্ত্রী ডা. সামন্ত লাল সেন বলেছেন, আমরা গত এক মাসে এক হাজার ২২৭টি অবৈধ ক্লিনিক ও ডায়াগনস্টিক সেন্টার বন্ধ করেছি। এখনও অভিযান চলমান আছে। বৈধ স্বাস্থ্য কেন্দ্রগুলোতে পর্যাপ্ত লোকবল ও যন্ত্রপাতি না থাকলে সেগুলোর বিরুদ্ধেও ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

আজ রোববার (২৫ ফেব্রুয়ারি) সচিবালয়ে নিজ মন্ত্রণালয়ের সম্মেলন কক্ষে স্বাস্থ্য সংক্রান্ত বিভিন্ন সমসাময়িক বিষয়াদির ওপর মিডিয়া ব্রিফিংকালে এসব কথা বলেন স্বাস্থ্যমন্ত্রী। 

আরও পড়ুন>> পিলখানা হত্যাকাণ্ডের চূড়ান্ত বিচার অল্পদিনের মধ্যে শেষ হবে : স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী

স্বাস্থ্যমন্ত্রী ডা. সামন্ত লাল সেন বলেন, দেশব্যাপী স্বাস্থ্যখাত নিয়ে সাম্প্রতিক কিছু ইস্যুতে কথা হচ্ছে। ঘটনাগুলো যেকোনো মানুষের মনকেই নাড়া দেবে। প্রধানমন্ত্রী বিষয়টি নিয়ে আমাকে শক্তহাতে উদ্যোগ নিতে বলেছেন। প্রধানমন্ত্রী আমাকে এ বিষয়ে জিরো টলারেন্স মেইনটেইন করতে বলেছেন। আমি দ্ব্যর্থহীনভাবে প্রধানমন্ত্রীর নির্দেশনা মেনে চলবো।

স্বাস্থ্যমন্ত্রী বলেন, আমি পরিষ্কারভাবে বলতে চাই বৈধ প্রাইভেট হাসপাতাল, ক্লিনিক ও ডায়াগনস্টিক সেন্টারগুলো আমরা বন্ধ করতে চাই না। তবে এগুলো চালাতে হলে যতগুলো চিকিৎসক, নার্স প্রয়োজন তা থাকতে হবে; যা যা যন্ত্রপাতি থাকার কথা সেগুলো থাকা নিশ্চিত করতে হবে। সেটা করা না হলে, আমি কঠোর ব্যবস্থা নিতে জিরো টলারেন্স মেইনটেইন করবো। কোনো অনুরোধ বা তদবিরেই এ সকল অবৈধ বা যন্ত্রপাতিহীন ক্লিনিক ও ডায়াগনস্টিক সেন্টার সচল রাখা হবে না।

ব্রিফ্রিংয়ের সময় স্বাস্থ্যমন্ত্রী মিডিয়াকর্মীদের বিভিন্ন প্রশ্নের উত্তর প্রদানকালে বলেন, আমি রোগীদের সুরক্ষা নিয়ে যেভাবে ভাবছি, একইভাবে আমি চিকিৎসকদের সুরক্ষা নিয়েও কাজ করছি। ভালো সেবা পেতে হলে ভালো চিকিৎসক লাগবে। ভালো সুযোগ-সুবিধা না পেলে ভালো চিকিৎসক পাওয়াও মুশকিল হবে।

ব্রিফিংকালে স্বাস্থ্যমন্ত্রী অতীতে কী কী হয়েছে সেগুলো নিয়ে না ভেবে এখন থেকে কী কী করা হচ্ছে সেদিকে বেশি মনোযোগ দিতে মিডিয়া কর্মীদের প্রতি অনুরোধ জানান। স্বাস্থ্যসেবার সঠিক মান একা কেউই শতভাগ ঠিক করতে পারবে না। এজন্য দায়িত্ব কেবল স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়ের একার নয়, স্বাস্থ্যসেবার মান উন্নততর করতে চিকিৎসক, পুলিশ, সাংবাদিকসহ প্রত্যেককেই এগিয়ে আসতে হবে বলে জানান স্বাস্থ্যমন্ত্রী ডা. সামন্ত লাল সেন।

এর আগে সকাল সাড়ে নয়টা থেকে বেলা ১১টা পর্যন্ত স্বাস্থ্যমন্ত্রী হাসপাতাল ও ক্লিনিক সেবা শাখার সাথে সংশ্লিষ্ট সংগঠন ও কর্মকর্তাদের সঙ্গে আলাদা করে একটি বৈঠক করেন। এ সময় স্বাস্থ্যসেবা বিভাগের সচিব মো. জাহাঙ্গীর আলম, স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের মহাপরিচালক এবিএম খুরশীদ আলম, বাংলাদেশ মেডিকেল এসোসিয়েশনের সভাপতি ডা. মোস্তফা জালাল মহিউদ্দিন, আওয়ামী লীগের কেন্দ্রীয় স্বাস্থ্য বিষয়ক সম্পাদক ডা. রোকেয়া সুলতানা, বিএমডিসি সভাপতি অধ্যাপক ডা. মাহমুদুল হাসান, বিএসএমএমইউ-এর এনেস্থেসিওলজি বিভাগের চেয়ারম্যান প্রফেসর ডা. দেবব্রত বণিক, ঢাকার বিভিন্ন হাসপাতালের এনেস্থিসিওলজি বিভাগের প্রধানসহ মন্ত্রণালয় ও অধিদপ্তরের ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তারা উপস্থিত ছিলেন।


আরও খবর
বিশ্ব স্বাস্থ্য দিবস আজ

রবিবার ০৭ এপ্রিল ২০২৪




অবশেষে জামিনে মুক্তি পেলেন দানি আলভেজ

প্রকাশিত:মঙ্গলবার ২৬ মার্চ ২০২৪ | হালনাগাদ:মঙ্গলবার ২৬ মার্চ ২০২৪ | অনলাইন সংস্করণ
ক্রীড়া প্রতিবেদক

Image

ধর্ষণের অভিযোগে প্রায় ১৪ মাস কারাগারে আটক থাকার পর অবশেষে জামিনে মুক্তি পেলেন ব্রাজিলের সাবেক তারকা ফুটবলার দানি আলভেজ। বার্সেলোনার আদালত গত বুধবার আলভেজকে জামিন দিলেও জামিনের শর্ত হিসেবে আদালত যে ১০ লাখ ইউরো জমা দিতে বলেছিলেন সেটি দিতে পারছিলেন না ব্রাজিলের এই ফুটবলার। অবশেষে, জামিনের অর্থ পরিশোধ সাপেক্ষে মুক্তি পেয়েছেন আলভেজ।

গত বছরের জানুয়ারিতে বার্সেলোনার নৈশ ক্লাবে এক নারীকে ধর্ষণের অভিযোগে আটক হন আলভেজ। তদন্তের পর গত ২২ ফেব্রুয়ারি সাড়ে চার বছরের কারাদণ্ড দেওয়া হয় তাকে। জামিনের জন্য নির্ধারিত অর্থের সঙ্গে ব্রাজিল ও স্পেনের পাসপোর্ট জমা দিয়ে বার্সেলোনাতেই অবস্থান করার নির্দেশ দেন আদালত। এ ছাড়া ভুক্তভোগীর এক হাজার মিটারের মধ্যে যাওয়ার ব্যাপারেও নিষেধাজ্ঞা দেওয়া হয়েছে এই ফুটবলারকে।

জামিন পেলেও জামানতের অর্থ জোগাড় করতে না পারার কারণেই মূলত কারাগার থেকে মুক্তি পাচ্ছিলেন না আলভেজ। ফুটবল ক্যারিয়ারে বিপুল অর্থ আয় করা ব্রাজিলের এই ফুটবলারের জামিনের অর্থ পরিশোধ করতে না পারা নিয়ে বিস্ময় প্রকাশ করেন অনেকে। আলভেজের আইনজীবী জানান, স্পেনে তার দুটি অ্যাকাউন্ট আছে যার একটিতে নেই কোনো অর্থ। অন্যটিতে ৫১ হাজার ইউরো থাকলেও সেটি আদালতের নির্দেশে জব্দ করা হয়। তাছাড়া এটি জামিনের নির্ধারিত অর্থের তুলনায় খুব সামান্যও ছিলো। শেষ পর্যন্ত আলভেজের মা ও ভাই ধারে জামিনের অর্থ জোগাড় করে তাকে কারাগার থেকে মুক্ত করেছেন।

নিউজ ট্যাগ: দানি আলভেজ

আরও খবর



ডেমরায় দাঁড়িয়ে থাকা সাতটি ভলভো বাসে আগুন

প্রকাশিত:সোমবার ০১ এপ্রিল ২০২৪ | হালনাগাদ:সোমবার ০১ এপ্রিল ২০২৪ | অনলাইন সংস্করণ
নিজস্ব প্রতিবেদক

Image

রাজধানীর ডেমরায় বাসস্ট্যান্ড এলাকায় দাঁড়িয়ে থাকা বেশ কয়েকটি বাসে আগুন লেগেছে। নিয়ন্ত্রণে কাজ করছে ফায়ার সার্ভিসের ৫টি ইউনিট।

আজ সোমবার রাত ৮টা ৫০ মিনিটে আগুনের খবর পেয়ে ঘটনাস্থলে যায় ফায়ার সার্ভিসের সিদ্দিক বাজার স্টেশনের ৫টি ইউনিট।

বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন ফায়ার সার্ভিসের মিডিয়া কর্মকর্তা আনোয়ারুল ইসলাম দোলন।

তিনি বলেন, ডেমরার ধার্মিকপাড়া বাসস্ট্যান্ড এলাকায় দাঁড়িয়ে থাকা অন্তত ৭টি ভলভো বাসে আগুন লেগেছে বলে জানান তিনি।

রাজধানীর ডেমরায় দাঁড়িয়ে থাকা কয়েকটি বাসে অগ্নিকাণ্ডের ঘটনা ঘটেছে। আগুন নিয়ন্ত্রণে কাজ করছে ফায়ার সার্ভিসের ৬টি ইউনিট।

সোমবার (১ এপ্রিল) রাত ৮টা ৫০ মিনিটে ডেমরার ধার্মিক পাড়ায় আগুন লাগার খবর পায় ফায়ার সার্ভিস ও সিভিল ডিফেন্স।

বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন ফায়ার সার্ভিস নিয়ন্ত্রণ কক্ষের ডিউটি অফিসার রাশেদ দিন খালিদ।

তিনি জানান, ডেমরার কোনাপাড়ার ধার্মিকপাড়া বাসস্ট্যান্ড এলাকায় দাঁড়িয়ে থাকা ভলভো বাসে আগুন লাগার খবর আসে। খবর পেয়ে প্রথমে আগুন নিয়ন্ত্রণে ডেমরা ফায়ার স্টেশনের দুটি ইউনিট ও পরে সিদ্দিকবাজার থেকে আরও চারটি ইউনিট যোগ দেয়।

তবে প্রাথমিকভাবে আগুন লাগার কারণ ও হতাহতের কোনো খবর জানাতে পারেননি ফায়ার সার্ভিসের এই কর্মকর্তা।


আরও খবর



খেজুর খাওয়ার এই উপকারিতাগুলো জানতেন ?

প্রকাশিত:রবিবার ২৪ মার্চ 20২৪ | হালনাগাদ:রবিবার ২৪ মার্চ 20২৪ | অনলাইন সংস্করণ
জীবন ধারা ডেস্ক

Image

খেজুর ছাড়া ইফতার অসম্পূর্ণ যেন। তাই তো রোজায় আমাদের খেজুরের প্রয়োজন হয় সবচেয়ে বেশি। তবে শুধু রমজানে নয়, খেজুর খাওয়ার অভ্যাস করতে পারেন সারা বছরই। কারণ এই পুষ্টিকর ফল খাওয়ার রয়েছে অনেক স্বাস্থ্য উপকারিতা। যারা সারা বছর খাবারের তালিকা নির্বাচনের ক্ষেত্রে বিশেষ সতর্ক, তারা ডায়েটে রাখতে পারেন খেজুর। এটি ওজন নিয়ন্ত্রণ থেকে শুরু করে আরও অনেক উপকার করে থাকে।

খেজুর হলো এমন একটি ফল যা শরীরকে অনেকগুলো প্রয়োজনীয় পুষ্টি দিতে পারে। তাই আপনি যদি স্বাস্থ্য সচেতন হন তাহলে খেজুর আপনার খাবারের অংশ করে নিন। ইফতারের পাশাপাশি অন্যান্য সময়েও খেজুর রাখুন আপনার পাতে। এতে অনেকগুলো উপকার মিলবে। চলুন জেনে নেওয়া যাক-

১. হজমশক্তি ভালো রাখে : পুষ্টিবিদদের মতে, খেজুর হজমশক্তি বৃদ্ধি করতে দারুণভাবে সাহায্য করে থাকে। বর্তমান ব্যস্ত জীবনে অনেকেই খাবারের দিকে খেয়াল রাখার সময় পান না। বাইরের খাবার বা ফাস্টফুড জাতীয় খাবার খেয়ে ফেলেন সময়ের অভাবে। এ জাতীয় খাবার খাওয়ার পরপরই যদি কয়েকটি খেজুর খেয়ে নিতে পারেন তাহলে তা আপনাকে ভালো হজমে সাহায্য করবে।

২. ফাইবারের জোগান : খেজুরে থাকে অনেকগুলো পুষ্টিকর উপাদান। বিশেষ করে যারা স্বাস্থ্য সচেতন তাদের ডায়েট মেনটেইন করার জন্য প্রয়োজন পড়ে বেশ খানিকটা ফাইবারের। এই ফাইবারের জোগান দিতে পারে খেজুর। কারণ এই শুকনো ফলে থাকে পর্যাপ্ত ফাইবার। তাই এটি দ্রুত শক্তি প্রদান, ভালো হজমসহ নানা উপকারে আসে।

৩. ভিটামিনের ঘাটতি পূরণ : রোজায় সারাদিন না খেয়ে থাকার কারণে শরীরে কিছু ঘাটতি তৈরি হতে পারে। পুরো এক মাস আপনার খাবারের তালিকায় খেজুর রাখলে তা সেসব ঘাটতি পূরণে সাহায্য করবে। কারণ খেজুরে থাকে ম্যাগনেশিয়াম, আয়রন, ভিটামিন ইত্যাদি। এই প্রয়োজনীয় উপাদানগুলো আমাদের শরীরের চালিকাশক্তি হিসেবে কাজ করে।

৪. শর্করার মাত্রা নিয়ন্ত্রণ : খেজুরে থাকে পর্যাপ্ত মাত্রায় ক্ষারীয় লবণ। এই উপাদান আমাদের শরীরের উচ্চ রক্তচাপ নিয়ন্ত্রণে বেশ দক্ষভাবে সাহায্য করে করে থাকে। পরিমিত খেজুর খেলে তা রক্তে শর্করার মাত্রাও নিয়ন্ত্রণ করে। তাই যারা এ ধরনের সমস্যায় ভুগছেন তাদের জন্য উপকারী একটি খাবার হতে পারে খেজুর।

৫. পানির ঘাটতি পূরণ : সারাদিন রোজা থাকার ফলে শরীরে পানির ঘাটতি তৈরি হয়। এই ঘাটতি পূরণে খেতে হবে পানি সমৃদ্ধ বিভিন্ন খাবার। এই কাজে আপনাকে সাহায্য করতে পারে খেজুর। কারণ খেজুরের মধ্যে পানির মাত্রা থাকে উল্লেখযোগ্য পরিমাণে। তাই ইফতার ও সাহরিতে খেজুর খেলে তা শরীরে পানির ঘাটতি পূরণ করে অনেকটাই।


আরও খবর
কেমন হবে বৈশাখের সাজ

শনিবার ১৩ এপ্রিল ২০২৪




ফিলিস্তিনকে রাষ্ট্র হিসেবে স্বীকৃতি দিচ্ছে ইউরোপের ৪ দেশ

প্রকাশিত:শনিবার ২৩ মার্চ ২০২৪ | হালনাগাদ:শনিবার ২৩ মার্চ ২০২৪ | অনলাইন সংস্করণ
আন্তর্জাতিক ডেস্ক

Image

ফিলিস্তিনকে স্বাধীন রাষ্ট্র হিসেবে স্বীকৃতি দিতে সম্মত হয়েছে ইউরোপের চারটি দেশ। দেশগুলো হলো স্পেন, আয়ারল্যান্ড, মাল্টা ও স্লোভেনিয়া। ইতোমধ্যে তারা ফিলিস্তিনকে স্বীকৃতি দেওয়ার প্রাথমিক পদক্ষেপ নিয়েছে।

ইউরোপভিত্তিক সংবাদমাধ্যম ইউরো নিউজের খবরে বলা হয়, গতকাল শুক্রবার ব্রাসেলসে ইউরোপিয়ান কাউন্সিলের এক বৈঠকে এ সিদ্ধান্ত নেয় দেশগুলো।

বৈঠকের পর আয়ারল্যান্ড এক যৌথ বিবৃতিতে জানায়, আমরা সম্মত হয়েছি, দীর্ঘস্থায়ী শান্তি ও স্থিতিশীলতা অর্জনের একমাত্র উপায় হলো একটি দ্বি-রাষ্ট্রীয় সমাধান বাস্তবায়ন করা। তাহলেই কেবল ইসরায়েল ও ফিলিস্তিনিরা শান্তি ও নিরাপত্তার সঙ্গে পাশাপাশি বসবাস করতে পারবে।

এদিকে, বৈঠকের পর স্পেনের প্রধানমন্ত্রী পেদ্রো সানচেজ বলেন, গত বছর শুরু হওয়া তার সরকারের চার বছরের মেয়াদকালের মধ্যে এ স্বীকৃতি মিলবে।

তিনি আরও বলেন, কাউন্সিলের সমাবেশের ফাঁকে শুক্রবার সকালে আয়ারল্যান্ড, মাল্টা ও স্লোভেনিয়ার প্রধানমন্ত্রীর সঙ্গে বৈঠকের মধ্য দিয়ে তারা একটি চুক্তিতে পৌঁছান।

গত নভেম্বরে আরব রাষ্ট্রগুলো ও ইউরোপীয় ইউনিয়ন (ইইউ) স্পেনে বৈঠক করেছিল। সেখানে তারা ফিলিস্তিনইসরালয়ের সংঘাত বন্ধে দ্বি-রাষ্ট্রভিত্তিক সমাধানে সম্মত হয়।

১৯৮৮ সাল থেকে জাতিসংঘের ১৯৩টি সদস্যরাষ্ট্রের মধ্যে ১৩৯টি ফিলিস্তিনকে রাষ্ট্র হিসেবে স্বীকৃতি দিয়ে আসছে।


আরও খবর



পতাকার আদলে ধানক্ষেত, প্রশংসায় ভাসছেন স্কুলশিক্ষক

প্রকাশিত:বুধবার ২৭ মার্চ ২০২৪ | হালনাগাদ:বুধবার ২৭ মার্চ ২০২৪ | অনলাইন সংস্করণ
মোঃ মাসুদ রানা, কুড়িগ্রাম

Image

কুড়িগ্রামের উলিপুর উপজেলায় মহান স্বাধীনতা দিবসে জাতীয় পতাকার আদলে ধান ক্ষেত সাজিয়ে প্রশংসায় ভাসছেন মোঃ আবু জাফর (৩৫) নামের এক স্কুল শিক্ষক।

ওই স্কুল শিক্ষক উলিপুর পৌর এলাকার নাওডাঙা বাকরের হাট গ্রামের মোঃ আবু বক্করের ছেলে। তিনি উলিপুর মডেল প্রাথমিক বিদ্যালয়ের সহকারী শিক্ষক বলে জানা গেছে। স্বাধীনতার মাসে ধান ক্ষেতের মাঝে চারা গাছ দিয়ে ফুটে উঠা জাতীয় পতাকার প্রতিচ্ছবি দেখতে উৎসুক জনতা ভীড় করছে।

সরেজমিনে দেখা যায়, আবু জাফরের এক একর ৩০ শতক জমিতে ধান চাষ করেছেন। এর মধ্যে ক্ষেতের এক শতক জমি জুড়ে ফুটে উঠেছে সবুজ রঙের চারা দিয়ে জাতীয় পতাকার প্রতিচ্ছবি জমির আইলের পাশ দিয়ে বেগুনি ধান গাছের চারা রোপন করে ফুটিয়ে তুলেছেন পতাকার খুঁটি। বিরি-১০৪ জাতের ধানের সবুজ চারাকে পতাকার জমিন ও জিঙ্ক সমৃদ্ধ বেগুনি ধানের চারাকে বৃত্ত ও পতাকার খুঁটি স্বরুপ সারিবদ্ধ ভাবে রোপন করেছেন তিনি। প্রথমের দিকে ধান গাছের পাতায় সমৃদ্ধ রঙ না আসায় স্পষ্ট চিত্র বুঝা না গেলেও বর্তমানে ধান গাছের পরিপক্বতার কারণে দৃশ্যমান হয়েছে ক্ষেতটি। এমন ব্যতিক্রমি পতাকার আদলে ধান ক্ষেত দেখতে প্রতিদিন লোকজন ছুটে আসছেন সেখানে।

আবু জাফর বলেন,আমি শিক্ষকতার পাশাপাশি কৃষি চাষাবাদ করে থাকি। দেশের প্রতি ভালোবাসা ও মমত্ব প্রকাশে মানুষজন বিভিন্নভাবে নিজেকে উপস্থাপন করতে চায়। তেমনি আমিও চেষ্টা করছিলাম মাত্র। স্বাধীনতার মাসে জাতীয় পতাকার আদলে করা ধানক্ষেতটি দৃশ্যমান হওয়ায় মানুষজনের দেখার আগ্রহ বেড়েছে।

ধান ক্ষেত দেখতে আসা লিটন মিয়া বলেন, মানুষজন দেশের প্রতি ভালোবাসা ও শ্রদ্ধাবোধ থেকেই মুলত ব্যতিক্রমী কাজ করে থাকে। আবু জাফর ভাইয়ের জাতীয় পতাকার আদলে করা ধানক্ষেতটি সত্যি প্রশংসনীয়। এমন দৃশ্য দেখে আমি মুগ্ধ হয়েছি। এটি দেখে অনেকের মাঝে দেশপ্রেম জাগ্রত হবে বলে জানান তিনি।

শিক্ষার্থী মোঃ রাজু মিয়া বলেন, আমি বিভিন্ন কারুকার্য যেমন বইয়ের পাতা ও কাপড়ের তৈরি, পাথরের তৈরি সাজানো পতাকা দেখেছি। তবে ধানের চারা লাগিয়ে যে জাতীয় পতাকার প্রতিচ্ছবি বানানো যায় তা প্রথম দেখলাম সত্যি ভালো লাগলো।

কুড়িগ্রাম কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তরের উপ-পরিচালক বিপ্লব কুমার মোহন্ত বলেন, একজন কৃষক দেশের প্রতি ভালোবাসার নিদর্শন হিসেবে জমিতে জাতীয় পতাকার আদলে যে শস্যচিত্র ফুটিয়ে তুলেছে সত্যিই প্রশংসার দাবিদার। কৃষকদের পরামর্শ ও সহযোগিতায়

কৃষি বিভাগ সব সময় পাশে থাকবে বলে তিনি জানান।


আরও খবর