আজঃ বুধবার ২৫ মে ২০২২
শিরোনাম

হাজী সেলিমের খালাসের বিরুদ্ধে দুদকের আপিল

প্রকাশিত:মঙ্গলবার ১০ মে ২০২২ | হালনাগাদ:মঙ্গলবার ১০ মে ২০২২ | ৪৯৫জন দেখেছেন
দর্পণ নিউজ ডেস্ক

Image

অবৈধ সম্পদ অর্জনের মামলায় তথ্য গোপনের অভিযোগে তিন বছরের সাজা থেকে সংসদ সদস্য (এমপি) হাজী মোহাম্মদ সেলিমকে খালাসের বিরুদ্ধে আপিল করেছে দুর্নীতি দমন কমিশন (দুদক)।

মঙ্গলবার (১০ মে) দুদকের আইনজীবী খুরশিদ আলম খান গণমাধ্যমকে বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন। তিনি বলেন, তিন বছরের সাজা থেকে হাজী সেলিমকে হাইকোর্ট খালাস দিয়েছিলেন। তার বিরুদ্ধে আমরা আপিল করেছি।

এর আগে ২০০৭ সালের ২৪ অক্টোবর হাজী সেলিমের বিরুদ্ধে লালবাগ থানায় অবৈধভাবে সম্পদ অর্জনের অভিযোগে মামলা করে দুর্নীতি দমন কমিশন (দুদক)। এ মামলায় ২০০৮ সালের ২৭ এপ্রিল তাকে দুই ধারায় ১৩ বছরের কারাদণ্ড দেন বিচারিক আদালত। ২০০৯ সালের ২৫ অক্টোবর এ রায়ের বিরুদ্ধে হাইকোর্টে আপিল করেন হাজী সেলিম। ২০১১ সালের ২ জানুয়ারি হাইকোর্ট এক রায়ে তার সাজা বাতিল করেন।

পরবর্তী সময়ে হাইকোর্টের রায়ের বিরুদ্ধে আপিল করে দুদক। ওই আপিলের শুনানি শেষে ২০১৫ সালের ১২ জানুয়ারি হাইকোর্টের রায় বাতিল করে পুনরায় হাইকোর্টে শুনানির নির্দেশ দেন আপিল বিভাগ।

এরপর গত ৯ মার্চ অবৈধ সম্পদ অর্জনের অভিযোগে আওয়ামী লীগ দলীয় সংসদ সদস্য (এমপি) হাজী মোহাম্মদ সেলিমকে বিচারিক আদালতের দেওয়া ১০ বছর কারাদণ্ডাদেশ বহাল রাখেন হাইকোর্ট। তবে একই মামলায় তথ্য গোপনের অভিযোগে তিন বছরের দণ্ড থেকে খালাস পান তিনি। রায় ঘোষণার ৩০ দিনের মধ্যে তাকে বিচারিক আদালতে আত্মসমর্পণ করতে বলা হয়। বিচারপতি মো. মঈনুল ইসলাম চৌধুরী ও বিচারপতি এ কে এম জহিরুল হকের সমন্বয়ে হাইকোর্ট বেঞ্চ এ রায় দেন।

ওই রায় ঘোষণার পর আইনজীবী মো. খুরশীদ আলম খান বলেছিলেন, দুদক আইনে (২৬ এর ২ ধারা) করা মামলায় সম্পদের তথ্য গোপনের অভিযোগে হাজী সেলিমকে বিচারিক আদালত ৩ বছরের কারাদণ্ডাদেশ দিয়েছিলেন। সেই অভিযোগ সন্দেহাতীতভাবে প্রমাণিত না হওয়ায় হাজী সেলিমকে তথ্য গোপনের অভিযোগ থেকে খালাস দিয়েছেন হাইকোর্ট। আদালত বলেছেন, দুদক এ অভিযোগ প্রমাণ করতে পারেনি।

কিন্তু দুদক আইনের ২৭ (১) ধারা অনুসারে জ্ঞাত আয়বহির্ভূত সম্পদ অর্জনের দায়ে হাজী সেলিমকে বিচারিক আদালত ১০ বছরের কারাদণ্ডাদেশ দিয়েছিলেন। ওই অভিযোগে তার সাজা বহাল রেখেছেন হাইকোর্ট। একইসঙ্গে ১০ লাখ টাকা জরিমানা, অনাদায়ে ১ বছরের সশ্রম কারাদণ্ডাদেশের রায় দেন আদালত।


আরও খবর



হজ প্যাকেজ ঘোষণা, ব্যয় বেড়েছে

প্রকাশিত:বুধবার ১১ মে ২০২২ | হালনাগাদ:বুধবার ১১ মে ২০২২ | ৪১৫জন দেখেছেন
দর্পণ নিউজ ডেস্ক

Image

চলতি বছর হজযাত্রীদের জন্য সরকারিভাবে দুটি প্যাকেজ এবং বেসরকারিভাবে একটি প্যাকেজ ঘোষণা করেছে সরকার। আজ বুধবার সচিবালয়ে হজ ব্যবস্থাপনা সংক্রান্ত নির্বাহী কমিটির সভা শেষে সংবাদ সম্মেলনে ধর্ম প্রতিমন্ত্রী মো. ফরিদুল হক খান সাংবাদিকের এ তথ্য জানান।

প্রতিমন্ত্রী বলেন, সরকারিভাবে হজে যেতে প্রস্তাবিত প্যাকেজ-১-এ পাঁচ লাখ ২৭ হাজার ৩৪০ এবং প্যাকেজ-২-এ চার লাখ ৬২ হাজার ১৫০ টাকা খরচ হবে। বেসরকারি ব্যবস্থাপনায় হজে যেতে একটি প্যাকেজ এ খরচ ধরা হয়েছে চার লাখ ৫৬ হাজার ৬৩০ টাকা।

সবশেষ ২০১৯ সালে বাংলাদেশ থেকে সৌদি আরবে গিয়েছিলেন হজযাত্রীরা। তখন হজ পালনে প্যাকেজ-১-এ চার লাখ ১৮ হাজার ৫০০ এবং প্যাকেজ-২-এ খরচ ধরা হয়েছিল তিন লাখ ৪৪ হাজার টাকা।

সংবাদ সম্মেলনে ধর্মমন্ত্রী বলেন, আগামী ৮ জুলাই সৌদি আরবে পবিত্র হজ অনুষ্ঠিত হবে। দ্বি-পাক্ষিক হজচুক্তি অনুযায়ী বাংলাদেশ থেকে এ বছর সরকারি ব্যবস্থাপনায় ৪ হাজার জন ও বেসরকারি ব্যবস্থাপনায় ৫৩ হাজার ৫৮৫ জনসহ সর্বমোট ৫৭ হাজার ৫৮৫ জন হজযাত্রী পবিত্র হজ পালনের জন্য সৌদি আরব যাওয়ার সুযোগ পাবেন। হজযাত্রীর বিমান ভাড়া, সৌদি আরবের বাড়ি ভাড়া, সার্ভিস চার্জ, মুয়াল্লিম ফি, জমজমের পানি, খাবার খরচ এবং অন্যান্য ফি হিসাব করে ২০২২ সালের জন্য সরকারি ব্যবস্থাপনার জন্য ২টি প্যাকেজ এবং বেসরকারি ব্যবস্থাপনার এজেন্সিগুলোর জন্য একটি প্যাকেজের প্রস্তাব করা হয়েছে। এছাড়াও হজযাত্রীদের কোরবানি বাবদ প্যাকেজ মূল্যের অতিরিক্ত ৮১০ সৌদি রিয়াল বা ১৯ হাজার ৬৮৩ টাকা পরিশোধ করতে হবে।

মন্ত্রী বলেন, ২০২০ সালে সৌদি রিয়ালের বিনিময় হার ছিল ২৩ টাকা। আজ এই হারের পরিমাণ ২৪ টাকা ৩০ পয়সা। এটিও প্যাকেজ মূল্য বাড়ার অন্যতম কারণ। এছাড়া সৌদি আরবে সব খাতের উপর ১৫ শতাংশ ভ্যাট, সার্ভিস চার্জ, কর অন্তর্ভুক্ত করা হয়েছে। মোয়াচ্ছাছা এর খরচ দ্বিগুণ হয়েছে। বাড়ি ভাড়া বেড়েছে।


আরও খবর
প্রথম হজ ফ্লাইট ৫ জুন শুরু

মঙ্গলবার ২৪ মে ২০২২




নিউমার্কেটে সংঘর্ষ: ফাস্টফুডের দোকানের সেই দুই কর্মচারী গ্রেফতার

প্রকাশিত:মঙ্গলবার ১০ মে ২০২২ | হালনাগাদ:মঙ্গলবার ১০ মে ২০২২ | ৪২০জন দেখেছেন
দর্পণ নিউজ ডেস্ক

Image

নিউমার্কেট এলাকায় সংঘর্ষের ঘটনায় গ্রেফতার নিউ মার্কেট ক্যাপিটাল ফাস্টফুড দোকানের দুই কর্মচারী মো. বাবু হোসেন ও কাওসার।

রাজধানীর নিউমার্কেট এলাকায় ঢাকা কলেজের শিক্ষার্থী ও ব্যবসায়ীদের মধ্যে সংঘর্ষের ঘটনায় দুজনকে গ্রেফতার করেছে ঢাকা মেট্রোপলিটন পুলিশের (ডিএমপি) গোয়েন্দা বিভাগ (ডিবি)। গ্রেফতাররা হলেন- নিউমার্কেট ক্যাপিটাল ফাস্টফুডের দোকানের কর্মচারী কাউসার ও বাবু।

সোমবার (৯ মে) রাতে রাজধানীর হাজারীবাগ এলাকা থেকে তাদের গ্রেফতার করা হয়। মঙ্গলনার (১০ মে) বিকেলে বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন ডিবি প্রধান ও অতিরিক্ত পুলিশ কমিশনার এ কে এম হাফিজ আক্তার।

এ বিষয়ে ডিবি রমনা বিভাগের উপ-পুলিশ কমিশনার (ডিবি) এইচ এম আজিমুল হক বলেন, সংঘর্ষ চলাকালে পুলিশের ওপর হামলার ঘটনায় নিউমার্কেট থানায় দায়ের করা মামলায় তাদের গ্রেফতার করা হয়েছে।

এর আগে, গত ১৮ এপ্রিল রাত ১২টার দিকে ঢাকা কলেজের শিক্ষার্থীদের সঙ্গে নিউমার্কেটের ব্যবসায়ী ও কর্মচারীদের সংঘর্ষ হয়। প্রায় আড়াই ঘণ্টা চলে এ সংঘর্ষ। এরপর রাতে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে এলেও পরেরদিন মঙ্গলবার সকাল ১০টার পর থেকে ফের দফায় দফায় শুরু হয় সংঘর্ষ, যা চলে সন্ধ্যা পর্যন্ত।

এ ঘটনায় উভয়পক্ষের অর্ধ শতাধিক আহত হয়ে হাসপাতালে চিকিৎসাধীন রয়েছেন। এছাড়া সংঘর্ষের ঘটনায় চিকিৎসাধীন অবস্থায় দুজন মারা গেছেন। তাদের একজন ডেলিভারিম্যান, অন্যজন দোকান কর্মচারী ছিলেন।

সংঘর্ষের সূত্রপাত নিউমার্কেটের ভেতরে থাকা ওয়েলকাম ও ক্যাপিটাল ফাস্টফুড নামের দুই দোকান কর্মচারীর দ্বন্দ্ব থেকে। সেই দোকান দুটি সিটি করপোরেশন থেকে মকবুলের নামে বরাদ্দ রয়েছে। তবে কোনো দোকানই নিজে চালাতেন না মকবুল। রফিকুল ইসলাম ও শহিদুল ইসলাম নামে দুজনকে ভাড়া দিয়েছেন দোকান দুটি। রফিকুল ও শহিদুল পরস্পর আত্মীয়।

সংঘর্ষের ঘটনায় পুলিশ বাদী হয়ে দুটি মামলা করে। একটি মামলা বিস্ফোরক আইনে এবং অন্যটি পুলিশের ওপর হামলার অভিযোগে করা হয়। দুই মামলায় নিউমার্কেটের ব্যবসায়ী, কর্মচারী ও ঢাকা কলেজের শিক্ষার্থীসহ মোট ১২০০ জনকে আসামি করা হয়।

এছাড়া সংঘর্ষে নিহত নাহিদের বাবা মো. নাদিম হোসেন ও মুরসালিনের ভাই নুর মোহাম্মদ বাদী হয়ে নিউমার্কেট থানায় দুটি হত্যা মামলা করেন। এই চার মামলায় অজ্ঞাতনামা আসামি করা হয়েছে প্রায় এক হাজার ৪০০ জনকে। তবে তিনটি মামলার মধ্যে শুধু পুলিশের কাজে বাধা দেওয়ার অভিযোগে করা মামলায় বিএনপি নেতা মকবুলসহ ২৪ জনের নাম উল্লেখ করা হয়।


আরও খবর



সরকারি কর্মচারীদের ৬০ শতাংশ বেতন বৃদ্ধির দাবি

প্রকাশিত:শনিবার ২১ মে ২০২২ | হালনাগাদ:শনিবার ২১ মে ২০২২ | ২৫০জন দেখেছেন
দর্পণ নিউজ ডেস্ক

Image

নতুন জাতীয় বেতন স্কেল প্রদান না করা পর্যন্ত সরকারি কর্মচারীদের অন্তবর্তীকালীন ৬০ শতাংশ বেতন বাড়ানোর দাবি জানিয়েছে বাংলাদেশ তৃতীয় শ্রেণি সরকারি কর্মচারী সমিতি।

শনিবার (২১ মে) ঢাকা রিপোর্টার্স ইউনিটির (ডিআরইউ) সাগর-রুনি মিলনায়তনে আয়োজিত এক সংবাদ সম্মেলনে এ দাবি জানান তারা।

সংবাদ সম্মেলনে লিখিত বক্তব্য পাঠ করেন সমিতির মহাসচিব মো. ছালজার রহমান। তিনি বলেন, ২০১৫ সালে সর্বশেষ জাতীয় বেতন স্কেল প্রদানের পর বিগত সাত বছরে গ্যাস, বিদ্যুৎ, পানি, চিকিৎসা ব্যয়সহ নিত্যপ্রয়োজনীয় দ্রব্যের মূল্য অস্বাভাবিকভাবে বৃদ্ধি পেয়েছে। ফলে সীমিত আয়ের সরকারি কর্মচারীদের জীবনযাপন কষ্টসাধ্য হয়ে পড়েছে। এ অবস্থায় নতুন জাতীয় বেতন স্কেল প্রদান অত্যাবশ্যক।

তবে নতুন বেতন স্কেল প্রদান না করা পর্যন্ত সরকারি কর্মচারীদেরকে অন্তবর্তীকালীন ৬০ শতাংশ বেতন বৃদ্ধির দাবি জানানো হয়। একইসঙ্গে চিকিৎসা ভাতা ৪ হাজার টাকা দিতে হবে। প্রজাতন্ত্রের কর্মচারীদের মধ্যে বৈষম্য নিরসনকল্পে বাংলাদেশ সচিবালয়ের ন্যায় সচিবালয় বহির্ভূত অধিদপ্তর, পরিদপ্তর, দপ্তর-প্রতিষ্ঠান, সংস্থা, বিভাগীয় কমিশনার, জেলা প্রশাসকের কার্যালয়ে কর্মরত প্রধান সহকারী, উচ্চমান সহকারী, স্টেনোগ্রাফার, কম্পিউটার অপারেটর, স্টোর কিপারসহ সমমানের-সমমর্যাদার কর্মচারীদের পদ- পদবি প্রশাসনিক কর্মকর্তা, ব্যক্তিগত কর্মকর্তা, প্রযোজ্য ক্ষেত্রে স্বপদে দ্বিতীয় শ্রেণির পদমর্যাদা ও বেতনস্কেল প্রদান, ডিপ্লোমা নার্সদের ন্যায় সমশিক্ষাগত যোগ্যতাসম্পন্ন ডিপ্লোমা হেলথ টেকনোলজিস্ট, ফার্মাসিস্ট ও সমশিক্ষাগত যোগ্যতাধারীদের দ্বিতীয় শ্রেণির পদমর্যাদাসহ বেতনস্কেলের দাবি জানান তারা।

এসব দাবি বাস্তবায়নে আগামী ২৪ মে প্রধানমন্ত্রীর কাছে স্মারকলিপি প্রদান, ২৬ মে থেকে ৯ জুন পর্যন্ত রাজধানীর বিভিন্ন দপ্তর ও প্রতিষ্ঠান, প্রশাসনিক বিভাগ ও জেলাগুলোতে দাবির সমর্থনে কর্মচারী সমাবেশের ঘোষণা দেওয়া হয়। দাবি বাস্তবায়ন না হলে ১১ জুন জাতীয় প্রেস ক্লাবের সামনে মানববন্ধন কর্মসূচি পালন করা হবে বলেও জানান বক্তরা।

সংবাদ সম্মেলনে আরও উপস্থিত ছিলেন সমিতির সভাপতি মো. লুৎফর রহমান, কার্যকরী সভাপতি নূরুন্নবী, রায়হান চৌধুরী প্রমুখ।


আরও খবর



নিখোঁজের আট দিন পর নিজবাড়ির গর্ত থেকে বস্তাবন্দি মরদেহ উদ্ধার

প্রকাশিত:মঙ্গলবার ২৪ মে ২০২২ | হালনাগাদ:মঙ্গলবার ২৪ মে ২০২২ | ৪৬০জন দেখেছেন

Image

হিলি প্রতিনিধি:

দিনাজপুরের বিরামপুরে নিখোঁজের ৮দিন পর নিজ বাড়ির টিউবওয়েলের পানি যাওয়া গর্তের পাশ থেকে খাদেমুল ইসলাম(৭০) নামের এক গরু ব্যবসায়ীর বস্তাবন্দি মরদেহ উদ্ধার করেছে বিরামপুর থানা পুলিশ।

আজ মঙ্গলবার বিকেল পৌনে ৫টার দিকে পৌরশহরের পূর্বপাড়া এলাকায় নিজ বাড়ির টিউবওয়েলের নালার নিচে গর্ত থেকে তার মরদেহ উদ্ধার করা হয়। এর আগে গত রোববার (২২ মে) খাদেমুলের ছেলে থানায় একটি সাধারণ ডায়েরি করেন। নিহত খাদেমুল ইসলাম ওই এলাকার সুজার উদ্দিনের ছেলে।

পরিবারের বরাতদিয়ে পুলিশ জানায়, খাদেমুল একজন গরু ব্যবসায়ী। বিভিন্ন হাটে গরু বিক্রয় করে জীবিকা নির্বাহ করেন। গেল মঙ্গলবার নিজ বাড়ি থেকে বের হয়ে সে আর ফিরে আসেন নি।পরিবারের লোকজন অনেক খোঁজাখুজির পর তাকে না পেয়ে খাদেমুলের ছেলে রায়হান আলী বিরামপুর থানায় পিতার সন্ধান চেয়ে (২২ মে) একটি সাধারণ ডায়েরি করেন। এর পর থেকে পুলিশ বিষয়টি নিয়ে তদন্তে নামেন।

আজ মঙ্গলবার বিকেলে খাদেমুলের বাড়িতে তদন্তে আসেন পুলিশের একটি দল। সেখানে টিউবওয়েলের নালার পাশ বালু ভর্তি বস্তার পাশ থেকে বিকটগন্ধ আসতে থাকে। পুলিশের সন্দেহ হলে ওই স্থানটি খুঁড়ে খাদেমুলের বস্তাবন্দি মরদেহ উদ্ধার করা হয়।

বিরামপুর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) সুমন কুমার মহন্ত বলেন,নিজবাড়ির টিউবওয়েলের পানি নামার গর্তের ভেরত মাটি চাপা অবস্থায় খাদেমুলের মরদেহ উদ্ধার করা হয়েছে। কি কারণে তাকে হত্যা করে মাটি চাপা দিয়ে গুমের চেষ্ঠা করা হয়েছে তদন্ত করলেই বেরিয়ে আসবে।


আরও খবর
পাকা কলার কেজি ৫০ টাকা

রবিবার ১৫ মে ২০২২




৩ ব্যায়াম: পায়ের মেদ ঝরাবে দ্রুত

প্রকাশিত:বুধবার ২৭ এপ্রিল ২০২২ | হালনাগাদ:বুধবার ২৭ এপ্রিল ২০২২ | ৪৩০জন দেখেছেন
দর্পণ নিউজ ডেস্ক

Image

ওজন কমানো কোনও চটজলদি প্রক্রিয়া নয়। নিয়মিত শরীরচর্চা, পরিমিত খাওয়াদাওয়া ওজন কমানোর ঝক্কি অনেক। এ দিকে শরীর সুস্থ রাখতে ওজন নিয়ন্ত্রণে রাখার বিকল্প কিছু নেই। রোগা হওয়ার এই পর্বে অনেকেই ধৈর্য হারিয়ে ফেলেন। হাল ছেড়ে দেন। তবে ফিটনেস বিশেষজ্ঞরা বলছেন, শরীরচর্চা করলেই দ্রুত মেদ ঝরবে এমন নয়। শরীরচর্চার ক্ষেত্রেও কয়েকটি কৌশল মেনে চলা প্রয়োজন। কোন ধরনের ব্যায়াম করছেন সেটাও ওজন কমানোর ক্ষেত্রে অত্যন্ত জরুরি। শরীরের মেদ জমার পাশাপাশি পায়েও অনেক সময় মেদ জমে। নিজেকে ঝরঝরে ও মেদহীন রাখতে বাড়িতেই নিয়মিত ৩টি সহজ ব্যায়াম করতে পারেন।

১) স্কোয়াট: দু পায়ের মধ্যে মোটামুটি ১০ ইঞ্চি দূরত্ব রেখে হাত দুটো মুঠো করুন। এ বার অর্ধেক বসার ভঙ্গিতে উপর এবং নীচে করুন। এটি করার সময় পায়ের পেশিতে এবং পেটে টান অনুভব করবেন। যত বার করা সম্ভব হয় ততবারই করুন। কষ্ট হলে থেমে যান। এই ব্যায়াম পায়ের মেদ ঝরাতে সাহায্য করে।

২) সিঙ্গল লেগ সার্কেল: দু পায়ের মাঝে বেশ খানিকটা দূরত্ব রেখে মাটিতে সোজা হয়ে দাঁড়ান। এ বার বাঁ পায়ের উপর ভর দিয়ে ডান পা মাটি থেকে উপরে তুলুন। লক্ষ্য রাখুন আপনার পায়ের পাতা যেন সোজাসুজি থাকে। পায়ের পাতা ঘোরান। একই জিনিস পা বদল করে করুন।

৩) পাইল স্কোয়াট: দুই পায়ের মাঝে বেশ খানিকটা দূরত্ব রেখে মাটিতে সোজা হয়ে দাঁড়ান। এ বার হাফ সিটিং ভঙ্গিতে বসুন। আপনার মেরুদণ্ড ও শরীরের উপরের ভাগ যেন সোজা থাকে, সে দিকে লক্ষ্য রাখতে হবে। এই ভঙ্গিতে প্রায় ২ সেকেন্ড থাকুন। আবার সোজা হয়ে দাঁড়ান। বিশ্রাম নিয়ে আবার শুরু করুন।

নিউজ ট্যাগ: পায়ের মেদ

আরও খবর